জৌলুস হারাচ্ছে পটুয়াখালীর শহীদ স্মৃতি পাঠাগার

0
0
সর্বমোট
0
শেয়ার

কালের বিবর্তনে জৌলুস হারাচ্ছে পটুয়াখালীর শহীদ স্মৃতি পাঠাগার। তারপরও ভাষা আন্দোলনের স্মৃতি বহন করে চলছে পাঠাগারটি। যেখানে এসেছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বিখ্যাত কবি বেগম সুয়িফা কামালসহ মনীষীরা। অধিকাংশ রাজনীতিবিদের রাজনীতিতে হাতে খড়ি এ পাঠাগার থেকে। প্রগতিশীল রাজনীতির সুতিকাগার এই পাঠাগারটি। এমনটাই বলছেন সংশ্লিষ্টরা।

পাঠাগার সূত্রে জানাযায়, ১৯৫৪ সালের ১৭ এপ্রিল যাত্রা শুরু করে পটুয়াখালীর শহীদ স্মৃতি পাঠাগার। বাহান্নের ২১ ফেব্রুয়ারি ঢাকায় ১৪৪ ধারা ভঙ্গকারীদের সাথে গ্রেফতার হন পটুয়াখালীর কৃতি সন্তান এবিএম আবদুল লতিফ। পুলিশের ট্রাক থেকে পালিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজে গিয়ে শহীদদের রক্তমাখা কাপড় নিয়ে ভাষা আন্দোলনের অন্যতম নেতৃত্বদানকারী পটুয়াখালীর আরেক কৃতি সন্তান সৈয়দ আশরাফ হোসেন। পরে তিনি জুবিলী স্কুল মাঠে সভা করেন সতীর্থদের সাথে।

সেখানে কবি খন্দকার খালেককে আহবায়ক করে ‘পটুয়াখালী মহাকুমা বাংলা ভাষা আন্দোলন পরিষদ’ গঠন করা হয় সংস্কৃতিমনারা জানান, নতুন প্রজন্ম এ পাঠাগারে এসে জ্ঞান চর্চার পাশাপাশি নিজেদেরকে সংস্কৃতি চর্চায় যুক্ত রাখছে। শুদ্ধ বাঙলি সংস্কৃতি চর্চার আধার হিসেবে পাঠাগারটি অগ্রগন্য।

তবে পাঠাগারটির এখন জরাজীর্ন অবস্থা। রয়েছে উপকরণ আর জায়গার অভাব। ছাদ চুপশে পানি পড়ে। কোথায় আবার ছাদ দেয়ালের পলেস্তার উঠে গেছে। তবে এ ব্যাপারে সকল প্রকার সহযোগীতার আশ্বাস দিয়েছেন জেলা প্রশাসন।

সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ খুব দ্রুত জরাজীর্ন এ পাঠাগারটি সংরক্ষণ করবে এমটাই প্রত্যাশা সকলের।

0
0
সর্বমোট
0
শেয়ার

Comments

comments