আজঃ মঙ্গলবার ২০ এপ্রিল ২০21
শিরোনাম

ঝুঁকিপূর্ণ জীবন নিয়ে কেন্দুয়া ব্রীজ পার হচ্ছে হাজার হাজার মানুষ

প্রকাশিত:বুধবার ০৭ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৭ এপ্রিল ২০২১ | ৭৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শ্রীপুর ( গাজীপুর ) থেকে সোহেল রানা:

একসময়ে ব্যবসা বাণিজ্যের অন্যতম প্রাণকেন্দ্র ছিলো গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলার বরমী বাজার । এ  বাজারে দিন ছাড়াও রাতের বেলায় ব্যবসায়ীক কাজে জমায়েত হয় হাজারো মানুষ। হাজারো মানুষের চলাচলের জন্য অর্ধ শতাব্দী আগে নির্মিত হয়েছিল এ ব্রীজ। এটি বরমী বাজারের নলজোড়া খালের উপর নির্মিত কেন্দুয়া ব্রিজ। বর্তমানে এর বিভিন্ন অংশ ভেঙ্গে পড়ায় ঝুঁকিতে পড়েছে ব্রীজ দিয়ে চলাচলকারী হাজারো জনতা। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এই ব্রিজটির উপর দিয়ে প্রতিদিন কয়েকশ ভারি যানবাহন এবং হাজার হাজার মানুষ চলাচল করে। যে কোন মুহূর্তে ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। বড় কোন দূর্ঘটনা ঘটার আগেই  সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের সুদৃষ্টি প্রত্যাশি বরমী বাজারের ভুক্তভোগী সকল জনগণ।

বিগত দিনে বরমী ইউনিয়ন তথা বাজারের রাস্তাঘাটের উন্নয়ন হলেও ঝুকিপূর্ণ এ ব্রীজটির কোন সংস্কার বা উন্নয়ন কোনটাই এখনো চোখে পড়েনি। যার কারণে এ ব্রীজটির সুফল থেকে বঞ্চিত হচ্ছে বরমীবাসী ও আশপাশের বিস্তীর্ণ এলাকার সাধারণ মানুষ।এমনিতেই  ব্রীজটির অবস্থা ভঙ্গুর প্রকৃতির, তার উপর এর ব্রীজটি দিয়ে প্রতিনিয়ত বালুবোঝাই ওভারলোড যানবাহন চলাচল করায় তা ঝুঁকির সর্বোচ্চ মাত্রা অতিক্রম করছে। আবার ব্রীজটির প্রশস্ততা এতোই সরু যে ব্রীজের ওপর একটি গাড়ি ওঠে গেলে সেখান দিয়ে একজন মানুষের হাঁটারও জায়গা থাকে না। ফলে এ ব্রীজটি এখন গণমানুষের মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। অনাকাঙ্ক্ষিত বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার আগেই ব্রীজটি সংস্কার করা কিংবা তা ভেঙ্গে পুনঃনির্মাণ করা একান্ত অপরিহার্য হয়ে পড়েছে। এছাড়াও বরমী বাজারের ব্যবসা-বাণিজ্যের গতিশীলতা আনয়নে ব্রীজটি সংস্কার কিংবা পুনঃনির্মান করা এখন সময়ের সবচেয়ে বড় চাহিদায় পরিণত হয়েছে বলে জানান ভুক্তভোগীরা ।

এই বরমী বাজারে রয়েছে কয়েক হাজার ছোট, মাঝারী, বড় ধরনের ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। কিন্তু ঝুকিপূর্ণ এই ব্রীজের কারণে এবং দ্বিতীয় বিকল্প  কোন রাস্তা না থাকায় বাজারের জৌলুস অনেকটা কমে যাচ্ছে। প্রায় ১০ বছর হয়ছে ব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ার পরও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ তা মেরামতের কোন উদ্যোগ গ্রহণ না করায় পথচারীদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে বলে জানান পথচারীরা ।

স্থানীয় ব্যবসায়ীরা জানান, ১৯৮০ সালের দিকে এই ব্রিজটি নির্মাণ করা হয়েছিল। বরমী বাজারের নলজোড়া খালের উপর ব্রিজটির বেহাল দশা।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ব্রিজটির রেলিং ভেঙ্গে যাওয়াসহ উপরের সিমেন্টের তৈরি পাটাতন ধ্বসে যাওয়ায় এ ব্রিজটি এখনো মরণ ফাঁদ। ঝুঁকি নিয়েই পার হতে হয় হাজারো মানুষের।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, ব্রিজটি মেরামতের জন্য সংশ্লিষ্ট দফতরের কোনো মাথা ব্যথাই নেই। মাঝে মধ্যে শুনি টেন্ডার হয়েছে, তবে মেরামত কবে হবে জানা নেই। বরমী ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের মেম্বার পদ-প্রার্থী নিজাম মোড়ল জানান, দীর্ঘ সাত বছর যাবৎ এ ব্রিজটি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে । আশা করা যাচ্ছে খুব দ্রুত  কতৃপক্ষ মেরামতের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে ।

বরমী বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক জহিরুল ইসলাম সরকার বলেন, এই ব্রিজটির  টেন্ডার হয়েছে আশা করি খুব শীঘ্রই কাজ শুরু হবে। 

বরমী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার হারুন খন্দকার জানান, ব্রীজটির জন্য টেন্ডার হয়েছে খুব শীঘ্রই ব্রীজটি আরো প্রসস্থ করে কাজ শুরু হবে। বরমী ইউনিয়নের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তোফাজ্জল বলেন, একাধিকবার এ ব্রিজ নিয়ে সাবেক চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আ.লীগের সভাপতির সাথে কথা বলেও কোনো কাজ হয়নি ।

শ্রীপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান এ্যাডভোকেট শামসুল আলম প্রধান বলেন, বরমী বাজারের এই ব্রিজটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এবং অতি দ্রুত ব্রিজটি সংস্কার করা হবে বলে জানান তিনি।


আরও খবর



বক্স অফিসে সুলতানের তোলপাড়

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০৫ এপ্রিল ২০২১ | ৮১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

তামিল তারকা কার্থি ও রশ্মিকা মন্দানার সুলতান সিনেমা দর্শকের মন জয় করেছে। প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পাওয়া এ রুরাল ড্রামা একই নামে তেলেগু ভাষায় মুক্তি পেয়েছে। আর বক্স অফিসে সংগ্রহও বেশ ভালো।

ভারতের বিনোদনভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ফিল্মিবিট ডটকমের খবর, তিন দিনে এ সিনেমার নেট কালেকশন ১৩.৭৫ কোটি রুপি (তামিল ভার্সন)। প্রথম দিন সংগ্রহ করে ৫.০৫ কোটি, দ্বিতীয় দিন ৩.৯০ কোটি ও তৃতীয় দিন ৪.৮০ কোটি রুপি। অন্যদিকে, তেলেগু ভার্সন সংগ্রহ করেছে ৩.৬০ কোটি রুপি। তামিল ও তেলেগু মিলিয়ে মোট সংগ্রহ দাঁড়িয়েছে ১৭.৩৫ কোটি রুপি।

ড্রিম ওয়ারিয়র পিকচার্সের ব্যানারে বাক্কিরাজ কন্নানের রচনা ও পরিচালনায় সিনেমাটি প্রযোজনা করেছেন এস আর প্রকাশ বাবু ও এস আর প্রভু। এতে কার্থি-রশ্মিকা ছাড়াও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় দেখা গেছে নেপোলিয়ন, লাল, যোগী বাবু, হারিশ পেরারি, রামচন্দ্র রাজু ও নবাব শাহকে।

নিউজ ট্যাগ: সুলতান

আরও খবর



৬০ শতাংশ বাড়তি ভাড়া নিতে চান বাস মালিকরা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ৩০ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ৩০ মার্চ ২০২১ | ৮৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সরকারি নির্দেশনা মেনে অর্ধেক যাত্রী নিয়ে বাস-মিনিবাস চালাতে রাজি মালিকরা। তবে সেক্ষেত্রে ৬০ শতাংশ বাড়তি ভাড়া নিতে চান তারা।

সোমবার (২৯ মার্চ) দিনগত রাতে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন কর্তৃপক্ষের সঙ্গে (বিআরটিএ) বৈঠকে এ দাবি জানান বাস মালিকরা।

রাতেই এ দাবি প্রস্তাব আকারে সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়ে পাঠিয়েছে বিআরটিএ। মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন এলে গণপরিবহনে অর্ধেক যাত্রী পরিবহন ও বাড়তি ভাড়া কার্যকর হবে।এর আগে করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে সোমবার আগামী দুই সপ্তাহের জন্য গণপরিবহনে অর্ধেক যাত্রী পরিবহনের নির্দেশ দেয় সরকার।

গত বছরও একই সিদ্ধান্ত নিয়েছিল সরকার। সে সময় দুই মাস বাস ভাড়া ৬০ শতাংশ বাড়িয়ে অর্ধেক যাত্রী পরিবহন করা হয়।

নিউজ ট্যাগ: বাস-মিনিবাস

আরও খবর



শিক্ষক নিবন্ধন মৌখিক পরীক্ষা স্থগিত

প্রকাশিত:শনিবার ০৩ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ০৩ এপ্রিল ২০২১ | ৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

লকডাউনের কারণে চলমান ১৬তম শিক্ষক নিবন্ধন মৌখিক পরীক্ষা রবিবার (৪ এপ্রিল) থেকে স্থগিত করা হয়েছে। লকডাউন যতদিন থাকবে ততদিন এ পরীক্ষা বন্ধ থাকবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে এনটিআরসিএ সচিব (উপসচিব) ড. এ.টি.এম. মাহবুব-উল করিম বলেন, আজ (শনিবার) মৌখিক পরীক্ষা চলছে। রবিবার যাদের মৌখিক পরীক্ষা ছিল তাদেরটা স্থগিত করা হয়েছে। যতদিন লডডাউন থাকবে ততদিন এ পরীক্ষা স্থগিত থাকবে।

তিনি বলেন, লকডাউনের কারণে শিক্ষক নিবন্ধনের অন্যান্য বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে দুপুরে একটি বৈঠক ডাকা হয়েছে।

জানা গেছে, গত বছর নভেম্বরে ১৬তম শিক্ষক নিবন্ধনের লিখিত পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ করা হয়। এতে মোট ২২ হাজার ৩৯৮ জন প্রার্থী উত্তীর্ণ হয়। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ প্রার্থীদের মৌখিক পরীক্ষা শুরু হয় ২ ডিসেম্বর থেকে। চলতি মাসের মধ্যে এ মৌখিক পরীক্ষা শেষ করে মে মাসের মধ্যে ১৬তম শিক্ষক নিবন্ধন পরীক্ষার ফল প্রকাশ করা কথা রয়েছে। তবে লকডাউনে দীর্ঘায়িত হলে এ পরীক্ষার চূড়ান্ত ফল পিছিয়ে যেতে পারে বলে জানা গেছে।


আরও খবর



লকডাউনে রিকশার রাজত্বে রাজধানী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৫ এপ্রিল ২০২১ | ৬৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনা সংক্রমণ মোকাবেলায় সারাদেশে চলছে এক সপ্তাহের কঠোর লকডাউন। কিন্তু লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে নানা অজুহাতে সড়কে যানবাহনসহ বেড়েছে সাধারণ মানুষের চাপ।

তবে ঢাকার সড়কগুলোতে রাজত্ব করছে রিকশা। এদিকে যানবাহন ও সাধারণ মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণের জন্য সড়কের মোড়ে মোড়ে বসানো হয়েছে চেকপোস্ট। মুভমেন্ট পাস থাকলেই চলাফেরা করতে দিচ্ছে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী।

বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) রাজধানীর সদরঘাট, গুলিস্থান, পল্টন, কাকরাইর, রামপুরা, বাড্ডা, প্রগতি সরণী, নতুনবাজার এলাকা ঘুরে এমন চিত্রই দেখা যায়।

সরেজমিনে দেখা যায়, লকডাউনের দ্বীতিয় দিন বৃহস্পতিবার  রাজধানীর সড়কে গাড়ির চাপ না থাকায় বেশির ভাগ সড়ক ছিলো ফাঁকা। তবে সড়কগুলোতে রিকশার রাজত্ব দেখা গেছে। প্রতিটা সড়কের মোড়ে মোড়ে বসানো হয়েছে পুলিশের চেকপোস্ট। তবে লকডাউনের মধ্যেও ব্যাংকসহ জরুরি যেসব অফিস খোলা রয়েছে সেসব প্রতিষ্ঠানের চাকরিজীবীরা রাস্তায় নেমে অফিসে পৌঁছাতে গিয়ে পড়েছেন বিপাকে।

এদিকে যাত্রী ছাড়া রিকশা দেখলেই আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা এসে রিকশা উল্টিয়ে দিচ্ছে, আবার রেকারে দিচ্ছে। পাশাপাশি সাধারণ যাত্রীদের কাছে মুভমেন্ট পাশ আছে কি দেখতে চাইছে। দেখাতে পারলে ছেড়ে দিচ্ছে নইলে রির্টান করছে বাসা বা জরিমানা করতে দেখা গেছে।

রিকশ চালক আনোয়ার জানান, ভোর থেকেই রাস্তায় রিকশা চালাচ্ছি। সকালের দিকে পুলিশ কিছু রিকশায় রেকার দিয়েছে, আবার কিছু রিকশা উল্টিয়ে রেখেছে। আমার রিকশাও উল্টিয়ে রেখেছিলো। দুই তিন ঘণ্টা পরে ছেড়ে দিয়েছে। আমরা গরিব মানুষ ভাই একদিন রিকশা না চালালে পরিবার নিয়ে না খেয়ে থাকতে হবে। রোজা রাখছি তাই ১টা পর্যন্ত রিকশা চালাবো। পড়ে বাসায় চলে যাবো।

এদিকে, রাজধানীর সড়কে ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালিত হচ্ছে। যারা বিনা কারণে বাইরে ঘোরাঘুরি করবেন, মুভমেন্ট পাস না নিয়ে বাইরে বের হবেন এবং স্বাস্থ্যবিধি মানবেন না তাদেরকে জরিমানা করা হচ্ছে। জরিমানার পাশাপাশি জনগণকে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাইরে না আসার জন্য এবং স্বাস্থ্যবিধি মানতে উদ্বুদ্ধও করছে র‍্যাব।


আরও খবর



জাতীয় স্মৃতিসৌধে বীর শহীদদের শ্রদ্ধা জানালেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত:শুক্রবার ২৬ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:শুক্রবার ২৬ মার্চ ২০২১ | ১৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উদযাপনে যোগ দিতে বাংলাদেশ সফররত ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন।

দুই দিনের সফরে শুক্রবার স্বাধীনতা দিবসের সকালে ঢাকায় পৌঁছান নরেন্দ্র মোদী। বিমানবন্দরে তাকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বিমানবন্দর থেকে সরাসরি সাভারে জাতীয় স্মৃতিসৌধে যান ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী। শহীদ বেদীতে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদনের পর বাঙালির স্বাধীনতাযুদ্ধের বীর শহীদদের স্মরণে তিনি কিছু সময় নীরবতা পালন করেন।

পরে স্মৃতিসৌধ প্রাঙ্গণে একটি অর্জুন গাছের চারা রোপণ এবং পরিদর্শন বইতে স্বাক্ষর করে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হন ভারতের প্রধানমন্ত্রী।

স্মৃতিসৌধে মোদীর শ্রদ্ধা নিবেদন ও গাছের চারা রোপণের ছবি টুইটারে শেয়ার করেছে ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর।


আরও খবর