নিবন্ধন : ডিএ নং- ৬৩২৯ || মঙ্গলবার , ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ৯ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ২৪শে মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা যুবরাজের

আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা যুবরাজের

বিশ্বকাপে ওভালে অস্ট্রেলিয়াকে উড়িয়ে দেয়ার পর ভারতজুড়ে যখন আনন্দ উৎসব, তখন ক্রিকেটপ্রেমিদের জন্য বয়ে এল একটি দু:সংবাদ। ভারতীয় ক্রিকেট ফ্যানরা জানতে পারলেন অলরাউন্ডার যুবরাজ সিং ভারতের হয়ে আর আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলবেন না। ব্যাট-প্যাড তুলে রাখার সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিলেন যুবরাজ সিং।

যুবরাজ সিং ভারতের হয়ে ওয়ানডে, টি টোয়েন্টি ও টেস্ট মিলিয়ে ৪০০টি আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলেন। ১৯ বছরের ক্যারিয়ার শুরু করেন ২০০০ সালে ওয়ানডে অভিষেকের মধ্য দিয়ে। ২০০৩ সালে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে তার টেস্ট অভিষেক হয়। আর স্কটল্যান্ডের বিপক্ষে ২০০৭ সালে তার টি-টোয়েন্টি অভিষেক হয়।

দীর্ঘ ক্যারিয়ারে যুবরাজ সিং ক্যানসারের মুখোমুখি হন। যুবরাজ একমাত্র ক্রিকেটার যিনি ক্যানসারের চিকিৎসা শেষে সুস্থ হয়ে ফের ক্রিকেটে ফিরেন। ক্রিকেটে ফিরে ২০১৭ সাল পর্যন্ত তিনি ভারতীয় ক্রিকেট দলের নিয়মিত সদস্য ছিলেন। এরপর অনেকটা সাইড লাইনে চলে যান।

সোমবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর ঘোষণা দিয়ে ৩৭ বছর বয়সী যুবরাজ সিং সংবাদ সম্মেলনে বলেন, ‘২৫ বছর ধরে টানা খেলে যাচ্ছি। এখন মনে হচ্ছে ক্যারিয়ারে ইতি টানা দরকার। ক্রিকেট আমাকে অনেক কিছু দিয়েছে। যে কারণে আমি আজকের এ অবস্থানে।’

ভারতের হয়ে ৪০০ আন্তর্জাতিক ম্যাচ খেলতে পেরে সত্যিই আমি ভাগ্যবান। আমি যখন খেলাটা শুরু করি তখন চিন্তাও করতে পারেনি এতদূর আসতে পারব।

অথচ যুবরাজের অবসনের বিষয়টা এমন হওয়ার কথা ছিল না। যুবরাজ চেয়েছিলেন, ২০১৯ বিশ্বকাপ খেলেই তিনি অবসরের কথা জানিয়ে দেবেন। মানুষ যা ভাবে, তা তো সব সময়ে হয় না। মহেন্দ্র সিংহ ধোনি, বিরাট কোহালিরা যখন ইংল্যান্ডে নিজেদের নিংড়ে দিচ্ছেন, তখনই যুবরাজ হৃদয়বিদারক সিদ্ধান্তটা নিয়ে ফেললেন।

তাঁর অবসর নিয়ে কম জলঘোলা হয়নি। শেষের দিকে প্রায় প্রতিটি সংবাদ সম্মেলনেই নিয়ম করে তাঁকে প্রশ্ন ছুড়ে দেওয়া হত, কবে অবসব নেবেন? প্রশ্ন শুনে চুপ করে থাকতেন যুবরাজ। একই প্রশ্ন শুনতে শুনতে বিরক্ত বাঁ হাতি অলরাউন্ডার এক বার বলে ফেলেছিলেন, ‘একটা সময়ের পর সবাইকেই সিদ্ধান্ত নিতে হয়। ২০০০ সাল থেকে আমি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলছি। ১৭-১৮ বছর হয়ে গেল। ২০১৯ সালের পর আমি এই ব্যাপারে ভাবব।’

কথা রাখলেন না যুবরাজ। বছর শেষ হওয়ার আগেই সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিলেন। হতাশ করলেন তার অগনিত ভক্তদের।

যুবরাজ যে অবসর নিতে চলেছেন, এরকম একটা খবর গত কয়েকদিন ধরেই বয়ে বেড়াচ্ছিল ভারতীয় ক্রিকেট মহলে। ভারত-অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপের জন্য যুবরাজের অবসরের খবরটা চাপা পড়ে গিয়েছিল। সোমবার থেকে সোশ্যাল মিডিয়ায় ২০১১ বিশ্বকাপের মহানায়কের বিদায় জানানোর খবর ঝড়ের মতো ছড়িয়ে পড়ে। দুপুরেই যুবরাজ ঘোষণা করে দিলেন, অনেক হয়েছে। আর নয়।

যুবরাজ সিংহের ক্রিকেট ক্যারিয়ার বর্নাঢ্য। ২০১১ বিশ্বকাপ প্রায় একাই জিতিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। তার পরেই ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে ক্রিকেট থেকে সাময়িক বিরতির পরে ফিরে আসেন রাজকীয় ভাবেই। আইপিএল খেলে জাতীয় দলে ফেরার স্বপ্ন দেখছিলেন তিনি। সেই স্বপ্ন সফল হবে না বুঝতে পেরেই বিশ্বকাপের মাঝখানে অবসরের ঘোষণা করে দিলেন তিনি।

যুবরাজ ৪০ টেস্ট খেলে ৩৩.৯২ গড়ে করেছেন ১৯০০ রান। এর মধ্যে সেঞ্চুরি তিনটি ও সর্বোচ্চ স্কোর ১৬৯। ৩০৪ ওয়ানডে খেলে ৮৭০১ রান করেছেন যুবরাজ। এর মধ্যে সেঞ্চুরি ১৪টি, আর অর্ধশতক ৪২টি। গড় ৩৬ দশমিক ৫৫। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সর্বোচ্চ ১৫০ রানের স্কোর আছে তার ব্যাট থেকে। টি-টোয়েন্টিতে ৫৮ ম্যাচ খেলে ১১৭৭ রান করেছেন। তার ব্যাটিং গড় ১৩৬. ৩৮। সর্বোচ্চ ৭৭ রান করেছেন অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে।

Comments

comments

এমন আরো খবর:

Web developed by: AsadZone.Com

Send this to a friend