আজঃ শুক্রবার ২১ জুন ২০২৪
শিরোনাম

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন সংশোধন করা হবে: আইনমন্ত্রী

প্রকাশিত:রবিবার ২১ মে ২০২৩ | হালনাগাদ:রবিবার ২১ মে ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

গণমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণ করা কিংবা মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে খর্ব করার জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন প্রণয়ন করা হয়নি। এ আইনের অপব্যবহার রোধে সমাধানের অংশ হিসেবে এর কিছু সংশোধনী আনা হবে।

রোববার (২১ মে) রাজধানীর মহাখালীতে ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ে বাংলাদেশে ডিজিটাল আইন ও মত প্রকাশের স্বাধীনতা শীর্ষক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক।

তিনি বলেন, সংলাপ এবং আলোচনা একটি গণতান্ত্রিক সমাজের চাবিকাঠি। তাই সরকার সমাজের বিভিন্ন অংশ এবং আন্তর্জাতিক সংস্থার সঙ্গে পরামর্শ করতে উৎসাহিত বোধ করে। সরকার ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের বিষয়ে জাতিসংঘ মানবাধিকার বিষয়ক হাইকমিশনার অফিসের সঙ্গে দীর্ঘ আলোচনা করেছে। তাদের কিছু ইনপুট আমরা পেয়েছি এবং এটি পর্যালোচনা চলছে।

আরও পড়ুন>> বড় ধরনের পরিবর্তন আসছে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের

মন্ত্রী বলেন, অনলাইনে নারীদের প্রায়ই হয়রানি করা হচ্ছে, যার সুরাহা হওয়া দরকার। ডিজিটাল স্পেসের যথেচ্ছ অপব্যবহারের মাধ্যমে দেশ, সরকার বা কোনও ব্যক্তির মানহানি করতে দেওয়া হবে না।

আনিসুল হক বলেন, সময়ের প্রয়োজনে বর্তমানে পুরো দেশ ডিজিটাল স্পেসে পরিচালিত হচ্ছে। আমাদের জাতীয় স্বার্থ এবং যারা ডিজিটাল আক্রমণের লক্ষ্যবস্তু ও আক্রমণের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ, তাদের রক্ষা করা দরকার। এ জন্য ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন দরকার। তাই এ আইন বাতিলের প্রশ্নই আসে না। তবে আইনটি সংশোধনের বিষয়ে পর্যালোচনা করা হচ্ছে। এটি অবশ্যই বিবেচনা করা হবে।

বাংলাদেশে জাতিসংঘের আবাসিক সমন্বয়কারী গোনেন লুইসের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সংসদ সদস্য আহসান আদেলুর রহমান, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক সৈয়দ মাহফুজুল আজিজ, সাংবাদিক মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, অধ্যাপক ড. কাবেরী গায়েনসহ আরও অনেকে বক্তব্য রাখেন।


আরও খবর



সাধারণ নির্বাচনে সর্বোচ্চ ভোটের বিশ্ব রেকর্ড গড়লো ভারত

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

সদ্য শেষ হওয়া ১৮তম লোকসভা নির্বাচনে সর্বোচ্চ ভোটের বিশ্ব রেকর্ড গড়েছে ভারত। দেশটির প্রধান নির্বাচন কমিশনার রাজিব কুমার জানিয়েছেন, এবারের নির্বাচনে মোট ভোট দিয়েছেন ৬৪ কোটি ২০ লাখ মানুষ, যার মধ্যে ৩১ কোটি ২০ লাখই নারী। পুরো বিশ্বে কোনো ধরনের নির্বাচনে এত মানুষের ভোট দেওয়ার নজির নেই।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম সংবাদ প্রতিদিনের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, এই রেকর্ডের পাশাপাশি ইউরোপের তিন দেশ যুক্তরাজ্য, জার্মানি ও ফ্রান্সের মোট জনসংখ্যাকেও টপকে গেছে এবারের লোকসভা নির্বাচনে ভোট দেওয়া নারীদের সংখ্যা। তাই নারীদের ভোটদানের নিরিখেও বিশ্বের বৃহত্তম দেশ এখন ভারত।

এক প্রেস ব্রিফিংয়ে রাজিব কুমার বলেন, বিশ্বের সবচেয়ে বড় গণতান্ত্রিক নির্বাচনে ৬৮ হাজারেরও বেশি মনিটরিং টিম এবং দেড় কোটি পোলিং ও নিরাপত্তা কর্মী নিয়োজিত ছিলেন।

এদিকে, এবার ভোট্রগহণ চলাকালীন নির্বাচনে কমিশনারদের লাপাত্তা জেন্টলম্যান আখ্যা দিয়ে মিম ভাইরাল হয়েছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। সাধারণ ভোটারদের অনেকের দাবি, নির্বাচনের মাঠে কমিশনাররা ঠিকঠাক দায়িত্ব পালন না করায় এই আখ্যা দেওয়া হয়েছে।

মিমের বিষয়ে ভারতের প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, আমরা আমাদের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করেছি। এখন মিমস শেয়ারকারীরা বলতে পারেন যে লাপাত্তা জেন্টলম্যানরা ফিরে এসেছেন।

রাজিব কুমার আরও বলেন, চলতি বছরের লোকসভা নির্বাচন পরিচালনার জন্য প্রায় চার লাখ যানবাহন, ১৩৫টি বিশেষ ট্রেন ও ১ হাজার ৬৯২টি প্লেন ব্যবহার করা হয়েছিল। বয়স্ক ভোটাররা যাতে তাদের ভোটাধিকার সঠিকভাবে প্রয়োগ করতে পারেন, তা নিশ্চিতেও নেওয়া হয়েছিল যথাযথ ব্যবস্থা।

এদিকে, ২০১৯ সালের নির্বাচনে ৫৪০টি আসনে পুনঃভোট হয়েছিল। সেখানে ২০২৪ সালের নির্বাচনে মাত্র ৩৯টি আসনে পুনঃভোট হয়েছে। তাছাড়া এবার জম্মু ও কাশ্মিরে চার দশকের মধ্যে সর্বোচ্চ ৫৮ দশমিক ৫৮ শতাংশ ভোট পড়েছে।

আর ২০১৯ সালে নির্বাচন চলাকালে নগদ অর্থ, বিনামূল্যে দেওয়া ‍কোনো জিনিস, মদসহ অন্যান্য মাদকদ্রব মিলিয়ে ৩ হাজার ৫০০ কোটি রুপি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছি। অন্যদিকে এবারের নির্বাচনে এই অর্থ প্রায় তিনগুণ বেড়েছে। এবার সবমিলিয়ে ১০ হাজার কোটি রুপি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে।

নিউজ ট্যাগ: লোকসভা নির্বাচন

আরও খবর



হরিজন পল্লী উচ্ছেদের প্রতিবাদে শেরপুরে বিক্ষোভ

প্রকাশিত:শনিবার ১৫ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ১৫ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মো. নাজমুল হোসাইন, শেরপুর

Image

বাংলাদেশের ৪০০ বছরের ইতিহাস সমৃদ্ধ ঢাকার বংশালের মিরনজিল্লা হরিজন পল্লী উচ্ছেদের প্রতিবাদে শেরপুরের হরিজনরা বিক্ষোভ সমাবেশ করেছেন।

১৫ জুন শনিবার বেলা ১১ টায় শহরের শীতলপুরস্থ হরিজন পল্লী থেকে হরিজনরা বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে শহরের নিউমার্কেট মোড়ে জড়ো হয়। পরে তারা সেখানে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করে।

বাংলাদেশ হরিজন ঐক্য পরিষদের শেরপুর জেলা শাখার সভাপতি বিমল হরিজনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে হরিজনদের আন্দোলনে একাত্মতা ঘোষণা করে বক্তব্য রাখেন,

জেলা জাসদের সভাপতি মনিরুল ইসলাম লিটন, বিডিইআরএমের সাধারণ সম্পাদক তাপস বিশ্বাস ও সাংগঠনিক সম্পাদক বিদ্বান বিশ্বাস, বাংলাদেশ হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের ছাত্র কল্যাণ পরিষদ শেরপুর জেলা শাখার সভাপতি শুভঙ্কর সাহা, বাংলাদেশ হরিজন ঐক্য পরিষদ শেরপুর জেলা শাখার কোষাধক্ষ্য বিপ্লব হরিজন, নারী নেত্রী মুক্তা হরিজন, সন্তোষ হরিজন, নন্দ কিশোর প্রমুখ বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা এসময়, বাংলাদেশের ৪০০ বছরের ইতিহাস সমৃদ্ধ হরিজন সম্প্রদায়কে অনৈতিকভাবে উচ্ছেদের প্রতিবাদ জানান। সেই সাথে তাদের পুনর্বাসনসহ চারটি পৃথক দাবি উত্থাপন করেন। দাবিগুলো হলো, ঢাকা বংশালে মিরনজিল্লা হরিজন পল্লীর উচ্ছেদ অভিযান বন্ধ করতে হবে এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন কর্তৃক অন্যায়ভাবে উচ্ছেদ অভিযানে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোকে পর্যাপ্ত ক্ষতিপূরণ প্রদান করতে হবে, শত শত বছর ধরে বসবাসকারী হরিজনদেরকে তাদের বসবাসকৃত ভূমিতে মালিকানা প্রদান এবং মানসম্মত বাসস্থান নির্মাণ করতে হবে, প্রতি হরিজন পরিবার থেকে অন্তত একজনকে ঢাকাসহ সকল সিটি কর্পোরেশন ও পৌরসভায় চাকরি প্রদানসহ সকল হরিজনদের চাকরির নিশ্চয়তা প্রদান করতে হবে।

আদালতের বেঁধে দেওয়া নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সরকার দাবি না মানলে পরবর্তী আন্দোলনে যাবেন বলে জানান হরিজন নেতৃবৃন্দরা।


আরও খবর



ঘূর্ণিঝড় রেমাল: ঝালকাঠিতে মৎস্য কৃষি বিভাগে ক্ষতির পরিমান ৮১ কোটি টাকা

প্রকাশিত:শুক্রবার ৩১ মে ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ৩১ মে ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ঝালকাঠি প্রতিনিধি

Image

ঝালকাঠি জেলায় ঘূর্ণিঝড় রেমালের কারণে শহরে ৬৪ ঘন্টায় বিদ্যুৎ সরবরাহ চালু করা সম্ভব হয়নি। জেলায় বেড়িবাঁধ, কৃষি ও মৎস্য বিভাগের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়েছে। বিশেষ করে জেলার ঝালকাঠি কাঠিালিয়া রাজাপুর উপজেলার মোট ৭০ কিলোমিটার বেড়ি বাঁধের অধিকাংশই ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এছাড়াও এ পর্যন্ত জেলার কৃষি বিভাগে ৭১ কোটি টাকা এবং মৎস্য বিভাগে প্রায় ১০ কোটি টাকার ক্ষতি সাধন হয়েছে। ক্ষয় ক্ষতির পরিমান ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। পাশাপাশি মোবাইলের সকল নেটওয়ার্ক বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

জেলা পানি উন্নয়ন বিভাগের সূত্র জানায়, ঝালকাঠি সদর উপজেলায় ১১ কিলোমিটার, রাজাপুর উপজেলায় ১৫০ মিটার এবং কাঠালিয়া উপজেলায় ৪ কিলো মিটার বেড়ি বাঁধ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। তবে এই ক্ষয় ক্ষতির হিসেবে টাকার পরিমান কত তা জানাতে পারেনি পানি উন্নয়ন বিভাগ। সূত্র মতে জেলার বাঁধ সংস্কারে গত অর্থ বছরে কোন বরাদ্দ পাওয়া জায়নি। চলতি অর্থ বছরেও এখন পর্যন্ত বেড়ি বাঁধ সংস্কার বা নির্মানে কোন বরাদ্দ না এলেও নদী তীর সংরক্ষণে ৩ কোট টাকা বরাদ্দ পাওয়া গেছে বলে জানা যায়। যদি চাহিদা ছিল ১৬৫ কোটি টাকা।  তবে নজিরবিহীন জলোচ্ছাসের কারণে জেলার নদী ভাঙ্গনও বৃদ্ধি পেয়েছে।

এ বিষয়ে ঝালকাঠি পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী এ.কে.এম নিলয় পাশা জানান, জেলার বেড়ি বাঁধের সমিক্ষা চলমান। তবে রেমালে ক্ষতিগ্রস্থ বাঁধের ক্ষয়ক্ষতি নিরুপণ করে চলমান সমিক্ষায় অন্তর্ভূক্ত করা হবে। রাজাপুর কাঠালিয়া নদী ভাঙ্গন এলাকার সমিক্ষা জুন মাসে শেষ হবে। এরপর প্রকল্প প্রস্তুত করে অনুমোদনের জন্য প্রেরণ করা হবে।

ঝালকাঠি জেলা কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগের সূত্র অনুযায়ি এ ঘূর্ণিঝড়ে পানিয়ে তলিয়ে মোট ক্ষয় ক্ষতির পরিমান ৭১ কোটি টাকা। এরমধ্যে সম্পূর্ন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে রোপা আমনসহ বীজতলা ৭ হাজার ৩১৩ হেক্টর জমির। এছাড়াও আখ, চিনাবাদাম, তিল, মরিচ, হলুদ, পেপে, কলা, পান, পাটসহ বিভিন্ন ধরনের মৌসুমি ফসলের অধিকাংশ বিনষ্ট হয়েছে।

জেলা মৎস্য বিভাগের তথ্য অনুযায়ি অতিবৃষ্টি বণ্যা ও প্রবল জোয়ারের কারণে ৩ হাজার ৩৬১ টি পুকুর, ১৫৯ টি ঘের তলিয়ে মাছ ভেসে গেছে। এতে মাছ ও পোনাসহ চাষিদের ক্ষতির পরিমান ৯ কোটি ৪৬ লাখ টাকা।

এ বিষয়ে জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. রবিউল ইসলাম জানান, আমরা প্রাথমিক ভাবে এই ক্ষতির পরিমার নিরুপন করে দপ্তরে পাঠানো হয়েছে। এই ক্ষতি পোষাতে সরকার প্রয়োজনীয় সহায়াতা দিবে।

এদিক ঝালকাঠিতে রেমালের আঘাতের আগে থেকেই বিদ্যুৎ সরবরা বন্ধ হয়ে যায়। ঘূণিঝড়ে বিদ্যুত বিভাগের ক্ষয় ক্ষতির কারণে গাছপালা ও খুটি পরে যাওয়ায় জাতীয় গ্রীড থেকে ঝালকাঠি জেলা বিদ্যুৎ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে।


আরও খবর



জামায়াতের রাজনীতি সমর্থন করি না: ফখরুল

প্রকাশিত:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | হালনাগাদ:রবিবার ০২ জুন 2০২4 | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, আমি জামায়াতের রাজনীতি সমর্থন করি না। কিন্তু তাদের যে সাংগঠনিক কাঠামো তা অত্যন্ত বিজ্ঞানসম্মত। নিজেরা নিজেরা পড়ালেখা করে ও পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে হয়।

রোববার (২ জুন) দুপুরে ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবের এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা ও সাবেক প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমানের ৪৩ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এই আলোচনা সভার আয়োজন করে জিয়াউর রহমান ফাউন্ডেশন (জেডআরএফ)।

ফখরুল বলেন, ক্ষমতাসীন সরকার দেশপ্রেমিক নয়, ওরা বর্গী। সেজন্যই দেশের টাকা লুটে বিদেশে নিয়ে যাচ্ছে। ক্ষমতাসীনরা আজ দুর্নীতিতে আকণ্ঠ নিমজ্জিত। জাতি এখন দ্বিধা বিভক্ত। জিয়াউর রহমান তো নিজে রাজনীতিতে আসেননি। তাকে নিয়ে আসা হয়েছিল। ৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় তার নেতৃত্ব দেখে ৭৫ সালে সৈনিকেরা তাকে ফের দায়িত্ব দিয়েছিলেন।

তিনি বলেন, আজকে পত্রিকা খুললে শুধু লুট আর লুটের খবর। কারা লুট করছে? যারা বড় বড় কর্তা। সেই আর্মির প্রধান, পুলিশের সাবেক আইজি তারা কী করেছে? সংসদে ভদ্রলোক কয়জন খুঁজে পাবেন? বাংলাদেশ ব্যাংক লুট করছে। রিজার্ভের ডলার লুট করে নিয়ে যাচ্ছে। শেয়ার বাজারে রথি মহারথিরা লুট করছে। তারা এতো বড় মানুষ তাদের পাশে যাওয়া যায় না। কেউ দরবেশ, কেউ মাফিয়া, কেউ হুজুর। আজকে চট্টগ্রামে ইসলামী ব্যাংক থেকে ১৫০ ভরি স্বর্ণ গায়েব হয়ে গেছে। কোথাও কোনো জবাবদিহিতা নেই।

বিএনপির মহাসচিব বলেন, জিয়াউর রহমানের পররাষ্ট্রনীতি জানলে আশ্চর্য হতে হবে। তিনি দেশকে একটি তলাবিহীন ঝুড়ি থেকে সমৃদ্ধ বাংলাদেশে পরিণত করেছিলেন। ক্ষমতায় আসার পর দেশের গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে সুসংহত করতে উদ্যোগ নেন। সকল রাজনৈতিক দলগুলোর সঙ্গে আলোচনা করেছিলেন। তিনি ছিলেন দেশপ্রেমিক। সেজন্যই সকল রাজনৈতিক দল তার ওপর আস্থা রেখেছিল। কমিউনিস্ট পার্টি ও মোজাফফর সাহেবের ন্যাপ জিয়াউর রহমানের ১৯ দফাকে সমর্থন দিয়েছিলেন।

সংগঠনের নির্বাহী পরিচালক অধ্যাপক ডা. ফরহাদ হালিম ডোনারের সভাপতিত্বে ও শাহাদাত বার্ষিকী উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক প্রকৌশলী মাহবুব আলমের সঞ্চালনায় সভায় বক্তব্য দেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞানের সাবেক শিক্ষক অধ্যাপক ড. নূরুল আমিন বেপারী, সম্মিলিত পেশাজীবী পরিষদের সদস্য সচিব কাদের গণি চৌধুরী প্রমুখ।


আরও খবর



সিরিয়ায় ইসরায়েলি বিমান হামলায় নিহত ১২

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০৩ জুন ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

সিরিয়ায় ইসরায়েলি বাহিনীর হামলায় ১২ জন নিহত হয়েছে। যুক্তরাজ্যভিত্তিক সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস (এসওএইচআর) জানিয়েছে, সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে অবস্থিত আলেপ্পো শহরের কাছে একটি কারখানায় ইসরায়েলি হামলায় অন্তত ১২ ইরানপন্থী যোদ্ধা নিহত হয়েছে।

সিরিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় নিহতের সঠিক সংখ্যা নিশ্চিত করেনি। শুধুমাত্র জানানো হয়েছে যে, মধ্যরাতের কিছু সময় পর... ইসরায়েলি শত্রুরা আলেপ্পোর দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে কিছু অবস্থান লক্ষ্য করে বিমান হামলা চালিয়েছে। এতে বেশ কয়েকজন নিহত হয়েছে এবং সম্পদের ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।

সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে, আলেপ্পোর উত্তরে অবস্থিত হায়ান শহরে হামলায় বেশ কয়েকজন সিরীয় এবং বিদেশি যোদ্ধা নিহত হয়েছেন। হামলার পর একটি কারখানায় শক্তিশালী বিস্ফোরণের খবর পাওয়া গেছে।

ইসরায়েল সিরিয়ায় এ পর্যন্ত কয়েকশ বার হামলা চালিয়েছে। যদিও তারা প্রতিবেশী দেশটির বিরুদ্ধে চালানো সামরিক অভিযানের কথা খুব কমই স্বীকার করেছে। বেশিরভাগ সময়ই তারা হামলা চালানোর কথা অস্বীকার করেছে।

ইসরায়েলের সামরিক কর্মকর্তারা বলছেন, হিজবুল্লাহসহ ইরান-সমর্থিত যোদ্ধারাই সিরিয়ায় হামলার মূল লক্ষ্য। গত ৭ অক্টোবর ইসরায়েলের সীমান্তে প্রবেশ করে আকস্মিক হামলা চালায় ফিলিস্তিনি স্বাধীনতাকামী সংগঠন হামাস। এরপরেই গাজায় পাল্টা আক্রমণ শুরু করে ইসরায়েল। গাজায় হামাসের বিরুদ্ধে ইসরায়েলের যুদ্ধ ঘোষণার পর থেকেই সিরিয়ায় ইসরায়েলের হামলা বেড়ে গেছে।


আরও খবর