আজঃ বৃহস্পতিবার ১৯ মে ২০২২
শিরোনাম

হাসপাতাল বেডে ভিক্ষুক নির্যাতন: ৪ এসআই বরখাস্ত

প্রকাশিত:বুধবার ১১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১১ মে ২০২২ | ৪৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

জামালপুরের সরিষাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের বেডে চিকিৎসাধীন এক ভিক্ষুক ও তার পরিবারের সদস্যদের শারীরিক নির্যাতন ও গ্রেফতারের ঘটনায় ৪ এসআইকে সাময়িক বরখাস্ত এবং ২ কনস্টেবলকে  প্রত্যাহার করা হয়েছে।

বুধবার (১১ মে) জামালপুরের পুলিশ সুপার মো. নাছির উদ্দীন আহমেদ বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

সাময়িক বরখাস্তরা হলেন-সরিষাবাড়ী থানার এসআই আলতাব হোসেন, এসআই সাইফুল ইসলাম, এসআই ওয়াজেদ আলী ও এসআই মুন্তাজ। এছাড়া কনস্টেবল মোজাম্মেল হক ও নারী কনস্টেবল সাথী আক্তারকে পুলিশ লাইনে প্রত্যাহার করা হয়েছে।

জানা গেছে, সরিষাবাড়ী পৌরসভার বাউসি বাজার এলাকার মৃত মহির উদ্দিনের ছেলে ভিক্ষুক আব্দুল জলিল (৬৫) বিশ শতক জমিতে বসতভিটা বানিয়ে দীর্ঘদিন বসবাস করে আসছিলেন। সম্প্রতি ওই জমি একই এলাকার প্রভাবশালী মুজিবুর রহমান দাবি করায় দুপক্ষের মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। পরবর্তীতে ঐ জমি নিয়ে জজ আদালতে মামলা হলে আদালত ভিক্ষুক আব্দুল জলিলের পক্ষে ডিক্রি প্রদান করেন। আদালতের আদেশ অমান্য করে সোমবার (৯ মে) সকালে প্রতিপক্ষ মুজিবুর রহমান তার সহযোগীদের নিয়ে আব্দুল জলিলের পরিবারের ওপর হামলা চালায়। হামলায় আব্দুল জলিল (৬৫), তার স্ত্রী লাইলী বেগম, বড় ছেলে আবু বক্কর সিদ্দিক, মেজো ছেলে ওয়ায়েজ করোনি, ছোট ছেলে হামদাদুল হকসহ পরিবারের অন্য সদস্য জসিম মিয়া আহত হন। পরে এলাকাবাসী আহতদের উদ্ধার করে সরিষাবাড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করে।  হামলার পর উল্টো মুজিবুর রহমান বাদী হয়ে চিকিৎসাধীন ৪ জনসহ ১৫ জনকে আসামি করে সরিষাবাড়ী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে মঙ্গলবার দুপুরে চিকিৎসাধীন ভিক্ষুক আব্দুল জলিলসহ ৪ জনকে হাসপাতালের বেডে শারীরিক নির্যাতন ও গ্রেফতার করে নিয়ে যায় সরিষাবাড়ী থানার পুলিশ। পরে তাদের আদালতে সোপর্দ করা হয়।

পুলিশ সুপার মো. নাছির উদ্দীন আহমেদ জানান, এ ঘটনায় ৪ এইআইকে বরখাস্ত ও ২ কনস্টেবলকে প্রত্যাহার করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে সরিষাবাড়ী থানার ওসি মীর রকিবুল হাসানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।


আরও খবর



নাটোরে ট্রাক-মাইক্রোর মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ২

প্রকাশিত:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ১৮ মে ২০২২ | ১৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নাটোরের বড়াইগ্রামে ট্রাক-মাইক্রোবাসের মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। ঘটনাস্থলে মাইক্রোবাসের চালক ও এক যাত্রী নিহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন আরও ৩ জন। বুধবার ভোরে নাটোর-পাবনা মহাসড়কে উপজেলার নগর ইউনিয়নের কয়েন এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন, চুয়াডাঙ্গা জেলার সদর উপজেলার গহরপাড়া গ্রামের মৃত আদম আলীর ছেলে আল-মাহবুব ও চালক একই উপজেলার তালতলা পশুরহাট এলাকার আছির উদ্দিনের ছেলে মনিরুজ্জামান।

বনপাড়া হাইওয়ে থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফিরোজ হোসেন বলেন, উপজেলার কয়েন এলাকায় চুয়াডাঙ্গা থেকে রাজশাহীগামী নোয়া মাইক্রোবাসের (ঢাকা মেট্রো-চ ১১-৭৫৮৬) সাথে পঞ্চগড় থেকে পাবনাগামী বালু বোঝাই ট্রাকের (ঢাকা মেট্রো-ট ২২-৪৮৬৭) মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে মাইক্রোবাসটি দুমড়ে মুচড়ে যায়।

ঘটনাস্থলেই মাইক্রোবাসের চালক ও একযাত্রী নিহত হয়। আহত তিনজকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তিনি আরও বলেন, দুর্ঘটানাকবলিত ট্রাক ও মাইক্রোবাসটি জব্দ করা হয়েছে। মরদেহ দুটি বনপাড়া হাইওয়ে থানা হেফাজতে রাখা হয়েছে। তবে ট্রাকের চালক ও সহকারী চালক পালিয়ে গেছে। এ বিষয়ে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলে জানান পুলিশের এই এসআই।


আরও খবর



৩০ কেজি গাঁজাসহ জয়পুরহাটে মাদক বিক্রেতা আটক

প্রকাশিত:সোমবার ০২ মে 2০২2 | হালনাগাদ:সোমবার ০২ মে 2০২2 | ৪০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

জয়পুরহাটে  ৩০ কেজি গাঁজাসহ এমরান হোসেন  নামে এক শীর্ষ মাদক বিক্রেতাকে  আটক করেছে র‌্যাব। আটক এমরান হোসেন জয়পুরহাট সদর উপজেলার পাইকড় দাঁড়িয়া গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে। আজ সোমবার ভোর রাতে জয়পুরহাট সদর   উপজেলার  পাকুরতলী  এলাকা  থেকে তাকে আটক করা হয়। 

জয়পুরহাট র‌্যাব-৫ ক্যাম্পের  কমান্ডার সহকারী পুলিশ সুপার মাসুদ রানা জানান, আটক ইমরান হোসেন  দীর্ঘদিন ধরেই মাদক বিক্রি করে আসছিল। এমরান একটি বস্তার মধ্যে মোটরসাইকেলে করে পাকুরতলীতে  গাঁজা  নিয়ে যাচ্ছিল বলে রাতে তাদের কাছে খবর আসে। পরে সেখানে অভিযান চালিয়ে ৩০ কেজি গাঁজা মোটরসাইকেলসহ তাকে আটক করা হয়।

তিনি আরও জানান, এমরান হোসেন দীর্ঘদিন ধরেই নেশা জাতীয় মাদকদ্রব্য গাঁজা  বিভিন্ন উপায়ে অবৈধভাবে দেশের বিভিন্ন স্থানে সরবরাহের পাশাপাশি জয়পুরহাট  নিয়ে এসে  বিক্রি করতো। দীর্ঘদিন ধরেই পুলিশ তাকে খুঁজছিল। অবশেষে  সে  ধরা পড়লো।


আরও খবর



রাঙ্গামাটিতে নির্মাণাধীন ব্রীজ ভেঙ্গে নিহত ১, আহত ১৭

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৮ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৮ এপ্রিল ২০২২ | ৪৬৫জন দেখেছেন

Image

রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি:

রাঙ্গামাটিতে নির্মাণাধীন ব্রীজ ভেঙে ১ নির্মাণ শ্রমিক নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরো ১৭জন। বৃস্পতিবার সকালে রাঙ্গামাটির আসামবস্তি-কাপ্তাই সড়কে বড়দম এলাকায় ব্রীজের স্পেন ঢালাইয়ের সময় এই দূর্ঘটনা ঘটে। নিহত নির্মাণ শ্রমিক মোঃ রফিক মিয়া, ধর্মপাশা জেলার সুনামগঞ্জ উপজেলার হলিদাকান্দা এলাকার জনৈক জালাল মিয়ার ছেলে।

আহত এক শ্রমিকরা জানায়, সকালে নির্মাধীন ব্রীজটিতে ঢালাই এর কাজ শুরু হয়। ঢালাইয়ের এক পর্যায়ে আকস্মিকভাবে স্পেন ভেঙে শ্রমিকসহ নিচে পড়ে যায়। এসময় অন্তত ২৫ থেকে ৩০ জন শ্রমিক কমবেশি আহত হয়। তাদের মধ্যে গুরুত্বর আহতদের হাসপাতালে নেয়া হয়েছে।

ঘটনাটির সময় মিক্সারের মেশিনটি মোঃ রফিকের উপর পড়লে সে আহত হয়। পরে উদ্ধার করে রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে আসা হলে জরুরীবিভাগে কর্তব্যরত চিকিৎসক পরীক্ষা নিরীক্ষা শেষে শ্রমিক মোঃ রফিককে মৃত ঘোষণা করেন।

রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালের আরএমও ডাঃ শওকত আকবর খান জানিয়েছেন, দুর্ঘটনায় আহত হয়ে সর্বমোট ১৮ জন শ্রমিককে হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে আসা হয়। এসময় মোঃ রফিক মারা যায় এবং বাকি ১৭ জনকে হাসপাতালে ভর্তি রেখে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

রাঙামাটি কোতয়ালী থানার অফিসার ইনচার্জ কবির হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, নিহত শ্রমিকের মরদেহটি ময়না তদন্তের জন্য রাঙামাটি সদর হাসপাতালের মর্গে রাখা হয়েছে। আহতরা হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। পরবর্তীতে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মগবান ইউনিয়নের বড়াদম এলাকায় নির্মাণাধীন ব্রীজটির নির্মাণ কাজ এলজিইডি এবং মেসার্স জসিম এন্টারপ্রাইজের তত্ত্বাবধানে চলছে।


আরও খবর



করোনায় আরও একটি মৃত্যুশূন্য দিন

প্রকাশিত:রবিবার ০১ মে ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০১ মে ২০২২ | ৩৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি। এ নিয়ে টানা ১০ দিনের মত করোনা ভাইরাসে দেশে কারও মৃত্যু হয়নি। সর্বশেষ ২০ এপ্রিল একজনের মৃত্যু হয়েছিল।রবিবার (১ মে) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় ২ হাজার ৬৪৩ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২৫ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৯৫ শতাংশ। ২৪ ঘণ্টায় এই সুস্থ হয়েছেন ২৯৩ জন। দেশে এ পর্যন্ত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে ১৯ লাখ ৫২ হাজার ৭১৬ জনে দাঁড়িয়েছে। আর মোট মৃত্যু হয়েছে ২৯ হাজার ১২৭ জনের। এ পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়েছেন ১৮ লাখ ৯৫ হাজার ৬৯৭ জন।

২০১৯ সালের শেষে চীনের উহানে প্রথম করোনার সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর কয়েক মাসের মধ্যে এ ভাইরাস সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। দেশে প্রথম করোনা শনাক্ত হয় ২০২০ সালের ৮ মার্চ। আর প্রথম মৃত্যু হয় একই বছরের ১৮ মার্চ।


আরও খবর



নুহাশের ‘পেটকাটা ষ’-এর শেষ পর্ব আসছে

প্রকাশিত:বুধবার ২৭ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ২৭ এপ্রিল ২০২২ | ৩৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কক্সবাজারে এনজিওতে কর্মরত তরুণের কানে ভেসে আসে অদ্ভুত কাহিনি। কোনো এক অজানা ডাক ছোট ছোট শিশুদের ডেকে নিয়ে যায় জলের কিনারে। টেনে নিয়ে যায় সমুদ্রের অতলে। তারপর তাদের আর খোঁজ মেলে না। সে কি পরিবর্তনের স্বপ্নে বিভোর হয়ে চলবে, নাকি পরিবর্তন নিজের হাতে তুলে নিয়ে অলৌকিকের মুখোমুখি হবে?

সাইকোলজিক্যাল হরর ঘরানার ৪টি ভিন্ন গল্প নিয়ে তৈরি হয়েছে অ্যান্থোলজি সিরিজ পেটকাটা ষ। মুখে মুখে প্রচলিত বিভিন্ন কুসংস্কার, লোককথার প্রেক্ষাপটে বর্তমান আবহে তৈরি এই অ্যান্ড্রোলজি সিরিজ। পেটকাটা ষ সিরিজের চতুর্থ ও শেষ পর্ব নিশির ডাক মুক্তি পাবে আগামী ২৮ এপ্রিল রাত ১০টা ৫৯মিনিটে দেশি ওটিটি প্লাটফর্ম চরকিতে। এরই মধ্যে পেটকাটা ষ-এর মুক্তি পাওয়া তিনটি পর্ব এই Building এ মেয়ে নিষেধ, মিষ্টি কিছুলোকে বলো দর্শক মহলে বেশ আলোচনার জন্ম দিয়েছে।

সিরিজের নাম কেন দিয়েছেন এমন প্রশ্নে নুহাশ হুমায়ূন বলেন, ষ-কে আমরা সবাই ছোটবেলা থেকে পেটকাটা বলি। কেউ বাংলা ভাষা শিখলেই এই অক্ষরটাকে পেটকাটা বলে ও চিনে। কিন্তু কেন? কোনো বাংলা বই বা কোথাও কিন্তু পেটকাটা লেখা নেই। খুব ভৌতিক একটা অদ্ভুত নাম। কিন্তু কেমন করে যেনো লোককথার মাধ্যমে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে জিনিসটা খুব পরিচিত হয়ে গেছে।

আমার কাছে মনে হয়েছিল এই ভূতের গল্পগুলোও একই রকম। কোথাও লেখা নেই। পুরাটা লোককথা। কিন্তু মুখে মুখে প্রজন্ম থেকে প্রজন্মে ছড়িয়ে গেছে। সো ফাইনালি, পেটকাটা ষ-কে পেটকাটা ষ বলতে চাই, লিখতে চাই। আর ভূতের গল্পগুলোকে আমার মতো করে আধুনিকভাবে একত্রিত করতে চাই।

নিশির ডাক এই পর্বে দেখা যাবে প্রীতম হাসান, মাসুদা খান, নভেরা রহমান, নাবিল নাসের, আবির হোসেন ও মুর্তজা জুবায়েরকে।


আরও খবর