আজঃ বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১
শিরোনাম

জুম মিটিংয়ের কারণে কারাগারে যে সাজা পাবেন রফিকুল আমিন

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৭ জুলাই ২০২১ | ১৯১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বহুল আলোচিত বহুস্তর বিপণন কোম্পানি (এমএলএম) ডেসটিনি ২০০০ লিমিটেডের কর্ণধার মো. রফিকুল আমীন কারাগারে বসে ব্যবসায়িক বৈঠক করায় কারাবিধি লঙ্ঘন করেছেন। এ বিধি লঙ্ঘন করায় তাকে শাস্তির মুখোমুখি হতে হবে। ১ জুলাই রফিকুল আমীন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রিজন সেলে বসেই জুমে ব্যবসায়িক বৈঠক করেন।

বৈঠকের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে এ নিয়ে দেশজুড়ে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। এ ঘটনার পর রফিকুল আমীনের নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা প্রধান কারারক্ষীসহ আটজনকে প্রত্যাহার (ক্লোজড) করা হয়। রফিকুল আমীন জুম বৈঠক কীভাবে করলেন, তা খতিয়ে দেখতে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করে কারা অধিদপ্তর। সম্প্রতি রিপোর্টটি কারা মহাপরিদর্শকের (আইজি-প্রিজন্স) কাছে জমা দিয়েছে কারা অধিদফতরের তদন্ত কমিটি।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় রফিকুল আমীন গত ১১ এপ্রিল থেকে ২ জুলাই পর্যন্ত ৫ বার জুম মিটিং করেন। এর ফলে তিনি কারাবিধি ৭০৪(১) ও ৭০৫(৩)(৭)(৮)(৯)(৪৩) ধারা লঙ্ঘন করেছেন। এজন্য তার বিরুদ্ধে কারাবিধি মোতাবেক পদক্ষেপ গ্রহণের সুপারিশ করা হয়েছে।

এসব ধারা লঙ্ঘন করায় রফিকুল আমীন যেসব শাস্তি পেতে পারেন- জেলার শহরের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের মাধ্যমে শুনানি করে ৬ মাস থেকে ১ বছরের অতিরিক্ত সাজা, ডাণ্ডাবেড়ি পড়িয়ে রাখা, আনুষ্ঠানিকভাবে সতর্ক করা, আসামি সশ্রম কারাদণ্ডপ্রাপ্ত না হলেও তাকে দিয়ে ৭ দিন কঠোর পরিশ্রমের কাজ করানো, ৩ মাসের জন্য একঘরে করে রাখা, ৯৬ ঘণ্টার জন্য খাদ্যাভ্যাসে পরিবর্তন আনা।

প্রসঙ্গত, ২০১২ সালের ৩১ জুলাই রাজধানীর কলাবাগান থানায় ডেসটিনির কর্ণধার রফিকুল আমিন এবং প্রতিষ্ঠানটির চেয়ারম্যান মোহাম্মদ হোসেনসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে দুটি মামলা দায়ের করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এরপর ওই বছরের ১১ অক্টোবর গ্রেপ্তার হন রফিকুল আমিন ও মোহাম্মদ হোসেন।



আরও খবর



হাইতির প্রধানমন্ত্রীর ‘ষ্টেট অব সীজ’ ঘোষণা

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৮ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৮ জুলাই ২০২১ | ১০৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

হাইতির প্রধানমন্ত্রী দেশে ষ্টেট অব সীজ ঘোষণা করেছেন। দেশের বর্তমান নাজুক পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নির্বাহী ক্ষমতা বৃদ্ধির এই অনুমোদন দেয়া হয়েছে। দারিদ্র্যপীড়িত দেশটির প্রেসিডেন্ট সন্ত্রাসী হামলায় তার নিজ বাসায় নিহত হওয়ার মাত্র কয়েক ঘণ্টা পর প্রধানমন্ত্রী এই ঘোষণা দিলেন। খবর এএফপির।

প্রধানমন্ত্রী ক্লাউদ জোসেফ বলেন, সংবিধানের ১৪৯ অধ্যাদেশ প্রয়োগ করে আমি একটি বিশেষ মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে সভাপতিত্ব করছি মাত্র এবং সেখানে আমরা দেশব্যাপী ষ্টেট অব সীজ ঘোষণার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছি।

উল্লেখ্য, সন্ত্রাসী হামলায় নিহত হয়েছেন হাইতির প্রেসিডেন্ট জোভেনেল মইসি। দেশটির অন্তর্বর্তী প্রধানমন্ত্রী ক্লাউডি জোসেফ বুধবার এক বিবৃতিতে এ তথ্য নিশ্চিত করেন।

প্রেসিডেন্ট জোভেনেল মইসি তাঁর পোর্ট-অ-প্রিন্সের নিজস্ব বাসভবনে গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছেন।

এক বিবৃতিতে বলা হয়, সশস্ত্র একটি দল প্রেসিডেন্ট জোভেনেলের বাড়িতে মধ্যরাতে হামলা চালায় এবং তাঁকে গুলি করে হত্যা করে। হামলায় প্রেসিডেন্টের স্ত্রীও আহত হয়েছেন।

৫৩ বছর বয়সী জোভেনেল মইস তাঁর পূর্বসূরি মিশেল মার্টেলি পদত্যাগের পর ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি থেকে ক্ষমতায় ছিলেন। তাঁর আমলে দেশটি প্রায়ই সহিংস সরকারবিরোধী বিক্ষোভে জর্জরিত হয়েছে।


আরও খবর
ভারতে আবারও বেড়েছে মৃত্যু

বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১




বিশ্বে করোনায় মৃত্যু প্রায় ৪২ লাখ

প্রকাশিত:বুধবার ২৮ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২৮ জুলাই ২০২১ | ৯০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মহামারি করোনার ধাক্কা সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে পুরো বিশ্ব। করোনার নতুন নতুন ভ্যারিয়েন্টের কাছে বিশ্বের ক্ষমতাধর রাষ্ট্রগুলোও ধরাশায়ী। পৃথিবীজুড়ে টিকা কর্যক্রম চললেও থামছে না সংক্রমণের গতি। এখন পর্যন্ত বিশ্বে করোনায় মৃত্যু ছাড়িয়েছে ৪১ লাখ ৯২ হাজার। আর আক্রান্তের সংখ্যা ছাড়িয়েছে ১৯ কোটি ৫৯ লাখ।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারসের তথ্যানুযায়ী, বাংলাদেশ সময় বুধবার (২৮ জুলাই) সকাল ৬টা পর্যন্ত পূর্ববর্তী ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা ও সংক্রমণ বেড়েছে। এ সময় মারা গেছেন আরও ৯ হাজার ২৫৮ জন এবং আক্রান্ত হয়েছেন ৫ লাখ ৬২ হাজার ১২৯ জন।

বিশ্বে এখন পর্যন্ত মোট করোনায় মৃত্যু হলো ৪১ লাখ ৯২ হাজার ১৭৩ এবং আক্রান্ত হয়েছেন ১৯ কোটি ৫৯ লাখ ২১ হাজার ৭৯৫ জন। এদের মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৭ কোটি ৭৬ লাখ ২৫ হাজার ১২ জন।

করোনায় এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ও মৃত্যু হয়েছে বিশ্বের ক্ষমতাধর দেশ যুক্তরাষ্ট্রে। তালিকায় শীর্ষে থাকা দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৩ কোটি ৫৩ লাখ ৪২ হাজার ৭৫০ জন। মৃত্যু হয়েছে ৬ লাখ ২৭ হাজার ৩৭৯ জনের।

আক্রান্তে দ্বিতীয় ও মৃত্যুতে তৃতীয় অবস্থানে থাকা ভারতে এখন পর্যন্ত মোট সংক্রমিত হয়েছেন ৩ কোটি ১৪ লাখ ৮৩ হাজার ৪১১ জন এবং মোট মৃত্যু হয়েছে ৪ লাখ ২২ হাজার ৫৪ জনের।

আক্রান্তে তৃতীয় এবং মৃত্যুতে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত করোনায় এক কোটি ৯৭ লাখ ৪৯ হাজার ৭৩ জন সংক্রমিত হয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ৫ লাখ ৫১ হাজার ৯০৬ জনের।

আক্রান্তের দিক থেকে চতুর্থ স্থানে রয়েছে রাশিয়া। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬১ লাখ ৭২ হাজার ৮১২ জন। মারা গেছেন ১ লাখ ৫৫ হাজার ৩৮০ জন।

এ তালিকায় পঞ্চম স্থানে রয়েছে ফ্রান্স। দেশটিতে এখন পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছেন ৬০ লাখ ২৬ হাজার ১১৫ জন। এর মধ্যে মারা গেছেন ১ লাখ ১১ হাজার ৬৯৫ জন।

আক্রান্তের তালিকায় যুক্তরাজ্য ষষ্ঠ, তুরস্ক সপ্তম, আর্জেন্টিনা অষ্টম, কলম্বিয়া নবম ও ইতালি দশম স্থানে রয়েছে। এই তালিকায় বাংলাদেশের অবস্থান ২৬তম।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরের শেষ দিকে চীনের হুবেই প্রদেশের উহান থেকে করোনাভাইরাস সংক্রমণ শুরু হয়। এখন পর্যন্ত বাংলাদেশসহ বিশ্বের ২১৮টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে কোভিড-১৯।



আরও খবর
ভারতে আবারও বেড়েছে মৃত্যু

বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১




ভারতের পশ্চিমবঙ্গে বন্যায় ১৬ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১ | ৪৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য। পশ্চিমে বাঁকুড়া থেকে পূর্বে হাওড়া, সর্বত্র নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে বইতে শুরু করেছে। এতে প্লাবিত হয়েছে অসংখ্য এলাকা।

ভারতীয় গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, বাড়ি ভেঙে ও বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে এখন পর্যন্ত অন্তত ১৬ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। বাড়ি ছেড়ে আশ্রয় শিবিরে যেতে হয়েছে বহু মানুষকে।

গতকাল মঙ্গলবার মৃতদের পরিবারকে দুই লাখ রুপি ক্ষতিপূরণের ঘোষণা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। মন্ত্রী ও আমলাদের বন্যা কবলিত এলাকায় যাওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দক্ষিণ চব্বিশ পরগনা, বাঁকুড়া, হাওড়া, পশ্চিম মেদিনীপুর এবং দুই বর্ধমান।

হুগলিতে বন্যা কবলিতদের উদ্ধারে সেনাবাহিনীও নামাতে হয়েছিল। পাশাপাশি ড্রোনের সাহায্যে বিভিন্ন এলাকায় পরিদর্শন চালানো হচ্ছে। দেখা হচ্ছে, কোথাও কেউ আটকে পড়েছে কি না। সরকারের তরফ থেকে ত্রাণ দেওয়ার কাজও শুরু হয়েছে।

বিভিন্ন অঞ্চলে রাস্তার উপরে ত্রিপল টাঙিয়ে অস্থায়ী ত্রাণ শিবির তৈরি করা হয়েছে। স্কুল, কলেজেও ত্রাণ শিবির তৈরি হয়েছে।

সোমবার ঘাটালের প্লাবিত অঞ্চল পরিদর্শনে গেছেন রাজ্যের পঞ্চায়েতমন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়। সেচমন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্রও ছিলেন তার সঙ্গে। সুব্রত সেখানে থেকে অবস্থা পর্যালোচনা করবেন। মঙ্গলবার সেচমন্ত্রী হাওড়ায় উদয়নারায়ণপুরের পরিস্থিতি দেখতে গেছেন।

মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছেন, বিপর্যয় মোকাবিলা দল এরই মধ্যে জেলায় জেলায় পৌঁছেছে। তাদের মাধ্যমে আপাতত ত্রাণসামগ্রী পাঠানো হচ্ছে।


আরও খবর
ভারতে আবারও বেড়েছে মৃত্যু

বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১




অনুমতি পেলেই বাংলাদেশে টিকা উৎপাদন শুরু করবে চীন

প্রকাশিত:সোমবার ১২ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১২ জুলাই ২০২১ | ১২০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সরকারের অনুমতি পেলেই চীন বাংলাদেশে যৌথ টিকা উৎপাদন শুরু করতে প্রস্তুত বলে জানিয়েছেন ঢাকায় নিযুক্ত চীনের ডেপুটি চিফ অব মিশন হুয়ালং ইয়ান। সোমবার (১২ জুলাই) অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ-চায়না অ্যালামনাই (এবিসিএ) আয়োজিত এক ওয়েবিনারে এ কথা জানান তিনি।

চীনের ডেপুটি চিফ অব মিশন হুয়ালং ইয়ান বলেন, বাংলাদেশের সঙ্গে টিকার যৌথ উৎপাদন শুরু করতে চায় চীন। টিকার যৌথ উৎপাদনে প্রস্তুত চীন। বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে অনুমতি পেলে চীন টিকা উৎপাদন শুরু করবে।

চীনা কমিউনিস্ট পার্টির শতবছর পূর্তিতে আয়োজিত ওয়েবিনারে এবিসিএর প্রেসিডেন্ট সাবেক রাষ্ট্রদূত মুন্সি ফয়েজ আহমেদ স্বাগত বক্তব্য রাখেন। ওয়েবিনারে কি-নোট স্পিকার হিসেবে বক্তব্য রাখেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. সৈয়দ আনোয়ার হোসেন ও আলোচক হিসেবে বক্তব্য রাখেন নিরাপত্তা বিশ্লেষক ও সাবেক নির্বাচন কমিশনার এম সাখাওয়াত হোসেন।

এ সময় সিনোফার্ম থেকে বাংলাদেশ সরকারের কেনা ৫০ লাখ টিকা আগস্টের শুরুর দিকে আসতে পারে বলে জানান চীনের ডেপুটি চিফ অব মিশন।

এর আগে গত ৬ জুলাই হুয়ালং ইয়ান জানিয়েছিলেন, করোনাভাইরাসের টিকার যৌথ উৎপাদনে চীনা কোম্পানিগুলো বাংলাদেশের সঙ্গে কাজ করবে।

ওই দিন ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে চীনের ডেপুটি চিফ অব মিশন লেখেন, চীনা কোম্পানি আর অ্যান্ড ডি সংস্থা ভবিষ্যতে ভ্যাকসিন উৎপাদনে বাংলাদেশি অংশীদারদের সঙ্গে কাজ করবে। চীন বহু উন্নয়নশীল দেশের সঙ্গে যৌথ গবেষণা ও উন্নয়ন ও সমবায় উৎপাদন পরিচালনা করেছে এবং তৃতীয় পর্যায়ের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল পরিচালনায় বিদেশি দেশগুলোকে সহযোগিতা করার জন্য সংশ্লিষ্ট সংস্থাগুলোকে সমর্থন করেছে।

গত ৭ জুলাই পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন জানান, যৌথভাবে দেশে টিকা উৎপাদনে বাংলাদেশ অনেক দূর অগ্রসর হয়েছে। ড. মোমেন বলেছিলেন, আমরা টিকার যৌথ উৎপাদনের জন্য চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে কথা বলেছি। তাদের কাছে আমরা দেশে টিকা উৎপাদনে যাওয়ার প্রস্তাব রেখেছি। এটা নিয়ে আলোচনা অনেক দূর অগ্রসর হয়েছে। সবশেষ গত শনিবার পররাষ্ট্রমন্ত্রী এক ভিডিও বার্তায় জানান, চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে টিকার যৌথ উৎপাদনে আলাপ চলছে।


আরও খবর



ভারতের মহারাষ্ট্রে বন্যা-ভূমিধসে মৃতের সংখ্যা ১১২ ছাড়িয়েছে

প্রকাশিত:শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ২৪ জুলাই ২০২১ | ৬৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মহারাষ্ট্রে বৃষ্টিপাত এবং এর কারণে নানান জায়গায় হওয়া ভূমিধসের কারণে প্রাণ হারিয়েছে ১১২ জনেরও বেশি মানুষ। এরমধ্যে মুম্বাই থেকে ৭০ কিলোমিটার দূরে রায়গড় জেলাতেই ভূমিধসে ৩৬ জনের মৃত্যু হয়।

গত কয়েকদিন ধরেই চলমান বৃষ্টিপাতে রাজ্যের বেশ কিছু জেলায় বন্যা দেখা দেয়। তাতে হাজার হাজার মানুষ বন্যা ও ভূমিধসে আটকা পড়ে।

মহারাষ্ট্রের মন্ত্রী একনাথ শিন্ডে বলেন, তেত্রিশটি মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। এখনও ৫২ জন নিখোঁজ রয়েছেন। সকালে আবার উদ্ধার অভিযান শুরু করা হবে। ৩২টি ঘর পুরোপুরি ধ্বংস হয়ে গেছে।

পশ্চিম মহারাষ্ট্রের সাতারা জেলাতেও তীব্র আঘাত হেনেছে বন্যা। বন্যার পানিতে বেশ কয়েকজন ভেসে গেছে বলে পিটিআইকে জানিয়েছেন এক সরকারি কর্মকর্তা। সরকারি হিসেবে সেখানে প্রাণ হারিয়েছে ২৭ জন।

বাকি মরদেহগুলোর খোঁজ মিলেছে পূর্বের জেলাগুলো যেমন গন্ডিয়া ও চন্দ্রপুরে। অন্তত ৮৪ হাজার ৪৫২ জনকে পশ্চিম মহারাষ্ট্রের পুনে বিভাগে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। তাদের মধ্যে ৪০ হাজারই কোলহাপুর জেলার। অন্তত ৫৪ টি গ্রাম পুরোপুরি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

আহতদের সরকারি খরচে হাসপাতালে সেবা দেওয়া হচ্ছে। গত দুদিনের ভয়াবহ বৃষ্টিতেই মহারাষ্ট্রের রায়গড়, রত্নগিরি, পালঘর, থানে, সিন্ধুদূর্গ, কোলহাপুর, সাংলি ও সাতারা জেলায় ভয়াবহ বন্যা দেখা দেয়।


আরও খবর
ভারতে আবারও বেড়েছে মৃত্যু

বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১