আজঃ বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২
শিরোনাম

গরুর ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষ, যুবক নিহত

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৮ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ এপ্রিল ২০২২ | ৭৬০জন দেখেছেন

Image

ঈশ্বরগঞ্জ (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি:

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে গরু ধান খাওয়াকে কেন্দ্র করে দুই পরিবারের সংঘর্ষে হোসাইন নামে এক যুবক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আরও ২ জন গুরুতর আহত অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ ভর্তি রয়েছে।

নিহত হোসাইন (৩৩) উপজেলা সদর ইউনিয়নের চরহোসনপুর গ্রামের সিরাজুল ইসলামের ছেলে। হোসাইন পেশায় একজন দর্জি। তার এক ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে।

গতকাল (বুধবার) ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান হোসাইন।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, গতকাল বুধবার সকালে আনুমানিক ৮টায় চরহোসেনপুর গ্রামের সিরাজুল ইসলামের গরু কাশেম মিয়ার বোরো ক্ষেতে ঢুকে পাকা ধান খেয়ে ফেলে। এতে কাসেমের স্ত্রী ফাতেমা ক্ষিপ্ত হয়ে সিরাজুল ইসলামের পরিবারকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ করে। এক পর্যায়ে দুপরিবারের মধ্যে তর্কবির্তক শুরু হলে কাশেম মিয়ার ছেলে রুহুল সিরাজুল ইসলামে ছোট ছেলে মুন্নাকে ছুরিকাঘাত করে। এ অবস্থা দেখে হোসাইন মিয়া ও তার পিতা সিরাজুল ইসলাম এগিয়ে আসলে রুহুল হোসাইনের পেটে ও সিরাজুল ইসলামের পিঠে ছুরিকাঘাত করে মারাত্মক ভাবে জখম করে।

আহত অবস্থায় প্রতিবেশীরা হোসাইন ও তার পরিবারের লোকজনকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্মরত চিকিৎসক তাদের উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায়। বুধবার রাত সাড়ে দশটার দিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হোসাইন মারা যায়। আশঙ্কাজনক অবস্থায় মুন্না ময়মনসিংহ মেডিকেলে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

নিহতের স্ত্রী বলেন, আমাদের দেখার আর কেউ রইলো না। আমার স্বামীকে যারা হত্যা করছে, আমি তাদের ফাঁসি চাই।

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল কাদের মিয়া জানান, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। পরিবারের কাছে লাশ হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে। এবিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

নিউজ ট্যাগ: সংঘর্ষ নিহত

আরও খবর



টানা ২৩ দিন করোনায় মৃত্যুশূন্য দেশ, শনাক্ত ২২

প্রকাশিত:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:শনিবার ১৪ মে ২০২২ | ৩২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনায় কেউ মারা যায়নি আর শনাক্ত হয়েছেন ২২ জন। এ নিয়ে টানা ২৩ দিন করোনায় কারো মৃত্যু হয়নি। এখন পর্যন্ত মৃত্যু ২৯ হাজার ১২৭ জন এবং শনাক্ত ১৯ লাখ ৫২ হাজার ৯৭৯ জন।

শনিবার (১৪ মে) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এই তথ্য জানানো হয়। আর গত ২৪ ঘণ্টায় শনাক্তের হার ০ দশমিক ৫৫ শতাংশ।

এদিন সুস্থ হয়েছেন ২২০ জন এবং এখন পর্যন্ত সুস্থ ১৮ লাখ ৯৯ হাজার ১৫০ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ৩ হাজার ৯৪৮টি, অ্যান্টিজেন টেস্টসহ নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৩ হাজার ৯৬৫টি। এখন পর্যন্ত এক কোটি ৪০ লাখ ৪৪ হাজার ৯৩৭টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য অধিদফতর আরও জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় প্রতি ১০০ নমুনায় ০ দশমিক ৫৫ শতাংশ এবং এখন পর্যন্ত ১৩ দশমিক ৯১ শতাংশ শনাক্ত হয়েছে। শনাক্ত বিবেচনায় প্রতি ১০০ জনে সুস্থ হয়েছে ৯৭ দশমিক ২৪ শতাংশ এবং মারা গেছেন ১ দশমিক ৪৯ শতাংশ।


আরও খবর



স্বজনদের কবর জিয়ারত করলেন প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ০৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৪ মে ২০২২ | ৩৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নিহত স্বজনদের কবর জিয়ারত করেছেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দুই কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা। ঈদুল ফিতরের মধ্যে বুধবার সকালে তারা রাজধানীর বনানী কবরস্থানে যান এবং সেখানে তারা পরিবারের সদস্যদের কবর জিয়ারত ও দোয়া করেন।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস উইং থেকে এ তথ্য জানোনো হয়।

প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেস সচিব-১ এম এম ইমরুল কায়েস জানান, বোনকে নিয়ে বুধবার সকালে বনানী কবরস্থানে যান শেখ হাসিনা। তারা পরিবারের সদস্যদের কবর জিয়ারত ও দোয়া করেন।

এরপর তারা ১৯৭৫ সালের ১৫ অগাস্ট নিহত জাতির পিতার পরিবারের সদস্যদের কবরে গোলাপের পাপড়ি ছিটিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সেনাবাহিনীর একদল বিপথগামী কর্মকর্তার হাতে সপরিবারে জীবন দিতে হয় তৎকালীন রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে।

সেই রাতে ঘাতকরা বঙ্গবন্ধু ছাড়াও তার স্ত্রী ফজিলাতুন নেছা মুজিব, তিন ছেলে শেখ কামাল, শেখ জামাল, শেখ রাসেল, শেখ কামালের স্ত্রী সুলতানা কামাল, শেখ জামালের স্ত্রী রোজী জামাল, বঙ্গবন্ধুর ছোট ভাই শেখ নাসেরসহ পরিবারের ১৮ সদস্যকে হত্যা করে। এদের মধ্যে বঙ্গবন্ধু ছাড়া বাকি সবার কবর বনানী কবরস্থানে। বঙ্গবন্ধুকে সমাহিত করা হয় গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ায়। তখন বিদেশে থাকায় বেঁচে যান বঙ্গবন্ধুর দুই মেয়ে শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা।


আরও খবর



নিহত হিমেলের মাকে ৫ লাখ টাকা ও ঈদ সামগ্রী দিলো রাবি প্রশাসন

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৮ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ এপ্রিল ২০২২ | ৪৪০জন দেখেছেন

Image

রাবি প্রতিনিধি:

ট্রাক দুর্ঘটনায় নিহত রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) মেধাবী শিক্ষার্থী মাহমুদ হাবিব হিমেলের মাকে ৫ লাখ টাকার একটি চেকসহ পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের জন্য ঈদ সামগ্রী উপহার দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১ টায় হিমেলের নানার বাড়ি নাটোরের কাপুরিয়াপট্টিতে হিমেলের মা মনিরা আক্তারের হাতে এসব উপহার তুলে দেয়া হয় তারা। চেক ও ঈদসামগ্রী গ্রহণের সময় হিমেলের মা ছাড়াও তার নানা খন্দকার মনির উদ্দিন আহমেদ, মামা খন্দকার আবু বক্কর মুন্নাসহ পরিবারের অন্য সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক আসাবুল হক, জনসংযোগ প্রশাসক অধ্যাপক প্রদীপ কুমার পান্ডে, ছাত্র উপদেষ্টা সহযোগী অধ্যাপক তারেক নূর, পরিবহন প্রশাসক মোকসিদুল হক ও সহকারি প্রক্টর আরিফুল ইসলাম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

চেক ও ঈদসামগ্রী প্রদান শেষে নিহত হিমেলের কবর জিয়ারত করেন তারা।

নিহত হিমেলের পরিবারের জন্য কিছু করতে পেরে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক গোলাম সাব্বির সাত্তার বলেন, 'আমরা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে যেসব প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলাম, আস্তে আস্তে সেগুলো বাস্তবায়নের চেষ্টা করছি। আমরা হিমেলকে ফিরে পাবো না। কিন্তু তার মা এবং পরিবারের অন্য সদস্যদের যথা সম্ভব সাহায্যের চেষ্টা করতে তো সমস্যা নাই। এটা আমাদের দায়িত্ব। বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে আজকে আমরা সামান্য কিছু ঈদসামগ্রী পাঠিয়েছিলাম, ৫ লাখ টাকার একটা চেকও দেয়া হয়েছে। আমি যেভাবে পারছি হিমেলের মায়ের পাশে দাঁড়ানোর চেষ্টা করছি। আহত ছাত্র রায়হান প্রামাণিক রিমেলকেও আর্থিকভাবে সহায়তা করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, হিমেলের মাকে সহায়তা করার জন্য আমি প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষামন্ত্রীর কাছেও আবেদন করেছি। আশা করছি, সেখান থেকেও ভালো একটা ফান্ড গঠন করে হিমেলের মাকে দিতে পারব।

উল্লেখ, গত ১ ফেব্রুয়ারি রাত পৌনে ৯টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ হবিবুর রহমান হলের সামনের রাস্তায় ট্রাকচাপায় মাহমুদ হাবিব হিমেল নিহত হয়। হিমেল রাবির গ্রাফিক্স ডিজাইন বিভাগের চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থী। এই ঘটনায় আহত হন রায়হান প্রামাণিক রিমেল নামের আরেক শিক্ষার্থী। তার চিকিৎসারও সার্বিক তত্ত্বাবধায়ন করে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। আহত রিমেলের এক বছরের পড়াশুনার জন্য তাকেও ১ লাখ টাকার একটি চেক প্রদান করেছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন। গতকাল রিমেলের হাতে চেকটি হস্তান্তর করা হয়।


আরও খবর



সালাহর সিজদাকে মার্কিন আদালতে উপস্থাপন

প্রকাশিত:রবিবার ০১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০১ মে ২০২২ | ৩৭৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ব্রিটিশ ফুটবল ক্লাব লিভারপুলের মিশর বংশোদ্ভূত তারকা খেলোয়ার মোহাম্মদ সালাহর গোল উদযাপনের সময় মাঠে সিজদা দেওয়ার ঘটনাকে যুকাতরাষ্ট্রের শীর্ষ আদালতে উদাহরণ হিসেবে তুলে ধরেছেন এক আইনজীবী।

সম্প্রতি ওয়াশিংটন ডিসির খ্রিস্টান হাইস্কুল আমেরিকান ফুটবল কোচ ম্যাচ শেষে মাঠে প্রার্থনা করায় চাকরি হারান। খবর আরব নিউজের।

পরে ওই ফুটবল কোচ জো কেনেডি এ ব্যাপারে প্রতিকার চেয়ে মার্কিন সুপ্রিম কোর্টে মামলা করেন।

মামলায় তার আইনজীবী পল, খেলার মাঠে গোল দেওয়ার পর লিভারপুলের তারকা ফুটবলার সালাহর সিজদা দেওয়ার ঘটনাকে উদাহরণ হিসেবে আদালতে উপস্থাপন করেন।

তিনি বলেন, প্রার্থনা করা সবার ব্যক্তিগত ও ধর্মীয় স্বাধীনতার বিষয়। এতে তিনি অন্য ধর্মকে আঘাত দিচ্ছেন না। তাই তিনি তার মক্কেলের চাকরি ফিরিয়ে দেওয়ার জোর দাবি জানান আদালতে।

নিউজ ট্যাগ: মোহাম্মদ সালাহ

আরও খবর



মৃত্যুর খবরের ৩০ মিনিট পর টুইট, এখনো মরিনি

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৯ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৯ এপ্রিল ২০২২ | ৪৬৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বৃহস্পতিবার দাবানলের মতো খবর ছড়িয়ে পড়ে হরলান্ড-পগবাদের এজেন্ট মিনো রাইওলা মৃত্যুবরণ করেছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে তার বিদেহী আত্মার শান্তি কামনা করে কত টুইট, স্ট্যাটাসই না দেখা গেল। কিন্তু খবর ছড়িয়ে পড়ার ৩০ মিনিট পর রাইওলা নিজেই টুইট করে জানালেন, তিনি মারা যাননি, বেঁচে আছেন।

ইতালিয়ান সুপার এজেন্টের মৃত্যুর খবর বিশ্বাস করার কারণ, বেশ কয়েক মাস ধরেই অসুস্থ ছিলেন রাইওলা। হাসপাতালে ছিলেন এক মাসের বেশি।

গত জানুয়ারি থেকেই অসুস্থ রাইওলা। মিলানের এক হাসপাতালে তাকে নেওয়া হলে সেখানে জটিল এক অস্ত্রোপচার করা হয়।  এর পর থেকেই ঘরেই বিশ্রাম নিচ্ছিলেন তিনি। তাই বৃহস্পতিবার তার মৃত্যুর খবরটি অবিশ্বাস করতে পারেননি অনেকে।

গুজব ছড়ানোর পর রাইওলার ঘনিষ্ঠ বন্ধু হোসে ফোর্তেস রদ্রিগেজ এক ডাচ সংবাদমাধ্যমকে বলেছেন, তার অবস্থা খুব খারাপ, কিন্তু এখনো মারা যাননি। এখনো লড়ে যাচ্ছেন তিনি। যারা মৃত্যুর খবর ছড়িয়েছে, তাদের ওপর খেপেছি আমি।

এরপর মিনো রাইওলার টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকেই পোস্ট করা হয়েছে, যারা আমার বর্তমান স্বাস্থ্যের অবস্থা জানতে চাচ্ছেন, তাদের উদ্দেশে বলছি: চার মাসে দ্বিতীয়বারের মতো মেরে ফেলায় চরম বিরক্ত। মনে হচ্ছে, (আমার) পুনরুজ্জীবিত হওয়ার ক্ষমতা আছে। মরিনি, এখনো বেঁচে আছি।

প্রসঙ্গত, ইব্রাহিমোভিচ, পগবা, হরলান্ড, ডি লিখট ছাড়াও রোমেলু লুকাকু, মারিও বালোতেল্লি, মার্কো ভেরাত্তি ও হেনরিখ মেখিতারিয়ানও এজেন্ট রাইওলা।ফোর্বস জানিয়েছিল, তারকাদের এজেন্ট হিসেবে গত বছর ৬ কোটি ২০ লাখ পাউন্ড আয় করেছিলেন রাইওলা।


আরও খবর