আজঃ বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১
শিরোনাম
মহাকাশে ভেসে খাবার খাচ্ছেন চীনা নভোচারীরা কলম্বিয়াকে ২-১ গোলে হারাল ব্রাজিল স্পেনের কারাগারে ম্যাকাফি অ্যান্টিভাইরাস আবিষ্কারকের ‘আত্মহত্যা’ আগস্টে মুক্তি পাচ্ছে চলচ্চিত্র ‘চিরঞ্জীব মুজিব’ গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহীতে আরও ১৮ জনের মৃত্যু ‘আ.লীগ হীরার টুকরা, যতবার কেটেছে নতুন করে জ্যোতি ছড়িয়েছে’ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার নামে মিথ্যাচারের প্রতিবাদে মানববন্ধন স্বাক্ষর জালিয়াতি ও তথ্য গোপন করায় ছাত্র ইউনিয়নের দুই শীর্ষ নেতা বহিষ্কার ইতিহাসে আওয়ামী লীগ, বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ ও শেখ হাসিনা সমার্থক হয়ে থাকবে: : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী পরীমনির মামলায় সেই নাসির-অমি ৫ দিনের রিমান্ডে

‘দুগ্ধ শিল্পে বিনিয়োগকারীদের স্বল্প সুদে ও সহজ শর্তে ঋণ দেওয়া হবে’

প্রকাশিত:বুধবার ০২ জুন 2০২1 | হালনাগাদ:বুধবার ০২ জুন 2০২1 | ১৮৯৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দুগ্ধ শিল্পে বিনিয়োগকারীদের স্বল্প সুদে ও সহজ শর্তে সরকার ঋণ দেবে বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

মঙ্গলবার (০১ জুন) রাতে বিশ্ব দুগ্ধ দিবস ২০২১ উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেইরি বিজ্ঞান বিভাগ আয়োজিত ওয়েবিনারে রাজধানীর বেইলি রোডের সরকারি বাসভবন থেকে সংযুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ কথা জানান।

এসময় তিনি বলেন, গুঁড়ো দুধ আমদানি সরকার নিরুৎসাহিত করছে। যারা গুঁড়ো দুধের শিল্প বাংলাদেশে স্থাপন করতে চান তাদের যন্ত্রপাতি আমদানিতে উৎসে কর এবং অপরাপর সমস্যা দূর করে দেওয়া হবে। প্রয়োজনে এ শিল্পকে প্রাথমিক অবস্থায় কর অবকাশ সুবিধা প্রদানের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। এ খাতের উদ্যোক্তাদের আয়কর সুবিধা প্রদানের বিষয়টিও বিবেচনা করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চান বেসরকারি উদ্যোক্তারা এগিয়ে আসুক। এজন্য তিনি দেশে বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চল গড়ে তুলছেন।

তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা প্রাণিসম্পদ খাতকে এগিয়ে নিতে চান। কারণ এ খাত এগিয়ে গেলে বেকারত্ব দূর হবে, উদ্যোক্তা তৈরি হবে, গ্রামীণ অর্থনীতি সচল হবে এবং এ খাত থেকে উৎপাদিত সামগ্রী খাবারের বড় যোগান দেবে। পুষ্টি চাহিদা পূরণ করে দেশের মানুষের গড় আয়ু বৃদ্ধিতে ভূমিকা রাখবে।

ওয়েবিনারে মন্ত্রী আরো যোগ করেন, কোভিডকালে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয় কখনো বন্ধ রাখা হয়নি। আমরা কন্ট্রোল রুম করেছি, ভ্রাম্যমান বিক্রয় কেন্দ্র চালু করেছি। অনলাইন বিক্রির ব্যবস্থা চালু করেছি। প্রাণিসম্পদের খাদ্য আমদানি ও পরিবহণ সচল রেখেছি। এভাবে করোনাকালে খামারি, খামার ব্যবস্থাপনায় সম্পৃক্ত ব্যক্তি এবং সুফলভোগীদের সমন্বিত জায়গায় আনা হয়েছে। এ কারণে এ খাতে ভয়াবহ ক্ষতির যে আশংকা ছিল তা বাস্তবে রূপ নেয়নি। করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত প্রায় ৪ লক্ষ খামারিকে ৫৫৪ কোটি টাকা আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়েছে এবং আরও প্রায় ২ লক্ষ খামারিকে প্রায় ২৯২ কোটি টাকা আর্থিক প্রনোদনা দেয়ার বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের ডেইরি বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. রায়হান হাবিবের সভাপতিত্বে এবং অধ্যাপক ড. সোহেল রানা সিদ্দিকীর সঞ্চালনায় বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. লুৎফুল হাসান, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডাঃ শেখ আজিজুর রহমান, মিল্কভিটার ব্যবস্থাপনা পরিচালক অমর চান বণিক, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন ও বর্তমান শিক্ষক ও গবেষকবৃন্দ এবং ডেইরি খাতের বিশেষজ্ঞ ও উদ্যোক্তাগণ ওয়েবিনারে অংশগ্রহণ করেন।


আরও খবর



পদ্মা সেতু দিয়ে আগামী জুনেই চলবে গাড়ি

প্রকাশিত:বুধবার ০৯ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৯ জুন ২০২১ | ১৪২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দুর্বারগতিতে এগিয়ে চলেছে স্বপ্নের পদ্মা সেতু নির্মাণের কাজ। সবকিছু ঠিকঠাক চললে আগামী বছরের জুনেই পদ্মা সেতু দিয়ে চলবে গাড়ি। এতে দক্ষিণাঞ্চলের ২১ জেলার মানুষের যুগের পর যুগ ধরে যাতায়াতের চরম দুর্ভোগের অবসান ঘটবে।

মঙ্গলবার সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, পদ্মা সেতুর জাজিরা প্রান্তের সব রোডওয়ে স্ল্যাব বসে গেছে। সেতুর রেলওয়ে স্ল্যাব বসানো হয়েছে দুই হাজার ৮৪৭টি। আর এক হাজার ৩১২টি স্ট্রিনজারের মধ্যে বসানো বাকি মাত্র ১৬টি। এই কাজ সম্পন্ন করতে চলছে মহাকর্মযজ্ঞ। এতে সেতুটি যানচলাচল উপযোগী হওয়ার আরেক ধাপ এগিয়ে গেল।

সেতু বিভাগ আশা করছে, সব কাজ ঠিকমতো এগোলে আগামী বছরের জুনে সেতুটি যানবাহন চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হবে। একই দিন ট্রেন চালুরও লক্ষ্য আছে। যদিও ট্রেন চালুর বিষয়টি অনিশ্চিত।

পদ্মা বহুমুখী সেতু প্রকল্পের নির্বাহী প্রকৌশলী সৈয়দ রজব আলী জানান, সেতুর বাকি স্ল্যাবগুলো ইয়ার্ড থেকে সড়কপথে মাওয়ার ১ নম্বর পিয়ার দিয়ে উঠবে। ভরা বর্ষা মৌসুমেও উত্তাল পদ্মার ওপরে সেতুর কাজ চলবে পুরোদমে। ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ চার লেনের পদ্মা সেতুর দুই প্রান্তের ৩ দশমিক ১৪ কিলোমিটারের সংযোগ সেতু দুই লেন করে সড়কে যুক্ত হবে। তিন ভাগে ছয় লেন ইতোমধ্যে যুক্ত হয়ে গেছে।

অপরদিকে পদ্মা সেতু প্রকল্পের পরিচালক মো. শফিকুল ইসলাম বলেন, বৃষ্টি ও বন্যায় কোনো সমস্যা না হলে সড়ক ও রেলপথের স্ল্যাব বসানোর কাজ সেপ্টেম্বরেই শেষ হবে। এরপর চাইলে হেঁটেই সেতু পার হওয়া যাবে। আমরা আশা করছি, আগামী জুনেই পদ্মা সেতু চালু করা যাবে।


নিউজ ট্যাগ: পদ্মা সেতু

আরও খবর



ঘূর্ণিঝড় ইয়াস : পানিতে ডুবে ৬ শিশুর মৃত্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৭ মে ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৭ মে ২০২১ | ১৩৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে দেশের বিভিন্ন এলাকায় নদীর পানি বেড়ে গেছে। এ কারণে জোয়ারে বেড়িবাঁধ ভেঙে বেশ কয়েকটি এলাকা প্লাবিত হয়েছে। এ সময় পৃথক স্থানে পানিতে ডুবে মারা গেছে পাঁচ শিশু।

বুধবার (২৬ মে) ইয়াসের প্রভাবে দেশের বিভিন্ন এলাকায় ঝড়ো হাওয়ায় বিধ্বস্ত হয়েছে ঘরবাড়ি। ডুবে গেছে ঘর-বাড়ি, রাস্তাঘাট, ফসলি জমি।

১. বরিশালের বাকেরগঞ্জে ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে জোয়ারের পানিতে ডুবে ২ শিশু মারা গেছে। বুধবার (২৬ মে) উপজেলার পৃথক স্থানে এ ঘটনা ঘটে।

মৃত শিশুরা হলেন, সুমাইয়া আক্তার (৩) উপজেলার নিয়ামতি ইউনিয়নের ঢালমারা গ্রামের হাফিজুর রহমানের মেয়ে। আজওয়া আক্তার (৩) গারুরিয়া ইউনিয়নের রুনসী পশুরি গ্রামের আজগর আলীর মেয়ে ।

২. বাগেরহাটের মোরেলগঞ্জের খাউলিয়া এলাকায় ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে পানিতে ডুবে এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার (২৬ মে) দুপুরের দিকে উপজেলার খাউলিয় ইউনিয়নের চালিতাবুনিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। মৃত জিনিয়া আক্তার (৪) চালিতাবুনিয়ার নির্মাণ শ্রমিক কালাম গাজীর মেয়ে।

৩. নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলার সুখচর ইউনিয়নে ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে জোয়ারের পানিতে ভেসে গেছে লিমা আক্তার (৭) নামের এক শিশু।

বৃহস্পতিবার (২৭ মে) সকাল পর্যন্ত নিখোঁজ শিশুটির কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি বলে নিশ্চিত করেছেন হাতিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ইমরান হোসেন।

(৭) সুখচর ইউনিয়নের চর আমান উল্যাহ গ্রামের বাবুল মিয়ার মেয়ে।

এ বিষয়ে হাতিয়া থানার ওসি আবুল খায়ের জানান, এ সংবাদ পেয়ে শিশুটির পরিবারের সদস্যদের নিয়ে লিমাকে খোজা হচ্ছে।

৪. ঘূর্ণিঝড় ইয়াস ও পূর্ণিমার প্রভাবে ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলায় বিষখালী নদীর পানি বেড়ে গেছে। এ সময় পনি ডুবে মারা গেছে দুই শিশু। বুধবার (২৬ মে) বিকেল ৪টার দিকে উপজেলার মেডিকেল মোড় সংলগ্ন ও বড়ইয়া এলাকায় পৃথক এই ঘটনা ঘটে।

৫. রাজাপুরে ব্যাপক হারে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় এবং বিষখালী নদীতে বেড়িবাঁধ না থাকায় পানি ঢুকে উপজেলার বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে। ডুবে গেছে ফসলি জমি, রাস্তাঘাট, ঘর-বাড়ি, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। সেই সঙ্গে ভেসে গেছে কয়েকশ পুকুরের মাছ।

৬. মোংলায় ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে আশপাশের উপকূলীয় এলাকার নদ-নদীর পানি স্বাভাবিকের চেয়ে ৩ থেকে ৪ ফুট বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে পশুর নদীর বাঁধ সংলগ্ন কানাইনগর, চিলা ও জয়মনি এলাকার চারশতাধিক বসতঘর তলিয়ে গেছে। চিংড়িসহ অসংখ্য মাছের ঘের পানিতে তলিয়ে গেছে। তবে উপকূলীয় অঞ্চলের আশ্রয়কেন্দ্র গুলোতে কেউ আসেননি

অতি জোয়ার বা জলোচ্ছ্বাসে খুলনা, বাগেরহাট, সাতক্ষীরা, পিরোজপুর, পটুয়াখালী, বরগুনা, ভোলা, নোয়াখালী ও লক্ষ্মীপুর জেলার ২৭টি উপজেলা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

ক্ষতিগ্রস্ত উপজেলাগুলো হলো- আশাশুনি, শ্যামনগর, দাকোপ, কয়রা, পাইকগাছা, মোংলা, শরণখোলা, মোড়েলগঞ্জ, বরগুনা সদর, মঠবাড়িয়া, পাথরঘাটা, আমতলী, পটুয়াখালী সদর, গলাচিপা, রাঙ্গাবালী, দশমিনা, মির্জাগঞ্জ, কলাপাড়া, চরফ্যাশন, মনপুরা, দৌলতখান, বোরহানউদ্দিন, ভোলা সদর, তজুমদ্দিন, হাতিয়া, কমলনগর ও রামগতি।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা. মো. এনামুর রহমান বলেন, যেকোনো দুর্যোগ মোকাবিলায় মানবিক সহায়তা প্রদানের জন্য জেলা প্রশাসকদের অনকূলে পর্যাপ্ত খাদ্যসামগ্রী ও অর্থ বরাদ্দ দেয়া আছে।


আরও খবর



যাত্রা শুরু করেছে আর্মি ফার্মা লিমিটেড

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৮ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৮ মে ২০২১ | ৯৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মানসম্মত ওষুধ উৎপাদন ও বিপণনের প্রত্যয় নিয়ে আনুষ্ঠানিক যাত্রা শুরু করেছে আর্মি ফার্মা লিমিটেড। এটি বাংলাদেশ সেনাবাহিনী পরিচালিত প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ মেশিন ট্যুলস ফ্যাক্টরি লিমিটেডের (বিএমটিএফ) সহযোগী প্রতিষ্ঠান।

শুক্রবার (২৮ মে) আন্তঃবাহিনী জনসংযোগ পরিদপ্তর (আইএসপিআর) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, বৃহস্পতিবার (২৭ মে) সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ গাজীপুর জেলার জয়দেবপুরের শিমুলতলীতে আর্মি ফার্মা লিমিটেডের শুভ উদ্বোধন করেন।

আইএসপিআরের বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, অন্যতম খ্যাতিসম্পন্ন ইউরোপিয়ান পরামর্শক প্রতিষ্ঠান অ্যালোমেটিক কনসাল্টিং অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং প্রাইভেট লিমিটেডের তত্ত্বাবধানে আর্মি ফার্মা লিমিটেডের ফ্যাক্টরি নির্মাণের কাজ গাজীপুর জেলার জয়দেবপুরের শিমুলতলীতে সম্পাদিত হচ্ছে।

আইএসপিআর জানায়, শত বিঘা জমির উপর অত্যাধুনিক প্রযুক্তিনির্ভর এই উৎপাদন প্রতিষ্ঠানে ট্যাবলেট, ক্যাপসুল, ইনজেকশন, সিরাপ, সাসপেনশন, ক্রিম, অয়েন্টমেন্ট, এন্টিবায়োটিক, সাপোজিটরি, ইনহেলার ইত্যাদি উৎপাদনের পাশাপাশি ভ্যাকসিন, বায়োটেক, হরমোন, এন্টি - ক্যানসার, হারবাল ও অ্যাগ্রোভেট প্রোডাক্ট উৎপাদন সুবিধা বিদ্যমান থাকবে।

এছাড়া মেডিক্যাল ডিভাইস উৎপাদন সুবিধাও এ প্রকল্পে সন্নিবেশিত করা হয়েছে। বিভিন্ন ক্ষেত্রে দক্ষ ও অভিজ্ঞ পেশাদার জনবলের মাধ্যমে অত্যাধুনিক যন্ত্রপাতি ও মানসম্পন্ন কাঁচামাল ব্যবহার করে প্রডাক্ট ডেভেলপমেন্টের কাজ ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে।

সেনাপ্রধান আর্মি ফার্মাকে তার স্বপ্নের প্রকল্প হিসেবে উল্লেখ করেন। প্রকল্প উদ্বোধনী বক্তব্যে জেনারেল আজিজ বলেন, ব্লাড প্রেসার, ডায়াবেটিস, অ্যাজমা, পেপটিক আলসারের মতো অসুখে সর্বসাধারণ ভুগে থাকেন।

আর্মি ফার্মা লিমিটেড থেকে উৎপাদিত এসব রোগের ওষুধ যাতে অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্যসহ নিম্নআয়ের প্রান্তিক জনসাধারণের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে থাকে ও সবার জন্য সহজপ্রাপ্য হয় সেজন্য তিনি আর্মি ফার্মার প্রতি উদাত্ত আহ্বান জানান।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী ও স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তিতে আর্মি ফার্মার যাত্রাকে ঐতিহাসিক উল্লেখ করে আজিজ আহমেদ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুদক্ষ দিক নির্দেশনায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও আর্মি ফার্মা আগামী দিনে স্বাস্থ্যখাতে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখবে।

তিনি আশা প্রকাশ করেন যে, এ প্রতিষ্ঠানটি দ্রুততম সময়ের মধ্যে দেশের অন্যতম শীর্ষ ওষধ উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে।

আইএসপিআর আরও জানায়, আর্মি ফার্মা দেশের অতিমারি মোকাবিলায় কোভিড সংক্রমণকালীন সময়ে ওষুধ প্রশাসনের অনুমোদনক্রমে জার্মনিল ব্র্যান্ডের হেলথ অ্যান্ড হাইজিন প্রোডাক্ট হ্যান্ড স্যানিটাইজার, ফেস মাস্ক, হ্যান্ডওয়াশ ও অ্যান্টিসেপটিক সলিউশন (জীবাণুনাশক) ইত্যাদি উৎপাদন ও সুনামের সঙ্গে বিপণন করে স্বাস্থ্যখাতে শক্তিশালী ভূমিকা রাখছে। আশা করা যায়, জাতীয় ওষুধ নীতির বর্তমান লক্ষ্য সামনে রেখে আগামী বছরের শুরুতে আর্মি ফার্মা তার উৎপাদিত ওষুধসামগ্রী বাজারজাত করবে।


আরও খবর



বিএনপি মুখোশের আড়ালে বহুরূপী দানব: ওবায়দুল কাদের

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১০ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১০ জুন ২০২১ | ৯৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বিএনপিকে মুখোশের আড়ালে বহুরূপী দানব সম্বোধন করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, গণতন্ত্রের বুলি মুখে নিয়ে সাম্প্রদায়িক অপশক্তির লালন-পালনকারী দল বিএনপি।

দেশে এখন অদৃশ্য ও দৃশ্যমান দুটি শত্রু বিরাজমান উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, অদৃশ্য শত্রু হচ্ছে করোনা আর দৃশ্যমান শত্রু বিএনপি।

বৃহস্পতিবার (১০ জুন) সকালে সরকারি বাসভবনে নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

বিএনপির নেতিবাচক ও ষড়যন্ত্রের রাজনীতিকে অদৃশ্য শত্রু করোনার চেয়েও ভয়ংকর বলে মনে করেন ওবায়দুল কাদের।

রাজনীতির মাঠে প্রতিপক্ষ থাকবে, প্রতিদ্বন্দ্বী থাকবে, তাই বলে কেউ কাউকে শত্রু ভাবা ঠিক নয় উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, দায়িত্বশীল বিরোধীদল উন্নয়নের সহযাত্রী, কিন্তু বিএনপি নিজেরা তাদের কর্কট রূপ প্রমাণ করেছে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, আওয়ামী লীগকে বিএনপি শত্রু মনে করে বলেই পঁচাত্তরে জাতির পিতাকে সপরিবারে হত্যার নীলনকশায় জড়িত এবং বেনিফিশিয়ারি তারা।

তিনি আরও বলেন, শেখ হাসিনাকে শত্রু মনে করে বলেই ২১ আগস্ট প্রকাশ্য দিবালোকে গ্রেনেড হামলা চালিয়েছিল দলটি।

বিএনপি নিরপরাধ মানুষকে আগুনে পুড়িয়ে মারে, সম্পদ নষ্ট করে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ক্ষমতায় গিয়ে আকণ্ঠ দুর্নীতিতে নিমজ্জিত হয়ে জনগণের সম্পদ লুণ্ঠন করে বিএনপি।

তিনি বলেন, বিএনপি ক্ষমতার হ্যালুসিনেশনে ভুগছে। তাই দেশের উন্নয়ন এবং উত্তরণ তাদের গায়ের জ্বালা বাড়ায়। ইতিহাস বলে, বিএনপি যাদের বন্ধু তাদের শত্রুর দরকার নেই।

এ দেশের সমৃদ্ধি নয়, ধ্বংসই বিএনপির মনোবাসনা উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, যাদের ক্ষমতা লিপ্সার কাছে দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব ভূলুণ্ঠিত হয়, যারা জনগণের কাছে যাওয়ার নৈতিক মনোবল হারিয়ে বিদেশি শক্তির দ্বারে ধরনা দেয়, তারা আওয়ামী লীগের ক্ষতিসাধনের জন্য দেশ ও জাতির যে কোনো ক্ষতি করতেও প্রস্তুত।

একটি ব্যর্থ রাজনৈতিক দল হিসেবে ইতোমধ্যে ইতিহাসের কাঠগড়ায় বিএনপির বিচার শুরু হয়ে গিয়েছে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের মনে করেন রাজপথ আর ভোটার বাক্স তার প্রমাণ।

মিথ্যাচার আর প্রতিহিংসার রাজনীতির কারণে বিএনপির জনপ্রিয়তা এখন তলানিতে ঠেকেছে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বর্ষণ নয়, তর্জন-গর্জনেই ফখরুল ইসলাম আলমগীরদের অর্জন সীমাবদ্ধ।


আরও খবর



দেশের ছয় অঞ্চলে বৃষ্টি হতে পারে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৩ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৩ জুন ২০২১ | ১২৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশের ছয় অঞ্চলে বৃষ্টি হতে পারে বলে জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। আবহাওয়া অধিদপ্তরের এক পূর্বাভাসে আজ বৃহস্পতিবার এ তথ্য জানানো হয়েছে।

পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, লঘুচাপের বর্ধিতাংশ বিহার থেকে আসাম অতিক্রম করে পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশে অবস্থান করছে এবং অপর লঘুচাপের বর্ধিতাংশ পশ্চিমবঙ্গ থেকে উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে। এই কারণে খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগের দু-এক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি ও বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

পূর্বাভাসে আরও বলা হয়, দেশের অন্যত্র আংশিক মেঘলা আকাশসহ আবহাওয়া প্রধানত শুষ্ক থাকতে পারে এবং সারা দেশে দিনের তাপমাত্রা সামান্য বৃদ্ধি পেতে পারে। এ ছাড়া রাতের তাপমাত্রা প্রায় অপরিবর্তিত থাকতে পারে। আগামী তিন দিন আবহাওয়ার সামান্য পরিবর্তন হতে পারে।


আরও খবর