আজঃ বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১
শিরোনাম

দুগ্ধ শিল্পকে বিকশিত করে বিশ্বমানে উন্নীত করা হবে: মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০১ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০১ জুন ২০২১ | ৯৫৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশের দুগ্ধ শিল্পকে বিকশিত করে বিশ্বমানে উন্নীত করা হবে এবং এ জন্য সরকার সব ধরনের সহযোগিতা দেবে বলে জানিয়েছেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।

মঙ্গলবার (০১ জুন) রাজধানীর একটি হোটেলে বিশ্ব দুগ্ধ দিবস ও দুগ্ধ সপ্তাহ, ২০২১ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠান এবং এ উপলক্ষ্যে আয়োজিত সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে মন্ত্রী এ কথা জানান।

এসময় তিনি বলেন, দুগ্ধজাতীয় পণ্যের বহুমুখীকরণ ও বৈচিত্র্য আনয়ন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এ জাতীয় পণ্য বৃদ্ধি করার জন্য সরকার সব ধরনের সহযোগিতা দেবে। এজন্য বেসরকারি উদ্যোক্তাদের এগিয়ে আসতে হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকার বেসরকারি খাতকে বিকশিত করার জন্য যে সকল পদক্ষেপ নিয়েছে, এ পদক্ষেপ শুধু বাংলাদেশেই নয়, এ উপমহাদেশের কোন রাষ্ট্র নেয় নি।

তিনি আরো বলেন, জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা বহু পূর্বে ২০০১ সালে ১ জুন বিশ্ব দুগ্ধ দিবস নির্ধারণ করেছে। আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপটে দুগ্ধ দিবসের ভাবনা আমরা কতটা কার্যকর করতে পারছি সেটা ভাবতে হবে এবং কাজে লাগাতে হবে। আমরা সাভারে আন্তর্জাতিকমানের মাননিয়ন্ত্রণ গবেষণাগার স্থাপন করেছি, যার মাধ্যমে দুধ মানসম্মত ও স্বাস্থ্যসম্মত কীনা সেটা পরীক্ষা করা যাবে। পুষ্টি মানসমৃদ্ধ দুধের জন্য এর উৎসে থাকা গবাদিপশুর খাবারের মান অবশ্যই বিবেচনায় রাখতে হবে। শুধু দুধ খেলেই হবে না, দুধ হতে হবে মানসম্মত।

করোনকালে প্রাণি খাদ্য ও মৎস্য খাদ্য আমদানির সমস্যা আমরা তাৎক্ষণিকভাবে পদক্ষেপ নিয়ে দূর করেছি। দুধ উৎপাদনকারী ও ভোক্তাদের জন্য আমরা ভ্রাম্যমান বিক্রয় ব্যবস্থা করেছি। এতে উৎপাদক ও ভোক্তারা লাভবান হয়েছেন। এভাবে করোনায় আমরা গোটা দুগ্ধ খাতকে বাঁচিয়ে রাখার চেষ্টা করেছি।-যোগ করেন মন্ত্রী।

এসময় দুগ্ধ শিল্পের উন্নয়নে বেসরকারি উদ্যোক্তাদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান মন্ত্রী। সরকার এ সংক্রান্ত সকল প্রকার সহযোগিতা দেবে বলেও আশ্বস্ত করেন তিনি। পাশাপাশি প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তাদের দুগ্ধ শিল্পের উন্নয়নের বিষয়টি নিজের মধ্যে ধারণ করার নির্দেশ দেন মন্ত্রী।

অনুষ্ঠানে মন্ত্রী আরো যোগ করেন, দেশের মানুষের মেধা বিকাশের জন্য অন্যতম আদর্শ খাদ্য হলো দুধ। দুধের উৎপাদন বাড়াতে পারলে দেশের মানুষের গড় আয়ু বৃদ্ধি পাবে। মানসম্মত দুধ উৎপাদন করতে পারলে মানুষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানো যাবে। একটা সমৃদ্ধ জাতি তৈরি হবে, যে জাতি দেশকে উন্নয়নের অগ্রশিখরে নিয়ে যাবে। এজন্য দুধের উৎপাদন বৃদ্ধিতে আমাদের সম্মিলিত প্রয়াস নিতে হবে। সরকার সবসময় পাশে থাকবে।

প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ডাঃ শেখ আজিজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব রওনক মাহমুদ। অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের মহাপরিচালক ড. মোঃ আবদুল জলিল এবং জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার বাংলাদেশ প্রতিনিধি রবার্ট ডি সিম্পসন। মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব শাহ্ মোঃ ইমদাদুল হক, শ্যামল চন্দ্র কর্মকার, সুবোল বোস মনি ও মোঃ তৌফিকুল আরিফসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ, প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের বর্তমান ও প্রাক্তন কর্মকর্তাবৃন্দ, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও গবেষকবৃন্দ, ডেইরি অ্যাসোসিয়েশনের প্রতিনিধি এবং প্রাণিসম্পদ খাতের উদ্যেক্তা ও খামারিগণ উদ্বোধন অনুষ্ঠান ও সেমিনারে অংশগ্রহণ করেন।

বিশ্ব দুগ্ধ দিবস ২০২১ উপলক্ষ্যে প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর ও জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থার যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বাংলাদেশ প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রাক্তন মহাপরিচালক ড. জাহাঙ্গীর আলম খান। প্রবন্ধের উপর আলোচনায় অংশ নেন চট্টগ্রাম ভেটেরিনারি এন্ড অ্যানিমেল সায়েন্সেস বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য ড. নীতিশ চন্দ্র দেবনাথ, বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়, ময়মনসিংহ-এর প্রাক্তন ডীন অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ নুরুল ইসলাম এবং প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তরের প্রাক্তন মহাপরিচালক ড. হীরেশ রঞ্জন ভৌমিক।

উল্লেখ্য, ২০০১ সালে জাতিসংঘের খাদ্য ও কৃষি সংস্থা (এফএও) ১ জুন তারিখকে বিশ্ব দুগ্ধ দিবস হিসেবে ঘোষণা করে। একই বছর থেকে বৈশ্বিক খাদ্য হিসেবে দুধের গুরুত্ব তুলে ধরা এবং দৈনন্দিন খাদ্য গ্রহণে দুগ্ধ ও দুগ্ধজাত পণ্য অন্তর্ভুক্ত করাকে উৎসাহিত করতে প্রতিবছর বিশ্বব্যাপী এ দিবসটি উদযাপন হয়ে আসছে। বিশ্ব দুগ্ধ দিবসের এবছরের প্রতিপাদ্য হচ্ছে, Sustainability in the dairy sector with messages around the environment, nutrition and socio-economics. মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর এ বছর দেশব্যাপী ১ জুন থেকে ৭ জুন পর্যন্ত বিভিন্ন কর্মসূচির মাধ্যমে দুগ্ধ সপ্তাহ উদযাপন করছে।

নিউজ ট্যাগ: শ ম রেজাউল করিম

আরও খবর



শিগগিরই মন্ত্রিপরিষদে যাচ্ছে শিক্ষা আইন : শিক্ষামন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ০৯ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৯ জুন ২০২১ | ১২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শিক্ষা আইনের খসড়া চূড়ান্ত হয়েছে, শিগগিরই তা মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে পাঠানো হবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। বুধবার (৯ জুন) অনলাইনে চাইল্ড পার্লামেন্টে সেশন ২০২১ অনুষ্ঠানে অংশ নিয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন তিনি।

অনুষ্ঠানে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আমরা শিক্ষা আইন দীর্ঘদিন ধরে করার চেষ্টা করছি। আমরা সেই শিক্ষা আইনের খসড়াটি করোনাকালেই চূড়ান্ত করেছি। এখন মন্ত্রিপরিষদে যাবে। এরপর আরও কয়েকটি প্রক্রিয়া আছে সেগুলো সম্পন্ন করে পার্লামেন্টে যাবে। সংসদে পাস হয়ে গেলে আমরা আইনটি বাস্তবায়ন করতে পারবো।

চাইল্ড পার্লামেন্টে অনলাইন শিক্ষাসহ শিক্ষায় বাংলাদেশের নেওয়া পদক্ষেপের বিভিন্ন তথ্য উঠে আসে। চাইল্ড পার্লামেন্টে বিভিন্ন প্রস্তাবনা ও সমস্যা সমাধানের বিষয় তুলে ধরেন শিক্ষামন্ত্রী।

চাইল্ড পার্লামেন্টে অংশ নেওয়া শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, অন্যের জরিপ নয়, নিজেরা জরিপ করে প্রকৃত অবস্থা তুলে ধরতে হবে। সমস্যা সমাধানের জন্য সুপারিশ করতে হবে।

অনুষ্ঠানে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক চাইল্ড পার্লামেন্টে উত্থাপিত বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন।

আরও খবর



ফিলিস্তিনি নারীকে গুলি করে হত্যা করল ইসরায়েলি সেনারা

প্রকাশিত:রবিবার ১৩ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৩ জুন ২০২১ | ৮২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ইসরায়েলি সেনাদের গুলিতে অধিকৃত জেরুজালেম আল-কুদস শহরে এবার এক ফিলিস্তিন নারী নিহত হয়েছেন। শনিবার (১২ জুন) পশ্চিম তীর ও পূর্ব জেরুজালেমের মধ্যবর্তী স্থানে ইসরায়েলির কালান্দিয়া এলাকার প্রবেশ পথে ২৮ বছর বয়সি ফিলিস্তিন নারী ইবতিসাম কাআবানেকে গুলি করে হত্যা করা হয়। তিনি পশ্চিম তীরের জেরিকো শহরের বাসিন্দা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, রামাল্লা শহরের নিকটবর্তী কালান্দিয়া চেকপোস্ট থেকে অনেকগুলো গুলির শব্দ পাওয়া যায়। ইসরায়েলি সেনারা নির্বিচারে এক ফিলিস্তিনি নারীর ওপর গুলি চালায়। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। তিনি মারাত্মক আহত হয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। এ সময় তার শরীর থেকে প্রচণ্ড রক্তক্ষরণ হলেও তাকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে মেডিকেল টিমগুলোকে অনুমতি দেয়নি ইসরাইলি সেনারা। ফলে অসংখ্য মানুষের চোখের সামনে ইসরায়েলি সেনাদের গুলিবর্ষণের ফলে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে ওই ফিলিস্তিন নারী মারা যান।

ইসরায়েলি সেনারা দাবি করেছে, ওই নারী একটি চাকু বহন করার কারণে তাকে লক্ষ্য করে গুলি চালানো হয়েছে।

এর আগে শুক্রবারও ইসরাইলি সেনারা অধিকৃত জর্দান নদীর পশ্চিমতীরের নাবলুস শহরে ১৫ বছর বয়সি এক ফিলিস্তিন কিশোরকে গুলি করে হত্যা করে। 



আরও খবর
করোনার ডেল্টা প্লাসে প্রথম মৃত্যু

বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১




শরীয়তপুরের মাঝিরঘাট-শিমুলিয়ায় ট্রলার ডুবিতে শিশুসহ চারজন নিখোঁজ, নিহত ১

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৮ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৮ মে ২০২১ | ১৫৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শরীয়তপুর প্রতিনিধি: শরীয়তপুরের মাঝিরঘাট-শিমুলিয়া নৌপথে ট্রলার ডুবির ঘটনা ঘটেছে। এঘটনায় একজন মুক্তিযোদ্ধার লাশ উদ্ধার করেছে নৌ-পুলিশ। এছাড়াও শিশুসহ চারজন নিখোঁজ রয়েছে বলে জানা গেছে।

জানা যায়, বৃহস্পতিবার(২৭ মে) জাজিরার পালের চর থেকে ইঞ্জিন চালিত একটি ট্রলার ১৮ জন যাত্রী নিয়ে পৈলানমোল্লার কান্দি নামক স্থানে পদ্মা নদীতে ডুবে যায়।

জাজিরা উপজেলা প্রসাশন ও পুলিশ জানায়, বৈরী আবহাওয়ার কারণে মঙ্গলমাঝির ঘাট ও শিমুলিয়া নৌপথে সকল ধরণের নৌযান চলাচল বন্ধ রয়েছে। একারণে কয়েকজন ব্যক্তি জাজিরার পালেরচর এলাকা থেকে বিকাল ৪ টার দিকে মাছ শিকারের একটি ট্রলারে করে পদ্মা পাড়ি দিয়েছিলেন। ৫ টার দিকে পদ্মার প্রবল ঢেউ ও ¯্রােতের আক্রমণে পড়ে ট্রলারটি ডুবে যায়। স্থানীয় বিভিন্ন নৌযানে ১৩ জন যাত্রীকে জীবিত উদ্ধার করে তাদের মধ্যে ৬ জনকে চিকিৎসার জন্য জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কম্পেলেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।  নৌপুলিশ সন্ধ্যার দিকে বাবুরচর এলাকা থেকে যাত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান আকনের(৭০) লাশ উদ্ধার করেছে। বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান আকন জাজিরার আকনকান্দি গ্রামের বাসিন্দা।

নৌপুলিশের মাঝিরঘাট ফাড়ির উপ-পরিদর্শক মৃদুল চন্দ্র কপালিক বলেন, রাত ৮টা পর্যন্ত উদ্ধার অভিযান চালানো হয়েছিল। অন্ধকার নদীতে কাজ করা যাচ্ছে না তাই শুক্রবার সকালে আবার উদ্ধার কাজ শুরু হবে। আমরা মাঝিরঘাটে দায়িত্ব পালন করছিলাম, নৌপুলিশের দৃষ্টি এড়িয়ে একটি চর থেকে ট্রলারটি শিমুলিয়া যাচ্ছিল।

জাজিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মাদ আশরাফুজ্জান ভূঁইয়া বলেন, বৈরী আবহাওয়ার কারণে দুই দিন যাবত সকল নৌযান বন্ধ, কিন্তু প্রসাশনের দৃষ্টি এড়িয়ে পদ্মার একটি চর থেকে মাছ শিকারের ট্রলারে করে যাত্রীরা পদ্মা পাড়ি দিয়েছিলেন। যে ব্যক্তির লাশ উদ্ধার করা হয়েছে তাকে তার পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। নিখোঁজ ৪ জনের পরিচয় এখনও জানা যায়নি। দুর্ঘটনার পর থেকেই নৌপুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের দুটি ইউনিট উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত ৪ মে শিমুলিয়া-বাংলাবাজার নৌপথে স্পিডবোটের সাথে বালুবোঝাই একটি বাল্কহেডের ধাক্কায় ২৬ জন ব্যক্তি প্রাণ হারান। এরপর থেকে ঐ নৌপথসহ মাঝিরঘাট-শিমুলিয়া নৌপথে স্পিডবোট ও ট্রলারে যাত্রী পাড়াপাড় নিষিদ্ধ করেছিল স্থানীয় প্রসাশন। কিন্তু ঈদের ৪ দিন আগে থেকে ট্রলারে করে যাত্রী পাড়াপাড় করা হচ্ছে বলে এই ঘটনা ঘটেছে বলে মনে করেন অনেকেই।


আরও খবর



বেশি গোলের বিশ্বরেকর্ড ছুঁয়েছেন রোনাল্ডো

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১ | ২১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আন্তর্জাতিক ফুটবলে সবচেয়ে বেশি গোলের বিশ্বরেকর্ড ছুঁয়েছেন পর্তুগিজ তারকা ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডো।

অধিনায়কের এমন স্মরণীয় ম্যাচে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন ফ্রান্সের সঙ্গে ড্র করেছে পর্তুগাল। অবশ্য এ ফল সত্ত্বেও ইউরোর শেষ ষোলোয় ওঠা বাধাগ্রস্ত হয়নি। কারণ হার এড়ালেই নকআউটপর্ব নিশ্চিত ছিল পর্তুগালের।

কোপেনহেগেনের পারকেন স্টেডিয়ামে বুধবার রাতে 'এফ' গ্রুপের শেষ রাউন্ডের ম্যাচটি ২-২ গোলে ড্র হয়েছে।

ম্যাচের ৩০তম মিনিটে ফ্রি-কিক পায় পর্তুগাল। মৌতিনহোর সেই কিকে জালের কাছাকাছি জায়গায় বলে মাথা ছোঁয়াতে চেষ্টা করেন পর্তুগিজ মিডফিল্ডার দানিলো।

এ সময় পেছন থেকে দৌড়ে এসে বল ঠেকাতে গিয়ে দানিলোর মুখে ঘুষি মেরে বসেন ফরাসি গোলরক্ষক হুগোব লরিস। সঙ্গে সঙ্গে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি।

আর সফল স্পট কিকে বল জালে জড়িয়ে দিয়ে আন্তর্জাতিক ফুটবলে নিজের ১০৮তম গোল পূরণ করেন রোনাল্ডো।

এভাবে মিনিট ১৫ খেলার পর বিরতির ঠিক আগে নিজেদের বক্সে ফরাসি স্ট্রাইকার কিলিয়ান এমবাপ্পেকে ফেলে দেন সেমেদো। পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। সিদ্ধান্তে অসন্তোষ প্রকাশ করে রেফারির দিকে তেড়ে যান পর্তুগালের খেলোয়াড়রা।

পরে ভিএআর দেখে পেনাল্টির সিদ্ধান্ত বহাল রাখা হয়। সফল স্পট কিকে পর্তুগিজ গোলরক্ষক প্যাত্রিসিওকে পরাস্ত করেন ফরাসি স্ট্রাইকার করিম বেনজেমা। ১-১ সমতায় বিরতিতে যায় দুদল।

দ্বিতীয়ার্ধে ফিরেই ব্যবধান বাড়ান বেনজেমা। পল পগবার থ্রো-ইনে পাওয়া বলে বুলেটগতির শট নেন বেনজেমা। বলটি বাঁদিকের পোস্টে লেগে জালে ঢুকে যায়। পর্তুগিজ গোলরক্ষকের কিছুই করার ছিল না।

গোলটি নিয়ে প্রথমে যদিও উল্লাসে মাততে পারেনি ফ্রান্স। প্রথমে অফসাইডের কারণে গোল বাতিল করা হয়, কিন্তু পরে ভিএআর দেখে গোলের সিদ্ধান্ত দেন রেফারি। ২-১ গোলে এগিয়ে যায় ফ্রান্স।

তবে বেশিক্ষণ লিড ধরে রাখতে পারেননি ফরাসিরা। ৫৯তম মিনিটে লেফট উইং ধরে বক্সে ক্রস দেন রোনাল্ডো। তার প্রথম প্রচেষ্টা ঠেকিয়ে দেন কুন্দে, কিন্তু বল রোনাল্ডোর কাছে ফিরে আসে। তিনি আবারও ক্রস দেন এবং এবার ফরাসি ডিফেন্ডারের হাতে লাগে।

সঙ্গে সঙ্গে পেনাল্টির দাবি জানায় পর্তুগাল। রেফারি তাদের দাবি মেনে নেন। এবারও পেনাল্টি থেকে কিক নেন রোনাল্ডো। গোলরক্ষককে পরাস্ত করে নিজের জোড়া গোল পূরণ করেন।

এর সঙ্গে গোল সংখ্যার বিশ্বরেকর্ড বুকে নাম ওঠান।

ছুঁয়ে ফেলেন ইরানি কিংবদন্তি আলি দাইয়ের গড়া সবচেয়ে বেশি আন্তর্জাতিক গোলের (১০৯ গোল) রেকর্ড।২-২ স্কোর লাইনে খেলা চলে বাকি ৩০ মিনিট। অর্থাৎ আর কোনো গোল না হওয়ায় ড্র নিয়েই মাঠ ছাড়ে দুদল।


আরও খবর
কলম্বিয়াকে ২-১ গোলে হারাল ব্রাজিল

বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১




বাজেট ঘাটতির অর্থ আসা নিয়ে সিপিডির শঙ্কা

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৪ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৪ জুন ২০২১ | ১১৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

২০২১-২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে ঘাটতির অর্থ সংস্থান নিয়ে আশঙ্কা প্রকাশ করেছে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)। প্রতিষ্ঠানটির ভাষ্য, প্রস্তাবিত বাজেটে অনুদান বাদ দিলে ঘাটতির পরিমাণ ২ লাখ ১৪ হাজার ৬৮১ কোটি টাকা। যা জিডিপির ৬ দশমিক ২ শতাংশ। আজ শুক্রবার ২০২১-২০২২ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেট নিয়ে সিপিডির পর্যালোচনায় এ আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়।

প্রতিষ্ঠানটির নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন। তিনি বলেন, বাজেট ঘাটতির অর্থ কোথা থেকে আসবে সেটা বড় প্রশ্ন। বাজেট ঘাটতি জিডিপির ৬.২ শতাংশ ধরা হয়েছে। বৈদেশিক উৎস থেকে বাজেট ঘাটতি পূরণের বিষয়টি ইতিবাচক দিক। এটা আকাঙ্ক্ষিত। তবে ২০২০-২০২১ অর্থবছরের ১০ মাসের গতিপ্রকৃতি পর্যালোচনা করে পুরো অর্থবছর কেমন হতে যাচ্ছে, সে বিষয়টি মাথায় রেখে ২০২১-২০২২ অর্থবছরে সামষ্টিক অর্থনীতির ক্ষেত্রে গতিপ্রকৃতি ঠিক করা হয়নি। আমরা এখানে দুর্বল অবস্থায় রয়েছি।

ফাহমিদা বলেন, রাজস্ব আহরণের বিষয়ে বাজেটে বলা হয়েছে, আগামী অর্থবছরে চলতি সংশোধিত বাজেটের তুলনায় রাজস্ব আহরণ ১০.০৭ শতাংশ বৃদ্ধি পাবে। ঘাটতি বাজেটের অর্থায়ন রাজস্ব আদায়ের মাধ্যমে কতটুকু সম্ভব হবে, সে বিষয়টি নিয়ে সন্দেহ আছে। তবে সিপিডি পর্যালোচনায় দেখতে পায় রাজস্ব আহরণ ৩০.৫ শতাংশ বৃদ্ধি করা সম্ভব। বাজেটে এনবিআরের রাজস্ব আদায়ের প্রবৃদ্ধি ধরা হয়েছে ৯.৬ শতাংশ। বলা হচ্ছে, রাজস্ব আদায়ের মাধ্যমে ঘাটতি পূরণ করা হবে। ব্যয় ঠিক করে আয়ের চিন্তাধারা থেকে এনবিআরের ওপর রাজস্ব আদায়ের বোঝা চাপিয়ে দেওয়া হয়। যা আসলে অর্জন করা সম্ভব হয় না।

এর আগে গতকাল বৃহস্পতিবার ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেট ঘোষণা পরবর্তী প্রতিক্রিয়ায় সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি) জানায়, প্রস্তাবিত বাজেট দুর্বল এবং এটি বাস্তবায়নে সামনে চ্যালেঞ্জের মুখে পড়তে হবে। নির্বাহী পরিচালক ফাহমিদা খাতুন বলেন, জিডিপির প্রবৃদ্ধি ৭ দশমিক ২০ শতাংশের কথা বলা হয়েছে। এখানে বলা হচ্ছে- ২০২০-২১ অর্থবছরের প্রবৃদ্ধির দেখানো হয়েছে ৬ দশমিক ১০ শতাংশ। এটা আমরা বলছি- অর্থনীতির অন্যান্য যেসব সূচক দেখা যাচ্ছে, সেই সূচকের প্রেক্ষিতে এটা একটু বেশি। এটা বাস্তবায়নের সম্ভাবনা খুব কম। সেটা যেহেতু আরও কম হবে, সেই লো বেঞ্চমার্ক থেকে এই যে ৭ শতাংশের ওপরে প্রবৃদ্ধি হবে, এটা আসলে বাস্তবোচিত না এবং পূরণ হবে না।

ফাহমিদা খাতুন বলেন, এর প্রেক্ষিতে সামষ্টিক যে কাঠামো অর্থাৎ এখানে রাজস্ব আয়, ব্যয় এবং বিনিয়োগ ইত্যাদির যে কাঠামো দেওয়া হয়েছে, তা বাস্তবসম্মত হয়নি বলে আমরা মনে করছি। রাজস্ব কাঠামোতে বড় ধরনের তেমন পরিবর্তন নেই। প্রস্তাবিত বাজেটে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্যমাত্র ৩০ শতাংশ বাড়াতে হবে। এটাও অনেকটা বেশি। করোনা মোকাবিলা এবং করোনা থেকে ফিরে অর্থনীতি পুনরুদ্ধার করার জন্য যে বাজেট প্রয়োজন ছিল সেটা আমরা লক্ষ্য করিনি। সামগ্রিকভাবে আমাদের কাছে মনে হয়েছে- করোনাকালীন এই বাজেট দুর্বল অনুমিত এবং বাস্তবায়নের সীমাবদ্ধতা আমাদেরকে চ্যালেঞ্জের মধ্যে ফেলবে।

সিপিডির নির্বাহী পরিচালক আরও বলেন, আয়করের সীমা ওপরের দিকে বাড়ানো হয়নি। একইভাবে নিচের দিকের সীমা অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে। এর ফলে কর ন্যায্যতা প্রতিষ্ঠিত হয়নি। নিচের দিকে আয়করের সীমা আর একটু বাড়ালে ভোগ ব্যয় বাড়তো। তা বিনিয়োগে সহায়তা করতে পারতো। অর্থাৎ পুনরুদ্ধারে সহায়তা করতে পারতো। সরকারি ব্যয়ের বর্ধিত যে বরাদ্দ, এখানে দেখা যাচ্ছে প্রায় এক-তৃতীয়াংশ জনপ্রশাসনে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। পাবলিক নিরাপত্তার ক্ষেত্রেও একটা বর্ধিত বরাদ্দ দেখা যাচ্ছে। খাতওয়ারি বিষয়ের মধ্যে সবার আগে আসে স্বাস্থ্যখাত। স্বাস্থ্যখাতের মূল বিষয় এখন টিকাদান। করোনা কতদিন থাকবে কেউ জানে না। করোনা থেকে মুক্তি না পেলে অর্থনীতিতে চাঞ্চল্য ফিরে আসবে না। সেজন্য টিকাদান কর্মসূচি সবার জন্য, যারা যোগ্য সবাইকে টিকা দিতে হবে।

ফাহমিদা আরও বলেন, টিকাদানের জন্য বাজেটে ১০ হাজার কোটি টাকা রাখা হয়েছে। এটা পর্যাপ্ত নয়। বাজেটে স্বাস্থ্যখাতের বরাদ্দ গত বছরের মতোই রাখা হয়েছে। ২০২০-২১ অর্থবছরে স্বাস্থ্যখাতের বরাদ্দ জিডিপির দশমকি ৮৩ শতাংশ ছিল। এ বছরেও দশমিক ৮৩ শতাংশ রয়েছে। সামাজিক নিরাপত্তা খাতে আমরা দেখছি সেখানে সামান্য কিছু ভাতা ও বরাদ্দ বেড়েছে। কিন্তু সেখানে আগের মতোই সরকারি কর্মচারীদের পেনশন রয়েছে। এখানে পেনশন যতটা বেড়েছে, সামাজিক নিরাপত্তার আসল যে অংশ সেখানে নিট ততোটা বাড়েনি। সুতরাং এখানে বরাদ্দ আরও বাড়ানোর প্রয়োজনীয়তা রয়েছে।

সিপিডির নির্বাহী পরিচালক আরও বলেন, বাজেট অর্থায়নের ক্ষেত্রে কয়েকটা কাঠামোগত পরিবর্তন দেখানো হয়েছে। বিদেশি ঋণের কথা বলা হয়েছে। এটা ভালো হয়েছে। রাজস্ব আহরণের ক্ষেত্রে যেসব নীতিমালা করা হয়েছে, সেখানে ব্যক্তিকে লক্ষ্য করে নয় প্রতিষ্ঠানকে লক্ষ্য করে করা হয়েছে। এটা ইতিবাচক। একইসঙ্গে এসএমইকে স্বল্পসুদে ঋণ দেওয়া হবে, এটাকে আমরা সমর্থন করছি।


আরও খবর