আজঃ বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১
শিরোনাম

ঈদ শেষে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ঘাটে ঢাকামুখী মানুষের স্রোত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ জুলাই ২০২১ | ১২২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঈদের ছুটি শেষে আগামীকাল শুক্রবার (২৩ জুলাই) ভোর থেকে আবারও দুই সপ্তাহের কঠোর বিধিনিষেধ (লকডাউন) শুরু হতে যাচ্ছে। এ কারণে ঈদের খুশি স্বজনদের সঙ্গে ভাগাভাগি করতে না করতেই কর্মস্থলে ফিরছে হচ্ছে। অন্যদিকে টানা ১৪ দিনের লকডাউনের কারণে অনেকে আবার গ্রামেও ফিরে যাচ্ছেন।

বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) ভোর থেকেই পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া নৌরুট দিয়ে শুরু হয়েছে ঢাকামুখী মানুষ পারাপারের ব্যস্ততা। সময় গড়ানোর সাথে সাথে ঘাট এলাকায় যানবাহন ও যাত্রীর সংখ্যা বাড়ছে। কর্মস্থলমুখী মানুষের মাঝে ঈদের আনন্দের ছোঁয়া থাকলেও পাশাপাশি রয়েছে দ্রুততম সময়ে স্বজনদের রেখে আসার বেদনা।

প্রিয়জনদের সাথে ঈদ করতে খুলনায় গিয়েছিলেন গোলাম কিবরিয়া নামে এক ব্যক্তি। তিনি বলেন, মাত্র দুই দিনের ব্যবধানে আবার ঢাকায় ফিরতে হচ্ছে। অনেকদিন পর গিয়ে দুইদিনেই ফিরে আসা কষ্টদায়ক। বাড়িতে যেতে না যেতেই ফেরার সময় হয়ে যায়। তাই ঈদের আনন্দ থাকলেও কিছুটা খারাপও লাগছে।

রাজিব নামের এক ব্যক্তি ঢাকাতেই ঈদ করেছেন। তবে দুই সপ্তাহের বিধিনিষেধের সময় গ্রামের বাড়িতে কাটাবেন বলে বৃহস্পতিবার ভোরেই রওনা হয়েছেন কুষ্টিয়ার উদ্দেশে। তবে তিনি আদৌ দুই সপ্তাহ পর ফিরতে পারবেন কিনা সেটি নিয়েও সংশয় রয়েছে তার মনে।

বিআইডব্লিউটিসি সূত্রে জানা যায়, ঢাকামুখী মানুষের চাপ সামলাতে পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ও আরিচা-কাজিরহাট নৌরুটে ৩৩টি লঞ্চ ও ১৯ ফেরি চালু রাখা হয়েছে।

ঘাট ব্যবস্থাপক মো. সালাম মিয়া জানান, ঈদে শেষ কর্মস্থল ফেরা মানুষের যত চাপই হোক বিআইডব্লিউটিসি প্রস্তত রয়েছে। সবগুলো ফেরি সার্ভিসে নিয়োজিত আছে। ঈদে সেবা দেওয়ার জন্য কাউকে ছুটি দেওয়া হয়নি। আমরা সর্বক্ষণিক নিয়োজিত রয়েছে।

সারা দেশে করোনার সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বেড়ে যাওয়ায় গত ১ জুলাই সকাল ৬টা থেকে শুরু হয় সাত দিনের কঠোর বিধিনিষেধ। এ বিধিনিষেধ ছিল ৭ জুলাই মধ্যরাত পর্যন্ত। পরে বিধিনিষেধের মেয়াদ আরও ৭ দিন অর্থাৎ ১৪ জুলাই মধ্যরাত পর্যন্ত বাড়ানো হয়। তবে বিধিনিষেধেও বিশেষ ব্যবস্থায় রপ্তানিমুখী পোশাক ও শিল্প কারখানা খোলা ছিল। এরপর ঈদুল আজহার কারণে ১৫ জুলাই থেকে লকডাউন শিথিল করা হয়। গত ১৩ জুলাই জারি করা এক প্রজ্ঞপনে লকডাউন শিথিলের এ নির্দেশনা দেয়  মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, আগামী ১৫ জুলাই মধ্যরাত থেকে ২২ জুলাই পর্যন্ত চলমান কঠোর বিধিনিষেধ শিথিল থাকবে। জনসাধারণের যাতায়াত, ঈদ পূর্ববর্তী ব্যবসা বাণিজ্য পরিচালনা, দেশের আর্থ সামাজিক অবস্থা এবং অর্থনৈতিক কার্যক্রম স্বাভাবিক রাখার স্বার্থে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে এ সময়ে জনসাধারণকে সতর্ক থাকা, মাস্ক পরিধানসহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে।

একই প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়, করোনাভাইরাসজনিত সংক্রমণ পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে ঈদের ছুটি শেষে ২৩ জুলাই সকাল ৬টা থেকে ৫ আগস্ট দিনগত রাত ১২টা পর্যন্ত কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হলো। লকডাউনে সরকারি-বেসরকারি সব প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকবে।



আরও খবর



বখশিসের টাকা না দেওয়ায় নবজাতককে খুন করল দুই হিজড়া

প্রকাশিত:শনিবার ১০ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ জুলাই ২০২১ | ৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বখশিসের টাকা না দেওয়ায় দুই হিজড়ার বিরুদ্ধে এক নবজাতককে অপহরণের পর খুন করার অভিযোগ উঠেছে।

ভারতের দক্ষিণ মুম্বাইয়ের অম্বেডকর নগরে বৃহস্পতিবার রাতে ঘটনাটি ঘটেছে।

অম্বেডকর নগরের বাসিন্দা সচিন চিতোলের বাড়িতে নবজাতকের খবর পেয়ে সেখানে যান কানাহাইয়া চোঘলে ওরফে কান্নু। অভিযোগ, সচিনের সন্তানকে আশির্বাদ করার জন্য ১১শ টাকা দাবি করেন কান্নু।

সচিন তখন কান্নুকে জানান, লকডাউনে তার কাজ চলে গেছে। হাতে টাকা নেই। ফলে তার দাবি মতো টাকা দেয়া সম্ভব নয়। পরিবর্তে কান্নুকে একটা শাড়ি এবং একটা নারকেল দেয়ার প্রস্তাব দেন সচিন।

কিন্তু কান্নু তা নিতে রাজি হননি। এর পরই সচিনের সঙ্গে কান্নুর কথা কাটাকাটি হয়। কান্নুকে বাড়ি থেকে বার করে দেন সচিন।

এরপর মাঝ রাতে সঙ্গী সোনুকে নিয়ে ফের সচিনের বাড়িতে যান কান্নু। মা-বাবা পাশে শুয়ে থাকা বাচ্চাটিকে তুলে নিয়ে গিয়ে পাশেরই একটি ডোবায় ছুড়ে ফেলে দেন। সকালে উঠে বাচ্চাকে দেখতে না পেয়ে শোরগোল পড়ে যায়। সচিন থানায় গিয়ে কান্নুর বিরুদ্ধে মামলা করেন।

সচিনের অভিযোগের ভিত্তিতে কান্নু এবং তার সঙ্গী সোনুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। জিজ্ঞাসাবাদে তারা বাচ্চাটিকে অপহরণ ও হত্যার কথা স্বীকার করেছেন বলে জানিয়েছেন মুম্বাই পুলিশের মুখাপত্র ডিসিপি এস চৈতন্য।


আরও খবর
ভারতে আবারও বেড়েছে মৃত্যু

বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১




স্বরূপকাঠিতে লকডাউন কার্যকরী করতে বিভিন্ন সংস্থার ব্যাপক অভিযান

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ জুলাই ২০২১ | ১২০জন দেখেছেন
হযরত আলী হিরু, স্বরূপকাঠি

Image

পিরোজপুরের স্বরূপকাঠিতে লকডাউনে সরকারী বিধি নিষেধ কার্যকরী করতে বিভিন্ন সংস্থার ব্যাপক অভিযান চালিয়েছে। সোমবার সকালে সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. বশির গাজীর নেতৃত্বে প্রশাসন এবং ওসি আবির মোহাম্মদ হোসেনের নেতৃত্বে পুলিশ এবং ভোক্তা অধিকার পিরোজপুরের সহকারী পরিচালক শাহ মো. শোয়াইব এর নেতৃত্বে ব্যাপক অভিযান চালানো হয়। সকালে থানা পুলিশের বিশাল একটি টিম করোনা প্রতিরোধে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে উপজেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে অবস্থান নিয়ে মাস্ক ও লিফলেট বিতরণ করে। সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো. বশির গাজী জগন্নাথকাঠি বন্দরে বিভিন্ন অভিযোগে একটি মিষ্টির দোকানীসহ ৮ মামলায় ৯ হাজার ২০০ টাকা জরিমানা করেন। অপরদিকে ভোক্তা অধিকারের সহকারী পরিচালক ৪ টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে ৮ হাজার টাকা জরিমানা আদায় করেন। তাকে সহায়তা করে এপিবিএর একটি দল।


আরও খবর



রামেক হাসপাতালের করোনা ইউনিটে আরও ১৪ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৯ জুলাই ২০২১ | ১০৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজশাহী মেডিকেল কলেজ (রামেক) হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

রবিবার সকাল ৮টা থেকে সোমবার সকাল ৮টার মধ্যে তারা মারা যান। এর আগে গত ২৮ জুন ও ১৪ জুলাই দুদিন সর্বোচ্চ ২৫ জন করে মারা যান। হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল শামীম ইয়াজদানী জানান, গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় পাঁচজন ও উপসর্গে ৯ জন মারা গেছেন। 

মৃতদের মধ্যে রাজশাহীর তিন, নাটোরের চার, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, নওগাঁ ও কুষ্টিয়ার দুজন করে এবং পাবনার একজন আছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় রামেক হাসপাতালে নতুন ভর্তি হয়েছেন ৬৪ জন। বর্তমানে এই হাসপাতালে ৪৫৪টি করোনা ডেডিকেটেড শয্যার বিপরীতে রোগী ভর্তি আছেন ৫০৮ জন। ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৫৬ জন। হাসপাতালে মোট করোনা ডেডিকেটেড শয্যার সংখ্যা এখন ৪৫৪টি।


আরও খবর



কাটাবন মার্কেটের মাছ ও পশু-পাখির জীবন রক্ষার উদ্যোগ : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৩ জুলাই ২০২১ | ৬৫২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনা সংক্রমণ রোধে সরকার ঘোষিত চলমান বিধি-নিষেধকালে রাজধানীর কাটাবন মার্কেটে বিদ্যমান জীবন্ত শোভাবর্ধক মাছ ও পশু-পাখির জীবন রক্ষার উদ্যোগ নিয়েছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়। এ লক্ষ্যে কাটাবন মার্কেটের মাছ ও পশু-পাখির দোকানগুলো চলমান বিধি-নিষেধের মধ্যে প্রতিদিন সকাল ও সন্ধ্যা অন্তত ০২ (দুই) ঘন্টা করে খোলা রাখার ব্যবস্থা গ্রহণে বাংলাদেশ পুলিশকে নির্দেশনা প্রদানের জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগে চিঠি দিয়েছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়। 

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউলকরিমের তাৎক্ষণিক নির্দেশে সোমবার (১২ জুলাই) এ সংক্রান্ত চিঠি জারী করেছে মন্ত্রণালয়। কাটাবন মার্কেটের অ্যাকুয়া ও পেটস অ্যাসোসিয়েশন এ বিষয়ে মন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করলে মন্ত্রী তাৎক্ষণিকভাবে ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য নির্দেশ দেন।

জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব বরাবর পাঠানো এ সংক্রান্ত চিঠিতে বলা হয়, করোনা ভাইরাসের বিস্তার রোধে চলমান বিধি-নিষেধকালে কাটাবন মার্কেটের পশু-পাখি ও মাছের দোকানগুলো সংকটে পড়েছে। দোকানগুলোতে বিদ্যমান জীবন্ত শোভাবর্ধক মাছ ও পশু-পাখিকে বাঁচিয়ে রাখার জন্য নিয়মিত খাদ্য, পানি ও রোগ প্রতিরোধক টিকা ও ঔষধ সরবরাহ করতে হয়। পাশাপাশি পরিচর্যা এবং পরিস্কার-পরিচ্ছন্নতা নিশ্চিত করাও আবশ্যক। চলমান বিধি-নিষেধের মধ্যে এসকল কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত হওয়ায় পশু-পাখি ও মাছ মারা যাচ্ছে। এ প্রেক্ষিতে মাছ ও পশু-পাখির জীবন বাঁচাতে কাটাবন মার্কেটের সংশ্লিষ্ট দোকানগুলো দিনের নির্দিষ্ট সময় খোলা রাখার ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।

এ বিষয়ে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী বলেন, কাটাবন মার্কেটে বিদ্যমান বিভিন্ন পোষা প্রাণি ও শোভাবর্ধক মাছের জীবন রক্ষার্থে আমরা চলমান বিধি-নিষেধের মধ্যেও দোকানগুলো প্রতিদিন নির্দিষ্ট একটা সময়ের জন্য খোলা রাখার উদ্যোগ নিয়েছি। এতে পশু-পাখি ও মাছের খাবার দেওয়া, জীবন রক্ষাকারী টিকা ও ঔষধ দেওয়া, আলো-বাতাস প্রবেশের সুযোগ দেওয়া এবং পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার সুযোগ করে দেওয়া সম্ভব হবে। ফলে অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে পশু-পাখি বা মাছ মারা যাবে না। এ বিষয়ে আমাদের সর্বোচ্চ সহানুভূতিশীল হওয়া প্রয়োজন।

উল্লেখ্য, গতবছরও লকডাউনের মধ্যে কাটাবন মার্কেট সরেজমিনে পরিদর্শন করে মাছ ও পশু-পাখির জীবন বাঁচাতে নির্ধারিত সময় দোকান খোলার রাখার উদ্যোগ নিয়েছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম।


আরও খবর



পুলিশ কর্মকর্তাদের জন্য আইজিপির নির্দেশনা

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৪ জুলাই ২০২১ | ১৫৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
আইজিপি দেশের প্রধান প্রধান ঈদ জামাতে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনপূর্বক পোশাকে এবং সাদা পোশাকে পুলিশ মোতায়েনের নির্দেশ দেন

আসন্ন পবিত্র ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে পুলিশ কর্মকর্তাদের বেশকিছু নির্দেশনা দিয়েছেন সংস্থাটির মহাপরিদর্শক (আইজি) ড. বেনজীর আহমেদ।

করোনাকালীন সরকারি বিধিনিষেধ শিথিলকালে আসন্ন ঈদুল আজহা উপলক্ষে ঘরমুখো মানুষের চলাচল নির্বিঘ্ন করতে মহাসড়ক ও সড়কে হাইওয়ে, জেলা পুলিশ এবং নৌপথে নৌ পুলিশ‌কে যথাযথভাবে দায়িত্ব পালনের নির্দেশ দেন।

কোনো সুনির্দিষ্ট তথ্য বা অভিযোগ ছাড়া মহাসড়কে কোরবানির পশুবাহী যানবাহন না থামানোর নির্দেশ দেন পুলিশপ্রধান।

বুধবার বিকালে ঈদুল আজহাকে কেন্দ্র করে সার্বিক আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি, নিরাপত্তা ও ট্রাফিক ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার, রেঞ্জ ডিআইজি ও জেলার পুলিশ সুপারদের (এসপি) এক ভার্চুয়াল সভায় তিনি এসব নির্দেশ দেন।

সড়ক ও নৌপথে পশুবাহী ট্রাক বা লঞ্চে নির্দিষ্ট হাটের নাম উল্লেখ করে নার টানানো এবং এক হাটের পশুবাহী গাড়ি অন্য হাটে প্রবেশ নিয়ন্ত্রণ করতে হাট কর্তৃপক্ষসহ সংশ্লিষ্ট সবাইকে অনুরোধ জানান পুলিশপ্রধান। মহামারি করোনার সংক্রমণ প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পশুরহাট বসানোরও অনুরোধ জানান আইজিপি।

আইজিপি দেশের প্রধান প্রধান ঈদ জামাতে নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালনপূর্বক পোশাকে এবং সাদা পোশাকে পুলিশ মোতায়েনের নির্দেশ দেন। ঈদের ছুটিতে চুরি, ডাকাতিসহ অন্যান্য অপরাধ প্রতিরোধে স্বাস্থ্যবিধি মেনে পুলিশি টহল এবং বিট পুলিশিং কার্যক্রম বাড়ানোর নির্দেশও দেন তিনি।

সভায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ অন্যান্য মাধ্যমে কেউ যেন গুজব রটিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াতে অথবা আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি ঘটাতে না পারে, সেজন্য গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানোর নির্দেশ দেন পুলিশপ্রধান।


আরও খবর