আজঃ শনিবার ০২ মার্চ 2০২4
শিরোনাম

বিসিবির কেন্দ্রীয় চুক্তির তালিকা প্রকাশ, তামিমসহ বাদ পড়লেন যারা

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) পূর্ব নির্ধারিত কার্যনির্বাহী পর্ষদের সভা আজ অনুষ্ঠিত হয় মিরপুরে। দেশের ক্রিকেটের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ দিন ছিল আজ। এদিন তিন ফরম্যাটেরের নতুন অধিনায়ক, প্রধান নির্বাচক ও নতুন কেন্দ্রীয় চুক্তির বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়।

সভা শেষে অধিনায়ক, নির্বাচক ও ২১ সদস্যের নতুন কেন্দ্রীয় চুক্তির তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে বিসিবির পক্ষ থেকে। ক্রিকেটারদের কেন্দ্রীয় চুক্তির তালিকায় জায়গা পাওয়া ২১ জনের কেবল পাঁচজনই রয়েছেন তিন সংস্করণে। অনুমিতভাবেই চুক্তিতে নেই তামিম ইকবালের নাম, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদকে রাখা হয়েছে কেবল ওয়ানডেতে। এছাড়া চোটে থাকায় চুক্তিতে নেই ইবাদত হোসেন।

সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যায় কেন্দ্রীয় চুক্তিতে থাকা ক্রিকেটারদের নাম ঘোষণা করা হয়। সেখানে অবশ্য খুব বেশি চমক নেই। সিনিয়র ক্রিকেটারদের মধ্যে কেবল সাকিবই আছেন তিন সংস্করণের চুক্তিতে।

তিন সংস্করণের চুক্তিতে আছেন পাঁচ ক্রিকেটার। তারা হলেন : সাকিব আল হাসান, লিটন দাস, মেহেদী হাসান মিরাজ, নাজমুল হোসেন শান্ত ও শরিফুল ইসলাম।

ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টির চুক্তিতে আছেন : তাওহিদ হৃদয়, তাসকিন আহমেদ, মুস্তাফিজুর রহমান ও হাসান মাহমুদ।

শুধু টেস্টের চুক্তিতে আছেন : মুমিনুল হক সৌরভ, তাইজুল ইসলাম, মাহমুদুল হাসান জয়, জাকির হাসান, নাঈম হাসান ও সৈয়দ খালেদ আহমেদ।

শুধু ওয়ানডের চুক্তিতে আছেন : মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ও তানজিম হাসান সাকিব। 

শুধু টি-টোয়েন্টির চুক্তিতে আছেন : নুরুল হাসান সোহান, নাসুম আহমেদ ও শেখ মেহেদী হাসান।


আরও খবর



পাকিস্তানে স্বতন্ত্রপ্রার্থীকে গুলি করে হত্যা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে ঘোষিত ২৬৪ আসনের ফলাফলে সবচেয়ে বেশি ১০১টি আসন পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। এই প্রার্থীদের ৯৩ জনই কারাগারে থাকা সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) সমর্থিত।

বিশ্লেষকদের ভাষ্য, নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেলেও পাকিস্তানের রাজনীতিতে পিটিআইয়ের শক্ত অবস্থান ইতোমধ্যে তৈরি হয়ে গেছে, যা একটি নতুন মেরুকরণের সামনে দাঁড় করিয়েছে পাকিস্তানের রাজনীতিকে।

তবে এখনো রয়ে গেছে রাজনৈতিক উত্তাপ। ক্ষণে ক্ষণে বদলাচ্ছে দেশটির রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট। নাটকীয়তার পর চলছে নাটকীয়তা। নির্বাচনের পর দেশটিতে এক স্বতন্ত্রপ্রার্থীকে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) জিও নিউজের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

জিও নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, নিহত ওই প্রার্থীর নাম চৌধুরি মুহাম্মদ আদনান। তাকে রাওয়ালপিন্ডিতে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। তিনি গত ৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত নির্বাচনে এনএ-৫৭ আসন থেকে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন।

পুলিশ জানিয়েছে, অজ্ঞাত ব্যক্তিরা খাচেরি চক এলাকায় আদনানকে গুলি করেছিল। তিনি প্রাদেশিক পরিষদের সাবেক সদস্য ছিলেন।

পুলিশ আরও জানিয়েছে, স্বতন্ত্র ওই প্রার্থীকে উদ্ধার করে তাৎক্ষণিক হাসপাতালে নেওয়া হয়। এরপর তিনি চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান। এর আগে ন্যাশনাল ডেমোক্র্যাটিক মুভমেন্টের (এনডিএম) প্রধান মুহসিন দাওয়ার উত্তর ওয়াজিরিস্তানে নির্বাচনের ফল বিলম্বের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ চলাকালে গুরুতর আহত হয়েছিলেন।

প্রসঙ্গত, গত বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) পাকিস্তানে জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদের ভোট হয়েছে।


আরও খবর



মোংলা বন্দরে দীর্ঘ দুই বছর পর ড্রেজিং কার্যক্রম শুরু

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আবু বকর সিদ্দিক, মোংলা প্রতিনিধি

Image

ড্রেজিংয়ের উত্তোলিত বালু ফেলার জায়গা জটিলতা কেটে যাওয়ায় মোংলা বন্দরের ইনারবার চ্যানেলের ড্রেজিং কার্যক্রম ফের শুরু হয়েছে। খনন করা পলি ফেলার জায়গা সংকটে দীর্ঘ প্রায় দুই বছর বন্ধ থাকার পর শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) সকাল হতে বন্দরের পশুর চ্যানেলের/নদীর বেসক্রিক বয়া এলাকা থেকে এই ড্রেজিং কার্যক্রম শুরু হয়।

প্রথম দিন সেকশন ৪-এর আওতায় বাল্কহেড ড্রেজারের মাধ্যমে এই খননকাজ শুরু করে বন্দর কর্তৃপক্ষ।

কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান রিয়ার অ্যাডমিরাল শাহীন রহমান জানান, দেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম সমুদ্রবন্দর বাঁচিয়ে রাখার স্বার্থে নিয়মিত পশুর চ্যানেল ড্রেজিংয়ের বিকল্প নেই।

২০২১ সালের ১৩ মার্চ শুরু হওয়া ইনারবার ড্রেজিংয়ের খনন করা পলি ফেলার জায়গার অভাব দেখা দিলে মাঝপথে বন্ধ থাকে। তবে আপাতত খনন করা পলি মাটি রাখার জায়গা নির্ধারণ হওয়ায় শুক্রবার থেকে ড্রেজিং কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এই ড্রেজিংয়ের মাটি রাখা হচ্ছে জয়মনি এলাকায়। এবার থেকে ইনারবারের ড্রেজিং কার্যক্রম চলমান থাকবে বলেও জানান তিনি।

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের প্রধান হাইড্রোগ্রাফার কমান্ডার রাসেল আহম্মেদ খান বলেন, ড্রেজিংয়ের মাধ্যমে খনন করা পলি মাটি রাখার জায়গার অভাব দেখা দিলে ইনারবারে ড্রেজিং বন্ধ থাকলেও পশুর চ্যানেল স্বাভাবিক ছিল। জাহাজ চলাচলে সমস্যা হয়নি। তবে নিয়মিত ড্রেজিং কার্যক্রম অব্যাহত রাখা না গেলে ভবিষ্যতে বাণিজ্যিক জাহাজ চলাচলে ঝুঁকি তৈরি হবে। এজন্য পুরোনো জায়গা জয়মনিতে মাটি ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়ে আজ থেকে ড্রেজিং কার্যক্রম শুরু করা হয়। এর আগে এই ড্রেজিং কার্যক্রম শুরুর আগে সার্ভে করে দেখা হয়েছে যে কতটুকু পলি জমেছে। সেই সার্ভে শেষ করে এই ড্রেজিং শুরু করা হয়। এই চ্যানেলে ড্রেজিং কার্যক্রম চলমান রাখতে নৌপরিবহণ মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ও সচিবসহ মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, মোংলা বন্দরের পশুর চ্যানেলের (বন্দর চ্যানেল) হাড়বাড়িয়া এলাকা থেকে বন্দর জেটি পর্যন্ত এলাকার নাম ইনারবার। ইনারবারের ২৩ দশমিক ৪ কিলোমিটার এলাকায় ক্যাপিটাল ড্রেজিংয়ের উদ্বোধন করা হয় ২০২১ সালের ১৩ মার্চ। ওই বছরের ১০ এপ্রিল ড্রেজিংয়ের কার্যক্রম শুরু হয়। সেই সময় প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছিল ৭৯৩ কোটি টাকা।

ড্রেজিং করা বালু বা পলি মাটি ফেলার জন্য মোংলা উপজেলায় ৭০০ একর ও খুলনার দাকোপ উপজেলায় বানিশান্তা এলাকায় ৩০০ একর জমি হুকুম দখল করা হয়। মোংলা উপজেলার চিলা ইউনিয়নের জয়মনি এলাকার জমিতে বালু ফেলা হয়। কিন্তু পশুর নদের পূর্ব পাশের খুলনার দাকোপ উপজেলার বানিশান্তার তিন ফসলি জমিতে বালু ফেলা ঠেকাতে আন্দোলন শুরু করে এলাকাবাসী ও বিভিন্ন সংগঠন। তাদের আপত্তির মুখে সেখানে বালু ও মাটি ফেলা বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয় বন্দর কর্তৃপক্ষ। সেই থেকে প্রায় দুই বছর ধরে ইনারবার ড্রেজিং বন্ধ ছিল।

এ অবস্থায় মোংলা উপজেলার বুড়িরডাঙ্গা ইউনিয়নের সানবান্ধা মৌজায় ২৬২ একর জমিতে বালু ফেলানোর প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ সংক্রান্ত একটি প্রস্তাবনা বাগেরহাট জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পাঠানো হলে সেখান থেকে ভূমি মন্ত্রাণালয়ে পাঠানো হয়। এরই মধ্যে প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হয়ে যায় ২০২২ সালের জুন মাসে। এ পর্যন্ত কাজ সম্পন্ন হয়েছে ৩৪ শতাংশ। নির্ধারিত সময়ে কাজ শেষ করতে না পারায় প্রকল্প ব্যয় বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৯৯২কোটি টাকায়, যা গত বছরের ৪এপ্রিল একনেক সভায় অনুমোদন পেয়েছে।

মোংলা বন্দর কর্তৃপক্ষের প্রধান প্রকৌশলী (সিভিল ও হাইড্রোলিক্স) শেখ শওকত আলী বলেন, ইনারবারের গভীরতা সাড়ে পাঁচ থেকে ছয় মিটার। ড্রেজিং করে সাড়ে আট মিটার করার কথা। ড্রেজিং করা স্থানগুলো থেকে যে পরিমাণ পলি অপসারণ করা হয়েছিল, গত প্রায় দুই বছরে তার ৭০ ভাগ পলি আবারও জমা হয়েছে। এ অবস্থা ড্রেজিং প্রকল্পের মেয়াদ ২০২৪ সালের জুন পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। ড্রেজিং কাজ বন্ধ থাকায় এত দিনে পলি পড়ে নাব্য আরও কমে গেছে। এ ছাড়া ড্রেজারের তেলসহ অন্যান্য জিনিসপত্রের মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রকল্প ব্যয় বেড়েছে।

বালু ফেলার জায়গার বিষয়ে শেখ শওকত আলী বলেন, নতুন করে কোনো জায়গা না মেলায় পুরোনো জায়গা জয়মনি এলাকায় আপাতত বালু ফেলা হচ্ছে। প্রাথমিকভাবে সেকশন ৪-এর আওতায় বাল্কহেড ড্রেজারের মাধ্যমে মাটি কেটে অন্য একটি বাল্কহেডে তোলা হচ্ছে। পরে তা অন্যত্র সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে।

আগামীকাল রোববার থেকে কাটার সাকশন ড্রেজার দিয়ে পুরোদমে ড্রেজিংয়ের কাজ শুরু হবে। খনন করা সেই পলি মাটি রাখা হবে আগেরই ডাম্পিং এলাকা জয়মনিতে।


আরও খবর



দেশে প্রতি বছর স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হন ১৫ হাজার নারী

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
স্বাস্থ্য ডেস্ক

Image

বর্তমান বিশ্বে সাড়ে ১০ কোটি নারী স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত। প্রতি বছর এই রোগে নতুন করে আক্রান্ত হচ্ছেন ১৫ হাজারের বেশি বাংলাদেশি। এদের মধ্যে ৯৮ শতাংশের বেশি নারী এবং দুই শতাংশের মতো পুরুষ। গড়ে প্রতি বছর এই ক্যান্সারে মারা যাচ্ছেন সাড়ে ৭ হাজার মানুষ।

রোববার (৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের আব্দুস সাত্তার হলরুমে বিশ্ব ক্যান্সার দিবস উপলক্ষে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় এ তথ্য জানায় ওয়ার্ল্ড ক্যান্সার সোসাইটি বাংলাদেশ। এর আগে দুপুরে সোসাটির পক্ষ থেকে জাতীয় শহীদ মিনার থেকে দোয়েল চত্বর হয়ে প্রেসক্লাব পর্যন্ত ক্যান্সার বিষয়ক জনসচেতনতামূলক র‌্যালি ও লিফলেট বিতরণ কর্মসূচী পালন করা হয়।

আলোচনা সভায় বক্তারা বলেন, বিশ্বে প্রতিবছর ৮২ লাখ মানুষ ক্যান্সারে মারা যায়। বিশেষ করে সাড়ে ১০ কোটি নারী বর্তমানে স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত। দ্বিতীয় এ মরণব্যাধিতে আক্রান্তদের মধ্যে অধিকাংশই হচ্ছে বাংলাদেশসহ তৃতীয় বিশ্বের নাগরিক। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রতিবেদনে সচেতনতা ও শিক্ষার অভাব এবং অর্থনৈতিক অবস্থাকে বাংলাদেশে ক্যান্সার ও এ রোগে মৃত্যুর হার বৃদ্ধির জন্য দায়ী করা হয়েছে।

আলোচনা সভায় জানানো হয়, আমাদের জীবনযাপনের ধরন ও খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন এসেছে, এ কারণেও ক্যান্সারে হতে পারে। এছাড়া কারও পরিবারে স্তন ক্যান্সারের ইতিহাস থাকলেও পরবর্তী প্রজন্ম এর দ্বারা আক্রান্ত হতে পারে। যেসব মেয়ের ১২ বছরের আগে ঋতুস্রাব হয় ও দেরিতে মেনোপজ বা ঋতু বন্ধ হয়, তারাও ঝুঁকিতে থাকেন। সেইসঙ্গে তেজস্ক্রিয়তাও স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়ায়।

গবেষণায় দেখা যায়, যারা দেরিতে সন্তান নেন, যাদের সন্তান নেই বা সন্তানকে বুকের দুধ খাওয়াতে পারেন না, শাকসবজি বা ফলমূলের চাইতে যাদের খাদ্যাভ্যাসে চর্বি ও প্রাণিজ আমিষ বেশি এবং প্রসেসড ফুড বেশি খান এবং যাদের অতিরিক্ত ওজন, তাদের স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি বেশি থাকে। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে জন্ম নিয়ন্ত্রণ পিল খাচ্ছেন বা হরমোনের ইনজেকশন নিচ্ছেন, এমন নারীরাও ঝুঁকির মধ্যে আছেন। একইসঙ্গে বয়স বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে স্তন ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনাও বাড়ে। বিশেষ করে ৫০ বছর বয়সের পর এই ঝুঁকি অনেক বেশি বেড়ে যায়। তখন আর করার কিছু থাকে না।

স্তন ক্যান্সার সাধারণত দুভাবে শনাক্ত করা যায়- ১. স্ক্রিনিংয়ের মাধ্যমে। ২. রোগ নির্ণয়ের মাধ্যমে। স্ক্রিনিং আবার দুভাবে করা যায়- ১. নিজেই নিজের স্তন পরীক্ষা করা, ২. ডাক্তার বা নার্সের সাহায্যে পরীক্ষা করা।

স্তন রোগ নির্ণয়ের ক্ষেত্রেও প্রধানত দুটি পদ্ধতি রয়েছে- ১. মেমোগ্রাম বা স্তনের বিশেষ ধরনের এক্স-রে ও ২. স্তনের আলট্রাসনোগ্রাম। এছাড়া এমআরআই এবং বায়োপসির মাধ্যমেও স্তন ক্যান্সার নির্ণয় করা হয়ে থাকে। স্তন ক্যান্সার সনাক্তকরণের পরবর্তী পর্যায় হলো এর সঠিক চিকিত্সা করা। স্তন ক্যান্সারের যে চিকিত্সাগুলো প্রধানত রয়েছে সেগুলো হলো সার্জারি, কেমোথেরাপি, রেডিওথেরাপি ও হরমোন থেরাপি।

নিউজ ট্যাগ: স্তন ক্যান্সার

আরও খবর



টেক্সাসের চিড়িয়াখানায় সিজারে জন্ম নিল গরিলার বাচ্চা

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

সিজারে, অর্থাৎ সি সেকশনের মাধ্যমে মানুষের বাচ্চা হওয়া খুব স্বাভাবিক একটি ব্যাপার। কিন্তু যদি শোনেন কোনো গরিলার বাচ্চা হয়েছে এ ধরনের অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে, তবে নিশ্চয় চমকে উঠবেন। এমন কাণ্ড ঘটেছে যুক্তরাষ্ট্রের একটি চিড়িয়াখানায়।

টেক্সাসের ফোর্ট ওয়র্থ জুতে জরুরি অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে জন্ম হয় অপরিণত গরিলাশাবকটির। প্রিঅ্যাক্লাম্পশিয়ায় ভুগছিল মা গরিলাটি। জমিলা নাম দেওয়া গরিলাশাবকটির অবস্থার উন্নতি হচ্ছে বলে ধারণা করছে চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ। এসব তথ্য জানা যায় ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে।

জমিলার ঐতিহাসিক ও আবেগময় জন্মের বিষয়টি ফোর্ট ওয়র্থ চিড়িয়াখানা তার ফেসবুক পেজে নিশ্চিত করেছে। গরিলাশাবকটি বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের সাহায্যে নির্দিষ্ট সময়ের চার থেকে ছয় সপ্তাহ আগেই জন্ম নেয়। চিড়িয়াখানার ১১৫ বছরের ইতিহাসে এটিই প্রথম গরিলা, যেটি সিজারিয়ান অপারেশনের মাধ্যমে জন্ম নিয়েছে।

সোয়াহিলি ভাষায় জমিলা অর্থ সুন্দর। ৫ ফেব্রুয়ারি জন্ম নেয় গরিলাটি। এর মা সেকানির বয়স ৩৩ বছর, সে একটি ওয়েস্টার্ন লোল্যান্ড গরিলা। বিশেষজ্ঞের সঙ্গে পরামর্শ করে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ সিদ্ধান্ত নেয় মা এবং শিশু উভয়কে বাঁচানোর জন্য একটি সিজারিয়ান অপারেশন জরুরি। ভালোবাসা দিবস, অর্থাৎ ১৪ ফেব্রুয়ারি নিজেদের ফেসবুক পেজে পোস্ট দিয়ে গরিলা শাবকের জন্মের বিষয়টি নিশ্চিত করে।


সেকানির মতো ওয়েস্টার্ন লোল্যান্ড গরিলাদের বাস মধ্য আফ্রিকায়। শিকার ও রোগের কারণে ইন্টারন্যাশনাল ইউনিয়ন ফর কনজারভেশন অব নেচার (আইইউসিএন) এদের চরম সংকটাপন্ন ঘোষণা করেছে।

ওয়ার্ল্ড লাইফ ফান্ডের দেওয়া তথ্য বলছে, গত ২০-২৫ বছরে এই গরিলাদের সংখ্যা ৬০ শতাংশের বেশি কমেছে। এদিকে এই গরিলাদের জন্মহার কম হওয়ায় জনসংখ্যা হ্রাস থামাতে এটি বড় ভূমিকা রাখতে পারছে না।

এই অস্ত্রোপচার ও পরবর্তীতে বড় ভূমিকা ড. জেমি আরউইনের। তিনি জানান, জমিলার ডেলিভারি তাঁর কর্মজীবনের বড় ঘটনাগুলোর একটি।

সেকানির অ্যানাটমি আমার মানবরোগীদের সঙ্গে যেভাবে মিলেছে, তা আমাকে অবাক করে। এক বিবৃতিতে বলেন ড. আরউইন।

চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, জমিলার অপরিণত জন্মের কারণে তার জরুরি চিকিৎসাসেবা প্রয়োজন হয়।  চার থেকে ছয় সপ্তাহের আগে জন্ম নেওয়ায় জমিলার অবিলম্বে চিকিৎসা পর্যবেক্ষণ ও মনোযোগ প্রয়োজন হয়।

নবজাতক বিশেষজ্ঞ রবার্ট উরসপ্রুং গরিলা শাবকটির অবস্থা স্থিতিশীল করার প্রচেষ্টায় সহায়তা করেছিলেন। এর একটি সুষম খাবারের তালিকাও তৈরি করে দেন।

এই গরিলা মা-শিশুর পরিস্থিতির সঙ্গে একই পরিস্থিতিতে জন্ম নেওয়া শিশুদের জন্য হাসপাতালে যা দেখি তার অবিশ্বাস্য রকম মিল ছিল। ড. উরসপ্রুং বলেন, প্রসবের পরে কয়েক ঘণ্টার জন্য শিশুটির শ্বাস নিতে জরুরি সহায়তার প্রয়োজন ছিল, কিন্তু সে যখন গর্ভের বাইরে জীবনের সঙ্গে একটু অভ্যস্ত হয়, বেশ চমৎকারভাবে উন্নতি হয় তার অবস্থার।

চিড়িয়াখানাটি জানিয়েছে, মা সেকানি তারপর সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠেছে। তবে এখনো তার নতুন শিশুর জন্য প্রস্তুত হয়নি।

মা এবং শিশুর পুনর্মিলনের বারবার প্রচেষ্টা সত্ত্বেও সেকানি তার শিশুর যত্ন নেওয়ার ব্যাপারে খুব কমই আগ্রহ দেখিয়েছে। জানায় চিড়িয়াখানাটি।

তারা যোগ করে, কেন সঠিকভাবে মা এবং শিশুর বন্ধন হচ্ছে না তা জানা কঠিন। তবে চিড়িয়াখানা বিশেষজ্ঞরা সন্দেহ করেন যে সেকানি হরমোনের সংকেত অনুভব করেনি যা একটি পুরোপুরি প্রাকৃতিক ও স্বাভাবিক জন্মের সঙ্গে আসতে পারে।

স্টাফরা তখন থেকে তাদের মনোযোগ গ্রেসি নামের ২৪ বছর বয়সী একটি গরিলার দিকে সরিয়ে নিয়েছে। তাকে জমিলার পলক মা হওয়ার জন্য প্রশিক্ষণ দিচ্ছে।


আরও খবর



যৌন নির্যাতনের কথা এখনো ভুলতে পারেননি ভূমি পেডনেকর

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে ক্যামেরার পেছনে দীর্ঘদিন কাজের পর হঠাৎ করেই নায়িকা হিসেবে দেখা দিয়েছিলেন ভূমি পেডনেকর। সহকারী পরিচালক হিসেবে দীর্ঘ ছয় বছর কাজ করেছিলেন যশরাজ ফিল্মসে। প্রতিষ্ঠানটিতে অভিনেতা-অভিনেত্রী নির্বাচনের দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। কিন্তু শিল্পী বাছাই করতে এসে হঠাৎ করেই একদিন নিজেই অভিনেত্রী বনে যান ভূমি।

ইন্ডাস্ট্রিতে এখন প্রতিষ্ঠিত অভিনেত্রী হলেও এক সময় যৌন হেনস্থার শিকার হতে হয়েছিল ভূমিকে। আর সেই তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা এখনো ভুলতে পারেননি তিনি। কী হয়েছিল তার সঙ্গে, যা এখনো ভুলতে পারেননি এ অভিনেত্রী।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবর, ভূমির বয়স তখন মাত্র ১৪ বছর। সদ্যই কৈশোরে পা রেখেছেন। পরিবারের সঙ্গে মেলায় ঘুরতে গিয়েছিলেন। আর সেখানেই যৌন হেনস্থার শিকার হতে হয়েছিল তাকে।

অভিনেত্রীর ভাষ্যমতে, পরিবারের সবার সঙ্গে ঘুরতে গিয়েছিলাম মেলায়। ভিড়ের মধ্যে আমার নিতম্বে কেউ হাত দেয়, চিমটি কাটে। আমাকে বারবার স্পর্শ করতে থাকে। পেছনে বারবার ফিরে তাকালেও কে এমনটা করছে, সেটা বুঝতে পারছিলাম না। ক্রমাগত আমাকে স্পর্শ করতে থাকে। আমি ভাষা হারিয়ে ফেলেছিলাম। আর সেই ঘটনা আমার কাছে দুঃস্বপ্নের মতো। যা এখনো ভুলতে পারিনি।

২০১৫ সালে আয়ুষ্মান খুরানার বিপরীতে দম লগা কে হাইশা সিনেমায় দেখা যায় ভূমিকে। এরপর ধারাবাহিকভাবে টয়লেট: এক প্রেমকথা, শুভ মঙ্গল সাবধান, লাস্ট স্টোরিজ, সোনচিড়িয়া, ষাঁড় কি আঁখ, বালা, পতী, পত্নী অওর ওহ, বধাই দো সিনেমায় দেখা যায় তাকে।

এছাড়া গত বছর তার অভিনীত দ্য লেডি কিলারথ্যাঙ্ক ইউ ফর কামিং সিনেমা মুক্তি পায়। তবে এর একটাও সফল হয়নি। আর শিগগিরই নেটফ্লিক্সে মুক্তি পেতে যাচ্ছে তার ভক্ষক। এতে একজন সাংবাদিকের চরিত্রে দেখা যাবে তাকে।

নিউজ ট্যাগ: ভূমি পেডনেকর

আরও খবর
টেইলর সুইফট ইফেক্টে আক্রান্ত সিঙ্গাপুর

বৃহস্পতিবার ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪