তিন শতাধিক মানুষ নিয়ে ভাইস-চেয়ারম্যানের ইফতার পার্টি

0
0
সর্বমোট
0
শেয়ার

করোনাভাইরাস পরিস্থিতিতে রাজশাহী জেলায় চলছে লকডাউন। সরকারি নির্দেশনায় রমজানে ইফতার পার্টি আয়োজনে রয়েছে কঠোর নিষেধাজ্ঞা। তবে সব নিষেধাজ্ঞা ভেঙে তিন শতাধিক মানুষ নিয়ে ইফতার পার্টির আয়োজন করেছেন বাগমারা উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান আসাদ। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় বাসিন্দারা ক্ষোভ জানিয়েছেন।

আসাদ উপজেলা কৃষকলীগের সাধারণ সম্পাদক এবং রাজশাহী-৪ (বাগমারা) আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার এনামুল হকের একান্ত ব্যক্তিগত সহকারী (এপিএস)।

ইফতার পার্টিতে অংশ নেয়া দলীয় নেতাকর্মীরা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার (৫ মে) উপজেলার ভবানীগঞ্জ নিউমার্কেট করিডোরে ইফতার পার্টির আয়োজনে করেন ভাইস-চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান আসাদ। সেখানে তার দলীয় অনুসারীসহ তিন শতাধিক মানুষকে আমন্ত্রণ জানানো হয়।

লকডাউনে উপজেলার ভবানীগঞ্জ পৌরসভার নিউমার্কেট বন্ধ থাকলেও পেছনের গেইট দিয়ে ভেতরে প্রবেশ করেন তারা। তিনটি সারিতে গায়ের সাথে গা ঘেঁষে সেখানে বসে ইফতার করেন মানুষ। তাদের মুখে ছিল না কোনো মাস্ক। মানা হয়নি কোনো স্বাস্থ্যবিধিও।

এদিকে, ইফতার পার্টির ওই ছবি সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে তা নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। সংকটময় মুহূর্তে একজন জনপ্রতিনিধির এমন কাণ্ডে হতবাক সবাই। তারা এ বিষয়ে পদক্ষেপ নেয়ার দাবি জানিয়েছেন।

জানতে চাইলে ভাইস-চেয়ারম্যান আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, ‘মাত্র ৬০/৭০ জন মানুষকে নিয়ে ইফতার পার্টি করেছি। তবে আমরা সবাই স্বাস্থ্যবিধি মেনে ইফতার করতে বসেছিলাম।’

ছড়িয়ে পড়া ছবিতে কারও মুখে মাস্ক না থাকা এবং গা ঘেঁষে বসার দৃশ্য দেখা যাচ্ছে -এমন প্রশ্নে তিনি দাবি করেন, ‘ওটা খাওয়ার সময় হয়তো মাস্ক খুলে রাখা হয়েছিল। আর ছবিতে অমন দেখা যেতে পারে। বাস্তবে আমরা নিরাপদ দূরত্ব (তিন ফুট) বজায় রেখে বসেছিলাম।’

তবে ভাইস-চেয়ারম্যানের এমন আয়োজন বিষয়ে অবগত ছিলেন না বলে দাবি করেছেন বাগমারা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শরিফুল ইসলাম। তিনি বলেন, ‘বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত নয়। যদি এমনটি হয়ে থাকে, তবে তা অত্যন্ত দুঃখজনক। খতিয়ে দেখে সত্যতা পাওয়া গেলে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’

0
0
সর্বমোট
0
শেয়ার

Comments

comments