আজঃ শনিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩
শিরোনাম

দেশের ভাবমূর্তি আরও জোরদারে কাজ করুন: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
কূটনৈতিক প্রতিবেদক

Image

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ওয়াশিংটন ডিসিতে বাংলাদেশ দূতাবাসের কর্মকর্তাদের দেশের ভাবমূর্তি আরও জোরদারে আন্তরিকতা ও দেশপ্রেমের সঙ্গে কাজ করতে বলেছেন।

তিনি বলেছেন, দেশের ভাবমূর্তি আরও উন্নত করতে সর্বোচ্চ আন্তরিকতা, পেশাদারত্ব, সততা ও দেশপ্রেমের সঙ্গে দায়িত্ব পালন করুন।

আজ (শুক্রবার) ঢাকায় দেওয়া এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, বুধবার (২৭ সেপ্টেম্বর) ওয়াশিংটন ডিসিতে বাংলাদেশ দূতাবাস পরিদর্শনকালে কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময়ের সময় প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন।

সেখানে তিনি শহীদ মিনার ও বঙ্গবন্ধু কর্নারসহ দূতাবাসের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখেন। শেখ হাসিনা দূতাবাসে পৌঁছালে যুক্তরাষ্ট্রে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ ইমরান ফুলের তোড়া দিয়ে তাকে স্বাগত জানান।

প্রধানমন্ত্রী দূতাবাসের বঙ্গবন্ধু কর্নারে অবস্থিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আবক্ষ মূর্তিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করে গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন, অ্যাম্বাসেডর-অ্যাট-লার্জ মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিন, পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব সালাউদ্দিনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ছিলেন।


আরও খবর



চট্টগ্রামে হেলে পড়েছে ৪ তলা ভবন

প্রকাশিত:শনিবার ২৫ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ২৫ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
রাহুল সরকার, চট্টগ্রাম ব্যুরো

Image

চট্টগ্রাম নগরের রৌফাবাদ হাউজিং সোসাইটি এলাকায় একটি চারতলা ভবন হেলে পড়েছে। শনিবার (২৫ নভেম্বর) সন্ধ্যা ৬টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। তবে এ ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।

হেলে পড়া ভবনের পাশ দিয়ে সিটি কর্পোরেশনের একটি নালা খনন করা হচ্ছে। ধারণা করা হচ্ছে, এ কারণেই ভবনটি হেলে পড়েছে।

ফায়ার সার্ভিসের বায়েজিদ বোস্তামী স্টেশনের সিনিয়র অফিসার মো. কামরুজ্জামান বলেন, খোরশেদ ম্যানসন নামে চারতলা ভবনটি হেলে পড়ে পার্শ্ববর্তী একটি পাঁচতলা ভবনের সঙ্গে ঠেকেছে। তবে এতে কেউ হতাহত হয়নি। আমরা ভবনটিসহ আশেপাশের ভবনের লোকজনকে নিরাপদে সরিয়ে দিয়েছি। হেলে পড়া ভবনটির পাশে নালা খননের কাজ চলছে। ধারণা করা হচ্ছে, এ কারণে ভবনটি হেলে পড়েছে।


আরও খবর



চলমান পরিস্থিতিতে উদ্বিগ্ন ব্যবসায়ীরা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৪ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৪ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

আন্তর্জাতিক ও অভ্যন্তরীণ চাপে বহুমুখী সংকটে পড়েছে দেশের ব্যবসা-বাণিজ্য। এ অবস্থা থেকে উত্তরণে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা একান্ত জরুরি। রাজনৈতিক দলগুলোকে জাতীয় অর্থনীতির স্বার্থে সব ধরনের সহিংস কর্মকাণ্ড পরিহারের আহ্বান জানিয়েছেন ব্যবসায়ী নেতারা।

মঙ্গলবার রাজধানীর গুলশানে এফবিসিসিআই কার্যালয়ে বিরাজমান বাণিজ্য ও অর্থনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে মতবিনিময় সভার আয়োজন করে সংগঠনটি। এফবিসিসিআই সভাপতি মাহবুবুল আলমের সভাপতিত্বে সভায় চলমান রাজনৈতিক সহিংসতা, ডলার সংকট, মূল্যস্ফীতি, বিলাসী পণ্যের আমদানি নিয়ন্ত্রণ, ব্যাংক ঋণ, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ, ব্যবসাবান্ধব পরিবেশ নিশ্চিতকরণ, এলসিসহ বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

দেশের রাজনৈতিক অস্থিরতা জাতীয় অর্থনীতিকে শঙ্কার দিকে ঠেলে দিচ্ছে উল্লেখ করে এফবিসিসিআই সভাপতি মাহবুবুল আলম বলেন, বিদ্যমান পরিস্থিতি দেশের সরবরাহ ব্যবস্থাকে (সাপ্লাই চেইন) ভীষণভাবে বিঘ্নিত করছে। যার প্রভাব পণ্যের উৎপাদন, বাজার মূল্য এবং রপ্তানি ও সেবা খাতের ওপরও পড়ছে। রাজনৈতিক দলগুলোকে জাতীয় অর্থনীতির স্বার্থে সব ধরনের সহিংস কর্মকাণ্ড পরিহারের আহ্বান জানান তিনি।

তিনি আরও বলেন, তৈরি পোশাক খাতে শ্রমিক-কর্মচারীদের চাহিদা অনুযায়ী মজুরি কমিশন গঠন এবং শ্রমিক-মালিক উভয় পক্ষের সঙ্গে আলোচনার ভিত্তিতে মজুরি পুনঃনির্ধারণ করা হয়েছে- যা অত্যন্ত ইতিবাচক পদক্ষেপ। তা সত্ত্বেও তৈরি পোশাক খাতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা চলছে। প্রকৃত শ্রমিকরা কোনোভাবেই ধ্বংসাত্মক কর্মকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত হতে পারে না বলে মনে করেন তিনি। পাশাপাশি ডলার সংকট সমাধান এবং মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে বাংলাদেশ ব্যাংককে আরও কার্যকরী ভূমিকা পালন এবং শিল্প কারখানায় উৎপাদন ব্যবস্থা অব্যাহত রাখতে নিরবচ্ছিন্ন জ্বালানি সরবরাহ নিশ্চিত করতে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

এফবিসিসিআইর সাবেক সভাপতি কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ বর্তমান সহিংস রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডের বিরুদ্ধে সারা দেশের সব চেম্বার, অ্যাসোসিয়েশনকে সঙ্গে নিয়ে ব্যবসায়ী সংহতি সমাবেশ আয়োজনের পরামর্শ দেন।

এফবিসিসিআইর সাবেক সভাপতি শেখ ফজলে ফাহিম অর্থনীতির এই সংকটের মুহূর্তে রাজনৈতিক সহিংস কর্মসূচি থেকে বিরত থাকার আহ্বান জানান। একইসঙ্গে বিদ্যমান সহিংস কর্মসূচির বিরুদ্ধে উদ্যোগ নেওয়ার পরামর্শ দেন। পাশাপাশি সরকারের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্তাব্যক্তিদের বিতর্কিত মন্তব্য থেকে বিরত থাকার আহ্বানও জানান তিনি।

অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলায় বাংলাদেশ ব্যাংক, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়, এনবিআর, কৃষি মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট অংশীজনদের মধ্যে সমন্বয় আরও জোরদার করতে এফবিসিসিআইকে কমিটি গঠনের পরামর্শ দেন তিনি।

এফবিসিসিআইর সাবেক সভাপতি জসিম উদ্দিন বলেন, ডলারের ওপর চাপ কমাতে পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে ব্যবসায়ীদের আরও সচেতন ভূমিকা পালন করতে হবে। প্রয়োজনে আগামী ৬ মাস থেকে এক বছর অপ্রয়োজনীয় ও বিলাসী পণ্য আমদানির হার আরও কমিয়ে আনতে হবে বলে মত দেন তিনি। অর্থনৈতিক সংকট থেকে উত্তরণে পণ্য আমদানির ক্ষেত্রে কাটছাঁটের বিকল্প নেই বলে মন্তব্য করেন তিনি।

তৈরি পোশাক খাতে সৃষ্ট সহিংস ঘটনায় বহিরাগতরা জড়িত উলে­খ করে বিজিএমইএ সভাপতি ফারুক হাসান বলেন, প্রকৃত শ্রমিকরা কখনো নিজ কারখানায় আগুন দিতে পারে না। উদ্দেশ্যমূলকভাবে তৈরি পোশাক খাতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা চলছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা চেম্বারের সভাপতি ব্যারিস্টার সামির সাত্তার, মেট্রোপলিটন চেম্বারের সভাপতি সাইফুল ইসলাম, বিকেএমইএর নির্বাহী সভাপতি মোহাম্মদ হাতেম, বিটিএমএর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফজলুল হক, বাংলাদেশ সড়ক পরিবহণ সমিতির মহাসচিব খন্দকার এনায়েত উল্যাহ, বাংলাদেশ দোকান মালিক সমিতির সভাপতি হেলাল উদ্দিন, নাসিবের সভাপতি মির্জা নুরুল গণি শোভন, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের সভাপতি আসিফ ইব্রাহীম, সিপিডির গবেষণা পরিচালক খন্দকার গোলাম মোয়াজ্জেম, পলিসি এক্সচেঞ্জ বাংলাদেশের চেয়ারম্যান ড. মাসরুর রিয়াজ প্রমুখ।


আরও খবর



কলকাতায় পি কে হালদারের বিচার শুরু ১২ ডিসেম্বর

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৭ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৭ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
কূটনৈতিক প্রতিবেদক

Image

বাংলাদেশ থেকে কয়েক হাজার কোটি টাকা আত্মসাত ও পাচারের অভিযোগে ভারতের পশ্চিমবঙ্গে গ্রেফতার প্রশান্ত কুমার হালদার ওরফে পি কে হালদারের বিরুদ্ধে মামলার বিচার কাজ শুরু হবে ১২ ডিসেম্বর। সেদিন কলকাতার নগর ও দায়রা আদালতের সিবিআই স্পেশাল কোর্টে মামলাটির চার্জ গঠন হওয়ার কথা রয়েছে।

শুক্রবার (১৭ নভেম্বর) একজন আইনজীবীর মৃত্যু হওয়ার কারণে হালদারসহ পাঁচজনকে আদালতে তোলা হলেও মামলাটির শুনানি হয়নি।

২০২২ সালের ১৩ মার্চ কলকাতার অদূরে উত্তর ২৪ পরগনা এলাকা থেকে সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে গ্রেফতার হন বাংলাদেশ থেকে কয়েক হাজার কোটি টাকা আত্মসাতে অভিযুক্ত পি কে হালদার। গ্রেফতারের পর জিজ্ঞাসাবাদে তার সঙ্গে আরও গ্রেফতার হন চারজন। এর মধ্যে পি কে হালদারের নিজের ভাই, দুই ভাগ্নি এবং কথিত এক বান্ধবী রয়েছে।

ভারতের কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা ইডি এই মামলাটি তদন্ত শুরু করে এবং মামলার ৮৪ দিনের মধ্যে অভিযোগপত্র দাখিল করে। প্রায় ২০ মাস ধরে পশ্চিমবঙ্গের বিচার বিভাগীয় হেফাজতে বন্দী রয়েছেন পি কে হালদারসহ আরও চারজন।

আলোচিত পিকে হালদার গ্রেফতার হওয়ার পর প্রশ্ন উঠে কবে তাকে বাংলাদেশে ফিরিয়ে নেয়া হবে। তবে গেল ২০ মাসেও বাংলাদেশের পক্ষ থেকে কলকাতার নগর ও দায়রা আদালতে এ সংক্রান্ত কোনো আবেদন জমা পড়েনি।

তাছাড়া মামলাটি বিচার প্রক্রিয়াও শুরু হয়নি। আগামী ১২ ডিসেম্বর চার্জ ফ্রেমের মধ্য দিয়ে বিকে হালদার এর বিরুদ্ধে মানি লন্ডারিং এবং দুর্নীতি দমন আইনে হওয়া মামলার বিচার প্রক্রিয়া শুরু হবে। তাই আইনগতভাবেই বাংলাদেশে ফেরানোর বিষয়টি এখনও অনিশ্চিত বলেই মনে করছেন সংশ্লিষ্ট আইনজীবীরা।

নিউজ ট্যাগ: পি কে হালদার

আরও খবর



গাজার স্কুলে ইসরায়েলি বিমান হামলা, নিহত ২০০

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকার আল-ফাখুরা স্কুলে ভয়াবহ বিমান হামলা চালিয়েছে ইসরায়েল। এতে অন্তত ২০০ জন নিহত এবং শত শত মানুষ আহত হয়েছেন।

শনিবার (১৮ নভেম্বর) গাজার উত্তরাঞ্চলের জাবালিয়া শরণার্থী শিবির জাতিসংঘের শরণার্থীবিষয়ক সংস্থার (ইউএনআরডব্লিউএ) পরিচালিত স্কুলটিতে হামলা চালায় ইসরায়েল।

বোমা হামলার পর সেখানকার বিভীষিকাময় ছবি সামনে আসছে। ছবিতে দেখা গেছে, আল-ফাখুরা স্কুলের অনেক কক্ষ ও করিডোরে ফিলিস্তিনিদের মরদেহ পড়ে আছে। নিহতদের মধ্যে অনেক শিশুও রয়েছে। 

আরও পড়ুন>> গাজায় নিহতের সংখ্যা ছাড়াল ১২ হাজার

গাজা থেকে আলজাজিরার প্রতিনিধি ইমাদ জাকৌত বলেন, স্বাভাবিক সময়ে জাবালিয়া শরণার্থী শিবির অত্যন্ত ঘনবসতিপূর্ণ থাকে। এই শরণার্থী শিবিরের ভেতরের কিছু বাসিন্দা ইসরায়েলি বাহিনীর নির্দেশে গাজা উপত্যকার দক্ষিণে পালিয়েছেন। আর অন্যরা কোনো নিরাপদ আশ্রয় খুঁজে পাননি। যে কারণে তারা জাতিসংঘ পরিচালিত স্কুলটিতে আশ্রয় নিয়েছিলেন। কিন্তু এখন স্কুলগুলোও আর নিরাপদ নয়।


আরও খবর



ভারতের অধিনায়ক হচ্ছেন সূর্যকুমার যাদব!

প্রকাশিত:শনিবার ১৮ নভেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ১৮ নভেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
ক্রীড়া প্রতিবেদক

Image

চলমান ওয়ানডে বিশ্বকাপের পরপরই অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজ খেলবে ভারত। বিশ্বকাপের মতো আসন্ন এই সিরিজ থেকেও ছিটকে গেছেন হার্দিক পান্ডিয়া। বিশ্বকাপে বাংলাদেশ ম্যাচে গোড়ালিতে যে চোট পেয়েছিলেন, তা থেকে এখনো পুরোপুরি সেরে ওঠতে পারেননি তিনি।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমের খবর, হার্দিকের অনুপস্থিতিতে ভারতকে নেতৃত্ব দেবেন হার্ডহিটার ব্যাটার সূর্যকুমার যাদব। খুব শীগ্রই এই সিরিজের স্কোয়াড ঘোষণা করবে বোর্ড অব কন্ট্রোল ফর ক্রিকেট ইন ইন্ডিয়া (বিসিসিআই)। 

আরও পড়ুন>> বিশ্বকাপের সমাপনী অনুষ্ঠানে পারফর্ম করবেন যারা

জানা গেছে, বিশ্বকাপের ঠিক পরেই এই সিরিজ হওয়ায় দ্বিতীয় সারির দল খেলাবে ভারত। যেখানে অভিজ্ঞ ক্রিকেটারদের বিশ্রাম দেওয়া হবে। তাই আসন্ন এই সিরিজে নেতা হিসেবে দেখা যাবে সূর্যকে। এর আগে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজে সহ-অধিনায়কের ভূমিকা পালন করেছিলেন তিনি।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নেতৃত্বের অভিজ্ঞতা না থাকলেও ঘরোয়া ক্রিকেটে অধিনায়কত্ব করেছেন সূর্য। ৩৩ বছর বয়সী এই ব্যাটার এর আগে রঞ্জি ট্রফিতে মুম্বাইকে নেতৃত্ব দিয়েছেন। তাছড়া ভারত যুব দলকেও নেতৃত্ব দিয়েছেন তিনি।

ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম 'ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসের' প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, জাতীয় নির্বাচকরা বিশ্বকাপে খেলা অধিকাংশ ক্রিকেটারকে বিশ্রাম দেওয়ার কথা ভাবছেন। তবে ইশান কিশান, প্রসিদ কৃষ্ণা কিংবা শার্দূল ঠাকুরের মতো ক্রিকেটারদের অস্ট্রেলিয়া সিরিজে দেখা যেতে পারে।


আরও খবর