আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১
শিরোনাম

ইফতারে কাঁচা আম রাখার উপকারিতা

প্রকাশিত:শনিবার ০১ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০১ মে ২০২১ | ৮৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গ্রীষ্মের তীব্র তাপমাত্রায় কর্ম ব্যস্ততা আর রোজা থাকার পর সন্ধ্যায় ইফতারে কিছু স্বাস্থ্যকর ও পুষ্টিকর খাবার খাওয়ার প্রয়োজন হয়। ব্যস্তময় জীবনে মানুষ হাতের কাছে তাৎক্ষণিক প্রস্তুত যা পায় সেটাই স্বাচ্ছন্দ্যে গ্রহণ করে। এবার তাহলে ইফতারে আম রাখার উপকারিতা তুলে ধরা হলো-

ওজন নিয়ন্ত্রণ : যারা অনাকাঙ্ক্ষিত বেড়ে যাওয়া ওজন কমাতে চান তাদের জন্য আম খুবই উপকারী। পাকা মিষ্টি আমের থেকে কাঁচা আমে চিনির পরিমাণ কম থাকে। এটি আপনার ক্যালোরি খরচ করতে বিশেষ ভূমিকা রাখবে।

অম্লতা দূর করা : বুক জ্বালাপোড়া বা অম্লতার সমস্যা থাকলে কাঁচা আম থেকে মুক্তি পাবেন। এ জন্য ইফতারে অন্যান্য ফলমূলের সঙ্গে কাঁচা আম রাখতে পারেন।

অ্যাসিডিটির সমস্যা দূর করবে : খাদ্যাভ্যাসের জন্য অধিকাংশ মানুষই এই অ্যাসিডিটির সমস্যায় ভুগেন। রোজা রেখে ইফতারে কয়েক টুকরো কাঁচা আম খাওয়ার ফলে অ্যাসিডিটি থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এছাড়া হজমেও সহায়তা করবে।

রক্তের সমস্যা সমাধান : আয়রন বা লৌহ থাকায় রক্তস্বল্পতা সমস্যা সমাধানে কাঁচা আম বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ : যাদের ডায়াবেটিস রয়েছে তারা কাঁচা আম খেতে পারেন। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে কাঁচা আম।

কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা সমাধান করে : কাঁচা আম খাওয়ার ফলে হজমজনিত সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়। এটি অন্ত্রকে পরিষ্কার করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্যজনিত সমস্যা দূর করে। কাঁচা আম লবণ মাখিয়ে মধুসহ খেলে এই সমস্যা থেকে দ্রুতই সমাধান পাওয়া যায়।

নিউজ ট্যাগ: কাঁচা আম

আরও খবর



শেখ জামালের ৬৮তম জন্মদিন আজ

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ এপ্রিল ২০২১ | ৯৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দ্বিতীয় ছেলে ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর গর্বিত অফিসার, বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ লেফটেন্যান্ট শেখ জামালের আজ বুধবার ৬৮তম জন্মদিন। তিনি ১৯৫৪ সালের ২৮ এপ্রিল গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজ থেকে মাধ্যমিক এবং ঢাকা কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন। তিনি ছিলেন সংস্কৃতিপ্রেমী এবং একজন ক্রীড়াবিদ।

১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে শেখ জামালও গৃহবন্দি ছিলেন। সেখান থেকে পালিয়ে তিনি মুক্তিযুদ্ধে সম্মুখসমরে নেতৃত্ব দেন। শেখ জামাল ধানমন্ডি থেকে অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ পথচলা শেষে ভারতের আগরতলা পৌঁছান এবং সেখানে মুজিববাহিনীতে (বাংলাদেশ লিবারেশন ফোর্সেস, বিএলএফ) যোগদান করে প্রশিক্ষণ শেষে মুক্তিযুদ্ধের ৯ নম্বর সেক্টরে সম্মুখসমরে অংশগ্রহণ করেন।

শেখ জামাল ছিলেন একজন দেশপ্রেমিক চৌকস-মেধাবী সেনা অফিসার। তিনি ছিলেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর লং কোর্সের প্রথম ব্যাচের কমিশন্ড অফিসার। ১৯৭৪ সালে শেখ জামাল যুগোস্লাভিয়ার মিলিটারি একাডেমিতে ক্যাডেট হিসেবে প্রশিক্ষণ ক্যাম্পে অংশগ্রহণ করেন। এরপর ব্রিটেনের স্যান্ডহার্স্ট একাডেমি থেকে প্রশিক্ষণ শেষে দেশে ফিরে ঢাকা সেনানিবাসে দ্বিতীয় ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টে সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট পদে যোগদান করেন।

দ্বিতীয় ইস্ট বেঙ্গলে চাকরিকালে স্বল্প সময়েই অফিসার ও সৈনিকদের মধ্যে তিনি অসাধারণ পেশাগত দক্ষতা ও আন্তরিকতার ছাপ রেখেছিলেন। কয়েক সপ্তাহেই শেখ জামাল অফিসার ও সৈনিকদের মধ্যে তাদেরই একজন হয়ে যান। ট্রেনিং গ্রাউন্ডে, রণকৌশলের ক্লাসে, অবস্টাকল ক্রসিংয়ে অংশ নিয়ে সৈনিকদের মুগ্ধ করেন। ব্যাটালিয়ন বক্সিং টিমের সদস্যদের প্রশিক্ষণ দেন।

১৯৭৫ সালের ১৪ আগস্ট ব্যাটালিয়ন ডিউটি অফিসার হিসেবে ক্যান্টনমেন্টে নিজ দায়িত্ব পালন করেন তিনি। ওই দিন রাতে ক্যান্টনমেন্ট থেকে ফিরে আসেন ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের বাড়িতে। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কালরাত্রিতে ঘাতকের নির্মম বুলেটের আঘাতে পরিবারের অন্য সদস্যদের সঙ্গে নিহত হন শেখ জামাল।

শহীদ শেখ জামালের জন্মদিন যথাযথ মর্যাদার সঙ্গে পালন উপলক্ষে আওয়ামী লীগের উদ্যোগে আজ বুধবার সকাল ৯টায় বনানী কবরস্থানে তার সমাধিতে স্বাস্থ্য সুরক্ষা বিধি মেনে শ্রদ্ধাঞ্জলি অর্পণ এবং তার আত্মার মাগফিরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হবে।


আরও খবর



ভারতে লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৮ এপ্রিল ২০২১ | ১০৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
ভ্যাকসিন নির্মাতা সংস্থা সিরাম ইনস্টিটিউট এবং ভারত বায়োটেককে উৎপাদন বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। এ ছাড়াও কঠোর বিধিনিষেধ আরোপেরও নির্দেশ তিনি দিয়েছেন তিনি

ভারতে চলছে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ। দেশটিতে গত ২৪ মার্চ একদিনে আক্রান্ত শনাক্ত হয় ৫০ হাজার মানুষ। আর গতকাল শনিবার একদিনে আক্রান্তের হার ছিল দুই লাখ ৬০ হাজারেরও বেশি। অর্থাৎ পঁচিশ দিনে সংক্রমণ বেড়েছে দুই লাখেরও বেশি।

সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান বলছে- দেশটিতে গত মার্চের ২৪ তারিখে আক্রান্ত হয় ৫০ হাজার। ছয়দিনে (এপ্রিলের ১০ তারিখ) এই আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ায় এক লাখে, ১১ দিনে (এপ্রিল এর ৪ তারিখ) সংক্রমণ পৌঁছায় দেড় লাখে। আরও চার দিনে (এপ্রিলের ১৪ তারিখে) দুই লাখে এবং গতকাল শনিবার সংক্রমণ পৌঁছেছে দুই লাখ ৬০ হাজার ৮১০।

এমন পরিস্থিতিতে গতকাল শনিবার দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলেন, এই অবস্থায় দেশকে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে ভ্যাকসিন উৎপাদনে। তিনি জানান, দেশের ১২ কোটি ২৫ লাখ মানুষ এখন ভ্যাকসিনের আওতায় এসেছে। এর মধ্যে এক কোটি ৬১ হাজার লোক দ্বিতীয় ডোজ নিয়েছে।

ভ্যাকসিন নির্মাতা সংস্থা সিরাম ইনস্টিটিউট এবং ভারত বায়োটেককে উৎপাদন বাড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। এ ছাড়াও কঠোর বিধিনিষেধ আরোপেরও নির্দেশ তিনি দিয়েছেন তিনি। এ ছাড়া রেলের কামড়ায় বা স্টেশন চত্বরে বিনা মাস্কে কেউ থাকলেই তাকে পাঁচশো টাকা জরিমানা করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলেও জানান দেশটির প্রধানমন্ত্রী।


আরও খবর



ঈদে থাকুক নবাবি সেমাই

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৬ মে ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৬ মে ২০২১ | ৮৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সেমাই একটি অতি পরিচিত মিষ্টান্ন জাতীয় খাবার। ঈদুল ফিতরে সেমাই একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ। এছাড়াও অনেকেই ঘরে আসা অতিথিকে সেমাই দিয়ে আপ্যায়ন করে থাকেন। সেমাই অনেকেরই পছন্দের খাদ্য তালিকার শীর্ষে থাকে। সেমাই অবশ্যই অনেক খেয়েছেন। কিন্তু নওয়াবি সেমাই! নওয়াবি সেমাই যা স্বাদে এনে দেয় নতুনত্ব।

চলুন দেখে নেই নওয়াবি সেমাই তৈরি করবেন যেভাবে।

উপকরণ

সেমাই- ৪০০ গ্রাম, ঘি- ২/৩ টেবিল চামচ, গুঁড়ো দুধ- ৪/৫ টেবিল চামচ, চিনি- স্বাদমতো, জর্দার রং- হাফ টেবিল চামচ

ক্রিমের প্রস্তুতি

দুধ- ১ লিটার, কনডেন্স মিল্ক- ১ কাপ, গুড়ো দুধ- হাফ কাপ, ডানো/নেসলে ক্রিম- হাফ কাপ, কর্ন ফ্লাওয়ার- ৪ টেবিল চামচ

প্রস্তুত প্রণালি

প্রথমে চুলায় একটি বড় পাত্রে ঘি গরম করে নিতে হবে। ঘি গরম হয়ে গেলে এর মধ্যে একে একে সেমাই, গুরা দুধ, চিনি দিয়ে অল্প আঁচে ভালো ভাবে ভেঁজে নিতে হবে। ভাজা সেমাই থেকে গরম অবস্থায় পাত্রে এক কাপের মতো রেখে বাকিটা অন্য একটি পাত্রে তুলে রেখে দিতে হবে। পাত্রে যেটুকু সেমাই ছিল সেই সেমাইয়ের সাথে অল্প পরিমাণে জর্দার রং মিশিয়ে দিতে হবে।

ক্রিমের প্রস্তুতি

আগে থেকে গরম করা এক কেজি পরিমাণ গরুর দুধ, কনডেন্স মিল্ক, গুঁড়া দুধ, ক্রিম, এবং কর্নফ্লাওয়ার ভালো ভাবে মিশিয়ে জ্বাল করে নিতে হবে। যাতে করে এক কেজি পরিমাণ দুধ কমে অর্ধেক হয়ে যায়।

পরিবেশন

যে পাত্রে পরিবেশন করা হবে সে পাত্রে প্রথমে ঘি দিয়ে আলাদা করে ভেজে রাখা সেমাই টুকু দিতে হবে। তার উপর ক্রিমের মিশ্রণ দিতে হবে। অবশেষে, জর্দার রং দিয়ে ভেজে রাখা সেমাই ক্রিমের উপর দিতে হবে। বাড়তি সৌন্দর্য এবং খাবারের স্বাদ বাড়াতে উপরে বাদাম এবং কিশমিশ দিয়ে পরিবেশন করতে পারেন মজাদার, সুস্বাদ এই নওয়াবি সেমাই।


আরও খবর



ইয়াবা ও গাঁজায় আসক্ত ছিলেন স্পিডবোটের সেই চালক

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৭ মে ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৭ মে ২০২১ | ১১১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মাদারীপুর থেকে দেলোয়ার হোসাইন

মাদারীপুরের শিবচরে দুর্ঘটনার শিকার সেই অবৈধ স্পিডবোটটির চালক মো. শাহ আলম (৩৮) ইয়াবা ও গাঁজায় আসক্ত ছিলেন। শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে করা ডোপ টেস্টে এ তথ্য পাওয়া গেছে। দুর্ঘটনার পরে আশঙ্কাজনক অবস্থায় ওই চালককে শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পুলিশের নজরদারিতে চিকিৎসা নিচ্ছেন।

ডোপ টেস্টের বিষয়ে শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা শশাঙ্ক চন্দ্র ঘোষ বলেন, ডোপ টেস্টে স্পিডবোট চালকের রিপোর্ট পজিটিভ এসেছে। অর্থাৎ তিনি মাদকাসক্ত ছিলেন। রিপোর্ট অনুযায়ী তিনি এমফিটামিন (ইয়াবা) ও মারিজুয়ানা (গাঁজা) সেবনে আসক্ত। ডোপ টেস্টের রিপোর্ট প্রশাসনের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

স্বাস্থ্য বিভাগ ও জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, গত সোমবার স্পিডবোট দুর্ঘটনায় নিহত হয় ২৬ জন যাত্রী। এতে আহত হন স্পিডবোটের চালকসহ পাঁচজন। দুর্ঘটনার পরে অবৈধ স্পিডবোটের চালক মো. শাহ আলমকে গুরুতর অবস্থায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। পরে প্রশাসনের নির্দেশনায় ওই চালকের ডোপ টেস্টের নমুনা সংগ্রহ করে রাখা হয়। পরে আহত ওই চালককে উন্নত চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখান থেকে তাঁকে পাঠানো হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। বর্তমানে ওই চালক ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। ডোপ টেস্টের কিট মাদারীপুরে না থাকায় ঢাকা থেকে কিট সংগ্রহ করে স্বাস্থ্য বিভাগ।

তিনি আরও বলেন, স্পিডবোটচালকদের লাইসেন্স দেওয়ার আগে ডোপ টেস্ট বাধ্যতামূলক করা হবে। এমনকি নিয়মিত তাঁদের ডোপ টেস্ট করতে হবে। যাঁরা মাদকাসক্ত হবেন বা ডোপ টেস্টে পজিটিভ আসবেন, তাঁদের লাইসেন্স বাতিল করা হবে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, স্পিডবোটের চালক শাহ আলম নারায়ণগঞ্জের ফতুল্লা থানার ভাতা ঈদগাহপুর এলাকার আবুল কালামের ছেলে। সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত পড়ালেখা শেষ করে গাড়ি মেরামতের কাজ শুরু করেন শাহ আলম। প্রায় ১৮ বছর আগে শিমুলিয়ায় আসেন কাজের সন্ধানে। পরে যোগ দেন স্পিডবোট চালক হিসেবে। স্ত্রীর সঙ্গে বিচ্ছেদ হয়েছে। তাঁদের দুই সন্তান থাকে নানার বাড়িতে। শিমুলিয়া ঘাট এলাকায় শাহ আলম ভ্রাম্যমাণ বসবাস করতেন। নির্দিষ্ট কোনো ঠিকানা এখানে তাঁর নেই।

শাহ আলমের বিষয় জানতে চাইলে তাঁর বাবা আবুল কালাম মুঠোফোনে বলেন, শাহ আলম তাঁদের টাকা দিতেন না। ঠিকমতো কাজ করতেন না। ইচ্ছা হলে কাজে যেতেন, না হলে যেতেন না। সংসার করেছেন ১৪ বছর। পরে বউয়ের সঙ্গে বিচ্ছেদ হলে একাই ছিলেন। নিজের স্পিডবোট ছিল না। মাসিক বেতনে চাকরি করতেন। নিজের মতো থাকতেন। কাজ ছাড়া আর কী করতেন, তা জানাতেন না।

সেদিনের স্পিডবোট দুর্ঘটনায় স্বামী সন্তানকে হারালেও প্রাণে বেঁচে যান আদুরী বেগম। তিনি চালককে মাদকাসক্ত উল্লেখ করে বলেছিলেন, শিমুলিয়া ঘাট থেকে যাত্রী বোঝাই করে স্পিডবোট ছাড়েন চালক। যাত্রার শুরু দিকেই নেশাগ্রস্ত অবস্থায় এলোমেলোভাবে স্পিডবোট চালাচ্ছিলেন তিনি। শুরুতে একবার স্পিডবোট চালকের ভুলে উল্টে যাচ্ছিল। চালকের কারণেই তিনি স্বামী-সন্তান হারিয়েছেন।

এদিকে স্পিডবোট দুর্ঘটনার পর ওই দিন রাতে মালিক, ইজারাদারসহ চারজনকে আসামি করে মামলা করে নৌ পুলিশ। ঘটনার চার দিন কেটে গেলেও এখন পর্যন্ত কোনো আসামিকে গ্রেফপ্তার করতে পারেনি পুলিশ।

 মামলাটির তদন্ত কর্মকর্তা চরজানাজাত নৌ পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক আল বলেন, মামলা হওয়ার পরে আমরা অভিযুক্তদের বাড়িতে রেইড দিই। কিন্তু আসামিরা কেউ বাড়িতে নেই। তাঁদের ধরতে পিআইবি, র‌্যাব, নৌ পুলিশসহ একাধিক টিম কাজ করছে। আশা করছি, খুব দ্রুতই তাঁদের গ্রেপ্তার করা হবে।

কর্মকর্তা আরোও জানান, দুর্ঘটনার শিকার ওই চালক ঢাকা মেডিকেলে পুলিশের নজরদারিতে চিকিৎসা নিচ্ছেন। চিকিৎসক জানিয়েছেন, তিনি এখনো শঙ্কামুক্ত নন। মাথায় গুরুতর আঘাত থাকায় কথাও বলতে পারছেন না তিনি।


আরও খবর



করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে ৪ হাজার ১২৬ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১ | ৩১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মহামারি করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউয়ে অনেকটা ভয়ংকর পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে ভারতে। এ ভাইরাসে দেশটিতে হাজার হাজার মানুষ আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছে। অক্সিজেনের অভাবে হাসপাতাল প্রাঙ্গণে অনেকের মৃত্যু হচ্ছে।

ইতোমধ্যে করোনায় গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতে ৪ হাজার ১২৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। যা গতকাল বুধবার এর থেকে কিছুটা কম। বুধবার দেশটিতে মৃত্যু হয়েছিল ৪ হাজার ২০০ জনের। আর বৃহস্পতিবার (১৩ মে) আক্রান্ত হয়েছে ৩ লাখ ৬২ হাজার ৪০৬ জন। যা বুধবারের তুলনায় প্রায় ১৪ বেড়েছে।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, বৃহস্পতিবার (১৩ মে) সকাল ৮টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তে দ্বিতীয় ও মৃত্যুতে তৃতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ৪ হাজার ১২৬ জন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট মৃত্যু হয়েছে ২ লাখ ৫৮ হাজার ৩৫১ জনের। এ ছাড়া গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ৬২ হাজার ৪০৬ জন। এ নিয়ে এখন পর্যন্ত মোট সংক্রমিত হয়েছেন ২ কোটি ৩৭ লাখ ২ হাজার ৮৩২ জন।

এদিকে, ওয়ার্ল্ডওমিটারের তথ্যানুযায়ী, বৃহস্পতিবার (১৩ মে) সকাল ৮টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে মারা গেছেন আরও ১৩ হাজার ৮২৬ মানুষ এবং নতুন করে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছেন প্রায় ৭ লাখ ৫০ হাজার ৬৫৬ জন। এ নিয়ে বিশ্বে মোট করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৩৩ লাখ ৪৫ হাজার ১৮ জনের এবং আক্রান্ত হয়েছেন ১৬ কোটি ১০ লাখ ৮০ হাজার ৫৮১ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৩ কোটি ৮৮ লাখ ৬৩ হাজার ৫১৮ জন।

করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনা সংক্রমিত হয়েছেন ৩ কোটি ৩৫ লাখ ৮৬ হাজার ১৩৬ জন। মৃত্যু হয়েছে ৫ লাখ ৯৭ হাজার ৭৮৫ জনের।


আরও খবর