আজঃ বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১
শিরোনাম

ঘোষিত বাজেটে প্রবৃদ্ধি অর্জনযোগ্য: জিপেক ওয়েবিনারে বক্তারা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১০ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১০ জুন ২০২১ | ১১৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
বাংলাদেশে করোনার মধ্যে অর্থনীতি সবল রাখতে বাজেট ঘাটতি ধরা হয়েছে জিডিপির ৬.২%। তবে এ ঘাটতি পূরণ করা সম্ভব। বাংলাদেশকে বৈদেশিক ঋণ দিতে অনেক দেশই আগ্রহী

এবারের বাজেটে কর হ্রাসের মাধ্যমে বিনিয়োগ উৎসাহিতকরণ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির পদক্ষপে গ্রহণ করা হয়েছে। যা বাস্তবায়ন হলে অর্থনীতিতে আয় বাড়বে। ফলে ভোগ ও চাহিদা বাড়বে, অর্থনীতি সবল হবে এবং কাঙ্ক্ষিত প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে। তাই এ বাজেট প্রবৃদ্ধি অর্জনযোগ্য বাজেট। বৃহস্পতিবার (১০ জুন) বেসরকারি গবেষণা প্রতিষ্ঠান গভর্নেন্স পলিসি এক্সপ্লোর সেন্টার (জিপেক) আয়োজিত সদ্য ঘোষিত বাজেট নিয়ে ভার্চুয়াল পর্যালোচনা সভায় আলোচকরা এ অভিমত ব্যাক্ত করেন।

বক্তারা আরও বলেন, কিছু বিষয় বাদ দিলে এ বাজেট অর্থনীতির জন্য সুফল বয়ে আনবে। তবে করোনার অভিঘাতে গ্রামীণ ও শহুরে নতুন দরিদ্রদের সামাজিক নিরাপত্তা কর্মসূচির আওতাভুক্ত করতে হবে। বাংলাদেশে সঠিকভাবে দরিদ্রের তথ্যভান্ডার বা ডাটাবেজ গড়ে তোলা জরুরী। বাজেটের অর্ন্তবর্তী মূল্যায়ণ ও সঠিক সময়ে এবং সঠিক গুণে ও মানে প্রকল্প সমাপ্তকারীকে পুরস্কার এবং ব্যর্থ হলে শাস্তির ব্যবস্থা করার সুপারিশ করা হয়েছে।

জিপেক বাজেট পর্যালোচনা ২০২১-২২ শীর্ষক ওয়েবিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন জিপেক এর সিনিয়র রিসার্চ ফেলো (অনারারি) ও বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. মোরশেদ হোসেন। সভায় স্বাগত বক্তব্য দেন আয়োজক প্রতিষ্ঠান জিপেক এর নির্বাহী পরিচালক ড. মিজানুর রহমান। ওয়েবিনারটি সঞ্চালনা করেন বেসিক ব্যাংকের পরিচালক ও জিপেক চেয়ারপার্সন রাজীব পারভেজ।

দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের সাবেক অতিরিক্ত সচিব ও জিপেক এর উপদেষ্টা মো. আবদুল কাইয়ুম এর সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন দৈনিক ভোরের কাগজের সম্পাদক শ্যামল দত্ত, এফবিসিসিআই এর সহ-সভাপতি আমিন হেলালি, বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের ডেপুটি এটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার আবদুল্লাহ মাহমুদ বাশার, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতি বিভাগের অধ্যাপক ড. আবদুর রশিদ সরকার, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের দপ্তর সম্পাদক্ অধ্যাপক ডা. মোহা. শেখ শহীদউল্লাহ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের অধ্যাপক ড. জেবউননেছা, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্যুরিজম এন্ড হসপিটালিটি ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. সন্তোষ কুমার দেব, ফৌজিয়া হক এফসিএ, টেকওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ এর সম্পাদক নাজনীন নাহার, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের লোক প্রশাসন বিভাগের সহকারি অধ্যাপক হালিমা হক প্রমুখ।

ওয়েবিনারে উপস্থাপিত প্রবন্ধে বলা হয়, বাংলাদেশে করোনার মধ্যে অর্থনীতি সবল রাখতে বাজেট ঘাটতি ধরা হয়েছে জিডিপির ৬.২%। তবে এ ঘাটতি পূরণ করা সম্ভব। বাংলাদেশকে বৈদেশিক ঋণ দিতে অনেক দেশই আগ্রহী হওয়ায় বাংলাদেশ সহজে বৈদেশিক ঋণ গ্রহন করতে পারবে। আবার বাংলাদেশে অভ্যন্তরীণ উৎস হতে অর্থ প্রাপ্তি সম্ভব। কোভিড-১৯ অতিমারির পরেও স্বাস্থ্যখাতে বরাদ্দ প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সুপারিশ অনুযায়ী স্বাস্থ্যখাতে জিডিপির ৫ শতাংশ ও মোট বাজেটের ১৫ শতাংশ ব্যয় বরাদ্দ করতে হবে। ভূমিহীন ও প্রান্তিক কৃষকদের জন্য শস্য বীমা বা কৃষি বীমা, গবাদি পশু বীমা চালু করতে হবে। সার্বজনীন পেনশন স্কীম (কৃষকদের অন্তর্ভুক্ত করে) চালু করা যেতে পারে। বিনিয়োগবৃদ্ধির মাধ্যমে কর্মসংস্থান সৃষ্টির লক্ষ্যে সারা দেশে চলমান ১০০টি বিশেষ অর্থনৈতিক অঞ্চলের উন্নয়ন কার্যক্রম দ্রুত শেষ করতে হবে। শিল্প প্রতিষ্ঠানের মূলধনী যন্ত্রাংশের উপর আরোপিত ১ শতাংশের অতিরিক্ত সব ধরনের শুল্ক-কর প্রত্যাহার করতে হবে। ই- কমার্স খাতের বিকাশের জন্য কর আরোপের পরিবর্তে প্রণোদনা, প্রযুক্তিগত সহায়তা, কর মওকুফ ও ইন্টারনেট খরচ কমানোর সুপারিশ করা হয়ছে। স্টার্টআপদের জন্য ট্যাক্স হলিডে বাড়াতে হবে। একটি টেকসই স্টার্টআপ ইকোসিস্টেম গড়ে তুলতে স্টার্টআপ বাংলাদেশ লিমিটেডের মূলধন বৃদ্ধি করা ও সম্ভাবনাময় স্টার্টআপগুলোতে সরকারের বিনিয়োগ বৃদ্ধি করা এবং রেজিস্টার্ড আউটসোর্সারদের জন্য ঋণসুবিধার ব্যবস্থা করা। উন্নয়নে পিছিয়ে থাকা অঞ্চলগুলোর উন্নয়নের জন্য নিয়মিত এডিপির অতিরিক্ত একটি নির্দিষ্ট শতাংশিক হারে গ্রহণযোগ্য এডিপির বরাদ্দ দেয়া প্রয়োজন। বাজেটে অন্যান্য দেশের মতো ইনোভেশন, রিসার্চ এন্ড ডেভেলপমেন্ট খাত তৈরি করে বাজেট বরাদ্দ দেয়ার সুপারশি করা হয়েছে।

মোবাইল আর্থিক সেবার উপর কর্পোরেট কর বাড়ানোয় দরিদ্র লোকদের আর্থিক অর্ন্তভুক্তি অনিশ্চিত হবে। দীর্ঘমেয়াদে এ খাতে বিনিয়োগ সংকুচিত হতে পারে। তাই এ খাতে বর্ধিত কর প্রত্যাহার করে ৩০ শতাংশে নামিয়ে আনা প্রয়োজন। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ও অন্যান্য বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের উদ্ভুত আয়ের উপর ১৫ শতাংশ কর বসালে তা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের উপর পড়বে। এ কর প্রত্যাহারের সুপারিশ করা হয়েছে। বর্তমানে করোনার সময়ে ব্যবসায়, উৎপাদনে মন্দা, কর্মহীন হয়ে যাওয়া ও জনগণের আয় কমে যাওয়ায় এই আয়সীমা ৪ লক্ষ টাকা করার প্রস্তাব করা হয়ছে।

উপস্থাপিত প্রবন্ধে তৃতীয় লিঙ্গের করদাতাদের করমুক্ত আয়সীমা বাড়ানো, ব্যক্তিশ্রেণির ব্যবসায়িক টার্নওভার ট্যাক্স হ্রাস, বিত্তবানদের সম্পদের উপর সারচার্জ বৃদ্ধি, করনেট সম্প্রসারণে টিআইএন- এর বাধ্যবাধকতা, তরুণ উদ্যোক্তা সৃষ্টির লক্ষে আইটি খাতে ১০ বছরের কর অব্যাহতির সুপারশি করা হয়। নারী উদ্যোক্তাদের ৭০ লক্ষ টাকা টার্নওভার সুবিধা, কৃষিভিত্তিক শিল্প স্থাপনে ১০ বছরের করমুক্ত সুবিধা, স্বাস্থ্যখাতে বেসরকারি বিনিয়োগ, বিদেশী পণ্যের নির্ভরশীলতা কমাতে দেশীয় শিল্পের ভ্যাট ও আগাম অব্যাহতি, কৃষি উপকরণে ও নারী স্বাস্থ্য সংরক্ষণে ভ্যাট অব্যহতি ও দেশীয় চাষীদের প্রতিরক্ষণের কথা বলা হয়েছে যা প্রশংসার দাবিদার।

ওয়েবিনারে আলোচকরা বলেন, একটি বাজেটের দর্শন হলো মূল নিয়ামক। তাই দর্শনকে ভিত্তি বাজেট প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন হওয়া উচিত। বাজেটে অধিক অর্থ বরাদ্দের আবেদনের চেয়ে এর সঠিক ব্যবহারের জোর তদারকি দরকার এখন বেশি। স্বাস্থ্য খাত এর জ্বলন্ত উদাহরণ। তাই আলোচকরা মনে করেন বাজেট বাস্তবায়নে মন্ত্রণালয়গুলোর দক্ষতা বৃদ্ধি বিশেষ প্রয়োজন। বক্তারা অভিমত ব্যক্ত করেন, বর্তমান বাজেটে জনপ্রশাসন খাতে বরাদ্দ অনেক বেশি, যা কমানো যেতে পারে, কৃষিক্ষেত্রে সুদের হার আরো কমানো, সামজিক নিরাপত্তা খাতে বরাদ্দ বাড়ানো, ব্যক্তি করসীমা বাড়ানো, তথ্য প্রযুক্তি খাতে ট্রেনিংকে উৎসাহিত করা, গার্মেন্টস এর মতো অন্য শিল্পকেও গুরুত্বারোপ, ব্যবসা বহুমুখীকরণ, বিচার বিভাগের জন্য পর্যাপ্ত অর্থ বরাদ্দ, বন্ধ হয়ে যাওয়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্য বিশেষ বরাদ্দ, তৃতীয় লিঙ্গের জন্য পর্যাপ্ত বরাদ্দ বিবেচনায় নেয়ার আহবান জানান।

কালো টাকা সাদা করার প্রসঙ্গে বলা হয়, ঢালাও সুযোগ না দিয়ে হাইটেক পার্ক ও অর্থনৈতিক অঞ্চলে বিনিয়োগের সুযোগ, জরিমানা আদায় ও টাকার উৎস জানানো সাপেক্ষে নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত বর্ধিত করা যেতে পারে। তবে তা দীর্ঘমেয়াদে কার্যকরী না থাকাই ভালো। এতে সৎ করদাতারা নিরুৎসাহিত হয়।

নিউজ ট্যাগ: জিপেক

আরও খবর



পরীমণিকাণ্ডে সেই নাসির গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:সোমবার ১৪ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৪ জুন ২০২১ | ১১৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নায়িকা পরীমণিকে ধর্ষণ চেষ্টার ঘটনায় দায়ের করা মামলার প্রধান আসামি ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) ও ঢাকা জেলা পুলিশের যৌথ অভিযানে তিনি গ্রেপ্তার হন।

সোমবার (১৪ জুন) দুপুর ২ টায় তাকে রাজধানীর উত্তরার নিজ বাসা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় বলে জানা গেছে। মামলার পরই আলোচিত ব্যবসায়ী নাসিরকে গ্রেপ্তারে মাঠে নেমে পড়েছিলো আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সদস্যরা।

অভিযান পরিচালনাকারী বিশ্বস্ত সূত্র বলছে, পরীমণির অভিযোগের ভিত্তিতে আবাসন ব্যবসায়ী নাসির ইউ মাহমুদকে উত্তরার সেক্টর-১ এর ১২ নম্বর রোডস্থ নিজস্ব বাসা (১৩ নং) থেকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

এ অভিযানে নেতৃত্ব দেন ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের উপ-কমিশনার (ডিসি) মশিউর রহমান। অন্যদিকে ঢাকা জেলা পুলিশের নেতৃত্ব দেন সাভার সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ ‍সুপার আব্দুল্লাহিল কাফী।

তবে ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) মারুফ হোসেন সরদার বলেন, এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার প্রক্রিয়া অব্যাহত আছে।

তবে এসপির কথায় নাসিরকে গ্রেপ্তার করার ইঙ্গিত পাওয়া গেছে। নাসিরকে গ্রেপ্তারের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে এসপি বলেন, কাজ চলতেছে, আমার উপর আস্থা রাখেন। একটু সময় দেন। বিকেলের দিকে খোঁজ নিয়েন।

নিউজ ট্যাগ: পরীমণি

আরও খবর



গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে মৃত্যু আরো ৩৬৬০

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৮ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৮ মে ২০২১ | ১০৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মহামারি করোনা ভাইরাসে বর্তমানে সবচেয়ে বেশি ধুঁকতে থাকা দেশ ভারতে কিছুটা স্বস্তি দিচ্ছে প্রতিদিনের নতুন রোগী শনাক্তের হার। তবে সংখ্যার নিরিখে সেটা এখনো রয়ে গেছে দুই লাখের কাছাকাছি।

মৃত্যুর সংখ্যা গত ২৪ ঘণ্টায় ৩৬৬০ জন। যা চার হাজারের নিচেই রয়েছে। শুক্রবার (২৮ মে) এ তথ্য জানায় ভারতীয় সংবাদ মাধ্যম টাইমস অব ইন্ডিয়া।

সংবাদ মাধ্যমটির তথ্য অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে শনাক্ত হয়েছে ১ লাখ ৮৬ হাজার। যা গত ৪৪ দিনের মধ্যে সর্বনিম্ন।  মৃত্যু আরো ৩ হাজার ৬শ ৬০ জনের। সাপ্তাহিক ও প্রাত্যাহিক শনাক্তের হার গত চার দিন ধরে কমছে। একদিনে সুস্থ হয়েছে আড়াই লাখের বেশি মানুষ। গত ২৪ ঘণ্টায় পরীক্ষা করা হয়েছে ২০ লাখ ৭০ হাজার।

এ নিয়ে দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগী দাঁড়ালো ২ কোটি ৭৫ লাখ ৫৫ হাজার ৪৫৭ জনে। একই সময়ে মোট মৃত্যু ৩ লাখ ১৮ হাজার ৮৯৫ জনের।

নিউজ ট্যাগ: করোনাভাইরাস

আরও খবর
করোনার ডেল্টা প্লাসে প্রথম মৃত্যু

বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১




বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ

প্রকাশিত:সোমবার ২১ জুন 20২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২১ জুন 20২১ | ৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ ব্যাংকের ১ বিলিয়ন ডলার ২০১৬ সালে চুরির পরিকল্পনা করে উত্তর কোরিয়ার হ্যাকাররা। যদিও তারা মাত্র ৮১ মিলিয়ন ডলার সরাতে সক্ষম হয়। কিন্তু বিশ্বের অন্যতম দরিদ্র এবং বিচ্ছিন্ন দেশটি কীভাবে এলিট সাইবার ক্রিমিনাল টিম তৈরি করল সেটিই গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

কীভাবে হয়েছিল এ ঘটনা, এ নিয়ে তদন্তে নানা বিষয় উঠে আসে। হ্যাকারদের পরিচয় এবং কোথা থেকে তারা এসেছিলো, সেই বিস্তারিত বিবিসির এক প্রতিবেদনে বিস্তারিতভাবে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনাটি তুলে ধরা হয়েছে। ১০ পর্বের নতুন প্রতিবেদন রয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির কাহিনি।

প্রতিবেদনে জানা যায়, কীভাবে বিপুল অর্থ সরানোর জন্য একদল হ্যাকার ভয়াবহ পরিকল্পনা করে। চুরির যে আলামত এখন পর্যন্ত পাওয়া গেছে তাতে উত্তর কোরিয়া এ ঘটনায় জড়িত বলে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।

বিবিসি অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে জানা যায়, হ্যাকাররা এ ঘটনার জন্য যে মূল যন্ত্র ব্যবহার করে তা হলো বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি ত্রুটিযুক্ত প্রিন্টার। মতিঝিলে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের দশম তলায় অত্যন্ত সুরক্ষিত ঘরের অভ্যন্তরে বসানো ছিলো প্রিন্টারটি। কোটি কোটি ডলারের ট্রান্সফার ব্যাংকের বাইরে ও ভেতরে প্রবাহিত হওয়ার রেকর্ড ছাপানো হতো এটি দিয়ে।

শুরুতে কর্মকর্তাদের কাছে ত্রুটিপূর্ণ এ প্রিন্টার ছিলো কেবল একটি ঝামেলা। প্রযুক্তির সমস্যা ছাড়া তেমন একটা বড় ব্যাপার বলে মনে হয়নি কারও। তবে বাংলাদেশ ব্যাংক হলো দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক। যারা কিনা এমন একটি দেশের মূল্যবান মুদ্রার মজুত তদারকির জন্য দায়বদ্ধ, যেখানে লাখ লাখ মানুষ দারিদ্র্যের মধ্যে বাস করে।

২০১৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি সকাল ৮টা ৪৫ মিনিট থেকে প্রিন্টারটি কাজ করছিলো না। কেউ আসলে বিষয়টি নিয়ে তেমন মাথাব্যথা দেখাননি। সে সময় ডিউটি ম্যানেজার ছিলেন জুবায়ের বিন হুদা। পরে তিনি পুলিশকে বলেন, আমরা ধরে নিয়েছিলাম যে এটি অন্য যেকোনো দিনের মতো একটি সাধারণ সমস্যা, এর আগে এমন হয়েছে।


আরও খবর



বিশ্বকাপ বাছাই: নেইমার-রিচার্লিসনের জাদুতে ব্রাজিলের জয়

প্রকাশিত:শনিবার ০৫ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৫ জুন ২০২১ | ১৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দীর্ঘদিন পর মাঠে ফিরে ইকুয়েডরের বিপক্ষে জয় ছিনিয়ে আনতে অনেকটাই সংগ্রাম করতে হয়েছে ব্রাজিলকে। তবে সংগ্রাম করা লাগলেও শেষ পর্যন্ত লাতিন আমেরিকান অঞ্চলের বিশ্বকাপ বাছাইয়ে নিজেদের অবস্থান ধরে রাখতে পারলো দলটি। নিজেদের ঘরের মাঠে ইকুয়েডরের বিপক্ষে ২-০ গোলে জয়ী হয়েছে তিতের দল।

জাতীয় দলের জার্সিতে সুপারস্টার নেইমার যে বরাবরই দুর্বার। আরও একবার তার প্রমাণ পাওয়া গেল। ব্রাজিলের জয়ে গোল করেছেন এ ফরোয়ার্ড খেলোয়াড়। আর অন্য একটি গোল করিয়েছেন রিচার্লিসনকে দিয়ে। আর এই গোলের পেছনে অবদান নেইমারের।

শনিবার (৫ জুন) বাংলাদেশ সময় ভোরে ইকুয়েডর ও ব্রাজিল মুখোমুখি হয় এস্তাদিও বেইরা রিওতে। ম্যাচের শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত একবারও প্রতিপক্ষ ব্রাজিলকে দমাতে পারেনি ইকুয়েডর। তবে স্বাগতিকরা বেশ কিছু সুযোগ হাতছাড়া করেছেন।

ব্রাজিল কোচ তিতে মূল একাদশে স্ট্রাইকার হিসেবে নেন গ্যাব্রিয়েল বারবোসকে। যে কারণে ম্যাচের ৪১ মিনিটে এর সুফল প্রায় পেয়ে গিয়েছিলেন। তিনি ম্যাচের প্রথমার্ধের শেষদিকে জালে বল পাঠিয়েছিলেন। কিন্তু অফসাইড হওয়ায় গোলশূন্য হয়েই বিরতিতে যায় ব্রাজিল।

দ্বিতীয়ার্ধ শুরু হওয়ারও ২০ মিনিট পর প্রথম গোল করে দলকে প্রথম লিড এনে দেন রিচার্লিসন। তবে এ গোলটি নেইমার নিজেই ডি-বক্সের বাম থেকে করতে পারতেন। কিন্তু তা না করে বল এগিয়ে নিয়ে গোল নিশ্চিত করান রিচার্লিসনকে দিয়ে। এক গোলের মাধ্যমেই জয়ের পথে হাঁটছিল ব্রাজিল। কিন্তু শেষ দিকে পেনাল্টি পায় তারা। ম্যাচের ৭৬ মিনিটে মাঠে নেমে মাত্র ১০ মিনিটের মধ্যে পেনাল্টি এনে দেন ফিরমিনো। পেনাল্টিতে নেইমারের নেয়া শটটি আটকে ফেলেন ইকুয়েডরের গোলরক্ষক অ্যালেক্সান্ডার ডমিঙ্গেজ। তবে নেইমারের শট নেয়ার আগেই গোল লাইন থেকে বেরিয়ে আসার জন্য বাঁশি বাজান রেফারি।

দ্বিতীয়বার সুযোগ পান তরুণ ফুটবলার নেইমার। তবে এবার ঠিকই বল জালে জড়িয়েছেন তিনি। এটি ব্রাজিলের জার্সিতে নেইমারের ৬৫তম গোল। নেইমারের জাদুকরি এ গোলের মাধ্যমে পয়েন্ট টেবিলে নিজেদের অবস্থান শক্ত করে ব্রাজিল।

বিশ্বকাপ বাছাইয়ের পাঁচ ম্যাচে পূর্ণ ১৫ পয়েন্ট অর্জন করে এখন শীর্ষে ব্রাজিল। এদিকে পাঁচ ম্যাচে ১১ পয়েন্ট নিয়ে তালিকার দুই নম্বরে রয়েছে আর্জেন্টিনা আর পাঁচ ম্যাচের তিনটিতে জয়ী হয়ে তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে ইকুয়েডর।


নিউজ ট্যাগ: নেইমার

আরও খবর
কলম্বিয়াকে ২-১ গোলে হারাল ব্রাজিল

বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১




টাইগারদের বিপক্ষে চূড়ান্ত দল ঘোষণা অস্ট্রেলিয়ার

প্রকাশিত:বুধবার ১৬ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৬ জুন ২০২১ | ৫৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আগস্টে বাংলাদেশ সফরে আসবে অস্ট্রেলিয়া। এই সফরে বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলার কথা রয়েছে ৫টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ। আসন্ন টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপকে সামনে রেখে টাইগারদের বিপক্ষে খেলবে সিরিজটি।

যদিও এই সিরিজের চূড়ান্ত সূচি ঘোষণা করেনি ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া ও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি)। তবে তার মাস খানেক আগেই সফরের জন্য চূড়ান্ত দল ঘোষণা করেছে অস্ট্রেলিয়া।

এই দলটা শুধু বাংলাদেশ সফরের জন্য নয়, আগামী জুলাইতে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সিরিজের জন্যও একই দল দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। এই সিরিজে রয়েছে ৩টি ওয়ানডে ও ৫টি টি-টোয়েন্টি ম্যাচ।

এই দুই সিরিজের জন্য অ্যারন ফিঞ্চকে অধিনায়ক করে ১৮ সদস্যের দল করা হয়েছে। তবে দলে নেই বেশ কয়েকজন অভিজ্ঞ খেলোয়াড়। যারা আইপিএল খেলেছিলেন তাদের বেশ কয়েকজন নাম সরিয়ে নিয়ে নিয়েছেন সফর দুটি থেকে।

অস্ট্রেলিয়ার চূড়ান্ত দল

আরন ফিঞ্চ (অধিনায়ক), অ্যাস্টন অ্যাগার, ওয়েস অ্যাগার, জেসন বেহেনড্রফ, অ্যালেক্স ক্যারি, ড্যান ক্রিস্টিয়ান, জশ হ্যাজেলউড, মইজিজ হ্যান্ডরিক্স, মিচেল মার্শ, বেন ম্যাকডেরমট, জশ পিলিফ, তানভির সাঙ্গা (রিজার্ভ), মিচেল স্টার্ক, অ্যাস্টন টার্নার, আন্ড্রু টাই, ম্যাথু ওয়েড, ন্যাথান অ্যালেস (রিজার্ভ) ও অ্যাডাম জাম্পা।

 


আরও খবর
কলম্বিয়াকে ২-১ গোলে হারাল ব্রাজিল

বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১