আজঃ বৃহস্পতিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২১
শিরোনাম

চমেকের ৩০ শিক্ষার্থী বহিষ্কার, ক্লাস শুরু ২৭ নভেম্বর

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৩ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৩ নভেম্বর ২০২১ | ৪৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
কলেজে সভা-সমাবেশও নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। কেউ আইন ভাঙলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ছাত্রীদের হল খুলে দেওয়া হবে। ছাত্রদের হল বন্ধ থাকবে

চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজে (চমেক) ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় বিভিন্ন মেয়াদে ৩০ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এছাড়া ২৭ নভেম্বর প্রতিষ্ঠানটি খুলে দেওয়া হচ্ছে। এ সময় মেয়েদের ছাত্রাবাস চালু করলেও ছেলেদের ছাত্রাবাস বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে চমেক কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার ( ২৩ নভেম্বর) চমেক একাডেমিক কাউন্সিলের সভায় এসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।  বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চমেক অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. সাহেনা আক্তার।

চমেক অধ্যক্ষ বলেন, ৩০ জনকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার করা হয়েছে। এরমধ্যে ৮ জনকে দুই বছর, দুজনকে দেড় বছর ও ২০ জনকে এক বছরের জন্য বহিস্কার করা হয়েছে। তারা কলেজের শিক্ষার পরিবেশ নষ্ট করেছে। সভা সমাবেশ নিষিদ্ধ থাকলেও তারা তা করেছে। এছাড়া নিজেদের মধ্যে সংঘর্ষে জড়িয়েছে। এসব কারণে তাদের বহিষ্কার করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, কলেজে সভা-সমাবেশও নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। কেউ আইন ভাঙলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ছাত্রীদের হল খুলে দেওয়া হবে। ছাত্রদের হল বন্ধ থাকবে। এছাড়া ছেলেদের হলের সিট বরাদ্দ বাতিল করা হয়েছে। নতুন করে সিট বরাদ্দ দিয়ে হল খোলা হবে। এর জন্য আবেদন করতে হবে। কলেজ খোলা থাকলেও ছেলেদের হল বন্ধ থাকবে।

গত ২৯ অক্টোবর রাত ও ৩০ অক্টোবর চমেক ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। এরপর অনির্দিষ্টকালের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও হল বন্ধ ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ।

এর আগে, সোমবার (২১ নভেম্বর) সংঘর্ষের ঘটনায় তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে কমিটি। তদন্ত কমিটির প্রধান চমেকের সার্জারি বিভাগের অধ্যাপক ডা. মতিউর রহমান খান চমেকের অধ্যক্ষের কাছে প্রতিবেদন জমা দেন। এ সময় তদন্ত দলের পাঁচ সদস্য উপস্থিত ছিলেন।

বিষয়টি নিশ্চিত করে চমেকের অধ্যক্ষ ডা. সাহেনা আক্তার বলেন, প্রতিবেদনে কিছু পর্যবেক্ষণ দেওয়া হয়েছে। কোনো সুপারিশ করা হয়নি। সংঘর্ষের ঘটনার জন্য ছাত্রলীগের দুই পক্ষকে দায়ী করা হয়েছে। তদন্ত কমিটি মূলত ওই দিনের সংঘর্ষে আহত ও প্রত্যক্ষদর্শী ছাত্রদের সাক্ষ্যের ভিত্তিতে প্রতিবেদন তৈরি করেছে।

উল্লেখ্য, ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের ওই সংঘর্ষে মাহাদি জে আকিব নামের এক শিক্ষার্থী মারাত্মকভাবে আহত হন। চিকিৎসকরা তখন জানান যে আকিবের মাথার হাড় ভেঙে গেছে এবং মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ হয়েছে। পরে অপারেশন করে তার মাথার হাড়ের একটি অংশ খুলে পেটের চামড়ার নিচে রাখা হয়। ওই হাড় আরেকটি অপারেশনের মাধ্যমে আগের জায়গায় প্রতিস্থাপন করা হবে বলে জানান চিকিৎসকরা।

আহত আকিব দীর্ঘদিন হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসা শেষে গত বৃহস্পতিবার বাড়ি ফিরেছেন। ৩০ অক্টোবরের সংঘর্ষের পর অনির্দিষ্টকালের জন্য চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ ও হল বন্ধ ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ।

আকিবের আহত হওয়ার ঘটনায় ১৬ জনকে আসামি করে ৩০ অক্টোবর রাতে পাঁচলাইশ থানায় মামলা দায়ের করেন কলেজের পঞ্চম বর্ষের ছাত্র তৌফিকুর রহমান। এ মামলায় কয়েকজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।


আরও খবর



বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের স্মারকলিপি পর্যালোচনার পর সিদ্ধান্ত: আইনমন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৩ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৩ নভেম্বর ২০২১ | ১৫৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ পাঠানোর দাবিতে বিএনপিপন্থী আইনজীবীদের দেওয়া স্মারকলিপিটি পর্যালোচনা করে দেখবেন বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক।

মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) সচিবালয়ে আইনমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বিএনপিপন্থী আইনজীবী ফজলুর রহমান, এ জে মোহাম্মদ আলী, জয়নুল আবেদীন, নিতাই রায় চৌধুরী, আহমেদ আজম  খান, এ এম মাহবুব উদ্দিন খোকন, মাসুদ আহমেদ তালুকদার, তৈমূর আলম খন্দকার, বদরুদ্দোজা চৌধুরী, রুহুল কুদ্দুস কাজল বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে বিদেশ পাঠানোর দাবিতে তাকে স্মারকলিপি দেন।

স্মারকলিপিটি গ্রহণ করে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক জানান, স্মারকলিপি পর্যালোচনা করে সিদ্ধান্ত ও মতামতের জন্য আলোচনা ও সময়ের প্রয়োজন। আমি একটা কথা স্মরণ করিয়ে দিতে চাই, যখন খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হয়, তখন কিন্তু উনার পরিবারের যে আবেদনসেটা মানবিক দিক বিবেচনায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেখেছেন। তখন কিন্তু কোনও দাবি তুলতে হয়নি, প্রধানমন্ত্রী নিজেই করেছেন। সে ক্ষেত্রে মানবিকতার কমতি আমাদের নেই। আমরা মানবিকতা দেখাতে জানি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাও মানবিকতা দেখাতে জানেন।

আইনমন্ত্রী বিএনপি নেতাদের বলেন, ৪০১ ধারার আলোচনায় আমি এখন যেতে চাই না। আমাদের স্বাভাবিক আইনে মতপার্থক্য থাকবে। আমারও আপনাদের সঙ্গে আইনের বিষয়ে মতপার্থক্য আছে। আপনারা যে ৪০১ ধারা, উপধারার কথা বলেছেন, সেখানে আপনারা বলেছেনকোথাও বিদেশ যাওয়া যাবে না, কথাটি বলা নেই। সেখানে বিদেশ যাওয়ার বিষয়ে বলা না থাকলেও একটা কথা বলা আছে। সেটা হলো, শর্তযুক্ত বা শর্তমুক্ত। সেখানে দুটি শর্ত দেওয়া হয়েছে। আমি সে আইনের দিকে যাবো না। আপনারা যে স্মারকলিপি দিয়েছেন, সেটা আমি অবশ্যই পর্যালোচনা করবো। তবে সিদ্ধান্ত ও মতামতের ব্যাপারে আলোচনার প্রয়োজন আছে, সেটা আমরা করবো।

উল্লেখ্য, শারীরিক বিভিন্ন জটিলতা নিয়ে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) চিকিৎসাধীন রয়েছেন খালেদা জিয়া। তিনি জীবন-মৃত্যুর সন্ধিক্ষণে আছেন জানিয়ে তাকে বিদেশ পাঠাতে জোর তৎপরতা চালাচ্ছে বিএনপি।



আরও খবর



স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে ৫ রাজনৈতিক দলের স্মারকলিপি

প্রকাশিত:রবিবার ২১ নভেম্বর 20২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২১ নভেম্বর 20২১ | ৫১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালকে স্মারকলিপি দিয়েছেন ২০-দলীয় জোটের শরিক পাঁচটি দলের নেতারা।

রোববার দুপুরে জোটের একটি প্রতিনিধিদল সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করে এ স্মারকলিপি দেয়।

ন্যাশনাল পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, বিদেশে খালেদা জিয়ার সুসিকিৎসার জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে আমরা স্মারকলিপি দিয়েছি। তিনি স্মারকলিপিটি আন্তরিকতার সঙ্গে গ্রহণ করেছেন। এ বিষয়ে তিনি প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করবেন বলে জানিয়েছেন।   

এর আগে কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল (অব.) সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিমের নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলটি সচিবালয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কার্যালয়ে যায়।

প্রতিনিধিদলে আরও উপস্থিত ছিলেন ন্যাশনাল ডেমোক্রেটিক পার্টির চেয়ারম্যান কারি এমএ তাহের, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির একাংশের মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম, বাংলাদেশ জাতীয় দলের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সৈয়দ এহসানুল হুদা।


আরও খবর



র‌্যাবের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই জন নিহত

প্রকাশিত:সোমবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২১ | ৩৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কক্সবাজারের চকরিয়ার র‌্যাবের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে দুই জন নিহত হয়েছেন। র‌্যাবের দাবি নিহতরা ডাকাত দলের সদস্য। এসময় ঘটনাস্থল থেকে তিনটি অস্ত্র, ৬ রাউন্ড গুলি, চার রাউন্ড কার্তুজ উদ্ধার করা হয়।

সোমবার (৬ ডিসেম্বর) ভোর চকরিয়া উপজেলার পুর্ব বড় ভেওলা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার র‌্যাব-১৫ এর সিপিসি কমান্ডার মেজর শেখ ইউসূফ আহমেদ। তবে তাৎক্ষণিকভাবে নিহতদের নাম পরিচয় জানা যায়নি। তবে তাদের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা থাকার কথা জানিয়েছে র‌্যাব।

র‌্যাব-১৫ এর সিপিসি কমান্ডার মেজর শেখ ইউসূফ আহমেদ বলেন, সোমবার ভোররাতে পূর্ব বড় ভেওলা এলাকায় একটি সংঘবদ্ধ ডাকাত দল ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছিল। এমন খবরে অভিযানে যায় র‌্যাব। আমাদের অবস্থান টের পেয়ে গুলি চালাতে থাকে ডাকাতরা। আত্মরক্ষার্থে র‌্যাবও গুলি চালায়। গোলাগুলি থেমে গেলে ঘটনাস্থল থেকে দুইজনকে জীবিত আটক করতে সক্ষম হই। পরবর্তী তল্লাশিতে আরও দুইজনকে পড়ে থাকতে দেখা যায়। তাদের চকরিয়া হাসপাতালে নেয়া চিকিৎসক মৃত বলে ঘোষণা করে।

তিনি আরও জানান, ঘটনাস্থল তল্লাশি করে তিনটি দেশীয় তৈরি অস্ত্র, ৬ রাউন্ড গুলি, ৪ রাউন্ড কার্তুজসহ নানা সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়। নিহতদের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানো হচ্ছে।


আরও খবর
চট্টগ্রামে পাট গুদামে ভয়াবহ আগুন

বৃহস্পতিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২১




জলপথে শিশু পাচার প্রতিরোধে নৌকায় মানববন্ধন

প্রকাশিত:শনিবার ২০ নভেম্বর ২০21 | হালনাগাদ:শনিবার ২০ নভেম্বর ২০21 | ৪২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

জবি প্রতিনিধি:

জলপথে শিশু পাচার প্রতিরোধে জনসচেতনতা তৈরির লক্ষ্যে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনালে নৌকায় মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করেছে লোকাল এডুকেশন এন্ড ইকোনোমিক ডেভেলপমেন্ট অর্গানাইজেশন - লিডো।

শনিবার (২০ নভেম্বর) রাজধানীর সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল সংলগ্ন ওয়াইজঘাটে নৌকায় দাঁড়িয়ে এ মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করা হয়।

এসময় শিশু পাচার রোধে রুখে দাঁড়াবো একসাথে; আইনের হাতে দিবো তুলে শিশু পাচার যারা করে; আমরা কারো দেওয়া কিছু খাব না; আমরা পাচার হব না; পাচার রোধে এক হই স্লোগানে মুখরিত হয়ে উঠে সদরঘাট লঞ্চ টার্মিনাল এলাকা।

শিশু পাচার বন্ধ করি, সুখি সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ি এই প্রতিপাদ্যে লিডো বাংলাদেশে শিশু পাচার প্রতিরোধে ইফেক্টিভ এ্যাওয়ারনেস অন এ্যান্টি ট্র্যাফিকিং প্রোগ্রাম নামক একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করে আসছে। যার মাধ্যমে পাচারের ঝুঁকিতে থাকা শিশুদের সুরক্ষায় সচেতনতা তৈরিতে বিভিন্ন কর্মকান্ড পরিচালনা করা হচ্ছে। উক্ত প্রকল্পের অংশ হিসেবে ব্যতিক্রমী এই মানববন্ধনের আয়োজন করে লিডো।

মানববন্ধনে শিশু পাচার কী এবং কীভাবে হয়, শিশু পাচারের ভয়াবহতা, পাচারকারীদের কীভাবে শনাক্ত করতে পারি এবং পাচারকারীদের থেকে সাবধান থাকার উপায়সহ নৌপথে কর্মরত বিভিন্ন লোকজন যেমন- আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, লঞ্চ পরিবহনে কর্মরত বিভিন্ন কর্মকর্তা ও কর্মচারি, যাত্রী, স্থানীয় লোকজন এবং শিশুদের মাঝে সচেতনতামূলক বার্তা পৌঁছে দেয়া হয়।

এছাড়াও শিশু পাচার প্রতিরোধে সচেতনতামূলক বার্তা সম্বলিত প্রচারপত্র (লিফলেট) বিতরণ করা হয়।

মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন সদরঘাট নৌ থানার পক্ষ থেকে এ. এস. আাই সিরাজুল ইসলাম, নায়েক রুহুল আমীন এবং বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন ট্রাফিক ইন্সপেক্টর দিনেশ কুমার সাহাসহ বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার প্রতিনিধিগণ। এছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন উক্ত আয়োজনের সমন্বয়ক এবং লিডোর তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম, টিএসএসবি প্রকল্প কদমতলী শাখার সিনিয়র সোশ্যাল মোবিলাইজার নাজিরুল ইসলাম অপুসহ কদতমতলী টিম এর সদস্যবৃন্দ।


আরও খবর



ষষ্ঠবারের মতো ট্যাক্স কার্ড ও সম্মাননা পেলো ইস্ট-ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ

প্রকাশিত:বুধবার ২৪ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ নভেম্বর ২০২১ | ৪১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) দীর্ঘ মেয়াদি ও সর্বোচ্চ করদাতা হিসেবে ট্যাক্স কার্ড ও সম্মাননা পুরস্কার পেলো বসুন্ধরা গ্রুপের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান ইস্ট-ওয়েস্ট মিডিয়া গ্রুপ লিমিটেডসহ (ইডব্লিউএমজিএল) ১৪১ ব্যক্তি প্রতিষ্ঠান।

বুধবার (২৪ নভেম্বর) রাজধানীর অফিসার্স ক্লাবে দেশের ব্যবসায়ী শিল্পপতিদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআই সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিমের হাত থেকে ইডব্লিউএমজিএলের কার্ড ও সম্মাননা গ্রহণ করেন বসুন্ধরা গ্রুপের (সেক্টর-বি) হেড অফ ফাইন্যান্স নুরে আলম সিদ্দিকী।

অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের সিনিয়র সচিব ও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অর্থ আ হ ম মুস্তফা কামাল ও এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন।

প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়া ক্যাটাগরিতে ইডব্লিউএমজিএল পরপর গত পাঁচ বছরের ধারাবাহিকতায় এবার ষষ্ঠবারের মতো সেরা করদাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে পুরস্কার পেলো।

ইডব্লিউএমজিএল-এর মালিকানাধীন গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান হচ্ছে- অনলাইন নিউজ পোর্টাল বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম, দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন, দৈনিক কালের কণ্ঠ, ইংরেজি পত্রিকা ডেইলি সান, টেলিভিশন চ্যানেল নিউজটোয়েন্টিফোর, টি স্পোর্টস এবং রেডিও ক্যাপিটাল ৯৪.৮।  


আরও খবর
শেয়ারবাজারে মূল্যসূচকের বড় উত্থান

মঙ্গলবার ০৭ ডিসেম্বর ২০২১

সূচকের উত্থানে লেনদেন শেষ হয়েছে

সোমবার ০৬ ডিসেম্বর ২০২১