আজঃ বুধবার ২৫ মে ২০২২
শিরোনাম

জনপদের সংবাদ | ফেনীতে বিশ্ব এইডস দিবস উপলক্ষে র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০১ ডিসেম্বর ২০২০ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৩৪০৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

জনপদের সংবাদ


আরও খবর



পেট্রলশূন্য ফিলিং স্টেশন, খোলা বাজারে প্রতি লিটার ১৪০ টাকা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১০ মে ২০২২ | ৫৮৫জন দেখেছেন

Image

ঠাকুরগাঁও প্রতিনিধি:

ঠাকুরগাঁওয়ে ফিলিং স্টেশনগুলোতে পেট্রল ও অকটেন পাওয়া যাচ্ছে না। এ নিয়ে বিশেষ করে চরম ভোগান্তিতে পড়েছেন মোটরসাইকেল চালকরা। কয়েকটি ফিলিং স্টেশনে অকটেন পাওয়া গেলেও ১০০ টাকার বেশী দেওয়া হচ্ছে না। এক ফিলিং স্টেশন থেকে আরেক ফিলিং স্টেশনে গেলেও পাওয়া যাচ্ছে না তেল। ফিলিং স্টেশন গুলোতে পেট্রল অকটেন না থাকলেও খোলা বাজারে পাওয়া যাচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, সদর উপজেলার বকসের হাট, রাজাগাঁও ঢোলারহাট ও ভগদগাজী বাজারে বোতলে করে বিক্রি করা হচ্ছে পেট্রল ও অকটেন। দুদিন আগেও যে তেলের বোতলটি বিক্রি হতো ১০০ টাকায় একই বোতলের দাম এখন ১৪০ টাকা। প্রতি লিটারে খোলা বাজারে ৪০ টাকা অতিরিক্ত মূল্যে বিক্রি করা হচ্ছে।

একদিকে ভোজ্যতেলের দাম বৃদ্ধি, অপরদিকে জ্বালানি তেলের অতিরিক্ত মূল্য। উপায় না পেয়ে চড়া দামে পেট্রল ও অকটেন কিনতে হচ্ছে যানবাহন চালকদের।

খোলা বাজারে তেল কিনতে আসা মোটরসাইকেল চালক আরিফ হোসেন বলেন, শহরের ফিলিং স্টেশনগুলোতে তেল পেলাম না। গাড়িতে তেল প্রায় শেষ। আরও ত্রিশ কিলোমিটার গাড়ি চালাতে হবে৷ খোলা বাজারে কিনলাম এক বোতল ১৪০ টাকা দামে৷ এক লিটার তেলে চল্লিশ টাকা বাড়তি দিয়ে কিনতে হলো। উপায় না পেয়েই কিনেছি৷ বাসায় যেতে হবে এজন্য। আরেক ক্রেতা আনোয়ার বলেন, সয়াবিন তেলের দাম বাড়লো, এবার পেট্রল অকটেন এর বাড়ানোর জন্য মিলছেনা। পাম্পে পেট্রল আর অকটেন নেই। তাহলে খোলা বাজারের দোকানদারেরা কোথা থেকে পাই? বোতলে করে বিক্রি করে তাও আবার ত্রিশ থেকে চল্লিশ টাকা বেশীতে। আমি বিষয়টি প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি৷

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক তেল বিক্রেতা জানান, আমার কাছে ৫০ লিটার পেট্রল রয়েছে। আমি একজনের কাছে প্রতি লিটার একশো বিশ টাকা করে কিনেছি। আমার যাতায়াত খরচ ও লাভসহ আমি প্রতি লিটার একশো চল্লিশ টাকা করে বিক্রি করছি। যারা বোতলে করে বিক্রি করছে তারা সবাই এইরকম দামে বিক্রি করছে পেট্রল ও অকটেন৷

ফিলিং স্টেশনগুলোতে কবে নাগাত পেট্রল ও অকটেন পাওয়া যাবে এ প্রশ্নের জবাবে ঠাকুরগাঁও পেট্রল পাম্প অনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি এনামুল হক জানান, ডিপোতে গাড়ি পাঠানো হয়েছে। স্বল্প সময়ের মধ্যে এ ভোগান্তি দূর হবে বলে আমরা আশা করছি৷

এবিষয়ে জানতে চাইলে ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর ঠাকুরগাঁওয়ের সহকারী পরিচালক শেখ সাদী জানান, আমরা অভিযান চালিয়ে যাচ্ছি। যারা অতিরিক্ত দামে বিক্রি করছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷


আরও খবর



পাকা কলার কেজি ৫০ টাকা

প্রকাশিত:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | ৩৭০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

তরমুজের পর এবার কলাও কেজি দরে বিক্রি শুরু হয়েছে। দিনাজপুরের হিলিতে ৫০ টাকা দরে কলা বিক্রি করছেন এক ব্যবসায়ী। নতুন এ পদ্ধতিতে অনেক ক্রেতাকেই ওই ব্যবসায়ীর কাছ থেকে কলা কিনতে দেখা গেছে।

শনিবার (১৪ মে) বিকেলে হিলি চেকপোস্টে গিয়ে দেখা যায়, জয়পুরহাটের জামালগঞ্জ থেকে আসা আশরাফ আলী ভ্যানের উপরে কলা সাজিয়ে দোকান বসিয়েছেন। দোকানে তিনি ওজন মাপার মেশিনে (ওয়েট মেশিন) দিয়ে কলার মাফ দিচ্চেন। ৫০ টাকা কেজি দরে কলা বিক্রি করছেন তিনি। এতে ১২ থেকে ১৩ টি কলা মিলছে ৫০ টাকা দরে।

জানা গেছে, হিলিতে বড় আকারের মালভোগ আর শফরি এক হালি (৪টি কলা) ৩০ থেকে ৪০ টাকা দরে বিক্রি করছেন ব্যবসায়ীরা। আর ছোট আকারের কলা বিক্রি হচ্ছে ২০ থেকে ৩০ টাকা হালিতে।

কলা কিনতে আসা আল-আমিন নামে এক ব্যক্তি বলেন, নতুন পদ্ধতিতে কলা বিক্রি হচ্ছে। এতোদিন হালি হিসেবে কলা কিনেছি, আজ (শনিবার) কেজি দরে কিনলাম। দেড় কেজি কলা কিনলাম, তাতে প্রায় সাড়ে ৪ হালি (১৮টি) কলা হয়েছে।

আব্দুল আজিজ নামে অপর একজন ক্রেতা বলেন, এতোদিন দেখে হালি হিসেবে কলা বিক্রি দেখতাম। এখন দেখছি কেজিতে বিক্রি। হাফ কেজি কলা কিনলাম ২৫ টাকা দিয়ে। এতে ৭ টির মতো কলা পেয়েছি।

কলা ব্যবসায়ী আশরাফ আলী বলেন, আমি দীর্ঘদিন ধরে হিলিতে কলার ব্যবসা করছি। মালভোগ, শবরি, সাগর, চিনিচাম্পা কলা হালি হিসেবে বিক্রি করতাম। কিন্তু দুইদিন হলো কেজি হিসেবে কলা বিক্রি শুরু করেছি। সমস্যা হচ্ছে না, অনেকেই কিনছেন।

হিলি বাজারের কলা ব্যবসায়ী নেপাল বলেন, বর্তমান কিছু ব্যবসায়ী কলা ওজন করে বিক্রি করছেন। ওজনে বিক্রি করলে ব্যবসায়ীর লাভ বেশি। আমি বড় আকারের কলা বিভিন্ন দামে হালি দরে বিক্রি করছি। যদি কেউ কেজি হিসেবে কিনতে চান আমি বিক্রি করবো। বড় আকারের মালভোগ কলা কেজিতে ৮০ টাকা দর হবে।


আরও খবর



দোনেতস্কে রাশিয়ার হামলায় নিহত ২১

প্রকাশিত:বুধবার ০৪ মে ২০২২ | হালনাগাদ:বুধবার ০৪ মে ২০২২ | ৩২৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পূর্ব ইউক্রেনের দোনেতস্ক অঞ্চলে রাশিয়ার হামলায় দেশটির ২১ জন বেসামরিক নাগরিক নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ২৭ জন। দোনেতস্কের গভর্নরের বরাত দিয়ে মঙ্গলবার (৩ মে) এক প্রতিবেদনে এই তথ্য জানিয়েছে কাতারভিত্তিক সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা।

টেলিগ্রামে দেওয়া এক বার্তায় দোনেতস্কের গভর্নর পাভলো কিরিলেনকো বলেন, অ্যাভদিভকা কোক প্ল্যান্টে রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর হামলা ও গোলাবর্ষণে কমপক্ষে ১০ জন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ১৫ জন।

কিরিলেনকো আরও বলেন, লাইমান শহরে রাশিয়ার হামলায় আরও পাঁচজন নিহত হয়েছেন। এছাড়া ভুগলেদার শহরে আরও চারজন নিহত হয়েছেন এবং ভেলিকা নোভোসিল্কা ও শানড্রিগোলোভ গ্রামে নিহত হয়েছেন দুজন।

তিনি বলেন, প্রায় এক মাস আগে ক্রামতোরস্ক শহরের একটি ট্রেন স্টেশনে রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর হামলায় ৫৯ জন নিহত হওয়ার পর থেকে রুশ আক্রমণে একদিনে এটিই সর্বোচ্চ মৃত্যুর সংখ্যা।

এদিকে ইউক্রেনের খেরসন অঞ্চলে রাশিয়ার সেনাদের হামলায় একজন নিহত হয়েছেন। কচুবিভস্কি রুরাল কমিউনিটি ফেসবুকে দেওয়া এক পোস্টে জানিয়েছে, খেরসন অঞ্চলে রাশিয়ার গোলাবর্ষণে একজন নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় আরহত হয়েছেন আরও চারজন।


আরও খবর



প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ | ৪১০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস আজ ১৭ মে (মঙ্গলবার)। ১৯৮১ সালের ১৭ মে দীর্ঘ নির্বাসন শেষে তিনি দেশের মাটিতে ফিরে আসেন।

১৯৮১ সালের এদিন বিকাল সাড়ে ৪টায় ইন্ডিয়ান এয়ারলাইন্সের একটি বোয়িং বিমানে ভারতের রাজধানী দিল্লী থেকে কলকাতা হয়ে তৎকালীন ঢাকা কুর্মিটোলা বিমানবন্দরে এসে পৌঁছান শেখ হাসিনা। ওই দিন বৈরী আবহাওয়া উপেক্ষা করে বঙ্গবন্ধু কন্যাকে একনজর দেখতে ছুটে আসেন লাখো মানুষ।

সেদিন মিছিলের শহরে পরিণত হয় রাজধানী ঢাকা। সকাল থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত চলে স্লোগান। ঝড়-বৃষ্টিও মিছিলের গতিরোধ করতে পারেনি।

সব প্রতিকূলতা উড়িয়ে তৎকালীন কুর্মিটোলা আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর ও শেরেবাংলা নগর পরিণত হয় জনসমুদ্রে।

দিবসটি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বাণী দিয়েছেন। বাণীতে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনকে বাংলাদেশের গণতন্ত্রের ইতিহাসে একটি মাইলফলক বলে উল্লেখ করেছেন তিনি।

দিবসটি উপলক্ষে আওয়ামী লীগসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন দেশব্যাপী কর্মসূচি নিয়েছে।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সপরিবারে নির্মম হত্যাকাণ্ডের শিকার হন। এ সময় তার দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা প্রবাসে থাকায় ঘাতকদের হাত থেকে রেহাই পান।

পরে ১৯৮১ সালের ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত দলের কাউন্সিলে শেখ হাসিনার অনুপস্থিতিতে তাকে আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত করা হয়। এরপর ১৭ মে দেশে ফেরেন তিনি।

বিমানবন্দরে স্বাগত জানানোর জন্য উপস্থিত প্রায় ১৫ লাখ মানুষের হৃদয়ছোঁয়া ভালোবাসার জবাবে সেদিন তিনি বলেছিলেন, বাংলার মানুষের পাশে থেকে মুক্তির সংগ্রামে অংশ নেওয়ার জন্য আমি দেশে এসেছি। আমি আওয়ামী লীগের নেত্রী হওয়ার জন্য আসিনি। আপনাদের বোন হিসেবে, মেয়ে হিসেবে, বঙ্গবন্ধুর আদর্শে বিশ্বাসী আওয়ামী লীগের কর্মী হিসেবে আপনাদের পাশে থাকতে চাই।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে তিনি বলেন, আজকের জনসভায় লাখো চেনামুখ দেখছি। শুধু নেই আমার প্রিয় পিতা বঙ্গবন্ধু, মা আর ভাইয়েরা এবং আরও অনেক প্রিয়জন।

শেখ হাসিনা বলেন, ভাই রাসেল আর কোনও দিন ফিরে আসবে না, আপা বলে ডাকবে না। সব হারিয়ে আজ আপনারাই আমার আপনজন।

শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এক বিবৃতিতে বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা ৭৫ পরবর্তী বাংলাদেশের হারানো গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার করেছেন। তার নেতৃত্বে বাঙালি জাতি ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণে এগিয়ে যাচ্ছে। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের হত্যাকাণ্ডের পর শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন একটি যুগান্তকারী ও তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা। তিনি গত চার দশকের বেশি সময় আওয়ামী লীগকে নেতৃত্ব দিয়ে যাচ্ছেন।

কর্মসূচি

দিবসটি উপলক্ষে মঙ্গলবার দেশের সকল মসজিদে দোয়া ও মিলাদ মাহফিল করবে আওয়ামী লীগ। একইসঙ্গে মন্দির, প্যাগোডা, গির্জাসহ সকল উপাসনালয়ে দেশব্যাপী বিশেষ প্রার্থনা অনুষ্ঠিত হবে।

এছাড়া দলটির উদ্যোগে সকাল ১১টায় রাজধানীর বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে এক আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হবে। সভায় জাতীয় নেতারা ও বরেণ্য বুদ্ধিজীবীরা বক্তব্য রাখবেন। 


আরও খবর



করোনায় মৃত্যু নেই, শনাক্ত ১৯

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৬ এপ্রিল ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৬ এপ্রিল ২০২২ | ৪৮৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যু হয়নি। এই সময়ে ১৯ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়েছে। মঙ্গলবার (২৬ এপ্রিল) স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পাঠানো করোনাবিষয়ক নিয়মিত বুলেটিনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় ৫ হাজার ২৬টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার শূন্য দশমিক ৩৮ শতাংশ।

এর আগে গতকাল সোমবার (২৫ এপ্রিল) সারাদেশে ২৭ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়। তবে এই সময়ে করোনায় কেউ মারা যাননি। দেশে এ পর্যন্ত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে ১৯ লাখ ৫২ হাজার ৬০২ জনে দাঁড়িয়েছে। আর মোট মৃত্যু হয়েছে ২৯ হাজার ১২৭ জনের।

উল্লেখ্য, ২০১৯ সালের শেষে চীনের উহানে প্রথম করোনার সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর কয়েক মাসের মধ্যে এ ভাইরাস সারা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে। দেশে প্রথম করোনা শনাক্ত হয় ২০২০ সালের ৮ মার্চ। আর প্রথম মৃত্যু হয় একই বছরের ১৮ মার্চ।


আরও খবর