আজঃ বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১
শিরোনাম

আজকের ভালো মন্দ

প্রকাশিত:রবিবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আজ আপনার জন্মদিন হলে পাশ্চাত্য জ্যোতিষে আপনি কন্যা রাশির জাতক/ জাতিকা। আপনার জন্মসংখ্যা : ৩। আপনার ওপর প্রভাবকারী গ্রহ : বুধ ও বৃহস্পতি। আপনার শুভ সংখ্যা : ৩ ও ৫। শুভ বার : বুধ ও বৃহস্পতি। শুভ রত্ন : পান্না ও পোখরাজ।

মেষ (২১ মার্চ-২০ এপ্রিল)

দিনটি মিশ্র সম্ভাবনাময়। ব্যবসায়িক দিক ভালো যাবে না। বিক্রয়-বাণিজ্যে লোকসান হতে পারে। সামাজিক সংকট এড়িয়ে চলুন। রিপুকে সংযত রাখুন।

বৃষ (২১ এপ্রিল-২০ মে)

ব্যবসায়িক দিক ভালো যাবে। যৌথ ব্যবসায় নিজের কর্তৃত্ব বজায় রাখতে পারবেন। নতুন বিনিয়োগ ফলপ্রসূ হতে পারে। দাম্পত্য সম্পর্ক ভালো থাকবে। বিনোদন শুভ।

মিথুন (২১ মে-২০ জুন)

ব্যক্তিগত-দায় দায়িত্ব বৃদ্ধি পেতে পারে। কর্মপরিবেশ খুব একটা অনুকূল না-ও থাকতে পারে। কর্মস্থলে সহকর্মীদের সহযোগিতা না-ও পেতে পারেন। শরীর অসুস্থ হতে পারে। খাওয়া-দাওয়ায় সতর্ক থাকুন।

কর্কট (২১ জুন-২০ জুলাই)

নিজের মনোভাব স্পষ্ট ভাবে প্রকাশ করুন। সে ক্ষেত্রে সাফল্য পেতে পারেন। বিদ্যার্থীদের জন্য দিনটি শুভ। প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় সাফল্য পেতে পারেন। বিনোদন শুভ।

সিংহ (২১ জুলাই-২১ আগস্ট)

কোনও স্থাবর সম্পত্তি ক্রয় করতে পারেন। মন ভালো থাকবে। পড়াশোনার প্রতি আগ্রহ বোধ করতে পারেন। কোনও প্রত্যাশা পূরণ হতে পারে। মাতৃস্বাস্থ্য ভালো থাকতে পারে।

কন্যা (২২ আগস্ট-২২ সেপ্টেম্বর)

আত্মীয়দের সঙ্গে যোগাযোগ হতে পারে। ব্যক্তিগত যোগাযোগে সুফল পেতে পারেন। কাজকর্মে উৎসাহ বোধ করতে পারেন। ছোট ভাইবোনদের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো থাকতে পারে। প্রাপ্ত তথ্যের ওপর নির্ভর করা যেতে পারে।

তুলা (২৩ সেপ্টেম্বর-২২ অক্টোবর)

আর্থিক দিক ভালো যাবে। কোনও সূত্র থেকে অর্থাগম হতে পারে। পড়াশোনায় আনন্দ পাবেন। প্রদত্ত প্রতিশ্রুতি রক্ষা করা সহজ হতে পারে। অধীনদের কাজে লাগাতে পারবেন।

বৃশ্চিক (২৩ অক্টোবর-২১ নভেম্বর)

আত্মপ্রতিষ্ঠার শ্রেষ্ঠ জোরদার করুন। সে ক্ষেত্রে সাফল্য পেতে পারেন। শরীর ভালো থাকবে। মানসিক প্রশান্তি বজায় থাকতে পারে। ব্যক্তিত্ব দিয়ে অন্যকে প্রভাবিত করতে পারবে।

ধনু (২২ নভেম্বর-২০ ডিসেম্বর)

দিনটি খুব একটা অনুকূল না-ও থাকতে পারে। শারীরিক অসুস্থতাকে অবহেলা করবেন না। প্রয়োজনে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। গোপন শত্রু সম্পর্কে সতর্ক থাকুন। সম্ভাব্য ক্ষেত্রে বিদেশযাত্রা হতে পারে।

মকর (২১ ডিসেম্বর-১৯ জানুয়ারি)

আর্থিক দিক ভালো যাবে। উপার্জন বৃদ্ধি পেতে পারে। কোনও আশা পূরণ হতে পারে। পেশাগত যোগাযোগে সুফল পেতে পারেন। রাজনীতিবিদদের জন্য সময় অনুকূল থাকবে পারে।

কুম্ভ (২০ জানুয়ারি-১৮ ফেব্রুয়ারি)

কোনও উচ্চাশা পূরণ হতে পারে। কর্মপরিবেশ অনুকূল থাকবে। কর্মস্থলে নিজের কর্তৃত্ব বজায় রাখতে পারবেন। বেকারদের কারও কারও কর্মপ্রাপ্তির সম্ভাবনা আছে। পাবলিক ইমেজ বৃদ্ধি পাবে।

মীন (১৯ ফেব্রুয়ারি-২০ মার্চ)

উচ্চশিক্ষার জন্য দিনটি শুভ। জ্ঞানস্পৃহা বৃদ্ধি পাবে। মন ভালো থাকবে। পেশাগত দিক ভালো যাবে। সম্ভাব্য ক্ষেত্রে বিদেশযাত্রা হতে পারে।



আরও খবর
আজ আপনার জন্মদিন হলে

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১

আজ প্রথম প্রেম দিবস

শনিবার ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২১




দেশের অর্ধেক ইন্টারনেট ব্যবহৃত হচ্ছে পর্নোগ্রাফিতে

প্রকাশিত:শনিবার ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৯৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশে বর্তমানে ব্যবহৃত ইন্টারনেটের অর্ধেকই খরচ হচ্ছে পর্নোগ্রাফি, টিকটক, ফ্রি-ফায়ার কিংবা পাবজির পেছনে। জাতীয় প্রেসক্লাবে নিরাপদ ইন্টারনেট বিষয়ক এক অনুষ্ঠানে উঠে আসে উদ্বেগজনক এমন তথ্য।

তবে বিটিআরসি বলছে, ফ্রি-ফায়ার-পাবজির পর, টিকটক-লাইকির মতো অ্যাপ বন্ধের প্রক্রিয়া চলছে। সবার জন্য নিরাপদ ইন্টারনেট নিশ্চিতে আইন করার কথাও ভাবা হচ্ছে।

করোনাকালে দেশে হঠাৎ করে আলোচনায় টিকটক ও লাইকি। এসব অ্যাপে তারকা বানানোর প্রলোভন দেখিয়ে নারী পাচারসহ নানা অনৈতিক কর্মকাণ্ডে দেশজুড়ে শুরু হয় তোলপাড়।

ফ্রি-ফায়ার ও পাবজির মতো অনলাইন গেইম কিশোর-তরুণদের আগ্রাসী করতে তুলছে বলে নানা মহল থেকে অভিযোগ ওঠার পর বন্ধ করা হয়েছে এগুলো। বন্ধ করা হয়েছে ২০ হাজারের বেশি পর্ন সাইটও।

তবে শনিবার (৪ সেপ্টেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবে এক অনুষ্ঠানে ইন্টারনেট সেবাদাতাদের সংগঠন আইএসপিএবি সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক দাবি করলেন, বর্তমানে দেশে ব্যবহৃত ২৬শ' জিবিপিএস ব্যান্ডউইথের অর্ধেকই ব্যয় হচ্ছে ভার্চুয়াল গেম, টিকটক, লাইকি ও পর্নোগ্রাফি দেখার পেছনে।

বিটিআরসির ভাইস চেয়ারম্যান সুব্রত রায় বলেন, সাইবার সিকিউরিটি বিষয়ক একটা পলিসি এখন আসলেই দরকার। আমাদের স্থায়ী সমাধানে যেতে হবে।

বর্তমানে দেশে মুঠোফোন ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা প্রায় ১১ কোটি ৩৬ লাখ। আর ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট ব্যবহার করছেন এক কোটি গ্রাহক।


আরও খবর



অনন্য কীর্তির সামনে মাহমুদউল্লাহ

প্রকাশিত:শনিবার ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশকে দারুণভাবে এগিয়ে নিচ্ছেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। তাঁর অধীনে এরই মধ্যে এক বছরে সর্বাধিক জয়ের রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ।

এ ছাড়া টি-টোয়েন্টিতে মাশরাফী বিন মোর্ত্তজাকে ছাপিয়ে সবচেয়ে সফল অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ। এবার আরেকটি মাইলফলকের সামনে দাঁড়িয়ে অভিজ্ঞ এই ক্রিকেটার।

প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে ১০০তম ম্যাচ খেলার দ্বারপ্রান্তে মাহমুদউল্লাহ। নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে আগামীকাল রবিবার সিরিজের তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে টস করতে নামলেই এই ফরম্যাটে ম্যাচের সেঞ্চুরি করবেন তিনি।

২০০৭ সালের ১ সেপ্টেম্বর টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে অভিষেক হয় মাহমুদউল্লাহর। ১৪ বছর পর সেই সেপ্টেম্বরেই নিজের শততম ম্যাচ খেলার সামনে দাঁড়িয়ে তিনি। যদিও এটা নিয়ে আলাদা পরিকল্পনা নেই তাঁর। দলের জন্য অবদান রাখাই অধিনায়কের কাছে বড় ব্যাপার।

শততম ম্যাচ নিয়ে জানতে চাইলে অধিনায়ক বললেন, আলাদা কোনো পরিকল্পনা নেই। আমি চেষ্টা করব যেন আমার সবসময় যেটা লক্ষ্য থাকে দলের জন্য খেলা ও দলে অবদান রাখা। চেষ্টা করব, যদি আমি সুস্থ থাকি এবং আমার ১০০তম ম্যাচটি খেলতে পারি, দলের জন্য যেন অবদান রাখতে পারি।

মিরপুর শেরেবাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে আগামীকাল তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে নিউজিল্যান্ডের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। ম্যাচটিতে জিতলেই প্রথম বার কিউইদের বিপক্ষে সিরিজ জয়ের কীর্তি গড়বে বাংলাদেশ। কালই সিরিজ জিততে পারলে মাহমুদউল্লাহর ১০০তম ম্যাচ মনে রাখার মতো হবে বলেই আশা করা যায়।

এই ফরম্যাটে মাহমুদউল্লাহর পর দ্বিতীয় সর্বাধিক ৮৮ ম্যাচ খেলেছেন মুশফিকুর রহিম। সাকিব আল হাসান খেলেছেন ৮৬ ম্যাচ।


আরও খবর
টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের থিম সং প্রকাশ

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

মেসিকে পেছনে ফেললেন সিআর সেভেন

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১




নুসরাতের সাজানো মামলা আইনের গুরুতর লঙ্ঘন

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ১০৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

এক ঘটনায় তিনটি মামলা দায়ের। প্রথম মামলা খারিজের পর দ্বিতীয় মামলাকে পাশ কাটিয়ে তদন্তে গেছে তৃতীয় মামলা। রাজধানীর গুলশানে মোসারাত জাহান মুনিয়া নামে এক তরুণীর মৃত্যুর ঘটনাকে কেন্দ্র করে এভাবেই আইনের গুরুতর লঙ্ঘন হচ্ছে বলে মনে করছেন আইনজীবীরা। একটি ঘটনাকে ঘিরে একই বাদির একেকরকম অভিযোগ তথা আত্মহত্যা প্ররোচনা মামলায় হেরে গিয়ে হত্যা মামলা দায়েরের ঘটনাকে নজিরবিহীন বলেও মনে করছেন তাঁরা।

উচ্চ আদালতের জ্যেষ্ঠ আইনজীবীদের বক্তব্য, একই ঘটনায় একাধিক মামলা হতেই পারে। কিন্তু এক্ষেত্রে কিছু নিয়ম রয়েছে। সাধারণত প্রথম মামলার কার্যকারিতা সম্পন্ন হলে দ্বিতীয় মামলা চালু হওয়ার কথা। আবার প্রথম মামলাটি প্রমাণ হলে দ্বিতীয় মামলা সক্রিয় করার সুযোগ নেই। এ ঘটনায় যেহেতু প্রথম মামলায় বাদির অভিযোগের প্রমাণ মেলেনি, সেহেতু দ্বিতীয় মামলায় অবশ্যই যেতে হবে। দ্বিতীয় মামলা তদন্ত না করে তৃতীয় মামলায় যাওয়ার কোন সুযোগ নেই। তাছাড়া একই ইস্যুতে একই ব্যক্তির বিরুদ্ধে একাধিক মামলা করারও কোন সুযোগ নেই।

জানা গেছে, গত ২৬ এপ্রিল মুনিয়ার লাশ উদ্ধারের পর আত্মহত্যার প্ররোচনার অভিযোগ এনে বসুন্ধরা গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) সায়েম সোবহান আনভীরের বিরুদ্ধে গুলশান থানায় মামলা করেন নুসরাত। ময়নাতদন্ত রিপোর্ট এবং অন্যান্য আলামত পুঙ্খানুপুঙ্খ বিশ্লেষণ ও তদন্ত করে পুলিশ নিশ্চিত হয় যে, আত্মহত্যার কোন প্ররোচনার ঘটনা ঘটেনি। দীর্ঘ চার মাস তদন্তের পর গত ১৯ জুলাই আদালতে এ মামলার চূড়ান্ত তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করে পুলিশ। শুনানি শেষে ১৮ আগস্ট তদন্ত প্রতিবেদন গ্রহণ করেন আদালত। একই সঙ্গে সম্পৃক্ততা না পাওয়ায় এ মামলা থেকে সায়েম সোবহান আনভীরকে অব্যাহতি দেন আদালত। পুলিশের এই চূড়ান্ত প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে নুসরাতের দেওয়া নারাজি আবেদনও নথিপত্র বিশ্লেষণপূর্বক খারিজ করে দেন।

অন্যদিকে, মুনিয়াকে হত্যা করা হয়েছে দাবি করে ২ মে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন তার ভাই আশিকুর রহমান সবুজ। তিনি মামলায় অভিযুক্ত করেন হুইপ সামশুল হক চৌধুরীর ছেলে নাজমুল করিম চৌধুরী শারুনকে। কিন্তু প্রথম মামলা চলমান থাকায় এ মামলাটির কার্যকারিতা স্থগিতের আদেশ দেন আদালত। প্রথম মামলার কার্যক্রম শেষ হওয়ার পর স্বাভাবিকভাবে সবুজের মামলাটি চালু হওয়ার কথা। কিন্তু এর মধ্যে গত ৬ সেপ্টেম্বর একই ঘটনা ভিন্নভাবে উপস্থাপন করে ঢাকার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে কথিত ধর্ষণ ও হত্যার অভিযোগে মামলা করেন প্রথম মামলার বাদি নুসরাত। আদালত সেটি তদন্তের জন্য পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনকে (পিবিআই) দায়িত্ব দেন।

অভিযোগ উঠেছে, মুনিয়ার মৃত্যুর ঘটনায় তার বড় ভাই আশিকুর রহমান সবুজের করা হত্যা মামলা থেকে আসামি শারুন চৌধুরীকে রক্ষায় তৎপর হয়ে উঠেছে একটি সংঘবদ্ধ চক্র। আইন বিশেষজ্ঞরাও বলছেন, এর মাধ্যমে আইনের গুরুতর লংঘন হয়েছে বলে মনে করেন সংবিধান ও আইন বিশেষজ্ঞরা। তাদের মতে, নুসরাতের করা প্রথম মামলা কার্যকারিতা হারালে ভাই সবুজের করা দ্বিতীয় মামলাটি তদন্তে আসবে। কিন্তু এটি না করে নুসরাতের করা তৃতীয় আরেকটি মামলা গ্রহণ ও তদন্তের নির্দেশ বিধিমত হয়নি। একইসঙ্গে প্রশ্ন উঠেছে, মুনিয়ার ভাইয়ের মামলা কেন ধামাচাপা দেয়া হচ্ছে? ওই মামলা থাকা অবস্থায় আইন লঙ্ঘন করে কিভাবে আরেকটি মামলা হয়?

নুসরাতের হত্যা মামলাকে নজিরবিহীন বলছেন আইনজীবীরা: ঢাকা মহানগর দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট মো.আবদুল্লাহ আবু এ বিষয়ে বলেন, মুনিয়ার ভাইয়ের করা দ্বিতীয় মামলা স্টে ছিল নুসরাতের করা প্রথম মামলা পরিচালনার স্বার্থে। এখন যেহেতু প্রথম মামলা নিষ্পত্তি হয়েছে তাই দ্বিতীয় মামলা চলবে। দ্বিতীয় মামলা নিষ্পত্তি হওয়ার আগে আর কোনো মামলা হতে পারে না। পূর্ববর্তী মামলায় বাদী যদি কোন গাফিলতি হয়েছে বলে মনে করে তাহলে সে নারাজি দিতে পারে। কিন্তু একই বিষয়ের ওপর আবারো মামলা করতে পারে না। এভাবে মামলা হয় না, আইনে নেই।

এ জ্যেষ্ঠ আইনজীবী আরও বলেন, দ্বিতীয় যে মামলা করা হয়েছে সেটা নিষ্পত্তির আগে একই বিষয়ের ওপর তৃতীয় মামলা হতে পারে না। যদি কেউ এ ধরনের মামলা করেও তাহলে তা খারিজ হয়ে যাবে। জুডিশিয়াল নোটিশে যখন সেই মামলা আসবে তখন তা খারিজ হয়ে যাবে। একই বিষয়ে একাধিক মামলা চলতে পারে না। যেহেতু একই ঘটনায় হত্যা মামলা আগেই করা আছে এ মামলাটি নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত নারী ও শিশু নির্যাতনে মামলা করার সুযোগ নেই। সে (নুসরাত) নারী বলে চাইলেই মামলা করবে? এটা হতে পারে না। নুসরাতের এই মামলা টিকবে না। কোর্ট বিষয়টি জানতে পারলে খারিজ করে দেবেন।

ঢাকা আইনজীবী সমিতির সিনিয়র আইনজীবী আরফান উদ্দিন খান বলেন, আত্মহত্যা প্ররোচনার পরে একই বাদীর হত্যা মামলা দায়ের নজীববিহীন। আমার জীবনে এমন মামলা দেখিনি। তিনি বলেন, বড়ভাই (আশিকুর রহমান সবুজ) যে হত্যা মামলা দায়ের করেছিলেন সেই মামলাটি স্থগিত থাকতে পারে না। কোর্টের উচিত ছিল এটি একই তদন্ত কর্মকর্তার কাছে প্রেরণ করা। যেহেতু আত্মহত্যা রেজাল্ট এসেছে কোর্ট পিবিআইকে এই হত্যা মামলা দিতেই পারে না বলে আমি মনে করি। আত্মহত্যা যেখানে মেডিকেলি প্রমাণিত সেখানে হত্যা মামলা হয় কী করে! এই মামলা টিকবে না, পিবিআই বা যাকেই দিক ফাইনাল রিপোর্ট দেবে। এটি ১৫৪ ধারা কভার করে না।

বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট নজিবুল্লাহ হিরু বলেন, একই বাদী দুই ধরণের মামলা করায় সুবিধা পাবে বিবাদী। কারণ এক বাদী কিভাবে একেক সময় একেক ধরনের মামলা করেন তা তদন্ত কর্মকর্তার সামনে আসবে। আমার মনে হয় নুসরাত তার ভাইয়ের দায়ের করা মামলা গোপন করেছে, না হলে আদালত দুই মামলারই তদন্ত করার নির্দেশ দিত। কারণ একই ঘটনার একই সঙ্গে পৃথক দুটি তদন্ত হতে পারে না। বাদী নিজে বলেছে আত্মহত্যা প্ররোচনা মামলা, ময়না তদন্তে প্রমাণ হয়েছে আত্মহত্যা। সেসময় মুনিয়ার ভাই একটা হত্যা মামলা করে। সেই হত্যা মামলার রিপোর্ট এখন স্থগিত। এই অবস্থায় মুনিয়ার বোন আবার আরেকটা হত্যা মামলা করে। এটা পুলিশকে হয়রানি ছাড়া আর কিছু না। ভাইয়ের মামলা কেনো নুসরাত গোপন করলেন। নাহলে তো দুই মামলাই একসঙ্গে তদন্ত হওয়ার কথা।

ঢাকা আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি গোলাম মোস্তফা বলেন, আত্মহত্যা প্ররোচনার মামলাই যখন ফাইনাল রিপোর্টে আসামির বিরুদ্ধে প্রমাণ মেলেনি সেখানে হত্যা মামলা আসবে কোথা থেকে। নতুন করে মামলা তদন্ত করে তো কোন লাভ হবে না। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট একই, আলামত ও পারিপার্শ্বিক অবস্থা একই। সেখানে নতুন করে তদন্ত করে কি পাবে।

আইন বিষেজ্ঞরা আরও বলছেন, বাংলাদেশ সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৩৫(২) অনুসারে কোন অপরাধের জন্য কোন ব্যক্তিকে একাধিকবার ফৌজদারীতে সোপর্দ ও দন্ডিত করা যাবে না। অর্থাৎ এই অনুচ্ছেদ অনুযায়ী কোন ব্যক্তিকে কোন ফৌজদারি মামলায় একাধিকবার শাস্তি প্রদান করা যাবে না। এই বিষয়টি ফৌজদারি কার্যবিধি ১৮৯৮ এর ধারা ৪০৩ এ উল্লেখ করা হয়েছে। ধারা ৪০৩ অনুযায়ী কোন উপযুক্ত আদালত কোন মামলায় একজন ব্যক্তির বিচার করে তাকে শাস্তি বা খালাশ প্রদান করলে ওই আদেশ বলবৎ থাকা অবস্থায় একই অপরাধের দায়ে পুনরায় তার বিচার করা যাবে না। আদালতের কাছে সত্য গোপন করে এ ধরনের মামলা যদি কেউ করেন তাহলে আদালত তা খারিজ করে দেবেন।

শারুনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলায় যা বলেছিলেন মুনিয়ার ভাই: এদিকে, গত ২ মে মুনিয়াকে হত্যা করা হয়েছে উল্লেখ করে ঢাকার মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে হত্যা মামলার আবেদন করেন মুনিয়ার বড় ভাই আশিকুর রহমান সবুজ। সবুজ বলেন, বসুন্ধরা গ্রুপের এমডি সায়েম সোবহান আনভীরের সঙ্গে শারুনের ব্যবসায়িক দদ্ব ছিল। এ কারণে শারুন মুনিয়ার মাধ্যমে আনভীরের ব্যবসায়িক ও ব্যক্তিগত তথ্য জানার চেষ্টা করেন। কিন্তু এতে অসম্মতি জানালে মুনিয়ার ওপর ক্ষিপ্ত হন শারুন। এর প্রতিশোধ নিতে শারুনই সহযোগীদের নিয়ে মুনিয়াকে হত্যা করে। সবুজের দাবি, তার বোন মুনিয়াকে শারুন চৌধুরী ও তার সহযোগীরা ঘটনার দিন ফ্ল্যাটের ডুপ্লিকেট চাবি নিয়ে ঢুকে হত্যা করে। পরে তার বোনের লাশ ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে রেখে কৌশলে বাসা থেকে বের হন শারুন।

মামলার আবেদনে আরো বলা হয়, আমরা তিন ভাইবোনের মধ্যে মোসারাত জাহান মুনিয়া তৃতীয়। তার বয়স ২১ বছর। সে মাধ্যমিক শেষ করে মিরপুর ক্যান্টনমেন্ট পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের একাদশ শ্রেণিতে অধ্যয়নরত ছিল। আমরা পরিবারের পক্ষ থেকে পড়াশোনার জন্য যথাসাধ্য সহযোগিতা করে আসছিলাম। ইতিমধ্যে আসামি নাজমুল করিম চৌধুরী শারুনের সঙ্গে আমার বোনের পরিচয় হয়। পরিচয়ের পর থেকে মাঝে মধ্যে আসামি শারুনের সঙ্গে কথাবার্তা ও দেখা-সাক্ষাৎ হতো মুনিয়ার। আমার বোনকে হত্যার আগে তার কাছ থেকেই আমি এসব কথা জেনেছি ও শুনেছি। কিন্তু অত্যন্ত দুঃখ ও পরিতাপের বিষয় গত দুই বছর আগে আমার বোন নুসরাত জাহান (তানিয়া) ও তার স্বামী মিজানুর রহমানের জাতীয় পরিচয়পত্র ব্যবহার করে গুলশানে ১২০ নম্বর সড়কের ১৯ নম্বর বাড়িতে ফ্ল্যাট ভাড়া করে। সেখানে আমার ছোট বোন নুসরাত আমার অপর ছোট বোন মুনিয়াকে ওই বাসায় অবস্থানের নির্দেশ দেয়। সেই মোতাবেক মুনিয়া সেখানে অবস্থান শুরু করে।

মামলার আবেদনে আরও বলা হয়, আসামি নাজমুল করিম শারুন আমার কোমলমতি বোনকে অসৎ উদ্দেশ্যে ব্যবহার ও ভোগ করেছে। আমার অধুনা মৃতা বোন মুনিয়া যখনই এই ঘৃণ্য চক্রান্ত থেকে বের হয়ে ফেরত আসতে চেয়েছে, তখনই শারুন আমার বোন মুনিয়ার ওপর চরম ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। ঘটনাস্থলে উপস্থিত সাক্ষী, আমার বোন তানিয়ার বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে আমার মনে দৃঢ় বিশ্বাস, নাজমুল করিম চৌধুরী শারুন সুকৌশলে আমার বোনের ফ্ল্যাটে ঢুকে অজ্ঞাতনামা আসামিদের সহযোগিতায় নির্মমভাবে হত্যা করে মুনিয়ার মৃতদেহ ফ্যানের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখে।


আরও খবর
স্বামী হত্যায় স্ত্রীর যাবজ্জীবন

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

আদালতে হাজির করা হচ্ছে ইভ্যালির রাসেলকে

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১




মাঝ আকাশে হার্ট অ্যাটাক হয়েছিল সেই বিমানের পাইলটের

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৭ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৭ আগস্ট ২০২১ | ৯০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বড় দুর্ঘটনার হাত থেকে রক্ষা পেল বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটের যাত্রীরা। মাস্কাট থেকে ঢাকার উদ্দেশে উড্ডয়ন করা ফ্লাইটটি শুক্রবার ১১টা ৪০ মিনিটে ভারতের নাগপুরে জরুরি অবতরণ করে। 

ভারতীয় গণমাধ্যম হিন্দুস্তান টাইমস জানায়, মাস্কাট থেকে উড্ডয়ন করা বিমানটির ৪৬ বছর বয়সি ক্যাপ্টেন নওশাদ ১১টার দিকে রায়পুরের কাছাকাছি হালকা অসুস্থতা বোধ করেন। তিনি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়েছিলেন।

এসময় দ্রুতই পরিস্থিতির গুরুত্ব আঁচ করে তিনি এবং সহকারী পাইলট কলকাতা এটিসির সঙ্গে যোগাযোগ করেন। এরপর ১১টা ৪০ মিনিট নাগাদ কলকাতা এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলের সঙ্গে যোগাযোগ করা হয় ওই বিমান থেকে। পরে নাগপুর বিমানবন্দরে জরুরি ভিত্তিতে ওই বিমানটিকে অবতরণ করানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, অবতরণের পর হোপ হাসপাতালে পাইলটের প্রয়োজনীয় চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আপাতত তার অবস্থা স্থিতিশীল। ফ্লাইটে কতজন যাত্রী ছিলেন তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি, তবে সবাই অক্ষত ও নিরাপদ আছেন।

বিমানের এমডি আবু সালেহ মোস্তফা কামাল বলেন, প্রাথমিকভাবে আমরা জানতে পেরেছি পাইলটের হার্ট অ্যাটাক হয়েছে। তার অবস্থা এখন সুস্থতার দিকে ।তিনি কথাও বলেছেন। দুইজন পাইলট ও দুইজন ককপিট ক্রু যাচ্ছেন ফ্লাইট এবং যাত্রীদের আনার জন্য।

বিমান সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার বিমানের ফ্লাইটটি ওমান যায়। সেখান থেকে স্থানীয় সময় মধ্যরাত ২টা ৩০ মিনিটে ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে আসার কথা থাকলেও ফ্লাইটটি ভোর সাড়ে ৬টায় ঢাকার উদ্দেশে উড্ডয়ন করে।

তবে ভারতের স্থানীয় সময় শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টায় ফ্লাইটটি ঢাকার দিকে না এসে নাগপুর বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণ করে।

মাস্কাট থেকে বিজি-২২ ফ্লাইটের একজন যাত্রী জানান, মাস্কাট থেকে আমাদের ফ্লাইটে তোলা হয়। আমাদের মাস্কাটে ৪ ঘণ্টা অপেক্ষা করিয়ে সাড়ে ৬টায় বিমানে তোলা হয়। তবে বিমানটি পুশ ব্যাক করার সময় ইঞ্জিনে ত্রুটি ধরা পড়ে। পরে অবশ্য নাগপুরে এটি জরুরি অবতরণ করে।

বর্তমানে বিমানের যাত্রীরা নাগপুর বিমানবন্দরে অপেক্ষা করছেন। যাত্রীদের আনতে নতুন ফ্লাইট পাঠানো হবে কিনা, এই ফ্লাইটে আনা হবে তা নিশ্চিত করেনি বিমান।


আরও খবর
কিশোর গ্যাং নিয়ন্ত্রণ নিয়ে নতুনভাবে ভাবতে হবে

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১




বেড়েছে ডিম-আটা ও তেলের দামও

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৯ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আরেক দফা হালিপ্রতি মুরগির ডিমের দাম বেড়েছে ২ টাকা। ডিমের পাশাপাশি আটা ও তেলের দাম বেড়েছে। রাজধানীতে লিটারপ্রতি সয়াবিন তেলের দাম বেড়েছে ৪ টাকা আর আটার দাম বেড়েছে কেজি প্রতি ২ টাকা। এছাড়া চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে চাল, ডাল এবং চিনিও।

নতুন করে নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের দাম বাড়ায় ক্রেতারা চরম অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন। তারা বলছেন, করোনার কারণে আয় নেই। আর এ সময়ে একের পর এক জিনিসিপত্রের দাম পাল্লা দিয়ে বাড়ছে। মাছ-মাংস, চাল-ডালের পর এখন ডিমের দাম বাড়ছে। আমাদের এখন না খেয়ে থাকতে হবে।

রাজধানীর বাজারগুলোতে দেখা গেছে, হালিপ্রতি লেয়ার মুরগির লাল ডিম বিক্রি হচ্ছে ৩৯-৪০ টাকায়। আর ডজন বিক্রি হচ্ছে ১১৫ টাকায়। আর হাঁস কিংবা দেশি মুরগির ডিম বিক্রি হচ্ছে ৫৮-৬০ টাকা হালিতে। তবে ডজন বিক্রি হচ্ছে ১৬৫-১৭৫ টাকায়।

বাজারে খোলা আটা বিক্রি হচ্ছে ৩৩-৩৫ টাকা কেজিতে। আগের সপ্তাহে বিক্রি হয়েছিল ৩০-৩২ টাকা কেজিতে। আর প্যাকেট জাত আটা বিক্রি হচ্ছে কেজিপ্রতি ৪০ টাকা করে।

বোতলের লিটারপ্রতি সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৫২-১৫৩ টাকায়, যা আগের সপ্তাহে বিক্রি হয়েছিল ১৪৮-১৪৯ টাকায়। আর প্রতি লিটার খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১২৮-১৩০ টাকায়। আগের সপ্তাহে খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি হয়েছিল ১২৫ টাকায়।

অন্যদিকে লিটারপ্রতি খোলা পাম অয়েল তেল বিক্রি হচ্ছে ১১৮-১১৬ টাকায়। আগে খোলা পাম অয়েল বিক্রি হতো ১০৮ থেকে ১১০ টাকায়।

বাজারে ব্রয়লার মুরগি বিক্রি হচ্ছে ১৪৫-১৫০ টাকা কেজি দরে। ব্রয়লার মুরগি ছাড়াও সোনালী মুরগি বিক্রি হচ্ছে ২২০ থেকে ২৪০ টাকায় দেশি মুরগি বিক্রি হচ্ছে ৪২০ থেকে ৪৪০ টাকা দরে। আর গরুর মাংস বিক্রি হচ্ছে ৬০০ টাকা কেজি দরে। আর খাসির মাংস বিক্রি হচ্ছে ৮০০-৮৫০ টাকা কেজিতে। অর্থাৎ আগের সপ্তাহের দরে বিক্রি হচ্ছে গরু ও খাসির মাংস।

পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৪৫-৫০ টাকা কেজিতে। রসুন বিক্রি হচ্ছে ৮০ থেকে ১২০ টাকায়। এর মধ্যে দেশি রসুন বিক্রি হচ্ছে ৭০-৮০ টাকা কেজিতে। প্রকারভেদে ৯০ টাকা কেজিতেও বিক্রি হচ্ছে। আর আমদানি করা বড় দানার রসুন বিক্রি হচ্ছে ১২০-১২৫ টাকা কেজিতে। প্রতি কেজি দেশি আদা বিক্রি হচ্ছে ৭০ টাকায়। বিদেশি আদা বিক্রি হচ্ছে ১১০-১১৫ টাকা কেজিতে।

কাঁচামরিচ বিক্রি হচ্ছে ১০০-১২০ টাকা কেজিতে। কেজিপ্রতি টমেটো বিক্রি হচ্ছে ৮০-১০০ টাকায়। বেগুন ৫০ টাকা, কচুর লতি ৪০ টাকা, বরবটি, চিচিঙ্গা, ঝিঙ্গা, ঢ্যাঁড়স ও ধুন্দল ৫০ টাকা, দেশি শসা ৫০ টাকা, পেঁপে ২০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মাছের মধ্যে সবচেয়ে কম দামে বিক্রি হচ্ছে পাঙাশ মাছ। এ মাছ রাজধানীতে ১২০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। তেলাপিয়া বিক্রি হচ্ছে ১৩০-১৮০ টাকা কেজিতে। রুই মাছ বিক্রি হচ্ছে ২৪০-৩০০ টাকা কেজিতে। আর মৃগেল মাছ বিক্রি হচ্ছে ২২০-২৬০ টাকা কেজিতে। এছাড়া শিং মাছ কেজিপ্রতি ৫৫০-৭০০ টাকা, চিংড়ি মাছ বিক্রি হচ্ছে ৫০০-৭৫০ টাকা কেজিতে।

নিউজ ট্যাগ: বাজার দর

আরও খবর
সবজির দাম নাগালের বাইরে

শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১