আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

দুদকে ষড়যন্ত্রকারীরা ছিল, এখনো আছে : রাষ্ট্রপতি

প্রকাশিত:শনিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শনিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

Image

রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন বলেছেন, দুর্নীতি দমন কমিশনে (দুদক) উদ্দেশ্যমূলকভাবে ষড়যন্ত্রকারীরা ছিল এবং এখনো আছে। এই ষড়যন্ত্রকারীরা পদ্মাসেতু দুর্নীতির অভিযোগ ভিন্ন খাতে নেওয়ার চেষ্টা চালিয়েছিল।

শনিবার (৯ ডিসেম্বর) সকালে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় শিল্পকলা একাডেমিতে আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস-২০২৩ উপলক্ষে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

২০১১ থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত মো. সাহাবুদ্দিন দুদক কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ওই সময়ে পদ্মাসেতু দুর্নীতির মামলার বিভিন্ন দিক নিয়ে কথা বলেন রাষ্ট্রপতি।

পদ্মাসেতুতে দুর্নীতির অভিযোগ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, দেশকে নানাভাবে বিব্রত করার চেষ্টাকে ন্যায়ের সঙ্গে আইনের মাধ্যমে আমরা প্রতিহত করেছি। দুদকের সবাইকে আমি সাধুবাদ জানাই। সত্য কথা বলতে গেলে সবাই একমত হয় না। দু-একজন দ্বিমত করার চেষ্টা করেই। সেই ষড়যন্ত্রকারীদের উদ্দেশ্য সেদিন আমি ধরতে পারি। তখন আমি এজাহার বদল করতে বলি।

রাষ্ট্রপতি বলেন, উদ্দেশ্যমূলকভাবে দুদকে ষড়যন্ত্রকারীরা ছিল, এখনো আছে। আমি (বর্তমান) চেয়ারম্যানকে একসময়ে এসব ব্যাপারে বলবোও, কারা তখন আমাদের বিচলিত বা বিব্রত করার চেষ্টা করেছে।

তিনি বলেন, দুর্নীতি সহনীয় পর্যায়ে আছে বলে সরকারের উন্নয়নমূলক মেগা প্রকল্পগুলো নিয়ে কোনো অভিযোগ উত্থাপন হয়নি। এটা সরকারের সাফল্য, সরকারের কর্মকর্তাদের সাফল্য। দুর্নীতি দমনে সরকারের জিরো টলারেন্স রয়েছে। এটি বর্তমান সরকারের রাজনৈতিক অঙ্গীকার।

দুর্নীতিকে প্রান্তিক উন্নয়নের সবচেয়ে বড় বাধা উল্লেখ করে মো. সাহাবুদ্দিন বলেন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের জিরো টলারেন্স নীতি যথাযথভাবে কার্যকর করা গেলে উন্নয়নের অগ্রযাত্রা আরও গতি পাবে।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান বলেন, আসুন উন্নয়ন, শান্তি ও নিরাপত্তার লক্ষ্যে আমরা ঐক্যবদ্ধ হই। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণ করি। বর্তমান বাস্তবতায় দুদকের সামনে বহুমুখী চ্যালেঞ্জ বিদ্যমান। এ কারণে দুদককে দুর্নীতি দমন ও নিয়ন্ত্রণে গতানুগতিক প্রক্রিয়ায় মামলা মোকাদ্দোমা না করে সার্ভিল্যান্স, ইনভেস্টিগেশন এবং মামলা পরিচালনা ও রেকর্ড ব্যবস্থাপনায় আধুনিকীকরণের ব্যবস্থা করতে হবে।

দুদককে নিজস্ব আলাদা প্রসিকিউশন ইউনিট করার তাগিদ জানিয়ে তিনি বলেন, এটি হলে আদালতে দুদকে মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি হবে। কমিশনের কর্মকর্তাদের কাছে আমার অনুরোধ থাকবে আপনারা সর্বোচ্চ সততার সঙ্গে অর্পিত দায়িত্ব পালন করবেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে দুদক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ মঈনুদ্দীন আবদুল্লাহ বলেন, অভাবে নয় লোভের কারণে মানুষ দুর্নীতি করে। একসময়ে দুর্নীতিবাজদের সামাজিকভাবে বয়কট করা হতো। দুর্নীতি করে কেউ পার পাবে না, এটি প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। দুর্নীতিবাজদের সামাজিকভাবে বয়কট করতে হবে।

দুদক সচিব মাহবুব হোসেন বলেন, দুর্নীতি দমন ও প্রতিরোধে সরকারের অন্যান্য সংস্থার মতই দুদক কাজ করে যাচ্ছে।

দুদক কমিশনার আছিয়া খাতুন বলেন, দুর্নীতি আমাদের জাতীয় উন্নয়নে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেছে। লোভ-লালসা দুর্নীতির প্রধান কারণ। আজ দুর্নীতি শুধু সরকারি অফিসে সীমাবদ্ধ নেই, সবখানে বাসা বেঁধেছে। দুর্নীতি নির্মূলে দুদক প্রতিশ্রুতিবদ্ধ।

দুদক কমিশনার জহুরুল হক বলেন, অর্থনীতির এই কঠিন সময়ে দুর্নীতির লাগাম টেনে ধরতে হবে। দেশ থেকে নানা উপায়ে টাকা পাচার হচ্ছে, এটা দেশকে পিছিয়ে দিচ্ছে। শিক্ষিত মানুষ ও অসাধু ব্যবসায়ীরা ডলার পাচার করছে। ডলার পাচারকারীরা দেশের শত্রু।

তিনি বলেন, দেশের অর্থপাচার রোধ করা গেলে আমরা আরও এগিয়ে যেতাম। দুর্নীতি পুরোপুরি নির্মূল করা সম্ভব নয়, তবে সহনীয় মাত্রায় নিয়ে আসতে দুদক কাজ করছে।

এর আগে সকালে দুদকের প্রধান কার্যালয়ে বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে দিবসটির উদ্বোধন করেন দুদক চেয়ারম্যান। এবছর ২১তম আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবসটির প্রতিপাদ্য- উন্নয়ন, শান্তি ও নিরাপত্তার লক্ষ্যে দুর্নীতির বিরুদ্ধে আমরা ঐক্যবদ্ধ

আজ রাজধানীসহ দেশের ৮টি বিভাগ, ৬৪টি জেলা এবং ৪৯৫টি উপজেলায় বড় পরিসরে উদযাপন করা হচ্ছে আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস। একই সঙ্গে দেশের সব সিটি করপোরেশন, পৌরসভা, জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদ, সরকারি-আধা সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠান এবং পিকেএসএফসহ অন্যান্য এনজিওতে দুর্নীতিবিরোধী বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে।

যার মধ্যে রয়েছে সারাদেশে দুর্নীতিবিরোধী কার্টুন প্রদর্শনী, মানববন্ধন, সেমিনার ও আলোচনা সভা। যেখানে প্রশাসনের কর্তাব্যক্তি, সমাজের বিশিষ্ট ব্যক্তি, সামাজিক সংগঠন, দুর্নীতি প্রতিরোধ কমিটি ও সাধারণ জনগণ অংশ নিচ্ছেন।

কেন্দ্রীয় কর্মসূচির বাইরে সারাদেশে বিভাগীয়, জেলা ও উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে দৃশ্যমান ও উন্মুক্ত স্থানে দুর্নীতিবিরোধী বাণী সম্বলিত ব্যানার স্থাপন, জাতীয় পতাকা ও দুদক পতাকা উত্তোলন, ফেস্টুন-বেলুন উড়ানো, আলোচনা সভা এবং গণযোগাযোগ অধিদপ্তরের জেলা তথ্য অফিসের সহযোগিতায় দুদকের সমন্বিত জেলা কার্যালয়/জেলা কার্যালয়/বিভাগীয় জেলা কার্যালয়ের আয়োজনে ব্যাপক জনসমাগম হয় এমন স্থানে দুর্নীতিবিরোধী তথ্যচিত্র প্রদর্শন করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ আনকাকের সদস্য রাষ্ট্র হিসেবে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) ২০০৭ সালে আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস পালন শুরু করে। যদিও সরকারিভাবে ২০১৭ সাল থেকে দিবসটি উদযাপন হচ্ছে। দুদকের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস উদযাপন উপলক্ষে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করছে ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি)।


আরও খবর



মহেশপুরে সাব-স্টেশন নির্মাণ : বালুর বদলে মাটি দিয়ে ভরাটের অভিযোগ

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
উপজেলা প্রতিনিধি

Image

ঝিনাইদহরে মহেশপুরে পাওয়ার গ্রিড অব কোম্পানির বিদ্যুৎতের সাব-স্টেশন নির্মাণ প্রকল্পের কাজ চলছে। আর এ নির্মাণ কাজের শুরুতেই ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান প্রিমিয়াম ইঞ্জিনিয়ারিং কনস্টাকশনের বিরুদ্ধে।

কাজের শুরুতেই প্রকল্পের স্থানে বালু দিয়ে ভরাটের নির্দেশনা থাকলেও ভরাট করা হচ্ছে মাটি দিয়ে। এমনকি ওই স্থান থেকে স্কেভেটর দিয়ে গভীর গর্ত করে সেখান থেকে বালু উত্তলন করে, সেই গর্ত আবার বিভিন্ন স্থান থেকে মাটি এনে ভরাট করা হচ্ছে। এ যেনো নিজের ঘরেই চুরি। ঠিকারিদারী প্রতিষ্ঠানের এমন কর্মকাণ্ড দেখে রিতিমতো স্থানীয়রা হতবাক।

স্থানীয়রা বলেন, পৌর এলাকার পাতিবিলা গ্রামের মাঠে বিদ্যুৎতের সাব-স্টেশন নির্মান হচ্ছে। ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের যোগসাজসে এলাকার প্রভাবশালী এক ব্যক্তি বিদ্যুৎতের সাব-স্টেশন নির্মাণের স্থান ভরাটের কাজ করছে। কিন্তু সে বালু দিয়ে ভরাট না করে মাটি দিয়ে ভরাট করছে। আবার সেখান থেকে সারা রাত স্কেভেটর দিয়ে বালু উঠিয়ে পাশে রেখে সেই গর্ত ভরাট করছে মাটি দিয়ে। উঠিয়ে রাখা বালু মাটির উপর ছিটিয়ে দিয়ে বালু দিয়ে জায়গা ভরাট করার দৃশ্যটা দৃশ্যমান করছে।

ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের এ্যাসিস্টেন্ড ম্যানেজার মোবাশ্বের আহসান বলেন, মাটি দিয়ে ভরাটের অনুমতি আছে, সে কারণে মাটি দেওয়া হচ্ছে। সেখান থেকে স্কেভেটর দিয়ে বালু উত্তলনের বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বালু না পাওয়ার কারণে বালু উঠিয়ে বালু আর মাটি মিশিয়ে ভরাটের কাজ করা হচ্ছে।

এ বিষয়ে পাওয়ার গ্রিড কোম্পানির ডেপুটি প্রজেক্ট ডাইরেক্টর মাসুদুর রহমান বলেন, বালুর বদলে মাটি দিয়ে ভরাটের কোন সুযোগ নেই। বালুই ব্যবহার করতে হবে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানকে। তিনি এ বিষয়টি নিয়ে সংবাদ না প্রকাশের অনুরোধ জানান।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




আনোয়ারায় বাবার লাশ বাড়িতে রেখে পরীক্ষাকেন্দ্রে মেয়ে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
মো.আমজাদ হোসেন, আনোয়ারা

Image

চট্টগ্রামের আনোয়ারায় বাবার লাশ বাড়িতে রেখে এসএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছে রিপা আকতার নামের এক পরীক্ষার্থী। রিপা এবার রায়পুর ইউনিয়ন বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে। বুধবার রাতে তার পিতা আহমদ নবী (৩৫) হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২২ ফেব্রুয়ারি) উপজেলার বটতলী শাহ মোহছেন আউলিয়া রহঃ উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে ইংরেজি ২য় পত্র পরীক্ষায় অংশ নেয় সে। এদিকে সকাল ১১টায় রায়পুর ইউনিয়নের দক্ষিণ পরুয়া পাড়ার রহিম তালুকদারের বাড়ির গ্রামে মরহুমের জানাজা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে তাকে দাফন সম্পন্ন করা হয়।

স্বজনরা জানান,বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) রাতে হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান রিফার বাবা আহমেদ নবী। বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় তার বাবার জানাজার সময় নির্ধারণ করে স্বজনেরা। কিন্তু ১০টা থেকে রিফার এসএসসি পরীক্ষা ছিল। পরে সে পরীক্ষা দিতে কেন্দ্রে যায়। এ সময় আত্মীয়স্বজন, সহপাঠী ও শিক্ষক তাকে মানসিকভাবে সান্ত্বনা দিলে সে পরীক্ষায় অংশ নেয়।

বটতলী শাহ মোহছেন আউলিয়া রহঃ উচ্চ বিদ্যালয়ের কেন্দ্র সচিব মোঃ ফরিদুল ইসলাম জানান, রিপার বাবার মৃত্যুর বিষয়টি আমরা সকালেই জানতে পেরেছিলাম। সে সবার সঙ্গে বসে পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে। তবে তাকে মানসিকভাবে সান্ত্বনা দিলে মনোবল শক্ত রেখে পরীক্ষা দেয়। এক হাতে বারবার চোখ মুছছিল, আর অন্য হাতে পরীক্ষার খাতায় লিখেছে রিপা।

নিউজ ট্যাগ: চট্টগ্রাম

আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




সৌরজগতে ধোঁয়াসদৃশ নক্ষত্রের সন্ধান পেলেন বিজ্ঞানীরা

প্রকাশিত:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ডেস্ক

Image

রাতের আকাশে প্রায় এক দশক পর নতুন রহস্যময়ী এক নক্ষত্রের সন্ধান পেলেন জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা। জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা বলছেন, রাতের আকাশের এই নক্ষত্র দেখতে অনেকটা ধোঁয়াসদৃশ।

চলতি মাসের ২৫ জানুয়ারি এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য প্রকাশ করেছেন যুক্তরাজ্যের সৌর-গবেষণা প্রতিষ্ঠান রয়্যাল অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল সোসাইটি (আরএএস)।

নতুন সন্ধান পাওয়া বিশালাকার এ নক্ষত্রের অবস্থান মিল্কিওয়ে গ্যালাক্সির কাছাকাছি। নক্ষত্রগুলো দশকের পর দশক ধরে অনাবিষ্কৃত ছিল। সৌরজগতে যুগ যুগ ধরে এদের অবস্থান রয়েছে বলে ধারণা জ্যোতির্বিজ্ঞানীদের।

বিজ্ঞানীদের মতে এবারই প্রথম সৌরজগতে এমন নক্ষত্রের খোঁজ পাওয়া গেছে। সৌরজগতে এমন প্রায় ১০০ কোটি নক্ষত্র রয়েছে, যা খালি চোখে দেখা যায় না। চিলির আন্দিজের এক এলাকা থেকে টেলিস্কোপের সাহায্যে এ পর্যবেক্ষণ চালিয়েছেন বিজ্ঞানীরা।


আরও খবর



ভারতের সঙ্গে রুপিতে বাণিজ্য চুক্তি : খালিদ মাহমুদ

প্রকাশিত:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
রাজশাহী প্রতিনিধি

Image

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, ভারতের সঙ্গে আমাদের চুক্তি হয়েছে। আমরা ভারতীয় মুদ্রায় ব্যবসা-বাণিজ্য করতে পারব। এতে করে দেশের রিজার্ভের উপর চাপ কমবে।

সুলতানগঞ্জ-মায়া নৌরুটের উদ্বোধন শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি এই তথ্য জানান।

সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) বেলা ১১টার দিকে রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার সুলতানগঞ্জে অবস্থিত পদ্মার তীরে এই নৌবন্দরের উদ্বোধন করা হয়।

এই নৌবন্দরে ভারতীয় রুপিতে ব্যবসার ভালো প্রতিফলন পড়বে বলে প্রতিমন্ত্রী আশা প্রকাশ করেন।

বিআইডব্লিউটিএর তথ্যমতে, ভারত থেকে স্থলবন্দর দিয়ে প্রতি টন পাথর আনতে খরচ পড়ে ১৩ মার্কিন ডলার। সমুদ্র পখে এই খরচ ২০ ডলার। সুলতানগঞ্জ নৌবন্দর দিয়ে পাথর আমদানি করতে খরচ পড়বে মাত্র ৯ থেকে ১০ ডলার। এছাড়া বাংলাদেশের কার্গো বা জাহাজে পাথর আনা যাবে। বিল দেওয়া যাবে আন্তঃদেশীয় মুদ্রায়। ফলে প্রচুর বৈদেশিক মুদ্রার সাশ্রয় হবে। সৃষ্টি হবে বহু কর্মসংস্থান।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের মায়া বন্দর থেকে নৌপথে রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার সুলতানগঞ্জ নৌবন্দরের দূরত্ব মাত্র ২০ কিলোমিটার। সুলতানগঞ্জ থেকে রাজশাহীর দূরত্ব ৩৬ কিলোমিটার। রাজশাহীর সঙ্গে পাবনা, সিরাগঞ্জ, বগুড়া, নওগাঁ, জয়পুরহাট, রংপুর, দিনাজপুর, কুষ্টিয়া, খুলনা ও যশোর এমনকি ঢাকার সাথে সড়কপথে সরাসরি যোগাযোগ রয়েছে। ফলে দেশের স্থলবন্দর বা সমুদ্রবন্দরের চেয়ে অনেক সাশ্রয় হবে সুলতানগঞ্জ-মায়া নৌপথ।

বাংলাদেশে মোট পাঁচটি আন্তর্জাতিক নৌপথ চালু আছে জানিয়ে বিআইডব্লিউটিএর বৈদেশিক পরিবহন শাখার উপপরিচালক শর্মিলা খানম গতকাল বলেন, এগুলোর মধ্যে সুলতাগঞ্জ থেকে মায়া বন্দরটি সবচাইলে স্বল্প দূরত্বের। নদীর নব্য বৃদ্ধি করতে পারলে এই রুট আরিচা পর্যন্ত দীর্ঘ হবে, যা অনুমোদন হয়ে আছে।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




পাকিস্তানে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন আগামী ৯ মার্চ

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ ফেব্রুয়ারী 20২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

পাকিস্তানে আগামী ৯ মার্চ প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে ভোটাভুটি অনুষ্ঠিত হবে। শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশনের সূত্রের বরাত দিয়ে দেশটির সংবাদমাধ্যম এআরওয়াই নিউজের এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়েছে, পাকিস্তানের নির্বাচন কমিশন (ইসিপি) প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের তফসিল শনিবার ঘোষণা করতে পারে।

ইসিপির একাধিক সূত্র বলেছে, কেন্দ্র এবং প্রদেশগুলোতে সরকার গঠনের সিনেট নির্বাচনের আগে প্রেসিডেন্ট নির্বাচিত হবেন। জাতীয় পরিষদের সদস্যদের শপথ গ্রহণের পর প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

দেশটির সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের রাজনৈতিক দল পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন), বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) ও অন্যান্য কয়েকটি দল জোটবদ্ধ হয়ে সরকার গঠন করছে। পিএমএল-এন ও পিপিপি জোটের শরিকদের প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হবেন আসিফ আলি জারদারি।

সূত্র বলছে, আগামী ৯ মার্চ পাকিস্তানের ১৪তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। পিপিপি ও পিএমএল-এন তাদের ক্ষমতা ভাগাভাগির আলোচনার সময় রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে আসিফ আলি জারদারির নাম প্রস্তাবের বিষয়ে ঐকমত্যে পৌঁছায়। 

আরও পড়ুন>> গ্রিসে বৈধতা পেলেন ৩ হাজার ৪০৫ বাংলাদেশি

পাকিস্তানে গত ৮ ফেব্রুয়ারি জাতীয় নির্বাচন অনুষ্ঠিত হলেও কোনও দলই সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিশ্চিত করতে পারেনি। সবচেয়ে বেশি আসন পেয়েছে পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও বর্তমানে কারাবন্দি নেতা ইমরান খানের রাজনৈতিক দল পাকিস্তান তেহরিক-ই ইনসাফ (পিটিআই) ৯২টি আসন। পিটিআইয়ের পর এই তালিকায় যথাক্রমে রয়েছে পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএলএন) ৭৫টি আসন, পাকিস্তান পিপলস পার্টি (পিপিপি) ৫৪টি আসন, মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্ট (এমকিউএম) ১৭টি আসন, জামায়াতে উলামায়ে ইসলাম- ফজলুর (জেইউআইএফ)৪টি আসন এবং স্বতন্ত্রপ্রার্থীরা পেয়েছেন ৯টি আসন।

অর্থাৎ কোনো দলই এককভাবে সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় ন্যূনতম আসন পায়নি। এই অবস্থায় জোট সরকার গঠন নিয়ে আলোচনা শুরু হয় পিএমএলএন এবং পিপিপির মধ্যে। ১২ দিন ধরে আলোচনার পর ঐকমত্যে পৌঁছায় পিএমএলএন এবং পিপিপি। সিদ্ধান্ত হয় পিএমএলএনের চেয়ারম্যান শেহবাজ শরিফ পাকিস্তানের নতুন সরকারের প্রধানমন্ত্রী হবেন, আর রাষ্ট্রপতি হবেন পিপিপির চেয়ারম্যান বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির পিতা ও দলটির কো-চেয়ারম্যান আসিফ আলী জারদারি।

এদিকে, নির্বাচনের ফলাফলকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে পিটিশন জমা দিয়েছে ইমরান খানের রাজনৈতিক দল পাকিস্তান তেহরিক-ই ইনসাফ (পিটিআই)। শুক্রবার দেশটির সর্বোচ্চ আদালতে পিটিআই এ সংক্রান্ত একটি পিটিশন জমা দিয়েছে। 

আরও পড়ুন>> চীনের অগ্নিকাণ্ডে নিহত ১৫, আহত ৪৪

পিটিশনে দলটির পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, ৮ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনে মোট ১৮০টি আসনে জয়ী হয়েছে পিটিআই। কিন্তু কারচুপি ও জালিয়াতির মাধ্যমে মাত্র ৯২টি আসনে পিটিআই প্রার্থীদের জয়ী দেখানো হয়েছে। দলটিকে ক্ষমতা থেকে দূরে রাখতে এই ডাকাতি করা হয়েছে বলে অভিযোগ করা হয়েছে পিটিশনে।


আরও খবর