আজঃ বুধবার ২৪ এপ্রিল 20২৪
শিরোনাম

আজকের রাশিফল: মঙ্গলবার ৫ মার্চ ২০২৪

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৫ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৫ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জীবন ধারা ডেস্ক

Image

আজ নতুন কী ঘটতে চলেছে? আজ কি আপনার জন্য ভাল কিছু অপেক্ষা করে আছে? কেমন থাকবে আপনার আর্থিক অবস্থা? নাকি খারাপ কিছুর অপেক্ষা করে আছে আপনার ভাগ্যে। বিখ্যাত জ্যোতিষীর দ্বারা বিশ্লেষণের পর আজকের দিন নিয়ে ভবিষ্যত গণনা জানুন আপনার আজকের রাশিফলে।

মেষ : শরীরচর্চা করে নিজেকে সুস্থ এবং মানসিকভাবে চনমনে রাখুন। বাবার দেওয়া পরামর্শ কর্মক্ষেত্রে অনেক সুবিধা করে দেবে। নেশা কাটিয়ে না উঠলে স্নায়ুর সমস্যা দেখা দেবে।

বৃষ : কোনও সাধু ব্যক্তির প্রভাবে আপনার মধ্যে আধ্যাত্মিক চেতনা দেখা দেবে। স্ত্রীয়ের সাথে মতানৈক্য হতে পারে। ভারি জিনিসের থেকে দূরে থাকুন। সন্তানের জন্য গর্বিত হবেন আজ । আজ শরীরের যত্ন নিন।

মিথুন : শরীর ক্লান্ত থাকবে। তাই বিশ্রাম নেওয়া দরকার । পরিবারের মানুষদের সাথে আড্ডা দিয়ে মন ভালো থাকবে। ভাই বোনদের সাহায্যে আজ কিছু আর্থিক সুবিধা পেতে পারেন। পেশি গুলিকে বিশ্রাম দিন।

কর্কট : বেশি অর্থ উপার্জনের জন্য নিজের উদ্ভাবনী ক্ষমতা ব্যবহার করুন। কাজ মিটিয়ে সন্ধ্যেটা বিনোদনে কাটান। পারিবারিক সমস্ত ঋণ মিটিয়ে দিতে পারবেন। পুরানো বন্ধুদের সাথে দেখা হবে।

সিংহ: টাকা পয়সার ব্যাপারে বেশি সংবেদনশীল হলে সম্পর্ক নষ্ট হতে পারে। ধর্মের প্রতি বিশ্বাস বাড়বে। অসুখ অল্পদিনের মধ্যেই সেরে যাবে। ইচ্ছাপূরণ করতে গিয়ে আপনাকে আর্থিক সমস্যায় পড়তে হতে পারে।

কন্যা : বাচ্চাদের কথা ভেবে সিদ্ধান্ত নিন। তাড়াহুড়ো করবেন না। স্বাস্থ্যের বিশেষ যত্ন নিন। নতুন প্রকল্পের মূলধন ধার নিতে পারেন আজ। ভাই বা বোন টাকা চাইতে পারে। সব দিক বিবেচনা করে টাকা দিন।

তুলা : আগ্রাসী মনোভাবের জন্য ব্যবসায় ক্ষতি হতে পারে। দেবেন। আপনার সৃজনশীল প্রতিভা আজ খ্যাতি এনে দেবে। আজ মন স্থির এবং শান্ত থাকবে। পুরানো বন্ধুদের সাথে দেখা হতে পারে। আনন্দে সময় কাটবে।

বৃশ্চিক : বাড়ির ছোট খাটো জিনিসের জন্য আজ প্রচুর ব্যয় হয়ে যাবে। কিছু সময় আনন্দে কাটবে। ব্যবসায়ীদের ক্ষেত্রে কর্মসূত্রে ভ্রমণে যেতে হতে পারে। খওয়াদাওয়াতে সতর্ক হন। নিজের কাজ অন্যকে দিয়ে করাবেন না।

ধনু : বিপদে পড়া মানুষদের অর্থ দিয়ে সাহায্য করুন। অনেক দিনের পুরানো বিনিয়োগগুলি থেকে আজ আর্থিক লাভ হবে। লম্বা ভ্রমণ এড়িয়ে চলাই বুদ্ধিমানের কাজ। ঠান্ডা মাথায় সবকিছু সামলান।

মকর : বহুদিন ধরে চলতে থাকা ঝগড়া আজ মিটে যাবে। সন্ধ্যায় স্ত্রীয়ের সাথে একান্তে সময় কাটান। ধর্মীয় কার্যকলাপে কিছু অর্থ ব্যয় হবে। স্বাস্থ্যের সমস্যায় পড়তে পারেন। শরীর ভালো থাকবেনা।

কুম্ভ : বেশি মানুষের ভিড়ে ক্লান্ত হয়ে উঠলে একান্তে সময় কাটান। ধার দেওয়া টাকা ফেরত পাবেন আজ। যা নতুন প্রকল্পের কাজে লাগবে। আপনার রসিক স্বভাব আজ সকলের দৃষ্টি আকর্ষণ করবে। বিবাহিত জীবনে অভাব হতে পারে।

মীন : আর্থিক সঞ্চয়ের ব্যাপারে বাবা মায়ের সাথে আলোচনা করুন। এই বিনিয়োগ আপনার ভবিষ্যতে কাজে আসবে। বিপদে পড়া মানুষকে সাহায্য করুন। আজ পরিস্থিতি আপনার অনুকূলে থাকবে।


আরও খবর



অবসর নিয়ে মুখ খুললেন চোটে ভোগা মেসি

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৭ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

ক্যারিয়ারে চোটের সঙ্গে খুব বেশি যুদ্ধ করা না লাগলেও মেজর লিগ সকারের ক্লাব ইন্টার মায়ামিতে যোগ দেওয়ার পর থেকেই লিওনেল মেসিকে ভোগাচ্ছে চোট। চোটের কারণে মায়ামির হয়ে ঠিকঠাক খেলতে পারেননি প্রাক-মৌসুমে। আর্জেন্টিনার হয়ে সর্বশেষ প্রীতি ম্যাচেও খেলতে পারেননি বিশ্বকাপজয়ী এই তারকা। তাইতো ভক্তদের মনে শঙ্কা জেগেছে, তবে কি অবসরের সময় ঘনিয়ে আসছে প্রিয় তারকার?

একটি সাক্ষাৎকারে অবসরের বিষয়ে অবশেষে মুখ খুলেছেন মেসি। অবসর নিয়ে সঞ্চালকের করা প্রশ্নের জবাবে মেসি বলেন, আমি যেই মুহূর্তে মনে করব যে আমি আর পারফর্ম করার জন্য তৈরি না, নিজেকে (মাঠে) উপভোগ করছি না বা সতীর্থদের সাহায্য করতে পারছি না, আমি অবসরে যাব।’

নিজের ব্যাপারে বিশ্বসেরা এই ফুটবলার বলেন, আমি নিজের অনেক বড় সমালোচক। আমি জানি কখন আমি ভালো, কখন খারাপ, কখন আমি ভালো খেলি, কখন খারাপ খেলি। যখন আমি অনুভব করব যে পদক্ষেপ (অবসরের) নেওয়ার সময় এসেছে, আমি বয়সের কথা চিন্তা না করেই নিয়ে নেব। যদি আমি ভালো বোধ করি, আমি খেলা চালিয়ে যাবো। কারণ, এটিই আমি পছন্দ করি এবং আমি জানি কীভাবে করতে হয়।’

অবসরের পর কী করবেন সেই চিন্তাও এখনো পর্যন্ত করেননি মেসি, অবসর নেওয়ার পর আমি কী করব তা নিয়ে এখনো ভাবিনি। ভবিষ্যতের কথা না ভেবে, প্রতিদিন, প্রতি মুহূর্তগুলো উপভোগের চেষ্টা করি আমি। আমার কাছে এখনও কিছু স্পষ্ট নয়, আমি আশা করি খেলা আরও দীর্ঘ সময় চালিয়ে যেতে পারব, যা আমি পছন্দ করি।’

খেলোয়াড়ি জীবনে কোনো কিছু অপূর্ণ নেই উল্লেখ করে মেসি বলেন, আমি ভাগ্যবান ছিলাম যে, খেলাধুলার ক্ষেত্রে আমার পক্ষে যা কিছু সম্ভব, সব স্বপ্ন আমি পূরণ করতে পেরেছি।’


আরও খবর



থাইল্যান্ড যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ এপ্রিল ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আগামী ২৪ থেকে ২৯ এপ্রিল থাইল্যান্ড সফর করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী স্রেথা থাভিসিনের আমন্ত্রণে এ সফরে যাবেন তিনি। সফরে প্রধানমন্ত্রী একটি উচ্চপর্যায়ের প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দেবেন। এ সময় তার সফরসঙ্গী হবেন বেশ কয়েকজন মন্ত্রী, উপদেষ্টা, সচিব ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

আজ বৃহস্পতিবার এক যৌথ বিবৃতিতে জানানো হয়, আগামী ২৬ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আনুষ্ঠানিকভাবে থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী স্রেথা থাভিসিন অভ্যর্থনা জানাবেন। একইসঙ্গে তাকে আনুষ্ঠানিকভাবে গার্ড অব অনার দেওয়া হবে। একইদিন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী গভর্নমেন্ট হাউসে প্রধানমন্ত্রী স্রেথা থাভিসিনের সঙ্গে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করবেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা থাইল্যান্ড রাজপ্রাসাদে রাজা ও রানীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন। শেখ হাসিনা তার সম্মানে থাইল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক আয়োজিত রাষ্ট্রীয় মধ্যাহ্নভোজেও যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে।

সফরের সময় বেশ কয়েকটি চুক্তি ও এমওইউ স্বাক্ষরিত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ইউএনস্ক্যাপের কমিশনের ৮০তম অধিবেশনে যোগ দেওয়ার কথা রয়েছে। তিনি ২৫ ইউএনস্ক্যাপের অধিবেশনে বক্তব্য দেবেন। একইদিন জাতিসংঘের আন্ডার-সেক্রেটারি জেনারেল এবং ইউএনস্ক্যাপের এশিয়া ও প্যাসিফিকের নির্বাহী সচিব আরমিদা সালসিয়াহ আলিসজাবানা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন।

থাইল্যান্ডে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দ্বিপক্ষীয় সফর হবে কূটনৈতিক সম্পর্ক প্রতিষ্ঠার পর বাংলাদেশ থেকে থাইল্যান্ডে সরকারপ্রধান পর্যায়ের প্রথম সফর। এ সফর বাংলাদেশ ও থাইল্যান্ড উভয়ের জন্যই তাৎপর্যপূর্ণ। কারণ এটি দুই বন্ধুপ্রতিম দেশের মধ্যে সহযোগিতার নতুন দ্বার উন্মোচন করবে।


আরও খবর



তীব্র গরমে বিএনপির সমাবেশ স্থগিত

প্রকাশিত:সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

তীব্র তাপদাহের কারণে আগামী শুক্রবার (২৬ এপ্রিল) অনুষ্ঠেয় ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির সমাবেশ স্থগিত করা হয়েছে।

মহানগর দক্ষিণ বিএনপির দপ্তর সম্পাদক সাইদুর রহমান মিন্টু সোমবার (২২ এপ্রিল) এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক নবীউল্লাহ নবীসহ নেতাকর্মীদের মুক্তির দাবিতে এই সমাবেশ হওয়ার কথা ছিল।

উল্লেখ, গত ২৫ মার্চ রাজধানীতে মুক্তিযোদ্ধা সমাবেশ করে বিএনপি। তবে দলীয় কর্মসূচি হিসেবে নির্বাচনের আগে গত বছরের ২৮ অক্টোবর সর্বশেষ রাজধানীতে সমাবেশ করেছিল বিএনপি। সমাবেশকে কেন্দ্র করে রাজধানীজুড়ে চলে জ্বালাও-পোড়াও এবং সংঘর্ষ। এতে পুলিশ সদস্যসহ বেশ কয়েকজন প্রাণ হারান।

এর পরদিন উত্তরার বাসায় গ্রেপ্তার হন ফখরুল। এরপর থেকে কয়েক মাস কারাবন্দি ছিলেন। ৭ জানুয়ারির নির্বাচনের সময় জেলেই ছিলেন তিনি। গত ১৫ ফেব্রুয়ারি কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি পান তিনি।


আরও খবর



জাতীয় ঈদগাহে ৩৫ হাজার মুসল্লির নামাজের ব্যবস্থা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৯ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৯ এপ্রিল ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

জাতীয় ঈদগাহে ঈদুল ফিতরের নামাজের প্রধান জামাতে ৩৫ হাজার মুসল্লির অংশ নেওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস। তিনি বলেন, এই জামাতে নারীদের নামাজের ব্যবস্থাও করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৯ এপ্রিল) দুপুরে জাতীয় ঈদগাহ পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান ডিএসসিসি মেয়র। জাতীয় ঈদগাহে ঈদের প্রধান জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল সাড়ে ৮টায়।

মেয়র তাপস বলেন, ঈদুল ফিতরের নামাজের প্রায় সব প্রস্তুতি আমরা সম্পন্ন করেছি। আর যে একদিন আছে এর মধ্যে আমরা বাকি কাজগুলো সম্পন্ন করব। গত দুই বছরের মতো ঢাকাবাসীকে আমরা আমন্ত্রণ জানাতে চাই, পরিবার-পরিজন নিয়ে এই জামাতে অংশগ্রহণ করার জন্য এবং ঈদের আনন্দ ভাগ করে নেওয়ার জন্য।

তিনি বলেন, এখানে ৩৫ হাজার মুসল্লির জামাতের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এজন্য সব ধরনের সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করা হয়েছে। আমরা আশা করছি কোনো ধরনের বৃষ্টিপাত হবে না। আবহাওয়া অধিদপ্তর থেকে আমরা সে ধরনের তথ্য পেয়েছি। কালবৈশাখী ঝড় অথবা প্রবল বৃষ্টিপাত হলেও এখানে যেন সুষ্ঠুভাবে জামাত অনুষ্ঠিত করা যায়, সেই ব্যবস্থা আমরা করেছি। পুরোটা অংশ আমরা ত্রিপল দিয়ে ঢেকে দিয়েছি। যেন পানি পড়তে না পারে এবং কোনো দুর্ভোগ না হয়।

তিনি আরও বলেন, এখানে আমাদের নিয়ন্ত্রণকক্ষ থাকবে এবং সব স্বাস্থ্যসেবার ব্যবস্থা থাকবে। যাতে করে কোনো মুসল্লির কোনো সমস্যা না হয়। জামাতে প্রবেশের জন্য ৪টি প্রবেশ পথ তৈরি করা হয়েছে। নারীদের জন্য আলাদা প্রবেশ পথ রয়েছে। এছাড়া জামাত শেষে বেরোনোর জন্য আরও তিনটি ফটক আমরা রেখেছি। যাতে কর দ্রুত সবাই বের হয়ে যেতে পারে।

মেয়র বলেন, মুসল্লিরা জায়নামাজ এবং ছাতা জামাতে আনতে পারবেন। তবে দেয়াশলাইসহ আগুন জালানোর কোনো সরঞ্জাম নিয়ে কাউকে জামাতে প্রবেশ না করতে সবাইকে অনুরোধ জানাচ্ছি।

নিউজ ট্যাগ: জাতীয় ঈদগাহ

আরও খবর



‘যুদ্ধে ব্যয় না করে জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় অর্থ খরচ করুন’

প্রকাশিত:সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ২২ এপ্রিল ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

যুদ্ধের পেছনে অর্থ ব্যয় না করে তা জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবেলায় ব্যয় করলে বিশ্ব রক্ষা পেত বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী আজ সোমবার (২২ এপ্রিল) দুপুরে বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো আয়োজিত ন্যাশনাল অ্যাডাপশন প্ল্যান (ন্যাপ) এক্সপো-২০২৪-এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশে আমরা জীবাশ্ম জ্বালানির ব্যবহার হ্রাস করে নবায়নযোগ্য জ্বালানির ব্যবহার বৃদ্ধি করেছি। যাতে গ্রিন হাউস গ্যাস নিঃসরণ হ্রাস পায়। এ পর্যন্ত প্রায় ৬০ লাখ সোলার হোম সিস্টেম স্থাপন এবং গ্রামাঞ্চলে ৪৫ লাখেরও বেশি উন্নত চুলা বিতরণ করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমরা ২০২৩ সালে মুজিব ক্লাইমেট প্রোসপারিটি প্ল্যান (এমসিপিপি) প্রণয়ন করেছি। এতে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবিলা করে বিপদাপন্নতা থেকে সহিষ্ণুতা এবং সহিষ্ণুতা থেকে সমৃদ্ধি পর্যায়ে পৌঁছানোর লক্ষ্য নির্ধারণ করা হয়েছে। এ ছাড়া এমসিপিপিতে অভিযোজন ও প্রশমন কার্যক্রমে স্থানীয় জনগণের স্বপ্রণোদিত অংশগ্রহণ, প্রকৃতিভিত্তিক সমাধান ও সমাজের সকলের অংশগ্রহণের ওপর গুরুত্বারোপ করা হয়েছে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবিলার বৈশ্বিক উদ্যোগ গ্রহণ করা হয় ১৯৯২ সালে। কিন্তু জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অনেক আগেই ১৯৭২ সালে এ বিষয়ে কার্যকর ও সুদূরপ্রসারী কর্মপরিকল্পনা গ্রহণ করেন। সামুদ্রিক জলোচ্ছ্বাস ও প্রাকৃতিক দুর্যোগ থেকে রক্ষার জন্য ১৯৭২ সালে তিনি উপকূলীয় বনায়নের সূচনা করেন। একই বছর ঘুর্ণিঝড় প্রস্তুতি কর্মসূচি প্রণয়ন করেন যা ১৯৭৩ সালে উদ্বোধন করা হয়। জীবন ও সম্পদ রক্ষায় তিনি উপকূলীয় অঞ্চলে ঘুর্ণিঝড় আশ্রয়কেন্দ্র নির্মাণ করেন। এসব আশ্রয়কেন্দ্র স্থানীয়দের কাছে মুজিব কিল্লা নামে পরিচিত।

তিনি বলেন, আমরা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের পদাঙ্ক অনুসরণ করে জলবায়ু পরিবর্তনের বিরূপ প্রভাব মোকাবিলায় নিজস্ব সম্পদ দিয়ে বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছি। অভিযোজন কার্যক্রম বাস্তবায়নের জন্য ২০০৯ সালে আমরা নিজস্ব অর্থায়নে বাংলাদেশ জলবায়ু পরিবর্তন ট্রাস্ট ফান্ড প্রতিষ্ঠা করেছি। এর আওতায় এ পর্যন্ত প্রায় ৫০০ মিলিয়ন ডলার ব্যয়ে ৯ শত ৬৯টি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে।

এ সময় প্রধানমন্ত্রী নিরাপদ পৃথিবীর জন্য সবার সমন্বিত চেষ্টায় তাগিদ দেন। ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য একটি নিরাপদ ও সুন্দর পৃথিবী গড়তে জলবায়ু অভিযোজন সক্ষমতা বৃদ্ধি, সহিষ্ণুতা শক্তিশালী করা এবং ঝুঁকি হ্রাসে সমন্বিতভাবে উদ্যোগ গ্রহণে বিশ্বের সামনে পাঁচ দফা সুপারিশ তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।


আরও খবর