আজঃ শনিবার ১৩ এপ্রিল ২০২৪
শিরোনাম

বইমেলায় ব্যাপক সাড়া, যানবাহন নিয়ে যে নির্দেশনা দিলো ডিএমপি

প্রকাশিত:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

এবারের বইমেলা জনসাধারণের মধ্যে ব্যাপক সাড়া ফেলেছে। বিশেষ করে ছুটির দিনগুলোর বিকেলে এবং অন্যান্য দিন সন্ধ্যায় মেলায় বিপুলসংখ্যক মানুষের আগমন ঘটছে। এর ফলে শাহবাগ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় অত্যধিক যানবাহনের চাপ পরিলক্ষিত হওয়ায় রাজধানীবাসীকে ওই সময়ে শাহবাগ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা পরিহার করে বিকল্প ট্রাফিক রুট অনুসরণ করার জন্য ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের পক্ষ থেকে বিশেষভাবে অনুরোধ করা হয়েছে।

শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ডিএমপি মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মো. ফারুক হোসেন এ তথ্য জানান।

ডিএমপির ট্রাফিক নির্দেশনায় বলা হয়েছে-

১. যে সমস্ত যানবাহন ব্যবহারকারী ভিআইপি রোড ব্যবহার করে মতিঝিল, গুলিস্তান অথবা পুরান ঢাকার দিকে যেতে চান তারা বিকল্প রোড হিসেবে শহীদ ক্যাপ্টেন মনসুর আলী সরণি (সাতরাস্তা-মগবাজার-কাকরাইল মসজিদ) ব্যবহার করতে পারবেন।

২. যে সমস্ত যানবাহন ব্যবহারকারী মিরপুর রোড-এলিফ্যান্ট রোড ব্যবহার করে মতিঝিল, গুলিস্তান অথবা পুরান ঢাকার দিকে যেতে চান তারা মিরপুর রোডে নিউমার্কেট-আজিমপুর-পলাশী-চানখারপুল এলাকা ব্যবহার করে গন্তব্যে যেতে পারবেন।

৩. যে সমস্ত যানবাহন ব্যবহারকারী পুরোনো হাইকোর্ট মোড় হয়ে দোয়েল চত্বর হয়ে নীলক্ষেত-নিউমার্কেট, আজিমপুর অথবা এলিফ্যান্ট রোডের দিকে যেতে চান তারা সরকারি কর্মচারী হাসপাতাল-নিমতলী-শহীদুল্লাহ হল ক্রসিং- শহীদ মিনার-পলাশী হয়ে যেতে পারবেন।

এছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও আশপাশের এলাকায় নির্ধারিত পার্কিং এলাকা ছাড়া যানবাহন পার্কিং নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে।

ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের ট্রাফিক-রমনা বিভাগ অমর একুশে বইমেলা উপলক্ষে যানবাহন চলাচলে শৃঙ্খলা রক্ষা ও যানজট এড়ানোর লক্ষ্যে নাগরিকদের সর্বাত্মক সহযোগিতা কামনা করছে।


আরও খবর
চৈত্র সংক্রান্তি আজ

শনিবার ১৩ এপ্রিল ২০২৪




ইসরায়েলি সাঁজোয়া যানে হামাসের হামলা

প্রকাশিত:রবিবার ১৭ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৭ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

গাজায় ইসরায়েলি সাঁজোয়া যানে হামলা চালিয়েছে হামাস। আল জাজিরার খবরে বলা হয়েছে, হামাসের সশস্ত্র শাখা কাসসাম ব্রিগেড একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে। ভিডিওতে ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর একাধিক যানে হামলার দৃশ্য দেখা গেছে।

এতে দেখা যায়, ফিলিস্তিনি যোদ্ধারা মধ্য গাজার আল-জাহরা এলাকায় ট্যাংক ও সেনাবাহী রণতরীতে হামলা চালাচ্ছে।

ইসরায়েল হামাসকে ধ্বংস করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেছে। তবে পাঁচ মাস ধরে চলা যুদ্ধের পরও হামাসের যোদ্ধারা গাজা উপত্যকাজুড়ে ইহুদি সেনাদের সঙ্গে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছে।

এদিকে ফাতাহর সামরিক শাখা আল-আকসা মার্টারস ব্রিগেড হামাদে ইসরায়েলি বাহিনীকে লক্ষ্য করে একটি বিস্ফোরক ডিভাইসের বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে বলে পৃথক আরেক খবরে বলা হয়েছে।

অন্যদিকে ক্রিটিক্যাল থ্রেটস প্রজেক্টের সর্বশেষ প্রতিবেদনে গাজা উপত্যকা জুড়ে স্থল লড়াই অব্যাহত থাকার তথ্য জানানো হয়েছে। প্রতিবেদনে  বলা হয়, অবরুদ্ধ ছিটমহলের উত্তর ও মধ্যাঞ্চলে ইসরায়েলি সামরিক বাহিনীর নাহাল ব্রিগেড অভিযান অব্যাহত রেখেছে। ইসরায়েলি বাহিনী গাজার মাঝখানে নির্মিত একটি করিডোর থেকে অভিযান শুরু করে যা উত্তরে চলাচলে সীমাবদ্ধ করে।


আরও খবর



ইতিকাফের সময় গোসল ফরজ হলে করণীয়

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৪ এপ্রিল ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৪ এপ্রিল ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ধর্ম ও জীবন

Image

ইতিকাফ বলা হয়, বিশেষ নিয়তে বিশেষ অবস্থায় আল্লাহ তায়ালার আনুগত্যের উদ্দেশ্যে মসজিদে অবস্থান করাকে। ইতিকাফরত অবস্থায় বান্দা নিজেকে আল্লাহর ইবাদতের জন্য দুনিয়ার অন্য সব কিছু থেকে আলাদা করে নেয়। ঐকান্তিকভাবে মশগুল হয়ে পড়ে আল্লাহর নৈকট্য অর্জনের নিরন্তর সাধনায়।

ইতিকাফের মাহাত্ম্য ও তাৎপর্য ব্যাখ্যা করতে গিয়ে শাহ ওয়ালি উল্লাহ মুহাদ্দিসে দেহলভি রহ. বলেন, মসজিদে ইতিকাফ হচ্ছে হৃদয়ের প্রশান্তি, আত্মার পবিত্রতা ও চিত্তের নিষ্কলুষতা; চিন্তার পরিচ্ছন্নতা ও বিশুদ্ধতা।

পবিত্র কোরআনে আল্লাহ তায়ালা বলেছেন, আমি ইবরাহিম ও ইসমাইলকে আদেশ করলাম, তোমরা আমার গৃহকে তাওয়াফকারী, ইতিকাফকারী ও রুকু-সিজদাকারীদের জন্য পবিত্র করো। (সূরা বাকারা, আয়াত : ১২৫)

মদিনায় অবস্থানকালে রাসূলুল্লাহ সা. প্রতিবছরই ইতিকাফ পালন করেছেন। শত ব্যস্ততা সত্ত্বেও রমজানে তিনি ইতিকাফ ছাড়েননি। আবু হুরায়রা রা. থেকে বর্ণিত, রাসূল সা. প্রতি রমজানে ১০ দিন ইতিকাফ করতেন, তবে যে বছর তিনি ইন্তেকাল করেন, সে বছর তিনি ২০ দিন ইতিকাফে কাটান। (বুখারি, হাদিস : ১৯০৩)

ইতিকাফের সময় দুনিয়াবি সব কাজ থেকে নিজেকে বিরত রাখতে হয়। এ সময় প্রয়োজন ছাড়া মসজিদ থেকে বের হলে ইতিকাফ ভেঙে যাবে। তবে কারো যদি স্বপ্ন দোষের কারণে গোসল ফরজ হয় তাহলে তার করণীয় বিষয়ে ইসলামি আইন ও ফেকাহশাস্ত্রবিদদের মতামত হলো

ইতিকাফের সময় কারো গোসল ফরজ হলে এমন ব্যক্তি তাৎক্ষণিক তায়াম্মুম করে মসজিদ থেকে বের হয়ে গোসল করে নেবেন। আর যদি তায়াম্মুম করার মত কোনো কিছু না পায় তাহলে দ্রুত মসজিদ থেকে বের হয়ে গোসল করে আসবে। মসজিদের বাইরে গোসল ছাড়া অন্য কোনো কাজ বা বিষয়ে সামান্য সময়ও ব্যয় করা যাবে না। (রদ্দুল মুহতার ১/৪১০;)

নিউজ ট্যাগ: ইতিকাফ

আরও খবর
শুক্রবারের বিশেষ ৪ আমল

শুক্রবার ১২ এপ্রিল ২০২৪

আজ পবিত্র ঈদুল ফিতর

বৃহস্পতিবার ১১ এপ্রিল ২০২৪




মুম্বাই মাতালেন এড শিরান

প্রকাশিত:রবিবার ১৭ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৭ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

বিশ্বের অন্যতম জনপ্রিয় পপতারকা এড শিরান পাঁচ দিনের সফরে এসে মুম্বাই মাতিয়ে গেলেন। শনিবার (১৬ মার্চ) মুম্বাইয়ের কনসার্টে আগুন ঝরালেন এই গায়ক। গোটা ভারত থেকেই শিরান ভক্তরা এদিন হাজির হয়েছিলেন গায়কের পারফরম্যান্স দেখতে। কনসার্টের সেইসব ছবি ও ভিডিও এখন সামাজিক মাধ্যমে ভাইরাল।

এড শিরান ভারতে পা রেখেছিলেন ১২ মার্চ। আর এই পাঁচ দিনের সফরে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে উঠে এসেছিলেন এই পপতারকা। স্কুল পরিদর্শনে গিয়ে বাচ্চাদের সঙ্গে গান গেয়ে, শাহরুখ খানের মান্নাতে গিয়ে আইকনিক পোজে ছবি তুলে আর শেষমেষ কনসার্টে নিজের কণ্ঠে দ্যুতি ছড়িয়ে ৫ দিনের সফর শেষে নিজ দেশের পথে পাড়ি জমিয়েছেন এড শিরান । ব্রিটিশ এই পপ গায়কের সফরে মুগ্ধ ভারত।

শনিবার (১৬ মার্চ) নৈশ কনসার্টে মঞ্চ মাতিয়েছেন এড শিরান। কনসার্টের সবচেয়ে বড় চমক ছিল দিলজিৎ দোসাঞ্ঝের সঙ্গে এড শিরানের পাঞ্জাবি গানের যুগলবন্দি। যা শুনে দর্শকদের দারুণ উল্লাস! প্রথমবার ব্রিটিশ গায়কের মুখে ভারতীয় ভাষায় গান! দর্শক-অনুরাগীদের উদ্দেশ্যেও কৃতজ্ঞতা স্বীকার করতে শোনা গেল এড শিরানকে।

ভারত সফরে এসে এড শিরান বললেন, আমি জানি ভারত খুব বড় একটা দেশ। তবে আজ এখানে উপস্থিত সবাই যে মুম্বাই থেকেই এসেছেন এমনটা নয়। অনেক দূর থেকেও অনেকে এসেছেন আমার কনসার্টে। কেউ বিমানে, কেউ ট্রেনে-বাসে আবার কেউ বা বাচ্চাদের নিয়ে এসেছেন। শনিবার রাতটা আমার সঙ্গে কাটানোর জন্য আপনারা অনেকটা সময় ব্যয় করেছেন আমি জানি। আপনারা এখানে আসার জন্য যে পরিশ্রমটা করেছেন, সেটা সত্যিই প্রশংসনীয়। শনিবার রাতের সময়টা আমাকে দেওয়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ। আপনারা হয়তো অনেকভাবেই সময় কাটাতে পারতেন, কিন্তু সেটা না করে এখানে এলেন। ধন্যবাদ আপনাদের। আমি কথা দিচ্ছি, পরের বছর আবার আসব ভারতে।’

রবিবার (১৭ মার্চ) নিজ দেশের উদ্দেশ্যে রওনা হন ব্রিটিশ পপ গায়ক। ফেরার পথে, মুম্বাই বিমানবন্দরে পাপারাৎজিদের উদ্দেশ্যে হাত নেড়ে অভিবাদনও জানান। ভারতীয়দের আতিথেয়তায় যেমন মুগ্ধ শিরান, তেমনি শিরানের বিনম্রতায়ও মুগ্ধ ভারতের অনুরাগীরা। সামাজিক মাধ্যমেও চলছে শিরান বন্দনা। সবার একটাই বার্তা, আবার আসবেন এড শিরান।


আরও খবর
কলকাতায় ঈদে একমাত্র ‘মির্জা’

বৃহস্পতিবার ১১ এপ্রিল ২০২৪




২৩ নাবিককে মুক্ত করতে বিশেষ অভিযানের প্রস্তাব, বিশেষজ্ঞদের ‘না’

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৯ মার্চ ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৯ মার্চ ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

ভারত মহাসাগরে এম ভি আব্দুল্লাহকে ছিনতাই করে সোমালিয়া উপকূলে নেয়ার সময় পিছু নেয় ভারত ও ইউরোপীয় নৌবাহিনী। পরবর্তীতেও চেষ্টা চালায় জাহাজ ও নাবিকদের জিম্মিদশা থেকে মুক্ত করতে। এর মধ্যেই শনিবার কমান্ডো অভিযান চালিয়ে ৩ মাস আগে ছিনতাই হওয়া মাল্টার জাহাজ এম ভি রুয়েন উদ্ধার করে ভারতীয় নেভি।

এমন বাস্তবতায় এম ভি আব্দুল্লায় বিশেষ অভিযান চালানো যৌক্তিক হবে কি না-উঠেছে এমন প্রশ্ন। এক্ষেত্রে সামনে এসেছে কয়েকটি বিষয়। এই যেমন, আব্দুল্লাহর অবস্থান তীর থেকে মাত্র ৫ নটিক্যাল মাইল দূরে। যা পুরোপুরি দস্যুদের নিয়ন্ত্রণে। বিপরীতে রুয়েন ছিল ওপেন সি-তে। যেখানে বিদেশি নৌবাহিনীর অভিযানের সুযোগ ছিল। এছাড়া জাহাজে থাকা পণ্যের ঝুঁকির বিষয়টিও গুরুত্বপূর্ণ। 

আব্দুল্লাহর বিষয়টি শুরু থেকে পর্যবেক্ষণ করছেন, এমন একজন জ্যেষ্ঠ মেরিনার ক্যাপ্টেন আতিক ইউ এ খান বলছেন, ২৩ নাবিকের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা বিবেচনায় অভিযান চালানো সমীচীন হবে না। তিনি বলেন, ইউরোপিয়ান নেভি কমান্ড অপারেশন চালাতে চেয়েছিলো। এর জন্যে তারা অনুমতি চাইলে বাংলাদেশ সরকার ও জাহাজের মালিকপক্ষ সায় দেয়নি। কারণ এতে নাবিকদের জীবন রিস্কে পরে যেত।

তিনি আরও বলেন, জাহাজটির বর্তমান অবস্থান, নিয়ন্ত্রণ আর জাহাজে থাকা পণ্যের ধরণ বিবেচনায় অভিযান চালানো কোনভাবেই সঠিক সিদ্ধান্ত হবে না। মুক্তিপণের পথে হাটাই হবে সমীচীন। তা না হলে তৈরি হবে প্রাণহানির শঙ্কা।

বাংলাদেশ মার্চেন্ট মেরিন অফিসার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ক্যাপ্টেন এম আনাম চৌধুরী বলেন, হামলা চালানোর সময় বা এর পরপরই হয়ত অভিযান চালানো যেত। এখন মুক্তিপণের পথ এড়িয়ে জোরপূর্বক কিছু করতে যাওয়া হবে আত্মঘাতী। 

১২ মার্চ দস্যুদের হামলার সময় এমভি আব্দুল্লাহ থেকে বিভিন্নভাবে সহায়তা চেয়ে বার্তা দেয়া হয়েছিল বলে জানা গেছে। এর আগে ২০১০ সালে একই প্রতিষ্ঠানের জাহাজ জাহান মণিও ছাড়া পেয়েছিল মুক্তিপণের বিনিময়ে।


আরও খবর



লিটন-জয়-দিপুর ডাক, ব্যাটিং বিপর্যয়ে বাংলাদেশ

প্রকাশিত:রবিবার ২৪ মার্চ 20২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৪ মার্চ 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

শ্রীলংকার বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজ জয়ের পর টেস্ট সিরিজে ব্যাটিংয়ে নেমে বিপাকে বাংলাদেশ দল। দুই ম্যাচের প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসের মতো দ্বিতীয় ইনিংসেও চরম ব্যাটিং বিপর্যয়ে টাইগাররা।

শ্রীলংকার বিপক্ষে ৫১১ রানের বিশাল টার্গেট তাড়া করতে নেমে ৩৭ রানে প্রথম সারির ৫ উইকেট হারিয়ে ধুঁকছে বাংলাদেশ দল।

সাজঘরে ফিরেছেন ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয়, অধিনায়ক নাজমুল হোসেন শান্ত, আরেক ওপেনার জাকির হাসান, তরুণ ক্রিকেটার শাহাদাত হোসেন ও উইকেটকিপার ব্যাটসম্যান লিটন কুমার দাস।

৮.৪ ওভারে ৩৭ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে গর্তে পড়ে যাওয়া দলকে টেনে তোলার চেষ্টা সাবেক অধিনায়ক মুমিনুল হক সৌরভ ও বাঁহাতি স্পিনার তাইজুল ইসলামের। রোববার তৃতীয় দিনের খেলা শেষে বাংলাদেশের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ৪৭ রান।

সিলেট টেস্টের প্রথম ইনিংসে জোড়া সেঞ্চুরি হাঁকান শ্রীলংকার দুই তারকা ব্যাটসম্যান ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা ও কামিন্দু মেন্ডিস। প্রথম ইনিংসে তাদের ১০২ ও ১২০ রানের ওপর ভর করে ২৮০ রান করে শ্রীলংকা। জবাবে ব্যাটিংয়ে নেমে চরম ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে ১৮৮ রানেই অলআউট হয় বাংলাদেশ।

৯২ রানে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে ফের জোড়া সেঞ্চুরি তুলে নেন কামিন্দু মেন্ডিস ও অধিনায়ক ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা। তাদের জোড়া সেঞ্চুরিতে ভর করে ৪১৮ রান করে শ্রীলংকা।

প্রথম ইনিংসে ১০২ রান করা কামিন্দু মেন্ডিস দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হওয়ার আগে ১৬টি চার আর ৬টি ছক্কার সাহায্যে দলীয় সর্বোচ্চ ১৬৪ রান করেন। ৯টি চার আর ২টি ছক্কার সাহায্যে ১০৮ রান করেন প্রথম ইনিংসে ১০২ রান করা অধিনায়ক ধনাঞ্জয়া ডি সিলভা।

এই দুই তারকা ব্যাটসম্যানের দায়িত্বশীল ব্যাটিংয়ে বাংলাদেশকে ৫১১ রানের টার্গেট ছুড়ে দিয়েছে শ্রীলংকা।


আরও খবর