আজঃ বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১
শিরোনাম
করোনার ডেল্টা প্লাসে প্রথম মৃত্যু মহাকাশে ভেসে খাবার খাচ্ছেন চীনা নভোচারীরা কলম্বিয়াকে ২-১ গোলে হারাল ব্রাজিল স্পেনের কারাগারে ম্যাকাফি অ্যান্টিভাইরাস আবিষ্কারকের ‘আত্মহত্যা’ আগস্টে মুক্তি পাচ্ছে চলচ্চিত্র ‘চিরঞ্জীব মুজিব’ গত ২৪ ঘণ্টায় রাজশাহীতে আরও ১৮ জনের মৃত্যু ‘আ.লীগ হীরার টুকরা, যতবার কেটেছে নতুন করে জ্যোতি ছড়িয়েছে’ উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তার নামে মিথ্যাচারের প্রতিবাদে মানববন্ধন স্বাক্ষর জালিয়াতি ও তথ্য গোপন করায় ছাত্র ইউনিয়নের দুই শীর্ষ নেতা বহিষ্কার ইতিহাসে আওয়ামী লীগ, বঙ্গবন্ধু, বাংলাদেশ ও শেখ হাসিনা সমার্থক হয়ে থাকবে: : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

কাল পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ, যেসব তথ্য জেনে রাখতে পারেন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৫ মে ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৫ মে ২০২১ | ১৮৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

গ্রহণ একটি বর্ণিল ও আকর্ষণীয় মহাজাগতিক ঘটনা। সে কারণেই গ্রহণকে ঘিরে গড়ে উঠেছে নানা ধরনের পর্যটন আকর্ষণ। আগামীকাল বুধবার ২৬ মে পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ। যেটি দেখা যাবে এশিয়ার কিছু কিছু অংশ, অস্ট্রেলিয়া, গোটা প্রশান্ত মহাসাগরীয় এলাকা এবং আমেরিকা থেকে।

২৬ মে, বিশেষ দিন। একইসাথে দেখা যাবে সুপারমুন আর পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ। দুয়ের এই যোগ ঘটে প্রতি আড়াই বছরে একবার। ১৪-১৫ মিনিট স্থায়ী হবে এই ঘটনা। আর এবছর ৪ বার সুপারমুন দেখা যাবে।

চন্দ্রগ্রহণের সময় চাঁদ পৃথিবীর খুব কাছে চলে আসে, ফলে চাঁদ স্বাভাবিকের চাইতে বড় ও উজ্জল দেখা যায়। এ কারণে একে সুপারমুন বলা হয়। এবারের সুপারমুন স্বাভাবিকের চেয়ে ১৫% উজ্জল ও ৪% বড় হবে বলে জোতির্বিজ্ঞানীরা বলছেন।

মে মাসে অনেক ফুল ফোটে। উত্তর গোলার্ধে এখন বসন্তকাল চলছে। তাই এবারের সুপার মুনকে বলা হবে সুপার ফ্লাওয়ার ব্লাড মুন। উপচ্ছায়ায় চাঁদের প্রবেশের মাধ্যমে গ্রহণটি শুরু হবে দুপুর পৌনে তিনটার পর। আকাশ পরিষ্কার থাকলে বাংলাদেশে চন্দ্রোদয়ের পর থেকে গ্রহণ শেষ হওয়া পর্যন্ত দেখা যাবে।

গ্রহণটি ঢাকায় সন্ধ্যা ৬টা ৪২ মিনিটে শুরু হয়ে শেষ হবে ৭টা ৫১ মিনিট ১৮ সেকেন্ডে। ময়মনসিংহে সন্ধ্যা ৬টা ৪২ মিনিট ৪২ সেকেন্ডে শুরু হয়ে শেষ হবে ৭টা ৫৩ মিনিটে। চট্টগ্রামে সন্ধ্যা ৬টা ৩২ মিনিট ১৮ সেকেন্ড শুরু হয়ে শেষ হবে ৭টা ৪২ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডে। সিলেটে সন্ধ্যা ৬টা ৩৭ মিনিট ১৮ সেকেন্ডে শুরু হয়ে শেষ হবে ৭টা ৪৭ মিনিট ৩৬ সেকেন্ডে। খুলনায় সন্ধ্যা ৬টা ৪২ মিনিটি ২৪ সেকেন্ডে শুরু হয়ে শেষ হবে ৭টা ৫২ মিনিট ৪২ সেকেন্ডে।

এছাড়া বরিশালে সন্ধ্যা ৬টা ৩৯ মিনিটে শুরু হয়ে শেষ হবে ৭টা ৫৩ মিনিট ১৮ সেকেন্ডে। রাজশাহীতে সন্ধ্যা ৬টা ৪৮ মিনিট ৫৪ সেকেন্ডে শুরু হয়ে শেষ হবে ৭টা ৫৯ মিনিট ১২ সেকেন্ডে ও রংপুরে গ্রহণ শুরু হবে সন্ধ্যা ৬টা ৪৯ মিনিট ৩০ সেকেন্ডে শুরু হয়ে শেষ হবে ৭টা ৫৯ মিনিট ৪৮ সেকেন্ডে।

কেন্দ্রীয় গ্রহণ শুরু হবে বিকেল ৫টা ১৮ মিনিট ৪২ সেকেন্ডে টোঙ্গা থেকে পূর্ব দিকে দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরে। পূর্ণগ্রহণ থেকে চাঁদের নির্গমন হবে বিকেল ৫টা ২৮ মিনিটে টোঙ্গার নুকুয়ালোফা দ্বীপ থেকে উত্তর-পূর্ব দিকে দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরে। প্রচ্ছায়া থেকে চাঁদের নির্গমন হবে সন্ধ্যা ৬টা ৫২ মিনিট ৪৮ সেকেন্ডে যুক্তরাষ্ট্রের লয়ালটি আইল্যান্ড থেকে দক্ষিণ দিকে দক্ষিণ প্রশান্ত মহাসাগরে। আর উপচ্ছায়া থেকে চাঁদের নির্গমন হবে সন্ধ্যা ৭টা ৫১ মিনিট ১৮ সেকেন্ডে ম্যাকাও থেকে পশ্চিম দিকে কোরাল দ্বীপে।

চন্দ্রগ্রহণ হয় যখন চাঁদ আর সূর্যের মাঝখানে থাকে পৃথিবীর অবস্থান। পৃথিবী তখন আলোর উৎস বন্ধ করে দেয়। এ সময় আমরা দেখি চাঁদের পিঠে পৃথিবীর ছায়া।

আইএসির একটি প্রশিক্ষণ পুস্তিকায় বলা হয়েছে, সূর্যগ্রহণ কেমন দেখা যাবে সেটা নির্ভর করছে যে দেখছে তার ভৌগলিক অবস্থানের ওপর। কিন্তু চন্দ্রগ্রহণের ক্ষেত্রে ঘটে উল্টোটা, পৃথিবীর যে কোন জায়গা থেকে এই গ্রহণ দেখা যাবে যদি গ্রহণের সময় চাঁদ দিগন্তের উপরে উঠে আসে।

এতে আরও বলা আছে, সূর্যগ্রহণে যেমন গ্রহণের বিভিন্ন পর্যায় নির্ভর করে, যে দেখছে তার ভৌগলিক অবস্থান অনুযায়ী, চন্দ্রগ্রহণে কিন্তু আপনি কোথায় আছেন সেটা বিবেচ্য হয় না- সব জায়গা থেকে গ্রহণের পর্যায়গুলো একইভাবে দেখা যায়।

চন্দ্রগ্রহণও আছে তিন রকম। যেমন-

পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ

নাসা ব্যাখ্যা করছে, পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণের সময় চাঁদ এবং সূর্য পৃথিবীর দুই পাশে ঠিক এক লাইনে অবস্থান করে। যদিও পৃথিবীর ছায়া চাঁদকে ঢেকে ফেলে। নাসা বলছে, চাঁদের ওপর সূর্যরশ্মির কিছুটা গিয়ে পড়ে।

চাঁদে পৌঁছানোর জন্য ওই সূর্যরশ্মিকে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের ভেতর দিয়ে যেতে হয়। এই যাবার পথে সূর্যের নীল রশ্মির বেশিটাই বায়ুমণ্ডলে শোষিত হয়ে যায়। ফলে এই প্রক্রিয়ার সময় চাঁদকে দেখায় লাল এবং এই রক্তিম চাঁদকে অনেকসময় নাম দেয়া হয় ব্লাড মুন

আইএসি বলছে, চাঁদের ব্যাসের চেয়ে আমাদের গ্রহের ব্যাস চারগুণ বড়, ফলে পৃথিবীর ছায়ার পরিধিও অনেক বেশি। তাই পুরো চন্দ্রগ্রহণের প্রক্রিয়া অনেক লম্বা সময় ধরে চলে- ১০৪ মিনিট পর্যন্ত এটা চলতে পারে। আর ঠিক এটাই আমরা দেখতে যাচ্ছি আগামীকাল ২৬ মে।

আপনি যদি দক্ষিণ আমেরিকার পশ্চিমাঞ্চলে, দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া, অস্ট্রেলিয়া বা আমেরিকার পশ্চিমাঞ্চলের বাসিন্দা হন বা ২৬ মে এসব অঞ্চলের কোথাও ঘটনাচক্রে থাকেন, আর আকাশ যদি থাকে পরিষ্কার তাহলে আপনি সুপার ফ্লাওয়ার ফুল মুন সেটির পূর্ণগ্রাস গ্রহণ দেখতে পাবেন প্রায় ১৪ মিনিট ধরে।

খণ্ডগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ

চাঁদের খণ্ডগ্রাস গ্রহণ হয় যখন চাঁদের একটা অংশ পৃথিবীর ছায়ায় ঢেকে যায়। পৃথিবী চাঁদকে কতটা গ্রাস করে নিচ্ছে তার ওপর নির্ভর করে হয় গাঢ় লাল, কখনও আবার মরচে রং বা কাঠকয়লার রংয়ের ছায়া পড়ে চাঁদের ছায়ায় ঢাকা অংশে। চাঁদের বুকে পৃথিবীর ছায়া কোথাও হালকা, কোথাও গাঢ় হবার কারণে এরকম দেখায়।

নাসা বলছে পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ বিরল, কিন্তু খণ্ডগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ ঘটে অন্তত বছরে দুবার। আশা করা হচ্ছে, পরবর্তী খণ্ডগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ দেখা যাবে ১৮ থেকে ১৯ নভেম্বরে এবং তা দেখা যাবে এশিয়া ও ইউরোপের বেশ কিছু জায়গা, অস্ট্রেলিয়া এবং উত্তর ও দক্ষিণ আমেরিকা থেকে।

পেনাম্ব্রা চন্দ্রগ্রহণ

এই চন্দ্রগ্রহণ হয় যখন পৃথিবীর হালকা ছায়াচ্ছন্ন অংশ লাতিন ভাষায় যাকে বলা হয় পেনাম্ব্রা, সেই অংশের মধ্যে দিয়ে চাঁদ প্রদক্ষিণ করে। এই ছায়া গাঢ় নয়, অনেকটাই হালকা। ফলে এই গ্রহণ সাধারণ মানুষের চোখে সেভাবে ধরা পড়ে না। এই ছায়াচ্ছন্ন অংশ যদি খুবই ছোট হয় তাহলে চাঁদের গ্রাস হচ্ছে কিনা তা বোঝা কঠিন।

এ কারণে দিনপঞ্জিতে এই গ্রহণের কোন উল্লেখ থাকে না। এই ধরনের গ্রহণের খবর রাখেন একমাত্র জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা।



আরও খবর



বৈরী আবহাওয়ার কারণে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া রুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ০১ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ০১ জুন ২০২১ | ৭৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বৈরী আবহাওয়ার কারণে বাংলাবাজার-শিমুলিয়া রুটে লঞ্চ চলাচল বন্ধ রেখেছে বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের বাংলাবাজার ঘাট কর্তৃপক্ষ।

মঙ্গলবার (১ জুন) সকাল ৯টা থেকে দুর্ঘটনা এড়াতে লঞ্চ চলাচল বন্ধ রাখা হয়।

বিআইডব্লিউটিএর বাংলাবাজার লঞ্চঘাটের ট্রাফিক ইন্সপেক্টর আক্তার হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, মঙ্গলবার (১ জুন) সকাল থেকেই থেমে থেমে বৃষ্টি হচ্ছে। হঠাৎ করে সকাল সাড়ে ৯টার দিকে ঝোড়ো বাতাস বইতে থাকলে পদ্মা উত্তাল হয়ে ওঠে। এ কারণে ৯টা থেকে দুর্ঘটনা এড়াতে লঞ্চ বন্ধ রাখা হয়।

তিনি আরও বলেন, ঝোড়ো বাতাস থেমে গেলে লঞ্চ চলাচল আবার স্বাভাবিক হবে।

নিউজ ট্যাগ: লঞ্চ চলাচল বন্ধ

আরও খবর



৮ মাসের অন্তঃসত্ত্বাকে গলা কেটে হত্যা, শাশুড়ি-দেবর আটক

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ০৩ জুন ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ০৩ জুন ২০২১ | ৮৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নাটোরের বড়াইগ্রাম উপজেলায় নিজ ঘরে শাহানুর বেগম (৩৫) নামে আট মাসের অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূকে গলা ও হাত-পায়ের রগ কেটে হত্যা করা হয়েছে। বুধবার রাতে উপজেলার জোয়াড়ি ইউনিয়নের ভবানীপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত শাহানুর ভবানীপুর জোলাপাড়া গ্রামের চা দোকানি রাশেদুল ইসলাম রাশেদের স্ত্রী। এ ঘটনায় পুলিশ নিহতের শাশুড়ি রশেনা বেগম ও দেবর আবদুর রশিদকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে।

স্থানীয়রা জানান, চলমান লকডাউনে ব্যবসায় মন্দা যাওয়ায় কয়েক দিন আগে শাহানুর বেগমের স্বামী রাশেদ কাজের সন্ধানে ঈশ্বরদী যান। এ সময় তিনি তিন সন্তানসহ বাড়িতেই থাকতেন।

বুধবার রাতে ঘটনাস্থলের পাশেই গানের অনুষ্ঠান চলছিল। শাহানুরের দুই সন্তানকে নিয়ে শাশুড়িসহ পরিবারের সবাই গানের অনুষ্ঠানে যান। এ সময় এক বছরের শিশুসন্তান নিয়ে নিজ ঘরেই ঘুমিয়েছিলেন তিনি।

ফাঁকা বাড়িতে একা থাকার সুযোগে কে বা কারা তাকে হত্যা করে। পরে রাত সাড়ে ১২টার দিকে গানের অনুষ্ঠান থেকে বাড়িতে ফিরে নিহতের আট বছরের শিশুকন্যা তার মায়ের রক্তাক্ত লাশ দেখে চিৎকার করলে পরিবারের সদস্যরা এগিয়ে আসেন।

এ সময় নিহতের এক বছরের শিশুটি মায়ের পাশে রক্তে গড়াগড়ি খাচ্ছিল। পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে নিহতের লাশ উদ্ধার করে।

বৃহস্পতিবার সকালে সিআইডি এসে প্রাথমিক আলামত সংগ্রহের পর মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নাটোর মর্গে পাঠানো হয়েছে।

এ ব্যাপারে বড়াইগ্রাম থানার ওসি আনোয়ারুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় মামলা প্রক্রিয়াধীন। নিহতের লাশ উদ্ধার করে মর্গে পাঠানো হয়েছে। কী কারণে, কারা এ হত্যাকাণ্ড ঘটিয়েছে, তা তদন্ত করে পরে জানানো হবে।

নিউজ ট্যাগ: নাটোর হত্যা

আরও খবর



ফ্রেঞ্চ ওপেন : ওসাকার পর সরে দাঁড়ালেন কেভিতোভা

প্রকাশিত:বুধবার ০২ জুন 2০২1 | হালনাগাদ:বুধবার ০২ জুন 2০২1 | ১১২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সবাইকে হতাশ করে ফ্রেঞ্চ ওপেন থেকে নাম সরিয়ে নিয়েছেন টেনিস তারকা নাওমি ওসাকা। তাঁর সরে যাওয়ার কারণ ছিল, সংবাদমাধ্যমকে বয়কট করা। এবার সেই সংবাদমাধ্যমের প্যাঁচে পড়ে গেলেন পেত্রা কেভিতোভা। নাউমি ওসাকার পর তিনিও সরে দাঁড়ালেন ফ্রেঞ্চ ওপেন থেকে।

চারবারের গ্র্যান্ড স্ল্যাম জয়ী ওসাকা সংবাদ সম্মেলন বয়কটের ঘোষণা দিয়ে রীতিমতো সাড়া ফেলে দিয়েছেন। প্রথম রাউন্ডের ম্যাচে জয়ের পর সংবাদ সম্মেলনে আসেননি তিনি। এ জন্য তাঁকে ১৫ হাজার ডলার জরিমানা করা হয়। একই সঙ্গে টুর্নামেন্ট থেকে বহিষ্কার করার হুমকি দেওয়া হয়। তাই এসব ঝামেলা এড়াতে নিজেই সরে দাঁড়ালেন ওসাকা।

তবে কেভিতোভার ব্যাপারটি একটু ভিন্ন। সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ানের প্রতিবেদন অনুযায়ী, চেক প্রজাতন্ত্রের এই টেনিস তারকা বেলজিয়ামের গ্রিট মিনেনকে ৬-৭ (৬-৩), ৭-৬ (৭-৫), ৬-১ গেমে হারান। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনেই যাচ্ছিলেন। যাওয়ার পথে পা হড়কে পড়ে যান কেভিতোভা। পড়ে গিয়ে গোড়ালিতে নাকি চোট পেয়েছেন তিনি।

এক টুইট বার্তায় ফ্রেঞ্চ ওপেন থেকে সরে যাওয়ার খবর জানিয়ে কেভিতোভা লিখেছেন, বেশ হতাশা নিয়েই ফ্রেঞ্চ ওপেন থেকে নিজের নাম প্রত্যাহার করে নিচ্ছি। রোববার সংবাদ সম্মেলনে যোগ দিতে গিয়ে আমি পড়ে যাই আর গোড়ালিতে গুরুতর আঘাত পাই। এমআরআই করার পর সবার সঙ্গে আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নিয়েছি ফ্রেঞ্চ ওপেনে না খেলার। সিদ্ধান্তটা নেওয়া অনেক কঠিন ছিল। আমি এখন মন শক্ত করার চেষ্টা করছি। দ্রুত সুস্থ হয়ে কোর্টের লড়াইয়ে ফেরার আশা করছি।

এর আগে টুইটারে ঘোষণা দিয়ে ওসাকাও সরে দাঁড়ান। তিনি লিখেছিলেন, আমার মনে হয়েছে টুর্নামেন্ট, অন্য খেলোয়াড় ও আমার নিজের ভালোর জন্যই সরে দাঁড়ানো উচিত। প্যারিসে এখন সবাই টেনিসেই মনোযোগ দিতে পারবেন। আমি কখনই ঝামেলা হয়ে থাকতে চাইনি। আমি মনে করি, ব্যাপারটা আরও পরিষ্কার করে বোঝাতে পারতাম। সত্যি কথা হলো, আমি ২০১৮ সালের ইউএস ওপেন থেকেই মানসিক অবসাদে ভুগছি। এর সঙ্গে লড়াই করতে সত্যিই খুব কঠিন সময় কাটিয়েছি।

ওসাকা আরো লিখেছেন, আপাতত কোর্ট থেকে আমি কিছুটা সময় দূরে থাকব। কিন্তু যখন সময় হবে, তখন খেলোয়াড়, গণমাধ্যম ও ভক্তদের জন্য ভালো হয়, এমন পথ বের করতে কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা করব।



আরও খবর
কলম্বিয়াকে ২-১ গোলে হারাল ব্রাজিল

বৃহস্পতিবার ২৪ জুন ২০২১




বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির চাঞ্চল্যকর তথ্য প্রকাশ

প্রকাশিত:সোমবার ২১ জুন 20২১ | হালনাগাদ:সোমবার ২১ জুন 20২১ | ৯৫জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশ ব্যাংকের ১ বিলিয়ন ডলার ২০১৬ সালে চুরির পরিকল্পনা করে উত্তর কোরিয়ার হ্যাকাররা। যদিও তারা মাত্র ৮১ মিলিয়ন ডলার সরাতে সক্ষম হয়। কিন্তু বিশ্বের অন্যতম দরিদ্র এবং বিচ্ছিন্ন দেশটি কীভাবে এলিট সাইবার ক্রিমিনাল টিম তৈরি করল সেটিই গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে।

কীভাবে হয়েছিল এ ঘটনা, এ নিয়ে তদন্তে নানা বিষয় উঠে আসে। হ্যাকারদের পরিচয় এবং কোথা থেকে তারা এসেছিলো, সেই বিস্তারিত বিবিসির এক প্রতিবেদনে বিস্তারিতভাবে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির ঘটনাটি তুলে ধরা হয়েছে। ১০ পর্বের নতুন প্রতিবেদন রয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংকের রিজার্ভ চুরির কাহিনি।

প্রতিবেদনে জানা যায়, কীভাবে বিপুল অর্থ সরানোর জন্য একদল হ্যাকার ভয়াবহ পরিকল্পনা করে। চুরির যে আলামত এখন পর্যন্ত পাওয়া গেছে তাতে উত্তর কোরিয়া এ ঘটনায় জড়িত বলে ইঙ্গিত পাওয়া গেছে।

বিবিসি অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে জানা যায়, হ্যাকাররা এ ঘটনার জন্য যে মূল যন্ত্র ব্যবহার করে তা হলো বাংলাদেশ ব্যাংকের একটি ত্রুটিযুক্ত প্রিন্টার। মতিঝিলে বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ের দশম তলায় অত্যন্ত সুরক্ষিত ঘরের অভ্যন্তরে বসানো ছিলো প্রিন্টারটি। কোটি কোটি ডলারের ট্রান্সফার ব্যাংকের বাইরে ও ভেতরে প্রবাহিত হওয়ার রেকর্ড ছাপানো হতো এটি দিয়ে।

শুরুতে কর্মকর্তাদের কাছে ত্রুটিপূর্ণ এ প্রিন্টার ছিলো কেবল একটি ঝামেলা। প্রযুক্তির সমস্যা ছাড়া তেমন একটা বড় ব্যাপার বলে মনে হয়নি কারও। তবে বাংলাদেশ ব্যাংক হলো দেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক। যারা কিনা এমন একটি দেশের মূল্যবান মুদ্রার মজুত তদারকির জন্য দায়বদ্ধ, যেখানে লাখ লাখ মানুষ দারিদ্র্যের মধ্যে বাস করে।

২০১৬ সালের ৫ ফেব্রুয়ারি সকাল ৮টা ৪৫ মিনিট থেকে প্রিন্টারটি কাজ করছিলো না। কেউ আসলে বিষয়টি নিয়ে তেমন মাথাব্যথা দেখাননি। সে সময় ডিউটি ম্যানেজার ছিলেন জুবায়ের বিন হুদা। পরে তিনি পুলিশকে বলেন, আমরা ধরে নিয়েছিলাম যে এটি অন্য যেকোনো দিনের মতো একটি সাধারণ সমস্যা, এর আগে এমন হয়েছে।


আরও খবর



করোনার মধ্যেও রিজার্ভ ছাড়াল সাড়ে ৪৫ বিলিয়ন ডলার

প্রকাশিত:বুধবার ০২ জুন 2০২1 | হালনাগাদ:বুধবার ০২ জুন 2০২1 | ৯৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মহামারি করোনাভাইসারের মধ্যেও রেকর্ড সংখ্যক বৈদেশিক মুদ্রা এসেছে দেশে। এর পরিমাণ ৪৫ দশমিক ৫৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। মঙ্গলবার (১ জুন) অর্থমন্ত্রণালয় থেকে পাঠানো এক প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়। গত বছরের তুলনায় বৈদেশিক রিজার্ভের প্রবৃদ্ধি ৩৯ দশমিক ৪৯ শতাংশ বেশি। ২০২১ অর্থবছরের জুলাই থেকে মে মাসে রিজার্ভের রেকর্ড গড়েছে বাংলাদেশ। 

২০২১ অর্থবছরের মে মাসে ২ দশমিক ১৭ বিলিয়ন ডলার রেমিটেন্স এসেছে। পয়লা জুলাই থেকে ৩১ মে পর্যন্ত রেমিটেন্স এসেছে ২২ দশমিক ৮৩ বিলিয়ন ডলার। অথচ ২০২০ অর্থবছরের মে মাসে ১ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার রেমিটেন্স এসেছিল। গত বছরের জুলাই থেকে মে মাসে দেশে মোট রেমিটেন্স এসেছিল ১৬ দশমিক ৩৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

২০১৯ সালের জুলাই মাস থেকে প্রবাসীদের পাঠানো রেমিট্যান্সে দুই শতাংশ হারে প্রণোদনা দিচ্ছে বাংলাদেশ সরকার। অর্থাৎ কোনো প্রবাসী এক লাখ টাকা দেশে পাঠালে এর সঙ্গে আরও দুই হাজার টাকা যোগ করে মোট এক লাখ দুই টাকা পাচ্ছেন তারা।

এছাড়াও বিভিন্ন ব্যাংক এবং মোবাইল ব্যাংকিং সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান প্রণোদনার সঙ্গে বাড়তি এক শতাংশ দেওয়ার অফার দিচ্ছে। এতে করে বৈধ চ্যানেলে রেমিট্যান্স পাঠাতে উৎসাহী হচ্ছেন বিদেশে কর্মরত প্রবাসী বাংলাদেশিরা।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এখন বৈধ পথে রেমিট্যান্স আসছে, রপ্তানিও বেড়েছে। এছাড়াও আমদানি ব্যয়ের চাপ কম, দাতা সংস্থা বিশ্বব্যাংক, আইএমএফ ও জাইকার বৈদেশিক ঋণ সহায়তা এবং বিশ্ব সংস্থার অনুদানের কারণে রিজার্ভ বেড়েছে।


আরও খবর