আজঃ বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১
শিরোনাম

ঈদের রাতে ছাত্রদল, ছাত্রলীগের দুই নেতার ছেলে নিহত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২২ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২২ জুলাই ২০২১ | ১০৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কক্সবাজারের হিমছড়িতে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল দুই ছাত্রনেতার। এ সময় আহত হয়েছেন আরও অন্তত ৩ জন। আহতদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা গেছে।

ঈদের দিন বুধবার রাত সাড়ে ১০টার দিকে মেরিন ড্রাইভ রোডের হিমছড়ি এলাকায় বেপরোয়া গতির দুটি মোটরসাইকেলের মুখোমুখি সংঘর্ষে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন কক্সবাজার সিটি কলেজ শাখার ছাত্রদলের যুগ্ম-আহ্বায়ক কফিলউদ্দিন রিফাত ও কক্সবাজার পৌরসভার ১২ নম্বর ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি আসিফ চৌধুরী।

দুর্ঘটনায় নিহত কফিল উদ্দীন ওরফে রিফাত (২০) কক্সবাজার পৌরসভার দক্ষিণ পাহাড়তলী ইসলামপুর এলাকার মো. ওসমানের ছেলে এবং মোহাম্মদ আসিফ (২৩) কলাতলী এলাকার জালাল আহমেদের ছেলে।

এ ঘটনায় আহতদের মধ্যে একজনের পরিচয় পাওয়া গেলেও অন্য দুইজনের পরিচয় এখনও জানা যায়নি। পরিচয় পাওয়া আহত যুবক হলেন- কক্সবাজার পৌরসভার দক্ষিণ পাহাড়তলী ইসলামপুর এলাকার মো. ছলিমুল্লাহর ছেলে মোহাম্মদ আব্দুল্লাহ।

হিমছড়ি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ এসআই মো. মিজানুল হক  জানান, রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের হিমছড়ি সেনাক্যাম্প সংলগ্ন এলাকায় বেপরোয়া গতিতে বিপরীত দিক থেকে আসা দুইটি মোটরসাইকেলের মধ্যে মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে মোটরসাইকেল দুটির ৫ জন আরোহী আহত হয়। পুলিশের সহায়তায় আহতদের উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠান স্থানীয়রা।

কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা এএসআই মো. রিপন চৌধুরী বলেন, দুর্ঘটনায় আহত ৫ জনকে হাসপাতালে আনা হলে জরুরি বিভাগে কর্তব্যরত ২ জনকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত ৩ জন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। দুইজনের লাশ কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে।



আরও খবর



কুষ্টিয়ায় করোনায় আরও ১৮ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:শনিবার ১০ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১০ জুলাই ২০২১ | ১১৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কুষ্টিয়া গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ও উপসর্গ নিয়ে আরও ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে। কুষ্টিয়া করোনা ডেডিকেটেড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তাদের মৃত্যু হয়।

এদের মধ্যে করোনা আক্রান্ত হয়ে ১৫ জন মারা গেছেন। আর করোনা উপসর্গ নিয়ে ৩ জন মারা যান।

শুক্রবার (৯ জুলাই) সকাল ৮টা থেকে শনিবার (১০ জুলাই) সকাল ৮টা পর্যন্ত তাদের মৃত্যু হয়েছে। জেলা সিভিল সার্জন ডা. এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

গত ২৪ ঘণ্টায় জেলায় ৫৮৯ জনের নমুনা পরীক্ষা করে ১৭৬ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। নতুন করে শনাক্ত হওয়া ১৭৬ জনের মধ্যে কুষ্টিয়া সদরের ৯৭ জন, দৌলতপুরের ১৮ জন, কুমারখালীর ১৭ জন, ভেড়ামারার ৩৭ জন, মিরপুরের তিনজন ও খোকসার চারজন রয়েছেন।

গত ছয় দিনে প্রথমবার শনাক্তের সংখ্যা দুইশর নিচে নামল। তবে আগের দিনের তুলনায় শনাক্তের হার দুই বেড়ে ২৯ দশমিক ৮৮ শতাংশ হয়েছে। ২৪ ঘণ্টায় ১০৪ জন করোনা রোগী সুস্থ হয়েছেন।

গত ৭ দিনে কুষ্টিয়ায় এক হাজার ৭৭৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। এই ৭ দিনেই এখানে ৯৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ পর্যন্ত ৩২৫ জনের মৃত্যু হলো। এ পর্যন্ত শনাক্ত হলো ১০ হাজার ৬১ জন।

কুষ্টিয়া ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডাক্তার তাপস কুমার সরকার জানান, রোগীর চাপ বেড়েই চলেছে। ২০০ বেডে করোনা ও উপসর্গ নিয়ে ভর্তি আছেন ২৯২ জন রোগী। এর মধ্যে ১৯২ জন করোনা আক্রান্ত রোগী। প্রায় ৭০ শতাংশ রোগীদের অক্সিজেন প্রয়োজন হচ্ছে। হিমশিম খাচ্ছেন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এদিকে চলমান লকডাউন অনেকটাই ঢিলেঢালাভাবে চলছে। শহরে ও গ্রামে মানুষ স্বাভাবিকভাবেই চলাচল করছে। অধিকাংশ স্থানে স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না।

এদিকে কুষ্টিয়ায় আয়েশা খাতুন নামে ৫ মাস বয়সী এক শিশু করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৮ জুলাই) করোনা পরীক্ষায় তার পজিটিভ রিপোর্ট আসে। কুষ্টিয়ায় সবচেয়ে কম বয়সী শিশুর করোনা আক্রান্তের ঘটনা এটি দ্বিতীয়। এর আগে গত ২২ জুন প্রিন্স নামে দেড় মাস বয়সী এক শিশু করোনায় আক্রান্ত হয়েছিল।



আরও খবর



আজও সারা দেশে বৃষ্টি হতে পারে

প্রকাশিত:সোমবার ০২ আগস্ট 2০২1 | হালনাগাদ:সোমবার ০২ আগস্ট 2০২1 | ৪৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের ওপর মোটামুটি সক্রিয় থাকায় সারা দেশের কোথাও কোথাও বিক্ষিপ্তভাবে মাঝারি ধরনের ভারি থেকে ভারি বর্ষণ হতে পারে।

আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়, রংপুর, ময়মনসিংহ, ঢাকা, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের অনেক জায়গায় এবং রাজশাহী, বরিশাল ও খুলনা বিভাগের কিছু কিছু স্থানে অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি অথবা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে বলে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর জানায়, সুস্পষ্ট লঘুচাপটি উত্তর প্রদেশ ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে। লঘুচাপের কেন্দ্রস্থল বিহার, গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের দক্ষিণাঞ্চল হয়ে আসাম পর্যস্ত বিস্তৃত রয়েছে। এর বর্ধিতাংশ উত্তর বঙ্গোপসাগর পর্যন্ত বিস্তৃত রয়েছে।

দেশের অভ্যন্তরীণ নদীবন্দর সমূহের জন্য আবহাওয়ার পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, পাবনা, টাঙ্গাইল, ঢাকা, ফরিদপুর, মাদারীপুর, খুলনা, বরিশাল, পটুয়াখালী, নোয়াখালি, কুমিল্লা, চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, ময়মনসিংহ ও সিলেট অঞ্চলসমূহের ওপর দিয়ে দক্ষিণ অথবা দক্ষিণ-পূর্ব দিক থেকে ঘণ্টায় ৪৫ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে বৃষ্টি অথবা বজ্রবৃষ্টিসহ অস্থায়ীভাবে দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়া বয়ে যেতে পারে।

এসব এলাকার নদীবন্দর সমূহকে ১ নম্বর সতর্ক সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। পরবর্তী তিন দিনে বৃষ্টিপাতের প্রবণতা বাড়তে পারে। ঢাকা ও পার্শ্ববর্তী এলাকার আবহাওয়ার পুর্বাভাসে বলা হয়, হালকা থেকে মাঝারী ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। এছাড়া আকাশ আংশিক মেঘলা থেকে অস্থায়ীভাবে মেঘলা থাকতে পারে।

গতকাল রবিবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল রাজশাহীতে ৩৩ দশমিক ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস এবং সর্বনিম্ন তাপমাত্রা হাতিয়া ও কুতুবদিয়াতে ২৫ দশমিক শূন্য ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে।



আরও খবর



ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে দীর্ঘ যানজট

প্রকাশিত:রবিবার ০১ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ০১ আগস্ট ২০২১ | ৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কের টাঙ্গাইল বাইপাস থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব পাড় পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে থেমে থেমে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। সরকার ঘোষিত শনিবার (৩১ জুলাই) রাত ৮ টা থেকে রোববার (০১ আগস্ট) বেলা ১২ টা পর্যন্ত গণপরিবহন চালুর সিদ্ধান্তের পর থেকে মহাসড়কটিতে যানবাহনের চাপ বাড়তে থাকে। ফলে এ যানজটের সৃষ্টি হয়।

এর আগে রবিবার থেকে গার্মেন্টস ও শিল্পকারখানা খুলে দেয়ার ঘোষণার পর শনিবার সকাল থেকেই মহাসড়কটিতে ঢাকামুখি মানুষের ঢল নেমেছে। চাকরি বাঁচাতে লোকজন খোলা ট্রাক, পিকআপ, মাইক্রোবাস, প্রাইভেটকার ও মোটরসাইকেলযোগে কয়েকগুন বেশি ভাড়ায় ঢাকার দিকে রওনা দেয়। পায়ে হেঁটে গন্তব্যে যেতে দেখা গেছে অনেকেই।

এদিকে যানজটের কারণে চরম ভোগান্তি যাত্রী ও যানবাহনের চালকরা। বিশেষ করে নারী ও শিশুদের পড়তে হচ্ছে চরম বিপাকে।

তবে যানজটের বিষয়ে এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশের ওসি ইয়াসির আরাফাত ও বঙ্গবন্ধু সেতু পূর্ব থানার ওসি সফিকুল ইসলামের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তারা ফোন রিসিভ করেননি।


আরও খবর



অনুমতি পেলেই বাংলাদেশে টিকা উৎপাদন শুরু করবে চীন

প্রকাশিত:সোমবার ১২ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ জুলাই ২০২১ | ১২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সরকারের অনুমতি পেলেই চীন বাংলাদেশে যৌথ টিকা উৎপাদন শুরু করতে প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন ঢাকায় নিযুক্ত চীনের ডেপুটি চিফ অব মিশন হুয়ালং ইয়ান। সোমবার (১২ জুলাই) অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-চায়না অ্যালামনাই (এবিসিএ) আয়োজিত এক ওয়েবিনারে এ কথা জানান তিনি।

চীনের ডেপুটি চিফ অব মিশন হুয়ালং ইয়ান বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে টিকার যৌথ উৎপাদন শুরু করতে চায় চীন। টিকার যৌথ উৎপাদনে প্রস্তুত চীন। বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে অনুমতি পেলে চীন টিকা উৎপাদন শুরু করবে।

চীনা কমিউনিস্ট পার্টির শতবছর পূর্তিতে আয়োজিত ওয়েবিনারে এবিসিএর প্রেসিডেন্ট সাবেক রাষ্ট্রদূত মুন্সি ফয়েজ আহমেদ স্বাগত বক্তব্য রাখেন। ওয়েবিনারে কি-নোট স্পিকার হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন ও আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন নিরাপত্তা বিশ্লেষক ও সাবেক নির্বাচন কমিশনার এম সাখাওয়াত হোসেন।

এ সময় সিনোফার্ম থেকে বাংলাদেশ সরকারের কেনা ৫০ লাখ টিকা আগস্টের শুরুর দিকে আসতে পারে বলে জানান চীনের ডেপুটি চিফ অব মিশন।

এর আগে গত ৬ জুলাই হুয়ালং ইয়ান জানিয়েছিলেন, করোনাভাইরাসের টিকার যৌথ উৎপাদনে চীনা কোম্পানিগুলো বাংলাদেশের সঙ্গে কাজ করবে।

ওই দিন ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে চীনের ডেপুটি চিফ অব মিশন লেখেন, চীনা কোম্পানি আর অ্যান্ড ডি সংস্থা ভবিষ্যতে ভ্যাকসিন উৎপাদনে বাংলাদেশি অংশীদারদের সঙ্গে কাজ করবে। চীন বহু উন্নয়নশীল দেশের সঙ্গে যৌথ গবেষণা ও উন্নয়ন ও সমবায় উৎপাদন পরিচালনা করেছে এবং তৃতীয় পর্যায়ের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল পরিচালনায় বিদেশি দেশগুলোকে সহযোগিতা করার জন্য সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকে সমর্থন করেছে।

গত ৭ জুলাই পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন জানান, যৌথভাবে দেশে টিকা উৎপাদনে বাংলাদেশ অনেক দূর অগ্রসর হয়েছে। ড. মোমেন বলেছিলেন, আমরা টিকার যৌথ উৎপাদনের জন্য চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে কথা বলেছি। তাদের কাছে আমরা দেশে টিকা উৎপাদনে যাওয়ার প্রস্তাব রেখেছি। এটা নিয়ে আলোচনা অনেক দূর অগ্রসর হয়েছে। সবশেষ গত শনিবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এক ভিডিও বার্তায় জানান, চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে টিকার যৌথ উৎপাদনে আলাপ চলছে।


আরও খবর



স্বরূপকাঠিতে ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যদের শপথগ্রহণ

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৪ জুলাই ২০২১ | ১৩৯জন দেখেছেন
হযরত আলী হিরু, স্বরূপকাঠি

Image

পিরোজপুরের স্বরূপকাঠিতে নির্বাচিত ১০ টি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান, সাধারণ সদস্য ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্যদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার সকালে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে নব নির্বাচিত ১০জন চেয়ারম্যানকে শপথ বাক্য পাঠ করান পিরোজপুরের জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাদ হোসেন। আর ৯০ জন সাধারণ সদস্য ও ৩০ জন সংরক্ষিত মহিলা সদস্যদের শপথ পড়ান উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মোশারেফ হোসেন।

উপজেলা প্রশাসন আয়োজিত শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাদ হোসেন নব নির্বাচিতদের সরকারি বিধি-বিধান মেনে দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতির উর্দ্ধে উঠে সততা ও নিষ্ঠার সাথে জনকল্যাণে কাজ করার নির্দেশনা দেন।

ইউএনও মো. মোশারেফ হোসেনের সভাপতিত্বে ও উপজেলা যুব উন্নয়ন কর্মকর্তা মো জাহিদ হোসেনের সঞ্চালনে সংক্ষিপ্ত এ অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল হক, পৌর মেয়র গোলাম কবির, ওসি আবির মোহাম্মদ হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি মো.আব্দুল হামিদ, সাধারণ সম্পাদক এ্যাডভোকেট এস এম ফুয়াদ, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রনি দত্ত, মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার কাজী মো. সাখাওয়াত হোসেন, প্রেসক্লাব সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম ও  নব নির্বাচিত চেয়ারম্যান মো.আল আমিন প্রমুখ।

উল্লেখ্য, প্রথম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে স্বরূপকাঠি উপজেলায় বলদিয়া ইউনিয়নে মো. সাইদুর রহমান, সোহাগদল ইউনিয়নে মো. আব্দুর রশিদ, স্বরূপকাঠি ইউনিয়নে মো. আল আমিন, আটঘর কুড়িয়ানা ইউনিয়নে মিঠুন হালদার, জলাবাড়ি ইউনিয়নে মো. তৌহিদুল ইসলাম, দৈহারী ইউনিয়নে মো. জাহারুল ইসলাম, গুয়ারেখা ইউনিয়নে মো. আব্দুর রব সিকদার, সমুদয়কাঠি ইউনিয়নে মো. হুমায়ুন কবির, সুটিয়াকাঠি ইউনিয়নে মো. রুহুল আমিন অসীম ও সারেংকাঠি ইউনিয়নে মো. নজরুল ইসলাম চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।


আরও খবর