আজঃ সোমবার ০৮ মার্চ ২০২১
শিরোনাম

দলীয় প্রতীক থাকছে না ইউপি নির্বাচনে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৩০৯৮জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
স্থানীয় সরকার নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দলে ক্ষোভ-বিক্ষোভ ও বিদ্রোহ দমন করতে সর্বোচ্চ কঠোর অবস্থান জানানো হলেও কার্যত সুফল আসছে না

আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নির্দলীয়ভাবে করার কথা ভাবছে সরকার। ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী কয়েকজন নেতা এ ইঙ্গিত দিয়ে বলছেন, আসন্ন সংসদ অধিবেশনে এ সংক্রান্ত আইনের সংশোধন করা হবে।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর গুরুত্বপূর্ণ এক নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, মার্চ-এপ্রিলে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও এ নির্বাচন নিয়ে বিকল্প চিন্তা করায় নির্ধারিত সময়ে ওই নির্বাচন হচ্ছে না। পিছিয়ে চলতি বছরের মে-জুন থেকে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন শুরু হওয়ার কথা। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নির্দলীয় করতে আইনি বাধ্যবাধকতা বা জটিলতা থাকলে এর আগে তা দূর করা হবে। তিনি আরও বলেন, আমার জানামতে নির্বাচন কমিশনের সঙ্গেও এ ব্যাপারে আলোচনা চলছে সরকারের। স্থানীয় সরকার নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দলে ক্ষোভ-বিক্ষোভ ও বিদ্রোহ দমন করতে সর্বোচ্চ কঠোর অবস্থান জানানো হলেও কার্যত সুফল আসছে না। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন দলীয় প্রতীকে থাকলে পৌরসভা-উপজেলা নির্বাচনের চেয়ে এখানে চারগুণ বেশি বিদ্রোহী থাকবে। কেন্দ্রীয় কড়া নজরদারি থাকলেও নিয়ন্ত্রণ করা দুঃসাধ্য হয়ে পড়বে। আওয়ামী লীগের সম্পাদকমন্ডলীর এক সদস্য বলেন, আইনি জটিলতা দূর করা অসম্ভব হয়ে দাঁড়ালে এমনও হতে পারে উপজেলা নির্বাচনে ভাইস চেয়ারম্যান পদে নির্বাচন যেভাবে উন্মুক্ত রাখা হয়েছে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও সে নিয়ম অনুসরণ করা হতে পারে।

নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের এ ধরনের কথাবার্তা সম্পর্কে জানতে চাইলে দলের অন্য নেতারা বলেন, ব্যাপারটি সম্পর্কে পুরোপুরি ধারণা নেই। তবে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নির্দলীয় হলে ভালো হবে, বেঁচে যাই। গতকাল বুধবার গুরুত্বপূর্ণ এক নেতার সংসদ ভবনের অফিসে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন নিয়ে এলাকার নেতারা কথা বলতে এলে তিনি ওইসব নেতাকে বলেন, এবার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন দলীয় প্রতীকে নাও হতে পারে। এ সম্পর্কে তার কাছে আরও জানতে চাইলে তিনি বলেন, দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হলে আমরা যারা সংসদ সদস্য তারা বেশ বেকায়দায় পড়ে যাই। আগামী সংসদ অধিবেশনে এ ব্যাপারে আইনি বাধা দূর করা হতে পারে।

এ প্রসঙ্গে নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম গতকাল বলেন, কমিশন সচিবালয় থেকে এখনো নির্বাচন পেছানোর ব্যাপারে কিছু উপস্থাপন করা হয়নি। যখন উপস্থাপন করা হবে তখন আমরা দেখব। দেখেশুনে তারপর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হবে। স্থানীয় সরকারের ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন দলীয় প্রতীকে হবে কি না এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এটা তো স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের ব্যাপার। এখন পর্যন্ত যে আইন আছে তাতে চেয়ারম্যান পদে দলীয় প্রতীকে নির্বাচন হওয়ার কথা । যদি আইন পরিবর্তন করা হয় তাহলে দলীয় প্রতীকে হবে না।

সভাপতিমন্ডলী, সম্পাদকমন্ডলীর একাধিক সদস্য বলেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচন আইন পরিবর্তন করে ২০১৬ সাল থেকে স্থানীয় সব নির্বাচনই দলীয় প্রতীকে শুরু করে ক্ষমতাসীনরা। পাশ্চাত্যের রাজনৈতিক সংস্কৃতি ফলো করে রাজনৈতিক সুফল পাওয়ার আশায় স্থানীয় সরকার নির্বাচন পদ্ধতি পরিবর্তন করে সরকার। দলীয় প্রতীকে নির্বাচন আয়োজনের মধ্য দিয়ে যে বৈরী পরিস্থিতির মুখোমুখি পড়তে হয়েছে সেখান থেকে দলকে বের করে আনতে স্থানীয় সরকার নির্বাচন নিয়ে নতুন করে ভাবতে হচ্ছে ক্ষমতাসীন দলকে। রাজনৈতিক সুফল আশা করে আইনগত পরিবর্তন আনা হলেও এ পর্যায়ে দলটির সর্বস্তরের নেতা এবং কর্মী সবারই এক কথা দলীয় প্রতীকে স্থানীয় নির্বাচন চালু করার মধ্য দিয়ে লাভের চেয়ে ক্ষতিই বেশি হয়েছে। প্রতীকে নির্বাচন হিতেবিপরীত বলে মনে করছে ক্ষমতাসীন দলের নীতিনির্ধারণী পর্যায়।

নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের দাবি, দলীয় প্রতীকে নির্বাচন পদ্ধতি চালুর ভেতর দিয়ে দলীয় শৃঙ্খলা ভেঙে গেছে। আগের যেকোনো সময়ের চেয়ে দলের ভেতরে দলাদলি বেড়েছে। দুর্নীতি-দুর্বৃত্তায়ন ও অনিয়ম সব বেড়েছে নির্বাচনী এ নিয়মে। সারা দেশে কেউ কাউকে মানছে না এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে স্থানীয় নির্বাচন দলীয় প্রতীকে করার নিয়মে। এর মধ্য দিয়ে দলীয় রাজনীতি ক্ষতির সম্মুখীন হচ্ছে। তাই স্থানীয় সরকারের অধীনে আগামী ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন দলীয় প্রতীকে করতে আর চায় না সরকারি দল। আগের নিয়মেই হবে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন। আওয়ামী লীগের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের একাধিক নেতা এ তথ্য জানিয়ে বলেন, মার্চের শেষের দিকে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন হওয়ার কথা থাকলেও পিছিয়ে যাচ্ছে এ নির্বাচন। নির্দলীয় নির্বাচন আয়োজনের জন্য আইনি যেসব বাধ্যবাধকতা রয়েছে সামনের সংসদ অধিবেশনে তা সংশোধন করার প্রস্তাব আনা হবে। এজন্য পিছিয়ে দেওয়া হবে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমন্ডলীর সদস্য ড. আবদুর রাজ্জাক বলেন, দলীয় প্রতীকে নির্বাচন অনুষ্ঠানের ফলে দলীয় রাজনীতিতে তুমুল দলাদলি সৃষ্টি হয়েছে। এ নির্বাচনগুলোতে বিদ্রোহী প্রার্থী শূন্যের কোঠায় নামিয়ে আনতে হিমশিম খেতে হচ্ছে আমাদের। নির্দলীয় নির্বাচন হলে তৃণমূলে বিরোধপূর্ণ সম্পর্ক কমবে, এটা ঠিক। তিনি বলেন, প্রত্যেক ইউনিয়ন-উপজেলা ও পৌরসভায় একাধিক যোগ্য প্রার্থী থাকে। কিন্তু আওয়ামী লীগকে বেছে নিতে হয় একজনকে। যারা মনোনয়নবঞ্চিত হন তারা ক্ষুব্ধ হন। ফলে দলাদলি তৈরি হয়।

সূত্র: দেশ রূপান্তর

নিউজ ট্যাগ: আওয়ামী লীগ
Share

আরও খবর



ইরাকে শান্তির জন্য মুসলিম-খ্রিস্টানদের এক হতে বললেন পোপ

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ০৭ মার্চ ২০২১ | ৫৭জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আন্তর্জাতিক ধর্মীয় নেতা পোপ ফ্রান্সিস শান্তির জন্য ইরাকের মুসলিম ও খ্রিস্টান ধর্মীয় নেতাদের বৈরিতা দূরে রেখে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার আহ্বান জানিয়েছেন। দক্ষিণ ইরাকে হজরত ইব্রাহিম (আঃ) এর ঐতিহাসিক জন্মভূমি ধ্বংসপ্রাপ্ত উর শহরে আন্তঃধর্মীয় নেতাদের মধ্যেকার এক বৈঠকে শনিবার (৬ মার্চ) তিনি এ আহ্বান জানান।

ধর্মীয় ও জাতিগত বিভেদ প্রভাবিত ইরাকে আন্তঃধর্মীয় সহিষ্ণুতা ও ভ্রাতৃত্বের বার্তাকে আরও জোরদার করতে প্রথমবারের মতো দক্ষিণ ইরাকের ধ্বংসপ্রাপ্ত উর শহর ভ্রমণ করেন পোপ ফ্রান্সিস।

এসময় ধর্মীয় নেতাদের উদ্দেশে পোপ ফ্রান্সিস বলেন, স্রষ্টার ইবাদত করা এবং প্রতিবেশীদের ভালোবাসাই হলো প্রকৃত ধর্ম। মুসলিম, খ্রিস্টান, ইহুদী সবার নবী ইব্রাহিমের সন্তান হিসেবে শান্তির জন্য প্রার্থণা করতে, আমাদের উৎসে ফিরে যেতে, স্রষ্টার সৃষ্টির উৎসে, আমাদের ধর্মের জন্মের দিকে ফিরে যেতে উর শহরে একত্রিত হওয়া উপযুক্ত ছিল। শত্রুতা, উগ্রবাদ ও সহিংসতা ধর্মের হৃদয় থেকে জন্ম নেয় না, এগুলো ধর্মের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা।

নিউজ ট্যাগ: পোপ
Share

আরও খবর



বিস্কুটের প্রলোভনে শিশুকে ধর্ষণচেষ্টা

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১ | ৮৯জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

এক শিশুকে বিস্কুট দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে এক বৃদ্ধ দোকানির বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে সাতক্ষীরা সদর উপজেলা যোগরাজপুরে। ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকায় অভিযুক্ত বৃদ্ধ আবুল হোসেনকে (৬৫) আটক করেছে পুলিশ। গতকাল বৃহস্পতিবার (৪ মার্চ) রাতে ওই বৃদ্ধের বাড়ি থেকে তাকে আটক করা হয়। নির্যাতনের শিকার শিশুটিকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

প্রথম শ্রেণিতে পড়ুয়া ওই শিশুটির মা জানান, গত মঙ্গলবার (২ মার্চ) তার ৫ বছরের শিশু কন্যা বাড়ির পাশের দোকানে যায় বিস্কুট কিনতে। দোকানি আবুল হোসেন টাকা লাগবে না বলে পাশের বাড়িতে নিয়ে শিশুটিকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এরপর শিশুটি বাড়িতে এসে তার মাকে জানালে তিনি ঘটনার বিচার চাইতে স্থানীয় মফিজুল মেম্বরের কাছে গেলে ওই নির্যাতনকারী বৃদ্ধ তার আত্মীয় হওয়ায় মিমাংসার নামে ৩ দিন ঘোরায়। এক পর্যায়ে আহত শিশুটিকে গতকাল বৃহস্পতিবার বিকালে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করে তার পরিবার।

খবর পেয়ে সাতক্ষীরা সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আসাদুজ্জামানের তাৎক্ষনিক নির্দেশে এসআই হাসানুজ্জামান হাসপাতালে গিয়ে প্রাথমিক তদন্ত শেষে রাতেই আবুল হোসেনকে আটক করে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরর প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।

নিউজ ট্যাগ: ধর্ষণচেষ্টা
Share

আরও খবর



সাতক্ষীরায় বড় ভাইয়ের হাতে ছোট ভাই খুন

প্রকাশিত:সোমবার ০৮ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০৮ মার্চ ২০২১ | ৫৪জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

জমিসংক্রান্ত বিরোধে জের ধরে সাতক্ষীরার তালা উপজেলার পাটকেলঘাটায় বড় ভাইয়ের দায়ের কোপে ছোট ভাই খুন হয়েছেন। রোববার (৮ মার্চ) গভীর রাতে এ ঘটনা ঘটে। নিহত ছোট ভাই মন্তাজ মল্লিক (৩৫) পাটকেলঘাটার জগনান্দকাটি গ্রামের মজিদ মল্লিকের ছেলে।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, মজিদ মল্লিক তার ছেলেদের মধ্যে জমিজমা ভাগ করে দিয়েছেন। বন্ঠনকৃত জমির সীমানা ও অবস্থান নিয়ে বিগত কয়েক মাস ধরে বড় ভাই শাহাজাহান মল্লিকের সঙ্গে ছোট ভাই মন্তাজ মল্লিকের বিরোধ চলে আসছিল।

সম্প্রতি তা চরম আকার ধারণ করে। মন্তাজ মল্লিক পাটকেলঘাটা বাজারের একটি গ্যারেজে মিস্ত্রি হিসেবে কর্মরত ছিলেন। গতকাল রোববার রাত ১১টার দিকে কাজ শেষে তিনি বাড়িতে ফেরার জন্য বাজার থেকে মোটরসাইকেলে রওনা দেন। বাড়ির পাশে এসে পৌঁছালে বড় ভাই শাহাজাহান মল্লিক দা দিয়ে তাকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকেন। এতে তিনি গুরুতর আহত হন।

মুমূর্ষু অবস্থায় তাকে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য খুলনা মেডিকোল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর পরামর্শ দেন। খুলনায় নেয়ার পথে তিনি মারা যান।

পাটকেলঘাটা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী ওয়াহেদ মোর্শেদ ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, মন্তাজ মল্লিকের মরদেহ উদ্ধার করে সকালে ময়নাতদন্তের জন্য সাতক্ষীরা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়েছে। 

নিউজ ট্যাগ: খুনের অভিযোগ
Share

আরও খবর



ভূঞাপুরে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে ছাই পাঁচটি দোকান

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১ | ৮২জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শুক্রবার (৫ মার্চ) ভোর সাড়ে ৬টায় হাজী মার্কেটে এ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। পরে ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় লোকজন একঘণ্টার চেষ্টায় সাড়ে ৭টার দিকে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। আগুনের লেলিহান শিখায় পুড়ে যায় টিভি, ফ্রিজ, জুতার দোকানসহ ৫টি দোকান। এতে ক্ষতি হয়েছে প্রায় ২০ লাখ টাকা। বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হতে পারে বলে জানিয়েছে ফায়ার সার্ভিস।

স্থানীয়রা জানান, ফজরের নামাজ শেষে মুসুল্লিরা বাসায় ফেরার সময় হাজী মার্কেটের একটি দোকানে হঠাৎ আগুন দেখতে পান। মুহূর্তেই আগুন পাশের দোকানে ছড়িয়ে পড়ে। পরে তারা ভূঞাপুর ফায়ার স্টেশনে খবর দেন। ফায়ার সার্ভিস ও স্থানীয় লোকজন আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন।

ক্ষতিগ্রস্ত দোকান মালিক ইব্রাহীম আকন্দ বলেন, আমার চারটি দোকানে টিভি, ফ্রিজ ও প্লাস্টিকের ফার্নিচার ছিলো। সব পুড়ে ছাই হয়ে গেছে। কিছুই বের করতে পারিনি। ১৬ লাখ টাকার মালামাল নিমিষেই পুড়ে ছাই হয়ে গেছে।

এ বিষয়ে ভূঞাপুর ফায়ার সার্ভিসের লিডার একাব্বর আলী জানান, খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসের দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌছে অল্প সময়ের মধ্যে স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হন। বৈদ্যুতিক শর্ট সার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হতে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি।

Share

আরও খবর



যৌবনে পা রাখার সাথেই বিয়ে করার উপকারিতা

প্রকাশিত:শনিবার ০৬ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৬ মার্চ ২০২১ | ১২৭জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বিয়ে করার সঠিক বয়স নিয়ে বিতর্কের শেষ নেই। কারো মতে একটু বেশি বয়সে বিয়ে করা ভালো। কেননা বিয়ের সঙ্গে অর্থনীতির বিষয় জড়িত। কারো কারো মতে আবার পড়াশোনা শেষ হওয়ার পরই বিয়ে করা ভালো। তবে যে যাই মনে করুক না কেন, দ্রুত বিয়ে করাই বুদ্ধিমানের মতো কাজ। যৌবনে পা রাখার পর বিয়ে করার ফলে জীবন অনেক সহজ হয়ে যায়। এতে করে ছোটখাটো বিভিন্ন সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। আগের থেকে দায়িত্বশীল হয়ে উঠা যায়। এবার তাহলে কম বয়সে বিয়ে করার উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নেয়া যাক-

অল্প বয়সে বিয়ে করার ফলে দ্রুত সন্তান নেয়ার চাপ আসবে না। সন্তান জন্মের পর তাদের পড়াশোনা নিয়ে প্রথম থেকেই ভাবতে হবে না। স্বামী-স্ত্রী দুজন প্রেমিক-প্রেমিকা হয়ে ঘুরে বেড়াতে পারবেন।

কথায় আছে একজনের থেকে দুজন ভালো। বিষয়টি সবারই বুঝতে পারার কথা। সব সুখ-দুঃখ একা ভোগ করার থেকে দুজন একসঙ্গে ভোগ করার ফলে আনন্দ আরও বেড়ে যায়। এছাড়াও মন খারাপের কথাগুলো কাছের মানুষের সঙ্গে আলোচনা করার ফলে মনও হালকা হয় অনেক। ফলে মানসিক চাপটাও অনেক কম থাকে।

বেশি বয়সে বিয়ে করলে বিভিন্ন সমস্যা হয়। কোনও কোনও নারী বা পুরুষ সন্তান জন্মদানে জটিলতায় পড়েন। গর্ভধারণে সমস্যা হয়। আবার সন্তান জন্মদানের পর তাকে লালন-পালনে যথেষ্ট সময়ও পাওয়া যায় না।

আজকাল হঠাৎ করেই বিয়ের সিদ্ধান্ত নিতে হয় অনেক পরিবারে। ফলে ডিভোর্সের সংখ্যাও প্রতিনিয়ত বাড়ছে। বিপরীতে যদি অল্প সময়ে বিয়ে করা হয় তাহলে ডিভোর্স হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে। আবার ডিভোর্স হলেও নতুন করে জীবনকে গড়ে তোলার জন্য যথেষ্ট সময় পেয়ে থাকেন তারা।

সন্তান প্রাপ্ত বয়স হওয়ার পরও বিয়ে না করালে সেই সন্তান অবৈধ সম্পর্কে জড়িয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে। এতে সামাজিক সম্মানহানিও হয়। বিপরীতে সন্তানকে যদি অল্প বয়সে বিয়ে দেয়া হয় তাহলে কিন্তু এই ভয় থাকবে না। সন্তান শৃঙ্খলার মধ্যে থাকবে এবং সে দায়িত্বশীল হয়ে উঠবে।

Share

আরও খবর