আজঃ বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১
শিরোনাম

দেশে দ্রুত ভ্যাকসিন তৈরি করা হবে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৫৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপন এমপি বলেছেন, বাংলাদেশে অতি দ্রুত করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন তৈরি করা হবে। ইতোমধ্যে দেশে আড়াই কোটি মানুষকে টিকা দেওয়া হয়েছে। জাতীয় সংসদ অধিবেশনে আইন প্রণয়নের সময় দেওয়া বক্তব্যে বুধবার (১৫ সেপ্টেম্বর) সকালে তিনি এসব কথা বলেন। এসময় স্বাস্থ্যমন্ত্রী সংসদ সদস্যদের উপস্থাপিত বিভিন্ন অভিযোগ ও প্রশ্নের উত্তর দেন।

সংসদ অধিবেশনে সমালোচনার জন্য সংসদ সদস্যদের ধন্যবাদ জানিয়ে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, আমি সমালোচনা পছন্দ করি। কারণ এটা আমাকে শক্তিশালী করে। এই সমালোচনা অবশ্যই সঠিক হতে হবে।

জাহিদ মালেক স্বপন বলেন, আমরা শুধু ভ্যাকসিন আনছি না, প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন যত তাড়াতাড়ি সম্ভব দেশে করোনার ভ্যাকসিন তৈরি করতে। সেই লক্ষ্যে আমরা কাজ করে যাচ্ছি। অতি দ্রুত দেশে ভ্যাকসিন তৈরি করা হবে। ইতোমধ্যে আড়াই কোটি মানুষকে টিকা দেওয়া হয়েছে। দেড় কোটি মানুষকে ডাবল ডোজ দেয়া হয়ে গেছে।

তিনি আরও বলেন, চীন থেকে ৬ কোটি ডোজ টিকার নিশ্চয়তা পাওয়ার পর দেখলাম, এই টিকা আনতে দুই থেকে তিন হাজার কোটি টাকা দরকার। আমি প্রধানমন্ত্রীকে বললাম, আমরা ৬ কোটি ডোজ টিকা আনতে পারি কিন্তু এই পরিমাণ টাকা লাগবে। প্রধানমন্ত্রী বললেন, টাকা যত লাগুক টিকা নিয়ে আস। আমরা কোভ্যাক্স থেকে ৫ কোটি টিকা পাব। সব মিলিয়ে ১৬ কোটি ভ্যাকসিনের অর্ডার আছে।

বেসরকারি মেডিকেল কলেজে ভর্তির জন্য বাড়তি টাকা নেওয়া হচ্ছেসংসদ সদস্যদের এই অভিযোগের বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, প্রাইভেট মেডিকেল কলেজে আঠার লাখ টাকা ধরে দেয়া আছে। কেউ এর বেশি নিলে সেটা আমাদের অবহিত করলে ব্যবস্থা নেব।

চিকিৎসকদের রাজনীতি করা প্রসঙ্গে জাতীয় পার্টির এমপি কাজী ফিরোজ রশীদের বক্তব্যের জবাবে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ডাক্তারদের অ্যাসোসিয়েশন আছে। রাজনীতি সবাই করতে পারেন, ইঞ্জনিয়াররা রাজনীতি করতে পারেন, ডাক্তাররা রাজনীতি করলে দোষ দেখি না। বিরোধী দলের সংসদ সদস্যদের বলি আপনারাও ড্যাব করেন, রাজনীতি করেন। করোনার সময় স্বাস্থ্য সার্ভিস ভালো ছিল। এর সুফলটাও মানুষ পেয়েছে।

সংসদ সদস্যদের স্বাস্থ্য খাতের অনিয়ম-দুনীতির সমালোচনা প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভ্যাকসিন হিরো, সাউথ-সাউথ অ্যাওয়ার্ড পেয়েছেন। কাজ না করলে পুরস্কার পাওয়া যায় না।



আরও খবর
করোনায় শনাক্ত ও মৃত্যু আরও কমল

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১




মা হারালেন বলিউড তারকা অক্ষয় কুমার

প্রকাশিত:বুধবার ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মা হারালেন বলিউড তারকা অক্ষয় কুমার। আজ বুধবার সকাল ৯টা ৫৫ মিনিটে নিজের টুইটার হ্যান্ডেলে মা অরুণা ভাটিয়ার মৃত্যুর খবর জানিয়েছেন অক্ষয়।

বলিউড হাঙ্গামার খবর, কয়েক দিন হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন অরুণা ভাটিয়া। আজ সকালে তিনি পরলোকগমন করেন।

টুইটারে অক্ষয় বলেন, মা ছিলেন তাঁর আশ্রয়। মা হারিয়ে আজ তিনি অসহনীয় যন্ত্রণা অনুভব করছেন।

গত সোমবার মায়ের অসুস্থতার খবর পেয়ে লন্ডন থেকে মুম্বাইয়ে ফেরেন অক্ষয় কুমার। মা অরুণা ভাটিয়া হিরানন্দনি হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন। শারীরিক অবস্থার অবনতির পরে তাঁকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) স্থানান্তর করা হয়। বেশ কয়েক সপ্তাহ লন্ডনে সিনড্রেলা সিনেমার শুট করছিলেন অক্ষয়। শিডিউল শেষ না করেই দ্রুত মুম্বাইয়ে ফেরেন তিনি। আজ সকালে অরুণা ভাটিয়া মৃত্যুবরণ করেন।

সামাজিক পাতায় ভক্ত ও অনুগামীদের উদ্দেশে একটি বিশেষ নোট প্রকাশ করেছিলেন অক্ষয়। মায়ের জন্য চোয়া চান তিনি। বলেন, কঠিন সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছেন। প্রত্যেকের প্রার্থনাই পারে মাকে সারিয়ে তুলতে। সেই সঙ্গে করজোড়ে মিনতির ইমোজিও যুক্ত করেন এ সুপারস্টার। তবে অক্ষয়কে কাঁদিয়ে না ফেরার দেশে চলে গেছেন মা।

অক্ষয় কুমারের হাতে বেশ কয়েকটি সিনেমা রয়েছে। মুক্তির অপেক্ষায় আছে তাঁর সূর্যবংশী, বচ্চন পান্ডে, রক্ষা বন্ধন, অতরঙ্গি রে-সহ বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্র।

নিউজ ট্যাগ: অক্ষয় কুমার

আরও খবর
হাইকোর্টে জামিন পেলেন মডেল মৌ

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

আমার পছন্দের পুরুষকে একটু রাফ হতে হবে

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১




বিরল প্রজাতির ৪ মন ওজনের ব্লাক মার্লিন মাছ

প্রকাশিত:শনিবার ২৮ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৮ আগস্ট ২০২১ | ৭৯৫জন দেখেছেন
Image

পটুয়াখালী প্রতিনিধি:

পটুয়াখালীর মহিপুরে আনিস মাঝি নামের এক জেলের জালে ধরা পড়েছে বিরল প্রজাতির ৪ মন ওজনের ১ টি ব্লাক মার্লিন মাছ। গতকাল রাতে গভীর বঙ্গোপসাগরে মাছটি ধরা পরে। পরে আজ আড়াইটার দিকে এ মাছটি মৎস্য বন্দর মহিপুরের টুস্টার ফিস গদিতে বিক্রির জন্য নিয়ে আসা হয়। মাছটি এক নজর দেখতে ভীড় জমায় স্থানীয় মৎস্য ব্যবসায়ীরা। 

আনিস মাঝি বলেন, এ জাতীয় মাছ তাদের জালে আর কখনো ধরা পড়েনি। তাই এ মাছটির স্থানীয় নাম তাদের জানা নেই। ১০ ফুট দৈর্ঘ্য ও ২ ফুট প্রস্থের এ মাছটির ওজন বেশি হওয়ায় বন্দরে নিয়ে আসতে তাদের বেশ কষ্ট হয়েছে।

পটুয়াখালী জেলা মৎস্য কর্মকর্তা এমদাদুল্লাহ জানান, ব্লাক মার্লিন মাছ সাধারনত বাংলাদেশের সাগর কিংবা নদীতে বিচরণ করেনা। এ মাছ প্রশান্ত মহাসাগার ও ভারত মহাসাগরে কম সংখ্যক দেখা যায়। তবে বিদেশে এ মাছের চাহিদা রয়েছে।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার দুই জেলের জালে ১৫ টি পাখি মাছ ধরা পরে।


আরও খবর



আফগানিস্তানে ১০০ কোটি ডলারের বেশি সহায়তার প্রতিশ্রুতি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৪১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আফগানিস্তানের জন্য ১০০ কোটি মার্কিন ডলারেরও বেশি সহায়তার প্রতিশ্রুতি পেয়েছে জাতিসংঘ। তালেবানের ক্ষমতা দখলের পর আফগানিস্তানে ভয়াবহ মানবিক বিপর্যয় দেখা দিতে পারে বলে জাতিসংঘের সতর্কবার্তার পর এই প্রতিশ্রুতি এলো। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির প্রতিবেদনে এ কথা বলা হয়েছে।

সুইজারল্যান্ডের জেনেভায় জাতিসংঘের আহ্বানে গতকাল সোমবার আফগানিস্তানের জন্য সহযোগিতা কনফারেন্স হয়। সেখানে ৬০৬ মিলিয়ন ডলার চাওয়া হয়েছিল। সে আহ্বানের পর অর্থ সহায়তার প্রতিশ্রুতি ডলারের অঙ্কে এক হাজার মিলিয়ন অর্থাৎ এক বিলিয়ন ছাড়িয়ে গেছে। কনফারেন্সটিতে জাতিসংঘ ও রেড ক্রসের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারাসহ বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশগুলোর শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।কনফারেন্সে জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতেরেস বলেন, দুই দশকের যুদ্ধ শেষে আফগানিস্তান বর্তমানে নাজুক সময় পার করছে। দারিদ্র্যের হার বেড়েই যাচ্ছে, সরকারি সেবা ব্যবস্থা ভেঙে পড়ার উপক্রম হয়েছে।

এই মাসের শেষে আফগানিস্তানের বহু মানুষ অনাহারী হয়ে পড়বে বলে জানান জাতিসংঘের মহাসচিব।

গত ১৫ আগস্ট তালেবানের আফগানিস্তানের রাজধানী কাবুল দখলের আগপর্যন্ত আফগানিস্তানের অর্ধেক জনগোষ্ঠী, অর্থাৎ এক কোটি ৮০ লাখ মানুষ সহযোগিতার ওপর নির্ভরশীল ছিল। খরা, খাদ্য ও নগদ অর্থ সংকটে এবং রাজনৈতিক পটপরিবর্তনের ফলে সৃষ্ট অস্থিরতায় এই নির্ভরশীল মানুষের সংখ্যা আরও বাড়ার আশঙ্কার কথা জানিয়েছে জাতিসংঘসহ অন্যান্য সাহায্য সংস্থাগুলো।

পশ্চিমা মদদপুষ্ট সরকারের পতনে এবং তালেবানের বিজয়ের ফলে আফগানিস্তানে শত শত কোটি ডলারের বিদেশি সাহায্য বন্ধ হয়ে গেছে। দেশটিতে জাতিসংঘের কার্যক্রম চালানো নিয়েও চাপ তৈরি হয়েছে। জাতিসংঘের মহাসচিব গত শুক্রবার জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে জাতিসংঘ নিজের কর্মীদের বেতনই দিতে পারছে না।

আহ্বান করা ৬০৬ মিলিয়ন ডলারের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ জাতিসংঘের ওয়ার্ল্ড ফুড প্রোগ্রামের (ডব্লিউএফপি) মাধ্যমে খাদ্য সরবরাহে ব্যয় করার কথা হয়েছে।

আগস্ট ও সেপ্টেম্বরে ডব্লিউএফপি আফগানিস্তানে একটি জরিপ চালিয়ে জানায়, দেশটির ৯৩ শতাংশ মানুষ পর্যাপ্ত পরিমাণ খাবার পায় না।

এ ছাড়া জাতিসংঘের আরেকটি প্রতিষ্ঠান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাও (ডব্লিউএইচও) এই সাহায্যের অর্থ আফগানিস্তানে তাদের স্বাস্থ্য কার্যক্রম পরিচলানায় ব্যয় করবে।


আরও খবর
বিশ্বজুড়ে বেড়েছে করোনায় আক্রান্ত ও মৃত্যু

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১




সাহেদের সঙ্গে আসামি হচ্ছেন স্বাস্থ্যের সাবেক ডিজি

প্রকাশিত:সোমবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০21 | হালনাগাদ:সোমবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০21 | ৩৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদ ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদ

সরকারি অর্থ আত্মসাতের মামলায় রিজেন্ট হাসপাতালের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাহেদের সঙ্গে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সাবেক মহাপরিচালক আবুল কালাম আজাদও আসামি হচ্ছেন।

এই দুজনের পাশাপাশি মোট ছয়জনকে আসামি করে সোমবার এ মামলার চার্জশিট অনুমোদন করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

শিগগির এ অভিযোগপত্র আদালতে দাখিল করা হবে বলে জানিয়েছেন দুদকের জনসংযোগ কর্মকর্তা মুহাম্মদ আরিফ সাদেক।

চার্জশিটের অপর আসামিরা হলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সাবেক পরিচালক আমিনুল হাসান, উপপরিচালক (হাসপাতাল-১) মো. ইউনুস আলী, সহকারী পরিচালক (হাসপাতাল-১) মো. শফিউর রহমান এবং গবেষণা কর্মকর্তা মো. দিদারুল ইসলাম।

লাইসেন্সের মেয়াদ না থাকার পরও করোনাভাইরাসের নমুনা সংগ্রহ ও চিকিৎসার জন্য চুক্তি করে তিন কোটি ৩৪ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগে গত বছর ২৩ সেপ্টেম্বর এ মামলা করেন দুদকের উপপরিচালক মো. ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারী। সেখানে আবুল কালাম আজাদ ছাড়া বাকি পাঁচজনকে আসামি করা হয়।

পরে ফরিদ আহমেদ পাটোয়ারীকেই তদন্তের দায়িত্ব দেয় দুদক। দীর্ঘ এক বছর পর এ মামলার তদন্ত শেষে অভিযোগপত্র অনুমোদন চেয়ে কমিশনে প্রতিবেদন দেন তদন্ত কর্মকর্তা। সোমবার তা অনুমোদন করল কমিশন।


আরও খবর



সিনহা হত্যা মামলায় দ্বিতীয় দিনের সাক্ষ্যগ্রহণ চলছে

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৪ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৪ আগস্ট ২০২১ | ৫৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যা মামলার সাক্ষ্যগ্রহণ দ্বিতীয় দিনে আবারও শুরু হচ্ছে। মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) সকাল ১০টার পর সাক্ষ‍্যগ্রহণের কার্যক্রম শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। কক্সবাজারের জেলা ও দায়রা জজ আদালতে চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলাটির সাক্ষ্যগ্রহণ ধার্য্য রয়েছে ২৩, ২৪ ও ২৫ আগস্ট পর্যন্ত।

মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) মামলার বাদী ও প্রধান সাক্ষী নিহত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খানের বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌসকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন আসামি পক্ষের ৯ জন আইনজীবী। বিকেল সোয়া ৪টা নাগাদ এই সাক্ষ‍্যগ্রহণ মুলতবি করেন আদালত। মঙ্গলবার (২৪ আগস্ট) আবার শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌসের অবশিষ্ট সাক্ষ‍্যগ্রহণ শুরু হবে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, মামলার ১নং আসামি বরখাস্ত পুলিশ পরিদর্শক লিয়াকত ও ২ টেকনাফ থানার বরখাস্ত ওসি প্রদীপ কুমার দাশকে আজ মঙ্গলবার জেরা করবেন বাদী পক্ষের আইনজীবীরা। সোমবার (২৩ আগস্ট) সাক্ষ‍্যগ্রহণের প্রথম দিনে ৫ জন সাক্ষী হাজিরা দেন। কিন্তু দিনব্যাপী একজন সাক্ষীর সাক্ষ‍্যগ্রহণও সমাপ্ত হয়নি।

কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম জানান, গত ২৭ জুন কক্সবাজারের জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল আসামিদের উপস্থিতিতে মামলাটির চার্জ গঠন করে ২৬, ২৭ ও ২৮ জুলাই একটানা ৩ দিন বাদীসহ ১০ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণের দিন ধার্য করে আদেশ দিয়েছিলেন। কিন্তু করোনার কারণে লকডাউনে আদালতের কার্যক্রম বন্ধ থাকায় সাক্ষ্যগ্রহণ হয়নি। সরকার গত ১১ আগস্ট থেকে লকডাউন তুলে নিলে আদালতের কার্যক্রম শুরু হওয়ায় জেলা ও দায়রা জজ নতুন করে এই মামলার সাক্ষ‍্যগ্রহণের তারিখ ধার্য করেন। আজ মঙ্গলবার দ্বিতীয় দিন কিছুক্ষণের মধ্যে যথা সময়ে বাদীসহ সাক্ষীদের সাক্ষ‍্যগ্রহণ শুরু হবে।

কক্সবাজারের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, সোমবার (১৬ আগস্ট) কক্সবাজারের জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক জেলা ও দায়রা জজ মোহাম্মদ ইসমাইল তারিখ পুনঃনির্ধারণ করে আদেশ জারি করেন।

তিনি আরও বলেন, গত জুলাই মাসের ২৬, ২৭ ও ২৮ তারিখ এই মামলার অ্যাডভোকেট তারিখ নির্ধারণ ছিল। মহামারি করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় সরকার-ঘোষিত লকডাউনের কারণে হাইকোর্টের নির্দেশে সারাদেশের মতো কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের স্বাভাবিক কার্যক্রম বন্ধ থাকায় ওই তারিখে চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলাটির সাক্ষ‍্যগ্রহণ শুরু করা যায়নি।

মামলায় অভিযুক্ত ও কারাগারে আটক থাকা ১৫ আসামি হলে, বাহারছড়া পুলিশ ফাঁড়ির তৎকালীন পরিদর্শক লিয়াকত আলী, টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ, কনস্টেবল রুবেল শর্মা, টেকনাফ থানার এসআই নন্দদুলাল রক্ষিত, কনস্টেবল সাফানুর করিম, কামাল হোসেন, আব্দুল্লাহ আল মামুন, এএসআই লিটন মিয়া, কনস্টেবল সাগর দেব, এপিবিএনের এসআই মো. শাহজাহান, কনস্টেবল মো. রাজীব ও মো. আবদুল্লাহ, পুলিশের মামলার সাক্ষী টেকনাফের বাহারছড়া ইউনিয়নের শামলাপুরের মারিশবুনিয়া গ্রামের নুরুল আমিন, মো. নিজামুদ্দিন ও আয়াজ উদ্দিন।

উল্লেখ্য, মামলায় মোট ৮৩ জন সাক্ষীর মধ্যে ১ থেকে ১৫ নম্বর সাক্ষী সাক্ষ্য দেবেন। সাক্ষ্য গ্রহণের সময় ১৫ জন আসামি আদালতে হাজির থাকবেন। এ মামলায় অভিযুক্ত ১৫ জন আসামিরা সকলেই কক্সবাজার জেলা কারাগারে রয়েছেন।



আরও খবর
বিস্কুটের কার্টন থেকে নবজাতক উদ্ধার

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

বগুড়ায় ধানক্ষেতে মিলল নারী ইউপি সদস্যের লাশ

বৃহস্পতিবার ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১