আজঃ বুধবার ২৫ মে ২০২২
শিরোনাম

জনপদের সংবাদ | পাবনাতে চলছে স্বাস্থ্য সহকারী এসোসিয়েশন ও স্বাস্থ্য পরিদর্শক সমিতির কর্মবিরতি

প্রকাশিত:সোমবার ৩০ নভেম্বর ২০২০ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৩২৬৫জন দেখেছেন



আরও খবর



শ্রীলঙ্কায় জরুরি অবস্থা নিয়ে মার্কিন রাষ্ট্রদূতের উদ্বেগ

প্রকাশিত:রবিবার ০৮ মে ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ০৮ মে ২০২২ | ৩৩৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ক্রমবর্ধমান সরকারবিরোধী বিক্ষোভ মোকাবিলায় শ্রীলঙ্কায় জরুরি অবস্থা জারি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন দেশটিতে নিযুক্ত মার্কিন রাষ্ট্রদূত জুলি চুং। শ্রীলঙ্কার শান্তিপূর্ণ নাগরিকদের কথা মন দিয়ে শোনা দরকার বলে মন্তব্য করেছেন তিনি। তিনি বলেন, শ্রীলঙ্কানরা যে বিরূপ পরিস্থিতির মুখোমুখি হয়েছে তার দীর্ঘমেয়াদী সমাধান দরকার। জরুরি অবস্থা সমাধানে সাহায্য করবে না। খবর সিলন টুডের।

বিবিসি, এএফপি ও রয়টার্স জানিয়েছে, কয়েক দশকের মধ্যে সবচেয়ে তীব্র আর্থিক সংকট মোকাবিলায় ব্যর্থতার জন্য শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট ও সরকারের পদত্যাগের দাবিতে ধর্মঘট শুরু করেছেন দেশটির সরকারি ও বেসরকারি খাতের কর্মীরা। এ কারণে গতকাল শুক্রবার দেশটির দোকানপাট, স্কুল ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। এদিন শ্রীলঙ্কার রাজধানী কলম্বোতে সংসদ ভবনের বাইরে সরকারবিরোধী বিক্ষোভ ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ কাঁদানে গ্যাস এবং জলকামান ব্যবহার করছে। দেশের অর্থনৈতিক সংকটে সরকারের পদত্যাগ দাবি করে প্রায় পাঁচ হাজার প্রতিবাদকারী সংসদ ভবনের সামনে জড়ো হয়েছিলেন। শহরের অন্যত্রও হাজার হাজার মানুষ এই বিক্ষোভে অংশ নেন।

বিক্ষোভ মোকাবিলায় শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাকসে জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেন। এর মাধ্যমে নিরাপত্তা বাহিনীকে ব্যাপক ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। পাঁচ সপ্তাহের মধ্যে এ নিয়ে দ্বিতীয়বারের মতো জরুরি অবস্থা জারি করা হলো। শুক্রবার মধ্যরাত থেকে এটি কার্যকর হয়েছে। কলম্বো থেকে বিবিসি সংবাদদাতারা জানাচ্ছেন,  আন্দোলনকারীরা সরকারের বিরুদ্ধে কালো পতাকা দেখান। দেশের অর্থনৈতিক দুরবস্থার জন্য প্রেসিডেন্ট গোটাবায়া রাজাপাকসে ও তার ভাই প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপাকসের পদত্যাগ দাবি করে আসছেন। রাজাপাকসের পরিবার বেশ কয়েক বছর ধরে এই দ্বীপরাষ্ট্রটি শাসন করে আসছে।

প্রেসিডেন্টের এক মুখপাত্র বলেছেন, ট্রেড ইউনিয়নগুলো ক্রমবর্ধমান অর্থনৈতিক সংকটের কারণে রাষ্ট্রপ্রধানের পদত্যাগের দাবিতে শুক্রবার দেশব্যাপী সর্বাত্মক ধর্মঘট করার পর তিনি জনশৃঙ্খলা নিশ্চিত করতে কঠোর আইনের আহ্বান জানিয়েছেন। মাস খানেক ধরে বিদ্যুৎ বিপর্যয় এবং খাদ্য, জ্বালানি ও ওষুধের তীব্র ঘাটতিতে ২ কোটি ২০ লাখ মানুষের দ্বীপ দেশটিতে ব্যাপক জনদুর্ভোগ দেখা দিয়েছে। ১৯৪৮ সালে স্বাধীনতার পর শ্রীলঙ্কায় এমন দুর্দিন আর দেখা যায়নি।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার থেকে রাজধানী কলম্বোর কৃত্রিম একটি দ্বীপে অবস্থিত পার্লামেন্টের দিকে যাওয়ার রাস্তা আটকে দিয়ে হাজার হাজার বিক্ষোভকারী ছাত্র ক্যাম্প বসায়। নিরাপত্তা বাহিনী টিয়ার গ্যাসের শেল এবং দুটি ট্রাক থেকে জলকামান নিক্ষেপ করেও তাদের হটাতে পারেনি।

নিউজ ট্যাগ: শ্রীলঙ্কা

আরও খবর



আমাকে হত্যার ষড়যন্ত্র চলছে: ইমরান খান

প্রকাশিত:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | ৪০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

পাকিস্তানের ক্ষমতাচ্যুত প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেছেন, দেশের ভেতর ও বাইরের একাধিক চক্র এখনও তাকে হত্যার ষড়যন্ত্র চালিয়ে যাচ্ছে। তিনি এ সংক্রান্ত একটি ভিডিও রেকর্ড করার দাবি করেছেন, যেখানে তিনি সব হুমকিদাতা ও ষড়যন্ত্রকারীর নাম ও প্রমাণ তুলে ধরেছেন।

পাকিস্তানের পূর্বাঞ্চলীয় পাঞ্জাব প্রদেশের শিয়ালকোট শহরে শনিবার তেহরিক-ই-ইনসাফ পার্টি আয়োজিত এক বিশাল জনসমাবেশে দেওয়া ভাষণে এসব কথা বলেন ইমরান খান।

পাকিস্তানের সাবেক এ প্রধানমন্ত্রী বলেন, তিনি একটি ভিডিও রেকর্ড করে নিরাপদ স্থানে রেখে দিয়েছেন। যদি কখনও তার জীবনের জন্য হুমকি সৃষ্টি হয়; কিংবা তিনি নিহত হন, তখন এ ভিডিও প্রকাশ করা হবে।

ওই ভিডিওতে তিনি তার সরকার উৎখাত ও তাকে হত্যা করার ষড়যন্ত্রে জড়িত ব্যক্তিদের নাম প্রমাণসহ তুলে ধরেছেন।

পাকিস্তানের বিচারের বিভাগের কড়া সমালোচনা করে ইমরান খান বলেন, বর্তমান প্রধানমন্ত্রী এবং তার ছেলে ও পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রীসহ এ সরকারের সব মন্ত্রী দুর্নীতিতে জড়িত।

ইমরান খান নিজের সরকারকে দুর্নীতিমুক্ত হিসেবে দাবি করে বলেন, তিনি দেশকে চুরি ও লুটপাটমুক্ত করতে চেয়েছিলেন; কিন্তু ষড়যন্ত্রকারীরা তা সহ্য করেনি।

গত মাসে পাকিস্তানের পার্লামেন্টে এক অনাস্থাভোটে হেরে গিয়ে ক্ষমতাচ্যুত হন ক্রিকেটার থেকে রাজনীতিতে প্রবেশকারী ইমরান খান। তার চীন ও রাশিয়াঘেঁষা নীতিতে নাখোশ হয়ে আমেরিকাই নেপথ্যে থেকে এই সরকার পরিবর্তন প্রক্রিয়া ঘটিয়েছে বলে এর আগে অভিযোগ করেছেন ইমরান খান।

তার ক্ষমতাচ্যুতির পর পাকিস্তান মুসলিম লিগ (নাওয়াজ) নেতা শাহবাজ শরিফ প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন। শিয়ালকোটের সমাবেশে পাকিস্তানে অনতিবিলম্বে মধ্যবর্তী নির্বাচন দেয়ার দাবি জানিয়েছেন ইমরান খান।

তিনি হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, সরকার নির্বাচনের দাবি মেনে না নিলে ইসলামাবাদ অভিমুখে লাখো মানুষের লংমার্চ করা হবে।


আরও খবর



মারিউপোলের কারখানা থেকে উদ্ধার ইউক্রেনের সেনা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৭ মে ২০২২ | ৩৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

অবশেষে মারিউপলের স্টিল কারখানা থেকে ইউক্রেনের আহত সেনাদের উদ্ধারকাজ শুরু হলো। তাদের রাশিয়া-নিয়ন্ত্রিত অঞ্চলের হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে ডয়েচে ভেলে।

গত সপ্তাহে মারিউপোলের অ্যাজবস্টল স্টিল প্লান্ট থেকে বেসামরিক ব্যক্তিদের উদ্ধার করা হয়েছিল। রেডক্রস এবং জাতিসংঘের উপস্থিতিতে সেই কাজ হয়েছিল। উদ্ধার হওয়া ব্যক্তিদের কাছ থেকে জানা গেছিল, ওই কারখানার ভিতর আহত অবস্থায় আটকে আছে বেশ কিছু ইউক্রেনীয় সেনা। যারা দীর্ঘদিন ধরে ওই কারখানাকে বেস বানিয়ে রাশিয়ার সেনার সঙ্গে লড়াই চালিয়ে যাচ্ছিল।

ইউক্রেন আন্তর্জাতিক মঞ্চের কাছে ওই সেনাদের উদ্ধারের আবেদন করে। রাশিয়ার কাছেও যে কোনো শর্তে ওই সেনাদের উদ্ধারের আবেদন জানানো হয়। প্রাথমিকভাবে রাশিয়া তাতে রাজি না হলেও, শেষপর্যন্ত ইউক্রেনের দাবিতে সায় দেয়। সোমবার প্রথম ওই কারখানা থেকে বেশ কিছু ইউক্রেনের সেনাকে উদ্ধার করা হয়েছে বলে ইউক্রেনের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের তরফে জানানো হয়েছে।

সামরিক প্রধান জানিয়েছেন, অ্যাজবস্টলের কারখানা থেকে সোমবার ২৬০ জনকে উদ্ধার করা হয়। এদের মধ্যে বেশ কিছু সেনার অবস্থা আশঙ্কাজনক। তাদের সকলকেই রাশিয়ার দখলে থাকা পার্শ্ববর্তী শহরে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। সেখানে তাদের হাসপাতালে ভর্তিও করা হয়েছে। এখনো বেশকিছু সেনা কারখানায় আটকে আছেন বলে জানা গেছে। রাশিয়া জানিয়েছে, মঙ্গলবার তাদেরও উদ্ধার করা হবে।

সোমবার রাতে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি জানিয়েছেন, ওই সেনারা আমাদের হিরো। তাদের যেন কোনো রকম ক্ষতি না হয়। আমরা একজন সেনাকেও হারাতে চাই না।

প্রশ্ন উঠছে, উদ্ধার করা হলেও রাশিয়া ওই সেনাদের ইউক্রেনের হাতে তুলে দেবে কি! হাসপাতালে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হলেও পরবর্তী সময়ে ওই সেনাদের রাশিয়া যুদ্ধবন্দি করতে পারে বলেও কোনো কোনো মহল মনে করছে। তবে রাশিয়া এ বিষয়ে স্পষ্ট কোনো তথ্য দেয়নি। ইউক্রেনও এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেনি।


আরও খবর



ইউক্রেনে বেড়েছে অপরিণত শিশুর জন্ম

প্রকাশিত:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | হালনাগাদ:রবিবার ১৫ মে ২০২২ | ২৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

রাশিয়ার সঙ্গে চলমান যুদ্ধে মানসিক চাপে রয়েছেন ইউক্রেনের গর্ভবতী নারীরা। ফলে দেশটিতে বাড়ছে সময়ের আগে জন্ম নেওয়া শিশুর সংখ্যা। লাভিভের একটি প্রসূতি হাসপাতালে এখন পর্যন্ত ২শর বেশি অপরিণত শিশু জন্ম নিয়েছে।

গ্যালিনা গোলেট নামে এক ইউক্রেনীয় নারী কিছুদিন আগে লাভিভের প্রসূতি হাসপাতালে সন্তান জন্ম দিয়েছেন। তিনি জানান, নির্ধারিত সময় অনুযায়ী তার সন্তান একমাস পর ভূমিষ্ঠ হওয়ার কথা ছিল। আমার সন্তানকে এখন টিউবের মাধ্যমে খাবার দিতে হচ্ছে। বোতল থেকে খাবার নেওয়ার মতো সামর্থ্য তার নেই। তবে সে নিজে নিজে শ্বাস নিতে পারছে। আশা করছি সে ধীরে ধীরে শক্তি পাবে। গর্ভকালে শেষ সময়টাতে যুদ্ধের ভয়াবহ মানসিক চাপ বহন করতে হয়েছে তাকে।

হাসপাতালের স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ মারিয়া মালাচিনস্কা বলেন, আমাদের হাসপাতালে এখন পর্যন্ত ২শর বেশি অপরিণত শিশু জন্ম নিয়েছে। নির্ধারিত সময়ের আগে জন্ম নেওয়া এত শিশু এর আগে দেখিনি। তবে যুদ্ধবিধ্বস্ত অঞ্চলগুলোতে এই পরিস্থিতি আরও প্রকট বলে জানা গেছে। স্থানীয় চিকিৎসকদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী- যুদ্ধের প্রথম সপ্তাহে খারকিভে জন্ম নেওয়া প্রতি দুই শিশুর একটি ছিল অপরিণত।

মারিয়া মালাচিনস্কা বলেন, যেকোনো মানসিক চাপ গর্ভাবস্থায় প্রভাব ফেলে। সেখানে যুদ্ধের সূচনা তাদের জন্য বিশাল এক ধাক্কার মতো। এখন ভবিষ্যৎ কোনদিকে যাবে তা নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। পাশাপাশি যুদ্ধ বিধ্বস্ত বিভিন্ন অঞ্চলে জন্ম নেওয়া শিশুরা রোগ সংক্রমিত হওয়ার ঝুঁকিতে রয়েছে বলে জানান এই চিকিৎসক।

লাভিভের প্রসূতি হাসপাতালটিতে চিকিৎসা সরঞ্জামের তেমন সংকট নেই। যুদ্ধের আগেই সেখানে প্রয়োজনীয় সহায়তা পৌঁছেছে। এছাড়াও ইউরোপীয় ইউনিয়ন থেকেও সহযোগিতা পেয়েছে হাসপাতালটি। কিছুদিন আগেই সেখানে নতুন তিনটি ইনকিউবেটর এসে পৌঁছেছে। তবে সামনের দিনে কী হবে তা নিয়ে শঙ্কিত চিকিৎসক মালাচিনস্কা। তবে লাভিভের হাসপাতালটির মতো পরিস্থিতি সবগুলোর নয়। অনেক হাসপাতালে ইনকিউবেটর সংকট রয়েছে, যা অপরিণত শিশুদের বাঁচাতে অত্যাবশ্যকীয়। আর হাসপাতালে থাকলেও খুব একটা স্বস্তিতে নেই রোগী আর চিকিৎসকেরা। কেননা দেশটির চিকিৎসা স্থাপনাতেও হরহামেশা হামলার ঘটনা ঘটেছে। বার্তা সংস্থা এপির হিসাবে এই সংখ্যা ৪৯।

নিউজ ট্যাগ: ইউক্রেন

আরও খবর



বৃষ্টির মধ্যে পাটক্ষেতে নিয়ে গৃহবধূকে ধর্ষণ, শ্রমিক আটক

প্রকাশিত:সোমবার ২৩ মে ২০২২ | হালনাগাদ:সোমবার ২৩ মে ২০২২ | ৩৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মাদারীপুরের কালকিনিতে বৃষ্টির মধ্যে পাটক্ষেতে নিয়ে এক গৃহবধূকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে সোহরাফ সরদার (৪৫) নামে এক শ্রমিকের বিরুদ্ধে। এ অভিযোগে গতকাল রোববার বিকেলে তাকে আটক করেছে পুলিশ। আটক ওই শ্রমিক পৌর এলাকার সাদীপুর গ্রামের মজিদ সরদারের ছেলে।

পুলিশ ও ভুক্তভোগী পরিবারের অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, পৌর এলাকার সাদীপুর গ্রামের ওই গৃহবধূ গত শনিবার সকালে বৃষ্টির মধ্যে একা বাড়ির পাশের জমির ধান আনতে যান। এ সময় সোহরাফ সরদার তাকে পাটক্ষেতের ভেতর নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে গৃহবধূর চিৎকার শুনে স্থানীয় লোকজন ছুটে এলে সোহরাফ পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় ওই গৃহবধূ কালকিনি থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন। পরে থানা পুলিশ সোহরাফকে আটক করে। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কালকিনি থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) সুমন জানান, ধর্ষণের অভিযোগে সোহরাফকে থানায় এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।


আরও খবর