আজঃ বুধবার ১৯ জুন ২০২৪
শিরোনাম

আকর্ষণীয় বেতনে ওয়াটারএইড বাংলাদেশে চাকরি

প্রকাশিত:শনিবার ১২ আগস্ট ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ১২ আগস্ট ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আন্তর্জাতিক সংস্থা ওয়াটারএইড বাংলাদেশ জনবল নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশিত হয়েছে। গত বৃহস্পতিবার প্রকাশিত এ বিজ্ঞপ্তিতে একটি পদে লোকবল নিয়োগ দেওয়া হবে। আগ্রহী প্রার্থীরা অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন করতে পারবেন।

পদের নাম: প্রকল্প সমন্বয়কারী।

পদ সংখ্যা: নির্ধারিত নয়।

শিক্ষাগত যোগ্যতা: ম্যানেজমেন্ট, এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স, সোশ্যাল সায়েন্স, ডেভেলপমেন্ট স্টাডিজ বা সংশ্লিষ্ট বিষয়ে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি।

কাজের ধরন: প্রতিষ্ঠানটির জন্য পরিকল্পনা গ্রহণ ও কর্মসূচি বাস্তবায়ন করা। সময় মতো, বাজেটে এবং বাস্তবায়ন পরিকল্পনার মাধ্যমে মানসম্পন্ন প্রোগ্রাম সরবরাহের জন্য সামগ্রিক জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা। সংশ্লিষ্ট প্রকল্প এলাকায় নেটওয়ার্কিং এবং জোট বিল্ডিং উকিল/সুবিধা নিশ্চিত করা।

চাকরির ধরন: চুক্তিভিত্তিক। চুক্তির মেয়াদ ২০২৬ সালের ৩১ মার্চ পর্যন্ত।

কাজের সময়: সপ্তাহে ৫ দিন। ন্যূনতম ৩৭.৫ ঘণ্টা।

প্রয়োজনীয় যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতা: ন্যূনতম ১০ বছরের অভিজ্ঞতা। যার মধ্যে সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে কমপক্ষে ০৫ বছরের প্রকল্প পরিচালনার অভিজ্ঞতা। পাবলিক সার্ভিস প্রোভাইডার, বেসরকারি সেক্টর এবং সিটি কর্পোরেশনের সাথে কাজ করার অভিজ্ঞতা। বাংলা ও ইংরেজি উভয় ভাষায় চমৎকার উপস্থাপনা, সুবিধা, যোগাযোগ এবং লেখার দক্ষতা।

নিয়োগের স্থান: ঢাকা।

বেতন: নির্বাচিত প্রার্থীদের জন্য আকর্ষণীয় বেতন প্যাকেজের ব্যবস্থা রয়েছে। সুযোগ-সুবিধা: প্রভিডেন্ট ফান্ড, গ্র্যাচুইটি, ফেস্টিভ্যাল বোনাস, নিজের জন্য জীবন বীমা, প্রার্থীর, স্ত্রী ও সন্তানদের জন্য স্বাস্থ্য বীমা প্রকল্প, পলিসি বিধান অনুযায়ী সেল ফোন ভাতা ইত্যাদি।

আবেদন পদ্ধতি: আগ্রহী প্রার্থীদের আবেদন করতে ও বিস্তারিত বিজ্ঞপ্তিটি দেখতে এখানে ক্লিক করুন। আবেদনের শেষ তারিখ: ১৯ আগস্ট, ২০২৩।


আরও খবর



সুষম উন্নয়ন নিশ্চিত করাই বর্তমান সরকারের লক্ষ্য: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

প্রাকৃতিক সম্পদের ভারসাম্যপূর্ণ ব্যবহারের মাধ্যমে সুষম উন্নয়ন নিশ্চিত করাই বর্তমান সরকারের লক্ষ্য বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বুধবার (৫ জুন) বিশ্ব পরিবেশ দিবস উপলক্ষে দেওয়া এক বাণীতে এ কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রতি বছরের মতো এবারও বাংলাদেশে বিভিন্ন কর্মসূচির মধ্য দিয়ে বিশ্ব পরিবেশ দিবস-২০২৪’ পালন করা হচ্ছে। বিশ্বব্যাপী ক্রমবর্ধমান অপরিকল্পিত শিল্পায়ন ও অদূরদর্শী কর্মকাণ্ডের বিরূপ প্রভাবে সৃষ্ট পরিবেশ ও প্রতিবেশগত অবক্ষয় রোধ এবং পরিবেশ সংরক্ষণে সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে এ দিবসটির পালন তাৎপর্যপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে।

তিনি বলেন, পৃথিবীতে এখন আটশ কোটিরও বেশি মানুষ বসবাস করছে। সীমিত সম্পদ ব্যবহার করে এ বিশাল জনগোষ্ঠীর ক্রমবর্ধমান চাহিদার যোগান দিতে গিয়ে দ্রুত পরিবর্তিত হচ্ছে ভূমির ব্যবহার। ভূমি সম্পদের অপরিমিত ও অপরিণামদর্শী ব্যবহারে বিশ্বজুড়ে ভূমির অবক্ষয় তীব্র আকার ধারণ করেছে। বিষয়টির গুরুত্ব বিবেচনা করে ইউনাইটেড নেশন্স কনভেনশন টু ডিজার্টিফিকেন্স (ইউএনসিসিডি) বিশ্বব্যাপী টেকসই ভূমি ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে ২০৩০ সালের মধ্যে ল্যান্ড ডিগ্রিডেশন নিউট্রালিটি (এলডিএন) অর্জনের রূপরেখা প্রদান করেছে।

তিনি বলেন, ২০৩০ সালের মধ্যে কাঙ্ক্ষিত ভূমি অবক্ষয় নিরপেক্ষতা বা এলডিএন অর্জন করা সম্ভব না হলে ২০৪৫ সালের মধ্যে পৃথিবীব্যাপী ১৩৫ মিলিয়ন মানুষ খরার কারণে উদ্বাস্তু হতে পারে।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, অপরদিকে, জলবায়ু পরিবর্তন ও এর অভিঘাত আমাদের জন্য চরম বাস্তবতা। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে বিশ্বব্যাপী মরুময়তা ও খরার প্রবণতা বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হচ্ছে, যার কারণে টেকসই ভূমি ব্যবস্থাপনা ঝুঁকির মধ্যে পড়েছে। কাজেই, বিশ্ব পরিবেশ দিবসের এবছরের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে করবো ভূমি পুনরুদ্ধার, রুখবো মরুময়তা, অর্জন করতে হবে মোদের খরা সহনশীলতা।’ যা অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক এবং সময়োপযোগী হয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, বিশ্বময় ভূমির অবক্ষয় রোধ, মরুকরণ ও খরার প্রভাব প্রশমনের লক্ষ্যে সরকার জাতিসংঘসহ বিভিন্ন আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক সংস্থার সঙ্গে একযোগে কাজ করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, ইউএনসিসিডিতে বাংলাদেশ নিয়মিতভাবে এ সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন রিপোর্ট দাখিল করে যাচ্ছে। জাতীয় পর্যায়ে বাংলাদেশ ন্যাশনাল অ্যাকশন প্রোগ্রাম (ন্যাপ) টু কমব্যাট ডির্জাটিফিকেশন, ল্যান্ড ডিগ্রেডিটিশন অ্যান্ড ড্রট ২০১৫-২০২৪ প্রণয়ন করা হয়েছে।

বিশ্ব পরিবেশ দিবস পালনের মাধ্যমে পরিবেশ সংরক্ষণ ও প্রতিবেশের টেকসই ব্যবস্থাপনা নিশ্চিত করতে জনসচেতনতা ও জনসম্পৃক্ততা আরো বৃদ্ধি পাবে বলেও দৃঢ় আশাবাদ প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী।


আরও খবর



রাশিয়ায় কারাগারে ছয় জনকে গুলি করে হত্যা

প্রকাশিত:সোমবার ১৭ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৭ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

রাশিয়ার বিশেষ বাহিনী দুই কারারক্ষীকে উদ্ধারসহ ছয়জনকে গুলি করে হত্যা করেছে। আন্তর্জাতিক জঙ্গি গোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের সঙ্গে তাদের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ গুলি করে হত্যা করা হয়।

রোববার (১৬ জুন) ওই দুই কারারক্ষীকে রাশিয়ার দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর রসটভে কারাগারে জিম্মি করা হয়। দেশটির স্থানীয় মিডিয়ার খবরে এ তথ্য জানানো হয়েছে। খবর রয়টার্সের।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিহতদের কয়েকজন সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের দায়ে অভিযুক্ত ছিলেন এবং আন্তর্জাতিক জঙ্গি সংগঠন আইএসর সঙ্গে তাদের সংশ্লিষ্টতা রয়েছে। এছাড়া এ বছরের মার্চে মস্কোর কনসার্ট হলে ভয়াবহ হামলার জন্য দায়ী ছিল এই গোষ্ঠীটি।

ছয় জিম্মিকারীদের মধ্যে একজনের মাথায় হেডব্যান্ড দিয়ে আইএসর পতাকা বাঁধা ছিল। যেখানে আরবিতে কিছু লেখা ছিল। কারারক্ষীদের উদ্ধার করতে গেল তারা রাশিয়ার বিশেষ বাহিনীর ওপর হামলা চালানোর চেষ্টা করে।

টেলিগ্রাম চ্যানেল ১১২ তে প্রকাশিত ভিডিওতে দেখা গেছে, ওই ছয় জনের একজন ছুরি নিয়ে কারারক্ষীদের ওপর হামলা চালায় এবং কারাগার থেকে বের হওয়ার জন্য কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা চালায়। এ অবস্থায় রাশিয়ার বিশেষ বাহিনী কারাগারে হামলা চালানোর সিদ্ধান্ত নেয়। টেলিগ্রামে চ্যানেলে প্রকাশিত ভিডিওতে স্বয়ংক্রিয় গুলির শব্দ শোনা যায়। এছাড়া ওই ভিডিওতে নিহত ছয় জনের রক্ত গড়িয়ে যেতে দেখা যায়।

রাশিয়ার ফেডারাল পেনিটেনশিয়ারি সার্ভিস এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, জিম্মিদের উদ্ধারে এক বিশেষ অভিযান চালানো হয়েছে। তারা নিরাপদে আছে।

রাশিয়ার সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, জিম্মিকারীদের মধ্যে তিনজন রাশিয়ার দক্ষিণ প্রজাতন্ত্র ইংগুশেটিয়ার বাসিন্দা। ২০২২ সালে রুশ প্রজাতন্ত্র কারাচে-চের্কেসিয়ার আদালতে হামলার পরিকল্পনা করার জন্য তাদের আটক করা হয়েছিল।


আরও খবর



বাংলাদেশে সব পণ্যই নকল হয়: ভোক্তার ডিজি

প্রকাশিত:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | হালনাগাদ:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | অনলাইন সংস্করণ
সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি

Image

বাংলাদেশে এমন কোনো পণ্য নেই যা নকল হয় না। কসমেটিক থেকে শুরু করে শিশু খাদ্য সবকিছু নকল হচ্ছে। এ বিষয়ে তথ্যগুলো আমাদের দেন আমরা দ্রুত ব্যবস্থা নেব।

রোববার (২ জুন) সকালে সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ আইন ২০০৯ এর অবহিতকরণ ও বাস্তবায়ন বিষয়ক সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এএইচএম সফিকুজ্জামান।

তিনি আরও বলেন, এ নকল পণ্যের তথ্য সারাবিশ্বে ছড়িয়ে যাচ্ছে। বিশ্বের মানুষের কাছে বার্তা যাচ্ছে বাংলাদেশে ভেজাল পণ্য তৈরি হয়। আমাদের সব অর্জন ম্লান হচ্ছে এই ভেজালের কারণে। তাই সবাই সতর্ক থাকবেন। এদের বিরুদ্ধে কোনো ছাড় নেই।

সভায় সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রাশেদ ইকবাল চৌধুরীর সভাপতিত্বে ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক রেজাউল করিমের সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য রাখেন সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবু সাঈদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু সুফিয়ান, ক্যাব কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি জামিল চৌধুরী, সাংবাদিক, স্থানীয় ব্যবসায়ীসহ অন্যান্যরা।

এর আগে সুনামগঞ্জের বিভিন্ন স্টক হোল্ডারদের অংশগ্রহণে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত হয়। এসময় ভোক্তা ও ব্যবসায়ীদের কথা শোনেন ভোক্তা অধিকারের মহাপরিচালক। পরে তিনি সুনামগঞ্জ পৌর শহরের বাজার মনিটরিং করেন। এসময় সুনামগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সমর কুমার পাল, ভোক্তা অধিকারের সহকারী পরিচালক আল আমিন, নিরাপদ খাদ্য অফিসার শরীফ উদ্দিন, জেলা মার্কেটিং অফিসার অনুপা চক্রবর্তী ও জেলা ক্যাবের সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান চৌধুরী প্রমুখ।


আরও খবর



সিলেট সেনানিবাসে বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি উদ্বোধন

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ০৯ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
এস এ শফি, সিলেট

Image

প্রতি বছরের ন্যায় এবছর ও সিলেট সেনানিবাসে ১৭ পদাধিক ডিভিশন ও সিলেট এরিয়ার উদ্যোগে বৃক্ষ রোপন কর্মসূচির উদ্বোধন করা হয়েছে যা আগামী ৫ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত চলবে।

রবিবার (৯ জুন) দুপুরে বর্ণাঢ্য র‍্যালি শেষে কর্মসূচির উদ্ভোধন করেন জেনারেল অফিসার কমান্ডিং ও এরিয়া কমান্ডারের পক্ষে সিলেট সেনানিবাসের ১১ পদাধিক ব্রিগেড কমান্ডার ফারুক আহমদ এ এফ ডব্লিউ সি, পিএসসি।

বৃক্ষরোপন কর্মসূচি ২০২৪ উদ্বোধনের সাথেই সাথেই সিলেট ও জালালাাদ সেনানিবাসের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচি শুরু হয়। কর্মসূচির আওতায় বিভিন্ন জাতের ফলজ, বনজ, ঔষধি ও সৌন্দর্য বর্ধনমূলক গাছ রোপণ করা হয়। এ কর্মসূচির আওতায় প্রায় ৬ হাজার গাছ রোপণ করার পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সিলেট ও জালালাবাদ সেনানিবাসের সকল কমান্ডার, এরিয়া সদর দপ্তর সিলেট ও ডিভিশন সদর দপ্তরের গ্রেড-১ অফিসার এবং সিলেট এরিয়ার সকল ইউনিটের জুনিয়র কমিশন্ড অফিসার এবং অন্যান্য পদবীর সেনাসদস্য অংশগ্রহণ করেন।

উল্লেখ্য, বৃক্ষরোপন কর্মসূচির উদ্বোধন উপলক্ষে সিলেট সেনানিবাসে ১৭ পদাধিক ডিভিশন ও সিলেট এরিয়ার উদ্যোগে এক বর্ণাঢ্য র‍্যালির আয়োজন করা হয়।


আরও খবর



ইসরায়েলের বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক আদালতের রায় আজ

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৪ মে 20২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৪ মে 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

গাজায় আট মাস ধরে অভিযান চালিয়ে আসছে ইসরায়েল। দেশটির সেনাদের হামলায় ধ্বংসপুরীতে পরিণত হয়েছে পুরো উপত্যকা। এবার উপত্যকার শেষ নিরাপদ অঞ্চল রাফাহ সীমান্তে অভিযান শুরু করতে যাচ্ছে ইসরায়েল। দেশটির এ অভিযান বন্ধে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের (আইসিজে) রায় হবে আজ। বৃহস্পতিবার (২৩ মে) আনাদোলু এজেন্সির এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাফাহ সীমান্তে ইসরায়েলি অভিযান বন্ধের জন্য আন্তর্জাতিক বিচার আদালতের রায়ের তারিখ নির্ধারণ করা হয়েছে। শুক্রবার এ বিষয়ে রায় দেবেন আদালত। দক্ষিণ আফ্রিকার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে এ রায় ঘোষণা করা হবে।

গত সপ্তাহে আন্তর্জাতিক বিচার আদালতে দক্ষিণ আফ্রিকা আবেদন জানায়। এতে ফিলিস্তিনের জনগণের সুরক্ষা নিশ্চিত ও রাফাহতে ইসরায়েলি অভিযান বন্ধে আন্তর্জাতিক আদালতের জরুরি ব্যবস্থা চাওয়া হয়।

এর আগে আন্তর্জাতিক আদালতে ইসরায়েলের বিরুদ্ধে গণহত্যার মামলা করে দক্ষিণ আফ্রিকা। ওই মামলার অংশ হিসেবে রাফাহ ইসরায়েলি অভিযান বন্ধে নির্দেশনা চেয়েছে দেশটি। এর আগে গত শুক্রবার ( ১৭ মে) নেদারল্যান্ডসের দ্য হেগে আদালতের কার্যালয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা মিথ্যা অভিযোগ করেছে বলে দাবি করে ইসরায়েল।

শুনানিতে আত্মপক্ষ সমর্থন করে ইসরায়েল জানায়, নিজেদের রক্ষায় ফিলিস্তিনের গাজায় সামরিক অভিযান চালানো হচ্ছে। ইসরায়েলের আত্মরক্ষার অধিকার আছে। দক্ষিণ আফ্রিকার এ ধরনের আবেদন জাতিসংঘের জাতিগত নিধন সনদের সঙ্গে ঠাট্টা। তাই আবেদন নাকচ করে দেওয়ার দাবি জানান ইসরায়েলের আইনজীবীরা।

ইসরায়েল আরও বলে, এটি বাস্তবতা থেকে পুরোপুরি বিচ্ছিন্ন একটি আবেদন। রাফায় বিপুলসংখ্যক ফিলিস্তিনি অবস্থান করছে। ইসরায়েল বিষয়টি ভালোভাবে জানে। কিন্তু হামাস এসব মানুষের ঢাল হিসেবে ব্যবহার করছে। তারা সেখানে আস্তানা গেড়েছে, যা ইসরায়েলের নিরাপত্তার জন্য হুমকি। হামাসের সন্ত্রাসীদের নির্মূলে অভিযান চালানো হচ্ছে বলে দাবি করে ইসরায়েল।


আরও খবর