আজঃ রবিবার ০৩ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

আন্তঃসীমান্ত পাইপলাইন উদ্বোধন করলেন হাসিনা-মোদি

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ মার্চ ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ মার্চ ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বাংলাদেশে ডিজেল সরবরাহের লক্ষ্যে যৌথভাবে প্রথম আন্তঃসীমান্ত মৈত্রী তেল পাইপলাইন উদ্বোধন করেছেন।

আজ শনিবার বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে এবং ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ভারত থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বোতাম টিপে ভারত-বাংলাদেশ এই মৈত্রী পাইপলাইন উদ্বোধন করেন।

বাংলাদেশ পেট্রোলিয়ম কর্পোরেশন (বিপিসি)-র কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, ভারতীয় লাইন অফ ক্রেডিট (এলওসি) থেকে নেওয়া প্রায় ৩ দশমিক ৪৬ বিলিয়ন ভারতীয় রুপি ব্যয়ে নির্মিত ১৩০ কিলোমিটার ভারত-বাংলাদেশ  মৈত্রী পাইপলাইনের (আইবিএফপিএল) মাধ্যমে বাংলাদেশে ডিজেল রপ্তানি করবে ভারত।

পাইপলাইনটি বাংলাদেশের ভূখন্ডে ১২৫-কিমি এবং ভারতের অভ্যন্তরে ৫-কিমি প্রসারিত। পাইপলাইনটির হাই-স্পিড ডিজেল (এইচএসডি)-এর বার্ষিক পরিবহনের ক্ষমতা ১ (এক) মিলিয়ন মেট্রিক টন (এমএমটিপিএ)। এটি প্রাথমিকভাবে বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলের সাতটি জেলায় হাই স্পিড ডিজেল সরবরাহ করবে। বাংলাদেশ এতদিন ভারত থেকে রেলপথে ডিজেল আমদানি করত।

সরকারি সূত্রে জানা গেছে, পশ্চিমবঙ্গের শিলিগুড়ি থেকে দিনাজপুরের পার্বতীপুরে মেঘনা পেট্রোলিয়াম ডিপো পর্যন্ত পাইপলাইনের মাধ্যমে ভারত থেকে বাংলাদেশে ডিজেল আমদানির জন্য ২০১৭ সালে একটি দীর্ঘমেয়াদী চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রী পাইপলাইন চালু হলে ভারত থেকে বাংলাদেশে এইচএসডি পরিবহনের একটি টেকসই, নির্ভরযোগ্য, সাশ্রয়ী ও পরিবেশবান্ধব ব্যবস্থা গড়ে উঠবে। এটি দুই বন্ধুপ্রতিম প্রতিবেশীর মধ্যে জ্বালানি নিরাপত্তার ক্ষেত্রে সহযোগিতা আরও জোরদার করবে।

নিউজ ট্যাগ: হাসিনা-মোদি

আরও খবর



দেশের উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে বাংলাদেশ বেতার : তথ্য প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

সরকারের উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে জনসম্পৃক্ততা তৈরি করে দেশের উন্নয়নে বাংলাদেশ বেতার প্রশংসনীয় ভূমিকা রাখছে বলে মন্তব্য করেছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত।

মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বাংলাদেশ বেতার সদর দপ্তর চত্বরে বিশ্ব বেতার দিবস ২০২৪ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।

বাংলাদেশ বেতারের মহাপরিচালক রবীন্দ্রশ্রী বড়ুয়ার সভাপতিত্বে আলোচনা অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব মো. হুমায়ুন কবীর খোন্দকার এবং ইউনেস্কোর ঢাকা অফিস প্রধান ও বাংলাদেশ প্রতিনিধি ড. সুজান মারি ভাইজ। স্বাগত বক্তব্য দেন বাংলাদেশ বেতারের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অনুষ্ঠান) মো. ছালাহ্ উদ্দিন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে প্রতিমন্ত্রী বলেন, সুশাসন প্রতিষ্ঠা, গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ চর্চা এবং সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে জনসম্পৃক্ততা তৈরি করে দেশের উন্নয়নে বাংলাদেশ বেতার প্রশংসনীয় ভূমিকা রাখছে। উন্নত বাংলাদেশ বিনির্মাণে বাংলাদেশ বেতারের পাশাপাশি অন্যান্য বাণিজ্যিক এফ এম রেডিও ও কমিউনিটি রেডিওকে নিরলস কাজ করতে হবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, তথ্যপ্রযুক্তির উৎকর্ষের এ সময়ে বেতার বড় একটি চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হয়েছে। বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের সাথে প্রতিযোগিতা করে বেতারকে এগিয়ে যেতে হচ্ছে। এসব সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে চটকদার ও সস্তা বিনোদনের পাশাপাশি মিথ্যা, বানোয়াট ও উদ্ভট সংবাদ প্রচার এবং অসত্য ও গুজব ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। এসব প্রতিকূলতা ও প্রতিযোগিতাপূর্ণ পরিস্থিতিতেও বেতার একটি নিজস্ব মানদণ্ড অনুসরণ করে বস্তুনিষ্ঠ ও নির্ভরযোগ্য অনুষ্ঠান ও সংবাদ প্রচার করছে।

তিনি বলেন, মহান মুক্তিযুদ্ধসহ দেশের মানুষের সকল গণতান্ত্রিক আন্দোলনে বাংলাদেশ বেতার অবিস্মরণীয় ভূমিকা পালন করেছে। মহান মুক্তিযুদ্ধে রণাঙ্গনের যোদ্ধাদের সহযোগী শক্তি হিসেবে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের ভূমিকা সর্বজনবিদিত। তৎকালীন পাকিস্তানি স্বৈরশাসকের বাধা সত্ত্বেও সে সময় বাংলাদেশ বেতারের কর্মকর্তাদের দুঃসাহসী ভূমিকায় বেতারে বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ প্রচার হয়। মুক্তিকামী বাঙালির পাশে থেকে দায়িত্ব পালনের জন্য জাতি বাংলাদেশ বেতারকে কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণ করে।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, বর্তমান সরকার দেশে সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও জাতীয় উন্নয়ন ত্বরাম্বিত করতে তথ্যের অবাধ প্রবাহে বিশ্বাস করে। দেশের গণমাধ্যমসমূহ এখন স্বাধীনভাবে কাজ করছে। এ বছরের বিশ্ব বেতার দিবসের প্রতিপাদ্য 'শতাব্দীজুড়ে তথ্য, বিনোদন ও শিক্ষা বিস্তারে বেতার'-এর গুরুত্ব অনুধাবন করে বেতারে কর্মরত কর্মকর্তা-কর্মচারী, শিল্পী-কলাকুশলীদের কাজ করে যাওয়ার জন্য আহ্বান জানান তিনি।

২০১১ সালের ০৩ নভেম্বর জাতিসংঘের শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতিবিষয়ক সংস্থা (ইউনেস্কো)-এর ৩৬তম সম্মেলনে ১৩ ফেব্রুয়ারি বিশ্ব বেতার দিবস পালনের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। ২০১২ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি প্রথমবারের মতো বিশ্বব্যাপী পালিত হয় বিশ্ব বেতার দিবস। এরই ধারাবাহিকতায় এ বছর ত্রয়োদশ বিশ্ব বেতার দিবস পালন করা হয়েছে। দিবসটি উপলক্ষে বাংলাদেশ বেতার বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, শ্রোতা সম্মেলন, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজন করেছে।


আরও খবর



জাতীয় সংসদে ১২টি স্থায়ী কমিটি গঠন

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

জাতীয় সংসদে আজ ১২টি গুরুত্বপূর্ণ সংসদীয় স্থায়ী কমিটি গঠিত হয়েছে। সরকারি শত ব্যস্ততার মাঝেও নিজের হাতে লিখে কমিটিগুলো গঠনে সহযোগিতা করায় প্রধানমন্ত্রী ও সংসদ নেতা শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

তিনি বলেন, জাতীয় সংসদে মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত মোট ৫০টি স্থায়ী কমিটি ইতোমধ্যে প্রস্তুত করা হয়েছে। গত ৩০ জানুয়ারি দ্বাদশ জাতীয় সংসদের অধিবেশন শুরু হওয়ার পর আজ দ্বিতীয় কার্য দিবসে সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজ হাতে স্থায়ী কমিটি গুলোর সদস্যদের নাম লিখে দিয়েছেন। এটা সংসদীয় গণতন্ত্রের ইতিহাসে একটা অনন্য দৃষ্টান্ত ও মাইলফলক। প্রধানমন্ত্রীর হাতে লেখা কমিটি গুলোর তালিকা মহামূল্যবান দলিল হিসেবে সংসদে সংরক্ষণ করা হবে।

স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে আজ জাতীয় সংসদে চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী কমিটি গঠনের প্রস্তাব করলে তা কণ্ঠভোটে সর্বসম্মতিক্রমে পাস হয়। ১২টি কমিটির মধ্যে সংসদ নেতার অনুমোদনক্রমে স্পিকার নিজে দুটি কমিটি গঠনের প্রস্তাব করেন।

জাতীয় পার্টির সদস্য হাফিজ উদ্দিন আহম্মেদকে সভাপতি করে সরকারি হিসাব সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা হলেন-সাবেক অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, মোস্তাফিজুর রহমান, কামরুল ইসলাম, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, ফয়জুর রহমান, মুজিবুল হক, জাহিদ মালেক ও সৌরেন্দ্রনাথ চক্রবর্তী।

আবুল কালাম আজাদকে সভাপতি করে সরকারি প্রতিষ্ঠান সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা হলেন- মোরশেদ আলম, আশরাফ আলী খান খসরু, সৈয়দ মোহাম্মদ ইব্রাহিম, আলাউদ্দিন আহমেদ চৌধুরী, নুরুজ্জামান আহমেদ, মো. সিদ্দিকুর রহমান পাটোয়ারি ও আনোয়ারুল আশরাফ খান।

ক্যাপ্টেন (অব.) এ বি তাজুল ইসলামকে সভাপতি করে অনুমিত হিসাব সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা হলেন- নূর-ই-আলম চৌধুরী, সালমান ফজলুর রহমান, মাহবুবউল আলম হানিফ, মো. রশিদুজ্জামান, মো. নজরুল ইসলাম, প্রাণ গোপাল দত্ত, মো. আব্দুল ওয়াদুদ ও শাহরিয়ার আলম।  

মোহাম্মদ সাদিককে সভাপতি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা হলেন-জনপ্রশাসন মন্ত্রী ফরহাদ হোসেন, নূর-ই-আলম চৌধুরী, ড. বীরেন শিকদার, শরীফ আহম্মেদ, মোতাহেরুল ইসলাম চৌধুরী, শাহজাদ আকবর, মোহাম্মদ আসাদুজ্জামান আসাদ ও শাহ সরওয়ার কবীর।

মুহিবুর রহমান মানিককে সভাপতি করে সরকারি প্রতিশ্রুতি সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা হলেন- মুজিবুল হক, মেজর (অব.) রফিকুল ইসলাম, কামাল আহমেদ মজুমদার, মো. শফিকুর রহমান, ওমর ফারুক চৌধুরী ও এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান।

গোলাম দস্তগীর গাজীকে সভাপতি করে বস্ত্র ও পাট মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা হলেন- বস্ত্র ও পাট মন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক, আনোয়ারুল আজিম আনার, আনোয়ারুল আশরাফ খান, আব্দুল মমিন মন্ডল, মো. ওয়াকিল উদ্দিন, খান আহম্মেদ শুভ, রাগেবুল আহসান রিপু ও নাসের শাহরিয়ার জায়েদী।

সাজ্জাদুল হাসানকে সভাপতি করে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা হলেন- বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী মোহাম্মদ ফারুক খান, আশেক উল্লাহ রফিক, আনোয়ার হোসেন খান, শেখ তন্ময়, মো. মহিউদ্দিন বাচ্চু, শফিউল আলম চৌধুরী ও মো. খসরু চৌধুরী।

আমির হোসেন আমুকে সভাপতি করে শিল্প মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা হলেন- শিল্প মন্ত্রী নুরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ুন, কামাল আহমেদ মজুমদার, মির্জা আজম, এ কে এম শামীম ওসমান, আব্দুল ওদুদ, আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী, মোহিত উর রহমান শান্ত ও এ বি এম আনিসুজ্জামান।

শফিকুল ইসলামকে সভাপতি করে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা হলেন- স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম, আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ, মোহাম্মদ সাঈদ খোকন, সানোয়ার হোসেন, মতিয়ার রহমান, ইকবাল হোসেন, রেজাউল হক চৌধুরী ও মোহাম্মদ আলী।

শাজাহান খানকে সভাপতি করে খাদ্য মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা হলেন- খাদ্য মন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদার, মকবুল হোসেন, আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব, মোস্তফা আলম, আবুল কালাম মোহাম্মদ আহসানুল হক চৌধুরী, এস এম কামাল হোসেন, এস এ কে একরামুজ্জামান ও খাঁন মোহাম্মদ সাইফুল্লাহ আল মেহেদী।

পদাধিকার বলে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীকে সভাপতি করে কার্য-উপদেষ্টা কমিটি গঠন করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা হলেন- প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, আমির হোসেন আমু, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, ওবায়দুল কাদের, রাশেদ খান মেনন, গোলাম মোহাম্মদ কাদের, আনিসুল হক, আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, আব্দুল লতিফ সিদ্দিকী, শামসুল হক টুকু, ডা. দীপু মনি, নূর-ই-আলম চৌধুরী ও এ কে এম রেজাউল করিম তানসেন।

চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরীকে সভাপতি করে সংসদ কমিটি গঠন করা হয়। কমিটির সদস্যরা হলেন-র আ ম ওবায়দুল মোক্তাদির চৌধুরী, ইকবালুর রহিম, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, মো. আবু জাহির, আশিক উল্লাহ রফিক, কাজী নাবিল আহমেদ, সানোয়ার হোসেন, সাজ্জাদুল হাসান, এস এম শাহজাদা ও এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান।


আরও খবর



আ.লীগ নেতাকে হত্যা: দুই ছাত্রলীগ নেতা রিমান্ডে

প্রকাশিত:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মোঃ মাসুদ রানা, কুড়িগ্রাম

Image

কুড়িগ্রামে আওয়ামী লীগ নেতা শরিফুল ইসলামকে (৪৪) পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত দুই ছাত্রলীগ নেতাকে তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) বিকালে কুড়িগ্রাম সদর আমলি আদালতে শুনানি শেষে বিচারক মজনু মিয়া এ আদেশ দেন। তাদের বিরুদ্ধে পাঁচ দিনের রিমান্ডের আবেদন করেছিল পুলিশ।

দুই ছাত্রলীগ নেতা হলেন সদর উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক রেজভি কবির চৌধুরী ওরফে বিন্দু ও কুড়িগ্রাম পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট ছাত্রলীগের সভাপতি ঝিনুক মিয়া।

শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে জেলা সদরের খলিলগঞ্জ বাজার এলাকায় মোটরসাইকেল সাইড দেওয়াকে কেন্দ্র করেল পৌর আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ ও ব্যবসায়ী শরিফুল ইসলাম সোয়ানকে (৪০) পিটিয়ে হত্যার অভিযোগ ওঠে দুই ছাত্রলীগ নেতার বিরুদ্ধে।

এদিকে শনিবার বিকালে নিহত আওয়ামী লীগের নেতা শরিফুল ইসলাম সোহানের দাফন সম্পন্ন হয়েছে। কুড়িগ্রাম কেন্দ্রীয় কবরস্থানে জানাজা নামাজ ও দাফন সম্পন্ন হয়।

কুড়িগ্রাম সদর থানার ওসি মো. মাসুদুর রহমান ছাত্রলীগের দুই নেতার রিমান্ডের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন, শুক্রবার ঘটনার দুই ঘণ্টার মধ্যে অভিযুক্ত ছাত্রলীগের ওই দুই নেতাকে আটক করে পুলিশ। পরে রাত ১২টায় নিহত আওয়ামী লীগ নেতার স্ত্রী একটি হত্যা মামলা করেন। এরপর ওই মামলায় ছাত্রলীগের দুই নেতাকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঁচ দিনের রিমান্ড চাইলে বিজ্ঞ আদালত তিন দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।


আরও খবর



মিউনিখের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছাড়লেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

Image

জার্মানির মিউনিখের উদ্দেশ্যে ঢাকা ছেড়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টা ৩০ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী ও তার সফরসঙ্গীদের নিয়ে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইট হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ছেড়ে যায়।

মিউনিখ সিকিউরিটি কনফারেন্সের সভাপতির আমন্ত্রণে সেখানে যাচ্ছেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রীর উপ প্রেস সচিব এম এম ইমরুল কায়েস রানা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।


আরও খবর



ব্যস্ততম শতবর্ষী মিরসরাই রেলস্টেশন এখন গোচারণ ভূমি

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ফিরোজ মাহমুদ, মিরসরাই (চট্টগ্রাম)

Image

এক সময়কার ব্যস্ততম রেল স্টেশনটি এখন সুনসান। ট্রেন আসা-যাওয়া করলেও স্টেশন বন্ধ থাকায় থামে না। ফলে নেই কোন কোলাহল। দীর্ঘ ১৫ বছর ধরে এভাবে অযত্ন-অবহেলায় পড়ে রয়েছে পূর্বাঞ্চল রেলওয়ের ঢাকা-চট্টগ্রাম রেললাইনে অবস্থিত শতবর্ষী মিরসরাই রেলস্টেশনটি। বন্ধ হওয়ার পর থেকে চুরি হয়ে যাচ্ছে বিভিন্ন স্থাপনা ও মূল্যবান মালামাল। পুনরায় চালু হবে এ স্টেশন এমন আশায় রয়েছেন স্থানীয়রা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা গেছে, জনমানবশূন্য স্টেশনের কক্ষগুলোতে চলছে গরু-ছাগল পালন, জুয়ার আসর ও মাদকসেবীদের আড্ডা। স্টেশনটি বন্ধ হওয়ায় নষ্ট হচ্ছে রেলওয়ের গুরুত্বপূর্ণ সরঞ্জাম। বেদখল হয়ে রয়েছে অনেক জায়গা। রেলস্টেশনের কোনো কর্মকর্তা, কর্মচারী ও পাহারাদারও চোখে পড়েনি।

রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, ১৮৯৫ সালের ১ জুলাই কুমিল্লা থেকে চট্টগ্রাম পর্যন্ত ১৪৯ কিলোমিটার মিটারগেজ রেলপথ নির্মিত হয়েছিল। আসাম বেঙ্গলে রেলওয়ে থাকাকালীন সেই ব্রিটিশ আমল থেকে এ স্টেশনে নিয়মিত ট্রেন থামতো। ফলে পুরো উপজেলার মানুষ ছিল ট্রেন নির্ভর। ভ্রমণ, সবজি, ফলমূল আমদানি-রফতনিসহ বিভিন্ন জরুরি কাজে ট্রেনই ছিল প্রিয় পরিবহন। একসময় এসব স্টেশন থেকেই ভারত, পাকিস্তানে মালামাল আনা নেওয়া হতো।

কিন্তু ২০০৮ সালে আয় কমে যাওয়া ও লোকবল সংকটের কারণে স্টেশনটি বন্ধ হয়ে যায়। ২০১৬-২০১৭ অর্থবছরে মিরসরাই সদর রেলস্টেশন উন্নয়ন কার্যক্রম শেষে দীর্ঘদিন পরিত্যক্ত থাকা এই রেল স্টেশনটি চালু করার জন্য রেল স্টেশনে আধুনিক সিগন্যালিং, নতুন ডিজিটাল কক্ষ নির্মাণ, লাইন সংস্কারসহ বিভিন্ন আধুনিকায়ন কাজ শেষ করা হায়। কিন্তু পরে আবারো থেমে যায় কার্যক্রম।

মিরসরাই সদর ইউনিয়নের তালবাড়িয়া গ্রামের আব্দুর রহমান নামে একজন বলেন, স্টেশনটি যখন চালু ছিল, তখন গোডাউনের মালামাল নেওয়ায় এক প্রকার জমজমাট ছিল। চাকরিজীবী, ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষের যাতায়াতের জন্য এই স্টেশন ছিল অন্যতম। স্টেশনটি বন্ধ হওয়ার পর থেকে মানুষের দুর্ভোগ বেড়ে গেছে।

চট্টগ্রাম শহরে একটি বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন ফয়সাল মাহমুদ। তিনি বলেন, আমার বাপ-দাদারা ট্রেনযোগে চলাচল করতেন। তখন উনাদের যাতায়াতের জন্য অন্যতম বাহন ছিল ট্রেন। আমার বাবা এই ট্রেনযোগে প্রতিদিন সকালে অফিসে যেতেন, আবার অফিস শেষে বাড়ি ফিরতেন। আমার বাসযোগে অফিসে যাতায়াত করতে হয়। অনেক সময় রাস্তায় যানজট থাকে, সময় মতো অফিসে পৌঁছানো সম্ভব হয় না। স্টেশনটি চালু হলে এলাকার মানুষের উপকার হতো।

এ বিষয়ে চিনকি আস্তানা স্টেশন মাস্টার সিরাজুল ইসলাম বলেন, একটা স্টেশন বন্ধ থাকলে তার পরবর্তী স্টেশনটির সঙ্গে প্রোপার সিগন্যাল পাওয়া যায় না। যার ফলে ট্রেন নির্দিষ্ট গতিতে চলাচল করতে পারে না। ফলে একস্থান থেকে অন্যস্থানে রেল যেতে বিলম্ব হয়। তিনি আরও বলেন, মিরসরাই রেল স্টেশনটি খুব তাড়াতাড়ি চালু হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।

বাংলাদেশ রেলওয়ে চট্টগ্রামের (পূর্ব) মহাব্যবস্থাপক মোহাম্মদ নাজমুল ইসলাম বলেন, মূলত লোকবল স্বল্পতার কারণে দীর্ঘদিন ধরে গুরুত্বপূর্ণ এই স্টেশনটি বন্ধ রয়েছে। গুরুত্ব বিবেচনা করে বন্ধ হওয়া বিভিন্ন স্টেশন চালু হওয়ার কথা রয়েছে। আশা করছি তারই ধারাবাহিকতায় মিরসরাই স্টেশনটি পর্যায়ক্রমে চালু হবে।


আরও খবর