আজঃ মঙ্গলবার ২৫ জানুয়ারী ২০২২
শিরোনাম

আজ থেকে আবারও সারাদেশে কঠোর বিধিনিষেধ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ জানুয়ারী ২০২২ | ৬৫৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশে ওমিক্রনের কমিউনিটি ট্রান্সমিশন (সামাজিক সংক্রমণ) শুরু হয়েছে। ১৫ থেকে ২০ শতাংশ করোনা রোগীই ওমিক্রনে আক্রান্ত বলে জানিয়েছেন স্বাস্হ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক। রাজধানী ঢাকা ও পার্বত্য জেলা রাঙ্গামাটিকে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা হিসেবে চিহ্নিত করেছে স্বাস্হ্য অধিদপ্তর; মাঝারি মাত্রার ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা হিসেবে চিহ্নিত হয়েছে সীমান্তবর্তী ছয় জেলা।

গত এক দিনে মোট আক্রান্তের ৮৩ শতাংশই ঢাকা বিভাগের। ওমিক্রন ঠেকাতে আজ বৃহস্পতিবার থেকে সারা দেশে কঠোর বিধিনিষেধ বাস্তবায়ন করা হবে। ১১ বিধিনিষেধের মধ্যে উন্মুক্ত স্হানে রাজনৈতিক ও সামাজিক সভা-সমাবেশ অনুষ্ঠানের ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। এছাড়া উল্লেখযোগ্য নির্দেশনার মধ্যে রয়েছে গণপরিবহনে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলাচল, মাস্কবিহীন চলাচলকারীদের বিরুদ্ধে শাস্তির বিধান এবং বিধিনিষেধ কার্যকর করতে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা।

বিশেষজ্ঞ চিকিত্সকেরা বলেন, এই বিধিনিষেধ বাস্তবায়নের ওপরই নির্ভর করবে দেশের সংক্রমণ পরিস্হিতি। বিধিনিষেধ মানলে করোনা নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে। তবে না মানলে পরিস্হিতি সামাল দেওয়া কঠিন হবে। হাসপাতালের ওপর চাপ বাড়বে। রোগীরা ভোগান্তিতে পড়বে। চিকিত্সাসেবা পাওয়া তখন ভাগ্যের ব্যাপার হয়ে দাঁড়াবে। টিকা নেওয়ার পাশাপাশি স্বাস্হ্যবিধি মানার বিধিনিষেধ কঠোরভাবে পালন করে সিঙ্গাপুর, ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ডসহ কয়েকটি দেশ করোনা নিয়ন্ত্রণ করতে সক্ষম হয়েছে। দেশে যেহেতু ওমিক্রনের কমিউনিটি ট্রান্সমিশন শুরু হয়েছে, তাই স্বাস্হ্যবিধি না মানলে সামনে দ্বিগুণ হারে সংক্রমণ বাড়বে। সরকার আগে নো মাস্ক, নো সার্ভিস চালু করেছিল, কিন্তু তা বাস্তবায়নে প্রশাসন সফল হয়নি। এখন যদি মাস্ক পরা নিশ্চিত করা যায়, তাহলে ৯০ ভাগ নিরাপদে থাকা যাবে। মিল, কল-কারখানাসহ দেশের অর্থনীতির চাকা সচল থাকবে। খেটে খাওয়া মানুষের ভোগান্তি কমবে।

করোনা ভাইরাসের ডেলটা ধরনের দাপটে গত বছরের মাঝামাঝি সময়ে রোগীর চাপে দেশের স্বাস্হ্যব্যবস্হা ভেঙে পড়ার উপক্রম হয়। ঐ সময় দৈনিক শনাক্ত রোগী ১৬ হাজারও ছাড়িয়ে যায়, এক দিনে আড়াই শতাধিক মানুষের মৃত্যুও বাংলাদেশকে দেখতে হয়। গত নভেম্বরে দক্ষিণ আফ্রিকায় শনাক্ত হওয়া করোনা ভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনের সংক্রমণ ঠেকাতে আজ প্রথম পৃষ্ঠার পর প্রভাবে পুরো বিশ্বের মতো বাংলাদেশেও আবার শনাক্ত রোগীর সংখ্যা দ্রুত বাড়ছে।

মাইলফলকে বাংলাদেশ পৌঁছাল, যখন করোনা ভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনের প্রভাবে দৈনিক শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ফের বাড়ছে। স্বাস্হ্য অধিদপ্তর জানিয়েছে, গতকাল বুধবার সকাল ৮টা পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় দেশে ২ হাজার ৯১৬ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছে, যা আগের দিনের চেয়ে ১৯ শতাংশ বেশি। এক দিনে এর চেয়ে বেশি রোগী শনাক্ত হয়েছিল গত বছরের ৩ সেপ্টেম্বর, সেদিন ৩ হাজার ১৬৭ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়েছিল। নতুন রোগীদের নিয়ে দেশে মোট শনাক্ত কোভিড রোগীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৬ লাখ ১ হাজার ৩০৫।

ওমিক্রন বাড়ার পরিপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশের প্রস্ত্ততি জানিয়ে স্বাস্হ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে সরকার ২০ হাজার শয্যা তৈরি রেখেছিল। আরো ২০ হাজার শয্যা প্রস্ত্তত করা হচ্ছে। যদি ৪০ হাজার রোগী হয়, তাহলে রাখা যাবে। কিন্তু যদি ১ লাখ হয়, তাহলে কোথায় থাকবে? এখন মৃত্যুর হার কম আছে, কারণ হলো টিকা নেওয়া আছে। কিন্তু আক্রান্তের সংখ্যা যদি তিন-চারগুণ হয়ে যায়, তাহলে বেকায়দায় পড়তে হবে। এখনই সতর্ক না হলে আক্রান্তের সংখ্যা আরো বাড়বে। সে ক্ষেত্রে হাসপাতালে জায়গা দিতে সমস্যা হবে। আমরা ধরে নিই, ৫ শতাংশের হাসপাতালে আসতে হয়। এরই মধ্যে হাসপাতালে রোগী আসা শুরু হয়ে গেছে। আমরা দেখব, আগামী পাঁচ-সাত দিনের মধ্যেই অনেক রোগী হয়ে যাবে হাসপাতালে। তখন আবার একটা কষ্টকর অবস্হা তৈরি হবে। হাসপাতালে প্রেশার পড়বে, চিকিত্সক-নার্সদের ওপর প্রেসার পড়বে। সিট পেতে সমস্যা হবে, মৃত্যুর হার বেড়ে যাবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিগত চিকিত্সক অধ্যাপক ডা. এ বি এম আবদুল্লাহ বলেন, করোনা নিয়ন্ত্রণ করতে হলে সরকারঘোষিত বিধিনিষেধ কঠোরভাবে পালন করতে হবে। এটা বাস্তবায়নের ওপরই দেশে সংক্রমণ পরিস্হিতি কোন দিকে যাবে, সেটা নির্ভর করছে। বিধিনিষেধ না মানলে চিকিত্সাসেবা প্রদান কঠিন হবে, দেশের অর্থনীতির চাকা সচল রাখা যাবে না। তিনি বলেন, স্বাস্হ্যবিধি মানানোর বিষয়টি শুধু সরকারের একার দায়িত্ব নয়। প্রশাসন, স্হানীয় জনপ্রতিনিধিসহ সর্বস্তরের মানুষকে এক্ষেত্রে সচেতন হতে হবে।

বিশ্ব স্বাস্হ্য সংস্হার দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলের সাবেক উপদেষ্টা অধ্যাপক ডা. মোজাহেরুল হক বলেন, দেশে করোনার সংক্রমণ এখন বাড়তেই থাকবে। জনগণকে স্বাস্হ্যবিধি মানাতে বাধ্য করতে হবে। এজন্য কঠোর হতে হবে। অতীতে সরকার নো মাস্ক, নো সার্ভিস চালু করেছিল। কিন্তু প্রশাসন এক্ষেত্রে সফল হয়নি। স্বাস্হ্যবিধি মানতে কঠোর না হলে দেশের হাসপাতালের ওপর চাপ বাড়বে। রোগীরা চরম ভোগান্তিতে পড়বে। দেশে ৭০ শতাংশ চিকিত্সা খরচ জনগণের নিজের পকেট থেকে ব্যয় করতে হয়। দেশে করোনার সংক্রমণ ব্যাপক হারে বাড়লে চিকিত্সার বাইরে থাকবে সিংহভাগ মানুষ। সরকারের ১১ বিধিনিষেধ বাস্তবায়নের ওপর নির্ভর করবে দেশের করোনা পরিস্হিতি কোন দিকে যাবে। এক্ষেত্রে ঢিলেঢালা ভাব দেখানো যাবে না। তিনি বলেন, জেলা-উপজেলায় যে যেখানে আছে সেখানে যেন চিকিত্সাসেবা নিতে পারে, সেই ব্যবস্হা করতে হবে। উপজেলা হাসপাতালের সক্ষমতা বাড়ানোর ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

স্বাস্হ্য অধিদপ্তরের পরিচালক (রোগ নিয়ন্ত্রণ) অধ্যাপক ডা. নাজমুল হক বলেন, সিঙ্গাপুর, ভিয়েতনাম, থাইল্যান্ডসহ বিশ্বের যেসব দেশ শতভাগ স্বাস্হ্যবিধি মেনে চলেছে, জনগণকে মানাতে বাধ্য করাতে পেরেছে এবং যারা টিকা নিয়েছে, তারা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে সফল হয়েছে। আমরা যদি সরকারঘোষিত ১১ বিধিনিষেধ মেনে চলি, তাহলে সফল হব। আর না মানলে সামনে বিপদ।

সংক্রমণের মাত্রা বিবেচনায় সারা দেশকে লাল, হলুদ ও সবুজ- এই তিন ভাগে ভাগ করেছে স্বাস্হ্য অধিদপ্তর। লাল রংকে উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ, হলুদকে মধ্যম এবং সবুজকে কম ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছে।

স্বাস্হ্য অধিদপ্তর বলছে, উচ্চ ঝুঁকির এলাকা ঢাকা ও রাঙ্গামাটি জেলায় নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ১০ শতাংশ থেকে ১৯ শতাংশের মধ্যে। ইয়েলো জোন, অর্থাৎ মধ্যম মাত্রার ঝুঁকিতে থাকা রাজশাহী, রংপুর, নাটোর, লালমনিরহাট, দিনাজপুর, যশোরে শনাক্তের হার এখন ৫ শতাংশ থেকে ৯ শতাংশের মধ্যে।

আর সংক্রমণের হার শূন্য থেকে চার শতাংশের মধ্যে রয়েছে এমন ৫৪টি জেলাকে চিহ্নিত করা হয়েছে সবুজ রঙে। এই জেলাগুলো হলো- চট্টগ্রাম, বগুড়া, গাজীপুর, কক্সবাজার, কুষ্টিয়া, নীলফামারী, বরগুনা, শেরপুর, মেহেরপুর, ঠাকুরগাঁও, ফেনী, সিরাজগঞ্জ, জামালপুর, পিরোজপুর, বাগেরহাট, নারায়ণগঞ্জ, নওগাঁ, ঝালকাঠি, খুলনা, পটুয়াখালী, কুড়িগ্রাম, জয়পুরহাট, ফরিদপুর, বরিশাল, চুয়াডাঙ্গা, মানিকগঞ্জ, চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর, ময়মনসিংহ, রাজবাড়ী, সিলেট, সাতক্ষীরা, গোপালগঞ্জ, মৌলভীবাজার, নোয়াখালী, কিশোরগঞ্জ, গাইবান্ধা, শরীয়তপুর, মুন্সীগঞ্জ, নরসিংদী, খাগড়াছড়ি, ঝিনাইদহ, পাবনা, মাদারীপুর, মাগুরা, সুনামগঞ্জ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, কুমিল্লা, নেত্রকোনা, ভোলা, টাঙ্গাইল, হবিগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ও নড়াইল।

এদিকে গত এক দিনে আরো চার জনের মৃত্যু হয়েছে, তাদের মধ্যে ২৮ হাজার ১১১ জনের প্রাণ কেড়ে নিয়েছে করোনা ভাইরাস। গত এক দিনে দেশে মোট ২৪ হাজার ৯৬৪ জনের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে, তাতে শনাক্তের হার দাঁড়িয়েছে ১১ দশমিক ৬৮ শতাংশ।

এর আগে গত বছরের ৩১ আগস্ট নমুনা পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার এর চেয়ে বেশি ছিল। সেদিন প্রতি ১০০ জনের নমুনা পরীক্ষায় ১১ দশমিক ৯৪ জনের কোভিড পজিটিভ এসেছিল। দেশে এখন সক্রিয় কোভিড রোগীর সংখ্যা ২১ হাজার ৫৪১ জন। দেশে প্রথমবারের মতো ঢাকার বাইরে করোনা ভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রনের রোগী শনাক্ত হয়েছে; যশোরের এ তিনজনসহ দেশে সরকারি হিসাবে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ৩৩।

নিউজ ট্যাগ: কঠোর বিধিনিষেধ

আরও খবর



সীমান্তে লেথাল আর্মস ব্যবহার বন্ধ হচ্ছে: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১১ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১১ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সীমান্তে লেথাল আর্মস ব্যবহার বন্ধ হচ্ছে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল। তিনি বলেন, বাংলাদেশ-ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যা‌য়ে আলোচনায় এই সিদ্ধান্ত হ‌য়ে‌ছে।

মঙ্গলবার (১১ জানুয়া‌রি) দুপুর ১টায় র‍্যাব-১৩ রংপুর, কর্তৃক আ‌য়ো‌জিত কু‌ড়িগ্রা‌মের ধরলা নদীর পূর্ব প্রা‌ন্তে শীতবস্ত্র বিতরণ অনুষ্ঠা‌নে প্রধান অতিথির বক্তব্যে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এ কথা জানান।

আসাদুজ্জামান খান ব‌লেন, বাংলা‌দেশ-ভারত ভ্রাতৃপ্রতীম দেশ। সীমা‌ন্তের ওপা‌রে যারা থা‌কেন তা‌দের সঙ্গে এপা‌রের সীমান্তবর্তী বা‌সিন্দা‌দের নানা কা‌জে সুসম্পর্ক থা‌কে। হয়‌তো ম‌নের টা‌নে নি‌জের অজা‌ন্তে অনে‌কে সীমানা অতিক্রম ক‌রে ফে‌লেন। হয়‌তো অনেকে যেটা করা উচিত নয় সেটাও ক‌রে ফে‌লেন। এ জন্য মা‌ঝে মা‌ঝে দুই-এক‌টি ঘটনা ঘ‌টে যায়।

সীমা‌ন্তে হত্যা ব‌ন্ধে গৃহীত উদ্যোগ প্রস‌ঙ্গে মন্ত্রী ব‌লেন, ‌দুই দে‌শের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যা‌য়ে এবং বি‌জি‌বি-বিএসএফ পর্যা‌য়ে আলোচনা হ‌য়ে‌ছে। সিদ্ধান্তটা হয়েছে, সীমান্ত হত্যা বন্ধ হ‌বে এবং লেথাল আর্মস ব্যবহার করা হ‌বে না। তারপরও মা‌ঝে মা‌ঝে কিছু ঘটনা ঘ‌টে যায়। এই ঘটনা যাতে না ঘটে, সে ব্যাপারে সবাই আন্তরিক।’

বিএন‌পি নেতাকর্মী‌দের বিরু‌দ্ধে অনাহুত কার‌ণে মামলা দেওয়া হ‌চ্ছে—এমন অভি‌যোগ প্রস‌ঙ্গে মন্ত্রী ব‌লেন, অনাহুত কারণ কা‌কে ব‌লে আমি সেটা জা‌নি না। যখন ভাঙচুর হয়, জীবননাশ হয়, অগ্নি সং‌যো‌গের ঘটনা ঘ‌টে, তখন এসব মামলা হয়।’

প‌রে এক হাজারেরও বেশি দুস্থ মানু‌ষের মা‌ঝে শীতবস্ত্র বিতরণ ক‌রেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন কুড়িগ্রাম-৪ আসনের সংসদ সদস্য প্রাথমিক ও গণশিক্ষা প্রতিমন্ত্রী জাকির হোসেন, কুড়িগ্রাম-১ আসনের সংসদ সদস্য আসলাম হোসেন সওদাগর, কুড়িগ্রাম-২ আসনের এমপি পনির উদ্দিন আহমেদ,  কুড়িগ্রাম-৩ আসনের এমপি এম এ মতিন, র‌্যাবের মহাপরিচালক (ডিজি) আবদুল্লাহ আল-মামুন প্রমুখ।


আরও খবর



৭০ হাজার শ্রমিক নেবে ইতালি

প্রকাশিত:বুধবার ১৯ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৯ জানুয়ারী ২০২২ | ৩৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চলতি বছর ৬৯ হাজার ৭০০ শ্রমিক নেবে ইতালি। এ উপলক্ষে সোমবার (১৭ জানুয়ারি) কোটাসহ চূড়ান্ত গেজেট প্রকাশ করেছে দেশটির সরকার। গেজেট অনুযায়ী বাংলাদেশসহ ৩২টি দেশ থেকে কোটাভিত্তিতে ৫৯ হাজার শ্রমিক নেবে ইতালি। বাকি ১০ হাজার ৭০০ শ্রমিক পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ থেকে নেওয়া হবে।

দুই ক্যাটাগরিতে নন-সিজনাল ভিসায় যারা আসবেন তারা দুই বছরের স্টে-পারমিট পাবেন আর যারা সিজনাল ভিসায় আসবেন তারা ৯ মাসের জন্য ইতালিতে বৈধভাবে থাকতে পারবেন। আবেদনের জন্য ইতালি ভিন্ন ভিন্ন তারিখ ঘোষণা করেছে। ২৭ জানুয়ারি থেকে নন-সিজনাল এবং ১ ফেব্রুয়ারি থেকে সিজনাল ভিসার আবেদন জমা নেওয়া হবে। এভাবে একটানা ১৭ মার্চ পর্যন্ত চলবে আবেদন জমা নেওয়ার কাজ।

জানা যায়, চলতি বছর বাংলাদেশিদের জন্য সাধারণ স্পনসরের আবেদন করা কঠিন হবে। কারণ ইতালি এবার যেসব সেক্টরে নন-সিজনাল স্পনসর দিয়েছে সেসব সেক্টরে বাংলাদেশি মালিকানা নেই বললেই চলে। কনস্ট্রাকশন, ভারী যান চালানো, পর্যটন ও বড় হোটেল ব্যবসায় বাংলাদেশি ব্যবসায়ীরা এখনো তেমন আধিপত্য বিস্তার করতে পারেনি। ফলে নন-সিজনাল স্পনসরে দেশটিতে যাওয়া বাংলাদেশিদের জন্য কঠিন হবে।

এ খাতে বাংলাদেশসহ বিভিন্ন দেশ থেকে ২৭ হাজার ৭০০ শ্রমিক আসতে পারবে। এর মধ্যে নির্দিষ্টভাবে আলবেনিয়া, আলজেরিয়া, বাংলাদেশ, বসনিয়া-হার্জেগোভিনা, কোরিয়া (রিপাবলিকা ডি কোরিয়া), কোস্টা ডি আভোরিও, এগিট্টো, এলসালভাদর, ইথিওপিয়া, ফিলিপাইন, গাম্বিয়া, ঘানা, জিয়াপ্পোন, গুয়াতেমালা, ভারত, কসোভো, মালি, মরক্কো, মরিশাস, মোল্দোভা, মন্টিনিগ্রো, নাইজার, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান, রিপাবলিকা ডি ম্যাসেডোনিয়া দেল নর্ড, সেনেগাল, সার্বিয়া, শ্রীলঙ্কা, সুদান, তিউনিসিয়া, ইউক্রেন থেকে ১৭ হাজার শ্রমিক নেওয়া হবে।

এদিকে, মৌসুমি (সিজনাল) ভিসায় বাংলাদেশসহ ৩১টি দেশ থেকে ৪২ হাজার শ্রমিক নেবে ইতালি। এই খাতে বাংলাদেশি শ্রমিকদের জন্য ব্যাপক সুযোগ রয়েছে। তবে ২০২০ সালের মৌসুমি ভিসায় বাংলাদেশিরা এখনো তেমন একটা স্পনসর বের করতে পারেনি। সেক্ষেত্রে চলতি বছর আবেদন জমা দেওয়ার পর কতটা স্পনসর বের হবে তা নিয়ে অনেকে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন।

এ বিষয়ে আইনি পরামর্শক অ্যাড. আনিচুজ্জামান আনিস বলেন, ইতালিতে ২৭ জানুয়ারি ঘোষিত নন-সিজনাল (স্পনসর) ভিসার আবেদন আগের বছরগুলোর মতো উন্মুক্ত না। এবার ইতালিতে শুধু তিন ক্যাটাগরিতে আবেদন জমা দেওয়া যাবে। কনস্ট্রাকশন, ভারী যানচালক, বড় আবাসিক হোটেল ও পর্যটনের জন্য শ্রমিকরা আবেদন করতে পারবে।


আরও খবর
সৌদি আরবে প্রতি ঘণ্টায় ৭ ডিভোর্স

সোমবার ২৪ জানুয়ারী ২০২২




প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন পেলেই ড্যাপের গেজেট প্রকাশ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ৩০ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ৩০ ডিসেম্বর ২০২১ | ৪৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজধানী ঢাকাকে পরিকল্পিত নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে ডিটেইল্ড এরিয়া প্ল্যান (ড্যাপ) চূড়ান্ত করেছে সরকার। চূড়ান্ত করা ড্যাপ এখন প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদনের জন্য পাঠানো হবে। সরকার প্রধানের অনুমতি পেলে এ সংক্রান্ত গেজেট প্রকাশ করা হবে।

সচিবালয়ে বৃহস্পতিবার ড্যাপ পর্যালোচনা সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এটি চূড়ান্ত করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন কমিটির আহ্বায়ক ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রী তাজুল ইসলাম এমপি।

স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, আজ ড্যাপ চূড়ান্ত করা হয়েছে। ড্যাপে কেউ ক্ষতিগ্রস্ত হলে বা কারও ওপর অবিচার করা হয়েছে বলে মনে করলে সেসব সংশোধন করা হবে। কোনও পক্ষের ক্ষতি করার জন্য ড্যাপ পাস করা হচ্ছে না। ড্যাপ চূড়ান্ত হওয়ায় এখন এটি অনুমোদনের জন্য প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হবে। প্রধানমন্ত্রী অনুমোদন দিলে ড্যাপের গেজেট প্রকাশ করা হবে।

ড্যাপের খসড়া অনুযায়ী রাজধানীর প্রায় ৯৪ হাজার ৫৮ দশমিক ৪২ হেক্টর জমি নগর এলাকা হিসেবে প্রস্তাব করা হয়েছে। এর মধ্যে আবাসিক এলাকা হিসেবে ১৯ হাজার ৪৫৭ দশমিক ৬৭ একর, আবাসিক প্রধান মিশ্র ব্যবহার এলাকা এক লাখ ২৩ হাজার ৯৩১ দশমিক নয় একর এবং আবাসিক-বাণিজ্যিক মিশ্র ব্যবহার এলাকা হিসেবে এক হাজার ৭৭৮ দশমিক ৯৩ একর চিহ্নিত করা হয়েছে।


আরও খবর



বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের অষ্টম আসর

শুরু হয়েছে বিদেশি খেলোয়াড়দের বাংলাদেশে আসা

প্রকাশিত:রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৬ জানুয়ারী ২০২২ | ২৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) অষ্টম আসর শুরু হতে বাকি মাত্র ৫ দিন। এরিমধ্যে শুরু হয়েছে দল পাওয়া বিদেশি খেলোয়াড়দের বাংলাদেশে আসা। তাতেই বেড়েছে বিপিএলের উত্তেজনা।

শনিবার চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের হেড কোচ পল নিক্সন যোগ দেন দলের সঙ্গে। দলের সঙ্গে যোগ দিয়ে নিক্সন বলেছেন, তারুণ্যনির্ভর দল গড়েছে চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স। সবাই দুর্দান্ত খেলোয়াড়। এরই মধ্যে অনেকেই জাতীয় দলে তাদের প্রমাণ করেছেন। আমার বিশ্বাস বিপিএলে ছেলেরা দারুণ কিছু করবে। আমি খুবই রোমাঞ্চিত।

হেড কোচের পর আজ রোববার দুপুরে ঢাকা এসে পৌঁছেছেন চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্সের ইংলিশ তারকা ব্যাটার উইল জ্যাকস।

এদিকে ফরচুন বরিশালের ক্যারিবীয় অল-রাউন্ডার ডোয়াইন ব্রাভো দলে যোগ দেবেন সোমবার। একই দিনে আসবেন ইংল্যান্ডের জ্যক লিন্টট। আরেক ক্যারিবীয় পেসার আলজারি জোসেফ আসবেন ১৯ জানুয়ারি। তবে দলের অন্যতম আকর্ষন ক্রিস গেইল আসবেন ২২ জানুয়ারি। আফগান স্পিনার মুজিব উর রহমান আসবেন ২৬ জানুয়ারি। মুজিবের দেরিতে আসার কারণ, নেদারল্যান্ডসের সঙ্গে সিরিজ রয়েছে আফগানিস্তানের।

এদিকে আজ রোববার থেকে শুরু হয়েছে দলগুলোর অনুশীলন। যদিও আগামী ১৮ জানুয়ারি থেকে শুরু হবে আনুষ্ঠানিক অনুশীলন। এদিনই দলগুলো প্রবেশ করবে জৈব সুরক্ষা বলয়ে। আগামী ২১ জানুয়ারি থেকে শুরু হবে মাঠের লড়াই।

নিউজ ট্যাগ: বিপিএল

আরও খবর
মাঠে ফিরছেন মাশরাফি, বোলিংয়ে ঢাকা

সোমবার ২৪ জানুয়ারী ২০২২




রেহামের গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি! এটাই নয়া পাকিস্তান ইমরানের?

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জানুয়ারী ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ০৩ জানুয়ারী ২০২২ | ৪৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রবিবার রাতে ভাগ্নের বিয়ে থেকে বাড়ি ফিরছিলেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রাক্তন স্ত্রী রেহাম খান। মাঝপথে হঠাৎ তাঁর গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি চালায় দুজন অজ্ঞাত পরিচয় ব্যক্তি। বন্দুক ধরে তাঁর গাড়িকে দাঁড় করিয়েও রাখে। কোনও মতে অন্য গাড়িতে চেপে পালিয়ে গিয়ে নিজের প্রাণ বাঁচায়েছেন রেহাম। এমনটাই দাবি করলেন তিনি।

ঘটনার পর পরই আতঙ্কিত রেহাম টুইট করেন। লেখেন, ভাগ্নের বিয়ে থেকে বাড়ি ফিরছিলাম। হঠাৎ বাইকে চেপে দুই দুষ্কৃতি এসে আমাদের গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি চালাতে থাকে। বন্দুক ধরে গাড়িকে দাঁড় করিয়ে রাখে। আমি অন্য গাড়িতে উঠে পড়েছি। ওই গাড়িতে আমার নিরাপত্তারক্ষী ও চালক আছেন।

তবে এই ঘটনার জন্য তিনি আঙুল তুলেছেন তাঁর প্রাক্তন স্বামী তথা পাক প্রধানমন্ত্রীর দিকে। রেহাম লিখেছেন, এটাই কি ইমরান খানের নয়া পাকিস্তান! কাপুরুষ, গুণ্ডা ও লোভীদের দেশে আপনাকে স্বাগত!


আরও খবর
সৌদি আরবে প্রতি ঘণ্টায় ৭ ডিভোর্স

সোমবার ২৪ জানুয়ারী ২০২২