আজঃ বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১
শিরোনাম
মহাকাশে ভেসে খাবার খাচ্ছেন চীনা নভোচারীরা কলম্বিয়াকে ২-১ গোলে হারাল ব্রাজিল স্পেনের কারাগারে ম্যাকাফি অ্যান্টিভাইরাস আবিষ্কারকের ‘আত্মহত্যা’ আগস্টে মুক্তি পাচ্ছে চলচ্চিত্র ‘চিরঞ্জীব মুজিব’ গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহীতে আরও ১৮ জনের মৃত্যু ‘আ.লীগ হীরার টুকরা, যতবার কেটেছে নতুন করে জ্যোতি ছড়িয়েছে’ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার নামে মিথ্যাচারের প্রতিবাদে মানববন্ধন স্বাক্ষর জালিয়াতি ও তথ্য গোপন করায় ছাত্র ইউনিয়নের দুই শীর্ষ নেতা বহিষ্কার ইতিহাসে আওয়ামী লীগ, বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ ও শেখ হাসিনা সমার্থক হয়ে থাকবে: : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী পরীমনির মামলায় সেই নাসির-অমি ৫ দিনের রিমান্ডে

ছাত্রীকে ধর্ষণের পর হুমকি দিলো মাদরাসা শিক্ষক!

প্রকাশিত:বুধবার ০২ জুন 2০২1 | হালনাগাদ:বুধবার ০২ জুন 2০২1 | ১২২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
রাত প্রায় আড়াইটার দিকে মাও. মিন্টু হলরুমে প্রবেশ করে ওই ছাত্রীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে ধর্ষণ করে এবং বিষয়টি জানাজানি না করার জন্য হুমকি দেয়

বগুড়ার শিবগঞ্জে সপ্তম শ্রেণির এক মাদরাসা ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে মাও. আবদুর রহমান মিন্টু (৩২) নামের এক মাদরাসা অধ্যক্ষকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। গ্রেপ্তার মিন্টু শিবগঞ্জ উপজেলার বিহার ইউনিয়নের পার লক্ষ্মীপুর চাঁনপাড়া গ্রামের মৃত সোলাইমান আলীর ছেলে এবং শিবগঞ্জ পৌর এলাকায় অবস্থিত বানাইল কলেজ পাড়া মহল্লার হযরত ফাতেমা (রা.) হাফেজিয়া মহিলা মাদরাসার মুহতামিম (অধ্যক্ষ)।

মঙ্গলবার (১ জুন) বিকেলে থানায় দায়ের হওয়া একটি ধর্ষণ মামলায় রাতেই শিবগঞ্জ এলাকা থেকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে তাকে। বুধবার (২ জুন) দুপুরে এ তথ্য নিশ্চিত করেন শিবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সিরাজুল ইসলাম।

পুলিশ সূত্র জানায়, হযরত ফাতেমা (রা.) হাফেজিয়া মহিলা মাদরাসাটি আবাসিক। সেখানে আরও ১১ থেকে ১২ জন ছাত্রী একসঙ্গে হলরুমে থাকতো। তাদের সঙ্গে ভুক্তভোগী ছাত্রীও লেখাপড়া করতো। সে হলরুমের পাশেই পরিবারের সঙ্গে বসবাস করেন অধ্যক্ষ মাও. আবদুর রহমান মিন্টু। রবিবার (৩০ মে) ছাত্রীরা সবাই রাতের খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পড়ে। রাত প্রায় আড়াইটার দিকে মাও. মিন্টু হলরুমে প্রবেশ করে ওই ছাত্রীকে ভয়ভীতি দেখিয়ে ধর্ষণ করে এবং বিষয়টি জানাজানি না করার জন্য হুমকি দেয়। কিন্তু ওই ছাত্রী বিষয়টি তার পরিবারকে জানায়। পরে পরিবার থেকে মামলা করা হয় ওই অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে।

শিবগঞ্জ থানার অফিসার ইনচার্জ( ওসি) সিরাজুল ইসলাম জানান, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে অভিযুক্ত মিন্টু ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে। সে এর আগেও মাদরাসার আরও একাধিক ছাত্রীকে ধর্ষণ করেছে বলে জানিয়েছে। তবে তারা আত্মসম্মানের ভয়ে আইনের আশ্রয় নেয়নি।


আরও খবর



‘যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এসএসএফ প্রশিক্ষিত এবং দক্ষ হবে’

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | ১১৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

প্রতিনিয়ত প্রযুক্তির আধুনিকায়ন এবং অপরাধের ধরন পরিবর্তনের কথা তুলে ধরে তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সের (এসএসএফ) দক্ষতা ও প্রশিক্ষণ বৃদ্ধির কথা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, আমাদের সব সময় চেষ্টা ছিল, আধুনিক জগতের সঙ্গে তালমিলিয়ে আমাদের এই বিশেষ বাহিনীও সেভাবে প্রশিক্ষিত হবে এবং তাদের দক্ষতাও সবসময় বৃদ্ধি পাবে।

আজ মঙ্গলবার (১৫ জুন) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত বিশেষ এই বাহিনীটির ৩৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন অনুষ্ঠানে যুক্ত হয়ে তিনি এ কথা বলেন। অনুষ্ঠানে গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সংযুক্ত হন তিনি।

তিনি বলেন, একেক সময় একেক ধরনের সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের উৎপত্তি হয়। সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের ধরনটাও পাল্টায়। আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে আমরা যেমন আধুনিক জীবনমান উন্নত করতে পারি, তেমনি আবার অপরাধীরাও; যারা সন্ত্রাস-জঙ্গিবাদের সঙ্গে জড়িত, তারাও কিন্তু এই প্রযুক্তিই ব্যবহার করে নতুনভাবে অপরাধ করে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, আধুনিক প্রযুক্তি আমরা ব্যবহার করছি। তাতে জীবন গতিশীল হচ্ছে, কর্মক্ষেত্র বিস্তৃত হচ্ছে। আমাদের সুযোগ দিচ্ছে। সেই সাথে সাথে অপরাধীরাও সুযোগ পাচ্ছে, জঙ্গিরাও সুযোগ পাচ্ছে।

বিশেষ এই বাহিনীর দক্ষতা বৃদ্ধিতে নিয়মিতই দেশে-বিদেশে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হয়েছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী। ভবিষ্যতেও এ ধরনের সুযোগ থাকবে বলেও আশ্বাস দেন তিনি।

এসএসএফ-এর সদস্যদের দক্ষতার প্রশংসা করে শেখ হাসিনা বলেন, শুধু আমাদের দেশের রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রী নয়, বিদেশি অতিথিরা আসলেও তাদের নিরাপত্তা দেওয়া- এটা একটা কঠিন দায়িত্ব। তবে আমি ধন্যবাদ জানাই, অভিনন্দন জানাই, যখনই যিনি (অতিথি) এসেছেন আমাদের এসএসএফ সদস্যরা এতো চমৎকারভাবে তাদের নিরাপত্তার ব্যবস্থা করেছেন তাদের (বিদেশি অতিথি) প্রত্যেকেই প্রশংসা করেছেন। সকলেই এসএসএফ সদস্যদের দক্ষতা এবং আন্তরিকতা দেখে মুগ্ধ হয়েছেন।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী এবং জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনে এসএসএফের ভুমিকার প্রশংসা করেন প্রধানমন্ত্রী। অনুষ্ঠানে জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষ্যে স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সের পক্ষ থেকে ১০০টি গৃহহীন পরিবারের জন্য দুই কোটি টাকার একটি ব্যাংক ড্রাফট প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট হস্তান্তর করেন বাহিনীর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. মজিবুর রহমান।

মুজিববর্ষে স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সের ৩৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর স্মারক হিসেবে এসএসএফ-এর মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মো. মজিবুর রহমান সম্পাদিত মুজিব-বাঙালি-বাংলাদেশ নামে একটি ই-বুক উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী।

রাষ্ট্র ও সরকার প্রধান এবং সরকার ঘোষিত অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের নিরাপত্তার জন্য ১৯৮৬ সালে রাষ্ট্রপতি নিরাপত্তা বাহিনী গঠিত হয়। পরবর্তীকালে এই বাহিনীকে স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্স হিসেবে নতুন নামকরণ করা হয়। বাংলাদেশ সেনা, নৌ, বিমান, পুলিশ ও আনসার বাহিনী থেকে প্রেষণে নিযুক্ত কর্মকর্তাদের নিয়ে স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্স গঠিত।


আরও খবর



ঘূর্ণিঝড় ইয়াস : প্রবল জলোচ্ছ্বাসে ভাসছে দিঘা

প্রকাশিত:বুধবার ২৬ মে ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৬ মে ২০২১ | ১১২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ভারতের ওড়িশায় আঘাত হেনেছে অতি শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ইয়াস। তবে স্থলভাগে আছড়ে পড়ার অনেক আগে থেকেই তার প্রভাব পড়তে শুরু করেছে দিঘায়। বুধবার সকালেই পানিতে ডুবে যায় দিঘার একাধিক এলাকা। পানি ঢুকতে শুরু করেছে মূল রাস্তায়। আতঙ্কে বাড়ি ছাড়ছেন অনেক বাসিন্দা। খবর আনন্দবাজারের।

মঙ্গলবার রাত থেকেই দিঘায় বৃষ্টি শুরু হয়েছিল। সমুদ্রে ঢেউয়ের উচ্চতাও বাড়ছিল। সময় যত এগিয়েছে তত বৃষ্টির তীব্রতা বেড়েছে। সেই সঙ্গে দিঘা ও নিউ দিঘায় গার্ডরেল ছাপিয়ে পানি ঢুকতে শুরু করে। তার ফলে বুধবার সকালেই পানিতে ডুবে যায় মূল শহর। এমনকি দিঘা থানাও ডুবে গেছে।

অনেক আগে থেকেই দিঘায় উপকূল ভর্তি এলাকার বাসিন্দাদের সরিয়ে নিয়েছে প্রশাসন। কিন্তু শহরের বাসিন্দারা বাড়িতেই ছিলেন। যদিও দিঘায় ভেতরে পানি ঢুকতে শুরু করায় অনেকেই আতঙ্কে বাড়ি ছেড়ে একটি শিবিরে আশ্রয় নিয়েছেন। পানি ঢুকেছে সৈকত শহরের অনেক হোটেলেও। পরিস্থিতি মোকাবিলায় নামানো হয়েছে সেনা।


আরও খবর



ঋতুস্রাবের সময় অসহ্য ব্যথা নিরসনে যা করা উচিত

প্রকাশিত:বুধবার ০২ জুন 2০২1 | হালনাগাদ:বুধবার ০২ জুন 2০২1 | ১২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মেয়েদের মাসিক শুরুর পর তাকে কাউন্সিলিংয়ের পাশাপাশি অন্তত ছয় মাস পর্যবেক্ষণে রাখার জন্য পরামর্শ দিচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের কৈশোর বান্ধব স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্রের অধ্যাপক শিউলী চৌধুরী বলছেন, জীবনের শুরুতে ভয় বা মাসিক সংক্রান্ত সমস্যা কাটিয়ে ওঠার সঙ্গে মেয়েদের মানিয়ে নিতে সহায়তা করবে।

মাসিকের সময় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ অনেক মেয়ের জন্যই খুবই কষ্টদায়ক হয়ে দাঁড়ায়। আবার অনেকে স্বাভাবিকের থেকে অনেক বেশি সময় ধরে তলপেটে প্রচুর ব্যথা অনুভব করেন।

মেয়ে এবং তার পরিবারের করণীয়: অধ্যাপক শিউলি চৌধুরীর মতে প্রথমত কাউন্সিলিং প্রয়োজন। দ্বিতীয়ত তাকে পর্যাপ্ত পরিমাণ সুষম ও পুষ্টিকর খাবার খেতে হবে এবং তৃতীয়ত বিশ্রাম। এমন পরিস্থিতিতে এসব বিষয়গুলো নিশ্চিত করতে হবে।

তিনি আরও বলছেন, প্রচুর রক্তক্ষরণের ফলে রক্তস্বল্পতা হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ না করলে পরে জটিল সমস্যা হতে পারে। তাই এই সময় পুষ্টিকর বিশেষ করে আয়রন সমৃদ্ধ খাবার অধিক পরিমাণ খেতে হবে। মাসিকের সময় মেয়েদের শরীর থেকে ভিটামিন ও খনিজ বের হয়। তাই এই সময় চিকিৎসক বা পুষ্টিবিদের সঙ্গে কথা বলে সুষম খাদ্যের তালিকা করা উচিত।

এ বিষয়ে মায়েদের উচিত মেয়ের সমস্যার শুরু থেকেই খোলামেলা আলাপ করা এবং কাউন্সিলিংয়ের মাধ্যমে ৬ মাস পর্যন্ত ক্যালেন্ডার বা গণনার মাধ্যমে মাসিকের সময়কাল পর্যবেক্ষণ করে ডায়েরিতে নোট করা।

এ অধ্যাপকের মতে, মাসিকের সময় মেয়েদের শরীরে হরমোনাল পরিবর্তন হয়ে থাকে। অনেকের নিয়মিত মাসিক হলেও কারও কারও ক্ষেত্রে দেরি করে হয়ে থাকে। আবার অনেকের রক্তক্ষরণ বেশি হয় যা রক্তস্বল্পতার কারণ হয়ে দাঁড়ায়। তাই এই সময় উদ্বিগ্ন না হয়ে পরিচর্যা করা উচিত।

মাসিককে কেন্দ্র করে মেয়েদের শরীরের পরিচর্যার কিছু বিষয়কে বিবেচনায় রাখার জন্য বলছেন এ বিশেষজ্ঞ। বিষয়গুলো হলো-

পুষ্টিকর খাবার বিশেষ করে আয়রন সমৃদ্ধ খাবার গ্রহণ।

হাইজিন সম্পর্কে ধারণা।

পর্যাপ্ত বিশ্রাম।

খাবারে পর্যাপ্ত প্রোটিন ও ভিটামিন নিশ্চিত করা।

প্রয়োজনে কৈশোরবান্ধব স্বাস্থ্য সেবা কেন্দ্রের সহায়তা নেয়া।

ইউনিসেফের পরামর্শ :

বাবা-মা ও পরিবারের অন্য নারীদের সঙ্গে কথা বলা।

স্যানিটারি ন্যাপকিন বা পরিষ্কার কাপড় ব্যবহার করা এবং অভিজ্ঞদের কাছে ব্যবহার বিধি জেনে নেয়া।

মাসিকের সময় ব্যবহৃত পোশাক নোংরা পানিতে না ধোয়া বরং সাবান ও পরিষ্কার পানি দিয়ে ভালো করে ধোয়া।

মাসিকের কাপড় অন্ধকার ও স্যাঁতস্যাঁতে জায়গায় না শুকিয়ে বরং পরিষ্কার জায়গায় রোদে শুকানো ও নিরাপদ জায়গায় সংরক্ষণ।

পুষ্টিকর খাবার বিশেষ করে দুধ, মাছ, মাংস, ডিম, শাক সবজি ও ফলমূল খেতে হবে। অন্য সময়ের তুলনায় বেশি খাবার খাওয়া।

তলপেটের ব্যথার সময় বোতলে গরম পানি নিয়ে স্যাক দিলে আরাম পাওয়া যাবে।

অতিরিক্ত ব্যথা বা সংরক্ষণ হলে চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে।

বিশ্রামে থাকতে হবে, তবে স্কুলে যাওয়া বা ঘরের কাজ করার মতো স্বাভাবিক কাজ করা অব্যাহত রাখা।

মাসিকের সময় চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে কিছু ব্যায়াম শরীর ও মনকে ভালো রাখতে পারে।


নিউজ ট্যাগ: ঋতুস্রাব

আরও খবর
বাবার জন্য ভালোবাসা

রবিবার ২০ জুন ২০21




প্রশাসনে তিন লাখ ৮০ হাজার পদ শূন্য

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১ | ১১২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
শূন্যপদের মধ্যে ৪৬ হাজার ৬০৩টি প্রথম শ্রেণির, ৩৯ হাজার ২৮টি দ্বিতীয় শ্রেণির, এক লাখ ৯৫ হাজার ৯০২টি তৃতীয় শ্রেণির এবং ৯৯ হাজার ৪২২টি চতুর্থ শ্রেণির পদ রয়েছে

বর্তমানে প্রশাসনে মোট তিন লাখ ৮০ হাজার ৯৫৫টি পদ শূন্য রয়েছে। মঙ্গলবার প্রকাশিত স্ট্যাটিসটিকস অব সিভিল অফিসার্স অ্যান্ড স্টাফস-২০২০ বই থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

২০২০ সালের জনপ্রশাসনের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পরিসংখ্যান নিয়ে আলোচিত ওই বইয়ে পাওয়া তথ্যমতে, প্রশাসনে মোট অনুমোদিত পদের সংখ্যা ১৮ লাখ ৮৫ হাজার ৮৬৮টি। এর মধ্যে ১৫ লাখ ৪ হাজার ৯১৩টি পদে লোকবল রয়েছে।

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সংস্কার ও গবেষণা অনুবিভাগের পরিসংখ্যান ও গবেষণা কোষ এ বইটি প্রকাশ করেছে।

এতে বলা হয়, শূন্যপদের মধ্যে ৪৬ হাজার ৬০৩টি প্রথম শ্রেণির, ৩৯ হাজার ২৮টি দ্বিতীয় শ্রেণির, এক লাখ ৯৫ হাজার ৯০২টি তৃতীয় শ্রেণির এবং ৯৯ হাজার ৪২২টি চতুর্থ শ্রেণির পদ রয়েছে।

মন্ত্রণালয় ও বিভাগ পর্যায়ে ১৭ হাজার ৭৩৯টি পদের মধ্যে শূন্য পাঁচ হাজার ৬৮টি, সংস্থা ও অধিদফতর পর্যায়ে ১৪ লাখ ৯ হাজার ৬২৬টি পদের মধ্যে শূন্য দুই লাখ ৩৩ হাজার ৩৩৬টি। বিভাগীয় কমিশনার, জেলা প্রশাসক, উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও সহকারী কমিশনারের (ভূমি) অফিসে ১৪ হাজার ৮৫১টি পদ খালি রয়েছে, এখানে মোট পদের সংখ্যা ৪৭ হাজার ৩৩টি।

গত ডিসেম্বর পর্যন্ত স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান এবং করপোরেশনগুলোতে চার লাখ ১১ হাজার ৪৭০টি পদের মধ্যে এক লাখ ২৭ হাজার ৭০০টি পদ খালি ছিল।


আরও খবর



সাকিব-মিরাজের জোড়া আঘাত, বিপাকে শ্রীলংকা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ মে ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৫ মে ২০২১ | ১২৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শরিফুল ইসলাম ও মোস্তাফিজুর রহমানের পর বল হাতে আঘাত হানলেন সাকিব আল হাসান ও মেহেদী হাসান মিরাজ। টাইগারদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের সামনে ৪ উইকেট হারিয়ে এরইমধ্যে ব্যাটিং বিপর্যয়ের মুখে পড়েছে শ্রীলঙ্কা।

 সাকিবের কুইকারে বিভ্রান্ত হয়ে পুল করেছিলেন পাথুম নিসাঙ্কা। কিন্তু বল বাতাসে ভাসা অবস্থায় পেছন দিকে কিছুটা দৌড়ে তালুবন্দি করেন মিড উইকেটে থাকা তামিম ইকবাল। ফলে শেষ হয় নিসাঙ্কার ৩৬ বলে ২০ রানের ইনিংস। এরপর মিরাজের বলে লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন কুশল মেন্ডিস (১৫)। তবে মেন্ডিস অবশ্য রিভিউ নিয়েছিলেন। কিন্তু তাতেও কাজ হয়নি।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ২৩ ওভার শেষে ৪ উইকেট হারিয়ে শ্রীলঙ্কার সংগ্রহ ৮৬ রান।

লঙ্কান ইনিংসের শুরুতে আঘাত হানেন অভিষেক ওয়ানডে ম্যাচ খেলতে নামা শরিফুল। তার প্রথম শিকার হন শ্রীলঙ্কার অধিনায়ক কুশল পেরেরা। বাংলাদেশের তরুণ পেসারের তৃতীয় ওভারে তুলে মারতে গিয়ে তামিম ইকবালের হাতে ক্যাচ তুলে দেন লঙ্কান ওপেনার। ওয়ানডেতে এটাই শরিফুলের প্রথম উইকেট। বিদায়ের আগে কুশলের ব্যাট থেকে আসে ১৫ বলে ১৪ রান।

শুরুর সেই ধাক্কা ধীরে ধীরে সামলে উঠছিল শ্রীলঙ্কা। ১ উইকেট হারিয়ে তাদের দলীয় সংগ্রহ ৫০ রান পেরিয়ে গিয়েছিল। কিন্তু ঠিক এমন সময় আঘাত হানেন মোস্তাফিজুর রহমান।

ফিজের করা ইনিংসের ১৪তম ওভারের শেষ বলে স্কয়ার কাট করেছিলেন দানুশকা গুনাথিলাকা। কিন্তু বল গিয়ে জমা হয় ডিপ পয়েন্টে থাকা সাকিবের তালুতে। আউট হওয়ার আগে লঙ্কান ওপেনারের ব্যাট থেকে আসে ৪৬ বলে ২ বাউন্ডারিতে সাজানো ২৪ রানের ইনিংস।

এর আগে শুরুতে ব্যাট করে মুশফিকুর রহিমের ১২৫ রানের অসাধারণ ইনিংসে ভর করে সব উইকেট হারিয়ে ২৪৬ রানের সংগ্রহ পায় বাংলাদেশ।


আরও খবর
কলম্বিয়াকে ২-১ গোলে হারাল ব্রাজিল

বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১