আজঃ শুক্রবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩
শিরোনাম

২৩ দিন বন্ধ থাকার পর উৎপাদনে রামপাল বিদ্যুৎকেন্দ্র

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ মে ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
বাগেরহাট প্রতিনিধি

Image

রামপাল তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিটের উৎপাদন ফের চালু হয়েছে। এরই মধ্যে জাতীয় গ্রিডে যোগ হতে শুরু করেছে রামপালের বিদ্যুৎ।

কয়লা সংকটে ২৩ দিন বন্ধ থাকার পর মঙ্গলবার (১৬ মে) পুনরায় চালু হয়েছে রামপাল তাপবিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিটের উৎপাদন। রাত ৯টার পর প্ল্যান্টের প্রথম ইউনিটের বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডের সঙ্গে সফলভাবে যোগ হয়েছে।

আরও পড়ুন: ফরিদপুরে নকল জুস তৈরির অভিযোগে কারখানা সীলগালা

বাংলাদেশ-ইন্ডিয়া ফ্রেন্ডশিপ পাওয়ার কোম্পানি লিমিটেডের (বিআইএফপিসিএল) উপমহাব্যবস্থাপক আনোয়ারুল আজিম সংবাদ মাধ্যমকে পুনরায় প্ল্যান্ট চালুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, রাত ৯টা ১১ মিনিটে প্ল্যান্টের প্রথম ইউনিটের বিদ্যুৎ জাতীয় গ্রিডের সঙ্গে সফলভাবে সিনক্রোনাইজেশন হয়েছে। রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ২৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করে তা গ্রিডে দেওয়া হচ্ছে। ন্যাশনাল লোড ডিসপ্যাচ সেন্টার বা এনএলডিসির চাহিদামাফিক বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্রমান্বয়ে বাড়ানো হবে।

আরও পড়ুন: পাটকেলঘাটায় সড়ক দুর্ঘটনায় ২ শ্রমিক নিহত

কেন্দ্রটিতে ৬৬০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন করতে প্রতিদিন প্রয়োজন পাঁচ হাজার টন কয়লা। সবশেষ চলতি বছরের ২৩ এপ্রিল থেকে বন্ধ ছিল এ কেন্দ্রটি। মূলত ডলার সংকটে কয়লা আমদানি করতে না পারায় এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছিল।

বিদ্যুৎ খাতের উন্নয়নে যে কয়টি মেগাপ্রকল্প দেশে চলমান আছে তার মধ্যে রামপাল তাপবিদ্যুৎকেন্দ্র অন্যতম। ভারত-বাংলাদেশের যৌথ বিনিয়োগে চালু হওয়া কয়লাচালিত এ বিদ্যুৎকেন্দ্রের প্রথম ইউনিটটি উৎপাদনে আসে গত বছরের শেষভাগে। এর সুফলও মিলছে পরিকল্পনা মাফিক। তথ্যমতে, রামপালের দ্বিতীয় ইউনিট জুনেই চালু হওয়ার কথা। সেক্ষেত্রে দুটি ইউনিট চালাতে প্রতিদিন ১০ হাজার টন কয়লার প্রয়োজন হবে। তাই ইন্দোনেশিয়া থেকে ছয় লাখ টন কয়লার ক্রয়াদেশ দেওয়া হয়েছে।

 


আরও খবর



রাজবাড়ীতে বালুচাপায় ভেকু চালকসহ নিহত ৩

প্রকাশিত:বুধবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:বুধবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
শাকিল মোল্লা, রাজবাড়ী

Image

রাজবাড়ী সদর উপজেলায় বালুচাপায় ভেকু চালকসহ তিনজন নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার (১২ সেপ্টেম্বর) রাত ১১টার দিকে মিজানপুর ইউনিয়নের জৌকুড়া এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- মিজানপুরের দয়ালনগরের বালু চাতালের মা‌লিক হান্নান শেখের ভাই র‌হিম শেখ (৫০), জৌকুড়ার আনসার শেখের ছেলে এক্সকাভেটর (ভেকু) চালক মারুফ শেখ (২২) ও অজ্ঞাত ট্রাকের হেলপার।

মিজানপুর ২নং ওয়ার্ড সদস্য ফয়সাল আহম্মেদ চান্দু ঘটনার সত্যতা নি‌শ্চিত করে জানান, জৌকুড়া ঘাট এলাকার জনৈক সিদ্দিকের বাড়ির পাশে ব্যবসায়ী হান্নানের বালুর চাতালে ভেকু দিয়ে ট্রাকে বালু ভর্তির কাজ চল‌ছিল। এসময় হঠাৎ বালুর স্তূপের ওপর থেকে বালুসহ ভেকু মেশিন ট্রাকের ওপর পড়ে। এতে ঘটনাস্থলেই আব্দুর রহিম, মারুফ ও ট্রাকের হেলপার নিহত হন।

রাজবাড়ী সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শাহাদত হোসেন ঘটনার সত্যতা নি‌শ্চিত করেছেন।


আরও খবর



উচ্চবিত্ত পর্যায়ে দুর্নীতি বেশি হচ্ছে : পরিকল্পনামন্ত্রী

প্রকাশিত:শনিবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ১৬ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, দেশের উচ্চবিত্ত পর্যায়ে দুর্নীতি বেশি হচ্ছে। কেউ কেউ ব্যাংকের বড় অংকের টাকা লোপাট করে বিদেশে পাচার করছেন। একটি অংশ ঋণ দিয়ে ফেরত দিচ্ছে না। বড় বড় অংকের কারণে দুর্নীতির পরিমাণ বেড়েছে। আজ শনিবার ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি আয়োজিত শিক্ষার্থীদের এক বিতর্ক প্রতিযোগিতায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এক প্রশ্নের উত্তরে এম এ মান্নান এমন মন্তব্য করেন। দেশে দুর্নীতি বেড়েছে মর্মে তার সাম্প্রতিক একটি মন্তব্যের ব্যাখ্যা চাওয়া হয় ওই প্রশ্নে। 

আরও পড়ুন>> নরসিংদীতে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৬, আহত ৫

ছায়া সংসদ নামে এই বিতর্ক প্রতিযোগিতার বিষয় ছিল সর্বজনীন পেনশন স্কিম দীর্ঘমেয়াদি সামাজিক সুরক্ষায় সহায়ক হবে কিনা।  অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ। দর্শক সারি থেকে পরিকল্পনামন্ত্রীর কাছে আরেকটি প্রশ্ন ছিল এরকম যে, সরকার পালিয়ে গেলে সর্বজনীন পেনশন স্কিম থাকবে কি না। তিনি এর উত্তরে বলেন, সরকার পালিয়ে যায় না, ব্যক্তি পালায়। অর্থ মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ ব্যাংকসহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এ প্রক্রিয়ায় যুক্ত। সরকারের স্থায়িত্বের সঙ্গে সর্বজনীন পেনশনের কোনো সম্পর্ক নেই।’ 

আরও পড়ুন>> এশিয়া কাপ শেষে ঢাকায় ফিরেছে বাংলাদেশ দল

এম এ মান্নান দুর্নীতির উদহারণ দিতে গিয়ে আরও বলেন, কারও হয়তো গুলশানে বাড়ি আছে। দেখা গেল. তিনি এরপর কানাডা কিংবা দুবাই বা অন্য কোনো দেশে বাড়ি কিনছেন। সৎভাবে উপার্জন করে ঠিকমতো কর দিলে সমস্যা নেই। সৎভাবে দেশের বাইরে অর্থ নিতে হলে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন নিতে হবে।


আরও খবর



ঢাকায় আঞ্চলিক জলবায়ু সম্মেলন শুরু

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্যে দিয়ে শুরু হয়েছে আঞ্চলিক জলবায়ু সম্মেলন। যুদ্ধ ও অর্থনৈতিক অস্থিরতায় বিপর্যস্ত বিশ্বে ক্রমবর্ধমান জলবায়ু পরিবর্তনের নেতিবাচক প্রভাব মোকাবিলায় দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলো নিয়ে বাংলাদেশে এই প্রথমবারের মতো এ সম্মেলন শুরু হয়েছে।

শুক্রবার (৮ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর হোটেল শেরাটনে এ সম্মেলন শুরু হয়। ক্লাইমেট পার্লামেন্ট বাংলাদেশ, দ্য আর্থ সোসাইটি, অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন (ওআরএফ) ও ক্লাইমেট পার্লামেন্ট যৌথভাবে এ আয়োজন করেছে।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই আঞ্চলিক জলবায়ু সম্মেলন ২০২৩ এর বিস্তারিত তুলে ধরেন ক্লাইমেট পার্লামেন্ট বাংলাদেশের চেয়ারপারসন ও সংসদ সদস্য তানভির শাকিল জয় ও আহ্বায়ক সংসদ সদস্য নাহিম রাজ্জাক।

তিন দিনব্যাপী এই আয়োজনে দক্ষিণ এশিয়ার দেশ ভারত, ভুটান, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, মালদ্বীপসহ বিভিন্ন দেশের সংসদ সদস্যবৃন্দ, বাংলাদেশে নিযুক্ত বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, শীর্ষ পর্যায়ের নীতিনির্ধারকগণ, কর্পোরেট সেক্টর, উন্নয়ন সহযোগী দেশীয় ও আন্তর্জাতিক সংস্থাসহ বিভিন্ন সেক্টরের ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত হয়েছেন। সম্মেলনে ৪টি থিমেটিক সেগমেন্ট ও ১৯টি সেশনে আলোচক (প্যানেলিস্ট) হিসেবে অংশগ্রহণ করবেন ১২০ জন বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। এছাড়াও দেশ ও দেশের বাইরের প্রায় ৬০০ জন প্রতিনিধি সরাসরি এই সম্মেলনে অংশ নিচ্ছেন।

প্রথম দিনের সেশনে জলবায়ু সহনশীল উন্নয়ন অর্জনের জন্য টেকসই পানি ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনা এবং স্থানীয় শাসনকে শক্তিশালী করা ও টেকসই উন্নয়নের জন্য জলবায়ু প্রভাব, ক্ষয়ক্ষতি এবং ক্ষয়ক্ষতি এবং স্থানীয়ভাবে পরিচালিত অভিযোজনসহ কয়েকটি বিষয় নিয়ে প্যানেলিস্টরা আলোচনা করবেন।

প্রথম দিনের তিনটি সেশনের উদ্বোধনী সেশনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়েছেন জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরিন শারমিন চৌধুরী। পরবর্তী সেশনে আলোচনা করবেন স্থানীয় সরকার মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব নাজমুল আহসান, ভারতের ক্লাইমেট পার্লামেন্টের সদস্য ও সংসদ সদস্য মিস আগাথা সাংগমা, ওয়াটার এইডের কান্ট্রি ডিরেক্টর মিস হাসিনা জাহান, বিদ্যুৎপ্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, ইন্টারন্যাশনাল সেন্টার ফর ক্লাইমেট চেঞ্জ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্টের (আইসিসিসিএডি) পরিচালক অধ্যাপক সালিমুল হকসহ অনেকে।

এই আয়োজনের সঙ্গে সরাসরি সংশ্লিষ্ট আছেন সরকারি-বেসরকারি সংস্থা, বিভিন্ন দেশের দূতাবাস, জাতীয় ও আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সহযোগী সংস্থা মিলিয়ে মোট ২২টি প্রতিষ্ঠান।

নিউজ ট্যাগ: জলবায়ু সম্মেলন

আরও খবর



কোটি টাকার লিফটে প্রতিনিয়তই আটকে পড়ার আতঙ্ক

প্রকাশিত:সোমবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:সোমবার ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
Image

নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিনিধি

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে লিফট ক্রয় এবং মেইনটেনেন্স-এ কোটি টাকা খরচ হলেও শিক্ষার্থীদের লিফট ভোগান্তি যেনো কমছেই না। লিফটে আটকে পড়ার আতঙ্ক দিন দিন মাথাচাড়া দিয়ে উঠছে।

গত বৃহস্পতিবার (২১ সেপ্টেম্বর) বঙ্গবন্ধু হলের আবাসিক শিক্ষার্থী হুমায়ুন কবীর টুটুল হলের লিফটে আটকা পড়ার পর ফেসবুক লাইভে এসে লিফটের অব্যবস্থাপনা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। তিনি বলেন, 'লিফটে আমরা ৫ জন ২৫ মিনিট যাবত আটকে ছিলাম। ইমার্জেন্সি বাটনে ক্লিক করছি কোন কাজ হচ্ছে না। লিফটে নেটওয়ার্ক পাওয়া না যাওয়ায় কল দিতে পারছিলাম না। একটা লিফটে আটকা পরার পর কেনো ২৫ মিনিট লাগবে উদ্ধার করতে।'

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদ, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ ভবন ও দুটি আবাসিক হলের জন্য ২০২১ সালে ১৩ কোটি ৬ লাখ টাকা ব্যয়ে ১৫ টি লিফট ক্রয় করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। শুরু থেকেই অনুষদ ভবন দুটির চারটি লিফট অধিকাংশ সময় বন্ধ থাকে। এর মধ্যে গত এক মাসেরও বেশি সময় ধরে অচল বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা হলের একাধিক লিফট। আর বাকি যেগুলো সচল সেগুলোও প্রায়ই চলন্ত অবস্থায় বিকল হয়ে পড়ছে। লিফটের ভেতর আটকা পড়ার ঘটনায় আতঙ্কিত শিক্ষার্থীরা।

এর আগে গত ১২ সেপ্টেম্বর ব্যবসায় প্রশাসন অনুষদ ভবনের লিফটে ৩৪ মিনিট ধরে আটকা ছিলেন ফিল্ম এন্ড মিডিয়া স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষার্থী তানভীর রানা। রানা বলেন, 'সকালে ডিপার্টমেন্টে যাওয়ার জন্য লিফটে উঠি। কিন্তু ৮ তলায় যাবার পর হঠাৎ লিফট বন্ধ হয়ে যায়। তখন ইমার্জেন্সি বাটনে বারবার ক্লিক করেও কোনো কাজ হচ্ছিলো না। লিফটে এতো পরিমাণে গরম, শ্বাস নিতেও কষ্ট হচ্ছিলো। পরে সহপাঠী ও বিভাগীয় প্রধানের সহযোগিতায় লিফট থেকে বের হয়েছি।'

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৌশল দপ্তরের সহকারী প্রকৌশলী (ইন্সট্রুমেন্ট) মিজানুর রহমান বলেন, 'মাঝে মাঝে লিফট আটকানোর ঘটনা ঘটতে পারে, অনেকদিন পর পর এটা সব জায়গাতেই ঘটে। আগেতো আরও বেশি ঘটতো। আগে সপ্তাহে এক দুটো ঘটনা ঘটতো। তারপর আমরা লিফট প্রোভাইডারদের সাথে কথা বলেছি। তারা বলেছে এটা ধীরে ধীরে কমবে। তখন থেকে ঘটনাগুলো কম ঘটছে। সম্প্রতি দুই তিনটা ঘটনা ঘটেছে। এটা মাঝে মাঝে ঘটতে পারে।'

এ ঘটনায় পদক্ষেপ নেওয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, 'বড় বিল্ডিং হলেও লিফট অপারেটর থাকে একজন। তার কাছে খবর যদি দ্রুত পৌছাতো তাহলে দ্রুত উদ্ধার করা যেতো। এক্ষেত্রে আমরা লিফটে ইন্টারকম ব্যবস্থা চালু করার চেষ্টা করছি। বাজেট স্বল্পতার জন্য এটা করতে দেরি হচ্ছে। এটা হয়ে গেলে কেউ আটকা পড়লে দ্রুত উদ্ধার করা সম্ভব হবে।'


আরও খবর



রাশিয়ার সারমত ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন, আঘাত হানবে বিশ্বের যেকোনো স্থানে

প্রকাশিত:শনিবার ০২ সেপ্টেম্বর 2০২3 | হালনাগাদ:শনিবার ০২ সেপ্টেম্বর 2০২3 | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

অত্যাধুনিক আন্তমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েন করেছে রাশিয়া। রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন বলেছেন, রাশিয়ার শত্রুরা এখন তাদের হুমকি দেওয়ার আগে দুইবার চিন্তা করবে।

রাশিয়ার মহাকাশ সংস্থা রসকসমসের প্রধান ইয়ুরি বোরিসভ বলেন, সারমত ক্ষেপণাস্ত্রগুলোকে যুদ্ধকালীন দায়িত্বে মোতায়েন করা হয়েছে। রসকসমসের প্রধানকে উদ্ধৃত করে রুশ বার্তা সংস্থার খবরে বলা হয়েছে, সারমত ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থাকে যুদ্ধের জন্য সতর্কাবস্থায় রাখা হয়েছে।

তাসের খবরে বলা হয়, বিশেষজ্ঞদের ধারণা, আরএস-২৮ সারমত ক্ষেপণাস্ত্র ১০ টন ওজনের এমআইআরভি ওয়ারহেড দিয়ে বিশ্বের উত্তর বা দক্ষিণ মেরুযেকোনো স্থানে আঘাত হানতে সক্ষম।

হোয়াইট হাউসের জাতীয় নিরাপত্তা কাউন্সিলের মুখপাত্র জন কিরবি বলেছেন, সারমতকে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত রেখেছে রাশিয়া, এমন তথ্য নিয়ে কথা বলার মতো অবস্থানে তিনি নেই।

আরও পড়ুন>> হুঁশিয়ার বার্তা দিয়ে ক্ষেপণাস্ত্র ছুড়ল উত্তর কোরিয়া

রুশ প্রেসিডেন্ট পুতিন গত ফেব্রুয়ারিতে বলেছিলেন, সারমত ক্ষেপণাস্ত্র মোতায়েনের জন্য শিগগিরই প্রস্তুত করা হচ্ছে। ইউক্রেনে আগ্রাসনের দুই মাস পর ২০২২ সালে পুতিন বলেছিলেন, সারমত বহির্বিশ্বের হুমকি থেকে রাশিয়ার নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে। যারা উত্তপ্ত বাগাড়ম্বরপূর্ণ কথা বলে আমাদের দেশকে হুমকি দেয়, তারাও এখন কথা বলতে দুইবার চিন্তা করবে।

রুশ কর্মকর্তারা বলছেন, সারমত হচ্ছে ভূগর্ভে সংরক্ষিত এমন একটি ক্ষেপণাস্ত্র, যা একসঙ্গে ১৫টি পরমাণু ওয়ারহেড বহনে সক্ষম। অবশ্য যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সারমত একসঙ্গে সর্বোচ্চ ১০টি ওয়ারহেড বহন করতে পারবে।

ন্যাটো সামরিক মিত্রদের কাছে সাতান সাংকেতিক নামে পরিচিত এই ক্ষেপণাস্ত্রকে খুব স্বল্প সময়ের মধ্যে হামলার জন্য প্রস্তুত করা যায়। ফলে প্রতিপক্ষের নজরদারি ব্যবস্থা এই ক্ষেপণাস্ত্রকে শনাক্ত করে ভূপাতিত করতে খুব কম সময় পায়।

সারমতের ওজন ২০০ টনের বেশি। এই ক্ষেপণাস্ত্র ১৮ হাজার কিলোমিটার (১১ হাজার মাইল) পর্যন্ত লক্ষ্যবস্তুতে হামলা চালাতে সক্ষম। ১৯৮০-এর দশকের আন্তমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র (আইসিডএমবি) ব্যবস্থার বদলে এই সারমত ক্ষেপণাস্ত্র বানানো হয়।

রাশিয়া ২০২২ সালের এপ্রিলে মস্কো থেকে ৮০০ কিলোমিটার (প্রায় ৫০০ মাইল) দূরে প্লেসেটস্ক এলাকায় প্রথম সারমতের পরীক্ষা চালায়। সেই ক্ষেপণাস্ত্র রাশিয়ার পূর্বাঞ্চলীয় কামচাটকা উপদ্বীপের নির্দিষ্ট লক্ষ্যে আঘাত হেনেছিল।


আরও খবর