আজঃ বৃহস্পতিবার ১৩ মে ২০২১
শিরোনাম

কালিয়াকৈর উপজেলা হেফাজতের আমির দুই ভাইসহ গ্রেফতার

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৯ এপ্রিল ২০২১ | ১১৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব আল্লামা মামুনুল হককে গ্রেফতারের প্রতিবাদে কিছু দুষ্কৃতকারী কালিয়াকৈর থানাধীন চন্দ্রা টু কালামপুরগামী রোডে চন্দ্রার সিএনজিচালিত

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলা হেফাজতের আমির ও ওলামা পরিষদের সভাপতি মুফতি মাওলানা মো. এমদাদুল্লাহ ওরফে এমদাদুল হককে (৫০) গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ সময় তার দুই ভাইকেও গ্রেফতার করা হয়। সোমবার জেলা পুলিশের এক প্রেস নোটের মাধ্যমে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছে।

গ্রেফতার মুফতি মাওলানা মো. এমদাদুল্লাহ ওরফে এমদাদুল হকের দুভাই হলেন  মো. আশরাফুল ইসলাম (৪০) ও মোহাম্মদ আলী (৪৮)। মুফতি মাওলানা মো. এমদাদুল হক কালিয়াকৈরের চন্দ্রা দারুম-উলুম মাহমুদনগর মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল ও কালিয়াকৈর ওলামা পরিষদের সভাপতি তার ভাই মো. আশরাফুল ইসলাম চন্দ্রা দারুম-উলুম মাহমুদনগর মাদ্রাসার আরবি প্রভাষক।

গাজীপুর জেলা পুলিশের (কালিয়াকৈর-শ্রীপুর জোনের) অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আল মামুন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

পুলিশ জানায়, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায়, হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব আল্লামা মামুনুল হককে গ্রেফতারের প্রতিবাদে কিছু দুষ্কৃতকারী কালিয়াকৈর থানাধীন চন্দ্রা টু কালামপুরগামী রোডে চন্দ্রার সিএনজিচালিত অটোরিকশা স্ট্যান্ডে একত্রিত হয়ে ধংসাত্মক কার্যক্রম চালাতে পারে। এমন গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে রবিবার রাত সোয়া ১২টার দিকে গাজীপুর জেলা পুলিশের একটি দল কালিয়াকৈর থানাধীন কালামপুরে উপস্থিত হলে ৩৫-৪০ জন দুষ্কৃতকারী পুলিশকে লক্ষ্য করে অতর্কিতভাবে কয়েকটি ককটেল নিক্ষেপ করে।

এতে তিন পুলিশ সদস্য আহত হন এবং আত্মরক্ষার্থে পুলিশ কয়েক রাউন্ড শটগানের গুলি করে। আহত পুলিশ সদস্যদের কালিয়াকৈর উপজেলা হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে। তবে অন্যরা পালিয়ে গেলেও ঘটনাস্থল থেকে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

এ ঘটনায় এসআই মোর্শেদ আলী মোল্লা বাদী হয়ে কালিয়াকৈর থানা মামলা রজু করেন।

নিউজ ট্যাগ: গাজীপুর

আরও খবর



লকডাউনে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তায় সাড়ে ১০ কোটি টাকা বরাদ্দ

প্রকাশিত:বুধবার ২১ এপ্রিল 20২১ | হালনাগাদ:বুধবার ২১ এপ্রিল 20২১ | ১১৬জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলা ও সংক্রমণ রোধে চলমান 'কঠোর লকডাউনে' ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তায় জেলা প্রশাসকদের অনুকূলে সাড়ে ১০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বুধবার (২১ এপ্রিল) গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন প্রধানমন্ত্রীর সহকারী প্রেস সচিব এম এম ইমরুল কায়েস।

তিনি বলেন, করোনাভাইরাসের কারণে চলমান লকডাউনে ক্ষতিগ্রস্ত দরিদ্র, দুস্থ, ভাসমান এবং অস্বচ্ছল মানুষকে সহায়তার লক্ষ্যে জেলা প্রশাসকগণের অনুকূলে ১০ কোটি ৫০ লাখ টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বরাদ্দকৃত এই টাকা দিয়ে জেলা প্রশাসকগণ লকডাউনে ক্ষতিগ্রস্ত দরিদ্র, দুস্থ, ভাসমান এবং অস্বচ্ছল মানুষকে নানা সহায়তা দেবেন।

চলমান লকডাউনে যারা কর্মহীন হয়ে পড়েছেন তাদের সহায়তায় বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। নগদ অর্থ, খাবার, টিসিবির মাধ্যমে সাশ্রয়ে নিত্যপণ্য বিক্রি, কৃষকদের সহায়তার মতো বেশকিছু উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

এর আগে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সড়ক পরিবহনমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানান, আসন্ন ঈদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঈদ উপহার হিসেবে ৩৬ লাখ ২৫ হাজার পরিবারকে আর্থিক সহায়তা দেবেন। সহায়তার এ অর্থ গতবছরের মতো এ বছর উপকারভোগী প্রত্যেকে মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে হাতে পাবেন।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় সম্প্রতি দেশে কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়। এরপর গত ১৪ এপ্রিল থেকে সারাদেশে সর্বাত্মক লকডাউন কার্যকর করা হয়। দুই সপ্তাহের এ লকডাউন শেষ হবে আগামী ২৮ এপ্রিল।


আরও খবর



বিএনপি কৃষকদের গুলি করে হত্যা করেছিল : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৪ এপ্রিল ২০২১ | ২৪১জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, গত বিএনপি সরকারের সময় সারের দাবি করায় কৃষককে নির্মমভাবে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। কিন্তু শেখ হাসিনার সরকার কৃষকবান্ধব সরকার।

এজন্যই তিনি যখনই ক্ষমতায় থাকেন, তখনই কৃষককে বিনামূল্যে সার, কীটনাশকসহ বিভিন্ন কৃষি উপকরণ দেওয়া হয়। বাংলাদেশ প্রাণিজ আমিষসহ খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণ। আর এটা একমাত্র শেখ হাসিনার জন্যই সম্ভব হয়েছে। তিনি এদেশের কৃষকদের জন্য কোনো ধরনের ব্যাংক অ্যাকাউন্ট বা জমানো টাকা ছাড়া কৃষিঋণ দিচ্ছেন। গত এক বছরেরও বেশি সময় করোনার ভয়াবহ এ পরিস্থিতিতে বিশ্বের সব দেশ অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হলেও বাংলাদেশ তাদের উন্নয়ন চালিয়ে যাচ্ছে, যোগ করেন মন্ত্রী।

মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) দুপুরে কৃষি অফিসের উদ্যোগে বিনামূল্যে কৃষি কাজে ব্যবহৃত বিভিন্ন যন্ত্রপাতি ও সার-বীজ বিতরণ অনুষ্ঠানে ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

নাজিরপুর উপজেলা কৃষি প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো. ওবায়দুর রহমানের সভাপতিত্বে এ অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দ্বিগবিজয় হাজরা, উপজেলা প্রকৌশলী মো. জাকির হোসেন মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা এসএম নজরুল ইসলাম, জেলা পরিষদ সদস্য মো. সুলতান মাহামুদ খানসহ অনেকে। এ সময় বিনামূল্যে আটশকৃষককে প্রত্যেককে পাঁচ কেজি করে বীজ ও ১০ কেজি করে সার এবং বিভিন্ন কৃষি যন্ত্রপাতি দেওয়া হয়।

এ সময় মন্ত্রী আরও বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এদেশের কৃষকদের অধিকার আদায়ে আজীবন সংগ্রাম করেছেন। তাই তারই কন্যা শেখ হাসিনা কৃষকদের সব সুযোগ-সুবিধা দেন। করোনার এ ভয়াবহ পরিস্থিতিতেও কিছু স্বার্থবাজ লোক তাদের রাজনৈতিক ও সাম্প্রদায়িক শক্তিকে প্রকাশ করতে হেফাজতের ছত্রছায়ায় দেশে অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করছে। (১৪ এপ্রিল) থেকে লকডাউনে বিশেষ কয়েকটি কারণে এবং পুলিশের দেয়া মুভমেন্ট পাস ছাড়া এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় যাওয়া যাবে না।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ উদ্বেগজনক হারে বাড়তে থাকায় এর আগে গত ৫ এপ্রিল ভোর ৬টা থেকে ১৪ এপ্রিল ভোর ৬টা পর্যন্ত লকডাউন বা বিধিনিষেধ ছিল। তবে গণপরিবহন, মার্কেট খোলা রেখে এই লকডাউন ছিল অনেকটাই অকার্যকর।


আরও খবর



যেসব কারণে ঢাকায় তাপমাত্রা বেশি

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৭ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৭ এপ্রিল ২০২১ | ১০০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
বলা চলে সারা দেশেই তাপপ্রবাহ বয়ে গেলেও ঢাকায় অনুভূতিটা একটু বেশি। এর পেছনে ছয়টি কারণ রয়েছে। তা হচ্ছে— দিনের ব্যাপ্তিকাল রাতের তুলনায় বড় হওয়ায় রাতে তাপ বিকিরণ করে ধরণি ঠাণ্ডা করতে পারে

গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা যশোরে ৩৯ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস ও সর্বনিম্ন শ্রীমঙ্গলে ২১ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। ঢাকায় সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৯ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস, সর্বনিম্ন ছিল ২৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

ঢাকায় তাপমাত্রা প্রসঙ্গে আবহাওয়াবিদ ড. মুহাম্মদ আবুল কালাম মল্লিক জানান, বলা চলে সারা দেশেই তাপপ্রবাহ বয়ে গেলেও ঢাকায় অনুভূতিটা একটু বেশি। এর পেছনে ছয়টি কারণ রয়েছে। তা হচ্ছে দিনের ব্যাপ্তিকাল রাতের তুলনায় বড় হওয়ায় রাতে তাপ বিকিরণ করে ধরণি ঠাণ্ডা করতে পারে না; সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন তাপমাত্রার পার্থক্য কম; অতিমাত্রায় এসির ব্যবহার; গাড়ির কার্বন বা কালো ধোঁয়া; ঢাকার আশপাশের ইটভাটার কার্বন; ঢাকাকেন্দ্রিক শিল্পপ্রতিষ্ঠানের নিঃসরিত দূষিত পদার্থ। সূর্য মানবসৃষ্ট কারণগুলোকে আরও প্রভাবিত করায় গরম তুলনামূলক বেশি অনুভূত হচ্ছে।

তিনি এও মনে করেন, বাতাসে জলীয়বাষ্পের পরিমাণ কম থাকায় অনেকটা রক্ষা পাওয়া যাচ্ছে। তা না হলে মানুষের অনেক ঘাম হতো। এতে পরিস্থিতি আরও খারাপ হতো পারতো।

এদিকে ঢাকা, ময়মনসিংহ, রাজশাহী, রংপুর, খুলনা, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগে মৃদু থেকে মাঝারি ধরনের তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে এবং তা অব্যাহত থাকতে পারে।

এ অবস্থায় আবহাওয়া অধিদপ্তর জানিয়েছে, আগামী পাঁচ দিন শেষে বৃষ্টি ও বজ্রসহ বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে এবং দিনের তাপমাত্রা হ্রাস পেতে পারে।


আরও খবর



নারায়ণগঞ্জ হেফাজতের জেলা সেক্রেটারি গ্রেপ্তার

প্রকাশিত:বুধবার ১৪ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৪ এপ্রিল ২০২১ | ১৩০জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

হেফাজতে ইসলামের হরতালে নাশকতা ও সহিংসতার অভিযোগে পুলিশের দায়ের করা মামলায় সংগঠনটির নারায়ণগঞ্জ জেলা কমিটির সেক্রেটারি মুফতি বশির উল্লাহকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার (১৩ এপ্রিল) রাত ১১টায় সিদ্ধিরগঞ্জ সানারপাড় লন্ডন মার্কেট এলাকার একটি নির্মাণাধীন বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

সিদ্ধিরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মশিউর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, গ্রেপ্তারকৃত হেফাজত নেতা মুফতি বশির উল্লাহ গত ২৮ মার্চ হেফাজতে ইসলামের হরতাল কর্মসূচিতে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে যানবাহন ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগসহ নাশকতা সৃষ্টির ঘটনায় নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। এর যথেষ্ট তথ্য প্রমাণ পুলিশের কাছে রয়েছে। এ কারণে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

জেলা পুলিশ প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, সোনারগাঁও উপজেলায় মামুনুল হক ইস্যুতে ব্যাপক ভাঙচুর ও সহিংসতা চালানোসহ ২৮ মার্চ হরতাল চলাকালে মহাসড়কে ব্যাপক বিশৃঙ্খলায় অংশ নেয়া নাশকতাকারীদের চিহ্নিত করা হচ্ছে। ইতোমধ্যে জেলা পুলিশ প্রশাসনের অফিসিয়াল ফেসবুক পেজে ওই ঘটনার একের পর এক ছবি প্রকাশ করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গত ২৮ মার্চ হেফাজতে ইসলামের হরতালে সহিংসতার ঘটনায় ৩ হাজার ৭শ জনকে আসামি করে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মোট ৮টি মামলা করা হয়।


আরও খবর



শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলছে ২৩ মে

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ২৯ এপ্রিল ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ২৯ এপ্রিল ২০২১ | ১৬৮জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
দেশের পরিস্থিতির উন্নতি হলে আগামী ২৩ মে স্কুল-কলেজ খুলে দেয়া হবে। আমাদের আগের ঘোষণা অনুযায়ী যে সিদ্ধান্ত ছিলো তা এখনো বহাল রয়েছে। এটি বাস্তবায়নে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে

করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আগামী ২৩ মে থেকে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হবে। পূর্বের সিদ্ধান্তই বহাল রেখেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। সে মোতাবেক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের (মাউশি) সচিব মো. মাহবুব হোসেন।

বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) এক ভার্চুয়াল সংলাপে শিক্ষা সচিব বলেন, করোনার মধ্যে শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে নিতে আমরা টেলিভিশন, অনলাইন ও রেডিওতে ক্লাস সম্প্রচার শুরু করেছি। তার পাশাপাশি মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীদের বাসায় অ্যাসাইনমেন্ট কাজ দেয়া হচ্ছে। চলমান লকডাউনের কারণে বর্তমানে তা বন্ধ রাখা হয়েছে।

তিনি বলেন, করোনার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে আগামী বছরের জাতীয় বাজেটে শিক্ষার বরাদ্দ বাড়ানো হবে। বাজেটে শিক্ষাকে অধিক গুরুত্ব দেয়া হবে বলে অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে আমাদের নিশ্চিত করা হয়েছে। তবে বাজেটের আকার বড় করলেও সমস্যা সমাধান হয় না, এটি ব্যবহারে পরিকল্পনা, সক্ষমতা ও অভিজ্ঞতা প্রয়োজন হয়।

সচিব বলেন, দেশের পরিস্থিতির উন্নতি হলে আগামী ২৩ মে স্কুল-কলেজ খুলে দেয়া হবে। আমাদের আগের ঘোষণা অনুযায়ী যে সিদ্ধান্ত ছিলো তা এখনো বহাল রয়েছে। এটি বাস্তবায়নে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এদিকে গত ২৫ মার্চ প্রাথমিক, করোনাভাইরাস সংক্রান্ত জাতীয় পরামর্শক কমিটির বৈঠক শেষে ২৩ মে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণা দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনাভাইরাস সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মচারী ও অভিভাবকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং সার্বিক নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনা করে ও কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় পরামর্শক কমিটির পরামর্শক্রমে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আগামী ঈদুল ফিতরের পর ২৩ মে ক্লাস শুরুর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

তবে এসময়ে অনলাইন শিক্ষাকার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে জানানো হয়। একইসঙ্গে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

গত বছরের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাসে আক্রান্ত রোগী শনাক্তের পর ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রয়েছে। এরপর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি ধাপে ধাপে বাড়িয়ে গত ২৮ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত করা হয়েছিল।


আরও খবর