আজঃ শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪
শিরোনাম

বাংলাদেশ কোনোভাবেই শ্রীলংকা বা ভেনিজুয়েলা হবে না: ভোক্তার ডিজি

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বাংলাদেশ কোনোভাবেই শ্রীলংকা বা ভেনিজুয়েলা হবে না বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) এ এইচ এম সফিকুজ্জামান।

আজ শুক্রবার রাজধানীর এফডিসিতে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ বর্তমান সরকারের প্রধান চ্যালেঞ্জ শীর্ষক এক ছায়া সংসদে এ কথা বলেন তিনি। প্রতিযোগিতাটি আয়োজন করে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি।

ভোক্তা অধিকারের ডিজি বলেন, সরকার দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি প্রতিরোধে আন্তরিকভাবে কাজ করছে। রমজান মাসের চাহিদা বিবেচনায় ইতোমধ্যে কয়েকটি পণ্যের আমদানি শুল্ক কমানো হয়েছে। তবে ভোক্তা পর্যায়ে এর সুফল পেতে কিছুটা সময় লাগবে। দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনীয় অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। বাজার মনিটরিংয়ের বিরুদ্ধে কোনো প্রভাবশালী মহলের চাপ নেই। পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে সংশ্লিস্ট মন্ত্রণালয়গুলো ও সংস্থাসমূহ সমন্বিতভাবে কাজ করছে।

এ এইচ এম সফিকুজ্জামান বলেন, বাণিজ্য কূটনীতিকে সরকার অগ্রাধিকার দিচ্ছে। বাংলাদেশ কোনোভাবেই শ্রীলংকা বা ভেনিজুয়েলা হবে না। বর্তমানে বিশ্বে ৩৮তম বৃহত্তম অর্ধনীতির দেশ বাংলাদেশ। মানুষের কষ্ট লাগবে সরকার বাজার ব্যবস্থাপনায় সুশাসন নিশ্চিতে ডিজিটাল প্রযুক্তি ব্যবহারের ওপর গুরুত্ব দিচ্ছে। ইতোমধ্যে সাপ্লাই চেইন ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম চালু হয়েছে, যা পণ্যের উৎপাদন ও সরবরাহ ব্যবস্থাকে পর্যবেক্ষণ করবে।

তিনি বলেন, কেউই রাষ্ট্রের চেয়ে শক্তিশালী নয়। অসাধু ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে আমাদের যুদ্ধ চলমান থাকবে।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি আমাদের জীবনকে দুর্বিষহ করে তুলছে। বিশেষ করে নিম্নবিত্ত ও মধ্যবিত্ত মানুষ কীভাবে যে জীবন ধারণ করছে সেটা কল্পনা করা যায় না। সাধারণ মানুষের সঞ্চয় তলানিতে নেমে দাঁড়িয়েছে। ধার-কর্জ করে, ঋণ নিয়ে চলছে। মানুষ কষ্টে আছে। মধ্যবিত্তরা দ্রব্যমূল্যের কষাঘাতে নীরব যন্ত্রণায় ভুগছে।

তিনি বলেন, ব্যবসায়ীরা এখন কম লাভে সন্তুষ্টি পাচ্ছে না। ব্যবসায়ীদের অতি মুনাফা ও অতি লোভ দ্রব্যমূল্য বৃদ্ধির অন্যতম কারণ। অসাধু ব্যবসায়ীদের কঠোর হাতে রুখতে হবে। দ্রব্যমূল্য বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মানুষের আয় বাড়লে এবং কর্মসংস্থান তৈরি হলে ভোক্তাদের কষ্ট কম হয়। কিন্তু সবকিছুর দাম বাড়লেও মধ্যবিত্তের উপার্জন বাড়েনি। নতুন কর্মসংস্থান বাড়ানো সম্ভব হচ্ছে না।

হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, অন্যদিকে, বাজার সিন্ডিকেট দ্রব্যমূল্যকে উসকে দিচ্ছে। তবে বর্তমান সরকারের জন্য দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ করা ছাড়াও রাজনৈতিক, কূটনৈতিক, অর্থনৈতিক, আর্থিক খাতে শৃঙ্খলা রক্ষা, অর্থপাচার রোধ, দুর্নীতি প্রতিরোধ, বৈদেশিক ঋণ পরিশোধ, জ্বালানি সংকট মোকাবিলা ও রিজার্ভের ঘাটতি পূরণসহ আরও নানামুখী চ্যালেঞ্জ রয়েছে। সেই সব চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় সব রাজনৈতিক দলগুলোকে আস্থায় নিয়ে ঐক্যমত গড়ে তোলার পাশাপাশি কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরদার করা জরুরি। যাতে মানুষ বর্তমান সরকারের প্রতি আস্থাশীল হতে পারে।

দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ বর্তমান সরকারের প্রধান চ্যালেঞ্জ শীর্ষক ছায়া সংসদে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতাল মেডিকেল কলেজের বিতার্কিকদের পরাজিত করে প্রাইম ইউনিভার্সিটির বিতার্কিকরা বিজয়ী হয়। প্রতিযোগিতা শেষে বিজয়ী দলকে ট্রফি ও সনদপত্র দেওয়া হয়।


আরও খবর
এক মাসে রিজার্ভ বাড়ল ৬৩ কোটি ডলার

শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪




পিরোজপুর জেলা আইনজীবী সমিতির তলবি সভায় হামলা : আহত চার

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মশিউর রাহাত (পিরোজপুর)

Image

পিরোজপুর জেলা আইনজীবী সমিতির তলবি সভা এবং এডহক কমিটি গঠনকে কেন্দ্র করে বহিরাগতদের হামলায় ৪জন আইনজীবী গুরুতর আহত হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুরে সভা চলাকালীন বহিরাগত সন্ত্রাসীরা হামলা চালিয়ে অ্যাডভোকেট তরুণ ভট্টাচার্য ও আহাসানুল কবির হিমুকে আহত করে। আহত তরুণ ভট্টাচার্য ও আহাসানুল কবিরকে জেলা হাসপাতালে চিকিৎসা দিতে নেয়া হয়। এরপরই তলবি সভা পন্ড হয়ে যায়। পরবর্তীতের আহতদের দেখতে যাওয়ার পথে আরও দুই আইনজীবী রাজ্জাক খান বাদশা ও সাইদুর রহমান টিটুকে আহত করে পালিয়ে যায় সন্ত্রাসীরা।

আইনজীবীরা জানান, আমাদের কার্যকরি কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ায় আমারা জেলা আইজীবী সমিতিতে সাধারণ আইনজীবী সদস্যদের নিয়ে এক তলবি সভা এবং এডহক কমিটি গঠনের জন্য এ সভা আয়োজন করা হয়। সেই সভা চলকালীন সময়ে কতিপয় আইনজীবীর অসলগ্ন ঔদ্ধত্যপূর্ণ আচরণে বহিরাগতরা সভা স্থলে প্রবেশ করে। তারা অনুপ্রবেশ করে তারা অ্যাডভোটেক তরুণ ভট্টাচার্য ও আহাসানুল কবির হিমু মারধোর করে। এরপরই তলবি সভা স্থগিত করে আহতদের হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়।

তারা আরও জানায়, তলবি সভা স্থগিত হলে আহত তরুণ ভট্টাচার্য ও আহাসানুল কবিরকে দেখতে জেলা হাসপাতালের দিকে রিক্সায় করে রওয়ানা হয় অ্যাডভোকেট রাজ্জাক খান বাদশা ও সাইদুর রহমান টিটু। তারা ফায়ার সার্ভিসের সামনে পৌছালে ৮/১০ জনের সন্ত্রাসী দল লোহার রড, জিআই পাইপ, ধারালো দাও নিয়ে তাদের উপর আক্রমণ করে। এসময় তাদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে এলোপাতাড়ি মারতে থাকে। এসময় অ্যাডভোকেট সাইদুর রহমান টিটুর দুই পা রড ও জিআই পাইপ দিয়ে থেতলে দেয় সন্ত্রাসীরা।

এসময় জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি অনিরুজ্জামান অনিক ওই পথ দিয়ে কয়েকজনকে নিয়ে যাওয়ার সময় তাদেরকে মারতে দেখে মটরসাইকেল থেকে নেমে সন্ত্রাসীদের ধাওয়া করলে তারা পালিয়ে যায়। পরে ফায়ার সার্ভিস আহত দুইজনকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায়।

গুরুতর আহত সাইদুর রহমান টিটু বলেন, আইনজীবী সমিতির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট আলাউদ্দিন খান ও অ্যাডভোকেট শহিদুল হক খান পান্নার নির্দেশে শংকর পাশা ইউনিয়নের আলাউদ্দিন হাওলাদার ও আইনজীবী সহকারি হুমায়ূন কবিরসহ ৮/১০ জন তাদের উপর হামলা করে। 

জেলা হাসপাতালের দায়িত্বরত চিকিৎসক ডাক্তার আসিফ আহমেদ বলেন, আহত সাইদুর রহমান টিটুর দুই পা গুরুতর জখম আছে। শরীরেও কিছু আঘাতের চিহ্ন আছে। অবস্থা খারপের দিকে যেতে পারে। অবস্থা খারাপ হলে আমরা উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল অথবা খুলনায় স্থানন্তর করে দেবো। রোগী যতক্ষণ আমাদের এখানে আছে আমাদের সাধ্যমত চিকিৎসা দিবো।   

এ বিষয়ে আইনজীবী সমিতির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্দুল আউয়াল বলেন, বহিরাগতদের দ্বারা আইনজীবীদের আহতের ঘটনায় আমরা মামলা করার প্রস্তুতি নিয়েছি। অচিরেই বিচারের দ্বারস্থ হবো। যাতে করে বহিরাগতরা আমাদের আইজীবী সদস্যদের ওপর নগ্ন হস্তক্ষেপ না করতে পারে। এ জন্য আমরা বিচার বিভাগের হস্তক্ষেপ কামনা করি। 

পিরোজপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আসিকুজ্জামান বলেন এ ঘটনায় আমার এখনও কোন অভিযোগ পাই নাই। অভিযোগ পেলে মামলা গ্রহণ করবো।


আরও খবর



কিমকে গাড়ি উপহার দিলেন পুতিন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২০ ফেব্রুয়ারী ২০24 | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

উত্তর কোরীয় নেতা কিম জং উনকে মস্কোর তৈরি একটি গাড়ি উপহার দিয়েছেন রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন। মঙ্গলবার পিয়ংইয়ংয়ের রাষ্ট্রীয় সংবাদ মাধ্যম এ কথা জানিয়েছে। দুদেশের মধ্যে পর্যটন থেকে প্রতিরক্ষা খাতে সম্পর্ক জোরদারের প্রেক্ষাপটে কিমের ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য গাড়িটি উপহার দিয়েছেন পুতিন।

এতে ঘনিষ্ঠ সম্পর্কে আবদ্ধ উত্তর কোরিয়া ও রাশিয়ার মধ্যে সম্পর্ক আরও জোরালো হয়েছে। কিম ও পুতিন গত সেপ্টেম্বর মাসে সাক্ষাৎ করেছেন। এরপর থেকেই দুদেশের সম্পর্ক আরও জোরদার হয়। 

আরও পড়ুন>> উত্তর রাখাইনে সেনা প্রত্যাহার করছে জান্তা, দাবি আরাকান আর্মির

দেশ দুটি আন্তর্জাতিকভাবে একঘরে হয়ে আছে। ইউক্রেন যুদ্ধকে কেন্দ্র করে রাশিয়া এবং পরমাণু অস্ত্র কর্মসূচির জন্য উত্তর কোরিয়া একঘরে হয়ে আছে। উত্তর কোরিয়ার সরকারি সংবাদ সংস্থা কেসিএনএ বলছে, ১৮ ফেব্রুয়ারি রাশিয়ার তৈরি গাড়িটি কিমের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার কাছে পাঠানো হয়েছে।

খবরে আরও বলা হয়েছে, কিমের বোন পুতিনকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, কিম ও পুতিনের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের নিদর্শন এই গাড়ি।

উল্লেখ্য, বিলাসবহুল বিদেশি গাড়ি কিমের সংগ্রহ রয়েছে। জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের রপ্তানি নিষেধাজ্ঞা ভেঙে কিম কীভাবে বিলাসবহুল বিদেশি গাড়ি ব্যবহার করেন, তা নিয়ে অনেকের কৌতুহল রয়েছে। ধারণা করা হয়, কিমের সংগ্রহে থাকা গাড়িগুলো বেশির ভাগই বিদেশ থেকে পাচার করা।

এদিকে, পুতিনের উপহার এই গাড়ির মডেল সম্পর্কে প্রতিবেদনে কিছু বলা হয়নি।


আরও খবর



স্কুলশিক্ষার্থীরা পাবে ৫ হাজার টাকা সহায়তা, অনলাইনে আবেদন

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণিতে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীরা সহায়তা বাবদ পাঁচ হাজার টাকা করে পাবে প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট। অসচ্ছল শিক্ষার্থীরা এ টাকা পেতে ২৯ ফেব্রুয়ারি মধ্যরাত পর্যন্ত অনলাইনে আবেদন করতে পারবে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ থেকে প্রকাশিত প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্টের এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা বলা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট থেকে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর, কারিগরি শিক্ষা অধিদপ্তর ও মাদ্রাসা শিক্ষা অধিদপ্তরের অধীন বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ২০২৪ সালে মাধ্যমিক ও সমমান পর্যায়ে (ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি) ভর্তিকৃত ও অধ্যয়নরত অসচ্ছল ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের ভর্তি নিশ্চিত করতে ভর্তিসহায়তা দেওয়া হবে। ভর্তিসহায়তা পেতে শিক্ষার্থীকে নির্ধারিত ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে অনলাইনে অবেদন করতে হবে।

এতে বলা হয়েছে, সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ১৩ থেকে ২০তম গ্রেডের কর্মচারীর সন্তান আর্থিক অনুদান পাওয়ার জন্য বিবেচিত হবেন। অন্যান্য ক্ষেত্রে মাবাবা বা অভিভাবকের বার্ষিক আয় দুই লাখ টাকার কম হতে হবে।

এতে আরও বলা হয়েছে, শিক্ষার্থীদের ছবি, স্বাক্ষর, জন্মনিবন্ধন সনদ, অভিভাবকের জাতীয় পরিচয়পত্র, নির্ধারিত ফরমে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানের সুপারিশ প্রয়োজন হবে ভর্তি-সহায়তা পেতে। আর সরকারি, আধা সরকারি, স্বায়ত্তশাসিত ও সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীদের সন্তানদের ক্ষেত্রে মা-বাবা বা অভিভাবকদের কর্মরত প্রতিষ্ঠান প্রধানের প্রত্যয়ন বা সুপারিশ প্রয়োজন হবে।

শিক্ষার্থীদের জন্য ভর্তি সহায়তা নির্দেশিকা অনুসারে শিক্ষার্থীরা ভর্তিতে আর্থিক সহায়তা পাবেন। প্রধানমন্ত্রীর শিক্ষা সহায়তা ট্রাস্ট দরিদ্র ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ভর্তি নিশ্চিতকরণে ভর্তি সহায়তা দিয়ে থাকে। বর্তমানে মাধ্যমিক পর্যায়ে ৫, উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ে ৮ এবং স্নাতক ও সমমান পর্যায়ে ১০ হাজার টাকা হারে ভর্তি সহায়তা দেওয়া হচ্ছে।


আরও খবর
জাবির ‘ডি’ ইউনিটের ফল প্রকাশ

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




রেলে আয়ের চেয়ে ব্যয় বেশি : রেলপথমন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

গত অর্থ বছরে রেলওয়ের আয়ের তুলনায় ১৫২৪ কোটি টাকা ব্যয় বেশি হয়েছে বলে জানিয়েছেন রেলপথমন্ত্রী জিল্লুল হাকিম।

বৃহস্পতিবার (১৫ ফেব্রুয়ারি) জাতীয় সংসদের অধিবেশনে স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য মুহাম্মদ সাইফুল ইসলামের এক প্রশ্নের লিখিত উত্তরে তিনি এ তথ্য জানান। এ সময় স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন।

রেলমন্ত্রী জিল্লুল হাকিম বলেন, ২০২২-২০২৩ অর্থ বছরের রেলওয়ের ব্যয় ছিল ৩৩০৭ কোটি টাকা, পক্ষান্তরে রেলওয়ের আয় ছিল ১৭৮৩ কোটি টাকা। আয়ের তুলনায় ১৫২৪ কোটি টাকা ব্যয় বেশি হয়েছে। এ ব্যয়ের মধ্যে বাংলাদেশ রেলওয়ের অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা, পেনশন ইত্যাদি অন্তর্ভুক্ত ছিল।

এছাড়া রেলওয়ে পুলিশ, রেলওয়ে নিরাপত্তা বাহিনী, স্কুল, হাসপাতালের মাধ্যমেও দেশের জনগণ সামাজিক ও নিরাপত্তামূলক সেবা পেয়ে আসছে, যার ব্যয় রেলওয়ে থেকে নির্বাহ করা হয়। এতে রেলওয়ের ব্যয় বৃদ্ধি পাচ্ছে। মূলত স্বল্প খরচে জনগণকে সেবা দেওয়ার সরকারি নীতির কারণে ভাড়া বৃদ্ধিপূর্বক আয়-ব্যয়ের সমন্বয় করা হচ্ছে না।

রেলমন্ত্রী বলেন, সরকারের পলিসি অনুযায়ী বাংলাদেশ রেলওয়েকে বাণিজ্যিক তথা লাভজনক/অলাভজনক প্রতিষ্ঠান হিসেবে নয়, সেবাদানকারী সংস্থা হিসেবেই বিবেচনা করা হয়ে থাকে।


আরও খবর
শপথ নিলেন নতুন ৭ প্রতিমন্ত্রী

শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪




বিদেশে বসে গুজব ছড়ালে ব্যবস্থার এখতিয়ার নেই

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

তথ্য প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত বলেছেন, বিদেশে বসে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে বিভ্রান্তিকর অপতথ্য প্রচারের বিরুদ্ধে আনাইনুগ ব্যবস্থা গ্রহণের সরাসরি কোনো এখতিয়ার তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের নেই। তবে তথ্য অধিদপ্তরের অধীনে ফ্যাক্ট চেকিং কমিটি রয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, দেশে ও বিদেশে বসে দেশের বিরুদ্ধে গুজব ও বিভ্রান্তিকর অপপ্রচার রোধে সরকার নিরবচ্ছিন্ন কাজ করছে। বৃহস্পতিবার সংসদের বৈঠকে প্রশ্নোত্তরে সরকারদলীয় এমপি চয়ন ইসলামের প্রশ্নের জবাবে এ কথা বলেন প্রতিমন্ত্রী।

তিনি আরও বলেন, দেশের অভ্যন্তরে বসে দেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার বা অন্তর্ঘাতমূলক কোনো কর্মকাণ্ড করলে তা প্রচলিত আইনে ব্যবস্থা গ্রহণের সুযোগ রয়েছে। কিন্তু বিদেশের মাটিতে বসে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অপপ্রচারে ব্যবস্থা গ্রহণের সক্ষমতা গড়ে ওঠেনি। তবে এই বিষয়ে সরকার অত্যন্ত সজাগ। তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে অপপ্রচারের জবাব তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমেই রোধ করা সম্ভব। প্রযুক্তির যথাযথ প্রয়োগের মাধ্যমে অচিরেই অপপ্রচার বন্ধের উদ্যোগ গ্রহণ করা হবে।

সম্পূরক প্রশ্নের জবাবে মোহাম্মদ আলী আরাফাত বলেন, কেবল বাংলাদেশ নয়, গোটা বিশ্বই অপপ্রচার ও গুজব নিয়ে খুবই চিন্তিত। ওয়ার্ল্ড ইকোনমিক ফোরামের বৈঠকে মিস ইনফরমেশন ও ডিস ইনফরমেশনকে আগামী দিনের এক নম্বর সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। গত ১৫ বছর ধরে আমরা নিজেরা আক্রান্ত। 


আরও খবর
শপথ নিলেন নতুন ৭ প্রতিমন্ত্রী

শুক্রবার ০১ মার্চ ২০২৪