আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১
শিরোনাম

এনজিও কর্মী থেকে কোটিপতি শ্রীরামকাঠী ইউপি চেয়ারম্যান উত্তম মৈত্র !

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০৪ মে ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০৪ মে ২০২১ | ১৭৭২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
অবৈধ ভাবে অর্থ আৎসাত করে বিত্তবান হওয়ার অহংকারে এমনকি তার নির্মম নির্যাতনের শিকার তার জন্মদাতা পিতা, আপন বোন ও বোন জামাই। ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে এই চেয়ারম্যান নাজিরপুর উপজেলার একটি ঐতিহ্যবাহী ইউনিয়নকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে

পিরোজপুরের নাজিরপুর উপজেলার ৮নং শ্রীরামকাঠী ইউনিয়নের বর্তমান চেয়ারম্যান উত্তম মৈত্রের বিরুদ্ধে পরিষদের কার্যক্রমে ব্যপক অনিয়ম, দুর্নীতি, অর্থ আৎসাত, ভুমি দখল, পরিষদ থেকে পরিচয়পত্র, ওয়ারিশ সনদ পত্র, জন্ম নিবন্ধন গ্রহন করায় সাধারণ জনগণের কাছ থেকে উৎকোচ গ্রহণের বিস্তর অভিযোগ পাওয়া গেছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অত্র ইউনিয়নের ৬ বার জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত জনপ্রিয় চেয়ারম্যন আ. মালেক বেপারী ২০১৭ সালের ১৪ নভেম্বর মৃত্যুবরণ করায় উক্ত ইউনিয়নটি শুন্য হয়। এনজিওর চাকুরী ছেড়ে দিয়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে সক্রিয় না থেকে ও হিন্দু অধ্যুষিত এলাকা হিসেবে এই ইউনিয়নটি চিহ্নিত হওয়ায় আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে নৌকা প্রতিকে ২০১৮ সালের ১৬ এপ্রিলে অনুষ্ঠিত উপনির্বাচনে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন এই উত্তম কুমার মৈত্র। চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে তার ভাগ্য বদলে যায়, ফিরে তাকাতে হয়নি আর পিছনের দিকে।

একের পর এক অনিয়ম, দুর্নীতি, অর্থ আত্মসাত, ভুমি দখল করে এক বছর যেতে না যেতেই তিনি শ্রীরামকাঠী বন্দর সংলগ্ন ভীমকাঠীতে গড়ে তোলেন কোটি টাকা ব্যয়ে তিন তলা সুদৃশ্য পাকা ভবন। অথচ নির্বাচন কালীন সময় কর্মী খরচ না দিতে পারায় কর্মীদের হাতে লাঞ্চিত হতে হয়েছে তার বড় ভাইকে। অবৈধ ভাবে অর্থ আৎসাত করে বিত্তবান হওয়ার অহংকারে এমনকি তার নির্মম নির্যাতনের শিকার তার জন্মদাতা পিতা, আপন বোন ও বোন জামাই। ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে এই চেয়ারম্যান নাজিরপুর উপজেলার একটি ঐতিহ্যবাহী ইউনিয়নকে ধ্বংসের দিকে ঠেলে দিয়েছে। চেয়ারম্যানের অনিয়ম ও দুর্নীতির কারণে পরিষদের ১২ জন ইউপি সদস্যের মধ্যে ১১জন সদস্য জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেন।

লিখিত অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, নৈলতলা গ্রামের জ্যোতি প্রকাশ বেপারীর বাড়ির নিকট আয়রন ব্রিজ মেরামত বাবদ ২ লক্ষ টাকা, খেজুরতলা মাধ্যমিক বিদ্যালয় সংলগ্ন আয়রন ব্রিজ মেরামত বাবদ ১লক্ষ ৬০ হাজার টাকা ইউনিয়ন পরিষদ কতৃক বরাদ্দ করে কোন কাজ না করে পুরো টাকা আত্মসাত করে। এলজিএসপির-৩ এর আওতায় প্রতি বছর বরাদ্দকৃত ২০ লক্ষ টাকা ইউপি সদস্যদের সাথে কোন আলাপ আলোচনা ছাড়াই নিজের খেয়াল খুশি মত প্রকল্প দেখিয়ে আৎসাত করে।

মধুরাবাদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিকট আয়রন ব্রিজ মেরামতের প্রকল্প দেখিয়ে কোন কাজ না করে পুরো টাকা নিজেই আৎসাত করে। ইউনিয়নের উন্নয়ন মুলক কাজ টিআর-কাবিখা বাস্তবায়নের জন্য বরাদ্দকৃত অর্থ থেকে ইউপি সদস্যদের ৩০ ভাগ অর্থ উৎকোচ হিসেবে চেয়ারম্যানকে দিতে হয়। বয়স্ক ভাতা, বিধবা ভাতা, পঙ্গু ভাতা, হরিজন ভাতা, মৎস্য ভিজিএফ কার্যক্রম, দুস্থদের সাহায্যের তালিকা, গভীর নলকুপ, ওয়ারিশ সনদপত্র প্রদানে তার বিরুদ্ধে রয়েছে বিপুল পরিমান অর্থ বানিজ্যের অভিযোগ। এ ছাড়া ইউনিয়নের বিভিন্ন শালিস বৈঠক থেকে হাতিয়ে নিয়েছে লক্ষ লক্ষ টাকা। ভুক্তভোগীরা ইউনিয়নের সচেতন মহলের নিকট অভিযোগ করেও কোন সমাধান পায়নি।

চেয়ারম্যান উত্তম মৈত্রের পিতা প্রফুল রঞ্জন মৈত্র ফেইজবুক লাইভে এসে পুত্রের অনিয়ম ও দুর্নীতির চিত্র জন সম্মুখে তুলে ধরেন এবং বলেন আমার স্ত্রী মারা যাবার পর এই উত্তম আলমারী ভেংগে ৭ লক্ষ টাকা ও চাকুরীর প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র, জায়গা জমির দলিল সব নিয়ে যায়। তিনি বর্তমানে খুব অসহায় অবস্থায় জীবন যাপন করছে। চেয়ারম্যান পুত্রের এহেন অপরাধের জন্য প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনার নিকট তিনি বিচার প্রার্থনা করছেন।

মধ্য জয়পুর গ্রামের মো. মশিউর রহমান জানান, এই চেয়ারম্যান ওয়ারিশ সনদ বাবদ আমার নিকট থেকে তিন হাজার টাকা গ্রহন করেন। দক্ষিণ জয়পুর গ্রামের অনুপ সিকদার জানান, চেয়ারম্যানের বাসার পিছনে আমার ক্রয়কৃত তিন কাঠা জমি দখল করে জমির সমস্ত মাটি কেটে নিয়ে যায় এবং লোকের কাছে বলে উক্ত জায়গা আমি ক্রয় করেছি। এ ব্যপারে আমি থানায় অভিযোগ করেছি। এহেন দুর্নীতিবাজ চেয়ারম্যানের হাত থেকে রক্ষা পেতে ইউনিয়নবাসী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হস্তক্ষেপ কামনা করছে।


আরও খবর



কাউন্সিলরকে তুলে নিয়ে বিয়ে করার হুমকি এক নারীর

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ এপ্রিল ২০২১ | ১৭৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নারায়ণগঞ্জের আলোচিত কাউন্সিলর মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদকে তুলে নিয়ে বিয়ে করার হুমকি দিয়েছেন এক নারী। কয়েকদিন আগে ওই নারী তার বাসার সামনে লোকজন নিয়ে হাজিরও হয়েছিলেন। এ নিয়ে পুলিশের কাছে অভিযোগ দিয়েছেন কাউন্সিলর খোরশেদ।

শনিবার (২৪ এপ্রিল) রাতে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে ওই নারীর হুমকির ঘটনা তুলে ধরেন তিনি। এসময় তার পাশে ছিলেন স্ত্রী আফরোজা খন্দকার লুনা। করোনায় আক্রান্ত মৃত ব্যক্তিদের দাফন করে নারায়ণগঞ্জে ব্যাপক আলোচনায় আসেন কাউন্সিলর খোরশেদ।

মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ বলেন, ওই নারী আমাকে তুলে নিয়ে যাওয়ার হুমকি দিয়েছে। সে আমার স্ত্রী ও সন্তানদের ক্ষতি করতে চায়। কারণ, সে আমাকে বিয়ে করতে চেয়েছে কিন্তু আমি তাতে সারা দেয়নি। কয়েকদিন আগে ওই নারী আমার বাড়ির সামনে লোকজন নিয়ে এসেছিল। তাদের সাথে কাজীও ছিলো। সে আমাদের হয়রানি করছে। পরিবারের সদস্যদের ক্ষতি করতে চাইছে। আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি

ফেসবুকে কাউন্সিলর খোরশেদ বলেন, করোনাকালে অক্সিজেন দিয়ে আমাদের সহযোগিতা করেন ফতুল্লার ইসদাইর এলাকার সাইদা শিউলি নামের ওই নারী। সে থেকে তার সাথে পরিচয় হয়। এরপর তিনি বিভিন্ন সময় ফেসবুকে যোগাযোগ করেন কিন্ত তার কথাবার্তার ধরণ ভালো ছিলো না। তাই তার সাথে কথা বলেনি। এতে তিনি আরও ক্ষিপ্ত হয়ে যান।

এরপর থেকে সে আমাকে বিয়ে করার জন্য নানাভাবে হয়রানি করার চেষ্টা শুরু করেন। মুঠো ফোনে আমার স্ত্রী ও সন্ত্রানদের ক্ষতি করার হুমকি দেন। ওই নারী প্রথম শ্রেণীর উচ্চপদস্থ বিভিন্ন ব্যক্তির সাথে চলাফেরা করেন। তাই তিনি প্রভাব বিস্তার করার জন্য করছেন। এ ঘটনা আমি পুলিশকে জানিয়েছি। কিন্তু এখনো কোন সমাধান পাইনি বলে উল্লেখ করেন কাউন্সিলর খোরশেদ।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে স্ত্রী আফরোজা খন্দকার লুনাকে পাশে নিয়ে খোরশেদ বলেন, ওই নারীর কাছে থেকে স্ত্রী ও সন্তানদের রক্ষা করতে এবং নিজের সম্মান বাঁচাতে ফেসবুকের মাধ্যমে সবাইকে ঘটনা জানালাম। পরিশেষে তিনি রাষ্ট্রের কাছে সহযোগিতা দাবি করেন তার পরিবারের জন্য।


আরও খবর



বনানী কবরস্থানে চিরশায়িত হলেন কবরী

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৭ এপ্রিল ২০২১ | ১০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কিংবদন্তি অভিনেত্রী ও রাজনীতিবিদ সারাহ বেগম কবরীকে রাজধানীর বনানী কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হয়েছে।

শনিবার (১৭ এপ্রিল) দুপুর ২টার বরেণ্য এই তারকার দাফন কার্য সম্পন্ন হয়। এর আগে বাদ জোহর কবরস্থান প্রাঙ্গণে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

এই মহাতারকার জানাজায় অংশ নিয়েছেন চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির সভাপতি সোহানুর রহমান সোহান, সাবেক সভাপতি মুশফিকুর রহমান গুলজার, শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর ও সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খানসহ চলচ্চিত্র অঙ্গনের বেশ কয়েকজন। এছাড়া কবরীর পারিবার ঘনিষ্ঠজনরা ছাড়াও রাজনীতি সহকর্মীরা অংশ নেন।

এর আগে বেলা ১২টায় শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার হাসপাতাল থেকে কবরীর মরদেহ নিয়ে যাওয়া হয় রাজধানীর গুলশানে তার নিজ বাসায়। সেখান থেকে মরদেহ দাফনের জন্য বনানী কবরস্থানে নেওয়া হলে তাকে গার্ড অব অনার দেওয়া হয়।

গত ৫ এপ্রিল কবরীর নমুনা পরীক্ষায় করোনাভাইরাসের রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এরপর ওইদিন রাতেই তাকে কুর্মিটোলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে রাজধানীর কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল থেকে স্থানান্তর করা হয়। ৮ এপ্রিল দুপুরে তাকে শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের আইসিইউতে নেওয়া হয়। ১৫ এপ্রিল নেওয়া হয় লাইফ সাপোর্টে। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় শুক্রবার দিনগত রাত ১২টা ২০ মিনিটে না ফেরার দেশে চলে যান নন্দিত এই অভিনেত্রী।

নিউজ ট্যাগ: সারাহ বেগম কবরী

আরও খবর



এতো লাশ আসছে কবর খুঁড়ে কুল পাচ্ছি না

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ এপ্রিল ২০২১ | ৯৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাজধানীর রায়ের বাজার কবরস্থানে লাশ দাফন বেড়েছে কয়েকগুণ। করোনায় আক্রান্ত মৃত ব্যক্তিদের জন্য নির্ধারিত ৮ নম্বর ব্লকে গিয়ে দেখা যায়, একপাশেই খুঁড়ে রাখা হয়েছে অন্তত ২৫টি কবর। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে মৃত্যুর সংখ্যা অধিকমাত্রায় বেড়ে যাওয়ায় এমন আগাম প্রস্তুতি নিয়ে রাখা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, করোনা আক্রান্ত মৃতদেহের চাপ বাড়ায় গোরখোদকরা কোদাল দিয়ে কবর খুঁড়ে শেষ করতে না পেরে এক্সকাভেটর দিয়ে আগেই কবর খুঁড়ে রাখছে।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) সূত্রের বরাত দিয়ে প্রতিবেদনে বলা হয়, দিনে এ কবরস্থানটিতে গড়ে করোনায় মৃত ৮ থেকে ১০ টি লাশ দাফন করা হচ্ছে।

গত বছরের ২৭ এপ্রিল থেকে রায়েরবাজার কবরস্থানে করোনায় মৃতদের দাফন শুরু হয়। সেই থেকে এ পর্যন্ত প্রায় এক বছরে দাফন করা হয়েছে ১ হাজার ১১৭ জনকে।

গোরখোদকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, গত শীতেও করোনায় মৃতদেহ কম আসছিলো। করোনায় মৃতদেহ বাড়ায় কাজের চাপও বেড়েছে।

দীর্ঘদিন গোরখোদকের কাজ করা সিরাজ বলেন জানান, এতো লাশ আসছে কথা বলার সময় নাই। কোদাল দিয়ে কবর খুঁড়ে কুল পাচ্ছিলাম না। ভেকু (এক্সকাভেটর) দিয়ে খোঁড়ায় আমাদের কষ্ট কমেছে।

নিউজ ট্যাগ: কবরস্থান

আরও খবর



কবরীর জানাজা বাদ জোহর, দাফন বনানীতে

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৭ এপ্রিল ২০২১ | ১১১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা যাওয়া কিংবদন্তী অভিনেত্রী, চলচ্চিত্র নির্মাতা, সাবেক সাংসদ সারাহ বেগম কবরীকে রাজধানীর বনানী কবরস্থানে সমাহিত করা হবে।

কবরীর ছেলে শাকের চিশতী এই তথ্য নিশ্চিত করে জানান, সকালে কবরীকে তাদের গুলশান ২-এর বাসায় নেয়া হবে। এরপর বাদ জোহর জানাজা ও গার্ড অব অনার শেষে বনানী কবরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন করা হবে।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে শুক্রবার দিবাগত রাত ১২টার পর ঢাকার শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান এই নায়িকা।

গত ৫ এপ্রিল কবরীর নমুনা পরীক্ষায় করোনাভাইরাসের রিপোর্ট পজিটিভ আসে। এরপর ওইদিন রাতেই তাকে কুর্মিটোলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতাল থেকে তাকে শেখ রাসেল গ্যাস্ট্রোলিভার ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের আইসিইউতে নেওয়া হয়। অবস্থা আরও খারাপ হলে ১৫ এপ্রিল কবরীকে নেওয়া হয় লাইফ সাপোর্টে। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল মারা যান কিংবদন্তি এই অভিনেত্রী।

৭১ বছর বয়সী এ অভিনেত্রী দীর্ঘদিন ধরে কিডনির জটিলতায় ভুগছিলেন। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার পর তার ফুসফুসেরও মারাত্মক ক্ষতি হয়।

গত শতকের ষাটের দশকে সেলুলয়েডের পর্দায় আবির্ভূত হয়ে ঢাকাই চলচ্চিত্রের মিষ্টি মেয়ে হিসেবে দর্শক হৃদয়ে স্থায়ী আসন করে নেওয়া কবরী পরের অর্ধশতকে দুই শতাধিক সিনেমায় আলো ছড়িয়েছেন। শীর্ষ পাঁচ ঢাকাই নায়কের অভিষেক ঘটেছে তার হাত ধরেই।


আরও খবর



ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আরও ৭ হেফাজতকর্মী গ্রেফতার

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21 | ১১৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতে ইসলামের বিক্ষোভ চলাকালে হামলা, ভাংচুর এবং অগ্নিসংযোগের ঘটনায় নতুন করে আরও সাত হেফাজতকর্মী ও সমর্থককে গ্রেফতার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত বিভিন্ন এলাকা থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়। এসব ঘটনায় হওয়া মামলায় এখন পর্যন্ত ৩১৭ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।  তবে বিজ্ঞপ্তিতে গ্রেফতারকৃতদের কারও নাম জানায়নি পুলিশ।

পুলিশের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ঘটনার ভিডিও ফুটেজ ও স্থিরচিত্র দেখে অভিযুক্তদের শনাক্ত করা হচ্ছে। গত ২৪ ঘণ্টায় গ্রেফতার হওয়া সাতজনকেও একইভাবে শনাক্ত করা হয়েছে।  তারা সবাই হেফাজতে ইসলামের কর্মী-সমর্থক।  মঙ্গলবার দুপুরে তাদের আদালতে নেওয়া হবে।

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত ২৬, ২৭ ও ২৮ মার্চে হেফাজতের তাণ্ডবে সর্বশেষ প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানায় ৪৯টি, আশুগঞ্জ থানায় তিনটি ও সরাইল থানায় দুটিসহ মোট ৫৪টি মামলা রুজু হয়েছে।

এসব মামলায় ৪১৪ জন এজাহারনামীয় আসামিসহ অজ্ঞাতনামা ৩০-৩৫ হাজার লোকের নামে মামলা হয়েছে।

সহিংসতার ঘটনায় পুলিশ স্থিরচিত্র ও ভিডিও ফুটেজ পর্যালোচনা করে অভিযুক্ত ব্যক্তিদের শনাক্ত করছে।


আরও খবর