আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১
শিরোনাম

গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষার প্রাথমিক আবেদন শেষ হচ্ছে আজ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৫ এপ্রিল ২০২১ | ১২৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
প্রাথমিকভাবে বাছাইকৃত শিক্ষার্থীরা মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে ছয়শ টাকা জমা দিয়ে ২৪ এপ্রিল থেকে ২০ মে এর মধ্যে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য চূড়ান্ত আবেদন করতে পারবেন। এছাড়াও আগামী ১ জুন থেকে ১০ জুনের মধ্যে

২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে গুচ্ছভুক্ত ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার প্রাথমিক আবেদন শেষ হচ্ছে আজ (বৃহস্পতিবার)। চূড়ান্ত পরীক্ষার জন্য বাছাইকৃতদের তালিকা প্রকাশ করা হবে আগামী ২৩ জুন। প্রাথমিক আবেদনে শিক্ষার্থীদের কোন ফি না লাগলেও বাড়ানো হবে না প্রাথমিক আবেদনের সময়সীমা।

এর পূর্বে গত ১০ এপ্রিল (শনিবার) জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের জনসংযোগ, তথ্য ও প্রকাশনা দফতর থেকে এক জরুরি বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে প্রাথমিক আবেদনের সময়সীমা না বাড়ানোর বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।

জানা যায়, প্রাথমিকভাবে বাছাইকৃত শিক্ষার্থীরা মোবাইল ব্যাংকিং এর মাধ্যমে ছয়শ টাকা জমা দিয়ে ২৪ এপ্রিল থেকে ২০ মে এর মধ্যে ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য চূড়ান্ত আবেদন করতে পারবেন। এছাড়াও আগামী ১ জুন থেকে ১০ জুনের মধ্যে পরীক্ষার্থীরা প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে পারবেন। বিজ্ঞান (ইউনিট-A) শাখার পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১৯ জুন, মানবিক (ইউনিট-B) শাখার পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ২৬ জুন এবং বাণিজ্য (ইউনিট-C) শাখার পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ৩ জুলাই।

যে সকল শিক্ষার্থী ২০১৯ বা ২০২০ সালে এইচএসসি/আলিম ও সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ তারাই আবেদন করতে পারছেন। ভর্তিচ্ছু আবেদনকারীর বিজ্ঞান শাখার জন্য ন্যূনতম জিপিএ ৮.০, বাণিজ্য শাখার জন্য ন্যূনতম জিপিএ ৭.৫ এবং মানবিক শাখার জন্য ন্যূনতম জিপিএ ৭.০ নির্ধারিত হয়েছে। শুধুমাত্র এবছরের জন্যই গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১৯ ও ২০২০ সালে এইচএসসি পাসকৃত শিক্ষার্থীরা ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করতে পারবেন।

মোট ২৮টি কেন্দ্রের মধ্যে একজন শিক্ষার্থী কমপক্ষে ৫টি পরীক্ষা কেন্দ্র নির্বাচন করতে পারবেন। ২০১৯ সালের পাসকৃত শিক্ষার্থীগণ বর্তমানে অধ্যয়নরত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান কেন্দ্র হিসেবে চয়েস বা পছন্দ করতে পারবেন না।

উল্লেখ্য, গত ১ এপ্রিল গুচ্ছভিত্তিক ভর্তি পরীক্ষার প্রাথমিক আবেদন শুরু হয়। সে অনুযায়ী বৃহস্পতিবার রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত শিক্ষার্থীরা অনলাইনে প্রাথমিক আবেদন করতে পারবেন। ভর্তি পরীক্ষার বিস্তারিত তথ্যাদি ভর্তি সংশ্লিষ্ট ওয়েবসাইট  এ পাওয়া যাবে।


আরও খবর



ঐতিহাসিক শোলাকিয়া মাঠে এবারও হচ্ছে না ঈদ জামাত

প্রকাশিত:রবিবার ০৯ মে ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ০৯ মে ২০২১ | ৫৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসের বিস্তার রোধে কিশোরগঞ্জের ঐতিহাসিক শোলাকিয়া মাঠে এবারও হচ্ছে না ঈদুল ফিতরের জামাত।

শোলাকিয়া মাঠ পরিচালনা কমিটি তাদের সিদ্ধান্তে জানিয়েছে, করোনাভাইরাসের কারণে সরকারি নির্দেশনা মেনে ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাঁও মাঠে এবছরের ঈদুল ফিতরের জামাত অনুষ্ঠিত হবে না।

কিশোরগঞ্জ জেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, করোনার সংক্রমণ রোধে শোলাকিয়া ঈদগাহেও আসন্ন ঈদুল ফিতরের জামাত অনুষ্ঠিত হবে না।এবারের ঈদুল ফিতরের জামাত অনুষ্ঠিত হলে তা হতো শোলাকিয়ার ১৯৪তম জামাত।

শোলাকিয়া মাঠে ঈদ জামাত শুরু হওয়ার পর থেকে করোনা ভাইরাসের কারণে প্রথমবার গত বছর ঈদুল ফিতরের ও ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত হয়নি।

জনশ্রুতি আছে, বাংলার বিখ্যাত বারো ভূঁইয়ার একজন ঈশা খাঁর ১৬তম বংশধর দেওয়ান মান্নান দাঁদ খান ১৯৫০ সালে শোলাকিয়া ঈদগাহ ওয়াকফ করেন। এর ২০০ বছর আগে থেকে শোলাকিয়া মাঠে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। ১৮২৮ সালে এ মাঠে ঈদুল ফিতরের বড় জামাত অনুষ্ঠিত হয়। সে জামাতে একসঙ্গে ১ লাখ ২৫ হাজার বা সোয়া লাখ মুসল্লি ঈদের জামাত আদায় করেন। সেই থেকে এ মাঠ সোয়া লাখিয়া নামে পরিচিতি পায়, যা পরবর্তী সময়ে শোলাকিয়ায় রূপ নেয়।


আরও খবর
আগামীকাল সৌদিতে ঈদ

বুধবার ১২ মে ২০২১




শত রানের লিড নিল শ্রীলঙ্কা

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ এপ্রিল ২০২১ | ৬৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজের প্রথমটির পঞ্চম দিন মাঠে নেমেছে শ্রীলঙ্কা-বাংলাদেশ। তবে স্বস্তির খবর ম্যাচের চতুর্থ দিন বাংলাদেশি বোলাররা কোনো উইকেট না পেলেও পঞ্চম দিনের শুরুতেই ৫ উইকেট তুলে নিয়েছেন তাসকিন-তাইজুলরা।

কিন্তু ইতোমধ্যে ১০০ রানের বেশি লিড নিয়েছে শ্রীলঙ্কা।

এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত শ্রীলঙ্কা প্রথম ইনিংসে ১৭৯ ওভার শেষে ৮ উইকেট হারিয়ে ৬৪৮ রান করেছে। স্বাগতিক লঙ্কানদের লিড দাঁড়িয়েছে ১০৭ রান।

তাসকিন ঝড়ের পর পাথুম নিশাঙ্কাকাকে ১২) লিটন দাশের ক্যাচে ফেরান এবাদত হোসেন। ৩১ রান করা নিরোশান ডিকভেলা রান আউটের শিকার হন। আর ওয়ানিন্দু (৪৩) হারাসাঙ্গাকে বোল্ড করেন তাইজুল ইসলাম।

এর আগে দিনের শুরুতেই দাপট দেখান তাসকিন আহমেদ। সেঞ্চুরিয়ান ধনাঞ্জয়া ডি সিলভাকে বোল্ড করার পর ডাবল সেঞ্চুরিয়ান দিমুথ করুনারত্নেকেও ফেরান এই পেসার।


আরও খবর



করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ১৫ কোটি ৩৪ লাখ ৮১ হাজার

প্রকাশিত:সোমবার ০৩ মে ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০৩ মে ২০২১ | ৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৩ কোটি ৩১ লাখ ৮০ হাজার ৪৪১ জন আর

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির সংখ্যা কোনোভাবেই কমছে না। সবশেষ করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৫ কোটি ৩৪ লাখ ৮১ হাজার ৬১৩ জন। আর এ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে বিশ্বে মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩২ লাখ ১৬ হাজার ২১৪ জনে। এর মধ্যে সুস্থ হয়েছে ১৩ কোটি ৭ লাখ ৯১ হাজার ৪৬৪ জন।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটার থেকে সোমবার (৩ মে) সকালে এই তথ্য জানা গেছে।

ওয়ার্ল্ডওমিটারের সবশেষ তথ্য অনুযায়ী, করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৩ কোটি ৩১ লাখ ৮০ হাজার ৪৪১ জন আর ৫ লাখ ৯১ হাজার ৬২ জন মারা গেছেন।

করোনায় আক্রান্তের তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে প্রতিবেশী দেশ ভারত। তবে ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃতের তালিকায় দেশটির অবস্থান চতুর্থ। দেশটিতে মোট আক্রান্ত ১ কোটি ৯৯ লাখ ১৯ হাজার ৭১৫ জন এবং মারা গেছেন ২ লাখ ১৮ হাজার ৯৪৫ জন।

লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিল করোনায় আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় ও মৃত্যুর সংখ্যায় তালিকায় দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে। দেশটিতে মোট শনাক্ত রোগী ১ কোটি ৪৭ লাখ ৫৪ হাজার ৯১০ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৪ লাখ ৭৭ হাজার ৭৭৫ জনের।

দেশে করোনাভাইরাসের আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। এখন পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১১ হাজার ৫৭৯ জনে। এছাড়াও এখন পর্যন্ত দেশে মোট শনাক্তের সংখ্যা ৭ লাখ ৬১ হাজার ৯৪৩ জন।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীন থেকে সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর বিশ্বব্যাপী ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। গত বছরের ১১ মার্চ করোনাভাইরাস সংকটকে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।


আরও খবর



করোনায় আরও ৫০ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:বুধবার ০৫ মে ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৫ মে ২০২১ | ৭৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নভেল করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে আরও ৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ নিয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১১ হাজার ৭৫৫ জনে দাঁড়িয়েছে। এ ছাড়া দেশে নতুন করে আরও এক হাজার ৭৪২ জন আক্রান্ত হয়েছে। দেশে মোট সাত লাখ ৬৭ হাজার ৩৩৮ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা থেকে সুস্থ হয়েছে তিন হাজার ৪৩৩ জন। এ নিয়ে দেশে মোট ছয় লাখ ৯৮ হাজার ৪৬৫ জন করোনা থেকে সুস্থ হলেন।

আজ বুধবার বিকেলে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় ৪২৭টি ল্যাবে ২০ হাজার ২৮৪ টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। এ ছাড়া নমুনা সংগ্রহ হয়েছে ২০ হাজার ২১৭ টি। করোনা শনাক্তের হার ৮ দশমিক ৫৯ শতাংশ। মৃত্যুর হার এক দশমিক ৫৩ শতাংশ। সুস্থতার হার ৯১ দশমিক ০২ শতাংশ।

২৪ ঘণ্টায় নতুন ৫০ জন মৃত্যুবরণকারীর মধ্যে পুরুষ ৩২ জন ও নারী ১৮ জন। এ পর্যন্ত পুরুষ মৃত্যুবরণ করেছেন আট হাজার ৫৪৪ জন ও নারী তিন হাজার ২১১ জন।

এ ছাড়া মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে দুইজন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে পাঁচজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ১৩ জন ও ষাটোর্ধ্ব ৩০ জন রয়েছেন।

২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ঢাকা বিভাগের ২৮ জন, চট্টগ্রাম বিভাগের ১৬ জন, রাজশাহী বিভাগে একজন, খুলনা বিভাগে তিনজন,  সিলেট বিভাগে দুইজন । সরকারি হাসপাতালে ৩৫ জন ও বেসরকারি হাসপাতালে ১২ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। এ ছাড়া বাসায় মৃত্যুবরণ করেছেন তিনজন।

দেশে প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয় গত বছরের ৮ মার্চ। ওই বছরের ১৮ জুন তিন হাজার ৮০৩ জন নতুন করে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার মধ্যে দিয়ে লাখ ছাড়িয়েছিল করোনার রোগী। সেদিন পর্যন্ত মোট শনাক্ত ছিল এক লাখ দুই হাজার ২৯২ জন। এ ছাড়া দেশে করোনাভাইরাসে প্রথম মৃত্যুর ঘটনা ঘটে গত বছরের ১৮ মার্চ।


আরও খবর



লকডাউন : বেতনের বেশিরভাগ টাকাই যাচ্ছে সড়কে

প্রকাশিত:সোমবার ২৬ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২৬ এপ্রিল ২০২১ | ১৪৯জন দেখেছেন
তাছনিম আদনান

Image

রাজধানীর পল্টনের একটি পত্রিকা অফিসে চাকরি করেন অমিতাভ হালদার। ভাড়া থাকেন বাড্ডা। লকডাউনের মধ্যে অফিস খোলা থাকায় নিয়মিত অফিস করতে হচ্ছে তাকে।

অফিস থেকে আনা-নেওয়ার ব্যবস্থা না থাকায় নিজের খরচেই অফিসে যেতে হচ্ছে। শুধু অমিতাভ একা নন, এমন অনেক স্বল্প আয়ের মানুষকে  প্রতিদিন বাড়তি ভাড়া দিয়ে অফিসে আসা-যাওয়া করতে হচ্ছে। অথচ সরকারি নির্দেশনায় বলা হয়েছে, লকডাউনের মধ্যে অফিস খোলা রাখলে কৃর্তপক্ষকে কর্মীদের আনা-নেওয়ার ব‌্যবস্থা করতে হবে। হাতে গোনা কয়েকটি প্রতিষ্ঠান ছাড়া বেশিরভাগ প্রতিষ্ঠানের কর্মীদের যাতায়াতের নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থা নেই।

সোমবার (২৬ এপ্রিল) মগবাজার থেকে এস এম মনির নামে একজন বলেন, জরুরি সেবার কারণে লকডাউনের মধ্যে আমাদের অফিস খোলা রাখা হয়েছে। সরকারের নির্দেশনায় নিজস্ব পরিবহন ব্যবস্থায় কর্মীদের আনা-নেওয়ার কথা থাকলেও আমাদের জন্য পরিবহনের ব্যবস্থা করেনি। তাই নিজ খরচে অফিস করছি।

তিনি আরও বলেন, রমজান মাস। এ মাসের এমনিতেই খরচ বেশি। মাসে যে বেতন পাই তা দিয়ে সংসার চালানোই কষ্টকর। অল্প বেতনের চাকরি করে রিকশায় অফিস যাওয়া সম্ভব না। তাই চাকরি বাঁচাতে কিছু পথ হেঁটে কিছু পথ রিকশাতে করে আসা-যাওয়া করি। মগবাজার থেকে পল্টনে রিকশা ভাড়া ২০০ টাকা আর সিএনজি অটোরিকশাতে গেলে ৩০০ টাকা ভাড়া দিতে হয়। বেতনের বেশির ভাগ টাকা রাস্তাতেই খরচ হয়ে যাচ্ছে।

পল্টনে তোপখানা রোড থেকে একটি দৈনিক পত্রিকার অফিস সহকারী শেখ রাসেল বলেন, লকডাউনের শুরু থেকেই আমাদের অফিস খোলা রয়েছে। চাকরি বাঁচাতে অফিস করতে হচ্ছে। কয়েকগুণ বেশি ভাড়া দিয়ে কখনও রিকশায়, অটোরিকশায় আবার হেঁটে অফিস করছি। কিছু তো করার নাই। অফিস থেকে কোনো পরিবহন খরচ দেয় না।

নিউজ ট্যাগ: লকডাউন পল্টন

আরও খবর