করোনা পরিস্থিতি: অঘোষিত লকডাউনেও বায়ুদূষণে শীর্ষে ঢাকা

0
0
সর্বমোট
0
শেয়ার

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ রোধে বাইরে বের হওয়া নিয়ে কড়াকড়ি আরোপ করেছে সরকার। জরুরি কাজ ছাড়া বাইরে বের হওয়ার বিষয়ে সবাইকে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। ফলে এখন এক ধরনের ‘লকডাউন’ পরিস্থিতিতে রাজধানী। তবে এই অঘোষিত লকডাউনের মধ্যেও বায়ুদূষণে শীর্ষ শহর হিসেবে উঠে এসেছে ঢাকার নাম।

বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টার দিকে বাযুদূষণ পর্যবেক্ষণকারী প্রতিষ্ঠান এয়ার ভিজ্যুয়ালে দেখা গেছে, ১৫৭ মান নিয়ে ঢাকা শীর্ষে রয়েছে। এরপর রয়েছে চীনের চেংডু (১৪১), ইউক্রেনের কেইভ (১৪০), থাইল্যান্ডের চিয়াং মাই (১৩১), চীনের সাংহাই ( ১১৭), ভিয়েতনামের হ্যানয় (১১৬), পোল্যান্ডের পোজনান (১০৭), কিরগিস্তানের বিসকেক (১০৬), উজবেকিস্তানের তাসখন্দ (১০৫)।

বিশ্লেষকরা মনে করেন, অঘোষিত লকডাউন হলেও এখনো ঢাকার আশপাশে ব্রিক ফিল্ডগুলো (ইটভাটা) চালু থাকায় আশানুরূপভাবে বায়ুদূষণ কমছে না। পাশাপাশি চলমান বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ড অরক্ষিত থাকায় সেখান থেকে ধুলাবালি বাতাসে ছড়িয়ে পড়ছে।

তারা মনে করেন, লকডাউনের মতো পরিস্থিতি আরও কিছু দিন থাকলে বায়ুমান উন্নতি হবে। তবে পরবর্তীতে এটি ধরা রাখা হবে বড় চ্যালেঞ্জ।

বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব প্ল্যানার্সের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. আদিল মুহাম্মদ খান বলেন, গ্লোবালি লকডাউন হওয়ার ফলে সব দেশেরই বায়ুমান উন্নতি হচ্ছে। কিন্তু ঢাকার বায়ুমান অত্যন্ত খারাপ। এই সময়ে আমরা একশর নিচে নামাতে পারছি না।

তিনি বলেন, এতদিন স্বাস্থ্যকে গুরুত্ব না দিয়ে উন্নয়নকে গুরুত্ব দেয়া হয়েছিল। তবে এখন স্বাস্থ্যকে আগে প্রধান্য দিতে হবে। করোনাভাইরাস আমাদের এই শিক্ষা দিচ্ছে। কারণ শুধুমাত্র অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি দিয়ে মানুষ বাঁচতে পারবে না।

পরিবেশ বাচাও আন্দোলনের (পবা) যুগ্ম মহাসচিব প্রকৌশলী মো. আবদুস সোবহান বলেন, এখন সব কর্মকাণ্ড বন্ধ। তবে ঢাকার আশপাশে ব্রিক ফিল্ড চলছে। চলমান উন্নয়ন কর্মকাণ্ড অরক্ষিত থাকায় সেখান থেবে ধুলাবালি বাতাসে ছড়াচ্ছে। এ কারণে এখনো বায়ুমান কাঙ্ক্ষিতভাবে উন্নতি হচ্ছে না। তবে যেহেতু যানবাহন চলছে না, মানুষের চলাফেরা কম সেহেতু বলা চলে আগের চেয়ে কিছুটা উন্নতি হয়েছে। ধীরে ধীরে আরও উন্নতি হবে।

তিনি বলেন, আগে আমরা বৈজ্ঞানিক ধারণা থেকে বলতাম বায়ুদূষণের অন্যতম কারণ ব্রিক ফিল্ডগুলো। এখন ফিজিক্যালিও প্রমাণিত। ফলে এগুলো বন্ধ করতে হবে।

0
0
সর্বমোট
0
শেয়ার

Comments

comments