আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১
শিরোনাম

এশিয়ার ১০০ বিজ্ঞানীর তালিকায় স্থান পেলেন তিন বাংলাদেশি

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৯ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৯ এপ্রিল ২০২১ | ৯৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গবেষণা কাজে অবদান রাখায় এশিয়া মহাদেশের ১০০ জন বিজ্ঞানীদের তালিকায় বাংলাদেশি তিন জন স্থান পেয়েছেন। বিজ্ঞানের নানা ক্ষেত্রে যারা গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন তাদের মধ্য থেকে প্রতি বছর ১০০ জনকে বাছাই করে তালিকা প্রকাশিত করে এশিয়ান সায়েন্টিস্ট। প্রতি বছরের মতো এ বছর প্রতিষ্ঠানটি যে তালিকা প্রকাশ করেছে সেখানে বাংলাদেশের তিন নারী বিজ্ঞানী স্থান পেয়েছেন।

গত সোমবার ষষ্ঠবারের মতো ইংরেজি ভাষার ম্যাগাজিন ‘দ্য এশিয়ান সায়েন্টিস্ট ১০০’শিরোনামে এ তালিকা প্রকাশ করেছে সিঙ্গাপুরভিত্তিক সাময়িকী ‘এশিয়ান সায়েন্টিস্ট’। বাংলাদেশের তিন নারী হলেন- ড. সালমা সুলতানা, ড. ফেরদৌসী কাদরী এবং অধ্যাপক সামিয়া সাবরিনা।

কোনো গবেষক যদি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বা শিল্প সংস্থায় যুক্ত থাকা অবস্থায় উল্লেখযোগ্য কোনো বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার করেন তাহলে তাকেও এই তালিকায় স্থান দিয়ে সম্মান জানানো হয়।

ম্যাগাজিনের ওয়েবসাইট অনুসারে, সালমা সুলতানা হচ্ছেন মডেল লাইভস্টক অ্যাডভান্সমেন্ট ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা। ২০২০ সালে তিনি মাঠ পর্যায়ের গবেষণা ও পদ্ধতিগত প্রয়োগ আবিষ্কারের স্বীকৃতি স্বরূপ ওয়ার্ল্ড ফুড প্রাইজ ফাউন্ডেশনের নরম্যান ই বোরলাগ পুরস্কার লাভ করেন। সালমা বাংলাদেশের ক্ষুদ্র খামারিদের সঙ্গে গবাদিপশু পালন, পশু চিকিৎসা পৌঁছে দেওয়া এবং খামারিদের প্রশিক্ষণ ও শিক্ষার চেষ্টা চালান। তাকে দেওয়া পুরস্কারটি ছিল এসব কাজেরই স্বীকৃতি।

অন্যদিকে, ফেরদৌসী কাদরী হলেন আন্তর্জাতিক উদরাময় রোগ গবেষণা কেন্দ্রে (আইসিডিডিআর,বি) কর্মরত একজন এমিরেটস বিজ্ঞানী। রোগ সংক্রমণের প্রথম দিকেই পরীক্ষার পদ্ধতি, বৈশ্বিক টিকাদানসহ উন্নয়নশীল দেশে শিশুদের মধ্যে সংক্রামক ব্যাধি বিস্তার নিয়ে করা তার গবেষণার জন্য ২০২০ সালে তিনি ল'রিয়েল-ইউনেস্কো ফর উইমেন ইন সায়েন্স পুরস্কার লাভ করেন।

সামিয়া সাবরিনা বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক। উন্নয়নশীল দেশের জন্য তড়িৎ বিজ্ঞানে ন্যানোমেটারিয়াল নামে পরিচিত সূক্ষ্ম বস্তুকণার প্রয়োগ ও উপযোগ নিয়ে করা গবেষণার স্বীকৃতি স্বরূপ ২০২০ সালে তিনি ওডব্লিউএসডি- এলসিভার ফাউন্ডেশন অ্যাওয়ার্ড ফর আর্লি ক্যারিয়ার উইমেন সায়েন্টিস্ট পুরস্কার পান।


আরও খবর



করোনায় আরও ৫০ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ মে ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ মে ২০২১ | ৭৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১১ হাজার ৭৫৫ জনে দাঁড়িয়েছে। এ ছাড়া দেশে নতুন করে আরও এক হাজার ৭৪২ জন আক্রান্ত হয়েছে। দেশে মোট সাত লাখ ৬৭ হাজার ৩৩৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছে তিন হাজার ৪৩৩ জন। এ নিয়ে দেশে মোট ছয় লাখ ৯৮ হাজার ৪৬৫ জন করোনা থেকে সুস্থ হলেন।

আজ বুধবার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ৪২৭টি ল্যাবে ২০ হাজার ২৮৪ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এ ছাড়া নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ২০ হাজার ২১৭ টি। করোনা শনাক্তের হার ৮ দশমিক ৫৯ শতাংশ। মৃত্যুর হার এক দশমিক ৫৩ শতাংশ। সুস্থতার হার ৯১ দশমিক ০২ শতাংশ।

২৪ ঘণ্টায় নতুন ৫০ জন মৃত্যুবরণকারীর মধ্যে পুরুষ ৩২ জন ও নারী ১৮ জন। এ পর্যন্ত পুরুষ মৃত্যুবরণ করেছেন আট হাজার ৫৪৪ জন ও নারী তিন হাজার ২১১ জন।

এ ছাড়া মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে দুইজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে পাঁচজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১৩ জন ও ষাটোর্ধ্ব ৩০ জন রয়েছেন।

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ২৮ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ১৬ জন, রাজশাহী বিভাগে একজন, খুলনা বিভাগে তিনজন,  সিলেট বিভাগে দুইজন । সরকারি হাসপাতালে ৩৫ জন ও বেসরকারি হাসপাতালে ১২ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। এ ছাড়া বাসায় মৃত্যুবরণ করেছেন তিনজন।

দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। ওই বছরের ১৮ জুন তিন হাজার ৮০৩ জন নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার মধ্যে দিয়ে লাখ ছাড়িয়েছিল করোনার রোগী। সেদিন পর্যন্ত মোট শনাক্ত ছিল এক লাখ দুই হাজার ২৯২ জন। এ ছাড়া দেশে করোনাভাইরাসে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে গত বছরের ১৮ মার্চ।


আরও খবর



পাকিস্তানে যাওয়া নিয়ে যা বলছেন মামুনুল হকের ভগ্নিপতি

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ এপ্রিল ২০২১ | ১০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
আমি ১৯৮৩ সালে দাওরা হাদিস শেষ করার পর উচ্চ শিক্ষা অর্জনের জন্য পাকিস্তান গমন করি। দারুল উলূম করাচী মাদ্রাসায় ৩ বছর মেয়াদী ইফতা কোর্স সম্পন্ন করার পর করাচীতে আমার পীরের আদেশে তার প্রতিষ্ঠিত

মামুনুল হকের সঙ্গে পাকিস্তান যাওয়ার বিষয়টি অস্বীকার করেছেন তার ভগ্নিপতি মুফতি মুহাম্মাদ নেয়ামতুল্লাহ। সোমবার গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ দাবি করেন তিনি। এতে মামুনুল হকের সঙ্গে পারিবারিক আত্মীয়তা ছাড়া আর কোনো ধরনের সর্ম্পক নেই বলে দাবি করে মুফতি নেয়ামতুল্লাহ।

তিনি বলেন, আমি ১৯৮৩ সালে দাওরা হাদিস শেষ করার পর উচ্চ শিক্ষা অর্জনের জন্য পাকিস্তান গমন করি। দারুল উলূম করাচী মাদ্রাসায় ৩ বছর মেয়াদী ইফতা কোর্স সম্পন্ন করার পর করাচীতে আমার পীরের আদেশে তার প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসায় শিক্ষক ও অধ্যক্ষ হিসাবে কর্মজীবন শুরু করি। পরবর্তীতে পীরের মৃত্যুর পর আমার মায়ের নির্দেশে আমি সে মাদ্রাসার দায়িত্ব ছেড়ে দিয়ে সপরিবারে বাংলাদেশে চলে আসি।

মুফতি নেয়ামতুল্লাহ বলেন, কর্মজীবনের শুরু থেকেই আমি কখনও কোনো ধরনের রাজনৈতিক কিংবা সাংগঠনিক কাজের সঙ্গে যুক্ত ছিলাম না। একজন শিক্ষাবিদ হিসাবে আমার একমাত্র কর্মব্যস্ততা হচ্ছে শিক্ষার্থীদের পাঠদান এবং উত্তম চরিত্র গঠনের মাধ্যমে তাদেরকে সুনাগরিক হিসাবে গড়ে তোলা। এর বাইরে কোনো ধরনের কোনো কার্যক্রমের সঙ্গে আমি কখনোই যুক্ত ছিলাম না। শাইখুল হাদিস আল্লামা আজীজুল হক (রহ.) আমার শ্বশুর হওয়া সত্বেও আমি তার রাজনৈতিক নীতির সঙ্গে কখনো যুক্ত ছিলাম না, এখনও যুক্ত নই।

২০০৪ সালের ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার ঘটনায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হরকাতুল জিহাদের (হুজি) নেতা মাওলানা তাজউদ্দিনের সঙ্গে কোনোধরণের সর্ম্পক নেই বলেও দাবি করেন মামুনুল হকের এ ভগ্নিপতি।

তিনি বলেন, ২১ আগস্ট ন্যাক্কারজনক গ্রেনেড হামলায় জনৈক তাজ নামক ব্যক্তির সঙ্গে যে সম্পর্কের কথা উল্লেখ করা হয়েছে তাকে আমি ব্যক্তিগতভাবে চিনি না, তার সঙ্গে কোনো সম্পর্কও আমার নেই।

মামুনুল হকের পাকিস্তান গমন নিয়ে মুফতি নেয়ামতুল্লাহ বলেন, ২০০৫ সালে মাওলানা মামুনুল হক যখন পাকিস্তানে যান, সে সময় আমি বাংলাদেশে আমার সদ্য প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসা পরিচালনা নিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছিলাম। তার সঙ্গে পাকিস্তানে একত্রে থাকার কোনো সুযোগই আমার হয়নি। মাওলানা মামুনুল হকের সঙ্গে আমার পারিবারিক আত্মীয়তা ছাড়া আর কোনো ধরনের সর্ম্পক নেই। ২০০৪ সালেও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা আমাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন, কিন্তু কোনো কিছুর সম্পৃক্ততা না থাকায় তারা আমাকে মুক্ত করে দেন।


আরও খবর



মুভমেন্ট পাসের জন্য মিনিটে ৪৩ হাজারের বেশি হিট

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৭ এপ্রিল ২০২১ | ১০৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
বিপুল সংখ্যক লোক মুভমেন্ট পাসের জন্য ওয়েবসাইটে হিট করছেন। এতে অনেক সময় কিছুটা প্রযুক্তিগত সমস্যা দেখা দিচ্ছে। তবে কিছুটা অপেক্ষার পরে সব সমস্যাগুলোর সমাধান হয়ে যাচ্ছে। যে কেউ

মুভমেন্ট পাসের জন্য প্রতি মিনিটে ৪৩ হাজার ৬০৭টি হিট হচ্ছে ওয়েবসাইটে। মিনিটে বিপুল সংখ্যক মানুষ ওয়েবসাইট পরিদর্শন করছেন। পুলিশ সদর দফতরের মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশনস বিভাগের এআইজি সোহেল রানা এসব তথ্য নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, গত পাঁচ দিনে ওয়েবসাইটে হিট হয়েছে ১৭ কোটি ২৫ লাখ ৯৭ হাজার ৯০৩টি। বিপুল সংখ্যক মানুষ ওয়েবসাইটটি পরিদর্শন করলেও এখন পর্যন্ত মুভমেন্ট পাস নেওয়ার জন্য রেজিস্ট্রেশন করেছেন ৬ লাখ ২১ হাজার ৩৫৯ জন। যার মধ্যে মুভমেন্ট পাস ইস্যু করা হয়েছে এখন পর্যন্ত (১৭ এপ্রিল সকাল ১০টা) ৪ লাখ ৭৬ হাজার ৩৯৪টি।

এআইজি সোহেল রানা বলেন, বিপুল সংখ্যক লোক মুভমেন্ট পাসের জন্য ওয়েবসাইটে হিট করছেন। এতে অনেক সময় কিছুটা প্রযুক্তিগত সমস্যা দেখা দিচ্ছে। তবে কিছুটা অপেক্ষার পরে সব সমস্যাগুলোর সমাধান হয়ে যাচ্ছে। যে কেউ প্রয়োজনীয় কারণে বাইরে বের হতে মুভমেন্ট পাসের জন্য আবেদন করতে পারছেন। বাইরে বের হওয়ার জন্য যুক্তিযুক্ত কারণ উল্লেখ করতে পারলেই মুভমেন্ট পাস দেওয়া হচ্ছে।

তিনি বলেন, বর্তমান সময়ে করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় অযথা কিংবা বিনা প্রয়োজনে বাইরে না দেশে পরিবারের সঙ্গে বাসায় অবস্থান করার কথা বলেন। প্রয়োজনীয় কারণে যদি বের হতে হয় তাহলে অবশ্যই যেন স্বাস্থ্যবিধি মেনে এবং মাস্ক পরে বাইরে বের হন জনসাধারণ। এছাড়া শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে চলার কথা বলেন তিনি।


আরও খবর



সৌদিতে বাংলাদেশসহ বিশ্বের ৩৮টি দেশের ওপর ভ্রমণ নির্দেশিকা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ মে ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ মে ২০২১ | ৭৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সম্প্রতি আন্তর্জাতিক ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়ার ঘোষণা দিয়েছে সৌদির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। তবে ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলেও কিছু দেশের ক্ষেত্রে বিধি-নিষেধ নির্ধারণ করে দেয়া হচ্ছে। সোমবার রাত ১টা থেকে আগামী ১৭ মে পর্যন্ত আন্তর্জাতিক ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা স্থগিত করা হয়েছে।

সৌদির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাদের ওয়েবসাইটে নতুন নির্দেশিকা প্রকাশ করেছে। সৌদিতে ভ্রমণের আগে অবশ্যই দেশটির অনুমোদন গ্রহণ করতে হবে। বাংলাদেশসহ বিশ্বের ৩৮টি দেশের ওপর ভ্রমণ নির্দেশিকা এবং দেশটিতে ভ্রমণের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় শর্তাবলী সংক্রান্ত এক নির্দেশনা জারি করেছে সৌদি আরব।

ভ্রমণকারীদের অবশ্যই ডিসিআর মেডিকেল পরীক্ষার সার্টিফিকেট দেখাতে হবে। যেসব দেশের ওপর নতুন ভ্রমণ নির্দেশিকা জারি হয়েছে সেগুলো হলো-যুক্তরাষ্ট্র, আরব আমিরাত, মিসর, কুয়েত, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, পাকিস্তান, ফিলিপাইন, মালয়েশিয়া, মরক্কো, স্পেন, ইরাক, ইথিওপিয়া, মালদ্বীপ, চীন, সুইজারল্যান্ড, ফ্রান্স, যুক্তরাজ্য, ইতালি, অস্ট্রেলিয়া, বাংলাদেশ, গ্রিস, জর্ডান, কেনিয়া, তুরস্ক, জার্মানি, বাহরাইন, লেবানন, নেদারল্যান্ডস, কাতার, সিঙ্গাপুর, দক্ষিণ আফ্রিকা, শ্রীলঙ্কা, সুদান, নাইজেরিয়া, তিউনিসিয়া, ওমান এবং মারিতিয়াস।

তিন ধরনের নাগরিকরা সৌদিতে ভ্রমণ করতে পারবেন বলে জানিয়েছে দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এ সংক্রান্ত একটি বিবৃতি জারি করে পুরো বিষয়টি পরিষ্কার করা হয়েছে।

প্রথমত- যেসব দেশের নাগরিকরা ইতোমধ্যেই ভ্যাকসিনের দু'টি ডোজই গ্রহণ করেছেন অথবা যাদের ভ্যাকসিনের প্রথম ডোজ গ্রহণের পর ১৪ দিন পার হয়েছে তারা সৌদিতে ভ্রমণ করতে পারবেন।

দ্বিতীয়ত- ইতোমধ্যেই যারা করোনা সংক্রমণ থেকে সুস্থ হয়ে উঠেছেন বা যাদের সুস্থ হয়ে ওঠার পর এখনও ৬ মাস পার হয়নি তারা সৌদিতে ভ্রমণ করতে পারবেন।

তৃতীয়ত- যাদের বয়স ১৮ বছরের কম তারাও সৌদি সফরের অনুমতি পাবেন।

তবে সৌদি আরবে পৌঁছানোর পর প্রত্যেককেই এক সপ্তাহের জন্য সেলফ আইসোলেশনে থাকতে হবে। একই সঙ্গে কোয়ারেন্টাইনের সময় পার হওয়ার পর পিসিআর টেস্টের ফলাফলও দেখাতে হবে। তবে আট বছরের কম বয়সী শিশুদের ক্ষেত্রে পিসিআর টেস্টের প্রয়োজন নেই বলে জানানো হয়েছে।


আরও খবর



রুশ টিকার জরুরি অনুমোদনের সুপারিশ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৭ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ এপ্রিল ২০২১ | ৭৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাশিয়ার করোনাভাইরাসের টিকা স্পুটনিক ফাইভ জরুরি ব্যবহারের অনুমোদনের সুপারিশ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তর।

মঙ্গলবার (২৭ এপ্রিল) সকালে অধিদপ্তরের এক সভা শেষে এ টিকা ব্যবহারের অনুমোদনের জন্য সুপারিশ করে ওষুধ প্রশাসনের টেকনিক্যাল কমিটি।

এর আগে গত শুক্রবার (২৩ এপ্রিল) পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন জানান, রাশিয়ার ভ্যাকসিন স্পুটনিক-৫ দেশেই উৎপাদনের জন্য মস্কো-ঢাকা সম্মত হয়েছে। চলছে চীনা ভ্যাকসিন আনার আলাপ-আলোচনাও।

আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে এক লাখ ডোজ টিকা দেবে কোভ্যাক্স। একই সময়ে সেরামের ২০ লাখ ডোজ আসার কথা জানিয়েছে বেক্সিমকো। পাশাপাশি চীন থেকে ৫ লাখ ডোজ টিকা উপহার নেওয়া হবে।

গত দুই মাসে দেশে টিকার কোনো চালান আসেনি। কবে নাগাদ টিকার চালান আসতে পারে, তা কেউ বলতে পারছে না। চুক্তির পর ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউট থেকে এ পর্যন্ত দুটি চালানে ৭০ লাখ ডোজ টিকা বাংলাদেশ পেয়েছে গত জানুয়ারি এবং ফেব্রুয়ারি মাসে। এছাড়া ভারত সরকার উপহার হিসেবে দিয়েছে ৩৩ লাখ ডোজ টিকা। ক্রয় ও উপহার হিসেবে বাংলাদেশ ভারত থেকে পেয়েছে ১ কোটি ৩ লাখ ডোজ টিকা। কিন্তু এখনো পর্যন্ত দেশে প্রথম ডোজ টিকা যে সংখ্যক মানুষ নিয়েছেন, তাতে দ্বিতীয় ডোজ সম্পন্ন করতে প্রায় ১০ লাখ ডোজ টিকার ঘাটতি রয়েছে। এতে প্রথম ডোজ নিতে পারলেও ১০ লাখ মানুষ দ্বিতীয় ডোজ নিয়ে শঙ্কায় রয়েছেন।

অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ৩ কোটি ডোজ টিকা আনতে ভারতের সেরাম ইনস্টিটিউটের সঙ্গে গত বছরের ৫ নভেম্বর যে চুক্তি হয়েছিল তাতে বলা হয়, প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশে ৩ কোটি ডোজ টিকা রপ্তানি করবে এবং সে অনুযায়ী প্রতি মাসে ৫০ লাখ ডোজ পাওয়ার কথা ছিল। কিন্তু বাংলাদেশ সেই প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী টিকা পাচ্ছে না। অথচ টিকা দেবে বলে অগ্রিম দেড় কোটি ডোজ টিকার মূল্য বাবদ ৫১০ কোটি টাকা আগেই নিয়েছে সেরাম ইনস্টিটিউট।


আরও খবর