আজঃ রবিবার ১৬ জুন ২০২৪
শিরোনাম

দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প অনুভূত

প্রকাশিত:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ২৯ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে ভূমিকম্প অনুভূত হয়েছে। কয়েক সেকেন্ড স্থায়ী ছিলো এ স্বল্পমাত্রার ভূমিকম্প।

বুধবার সন্ধ্যা সোয়া ৭টার দিকে এ ভূমিকম্প অনুভূত হয়। তাৎক্ষণিকভাবে ক্ষয়ক্ষতির কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

মার্কিন ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা ইউএসজিএস জানিয়েছে, ৫.৪ মাত্রার এই ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ভারতের মনিপুরের পাশে মিয়ানমারের মাওলাইক এলাকায়, মাটির ৯৪.৭ কিলোমিটার গভীরে।

নিউজ ট্যাগ: ভূমিকম্প

আরও খবর



ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে সিলেটে ব্যস্ত খামারিরা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২১ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২১ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
এস এ শফি, সিলেট

Image

ঈদুল আজহাকে সামনে রেখে কোরবানির পশু প্রস্তুতে ব্যস্ত সিলেট বিভাগের খামারিরা। গো-খাদ্য, ওষুধসহ বিদ্যুতের বাড়তি দামে খরচ বেড়েছে খামারীদের। গেল বছরের তুলনায় প্রতিটি গরু লালন-পালনে খরচ বেড়েছে ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা। গো-খাদ্যের এ বাড়তি দামে খরচ সামাল দিতে হিমশিম অবস্থা খামারিদের।

খামারিরা জানিয়েছেন গো খাদ্যের ঊর্ধ্বগতিতে বেড়েছে ব্যয়। ফলে দাম বেড়েছে পশুর। পাশাপাশি সীমান্ত দিয়ে চোরাই গরু আসা নিয়ে লোকসানের মুখে পড়ায় শঙ্কায় রয়েছেন। তবে স্থানীয় প্রশাসন এ ব্যাপারে কঠোর অবস্থানে।

অন্যদিকে প্রাণিসম্পদ বিভাগ বলছে, এক বছরের ব্যবধানে সিলেটে কোরবানীর পশু বেড়েছে প্রায় দ্বিগুণ। সিলেটে এবার কোরবানী যোগ্য পশুর কোন ঘাটতি নেই বরং উদ্বৃত্ত রয়েছে ৩৬ হাজার ১৪৬টি পশু।

অথচ গেল বছর ঈদুল আজহায় সিলেট বিভাগে কোরবানীযোগ্য পশুর সংখ্যা ছিল ২ লাখ ৩৪ হাজার ৮১৯ টি। আর চাহিদা ছিল ৩ লাখ ৯৩ হাজার ২৯৩টি। গত বছর যেখানে বিভাগে ১ লাখ ৫৮ হাজার ৪৭৪টি পশুর ঘাটতি ছিল, সেখানে এ বছর বিভাগে কোরবানীর পশু ১ লাখ ৯৫ হাজার ৬৭৪টি বেড়ে উদ্বৃত্ত থাকছে ৩৬ হাজারের বেশী।

প্রাণিসম্পদ ও খামারি সূত্রে জানা গেছে, ২০২২ সালের সময়ের ভয়াবহ বন্যা, নিত্যপণ্য ও পশুখাদ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় গেল বছর খামারিদের সংখ্যা হ্রাস পাওয়ায় কমে ছিল পশুর উৎপাদন। প্রাণিসম্পদের নানা উদ্যোগ, প্রণোদনা ও স্বাবলম্বীকরণ প্রজেক্টের কারণে এবার বিভাগে খামারিদের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে বেড়েছে উৎপাদিত পশুর সংখ্যা। এক বছরে বিভাগে ষাড়-বলদ-গাভী ও মহিষের সংখ্যা বেড়েছে ১ লাখ ৬ হাজার ১৬০টি এবং ছাগল-ভেড়ার সংখ্যা বেড়েছে ১ লাখ ৫৮ হাজার ৩৩৫টি।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আসন্ন ঈদুল আযহায় সিলেট বিভাগে কোরবানী যোগ্য পশুর চাহিদা ৩ লাখ ৯৪ হাজার ২৫১টি। এর মধ্যে সিলেট বিভাগে স্থানীয়ভাবে প্রস্তুত আছে ৪ লাখ ৩০ হাজার ৩৯৭টি। উদ্বৃত থাকা ৩৬ হাজার ১৪৬ পশু দেশের অন্যান্য জেলায় রপ্তানী করা যাবে।

বিভাগের ৪ জেলার বিভিন্ন খামারে কোরবানীর জন্য প্রস্তুত প্রায় সাড়ে ৪ লাখ গবাদি পশু। গত কয়েক বছরের মধ্য এবার স্থানীয়ভাবে উৎপাদিত পশু দিয়ে চাহিদা মিটানো সম্ভব। বিভাগে ছোট-বড় মিলিয়ে প্রায় ২২ হাজার ৫৭৬ টি খামারে দিন রাত প্রাকৃতিক উপায়ে চলছে পশু হৃষ্টপুষ্ট করণ কাজ। প্রতিটি খামারে ছোট, মাঝারি ও বড় সব ধরণের কুরবানির পশু রয়েছে। এরমধ্যে সিলেট জেলার ৬ হাজার ৮৫৮ টি, সুনামগঞ্জ জেলায় ৩ হাজার ৪৫৮ টি, মৌলভীবাজার জেলায় ৫ হাজার ৩৬৯টি ও হবিগঞ্জ জেলায় ৬ হাজার ৫১৯ টি খামার রয়েছে।

এদিকে প্রাণিসম্পদ বিভাগের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, খামারিকে গবাদি পশু হৃষ্টপুষ্ট করণের উপর প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। এছাড়া স্টেরয়েডের ব্যবহার রোধে উপজেলা পর্যায়ে উঠান বৈঠক করে খামারিকে হাতে কলমে সচেতনতামূলক প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে।

সিলেটের একাধিক খামারিদের সাথে আলাপকালে তারা জানান- এমনিতেই সবধরণের পশুখাদ্যের দাম বাড়তি এরমধ্যে তীব্র গরমের কারণে পশুর জন্য বাড়তি খরচ করতে হচ্ছে। অতিরিক্ত গরমের কারণে আইপিএস দিয়ে ফ্যান চালাতে হচ্ছে। দিনে দুবার গোসল করাতে হচ্ছে। পশুকে ২৪ ঘণ্টা বাতাসের মধ্যে রাখতে হয়। খাবারের সঙ্গে সোডা দিতে হয়। প্রতিনিয়ত শ্বাস-প্রশ্বাস পরীক্ষা করতে হয়। আবার ফসলের মৌসুম হওয়ায় শ্রমিকের মজুরি বেশি দিতে হচ্ছে।

দেশে প্রচলিত পশুখাদ্যের উপাদানগুলোর মধ্যে রয়েছে সয়াবিন খৈল, গমের ভূসি, রাইস পলিশ, মসুর ভূসি, সরিষার খৈল, ভুট্টা, মুগ ভূসি ও মটর ভূসি। এসব উপাদানের দাম এবার ৩০-৪০ শতাংশ পর্যন্ত বেড়েছে।

অনেক ব্যাপারী শুধু কোরবানির জন্যই কয়েক মাস আগে পশু কিনে ব্যবসা করেন। তাদের মতো একজন শহীন। তিনি বলেন, ৬৫ হাজার টাকায় গরু কিনেছি। ২০ হাজার টাকার খাবার খাওয়ানো হয়েছে। এখন যদি ১ লাখ থেকে ১ লাখ ১০ হাজার টাকা দাম না পাই তাহলে পোষাবে না।

সিলেট বিভাগীয় প্রাণিসম্পদ অফিস সূত্রে জানা গেছে, এবছর সিলেট বিভাগে কুরবানী হবে প্রায় ৩ লাখ ৯৪ হাজার ২৫১টি পশু। অথচ প্রস্তুত আছে ৪ লাখ ৩০ হাজার ৩৯৭ টি পশু। এরমধ্যে ১ লাখ ৩৮ হাজার ১৮০ টি ষাড়, ৪৯ হাজার ১০৩ টি বলদ, ৩৩ হাজার ৩৭৫টি গাভী, ৪ হাজার ৫৩৩টি মহিষ, ১ লাখ ৩৪ হাজার ১৪৩টি ছাগল, ৭০ হাজার ৯৫৩টি ভেড়া ও ১১০ টি অন্যান্য পশু রয়েছে।

সিলেট বিভাগীয় প্রাণিসম্পদ অফিসের পরিচালক ডা. মারুফ হাসান আলাপকালে জানান, এবার সিলেট বিভাগে কোরবানী যোগ্য পশুর কোন ঘাটতি নেই বরং উদ্বৃত্ত আছে ৩৬ হাজার ১৪৬টি পশু। তাই এবার পার্শ্ববর্তী জেলা থেকে পশু আসার কোন দরকার নেই। গো খাদ্য ও সব জিনিস পত্রের দাম বেড়ে যাওয়ায় খামারিদের ব্যয় বেড়েছে। সিলেটে আগে ঘরোয়াভাবে কোরবানীযোগ্য পশু পালন হতো। সেটা এখন কমে গেছে। তাই খামারিদের পশু দিয়েই কোরবানীর চাহিদা পূরণ করা সম্ভব।


আরও খবর



বৈষম্যমূলক প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহারের দাবিতে রাবি শিক্ষকদের কর্মবিরতি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আসিক আদনান, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়

Image

অর্থ মন্ত্রণালয়ের কর্তৃক জারীকৃত পেনশন-সংক্রান্ত প্রত্যয় স্কিম প্রজ্ঞাপন প্রত্যাহার, বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকের সুপার গ্রেডে অন্তর্ভুক্তকরণ এবং স্বতন্ত্র বেতন কাঠামো প্রবর্তনের দাবিতে ক্লাস বাদ দিয়ে দুই ঘণ্টা অবস্থান কর্মসূচি পালন করছেন রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় (রাবি) শিক্ষক সমিতি।

মঙ্গলবার (২৮ মে) সকাল ১০টা থেকে দুপুর ১২টা পযর্ন্ত এ অবস্থান কর্মসূচি পালন করবে বলে জানান রাবি শিক্ষক সমিতি সভাপতি সভাপতি অধ্যাপক হাবিবুর রহমান।

তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্ব স্ব বিভাগের পরীক্ষা এ কর্মসূচি আওতামুক্ত থাকবে। বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি ফেডারেশনের আহ্বানে সারাদেশের বিশ্ববিদ্যালয় গুলোতো এ অবস্থা কর্মসূচি পালন করছে।

এছাড়াও ৪ জুন অর্ধদিবস কর্মসূচি পালন করবে বলে জানান তারা। তারপরও যদি দাবি মেনে না নেয় তাহলে আরো কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করার কথা বলেন সংগঠনটির নেতারা।


আরও খবর



চট্টগ্রাম বন্দরের অপারেশনাল কার্যক্রম স্বাভাবিক

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৮ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
চট্টগ্রাম প্রতিনিধি

Image

ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাব কেটে যাবার পর চট্টগ্রাম বন্দর জেটিতে শুরু করেছে জাহাজের পণ্য ওঠানামা। কয়েকদিন বন্ধ থাকার পর চট্টগ্রাম বন্দরের অপারেশনাল কাজ শুরু হয়েছে।

পণ্য খালাস বন্ধ করে গভীর সাগরে ফেরত পাঠানো ৪৯টি খোলা পণ্যবাহী জাহাজও বহির্নোঙ্গরে ফিরতে শুরু করেছে। ঘূর্ণিঝড়ের ক্ষয়ক্ষতি মোকাবিলায় এসব জাহাজের অবস্থান পরিবর্তন করা হয়েছিল।

আবহাওয়া অধিদফতর চট্টগ্রামে ৯ নম্বর মহাবিপদ সংকেত তুলে নেওয়ার পর ১৭ ঘণ্টা বন্ধ থাকার পর সোমবার ভোর ৫টা থেকে চট্টগ্রাম শাহ আমানত আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ফ্লাইট চলাচল শুরু হয়েছে। অন্যদিকে ১৮ ঘণ্টা পর খুলে দেওয়া হয়েছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান টানেল।

মঙ্গলবার (২৮ মে) সকাল ১১টা থেকে জেটিতে জাহাজ ভেড়ার পরপর পণ্য উঠানামার কাজ শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন চট্টগ্রাম বন্দরের সচিব মো. ওমর ফারুক।

তিনি বলেন, ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাব কেটে গেলেও সাগর উত্তাল রয়েছে। পণ্য খালাস বন্ধ করে গভীর সাগরে ফেরত পাঠানো ৪৯টি পণ্যবাহী জাহাজও বহির্নোঙ্গরে ফিরতে শুরু করেছে। মঙ্গলবার সকালে ১৯টি জাহাজের মধ্যে ১১টি জাহাজ বন্দরের জেটিতে ভিড়েছে। পণ্য উঠানামার কাজ শুরু হয়েছে। বাকি ৯টি জাহাজ বহির্নোঙ্গর থেকে রওনা দিয়েছে। আবহাওয়া পুরোপুরি স্বাভাবিক হলে জাহাজ জেটিতে ফিরতে শুরু করবে।' 

ঘূর্ণিঝড় রেমাল ঝুঁকি মোকাবিলায় চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ রবিবার সকালে নিজস্ব অ্যালার্ট-৪ জারি করেছিল। এতে সমুদ্র বন্দরের অপারেশনাল কার্যক্রম পুরােপুরি বন্ধ হয়ে যায়। ৯ নম্বর মহাবিপদ সংকেত সোমবার সকালে প্রত্যাহার করা হয়। চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরকে ৩ নম্বর স্থানীয় সতর্ক সংকেত দেখিয়ে যেতে বলার পর থেকেই বন্দর কর্তৃপক্ষ অ্যালার্ট-৪ প্রত্যাহার করে। ফলে বন্দরের কার্যক্রম স্বাভাবিক হয়।

চট্টগ্রাম বন্দরের ডেপুটি কনজারভেটর ক্যাপ্টেন ফরিদুল আলম বলেন, 'ঘূর্ণিঝড় প্রভাব কেটে যাওয়ার পর বন্দরের কার্যক্রম এখন স্বাভাবিক রয়েছ। জোয়ারের সাথে মিল রেখে জাহাজ আনা-নেওয়া কার্যক্রম শুরু হয়েছে।'

ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাব কমে যাওয়ার পর চট্টগ্রাম বন্দরে জাহাজ ফেরত আনার উদ্যোগ নেয় বন্দর কর্তৃপক্ষ। বৈরি আবহাওয়ায় সাগর উত্তাল থাকায় পাইলটরা বহির্নোঙ্গর থেকে অনেস জাহাজ আনতে পারেননি। তবে ইয়ার্ডে অপারেশন আংশিকভাবে শুরু হয়েছিল।

গত রোববার (২৬ মে) সকালে চট্টগ্রাম বন্দরের জেটি থেকে ১৬টি জাহাজ বহির্নোঙ্গর থেকে ৪৯টি জাহাজ গভীর সাগরে চলে যায়।

বন্দর সূত্র জানায়, ঘূর্ণিঝড় রেমালের প্রভাবে প্রায় দুইদিন ধরে চট্টগ্রাম বন্দরে পণ্য ওঠা-নামা বন্ধ থাকে। দেশের প্রধান এই বন্দর দিয়ে আমদানি-রপ্তানির ৯২ শতাংশই হয়ে থাকে। বৃষ্টিতে বহির্নোঙরে লাইটার জাহাজের মাধ্যমে পণ্য খালাস ব্যাহত হয়। তবে সাগর কিছুটা উত্তাল থাকায় বহির্নোঙরে জাহাজ থেকে পণ্য খালাস কিছুটন বিলম্বিত হতে পারে।


আরও খবর



গণমাধ্যমে শৃঙ্খলা আনার কাজ করা হচ্ছে: তথ্য প্রতিমন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৩ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৩ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

সাংবাদিকদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে গণমাধ্যমে শৃঙ্খলা আনার কাজ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তথ্য ও সম্প্রচার প্রতিমন্ত্রী মোহাম্মদ আলী আরাফাত।

বৃহস্পতিবার (২৩ মে) দুপুরে সচিবালয়ে গণমাধ্যম কেন্দ্রে বাংলাদেশ সেক্রেটারিয়েট রিপোর্টার্স ফোরাম (বিএসআরএফ) আয়োজিত বিএসআরএফ বার্তার মোড়ক উন্মোচন ও মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক মাসউদুল হকের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনের সভাপতি ফসিহ উদ্দীন মাহতাব।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, এ বিষয়টি (গণমাধ্যমে শৃঙ্খলা আনা) নিয়ে আমি এরই মধ্যে কাজ করছি। বিষয়টি একটু জটিল। জটিল এ কারণে যে, সংখ্যা নির্ণয় করার যে ফলাটা আছে তার মধ্যেও কিছু গলদ আছে, সেটিকেও ম্যানুপুলেট করা যায়। যদি বলি ফর্মুলা অলরেডি আছে সেটি দিয়ে সঠিক তালিকা করে ফেলবো, এর মধ্যেও দেখা যাবে সঠিক হয়তো অনেক কিছু হবে না। কারণ, পেছন দিকে ম্যানুপুলেশন সমস্যা। যে কারণে আমি ফর্মুলাটা নিয়ে কাজ করছি।

তিনি বলেন, মন্ত্রণালয় থেকে ক্রোড়পত্র দিই, তা কিন্তু ডিএফপির লিস্ট দেখে দিচ্ছি না। আমি কিন্তু একটি লিস্ট বানিয়েছি, বিশেষ সোর্সের মাধ্যমে। যেটি আমাকে মোটামুটি সঠিক একটি সার্কুলেশনের চিত্র দিয়েছে, তার ভিত্তিতে আমি এখন সিদ্ধান্তগুলো নিচ্ছি।

কারা কত ক্রোড়পত্র পেয়েছেন তা এক্সেল সিটের মাধ্যমে মেইন্টেইন করি। কাছাকাছি সার্কুলেশনের দুটি পত্রিকার মধ্যে একটি পত্রিকা কম পেলে পরে তা ব্যালেন্স করার চেষ্টা করি। আমি ন্যায্যতা প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করি। ৬০-৭০ শতাংশ সিদ্ধান্ত সার্কুলেশনের ওপর ভিত্তি করে নিই। কারণ, এখানে সরকারের স্বার্থ আছে, বেশিরভাগ মানুষের হাতে এটি আমি পৌঁছাতে চাই।

মোহাম্মদ আলী আরাফাত আরও বলেন, কিছু পত্রিকার সার্কুলেশন চ্যালেঞ্জ আছে, কিন্তু হয়তো সেই পত্রিকার ইতিহাস ঐতিহ্য আছে। আবার কিছু পত্রিকার সার্কুলেশন চ্যালেঞ্জ থাকলেও সেখানে হয়তো নামকরা সম্পাদক আছেন, যার নিজেরই ইতিহাস-ঐতিহ্য ব্র্যান্ডিং আছে। এগুলো যাচাই-বাছাই করে ব্যালেন্স করে ক্রোড়পত্র দিয়েছি।,কোনো ব্যক্তির সুপারিশে ক্রোড়পত্র দিইনি। সুপারিশ করেছে- নিয়েছি, দেখেছি; কিন্তু দিন শেষে আমার ফর্মুলাই অ্যাপ্লাই করেছি।

ডিএফপিতে নতুন ডিজি নিয়োগ দেওয়া প্রসঙ্গে তিনি বলেন, যারা সার্কুলেশনের কাজ করেন তাদের নিয়ে আমি বসবো। ফর্মুলা ফাইনটিউন করবো আমরা। সত্যিকার অর্থে সার্কুলেট, অর্থাৎ শুধু প্রিন্ট করলে হবে না, বিক্রিত নম্বরটাও পাওয়ার ফর্মুলা বের করবো আমরা, যেখানে ম্যানুপুলেশনের সুযোগ থাকবে না। আমার কাছে আসল লিস্টটা যেন থাকে। সব জায়গায় আমি এক ধরনের স্বচ্ছতা ও অবজেকটিভিটি আনার চেষ্টা করছি। আপনারা সবার সামনে যে বিয়য়টি বলবেন, আমাকে একা পেলেও সে কথাটিই বলবেন।

সাংবাদিকদের শিক্ষাগত যোগ্যতা বেঁধে দেওয়ার উদ্যোগ নিয়ে এক প্রশ্নে তথ্য প্রতিমন্ত্রী বলেন, এটি নিয়ে এ মুহূর্তে আমি বলতে পারবো না, আইনমন্ত্রীর সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। এ মুহূর্তে আমি গণমাধ্যমকর্মী আইন নিয়ে কাজ করছি।

গণমাধ্যমকর্মী আইন পাস হলে এটি মোটামুটি সবকিছু কাভার করে ফেলবে। কারণ, এখানে অনলাইন, প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মোটামুটি সবকিছুই কাভার করবে। গণমাধ্যমের সমস্যাগুলোর সমাধানও হবে- এ প্রসঙ্গে বলেন প্রতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, শ্রম আইনের অধীনে যত সুরক্ষা দেওয়া আছে সেগুলোকে রেখে বাকি বিষয়গুলো গণমাধ্যমকর্মী আইনে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

মোহাম্মদ আলী আরাফাত বলেন, বিটিভিসহ তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন ১৫টি ডিপার্টমেন্টের দিকেই তাকাবো। সবগুলোর ভেরতে ঢুকবো, শুধু ভেতরেই ঢুকবো না, একেবারে তলদেশ পর্যন্ত যাবো। ভেতর থেকে আমার সাধ্যের মধ্যে, সামর্থ্যের মধ্যে যতটুকু পরিবর্তন-পরিবর্ধন ও সংস্কারের সুযোগ আছে সবটুকু করবো। তবে এটিও প্রায়োরিটি বেসিসে করবো। সব জায়গায় কিছু না কিছু পরিবর্তন আপনারা দেখতে পাবেন।


আরও খবর



ঈদুল আযহায় কাজী শুভসহ সাত শিল্পীর কণ্ঠে নতুন গান 'কুরবানী'

প্রকাশিত:শনিবার ১৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৫ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে এবার কাজী শুভসহ সাত শিল্পীর নতুন গান কুরবানী। পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে প্রকাশিত হবে নতুন এই গানটি। জাকিউল হাই দিপুর কথা ও সুরে গানটিতে সঙ্গীত আয়োজন করেছেন রাশেদুল কায়েস।

গানটিতে কাজী শুভ ছাড়া আরো কণ্ঠ দিয়েছেন কণ্ঠশিল্পী জাকিউল হাই দিপু, রাশেদুল কায়েস, দীন ইসলাম, সিদ্দিকুর রহমান, প্রতীক ও খোরশেদ জালালী। গানট কলের গান মাল্টিমিডিয়া নামক ইউটিউব চ্যানেলে অবমুক্ত হবে।

গানটি সম্পর্কে সঙ্গীতশিল্পী কাজী শুভ বলেন, পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষে 'কুরবানী' শিরোনামের গানটির কথা ও সুরে ছিলেন জাকিউল হাই দিপু ভাই। গানটির কথামালা ও সুর দর্শক শ্রোতাদের অনেক ভাল লাগবে।


আরও খবর