ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ৪০ কি.মি থেমে থেমে চলছে গাড়ি

0
0
সর্বমোট
0
শেয়ার

ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব এলাকা থেকে করটিয়া পর্যন্ত ৪০ কিলোমিটার রাস্তায় যানবাহন চলছে থেমে থেমে। এর ফলে গোড়াই, মির্জাপুর, পাকুল্যা, করটিয়া বাইপাস, নগর জালফৈ, রাবনা বাইপাস, পৌংলি, এলেঙ্গা ও বঙ্গবন্ধুসেতু পূর্বপার এলাকায় মাঝে মাঝেই যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে।

 

বর্তমানে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে স্বাভাবিক যানবাহন চলাচলে চেয়ে দুই থেকে তিনগুণ বেশি যানবাহন চলাচল করছে। তাছাড়া পশুবাহী ট্রাক এবং যাত্রীবাহী বিভিন্ন গাড়ি বিভিন্নস্থানে বিকল হয়ে ১৫-২০ মিনিট সড়কের উপরে অবস্থান করলেই দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে।

 

এদিকে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে স্বাভাবিক গতিতে যানবাহন চলাচলে সাত শতাধিক পুলিশ দায়িত্ব পালন করছে। চন্দ্রা থেকে এলেঙ্গা পর্যন্ত চারলেন বঙ্গবন্ধুসেতু এলাকায় দুইলেনে প্রবেশ করায় অতিরিক্ত গাড়ির চাপে মাঝে মধ্যেই যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। হাইওয়ে পুলিশের এক সার্জেন্ট জানান, এলেঙ্গা থেকে মির্জাপুর পর্যন্ত ধীরগতিতে যানবাহন চলাচল করছে। যানজট নিরসনে পুলিশ কাজ করছে।

 

এছাড়া, বঙ্গবন্ধুসেতু টোল প্লাজায় অতিরিক্ত গাড়ির চাপের কারণে টোল আদায় করতে সময় লাগায় দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হচ্ছে। যানজটে আটকে থাকা যাত্রীরা জানান, ঢাকা-টাঙ্গাইল দুই ঘণ্টার পথ পাড়ি দিতে সময় লাগছে ৬-৭ ঘণ্টা।

 

বঙ্গবন্ধু সেতু দিয়ে যানবাহন পারাপারের রেকর্ড

এবারের ঈদুল আজহায় বঙ্গবন্ধু সেতু দিয়ে এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ সংখ্যক যানবাহন পারাপার হয়েছে বলে জানিয়েছে সেতু কতৃপক্ষ।

 

বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের নির্বাহী প্রকৌশলী আহসানুল কবির জানান, গতকাল শুক্রবার ভোর ৬টা থেকে শনিবার ভোর ৬টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ৩৬ হাজার ৩৩৭টি যানবাহন পারাপার হয়েছে। যা এ যাবৎকালের সর্বোচ্চ রেকর্ড। এতে টোল আদায় হয়েছে ২ কোটি ৬০ লাখ ৪৩ হাজার ১৪০ টাকা। এর মধ্যে ঢাকা থেকে উত্তরবঙ্গগামী গাড়ির সংখ্যা ছিল ২৪ হাজার ৩০৮টি আর উত্তরবঙ্গ থেকে ঢাকাগামী গাড়ি ছিল ১২ হাজার ১৩৯টি।

0
0
সর্বমোট
0
শেয়ার

Comments

comments