আজঃ শনিবার ২৩ অক্টোবর ২০২১
শিরোনাম

ইউপি নির্বাচন : দ্বিতীয় ধাপে ৩ বিভাগে আ.লীগের প্রার্থী যারা

প্রকাশিত:সোমবার ১১ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১১ অক্টোবর ২০২১ | ১৩৪০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আগামী ১১ নভেম্বর দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। নির্বাচনে সিলেট বিভাগ, রাজশাহী বিভাগের একটি ইউনিয়ন ও ঢাকা বিভাগের আটটি জেলায় মনোনীত প্রার্থীদের নামের তালিকা ঘোষণা করেছে আওয়ামী লীগ।

রোববার (১০ অক্টোবর) বিকেল ৪টায় প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের মুলতবি সভায় এ নামের তালিকা ঘোষণা করা হয়।

পরে রাতে আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের মুলতবি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সভাপতি শেখ হাসিনা। সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দ্বিতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনে সিলেট বিভাগ, রাজশাহী বিভাগের একটি ইউনিয়ন ও ঢাকা বিভাগের আটটি জেলার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে মনোনীত প্রার্থীদের নামের তালিকা নিম্নে দেওয়া হলো।

ঢাকা বিভাগ

ঢাকা জেলার ধামরাই উপজেলার কুশুরা ইউপিতে নূরুজ্জামান আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন। টাঙ্গাইল জেলার ধনবাড়ী উপজেলার বীরতারাতে আহাম্মদ আল ফরিদ, বানিয়াজানে রফিকুল ইসলাম তালুকদার, যদুনাথপুরে মীর ফিরোজ আহমেদ, পাইস্কাতে মুহাম্মদ আব্দুল মান্নান, ধোপাখালীতে আকবর হোসেন, মুশুদ্দিতে আবুল কায়ছার, বলিভদ্রে রফিকুল ইসলাম তালুকদার। সখিপুর উপজেলার যাদবপুরে এ, কে, এম আতিকুর রহমান, বহরিয়াতে গোলাম কিবরিয়া, বহেরাতৈলতে ওয়াদুদ হোসেন, কাকড়াজানে তারিকুল ইসলাম। দেলদুয়ার উপজেলার আটিয়াতে মাসুদুল হাসান তালুকদার, দেউলীতে দেঃ তাহ্ মিনা, পাথরাইলে রামপ্রসাদ সরকার, লাউহাটিতে হাবিবুর রহমান, দেলদুয়ারে মাসুদ-উজ্জামান খান, ডুবাইলে ইলিয়াছ মিয়া, এলাসিনে বেলায়েত হোসেন, ফাজিলহাটিতে শওকত আলী আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন।

মুন্সীগঞ্জ জেলার শ্রীনগর উপজেলার বাঘড়াতে নূরুল ইসলাম, ভাগ্যকুলে কাজী মনোয়ার হোসেন, রাড়িখালে বারী (বারেক), বারৈই খালীতে ফারুক হোসেন, কুকুটিয়াতে আক্তার হোসেন মিন্টু, তন্তরে জাকির হোসেন, আটপাড়াতে রকিবুল ইসলাম মাসুদ, পাটাভোগে মুন খান, বীরতারাতে আজিম খান, শ্যামসিন্ধিতে শফিকুল ইসলাম মামুন, ষোলঘরে আজিজুল ইসলাম, হাঁসাড়াতে আহসান হাবীব, শ্রীনগরে মোখলেছুর রহমান।

নরসিংদী সদর উপজেলার আলোকবালি ইউপিতে দেলোয়ার হোসেন সরকার, চরদিঘলীতে দেলোয়ার হোসাইন। রায়পুরা উপজেলার আমিরগঞ্জে শাহানা বেগম, বাঁশগাড়ীতে আশরাফুল হক, চরসুবুদ্ধিতে নাসির উদ্দিন, চরমধুয়াতে নূর আলম ফকির, হাইরমারাতে কবির হোসেন, মির্জানগরে হুমায়ুন কবির সরকার, মির্জারচরে ফিরুজ মিয়া, নিলক্ষাতে তাজুল ইসলাম, পাড়াতলীতে ফেরদৌস কামাল, শ্রীনগরে রিয়াজ মোর্শেদ খান।

রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার ছোটভাকলা ইউপিতে আমজাদ হোসেন, উজানচরে গোলজার হোসেন মৃধা।

ফরিদপুর জেলার সালথা উপজেলার রামকান্তপুর ইউপিতে আশরাফ আলী, যদুনন্দীতে আবদুর রব মোল্যা, গট্টিতে হাবিবুর রহমান লাবলু, ভাওয়ালে ফারুকউজ্জামান, সোনাপুরে খায়রুজ্জামান, আঠঘরে শহীদুল হাসান খান, মাঝারদিয়াতে আফছারউদ্দীন মাতুব্বর, বল্লভদীতে নুরুল ইসলাম। নগরকান্দা উপজেলার চরযশোরদীতে কামরুজ্জামান, পুরাপাড়ায় বেলায়েত হোসেন মিয়া, কোদালিয়া শহীদনগরে খোন্দকার জাকির হোসেন (নিলু), ফুলসুতীতে আরিফ হোসেন, কাইচাইলে মোস্তফা খাঁন, তালমাতে রনজিৎ কুমার মন্ডল, রামনগরে মান্দার ফকির, ডাঙ্গীতে কাজী আবুল কালাম, লস্করদিয়াতে এসকেন্দার মাতুব্বর।

গোপালগঞ্জ জেলার কাশিয়ানী উপজেলার মহেশপুরে লুৎফর রহমান মিয়া, পারুলিয়াতে মকিমুল ইসলাম, মাহমুদপুরে মাসুদ রানা, সাজাইলে কাজী জাহাঙ্গীর আলম, কাশিয়ানীতে মশিউর রহমান খান, রাতইল বিতে এম হারুন অর রশিদ পিনু, রাজপটে মিল্টন মিয়া।

মাদারীপুর জেলার কালকিনি উপজেলার বাঁশগাড়ীতে আবদুল্লাহ আল মামুন, লক্ষ্মীপুরে মজিবর রহমান মোল্যা, চর দৌলতখানে চাঁন মিয়া সিকদার, শিকারমঙ্গলে সিরাজুল আলম মৃধা, কয়ারিয়াতে জাকির হোসেন, সাহেবরামপুরে কামরুল আহ্সান সেলিম, রমজানপুরে বি এম মিল্টন ইব্রাহীম, আলীনগরে সাহীদ পারভেজ, বালিগ্রামে ইসতিয়াক হোসেন খান, নবগ্রামে বিভূতি ভূষণ বাড়ৈ, কাজীবাকাইতে সাইদুল ইসলাম, ডাসারে রেজাউল করিম শিকদার, গোপালপুরে দেলোয়ার হোসেন।

শরীয়তপুর সদর উপজেলার চন্দ্রপুরে আবদুস সালাম খান, চিতলিয়াতে হারুন-অর-রশিদ, আংগারিয়াতে আসমা আক্তার, ডোমসারে মিজান মোহাম্মদ খান, পালংএ আবুল হোসেন দেওয়ান, তুলাসারে জামাল হোসাইন, রুদ্রকরে সিরাজুল ইসলাম, বিনোদপুরে আব্দুল হামিদ সাকিদার, শৌলপাড়াতে আলমগীর হোসেন খান, মাহমুদপুরে শাহ আলম।

সিলেট বিভাগ

হবিগঞ্জ জেলার আজমিরীগঞ্জ উপজেলার আজমিরীগঞ্জ ইউপিতে মোবারুল হোসেন, বদলপুরে সুষেনজিৎ চৌধুরী, জলসুখাতে শাজাহান মিয়া, কাকাইলছেওতে মিসবাহ উদ্দিন ভূঁইয়া, শিবপাশাতে তফছির মিয়া।

মৌলভীবাজার জেলার জুড়ী উপজেলার জায়ফরনগরে মোহাম্মদ জায়েদ আনোয়ার চৌধুরী, পশ্চিম জুড়ীতে শ্রীকান্ত দাশ, পূর্ব জুড়ীতে আবদুল কাদির, গোয়ালবাড়ীতে শাহাব উদ্দিন আহমদ, সাগরনালে আবদুল নূর।

সিলেট সদর উপজেলার জালালাবাদ ইউপিতে মোহাম্মদ ওবায়দুল্লাহ ইছাহাক, হাটখোলাতে মুশাহিদ আলী, মোগলগাঁওতে হিরন মিয়া, কান্দিগাঁওতে নিজাম উদ্দিন। কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার ইসলামপুর পূর্ব ইউপিতে মুল্লুক হোসেন, তেলিখালে নুর মিয়া (চেয়ারম্যান), ইছাকলসে এখলাসুর রহমান, উত্তর রণিখাইতে ফয়জুর রহমান, দক্ষিণ রণিখাইতে ইকবাল হুসেন ইমাদ। বালাগঞ্জ উপজেলার পূর্ব পৈলনপুরে শিহাব উদ্দিন, বোয়ালজুড়ে আনহার মিয়া, দেওয়ানবাজারে ছহুল আবদুল মুনিম, পশ্চিম গৌরিপুরে হাজী আমিরুল ইসলাম (মধু), বালাগঞ্জে জুনেদ মিয়া, পূর্ব গৌরিপুরে হিমাংশু রঞ্জন দাস।

সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক উপজেলার ইসলামপুরে আব্দুল হেকিম, ছাতকে রঞ্জন কুমার দাস, কালারুকতে অদুদ আলম, খুরমা উত্তরে বিল্লাল আহমদ, চরমহল্লাতে কদর মিয়া, খুরমা দক্ষিণে আবদুল মছব্বির, জাউয়াবাজারে নুরুল ইসলাম, দোলারবাজারে সায়েস্তা মিয়া, গোবিন্দগঞ্জ সৈদেরগাওতে সুন্দর আলী, ছৈলা আফজালাবাদে গয়াছ আহমদ। দোয়ারাবাজার উপজেলার মান্নারগাঁওতে অসিত কুমার দাস, পান্ডার গাঁওতে আবদুল ওয়াহিদ, দোহালিয়াতে আনোয়ার মিয়া আনু, লক্ষ্মীপুরে আবদুল কাদির, বোগলাবাজারে মোহাম্মদ মিলন খান, সুরমাতে এম এ হালিম বীর প্রতীক, বাংলাবাজারে মানিক মিয়া, নরসিংপুরে নুর উদ্দিন আহমদ, দোয়ারাবাজারে আবদুল হামিদ আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন।


আরও খবর



৪ দিন পর বেনাপোল বন্দরে বাণিজ্য সচল

প্রকাশিত:শনিবার ১৬ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৬ অক্টোবর ২০২১ | ৪৫৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শারদীয় দুর্গাপূজা উপলক্ষে চারদিন বন্ধ থাকার পর শনিবার (১৬ অক্টোবর) থেকে পুনরায় বেনাপোল-পেট্রোপোল বন্দরে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

বেনাপোল কাস্টমস কার্গো শাখার রাজস্ব কর্মকর্তা স্বপন কুমার দাস বিষয়টি নিশ্চিত করেন।

এ সময় তিনি জানান, ভারতে দুর্গাপূজার ছুটি থাকায় চলতি মাসের ১২ অক্টোবর থেকে ১৫ অক্টোবর পর্যন্ত দুই দেশের মধ্যে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য বন্ধ ছিল। ছুটি শেষে শনিবার সকাল থেকে পুনরায় এ পথে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য কার্যক্রম শুরু হয়েছে। এতে কর্মচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে দুই দেশের বন্দর এলাকায়।

বেনাপোল সিঅ্যান্ডএফ স্টাফ অ্যাসোশিয়েশনের ব্যাংক বিষয়ক সম্পাদক হায়দার আলী জানান, ভারতীয় সিঅ্যান্ডএফ নেতারা তাদের চিঠি দিয়ে জানিয়েছিলেন দুর্গাপূজা উপলক্ষে ১২-১৫ অক্টোবর পর্যন্ত চারদিন বেনাপোল-পেট্রোপোল বন্দরের মধ্যে সব ধরনের আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য বন্ধ থাকবে। সেই অনুযায়ী চারদিন বাণিজ্য বন্ধ থাকার পর শনিবার সকাল থেকে পুনরায় ওই দুই বন্দরের মধ্যে আমদানি-রপ্তানি বাণিজ্য সচল হয়েছে।

চারদিন বেনাপোল-পেট্রোপোল বন্দর বন্ধ থাকা সময়ে পাসপোর্ট যাত্রীদের চলাচল ছিল স্বাভাবিক।


আরও খবর
নাটকীয় উত্থানে ঘুরে দাঁড়াল পুঁজিবাজার

বৃহস্পতিবার ২১ অক্টোবর 20২১

নাটকীয় উত্থানে ঘুরে দাঁড়াল পুঁজিবাজার

বৃহস্পতিবার ২১ অক্টোবর 20২১




বুয়েটে ভর্তি পরীক্ষা-ক্লাসের সময় নির্ধারণ

প্রকাশিত:বুধবার ১৩ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৩ অক্টোবর ২০২১ | ৪২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী ২০ ও ২১ অক্টোবর প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষা নেওয়া হবে। চূড়ান্ত পরীক্ষা হবে ৬ নভেম্বর

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের স্নাতকে ভর্তি পরীক্ষা শুরু হবে আগামী ২০ অক্টোবর এবং ক্লাস শুরু হবে ১৩ নভেম্বর।

বুয়েটের ভর্তি পরীক্ষায় এবার প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হচ্ছে ভর্তির প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষা। এরপর চূড়ান্ত পরীক্ষার আয়োজন করা হবে।

বুধবার বুয়েটের ছাত্রকল্যাণ পরিচালক অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, আমরা চলতি মাসেই ভর্তি পরীক্ষা নিতে যাচ্ছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী ২০ ও ২১ অক্টোবর প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষা নেওয়া হবে। চূড়ান্ত পরীক্ষা হবে ৬ নভেম্বর।

তিনি বলেন, আগামী ১৩ নভেম্বর থেকে ক্লাস শুরু হবে। প্রথম এক সপ্তাহ অনলাইনে ক্লাস হবে। এরপর সবার দুই ডোজ টিকার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার শর্তে সশরীরে ক্লাস শুরু হবে।

গত ২ সেপ্টেম্বর উপাচার্যদের সংগঠন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের বৈঠকে ২০ ও ২১ অক্টোবর বুয়েটের প্রাথমিক বাছাই ও ৬ নভেম্বর চূড়ান্ত পরীক্ষা আয়োজনের প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। পরে একাডেমিক কাউন্সিলের বৈঠকে সেটি চূড়ান্ত করা হয়।

নিউজ ট্যাগ: বুয়েট

আরও খবর



খাবারের আশায় ছেলের বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ

প্রকাশিত:সোমবার ০৪ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০৪ অক্টোবর ২০২১ | ৬৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নওগাঁর নিয়ামতপুরে শুধু দুমুঠো ডাল-ভাত খেয়ে বেঁচে থাকার আশায় ছেলের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন ময়েজ উদ্দীন (৮০) নামে এক অসহায় বাবা।

সোমবার ওই বৃদ্ধ তার ছেলে মুনছের আলী (৩৫) ও পুত্রবধূ সুলতানা বেগমের (৩০) বিরুদ্ধে নিয়ামতপুর থানায় এ লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার পাঁড়ইল ইউনিয়নের দিঘীপাড়া (পশ্চিম পাহাড়) গ্রামের বাসিন্দা ময়েজ উদ্দীন বার্ধক্যজনিত কারণে বর্তমানে কর্মহীন হয়ে পড়েছেন। কিন্তু ছেলে ভরণপোষণ না দেওয়ায় এ বয়সে শুধু বাঁচার তাগিদে নিজেকেই নিজের খাবার রান্না করে খেতে হয়।

স্থানীয়রা জানান, ওই বৃদ্ধ বাবার প্রতি তার ছেলে খুবই উদাসীন। কোনো খোঁজখবর রাখে না তার। বৃদ্ধ বাবার সঙ্গে মাঝেমধ্যেই ছোটখাটো বিষয় নিয়ে তুমুল ঝগড়া করে ছেলে। বিষয়টি নিয়ে একাধিকবার গ্রাম্য সালিশও হয়েছে। তবে প্রতিকার হয়নি। অবশেষে নিরুপায় হয়ে ভরণপোষণের দাবিতে আইনের আশ্রয় প্রার্থনা করেছেন তিনি।

ভুক্তভোগী বাবা ময়েজ উদ্দীন ছেলের প্রতি আক্ষেপ করে জানান, যোগ্য কর্মক্ষম ছেলে থাকলেও না খেয়ে দিন কাটে তার। বয়সের ভারে কিছুই করতে পারেন না তিনি। সম্প্রতি তার ভরণপোষণও বন্ধ করে দিয়েছে ছেলে। পুত্রবধূর প্রতি কিছুটা ভরসা করলেও সেও তার ছেলের মতোই আচরণ শুরু করেছে এখন। যেদিন শরীর খুব খারাপ থাকে রান্না হয় না তার। উপোস থাকতে হয় সারাদিন। পাড়া-প্রতিবেশীরা খোঁজ নিয়ে কিছু দিলে পেটে যায় তার। সব মিলিয়ে অর্ধহারে-অনাহারে দিন কাটছে এখন। অসুখ-বিসুখ, চিকিৎসার কথা বলতেই দুই চোখ বেয়ে অশ্রু নামে তার।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, শুনেছি সরকার নাকি বৃদ্ধ পিতা-মাতার ভরণপোষণ নিশ্চিত করতে আইন করেছে। সেই ভরসায় শুধু দুমুঠো ডাল-ভাত খেয়ে বেঁচে থাকার আশায় ছেলের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছি।

নিউজ ট্যাগ: থানায় অভিযোগ

আরও খবর



হিলি সীমান্তে দুই বাংলার মানুষের মিলনমেলা

প্রকাশিত:শুক্রবার ১৫ অক্টোবর ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ১৫ অক্টোবর ২০২১ | ৫৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কাঁটাতারের বেড়া ভুখণ্ডকে আলাদা করলেও একই ভাষাভাষি দুই বাংলার মানুষের আত্মিক বন্ধন আলাদা করতে পারেনি। শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে দিনাজপুরের হিলি ইমিগ্রশন চেকপোস্টের সীমান্তের শূন্যরেখায় বাংলাদেশ ও ভারতের মানুষের মিলনমেলা সেটাই বলেছে। নির্দিষ্ট দূরত্ব মেনে দুই বাংলার মানুষ একে-অপরের সঙ্গে মনের ভাব বিনিময় করেছেন।

শারদীয় দুর্গোৎসবের মহাঅষ্টমী থেকে শুরু করে শুক্রবার দশমী পর্যন্ত সকাল থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত শূন্যরেখার দুইপ্রান্তের মানুষ ভিড় করেন। শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে দুই দেশে অবস্থান করা স্বজনরা সাক্ষাৎ ও কুশল বিনিময় করেন।

দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে প্রাইভেটকার, মাইক্রোবাসে করে হিলি সীমান্তের জিরো পয়েন্টে আসেন পরিবার-পরিজন নিয়ে। অপরদিকে ভারতের অভ্যন্তরেও বিভিন্ন স্থান থেকে মানুষজন আসেন ভারতের জিরোপয়েন্ট এলাকায়।

সীমান্তের কাঁটাতারের বেড়া, বিজিবি ও বিএসএফের কঠোর মনোভাবের কারণে এপার থেকে ওপারে যেতে না পারলেও শূন্যরেখার দুই পাশে দাঁড়িয়ে ভারত ও বাংলাদেশের স্বজনরা একে অপরের সঙ্গে ভাব বিনিময়, ছবি তোলেন, সুঃখ-দুঃখ ভাগাভাগি করেন।

হিলি সীমান্তের জিরোপয়েন্টে আসা দিনাজপুর সদর উপজেলার সলিল বসাক জানান, পশ্চিমবঙ্গের গঙ্গারামপুর এলাকায় তার মামার বাড়ি। প্রতিবছর দুর্গাপূজায় হয় তারা ভারতে যান অথবা তার মামার বাড়ির লোকজন বাংলাদেশে আসেন। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির জন্য গত বছর থেকে যাওয়া-আসা বন্ধ। তাই এবার দুর্গাপূজায় মোবাইলে যোগাযোগ করেই হিলি সীমান্তের জিরোপয়েন্টে এসেছেন একনজর মামার বাড়ির লোকজনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে ও কুশল বিনিময় করতে। সীমান্তে আসা অনেকেই একই রকম কথা জানান।

হিলি ইমিগ্রেশন চেকপোস্টের ওসি সেকেন্দার আলী বলেন, স্থলবন্দর ও ইমিগ্রেশন চেকপোস্টে দুই দেশের মানুষ স্বজনদের সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে আসেন নির্দিষ্ট দূরত্ব মেনেই। কিন্তু দুর্গাপূজা উপলক্ষে সীমান্তের দুই পাশে অনেকেই এসেছেন কুশল বিনিময় করতে।

কর্তব্যরত সীমান্তরক্ষী বাহিনীর আরেক সদস্য জানান, দূর থেকে হলেও আত্মীয়স্বজনদের সঙ্গে একটু দেখা করার জন্য লোকজন এসেছেন। তবে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা যাতে না ঘটে সে ব্যাপারে সতর্ক রয়েছেন তারা।


আরও খবর
মসজিদ থেকে জঙ্গি সন্দেহে আটক ৪৫

শুক্রবার ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১




মধ্যরাতে ভারতের উপকূল অতিক্রম করতে পারে ‘গুলাব’

প্রকাশিত:রবিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১ | ৬০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ঘূর্ণিঝড় গুলাব ভারতের উত্তর অন্ধ্র প্রদেশ-দক্ষিণ উড়িষ্যা উপকূল অতিক্রম করতে পারে রোববার মধ্যরাতে। ২৬ সেপ্টেম্বর আবহাওয়া অধিদপ্তর বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

বলা হয়েছে, উত্তর-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর ও কাছাকাছি পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় গুলাব আরও পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে একই এলাকায় অবস্থান করছিল।

এটি রোববার সন্ধ্যা ৬টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৮৮৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৮৬৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে, মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৭০০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৭৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছিল।

এটি আরও পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে রোববার মধ্যরাত নাগাদ ভারতের উত্তর অন্ধ্র প্রদেশ-দক্ষিণ উড়িষ্যা উপকূল অতিক্রম করতে পারে।

ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৬২ কিলোমিটার যা দমকা বা ঝোড়ো হাওয়ার হাওয়ার আকারে ৮৮ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। ঘূর্ণিঝড়টির কেন্দ্রের কাছে সাগর খুবই উত্তাল রয়েছে বলে বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মোংলা এবং পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলেছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর।

উত্তর বঙ্গোপসাগরে অবস্থানরত মাছ ধরার নৌকা ও ট্রলারকে পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত উপকূলের কাছাকাছি থেকে সাবধানে চলাচল করতে বলা হয়েছে। সেইসঙ্গে তাদেরকে গভীর সাগরে বিচরণ করতে নিষেধ করা হয়েছে। মৌসুমি বায়ু বাংলাদেশের উপর কম সক্রিয় এবং উত্তর বঙ্গোপসাগরে মাঝারি অবস্থায় বিরাজ করছে।

রোববার সন্ধ্যা ৬টা থেকে আগামী ২৪ ঘণ্টার আবহাওয়ার পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও ঢাকা বিভাগের কিছু কিছু জায়গায় এবং রংপুরে, রাজশাহী, ময়মনসিংহ ও সিলেট বিভাগের দুএক জায়গায় অস্থায়ীভাবে দমকা হাওয়াসহ হালকা থেকে মাঝারি ধরনের বৃষ্টি বা বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে। সেইসঙ্গে দেশের দক্ষিণাঞ্চলের কোথাও কোথাও মাঝারি ধরনের ভারি বর্ষণ হতে পারে।

এ সময়ে সারাদেশে দিন এবং রাতের তাপমাত্রা ১ থেকে ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস কমতে পারে বলেও পূর্বাভাসে জানানো হয়েছে।

শনিবার সন্ধ্যা ৬টা থেকে রোববার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত গত ২৪ ঘণ্টা সারাদেশ প্রায় বৃষ্টিহীন। এসময় কক্সবাজারের সবচেয়ে বেশি বৃষ্টি হয়েছে, সেখানে ১৪ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে আবহাওয়া বিভাগ। তবে রাত ৮টার দিকে রাজধানীতে হঠাৎ ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যায়, এরপরই শুরু হয় বৃষ্টি। আধ ঘণ্টার মতো বৃষ্টির পর আবার থেমেও যায়।


আরও খবর
সারা দেশে বৃষ্টির পূর্বাভাস

বুধবার ২০ অক্টোবর ২০21