আজঃ বৃহস্পতিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২১
শিরোনাম

হবিগঞ্জে দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে ২ চালক নিহত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৬ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৬ অক্টোবর ২০২১ | ৫৮০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

হবিগঞ্জের মাধবপুর উপজেলায় দুই ট্রাকের মুখোমুখি সংঘর্ষে দুই চালক নিহত হয়েছেন। মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৪টার দিকে উপজেলার সাহেববাড়ি গেইট এলাকায় এ দুর্ঘটনা ঘটে। তাৎক্ষণিকভাবে নিহতদের পরিচয় পাওয়া যায়নি।

শায়েস্তাগঞ্জ হাইওয়ে থানার ওসি মাইনুল ইসলাম জানান, ভোর সাড়ে ৪টার দিকে ঢাকামুখী ও সিলেটমুখী দুটি ট্রাক মহাসড়কের সাহেববাড়ি গেইট এলাকায় পৌঁছালে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে দুই ট্রাকচালক ঘটনাস্থলেই মারা যান।

নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করে সদর আধুনিক হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ট্রাক দুটি হাইওয়ে থানায় নেয়া হয়েছে।


আরও খবর
চট্টগ্রামে পাট গুদামে ভয়াবহ আগুন

বৃহস্পতিবার ০৯ ডিসেম্বর ২০২১

আজ নেত্রকোনা ট্র্যাজেডি দিবস

বুধবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২১




পিকে হালদারসহ ২৯ জনের বিরুদ্ধে সাত মামলা অনুমোদন

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ নভেম্বর ২০২১ | ৫২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
১২০০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের নামে এ পর্যন্ত মোট মামলা হয়েছে ১৫টি। যেখানে মোট আসামি করা হয়েছে ৩৭ জনকে

ইন্টারন্যাশনাল লিজিং থেকে সাতটি কাগুজে প্রতিষ্ঠানের নামে ৩২০ কোটি টাকা ঋণ জালিয়াতি ও অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে পিকে হালদার (প্রশান্ত কুমার হালদার) ও তার ২৯ সহযোগীর বিরুদ্ধে পৃথক সাতটি মামলার অনুমোদন দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

রোববার (১৪ নভেম্বর) দুদকের প্রধান কার্যালয়ে মামলার অনুমোদন দেওয়া হয় বলে সংস্থাটির জনসংযোগ সূত্র নিশ্চিত করেছে।

জানা গেছে, পিকে হালদার ও তার সহযোগীদের বিরুদ্ধে আরও ৫টা মামলা রুজু ও ২টি মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিসেসের সাবেক চেয়ারম্যান এম এ হাশেম, সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মো. রাশেদুল হক, নয়জন বোর্ড মেম্বার, পি কে হালদারের আত্মীয়সহ মোট ২৯ জনকে এসব মামলার আসামি করা হয়েছে।

দুদক সূত্রে জানা যায়, ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, বোর্ডের সদস্যরা প্রতারণার মাধ্যমে জাল কাগজপত্র তৈরি করে অস্তিত্বহীন প্রতিষ্ঠানের মালিকদের ঋণ পেতে প্রত্যক্ষভাবে সহযোগিতা করেন এবং সংশ্লিষ্ট ঋণের বেনিফিশিয়ারি কর্তৃক ইন্টারন্যাশনাল লিজিং থেকে ৩০০ কোটির বেশি টাকা উত্তোলন করে আত্মসাৎ করেন। পরে বিভিন্ন লেয়ারিংয়ের মাধ্যমে ওই অর্থ বিভিন্ন কোম্পানি ও ব্যক্তির হিসাবে স্থানান্তর ও রূপান্তরের মাধ্যমে অবস্থান গোপন করে পাচার করেছেন।

দণ্ডবিধি ১৮৬০-এর ৪০৯, ৪২০, ৪৬৭, ৪৬৮, ৪৭১, ১০৯ ধারা এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫ (২) ধারা ও মানি লন্ডারিং প্রতিরোধ আইন, ২০১২-এর ৪ (২), (৩) ধারায় শাস্তিযোগ্য অপরাধ করায় আসামিদের বিরুদ্ধে মামলাগুলো অনুমোদন দেওয়া হয়।

দুদক জানায়, ১২০০ কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগে ইন্টারন্যাশনাল লিজিংয়ের নামে এ পর্যন্ত মোট মামলা হয়েছে ১৫টি। যেখানে মোট আসামি করা হয়েছে ৩৭ জনকে। এ পর্যন্ত গ্রেফতার হয়েছেন ১১ জনকে আর বিদেশ গমনে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়েছে ৬৯ জনের।

এর আগে, গত ১০ নভেম্বর ৪২৬ কোটি টাকার জ্ঞাত আয়-বহির্ভূত সম্পদ অর্জন, ১ কোটি ১৭ লাখ কানাডিয়ান ডলার পাচার ও ১২ হাজার কোটি টাকা লেনদেনের অভিযোগে পিকে হালদারসহ ১৪ জনের বিরুদ্ধে দুদকে অভিযোগপত্র দেন উপ-পরিচালক মো. সালাউদ্দিন।

নিউজ ট্যাগ: পিকে হালদার

আরও খবর
আবরার হত্যায় ২০ আসামির মৃত্যুদণ্ড

বুধবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২১




উপার্জনের জন্য যৌন উদ্দীপক ভিডিয়ো বানাতেন শার্লিন-পুনম

প্রকাশিত:বুধবার ২৪ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৪ নভেম্বর ২০২১ | ৪১৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পর্ন-কাণ্ডের মামলায় বম্বে হাইকোর্টে আগাম জামিনের আবেদন করলেন শিল্পা শেট্টির স্বামী রাজ কুন্দ্রা। রাজের আইনজীবীদের পাঠানো সেই আবেদনপত্রে লেখা হয়েছে, উপার্জনের জন্য পুনম পাণ্ডে এবং শার্লিন চোপড়া যৌন-উদ্দীপক ভিডিয়ো বানাতেন। রাজের দাবি, সেই সমস্ত ভিডিয়োয় তাঁর কোনও ভূমিকা ছিল না।

রাজের আইনজীবী স্বপ্নিল আম্বুরে সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যমকে বলেন, সরকার পক্ষের আইনজীবীর মতে, শার্লিন চোপড়া এবং পুনম পাণ্ডের এই ধরনের ভিডিয়ো বানানো শাস্তিযোগ্য অপরাধ। কিন্তু রাজ কুন্দ্রা এই ভিডিয়ো বানাননি, ভিডিয়োগুলি নানা অ্যাপের মাধ্যমে ছড়িয়েও দেননি। তাঁর কোনও ভূমিকাই নেই। তা ছাড়া শার্লিন চোপড়া এবং পুনম পাণ্ডে স্বীকার করেছেন যে তাঁরা নিজেরাই ভিডিয়ো বানিয়েছেন।

শার্লিন অভিযোগ করেছিলেন, রাজ এবং তাঁর সহকারীরা তাঁকে যৌন-উদ্দীপক ভিডিয়োতে অভিনয়ের জন্য জোর করেছিলেন। পুনমের অভিযোগ ছিল, বিনা অনুমতিতে পুনমের নগ্ন ভিডিয়ো, ছবি প্রকাশ করে দিয়েছিলেন রাজ। সেই প্রসঙ্গে রাজের আইনজীবী দাবি, রাজ যে সময়ে হটশটস্‌ অ্যাপের দায়িত্বে ছিলেন, তখন তাতে এই ধরনের কোনও ভিডিয়ো মুক্তি পায়নি।

তাঁর কথায়, শার্লিন এবং পুনম তাঁদের নিজেদের অ্যাপের সাহায্যে যৌন উদ্দীপক ভিডিয়ো বানিয়ে, তা ছড়িয়ে দিতেন। তা থেকেই টাকা রোজগার করতেন তাঁরা। রাজের আইনজীবীদের দাবি, রাজ যে ধরনের ভিডিয়ো বানিয়েছেন, সেগুলিতে সরাসরি যৌনতা দেখানো হয়নি, তাই এ ক্ষেত্রে তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৬৭এ ধারা প্রয়োগ করা যাবে না।

গত ১৯ জুলাই পর্ন বানানো এবং বিভিন্ন অ্যাপের মাধ্যমে তা ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগে রাজকে গ্রেফতার করে মুম্বই পুলিশের অপরাধ দমন শাখা। শিল্পা শেট্টির স্বামীর বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল, পর্ন বানিয়ে হটশটস এবং বলিফেম অ্যাপের মাধ্যমে ছড়িয়ে দিতেন তিনি। গুগল প্লে স্টোর এবং অ্যাপলের অ্যাপ স্টোর থেকে হটশটস বাতিল করে দেওয়ার পর বলিফেম তৈরি করা হয়েছিল।

নিউজ ট্যাগ: শার্লিন-পুনম

আরও খবর



ডিজিটাল আইনে রফিকুল মাদানীর বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র গ্রহণ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১ | ৩৬০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
আদালতের সরকারি কোঁসুলি নজরুল ইসলাম শামীম বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করে বলেন, আজ আসামির উপস্থিতিতে অভিযোগপত্র গ্রহণ করেছেন বিচারক

ইসলামি বক্তা রফিকুল ইসলাম মাদানীর বিরুদ্ধে গাজীপুরের গাছা থানায় র‍্যাবের দায়ের করা ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় অভিযোগপত্র গ্রহণ করেছেন আদালত। আজ মঙ্গলবার ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আসসামছ জগলুল হোসেন এই অভিযোগপত্র গ্রহণ করেন।

আদালতের সরকারি কোঁসুলি নজরুল ইসলাম শামীম বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করে বলেন, আজ আসামির উপস্থিতিতে অভিযোগপত্র গ্রহণ করেছেন বিচারক। একই সঙ্গে আগামী ৯ জানুয়ারি অভিযোগ গঠনের শুনানির তারিখ নির্ধারণ করেছেন আদালত।

নথি থেকে জানা গেছে, গত ১১ এপ্রিল রফিকুল ইসলাম মাদানীর বিরুদ্ধে স্থানীয় টেকনগরপাড়া এলাকার বাসিন্দা যুবলীগ কর্মী মোস্তাফিজুর রহমান বাসন থানায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলাটি করেন। এ মামলায় ১৮ এপ্রিল পুলিশ আদালতে রফিকুল ইসলামের সাত দিনের রিমান্ড আবেদন করে। পরে তাঁর দুই দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

এর আগে গত ৭ এপ্রিল রফিকুল ইসলাম মাদানীকে রাষ্ট্রবিরোধী উস্কানিমূলক ও ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য এবং বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির অভিযোগে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) নেত্রকোনার নিজ বাড়ি থেকে আটক করে। এ সময় তাঁর কাছ থেকে চারটি মোবাইল ফোন জব্দ করা হয়। তারপর র‌্যাবের ডিএডি আব্দুল খালেক বাদী হয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে জিএমপির গাছা থানায় একটি মামলা করেন। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ২৫, ২৮ ও ৩১ ধারায় মামলা করা হয়েছে।

পরে ১৩ এপ্রিল সংবাদ সম্মেলনের (জিএমপি) উপপুলিশ কমিশনার মোহাম্মদ ইলতুৎমিশ জানান, রফিকুল ইসলাম মাদানীর মোবাইল জব্দ করে সেটি ফরেনসিক রিপোর্টের জন্য পাঠানো হয়। ফরেনসিক বিশেষজ্ঞরা উক্ত মোবাইল ফোনে আপত্তিকর অশ্লীল পর্নো দেখার প্রমাণ পেয়েছেন। তিনি নিয়মিত পর্নোগ্রাফি ভিডিও দেখাসহ রাষ্ট্রবিরোধী বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করতেন। এ কারণে তাঁর বিরুদ্ধে করা মামলায় পর্নোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনের ধারা যুক্ত করা হয়েছে।


আরও খবর
আবরার হত্যায় ২০ আসামির মৃত্যুদণ্ড

বুধবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২১




জাতীয় অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম আর নেই

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ৩০ নভেম্বর ২০২১ | ৩৫০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

জাতীয় অধ্যাপক ও বাংলা একাডেমির সভাপতি রফিকুল ইসলাম মারা গেছেন। মঙ্গলবার রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক কবি মুহাম্মদ নুরুল হুদা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

অধ্যাপক রফিকুল ইসলামের পরিবার সূত্রে জানা গেছে, গত ৭ অক্টোবর পেটে ব্যথার কারণে তাকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) ভর্তি করা হয়।

সেখানে পরীক্ষার পর তার ফুসফুসে পানি জমার বিষয়টি ধরা পড়ে। তখন থেকে বিএসএমএমইউর বক্ষব্যাধি (রেসপিরেটরি মেডিসিন) বিভাগের অধ্যাপক এ কে এম মোশাররফ হোসেনের তত্ত্বাবধানে তার চিকিৎসা চলছিল।

রফিকুল ইসলামকে পরিবারের সদস্যরা উন্নত চিকিৎসার জন্য ভারতে নিয়ে যেতে চাইলেও তাতে তিনি সায় দেননি। এর মধ্যে তাকে বিএসএমএমইউ থেকে এভারকেয়ার হাসপাতালে নেওয়া হয়। সেখানে নেওয়ার পর তার শ্বাসকষ্ট শুরু হয়।

রফিকুল ইসলাম ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সাবেক অধ্যাপক। ভাষা আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করা রফিকুল ইসলাম সেই সময়ের দুর্লভ আলোকচিত্রও ধারণ করছিলেন।

রফিকুল ইসলাম বাংলা একাডেমির মহাপরিচালকের দায়িত্বও পালন করেছেন। ২০১৮ সালে তিনি জাতীয় অধ্যাপক হন। অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম শিক্ষা, সাহিত্য ও গবেষণায় অবদানের জন্য স্বাধীনতা পুরস্কার ও একুশে পদক পেয়েছেন । ২০২১ সালের ১৮ মে সরকার তাকে তিন বছরের জন্য বাংলা একাডেমির সভাপতির দায়িত্ব দেয়।


আরও খবর



ফ্রান্সের সঙ্গে বাংলাদেশের ৩ চুক্তি স্বাক্ষর

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১১ নভেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১১ নভেম্বর ২০২১ | ৪৭৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ ও ফ্রান্স আর্থিক সহায়তা ও প্রযুক্তিগত সহযোগিতা সংক্রান্ত ৩টি চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। দেশটিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার রাষ্ট্রীয় সফর চলাকালে এসব চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। দুটি চুক্তি অনুযায়ী, ফ্রান্স বাংলাদেশের উন্নয়ন প্রকল্পে সহায়তা প্রদানে ৩৩০ মিলিয়ন ইউরো দেবে।

বুধবার (১০ নভেম্বর) অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগ (ইআরডি)-র সচিব ফাতিমা ইয়াসমিন সাংবাদিকদের এতথ্য জানান।

তিনি বলেন, ৩৩০ মিলিয়ন ইউরোর মধ্যে এজেন্সি ফ্রান্স ডেভলোপমেন্ট (এএফডি) করোনা মোকাবেলায় আর্থিক সহায়তার জন্য ২০০ মিলিয়ন ইউরো দেবে এবং ঢাকা এনভায়রনমেন্টালি সাসটেইনেবল ওয়াটার সাপ্লাই প্রজেক্টের জন্য দেবে ১৩০ মিলিয়ন ইউরো। প্রকল্পটি ইতোমধ্যে চালু করা হয়েছে এবং তা চলছে।

ফাতিমা ইয়াসমিন বলেন, এনিয়ে বাংলাদেশকে এএফডির দেয়া মোট সহায়তা ১ বিলিয়ন ইউরো ছাড়ালো। কেননা, এর আগে সংস্থাটি ৮০০ মিলিয়ন ইউরো দিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, দক্ষিণ এশিয়ায় বাংলাদেশ হচ্ছে এএফডির সবচেয়ে বেশি সহায়তা প্রাপ্ত দেশ। আগামীতে ফ্রান্সের সঙ্গে হোস্ট কান্ট্রি চুক্তি স্বাক্ষর হবে। বিষয়টির আলোচনা বর্তমানে চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে।

এছাড়া বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন সচিব মো. মোকাম্মেল হোসেন বলেন, বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান পরিবহন কর্তৃপক্ষ তাদের কর্মচারিদের জন্য অভিজ্ঞতা বিনিময় ও প্রশিক্ষণের জন্য সহযোগিতা জোরদারে ফ্রান্সের বেসামরিক বিমানপরিবহন কর্তৃপক্ষের সাথে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে।

তিনি আরও বলেন, তারা বিমান পরিবহন নিরাপত্তাসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠান আয়োজনে সহায়তা করছে। এতে বাংলাদেশ বেসামরিক বিমান পরিবহন খাতে উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হচ্ছে।


আরও খবর