নিবন্ধন : ডিএ নং- ৬৩২৯ || মঙ্গলবার , ২৪শে সেপ্টেম্বর, ২০১৯ ইং , ৯ই আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ , ২৩শে মুহাররম, ১৪৪১ হিজরী
শিরোনাম

ছেলেদেরও প্রয়োজন ত্বকের যত্ন, যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখবেন

ছেলেদেরও প্রয়োজন ত্বকের যত্ন, যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখবেন

মেয়েদের ত্বকের জন্য যতটা যত্নের প্রয়োজন হয়, ছেলেদের ক্ষেত্রে ততটা না হলেও কিছুটা তো প্রয়োজন হয়ই। কারণ ছেলেদেরকে তুলনামূলক বাইরের তীব্র রোদ, ধুলোবালির মুখোমুখি হতে হয় বেশি। যা কিনা আমাদের ত্বকের জন্য একদমই উপকারী নয়। কিন্তু দিনশেষে বাসায় ফিরে ক’জন পুরুষ তার ত্বকের প্রতি নজর দেন? এই অবহেলাটুকুই যথেষ্ট একজন পুরুষের ত্বকের বারোটা বাজানোর জন্য।

 

ধুলো-ময়লা জমতে জমতে একটা সময় ব্রণ, র্যাশ ইত্যাদি হয়ে পড়ে নিত্যসঙ্গী। আর সৌন্দর্য ঠেকে গিয়ে তলানিতে। তাই ছেলেরা তাদের ত্বকের পরিচর্যা তো করবেনই, সেইসঙ্গে এই বিষয়গুলোর দিকেও রাখতে হবে নজর-

 

ত্বকের যত্নে ক্লিনজার: এমন ক্লিনজার ব্যবহার করুন যা আপনার ত্বকের গভীরে গিয়ে মৃত কোশগুলোকে বের করে দেবে। একইসঙ্গে ত্বকের উপর লেগে থাকা ধুলোময়লাসহ জীবাণুও পরিষ্কার করবে। ত্বকের আর্দ্রতা কোনোভাবেই নষ্ট হয় না, এমন ক্লিনজারই সবসময় ব্যবহার করুন। অফিসে বা বাইরে থেকে ফিরে ক্লিনজার দিয়ে মুখ পরিষ্কার করুন।

 

শেভ করুন: নিয়মিত দাড়ি শেভ করুন। কারণ এতে দাড়ির গোড়া যথেষ্ট শক্ত হয়। তবে যখন তখন দাড়ি শেভ করলে আপনার ত্বকের ক্ষতি হতে পারে। চেষ্টা করুন গোসলের পরপর বা গোসলের সময়েই যাতে দাড়ি শেভ করতে। কারণ এই সময় দাড়ির গোড়া যথেষ্ট নরম থাকে। শেভ করার সময় অবশ্যই ব্যবহার করুন শেভিং ক্রিম।

 

কেমন রেজর ব্যবহার করবেন: রেজর ব্যবহারের ক্ষেত্রেও সতর্ক হওয়া জরুরি। সাধারণ মানের রেজর আপনার ত্বকের গঠনের সঙ্গে ফিট নাও করতে পারে। ফলে প্রতিবার দাড়ি শেভ করার পর গাল জ্বালা করবে, ব্যথা হবে। এমন রেজর ব্যবহার করুন যা গালের জন্য ভালো।

 

সানস্ক্রিন ব্যবহার করুন: সানস্ক্রিন মুখের ত্বককে সূর্যের ক্ষতিকর আল্ট্রাভায়োলেট রশ্মির থেকে বাঁচিয়ে রাখে। সান প্রোটেক্টিং ফ্যাক্টর নামে একটি মাপকাঠি রয়েছে যা দিয়ে সানস্ক্রিনের ক্ষমতা মাপা যায়। ৩০ বা তার বেশি এসপিএফ-এর সানস্ক্রিন মুখের ত্বককে ঠিকঠাক প্রোটেকশন দেয়। তা ই বেছে নিন বেশি এসপিএফ-এর সানস্ক্রিন। তা বলে পুরো ১০০ এসপিএফ-এর সানস্ক্রিন বাজারে মেলে না।

 

চোখের নিচে কালি দূর করতে: সাধারণত মুখের তুলনায় চোখের নিচে একটু কালচে রঙের হয়। কারণ এই অংশের আর্দ্রতা সারা মুখের তুলনায় কম হয়। এই কালো অংশতেই বয়স বাড়লে দেখা দেয় বলিরেখা। তাই এখন থেকেই যত্ন নেওয়া শুরু করুন। চোখের তলায় হাইড্রেটিং ক্রিম লাগান নিয়মিত। দিনের বেলা ঘুম থেকে ওঠার পর ও রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে এই দুইবার প্রতিদিন নিয়মিত লাগান। দেখবেন চোখের নিচের কালচেভাব অনেকটা কমে এসেছে।

Comments

comments

এমন আরো খবর:

Web developed by: AsadZone.Com

Send this to a friend