আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

ইসরায়েলের ওপর আরও এক দেশের ভিসা নিষেধাজ্ঞা

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৮ ডিসেম্বর ২০২৩ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

ফিলিস্তিনের গাজা উপত্যকায় বর্বরোচিত হামলার ঘটনায় ইসরায়েলের ওপর ভিসা নিষেধাজ্ঞার ঘোষণা দিয়েছে বেলজিয়াম। ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে ইসরায়েলি বসতি স্থাপনকারীদের ওপর যুক্তরাষ্ট্র ভিসা নিষেধাজ্ঞা দেওয়ার পরই এমন ঘোষণা দিলো বেলজিয়াম।

টাইমস অব ইসরাইলের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

পশ্চিম তীরে ফিলিস্তিনিদের ওপর হামলাকারী ইসরায়েলি বসতি স্থাপনকারীদেরও বেলজিয়াম থেকে নিষিদ্ধ করা হবে বলে ঘোষণা দিয়েছেন বেলজিয়ামের প্রধানমন্ত্রী আলেক্সান্ডার দে ক্রো।

এক্সে এক পোস্টে বেলজিয়ামের প্রধানমন্ত্রী যুক্তরাষ্ট্রের সিদ্ধান্তের সঙ্গে সম্মতি জানিয়ে বলেন, বেসামরিকদের বিরুদ্ধে সহিংসতার পরিণতি এটাই।

আরও পড়ুন>> গাজা ইস্যুতে জাতিসংঘ মহাসচিবের বিরল পদক্ষেপ

হামাসের অতর্কিত হামলার পর ইসরায়েলের পক্ষে দাঁড়িয়েছিলেন বেলজিয়ামের প্রধানমন্ত্রী। তবে গাজায় হামলার বিষয়ে বেসামরিককে রক্ষা, জিম্মিদের মুক্তি এবং আন্তর্জাতিক মানবিক আইন মেনে চলার গুরুত্বের ওপর জোর দিয়েছেন তিনি।

আলেক্সান্ডার দে ক্রো নিশ্চিত করেছেন, বেলজিয়াম নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে সমন্বয় করবে এবং ইউরোপীয় ইউনিয়নের পক্ষে তা অনুসরণ করবে।

এর আগে, মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র ম্যাথিউ মিলার বলেন, গত ৭ অক্টোবরের পর থেকে ফিলিস্তিনের পশ্চিম তীরে বেসামরিক নাগরিকদের বিরুদ্ধে হিংসাত্মক কর্মকাণ্ড উদ্বেগজনকহারে বৃদ্ধি পেয়েছে। যারা সহিংসতার সঙ্গে জড়িত, তাদের ও পরিবারের ভিসা নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হবে বলে জানান মিলার।


আরও খবর



কুষ্টিয়ায় ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেল আরোহী মা-ছেলে নিহত

প্রকাশিত:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:শুক্রবার ০৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
কুষ্টিয়া প্রতিনিধি

Image

কুষ্টিয়ার কুমারখালীতে ট্রাকচাপায় মোটরসাইকেল আরোহী মা ও ছেলে ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আরও একজন গুরুতর আহত হয়েছেন। শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি) সন্ধ্যা সোয়া ৭ টার দিকে উপজেলার বাধবাজার এলাকায় এই দুর্ঘটনা ঘটে।

নিহতরা হলেন- কুমারখালীর পাইকপাড়া এলাকার সেনা সদস্য রহমত আলীর স্ত্রী সালমা খাতুন (৩০) ও তার ১১ বছর বয়সী ছেলে স্বরণ হোসেন। দুর্ঘটনায় ওই সেনা সদস্য গুরুতর আহত হন।

জানা গেছে, সেনা সদস্য রহমত আলী তার স্ত্রী ও ছেলেকে নিয়ে মোটরসাইকেলে করে কুষ্টিয়া শহরে যাচ্ছিলেন। পথে একটি দ্রুতগামী ড্রাম ট্রাকের সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এসময় ট্রাকের চাপায় ঘটনাস্থলেই মা ও ছেলে নিহত হয়। তবে মোটরসাইকেল থেকে লাফিয়ে পড়ে প্রাণে বেচে যান রহমত হোসেন।

এ বিষয়ে কুমারখালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আকিবুল ইসলাম বলেন, মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কুষ্টিয়া জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। পুরো ঘটনাটি তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এদিকে, মা-ছেলের মৃত্যুতে হাসপাতালে পরিবারটির আত্মীয়-স্বজনদের শোকের মাতম চলছে।


আরও খবর



অবশেষে নাভালনির মৃত্যুর কারণ জানিয়েছে কারা কর্তৃপক্ষ

প্রকাশিত:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

পুতিনের সমালোচক রাশিয়ার বিরোধী দলীয় নেতা অ্যালেক্সেই নাভালনির মৃত্যুর কারণ কারা কর্তৃপক্ষ। বিবিসির খবর অনুসারে, রাশিয়ার ইয়ামালো-নেনেতেস কারাগার কর্তৃপক্ষ কীভাবে নাভালনির মৃত্যু হয়েছে; সে বিষয়টি তার মাকে জানিয়েছে।

মৃত্যুর কারণ হিসেবে তারা সাডেন ডেথ সিন্ড্রোমকে উল্লেখ করেছে। যার অর্থ তার মৃত্যুটা আকস্মিকভাবে হয়েছে।

ব্রিটিশ হার্ট ফাউন্ডেশনের তথ্য অনুযায়ী, সাডেন ডেথ সিন্ড্রোম হলো একটি বিশেষ অবস্থা। এই সময় আক্রান্ত ব্যক্তির হার্ট অ্যাটাক হয় এবং কোনো লক্ষণ ও কারণ ছাড়া মৃত্যু হয়। কিন্তু সাডেন ডেথ সিন্ড্রোম হলে হার্ট অ্যাটাকের কারণ জানা যায় না।

সাধারণত হার্ট অ্যাটাক হলে হার্টে ও শরীরে রক্ত চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। এতে শ্বাস-প্রশ্বাস বন্ধ হয়ে যায় এবং ব্রেন সজাগ থাকার জন্য কোনো অক্সিজেন পায় না।

রাশিয়ার প্রধান বিরোধী নেতা অ্যালেক্সি নাভালনির জীবনের শেষ মুহূর্তের বিবরণ দিয়েছে ইয়ামালো-নেনেত্স কারা কর্তৃপক্ষ। এই কারাগারেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন তিনি।


আরও খবর



স্বাস্থ্যসেবা গ্রহণের সময় নাগরিকদের সতর্ক থাকার আহ্বান রাষ্ট্রপতির

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক

Image

ভুয়া চিকিৎসক ও স্বাস্থ্য প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে সংশ্লিষ্ট সবাইকে আরও সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়ে রাষ্ট্রপতি মো. সাহাবুদ্দিন বলেছেন, সরকার এরই মধ্যে এসবের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে শুরু করেছে। আশা করি, আপনারা এ ব্যাপারে সরকারকে সর্বাত্মক সহযোগিতা করবেন।

শনিবার (২৪ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর একটি হোটেলে চতুর্থ আন্তর্জাতিক বৈজ্ঞানিক সম্মেলন-২০২৪ এর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে দেওয়া বক্তব্যে রাষ্ট্রপতি এ কথা বলেন। বাংলাদেশ কার্ডিওভাসকুলার রিসার্চ ফাউন্ডেশন ও যুক্তরাষ্ট্রের ইন্টারভেনশনাল একাডেমি এ সম্মেলনের আয়োজন করে।

রাষ্ট্রপতি চিকিৎসকদের সংবেদনশীলতা ও উদারতার সঙ্গে রোগীদের চিকিৎসা করতে এবং রোগীর মর্যাদা ও গোপনীয়তা রক্ষায় সর্বোচ্চ যত্নবান হওয়ার আহ্বান জানান।

সাহাবুদ্দিন বলেন, চিকিৎসা বিজ্ঞান প্রতিনিয়ত পরিবর্তনশীল, যত নতুন নতুন রোগের আবির্ভাব হচ্ছে, চিকিৎসা বিজ্ঞান সেগুলোকে প্রতিরোধ করতে এগিয়ে যাচ্ছে।

চিকিৎসাবিষয়ক শিক্ষা, চিকিৎসা, সেবা ও গবেষণা কার্যক্রমে গতিশীলতা এবং উন্নত চিকিৎসা ব্যবস্থাপনার প্রশংসা করে রাষ্ট্রপতি বলেন, বিভিন্ন ধরনের রোগের প্রকৃতি মাথায় রেখে চিকিৎসা, শিক্ষা ও গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে।

হৃদরোগ, ক্যানসার, এইডসসহ অন্যান্য প্রাণঘাতী রোগ প্রতিরোধে সচেতনতা বৃদ্ধির প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি।

জনগণের দোরগোড়ায় সর্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে সরকারের নিরন্তর প্রচেষ্টার কথা উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, সরকারের লক্ষ্য প্রত্যেক নাগরিকের জন্য দূষণমুক্ত, পরিবেশবান্ধব স্বাস্থ্যকর জীবনযাপন নিশ্চিত করার মাধ্যমে কল্যাণমূলক সমাজ ও রাষ্ট্র গঠন করা।

দেশের সামগ্রিক স্বাস্থ্য ব্যবস্থার আরও উন্নয়ন নিশ্চিত করতে সরকারি, বেসরকারি খাত ও চিকিৎসকদের এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি।

দেশের বিশাল জনগোষ্ঠীকে মানসম্মত চিকিৎসা সেবা প্রদান চ্যালেঞ্জ উল্লেখ করে রাষ্ট্রপতি বলেন, সরকার উন্নত চিকিৎসাসেবার জন্য ইতোমধ্যে পদক্ষেপ নিয়েছে। দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে চিকিৎসাসেবা দেওয়ার ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দিতে হবে। তারা (গরীবরা) যেন চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত না হয় বা অর্থের অভাবে অবহেলিত না হয় তা নিশ্চিত করতে হবে।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণমন্ত্রী ডা. সামন্ত লাল সেন, বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশনের (বিএমএ) সভাপতি ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মো. শারফুদ্দিন আহমেদ, ইন্টারভেনশনাল একাডেমির কোর্স চেয়ারম্যান ডা. রাজেশ এম দেব, প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ এবং বাংলাদেশ কার্ডিওভাসকুলার রিসার্চ ফাউন্ডেশনের সভাপতি অধ্যাপক ডা. এস মোস্তফা জামান প্রমুখ।


আরও খবর
জানুয়ারিতে সড়ক দুর্ঘটনায় ৪৮৬ মৃত্যু

রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




টানা চতুর্থ মেয়াদে স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ৩০ জানুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

টানা চতুর্থ মেয়াদে জাতীয় সংসদের স্পিকার পদে নির্বাচিত হয়েছেন ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী। মঙ্গলবার (৩০ জানুয়ারি) দ্বাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিশেনে উপস্থিত সংসদ সদস্যদের কণ্ঠভোটে নির্বাচিত হন তিনি।

ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে বিকাল ৩টায় দ্বাদশ জাতীয় সংসদের প্রথম অধিবেশন শুরু হয়। অধিবেশনের শুরুতে পবিত্র কোরআন থেকে তেলাওয়াত করা হয়।

সংখ্যাগরিষ্ঠ দল আওয়ামী লীগ দ্বাদশ জাতীয় সংসদের স্পিকার হিসেবে একাদশ সংসদের স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীকে এবং ডেপুটি স্পিকার হিসাবে শামসুল হক টুকুকে মনোনীত করে।

২০০৯ সালে সংরক্ষিত নারী আসনের সদস্য হিসাবে জাতীয় সংসদে আসেন শিরীন শারমিন। মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব থেকে ২০১৩ সালে ৩০ এপ্রিল বাংলাদেশের প্রথম নারী স্পিকার নির্বাচিত হন তিনি। এরপর ২০১৪ সালে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ছেড়ে দেওয়া রংপুর-৬ (পীরগঞ্জ) আসন থেকে উপ-নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে আসেন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী।

এরপর একাদশ সংসদ নির্বাচনে দলীয় সভানেত্রী শেখ হাসিনা তার শ্বশুরবাড়ির এলাকা পীরগঞ্জের আসনটি নোয়াখালীর মেয়ে শিরীনকে ছেড়ে দেন। দ্বাদশ সংসদ নির্বাচনেও এ আসনে শিরীন শারমিনকে প্রার্থী করে আওয়ামী লীগ।

পেশায় আইনজীবী ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী ১৯৬৬ সালের ৬ অক্টোবর ঢাকায় জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা রফিকউল্লাহ চৌধুরী ছিলেন স্বাধীনতার পর প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একান্ত সচিব। তার মা অধ্যাপক নাইয়ার সুলতানা বাংলাদেশ কর্ম কমিশনের সদস্য ছিলেন। তার নানা সিকান্দার আলী ছিলেন পূর্ব পাকিস্তান হাইকোর্টের বিচারপতি।

১৯৮৯ সালে প্রথম শ্রেণিতে প্রথম স্থান নিয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এল এল বি (অনার্স) এবং ১৯৯০ সালে ওই স্থান অটুট রেখেই এলএলএম ডিগ্রি নেন শিরীন শারমিন। ২০০০ সালে এসেক্স ইউনিভার্সিটি থেকে পিএইচডি করেন।

এরপর ১৯৯২ সালে বার কাউন্সিলের আইনজীবী হিসাবে তালিকাভুক্ত হন শিরীন। ১৯৯৪ সালে হাইকোর্ট বিভাগ ও ২০০৮ সালে আপিল বিভাগে অন্তর্ভুক্ত হন।


আরও খবর
জানুয়ারিতে সড়ক দুর্ঘটনায় ৪৮৬ মৃত্যু

রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




কোকেন উদ্ধার মামলায় পেরুর নাগরিকের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আদালত প্রতিবেদক

Image

১১ বছর আগে রাজধানীর কারওয়ান বাজারস্থ বেস্ট ওয়েষ্টর্ন হোটেল লাভিঞ্চি থেকে তিন কেজি কোকেন উদ্ধারের মামলায় পেরুর নাগরিক গাজাসিটাল ভারাডো জুয়ান পাবলোররাফেল নামে এক পেরু নাগরিককে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড অনাদায়ে তিন মাসের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। এছাড়া মোহাম্মদ মোস্তফা আশরাফ নামে এক পাকিস্তানী নাগরিককে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

বুধবার (৭ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে ঢাকার তৃতীয় অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ শেখ ছামিদুল ইসলামের আদালত এ রায় দেন। মো. মোস্তফা, শামসুল হক, হালিমা খান সাদিয়া, সাবরিনা নাসরিন তানিয়া ও মো. আশরাফ নাসিমের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় খালাস পেয়েছেন।

রায় ঘোষণা আগে গাজাসিটাল ভারাডো জুয়ানকে কারাগার থেকে আদালতে হাজির করা হয়। রায় শেষে সাজা পরোয়ানা দিয়ে তাকে আবার কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়। আসামি তানিয়া জামিনে থেকে হাজিরা দেন। তবে অপর চার আসামি পলাতক রয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট আদালতের অ্যাডিশনাল পাবলিক প্রসিকিউটর সালাউদ্দিন হাওলাদার সাজার বিষয় নিশ্চিত করেন।

জানা যায়, ২০১৩ সালের ১১ জুন রাজধানীর তেজগাঁও এলাকায় গোপন সূত্রে খবর পেয়ে ওয়েস্টার্ন হোটেল লাভিঞ্চি হোটেলের সপ্তম তলায় উপস্থিত হন মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণের অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। ওই হোটেলের ৭০৭ নং রুমে ভিতরে প্রবেশ করে আসামিদের তল্লাশি করেন। এসময় পেরুর নাগরিক গাজাসিটাল ভারাডো জুয়ানের কাছে থাকা একটি ট্রাভেল ব্যাগের ভেতর থেকে তিন কেজি কোকেন জব্দ করা হয়।

এই ঘটনায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক মোফাজ্জল হোসেন বাদী মামলাটি দায়ের করেন।

মামলাটি তদন্ত করে ২০১৩ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের পরিদর্শক ওবায়দুল করীম ছয় আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র জমা দেন।

২০১৫ সালের ১৮ জুন আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরুর আদেশ দেন আদালত। মামলাটির বিচার চলাকালে আদাল ২৫ জন সাক্ষীর মধ্যে ১৫ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন।


আরও খবর