আজঃ বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১
শিরোনাম

চাঁদপুরে পরিবহন শ্রমিকদের বিক্ষোভ-ভাঙচুর, বাস চলাচল বন্ধ

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চাঁদপুরে সড়ক দুর্ঘটনায় গুরুতর আহত বাসচালক মিজান মোল্লার চিকিৎসায় শ্রমিক ইউনিয়নের অবহেলাজনিত মৃত্যু এবং পৌর বাস টার্মিনালের অবকাঠামোগত সমস্যা নিরসনে বিক্ষোভ ঢাকা, চট্টগ্রাম কুমিল্লাসহ কয়েকটি রুটে বাস চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বাস শ্রমিকরা।

সোমবার সকাল থেকে বিক্ষোভ চালু করে শ্রমিকরা। পরে বেলা এগারোটা থেকে সকল রুটে বাস চলাচল বন্ধের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে তারা। বিক্ষোভকারীরা এসময় সড়ক অবরোধ শ্রমিক ইউনিয়নের অফিসের আসবাবপত্র ভাঙচুর করে।

রবিবার ভোর ছয়টায় চাঁদপুর সদর উপজেলার চাঁদপুর-কুমিল্লা আঞ্চলিক সড়কের চানখার দোকান এলাকায় চাঁদপুর থেকে ঢাকাগামী পদ্মা এক্সপ্রেস বাস নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে একটি গাছে মুখোমুখি আঘাত করে। এসময় বাসে থাকা সুমনা নামের একশিশু নিহত হয় এবং গুরুতর আহত হয় আরও পাঁচজন। আহতদের মধ্যে আশঙ্কাজনক অবস্থায় বাসচালক মিজান মোল্লাকে দ্রুত ঢাকায় রেফার করেন চাঁদপুর সরকারি জেনারেল হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক। পরে রাতেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। তাকে ঢাকায় রেফার করা হলেও উন্নত চিকিৎসার জন্য শ্রমিক ইউনিয়ন এর পক্ষ থেকে কোন প্রকার সাহায্য সহযোগিতা না করায় ক্ষুব্ধ হয়ে পড়ে জেলায় কর্মরত বাস শ্রমিকরা।

পরে সোমবার সকাল থেকেই তারা বিক্ষোভ শ্রমিক ইউনিয়নের অফিস ভাঙচুর করে। জন শ্রমিক জানায়, পৌর বাস টার্মিনালের অবকাঠামোগত উন্নতি শ্রমিকের বিপদে পাশে দাঁড়ানোর দাবি নিয়ে সকাল থেকেই বিক্ষোভ চালিয়ে যান তারা।

চাঁদপুর সদর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুর রশিদ জানান, বিক্ষোভকারীদের শান্ত করতে এগিয়ে আসে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এবং তাদেরকে একটি সুষ্ঠু সমাধানের মাধ্যমে সমস্যা সমাধানের পরামর্শ দেন কর্মকর্তা।

প্রসঙ্গত, রবিবার ওই সড়ক দুর্ঘটনায় অন্যান্য গুরুতর আহত ব্যক্তিরা হলেন নিহত শিশু সুমনার বাবা মোঃ সুমন (৩৭) মা শাম্মী (৩৩), ইউনুস (৫০), মাহবুব (২৩)

বাস চলাচল বন্ধ থাকায় এসব রুটের যাত্রীরা ভোগান্তিতে পড়েছে।


আরও খবর
স্কুলের তালা খুললেই খুন করার হুমকি

শনিবার ০৪ সেপ্টেম্বর ২০২১




নভেম্বরে শুরু হবে এসএসসি পরীক্ষা

প্রকাশিত:সোমবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪৭৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনার কারণে আটকে থাকা ২০২১ সালের এসএসসি পরীক্ষা শুরু হতে পারে ১০-১২ নভেম্বরের মধ্যে। এই তিন দিনের যেকোনো একদিন থেকে পরীক্ষা শুরু করতে প্রস্তুতি নিচ্ছে শিক্ষা বোর্ডগুলো। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। পরীক্ষা শুরুর ১৫ দিন আগে রুটিন প্রকাশ করা হবে বলেও সংশ্লিষ্ট মাধ্যমে জানা গেছে।

আন্তঃশিক্ষা সমন্বয়ক বোর্ড থেকে জানা গেছে, ২০২১ সালের এসএসসি পরীক্ষার আয়োজন করতে প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে। পরীক্ষার জন্য প্রশ্নপত্র ছাপার কাজ শেষ হয়েছে। চলতি সপ্তাহে প্রশ্নপত্র জেলা পর্যায়ে পাঠানো হবে। আগামী ১০ থেকে ১২ নভেম্বরের যেকোনো দিন থেকে এ পরীক্ষা শুরু করতে চায় শিক্ষা বোর্ডগুলো। যেহেতু ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে এইচএসসি পরীক্ষা আয়োজন করা হবে, সেহেতু উল্লেখিত সময়ের মধ্যে এসএসসি পরীক্ষা শুরু করলে পরবর্তী এক মাসের মধ্যে এইচএসসি পরীক্ষা শুরুর প্রস্তুতি নেওয়া সম্ভব হবে।

জানা গেছে, করোনা পরিস্থিতির কারণে নির্ধারিত সময়ে পরীক্ষা আয়োজন করা সম্ভব না হওয়ায় গ্রুপভিত্তিক তিনটি নৈর্বাচনিক বিষয়ে সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে পরীক্ষা নেওয়ার ঘোষণা দেওয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীদের প্রশ্ন বাছাইয়ের সুযোগ বাড়ানো হবে। আগে ১০টি প্রশ্নের মধ্যে ৭-৮টির উত্তর দিতে হলেও এবার সেখানে চারটির উত্তর দিতে বলা হবে। স্বাস্থ্যঝুঁকি এড়াতে কেন্দ্রের বেঞ্চগুলোতে ইংরেজি বর্ণ জেড আকারে বসানো হবে পরীক্ষার্থীদের। কেন্দ্রে পরীক্ষার্থী, শিক্ষকসহ সবাইকে মাস্ক পরে ঢুকতে হবে। প্রবেশের ফটকে রাখা হবে হ্যান্ড স্যানিটাইজার। শিক্ষক ও পরীক্ষার্থীদের সামাজিক দূরত্ব রেখে চালাতে হবে যাবতীয় কার্যক্রম।

জানতে চাইলে আন্তঃশিক্ষা সমন্বয়ক বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এস এম আমীরুল ইসলাম বলেন, এসএসসি পরীক্ষা নেওয়ার সব ধরনের প্রস্তুতি শেষ হয়েছে।‌ আগামী ১০, ১১ বা ১২ নভেম্বর থেকে পরীক্ষা শুরুর চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে। এ সময়ে এসএসসি পরীক্ষা শুরু করতে পারলে ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হবে। পরীক্ষা শেষে পরবর্তী একমাস পর ফল প্রকাশ করা হবে। এ বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করে চলতি সপ্তাহে পরীক্ষা শুরুর দিন চূড়ান্ত করা হবে।

নিউজ ট্যাগ: এসএসসি পরীক্ষা

আরও খবর



সাকিবকে ছাড়িয়ে যাওয়ার অপেক্ষায় পরীমনি

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ ক্রিকেটের অন্যতম সেরা তারকা সাকিব আল হাসান। শুধু বাংলাদেশেরই নয়, গোটা বিশ্বের ক্রিকেট আইকন বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার।

অন্যদিকে সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে বেশি আলোচিত চিত্রনায়িকা পরীমনি। যাকে ঘিরে গত দু মাস ধরে নিয়মিত সংবাদ প্রকাশ হচ্ছে। ঢাকাই ছবির এই চিত্রনায়িকা শিগগিরই ছুঁয়ে ফেলতে যাচ্ছেন সাকিব আল হাসানকে। হয়ত সাকিবকে ছাড়িয়েও যাবেন অচিরেই।

প্রশ্ন উঠতে পারে, একজন খেলোয়াড়ের সঙ্গে একজন অভিনয়শিল্পীর প্রতিযোগিতা কী করে হচ্ছে? কোনো দিক দিয়ে ২২ গজের তারকাকে ছাড়িয়ে যাচ্ছেন রূপালি পর্দার গ্ল্যামার কুইন! দুজনের ক্ষেত্র দুটি সম্পূর্ণ আলাদা।

অবশ্য একটি জায়গায় একে অপরকে ছাড়িয়ে যাওয়ার সুযোগ রয়েছে। সেটা হলো বাংলাদেশে জনপ্রিয় সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম ফেসবুকে। দুজনেই ফেসবুকে বেশ সক্রিয়। ফেসবুকে বাংলাদেশিদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি প্রায় দেড় কোটি ফলোয়ার সাকিব আল হাসানের।

দেখা যাচ্ছে, এই মুহূর্তে ফলোয়ারের সংখ্যায় সাকিবের কাছাকাছি চলে এসেছেন পরীমনি। খুব দ্রুতগতিতেই এগুচ্ছে তার ফলোয়ার সংখ্যা।

মঙ্গলবার রাত দেড়টা পর্যন্ত ফেসবুক পেজে সাকিব আল হাসানের ফলোয়ার সংখ্যা ১ কোটি ৪৮ লাখ ৯৮ হাজার ৮৮৫। অন্যদিকে একই সময়ে পরীমনির ফলোয়ার সংখ্যা ১ কোটি ৪৪ লাখ ৮ হাজার ২২১। অর্থাৎ ৪ লাখ ৯০ হাজার ৬৬৪ পিছিয়ে পরীমনি।

এ সংখ্যা অনেক হলেও সম্প্রতি পরীমনির ফলোয়ার যে হারে বাড়ছে তাতে সাকিবকে কম সময়ের মধ্যে ধরে ফেলা অসম্ভবের কিছু নয়।

গত কয়েক মাসে তেমনটাই দেখা গেছে। ফলোয়ার বাড়ার হারে সাকিবের চেয়ে এগিয়েছিলেন পরীমনি। চলতি বছরের জুনের প্রথম দিকেও বিশ্বসুন্দরী’খ্যাত নায়িকার ফলোয়ার সংখ্যা ছিলো ১ কোটি ১৭ লাখ।

এরপর গত ৭ জুনের বোটক্লাব কাণ্ড ও ৪ আগস্ট র‌্যাবের হাতে গ্রেফতার হয়ে কারাবরণের পর হু হু করে বেড়েছে এ নায়িকার ফ্যান-ফলোয়ারের সংখ্যা।

এই সময়ের মধ্যেই পরীমনি ছাড়িয়ে যান সাকিবের সতীর্থ আরেক ক্রিকেট তারকা মুশফিকুর রহিমকে। মিস্টার ডিপেন্ডেবলের ফেসবুক ফলোয়ার সংখ্যা এখন ১ কোটি ২৯ লাখ ৯৩ হাজার ৭১৯ জন।


আরও খবর
হাইকোর্টে জামিন পেলেন মডেল মৌ

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

আমার পছন্দের পুরুষকে একটু রাফ হতে হবে

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১




আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে বিতর্কিত করতেই মুনিয়া ইস্যু?

প্রকাশিত:রবিবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১২ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মুনিয়া ইস্যুর মাধ্যমে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে বিতর্কিত করার অপচেষ্টা করা হচ্ছে। যুদ্ধাপরাধী, স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি এবং বাংলাদেশের সুশীল সমাজের একটি অংশ দীর্ঘদিন ধরেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিরুদ্ধে নানারকম অপপ্রচার এবং অপকৌশলে লিপ্ত হয়েছে। এরাই বিদেশে বাংলাদেশের আইন প্রয়োগকারী সংস্থা সম্পর্কে নানান রকম সত্য-মিথ্যা কল্পকাহিনী প্রচার করেছে। সাম্প্রতিক সময়ে লক্ষ্য করা যায় যে, বিদেশ থেকে যুদ্ধাপরাধীদের অর্থায়নে পরিচালিত বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনী সম্বন্ধে বেশুমার মিথ্যাচার এবং কুৎসিত নোংরা আক্রমণ চলছে। সেই আক্রমণের ধরায়ই আর একটি নতুন ষড়যন্ত্রের অধ্যায় মুনিয়া ইস্যু বলেই মনে করা হচ্ছে।

মুনিয়া গত ১৯ এপ্রিল গুলশানের একটি ফ্ল্যাটে মৃত্যুবরণ করেন। তার মৃত্যুর পরপরই গুলশান থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের করেন তারপর নুসরাত তানিয়া। পুলিশ তাৎক্ষণিক ভাবে এ মামলাটি গ্রহণ করে এবং তদন্ত শুরু করে। উল্লেখ্য যে, যদি আইন প্রয়োগকারী সংস্থা প্রভাব বিস্তার করতে চাইত বা আইন প্রয়োগকারী সংস্থা যদি পক্ষপাতপূর্ণ হতো তাহলে তারা তাৎক্ষণিক ভাবে মামলা গ্রহণ নাও করতে পারতো। কিন্তু সেটি করা হয়নি। বরং আমরা লক্ষ্য করেছি নির্মোহভাবে এই তদন্ত করা হয়েছে এবং প্রায় তিনমাস সার্বিক বিচার-বিশ্লেষণ করে পুলিশ চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করেছে। কিন্তু এই চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিলের পর নুসরাত এবং তার সঙ্গে মিলে যুদ্ধাপরাধী এবং সুশীল গোষ্ঠী যে কাজটি করছে সেটি সুস্পষ্টভাবে আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে টার্গেট করা। এখানে বসুন্ধরা গ্রুপ বা যে ৮ জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে তারা মূল লক্ষ্য নয়। মূল লক্ষ্য হলো আমাদের বর্তমানের পেশাদার আইন প্রয়োগকারী সংস্থাকে বিতর্কিত করা এবং তাদের সম্পর্কে বিভ্রান্তি ছড়ানো। কারণ, ৮নং নারী-শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে যে এজাহারটি দাখিল করা হয়েছে সেই এজাহারটি আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সম্পর্কে অনেকগুলো বিদ্বেষপূর্ণ এবং আপত্তিকর মন্তব্য করা হয়েছে। রাষ্ট্রীয় একটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে এরকম আক্রমণাত্মক এবং কুৎসিত নোংরা আক্রমণ হতে পারে কিনা সেটি নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

মুনিয়ার মৃত্যুর ঘটনায় নতুন করে যে মামলাটি করা হয়েছে সেই মামলাটির এজাহারে পরতে পরতে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সম্পর্কে বিষেদাগার করা হয়েছে। বলা হয়েছে যে, পুলিশ সঠিকভাবে তদন্ত করেনি, পুলিশ পক্ষপাতপূর্ণ তদন্ত করেছে। এমনকি পুলিশই নাকি তাদেরকে আত্মহত্যার প্ররোচনা মামলা করার জন্য বলেছে এবং তারা না বুঝেই করেছে। নুসরাত তানিয়া একজন মামলাবাজ মহিলা। এর আগে তিনি অনেকগুলো মামলা করেছেন বিভিন্ন বিষয়ে। কাজেই,  সেই মামলাবাজ একজন মহিলা যিনি মামলা সম্পর্কে অভিজ্ঞ, তিনি পুলিশের কথায় আত্মহত্যার প্ররোচনার মামলা করবেন এটি কতটুকু বিশ্বাসযোগ্য। কারণ নুসরাত তানিয়া এর আগে বিভিন্ন কারণে ৮টি মামলা করেছেন যার মধ্যে চারটি ফৌজদারি মামলা। বুঝাই যায় যে, তিনি এ সম্পর্কে অভিজ্ঞ। আরও মজার ব্যাপার হলো যে, নুসরাত তানিয়া যখন গুলশান থানায় গিয়েছিলেন তখন তার সঙ্গে বেশ কয়েকজন গিয়েছিল যাদের মধ্যে আইনজীবী ছিল। আইনজীবীদের সঙ্গে পরামর্শ করে তিনি একটি লিখিত এফআইআর দিয়েছিলেন। লিখিত এফআইআরে তিনি কোথাও ধর্ষণের কথা উল্লেখ করেননি। এমনকি মুনিয়াকে যে হত্যা করা হয়েছে সে কথা উল্লেখ করেননি। এতদিন পরে তাহলে হত্যা এবং ধর্ষণের কথা আসলো কিভাবে। পুরো মামলার এজাহারটি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে দেয়া হয়েছে, সেখানে পুলিশের কর্তৃত্ব এবং পুলিশের নিরপেক্ষতাকে চ্যালেঞ্জ করেছে করা হয়েছে। প্রশ্ন হচ্ছে যে, যদি নুসরাত তানিয়ার যদি পুলিশের প্রতিবেদন পছন্দ না হয় তাহলের আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করার অনেকগুলো উপায় আছে। তিনি উচ্চতর আদালতে যেতে পারেন এবং এটিই নিয়মরীতি। কিন্তু প্রতারণামূলক ভাবে আরেকটি মামলা দায়ের করা এবং সম্পূর্ণ ভিন্ন অভিযোগ আনা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত এবং এর মাধ্যমে পুলিশ বাহিনীর সম্পর্কে জনমনে বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে বলেই বিভিন্ন সূত্র মনে করছে।


আরও খবর
স্বামী হত্যায় স্ত্রীর যাবজ্জীবন

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

আদালতে হাজির করা হচ্ছে ইভ্যালির রাসেলকে

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১




২৪ ঘণ্টায় রামেক হাসপাতালে মৃত্যু বেড়ে দ্বিগুণ

প্রকাশিত:রবিবার ০৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ০৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে গত ২৪ ঘণ্টায় ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। গতকাল শনিবার সকাল ৮টা থেকে আজ রবিবার সকাল ৮টার মধ্যে তাদের মৃত্যু হয়।

হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী এ তথ্য দিয়ে জানান, মৃতদের মধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়ে ছয় জন, উপসর্গ নিয়ে তিন জন এবং করোনা পরবর্তী অসুস্থতায় এক জন মারা গেছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় মৃতদের মধ্যে রাজশাহীর চার জন, চাঁপাইনবাবগঞ্জের তিন জন, এবং নাটোর, নওগাঁ ও কুষ্টিয়ার তিন জন।

রামেকের পরিচালক আরও জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালের করোনা ইউনিটে নতুন রোগী ভর্তি হয়েছে ২৭ জন। বর্তমানে হাসপাতালের ২৮৬টি করোনা ডেডিকেটেড শয্যার বিপরীতে রোগী ভর্তি আছে ১৪৫ জন। 


আরও খবর
রামেক হাসপাতালে ৮ জনের প্রাণহানি

বুধবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১

২৪ ঘণ্টায় রাজশাহীতে আরও ৫ জনের মৃত্যু

মঙ্গলবার ২১ সেপ্টেম্বর 20২১




সমুদ্র বন্দরসমূহে তিন নম্বর সতর্ক সংকেত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরসমূহকে তিন নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে। আজ মঙ্গলবার এ তথ্য জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস। উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারসমূহকে পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি এসে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে।

আবহাওয়া অফিস জানায়, উড়িষ্যা উপকূলের অদুরে উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও এর কাছাকাছি পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত লঘুচাপটি ঘণীভূত হয়ে সুস্পষ্ট লঘুচাপ আকারে উপকূলীয় অন্ধপ্রদেশ ও এর কাছাকাছি উড়িষ্যা এলাকায় অবস্থান করছে। এর প্রভাবে উত্তর বঙ্গোপসাগর ও এর কাছাকাছি এলাকায় বায়ূচাপের তারতম্যের আধিক্য বিরাজ করছে। বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকা, উত্তর বঙ্গোপসাগর এবং সমুদ্র বন্দরসমূহের উপর দিয়ে ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

আজ সকাল থেকে পরবর্তী ২৪ ঘন্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, খুলনা, বরিশাল ও টট্টগ্রাম বিভাগের অধিকাংশ জায়গায় এবং রাজশাহী, রংপুর, ময়মনসিংহ, ঢাকা এবং সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়া ও বজ্রসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি হতে পারে। সেই সাথে দেশের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারী থেকে ভারী বর্ষণ হতে পারে। পরবর্তী তিন দিনে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা বাড়তে পারে।

আজ দেশের অভ্যন্তরীণ নদী বন্দর সমূহের জন্য আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, রাজশাহী, পাবনা টাঙ্গাইল, ময়মনসিংহ, সিলেট, ঢাকা, ফরিদপুর, যশোর, কুষ্টিয়া, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালী কুমিল্লা, চট্টগ্রাম এবং কক্সবাজার অঞ্চল সমূহের উপর দিয়ে দক্ষিণ অথবা দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ঘন্টায় ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়াসহ বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এসব এলাকার নদীবন্দর সমূহকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

আজ সকাল ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘন্টায় শ্রীমঙ্গলে সর্বোচ্চ ২৪ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। এ ছাড়া তেঁতুলিয়ায় ২২, ডিমলায় ১৯, রাজারহাটে ১৮, ও রংপুরে ১৬ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। এ সময় ঢাকায় কোন বৃষ্টি হয়নি বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অফিস।

এ ছাড়া  সারাদেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য কমতে পারে এবং রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। সোমবার সিলেটে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৬ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আজ তেঁতুলিয়ায় সর্বনিন্ম তাপমাত্রা ২৪ দশমিক শূন্য ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে।

ঢাকায় গতকাল সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৪ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। আজ ঢাকায় সর্বনিন্ম তাপমাত্রা ২৭ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়।

পূর্বাভাসে আরও বলা হয়, উড়িষ্যা উপকূলের অদুরে উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও এর কাছাকাছি পশ্চিম মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত লঘুচাপটি ঘণীভূত হয়ে সুস্পষ্ট লঘুচাপ আকারে উপকূলীয় অন্ধপ্রদেশ ও এর কাছাকাছি উড়িষ্যা এলাকায় অবস্থান করছে। এটি পশ্চিম-উত্তরপশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।

মৌসুমী বায়ূর অক্ষের বাড়তি অংশ রাজস্থান, মধ্যপ্রদেশ, সুস্পষ্ট লঘুচাপের কেন্দ্রস্থল, বিহার, গাঙ্গেয় পশ্চিম এবং বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। মৌসুমী বায়ূ বাংলাদেশের উপর মোটামুটি সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে প্রবল অবস্থায় রয়েছে।

আজ সকাল থেকে ঢাকায় দক্ষিণ অথবা দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ঘন্টায় ১০ থেকে ১৫ কিলোমিটার বেগে বাতাস প্রবাহিত হচ্ছে, যা অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়ায় ঘন্টায় ২৫ কিলোমিটার পর্যন্ত বাড়তে পারে। আজ সকালে ঢাকায় বাতাসের আপেক্ষিক আর্দ্রতা ছিল ৯৮ শতাংশ। ঢাকায় আজ সূর্যান্ত সন্ধ্যা ৬টা ১০ মিনিটে এবং আগামিকাল সূর্যোদয় ভোর ৫টা ৪৩ মিনিটে।


আরও খবর
বজ্রবৃষ্টিসহ ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে

মঙ্গলবার ২১ সেপ্টেম্বর 20২১

কোথাও কোথাও মাঝারি বৃষ্টির আভাস

রবিবার ১৯ সেপ্টেম্বর ২০২১