আজঃ শনিবার ১৩ এপ্রিল ২০২৪
শিরোনাম

জামিনে মুক্তি পেলেন বিএনপি নেতা আলাল

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
গাজীপুর প্রতিনিধি

Image

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল জামিনে কারাগার থেকে মুক্তি পেয়েছেন।

বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কারাগার-২ থেকে তিনি মুক্তি পান। জেল সুপার মো. আমিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

জেল সুপার মো. আমিরুল ইসলাম বলেন, বুধবার সকালে মোয়াজ্জেম হোসেন আলালের জামিনের কাগজপত্র কারাগারে পৌঁছায়। তা যাচাই-বাছাই করে বিকেল ৪টার দিকে তাকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।

এর আগে গত ৩১ অক্টোবর রাজধানীর কাঁঠালবাগান থেকে আলালকে গ্রেপ্তার করা হয়। মোয়াজ্জেম হোসেন আলালের বিরুদ্ধে ভাঙচুর, মারামারি, নাশকতাসহ বিভিন্ন অভিযোগে ১৭টি মামলা রয়েছে। উচ্চ আদালত থেকে সবগুলো মামলায় জামিন পাওয়ার পর তাকে মুক্তি দেওয়া হয়েছে।

৩১ ডিসেম্বর ঢাকার মহানগর হাকিম মোহাম্মদ জসীম ১০ বছর আগের এক নাশকতার মামলায় মোয়াজ্জেম হোসেন আলালকে তিন বছরের কারাদণ্ড রায় দেন।


আরও খবর



সয়াবিন ক্ষেতে এমপি অনুসারীর মৃতদেহ, পরিবারের দাবি হত্যা

প্রকাশিত:শনিবার ১৬ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৬ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বরিশাল প্রতিনিধি

Image

বরিশালের হিজলা উপজেলায় জামাল মাঝি নামে এক আওয়ামী লীগ নেতার মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তাকে নিজের অনুসারী জানিয়ে স্থানীয় সংসদ সদস্য অভিযোগ করেছেন– জামালকে কুপিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষ। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে বলে দাবি তুলেছে জামালের পরিবার। এলাকাটিতে গত ১৫ দিন ধরে দু’গ্রুপের মধ্যে পাল্টাপাল্টি হামলা-সংঘর্ষ চলছে– এর জেরে মামলা ও গ্রেপ্তারের মধ্যে এই হত্যাকাণ্ড ঘটেছে উল্লেখ করে পুলিশ জানিয়েছে, তদন্ত করে জড়িতদের শনাক্ত করা হবে।

নিজ বাড়ির সামনে মেঘনা নদীর তীরে সয়াবিন ক্ষেত থেকে শনিবার (১৬ মার্চ) বেলা সাড়ে ১২টার দিকে জামালের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয় বলে নিশ্চিত করেছেন হিজলা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জুবাইর। তিনি ধুলখোলা ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ড পালপাড়া গ্রামের আ. কাদের মাঝির ছেলে।

জামালকে নিজের অনুসারী দাবি করে বরিশাল-৪ (মেহেন্দিগঞ্জ ও হিজলা) আসনের সংদস সদস্য পংকজ নাথ জানান, জামাল ধুলখোলা ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি। তাকে যারা হত্যা করেছে তারা আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. শাম্মী আহমেদের অনুসারী।

তিনি অভিযোগ করে আরও জানান, গত ২ মার্চ জামালের বাড়িতে শাম্মীর অনুসারী স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জামাল ঢালীর নেতৃত্বে ৪০/৫০ জন সন্ত্রাসীরা হামলা চালায়। তারা জামাল মাঝিসহ পরিবারের ৭ সদস্যকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে আহত করে। পরে জামাল মাঝির ঘরে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেয়। এ ঘটনায় জড়িত শাম্মীর অনুসারী সাইফুল ইসলাম নামে একজনকে শুক্রবার পেয়ে মারধর করা হয়। ঘটনার পর হিজলা থানার পরিদর্শক (তদন্ত) দীপংকর রায় তার (এমপি পংকজ) অনুসারীদের এলাকা ছাড়া করে। কয়েকজনকে গ্রেপ্তার করেছে। পুলিশের কারণে সবাই এলাকা ছাড়া হলেও জামাল মাঝি একা ছিল। সকালে তাকে পেয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে শাম্মীর অনুসারীরা।

এ ব্যাপারে জানতে ড. শাম্মী আহমেদের ফোনে একাধিকবার কল দিয়েও তার সাড়া পাওয়া যায়নি।

জামালের স্ত্রী আখি বেগম জানান, বাড়ি না ফেরায় রাত ২টার দিকে স্বামীর ফোনে কল দেন তিনি। তখন স্বামী জানিয়েছিল ভালো আছে। সকাল ৯টার দিকে জানতে পারেন স্বামীর মৃতদেহ সয়াবিন ক্ষেতে পড়ে আছে।

আখি বেগমের অভিযোগ– স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান জামালউদ্দিন ঢালীর নেতৃত্বে তার সন্ত্রাসী বাহিনী জামাল মাঝিকে কুপিয়ে হত্যা করেছে।

অভিযোগ অস্বীকার করে জামালউদ্দিন ঢালী বলেন, রাত চারটা পর্যন্ত পুলিশ এলাকায় ছিল। কারা করেছে, তারাই জানে না। আমি কীভাবে জানব। ঘটনাস্থল নির্জন। কে করেছে কেউ দেখেনি।’

তিনি আরও বলেন, সকাল সাতটার দিকে একজন কল দিয়ে আমাকে জানায় সয়াবিন ক্ষেতের মধ্যে একটি লাশ পড়ে আছে। সত্যতা যাচাইয়ের জন্য ঘটনাস্থলে চৌকিদার (গ্রাম পুলিশ) আলী আশরাফকে পাঠাই। সে লাশ দেখতে পেয়েছে। পরে পুলিশ গিয়েছে।’

চৌকিদার আলী আশরাফ জানান, চেয়ারম্যান কল দিয়ে তাকে বলেন– জামাল মাঝির বাড়ির সামনে সয়াবিন ক্ষেতের মধ্যে তার লাশ পড়ে আছে। সকাল আটটায় সেখানে গিয়ে লাশ দেখতে পান তিনি। পরে পুলিশকে বিষয়টি জানিয়েছেন।

থানার পরিদর্শক (তদন্ত) দীপংকর রায় বলেন, পরিত্যক্ত অবস্থায় লাশ পেয়েছি। কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। তদন্ত করে বলতে পারব হত্যাকাণ্ডে কারা জড়িত ছিল।’

এমপির অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, গত ১৫ দিন ধরে ধুলখোলা ইউনিয়নে দুই গ্রুপের মধ্যে হামলা, পাল্টা হামলা ও সংঘর্ষের ঘটনা ঘটছে। থানা ও আদালতে পাঁচটি মামলা করেছে এক পক্ষ অপরপক্ষের বিরুদ্ধে। শুক্রবার একজনকে মারধরের খবর পেয়ে সেখানে গিয়ে দেখি দুই পক্ষ স্বশস্ত্র অবস্থায় রয়েছে। তখন দুই জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। দুই পক্ষকে নিবৃত্ত করা হয়েছে।’


আরও খবর



গরুর মাংসসহ ২৯ নিত্যপণ্যের দাম বেঁধে দিলো সরকার

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৫ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৫ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

পাইকারি ও খুচরা পর্যায়ে ২৯টি কৃষি পণ্যের যৌক্তিক মূল্য নির্ধারণ করে দিয়েছে কৃষি বিপণন অধিদফতর।

শুক্রবার (১৫ মার্চ) অধিদফতরের মহাপরিচালক মো. মাসুদ করিম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে। এই মূল্য অবিলম্বে কার্যকর হবে বলে এতে জানানো হয়েছে।

নতুন নির্ধারিত মূল্য অনুযায়ী, খুচরা পর্যায়ে কেজিতে মুগ ডালের নতুন মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ১৬৫ টাকা ৪১ পয়সা, মাসকালাই ১৬৬ টাকা ৫০ পয়সা, ছোলা (আমদানিকৃত) ৯৮ টাকা ৩০ পয়সা, মসুর ডাল (উন্নত) ১৩০ টাকা ৫০ পয়সা, মসুর ডাল (মোটা) ১০৫ টাকা ৫০ পয়সা, খেসারি ডাল ৯২ টাকা ৬১ পয়সা, পাঙাস (চাষের মাছ) ১৮০ টাকা ৮৭ পয়সা, কাতল (চাষ) ৩৫৩ টাকা ৫৯ পয়সা, গরুর মাংস ৬৬৪ টাকা ৩৯ পয়সা, খাসির মাংস এক হাজার ৩ টাকা ৫৬ পয়সা।

এছাড়া ব্রয়লার মুরগির কেজি ১৭৫ টাকা ৩০ পয়সা, সোনালি মুরগি ২৬২ টাকা, ডিম প্রতি পিস ১০ টাকা ৪৯ পয়সা, দেশি পেঁয়াজ কেজিপ্রতি ৬৫ টাকা ৪০ পয়সা, দেশি রসুন প্রতি কেজি ১২০ টাকা ৮১ পয়সা, আমদানি করা আদা প্রতি কেজি ১৮০ টাকা ২০ পয়সা, শুকনা মরিচ প্রতি কেজি ৩২৭ টাকা ৩৪ পয়সা, কাঁচামরিচ প্রতি কেজি ৬০ টাকা ২০ পয়সা, বাঁধাকপি কেজিপ্রতি ২৮ টাকা ৩০ পয়সা, ফুলকপি কেজিপ্রতি ২৯ টাকা ৬০ পয়সা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এছাড়া কেজিপ্রতি বেগুন ৪৯ টাকা ৭৫ পয়সা, শিম ৪৮ টাকা, আলু ২৮ টাকা ৫৫ পয়সা, টমেটো ৪০ টাকা ২০ পয়সা, মিষ্টি কুমড়া ২৩ টাকা ৩৮ পয়সা, জাহিদি খেজুর ১৮৫ টাকা ৭ পয়সা, চিড়া (মোটা) ৬০ টাকা, প্রতি হালি সাগর কলা ২৯ টাকা ৭৮ পয়সা ও বেসন ১২১ টাকা ৩০ পয়সা।

পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত এ মূল্যে পণ্য ক্রয়-বিক্রয়ের জন্য বিজ্ঞপ্তিতে অনুরোধ জানিয়েছে কৃষি বিপণন অধিদফতর।


আরও খবর



সমুদ্র পথে প্রথম গাজায় গেল ত্রাণবাহী জাহাজ

প্রকাশিত:শনিবার ১৬ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৬ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

মানবিক সহায়তা নিয়ে সমুদ্র পথে প্রথমবার গাজায় পৌঁছেছে একটি জাহাজ। স্প্যানিস জাহাজ ওপেন আর্মস মঙ্গলবার ২০০ টন খাদ্যপণ্য নিয়ে সাইপ্রাস ছেড়ে গাজায় পৌঁছায়।

গাজায় ইসরায়েল হামলা চালানোর পর আকাশ এবং সীমান্ত পথে ত্রাণ পাঠানো কঠিন হয়ে পড়েছে। এমন অবস্থায় ফিলিস্তিনে সমুদ্র পথে ত্রাণ পাঠানোর ঘোষণা দেয় যুক্তরাষ্ট্র। এরই অংশ হিসেবে এই প্রথম সমুদ্র পথে ত্রাণ পাঠানো হলো।

ওয়ার্ল্ড সেন্ট্রারাল কিচেন (ডব্লিউসিকে) এ খাদ্য সরবরাহ করেছে। এ কাজে সহযোগিতা করেছে সংযুক্ত আরব আমিরাত। জাহাজে চাল, ময়দা, লেবু, টিনজাত শাকসবজি এবং টিনজাত প্রোটিন পাঠানো হয়েছে। যদিও গাজায় কোনো বন্দর নেই। এজন্য অস্থায়ীভাবে ডব্লিউসিকে দল একটি জেটি বানিয়েছে। যার মাধ্যমে জাহাজ থেকে খাদ্য নামানো হচ্ছে। তবে এসব খাবার কীভাবে বিতরণ করা হবে সে সম্পর্কে কিছু বলা নেই।

ডব্লিউসিকের প্রতিষ্ঠাতা সেফ জোস অ্যান্ড্রেস এক্স পোস্টে বলেন, জাহাজের খাদ্যগুলো পরিবহনে ১২টি ট্রাকে লোড করা হবে। আগামীতে আরও খাদ্য পাঠানো হবে।

এক বিবৃতিতে ইসরায়েল জানিয়েছে, ওপেন আর্মস জাহাজটি সাইপ্রাস থেকে এসেছে। এটির নিরাপত্তার ইসরায়েল বাহিনী কাজ করছে।


আরও খবর



বঙ্গবন্ধুর প্রদর্শিত পথই আমাদের পথ : ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:রবিবার ১৭ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৭ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বঙ্গবন্ধুর প্রদর্শিত পথই আমাদের পথ। তিনি স্বাধীনতা দিয়ে গেছেন। স্বাধীনতা দিয়ে যে উত্তরাধিকার রেখে গেছেন, তিনি বেঁচে না থাকলেও তার উত্তরাধিকারের কোনোদিন মৃত্যু হবে না। তার উত্তরাধিকার সারা জীবন বেঁচে থাকবে।

রোববার (১৭ মার্চ) সকালে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের তিনি এসব কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আমাদের বহুদিনের আকাঙ্ক্ষা স্বাধীনতা এনে দিতে টুঙ্গীপাড়ার এক বীর প্রসূতি মা যাকে জন্ম দিয়ে ধন্য করেছেন তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি প্রথম বাঙালি জাতিকে পরাধীনতার শৃঙ্খল থেকে মুক্তি দিয়ে স্বাধীন সত্তা বাংলাদেশ সৃষ্টি করেছেন।

আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, আজকে তিনি (বঙ্গবন্ধু) আমাদের মাঝে নেই কিন্তু তিনি চিরদিন আমাদের অনুপ্রেরণার উৎস। তিনি আমাদের সব সংকটে আমাদের চলার পথে পাথেয় হয়ে থাকবেন, বাতিঘর হয়ে থাকবেন। তিনি বাঙালির দুঃখের একমাত্র বাতিঘর।


আরও খবর



ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চাইলেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী টিটু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৪ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৪ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

মন্ত্রণালয়ের চিঠিতে নিম্নমানের খেজুর লেখা নিয়ে ক্ষমা চাইলেন বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আহসানুল ইসলাম টিটু। তিনি বলেছেন, তাড়াহুড়োর কারণে ভুল হয়ে গেছে। এ সময় ভুলের জন্য ক্ষমাও চান তিনি। বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) সচিবালয়ে বিশ্ব ভোক্তা অধিকার দিবস উপলক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

আহসানুল ইসলাম টিটু বলেন, কয়েক দিন ধরে সোশ্যাল মিডিয়ায় খুব ট্রলিং হচ্ছে। আমাদের ছোট একটা ভুল, ছোট না আমি বলব যে, বড়ই ভুল। আমাদের ভাষাটা ঠিক হওয়া দরকার ছিল। সাধারণ মানের জায়গায় শব্দটা একটুই হয়ে গিয়েছিল। পরবর্তী সময়ে সেটি সংশোধন করে দিয়েছি, কিন্তু সেটি হাইলাইটেড হয়নি।

বাণিজ্য প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, আমরা সাধারণ মানের খেজুর এবং বহুল ব্যবহৃত জাইদি খেজুর দুটির নামে সংশোধন করে দিয়েছি। আমরা যখন দ্রুত কাজ করতে যাই তখন কিছুটা ভুলত্রুটি হয়ে যায়। আমরা চেয়েছিলাম প্রথম রমজানেই নোটিশটি দিয়ে দিতে। এক সপ্তাহ আগে তাদের বলেছিলাম স্ব-উদ্যোগী হয়ে দাম নির্ধারণ করে দেওয়ার। যেহেতু তারা গড়িমসি করছিল, আর আমরা চাচ্ছিলাম প্রথম রমজান থেকে, তাই তাড়াহুড়োয় আমাদের ভুল হয়ে গেছে। সে জন্য আমি বিনীতভাবে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি।

এর আগে গত ১১ মার্চ খেজুরের দাম নির্ধারণ করে এফবিসিসিআই প্রেসিডেন্ট ও বাংলাদেশ ফ্রেস ফ্রুটস ইম্পোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতির কাছে চিঠি পাঠায় বাণিজ্য মন্ত্রণালয়। চিঠিতে প্রতি কেজি অতিসাধারণ/নিম্নমানের খেজুর এর দাম ১৫০-১৬৫ টাকা এবং বহুল ব্যবহৃত জাইদি খেজুর এর দাম নির্ধারণ করা হয় ১৭০ থেকে ১৮০ টাকা। পরে অতিসাধারণ/নিম্নমানের খেজুর নির্ধারণ করে দাম বেঁধে দেওয়া নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে সমালোচনার ঝড় ওঠে। বলা হয়, তা হলে কি সরকারই নিম্নমানের খেজুর আমদানিকে উৎসাহিত করছে।


আরও খবর