আজঃ সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
শিরোনাম

কবি সুফিয়া কামালের ২৪তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

প্রকাশিত:সোমবার ২০ নভেম্বর ২০23 | হালনাগাদ:সোমবার ২০ নভেম্বর ২০23 | অনলাইন সংস্করণ
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

জননী সাহসিকা হিসেবে খ্যাত কবি সুফিয়া কামালের ২৪তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। সুফিয়া কামাল ১৯১১ সালের ২০ জুন বরিশালে জন্মগ্রহণ করেন এবং ১৯৯৯ সালের ২০ নভেম্বর ঢাকায় মৃত্যুবরণ করেন। সম্পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় তার ইচ্ছানুযায়ী তাকে আজিমপুর কবরস্থানে সমাহিত করা হয়। বাংলাদেশের নারীদের মধ্যে তিনিই প্রথম এ সন্মান লাভ করেন।

সুফিয়া কামাল ছিলেন নারী আন্দোলনের পথিকৃৎ এবং সাম্প্রদায়িকতা ও ধর্মান্ধতার বিরুদ্ধে এক অকুতোভয় যোদ্ধা। নারী জাগরণের অগ্রদূত বেগম রোকেয়ার চিন্তাধারা কবি সুফিয়া কামালের জীবনে সুদূরপ্রসারী প্রভাব ফেলেছিল। সুফিয়া কামাল ছিলেন একদিকে আবহমান বাঙালি নারীর প্রতিকৃতি, মমতাময়ী মা, অন্যদিকে বাংলার প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে ছিল তার আপসহীন এবং দৃপ্ত পদচারণা।

তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রথম মহিলা হোস্টেলকে রোকেয়া হল নামকরণের দাবি জানান। ১৯৬১ সালে পাকিস্তান সরকার রবীন্দ্র সংগীত নিষিদ্ধ করলে এর প্রতিবাদে গঠিত আন্দোলনে কবি যোগ দেন। বেগম সুফিয়া কামাল শিশু সংগঠন কচিকাঁচার মেলা প্রতিষ্ঠা করেন। আওয়ামী লীগ সরকার ঢাকা বিশ্বিবিদ্যালয়ে তার নামে ছাত্রী হল নির্মাণ করেছে।

মৃত্যুর আগ পর্যন্ত সৃষ্টিকর্ম ও চিন্তা-চেতনার মধ্য দিয়ে তিনি রাজনীতিবিদ, সাহিত্যিক ও সংস্কৃতিকর্মীদের অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন। সে সময় বাঙালি মুসলমান নারীদের লেখাপড়ার সুযোগ একেবারে সীমিত থাকলেও তিনি নিজ চেষ্টায় লেখাপড়া শেখেন এবং ছোটবেলা থেকেই কবিতা চর্চা করেন।

স্বাধীন বাংলাদেশে নারী জাগরণ ও নারীদের সমঅধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামেও তিনি উজ্জ্বল ভূমিকা পালন করেন। ১৯৭০ সালে তিনি মহিলা পরিষদ প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৭১ সালের মার্চে অসহযোগ আন্দোলনে নারীদের মিছিলে নেতৃত্ব দেন। মুক্তিযুদ্ধের সময় তার ধানমন্ডির বাসভবন থেকে মুক্তিযোদ্ধাদের সহায়তা দেন।

সুফিয়া কামাল দেশ-বিদেশের ৫০টিরও বেশি পুরস্কার লাভ করেছেন। এরমধ্যে স্বীকৃতিস্বরূপ বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার, একুশে পদক, নাসিরউদ্দীন স্বর্ণপদক, উইমেনস ফেডারেশন ফর ওয়ার্ল্ড পিস ক্রেস্ট, বেগম রোকেয়া পদক, দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জন দাশ স্বর্ণপদক ও স্বাধীনতা দিবস পুরস্কার লাভ করেন।

এ ছাড়া ১৯৬১ সালে পাকিস্তান সরকার তাকে জাতীয় পুরস্কার তঘমা-ই-ইমতিয়াজ দেয়। তবে ১৯৬৯ সালে বাঙালিদের ওপর অত্যাচারের প্রতিবাদে তা বর্জন করেন তিনি।

সুফিয়া কামালের লেখা কাব্যগ্রন্থ হচ্ছে সাঁঝের মায়া, মায়া কাজল, মন ও জীবন , দিওয়ান, অভিযাত্রিক ইত্যাদি। কেয়ার কাটা নামে একটি গল্পগ্রন্থ ছাড়াও তিনি ভ্রমন কাহিনী, স্মৃতি কথা শিশুতোষ এবং আত্মজীবনীমূলক রচনাও লিখেছেন।

বায়ান্নোর ভাষা আন্দোলন, ঊনসত্তরের গণঅভ্যুত্থান, একাত্তরের অসহযোগ আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীন বাংলাদেশে বিভিন্ন গণতান্ত্রিক সংগ্রামসহ শিক্ষা এবং সাংস্কৃতিক আন্দোলনে তার প্রত্যক্ষ উপস্থিতি তাকে জনগণের জননী সাহসিকা উপাধিতে অভিষিক্ত করেছে। কবি বেগম সুফিয়া কামাল যে আদর্শ ও দৃষ্টান্ত রেখে গেছেন তা যুগে যুগে বাঙালি নারীদের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকবে।


আরও খবর
শেষ ছুটির দিনে জমজমাট বইমেলা

রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




দক্ষিণ সুরমায় স্কোয়াশ চাষে সফল কৃষক জহির উদ্দিন

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
সিলেট প্রতিনিধি

Image

সিলেট জেলার দক্ষিণ সুরমা উপজেলায় স্কোয়াশ চাষে সফল হয়েছেন প্রবাস ফেরত কৃষক জহির উদ্দিন। উপজেলার জালালপুর ইউনিয়নে বাড়ির পাশে প্রথমবারের মতো পরীক্ষামূলক ২ বিঘা জমিতে স্কোয়াশ চাষ করেছেন তিনি। দুএকদিন পর পর জমি থেকে ফলন তুলে স্থানীয় বাজারে বিক্রি করছেন। অনেকে এসে জমি থেকে কিনে নিয়ে যাচ্ছেন।

সরেজমিনে পরিদর্শনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার জালালপুর ইউনিয়নের রায়খাইলের জহির উদ্দিনের জমিতে আবাদকৃত স্কোয়াশ গাছে ফলন এসেছে। প্রতি পিস ফলনের ওজন ৫০০ গ্রাম থেকে দেড় কেজি পর্যন্ত। দুজন শ্রমিক নিয়ে জমিতে পরিচর্যা করছেন তিনি। পাশের জমিতে চাষ করেছেন টমেটো, কাঁচা মরিচ, ফুলকপি, বাঁধাকপি ও বেগুনসহ নানা ধরনের শীতকালীন সবজি।

কৃষক জহির উদ্দিন জানান, প্রবাস থেকে ফিরে আর কিছু করতে না পেরে স্থানীয় কিছু পতিত জমিতে সবজি চাষ শুরু করি। প্রাথমিক ভাবে সফলতা লাভ করায়

৪ বছর ধরে কৃষি কাজ করছি। কৃষিকে পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছি। আমার এ সফলতা দেখে এলাকার অনেকেই আজ কৃষি কাজে এগিয়ে এসেছে পাশাপাশি পতিত জমি গুলো ও চাষাবাদের আওতায় চলে এসেছে। আমি এবার প্রথমবারের মতো ২ শতক জমিতে পরীক্ষামূলক স্কোয়াশ চাষ করেছি। বাজার থেকে বীজ নিয়ে বপন করেছি। প্রথমবারই সফল হয়েছি। জমিতে আগে থেকে মালচিং করা ছিল। তাই তেমন খরচ হয়নি। মাত্র ৩ হাজার টাকা খরচ হয়েছে। এরই মধ্যে ২৫ হাজার টাকা বিক্রি করেছি। আরও ৪০ হাজার টাকা বিক্রি করতে পারবো।

তিনি আরো বলেন, একটি গাছে ১০-২০ কেজি পর্যন্ত ফলন হয়। ঢাকার কয়েকটি সুপার শপের সঙ্গে আলোচনা হয়েছে। তারা আগামীতে আমার কাছ থেকে স্কোয়াশ কিনে নেবেন। তাই আগামীতে সিদ্ধান্ত নিয়েছি চাষের পরিধি আরও বাড়াবো।

এছাড়া ৪ বছর ধরে আগাম সবজি চাষ করে যাচ্ছি। প্রথমে সামান্য জায়গায় আগাম টমেটো চাষ শুরু করি। এবছর  ৩ শতক জমিতে টমেটো, ২ শতকে শসা,১ শতকে তাল বেগুন,২ শতকে জালি কুমড়াও ২ শতকে ঢেড়স চাষ করেছি। ফলন ভালো হয়েছে, আশা করি আর্থিক ভাবে লাভবান হতে পারবো।

দক্ষিণ সুরমা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা গৌতম পাল বলেন, উপজেলার জালালপুর ইউনিয়নের জহির উদ্দিন খুবই পরিশ্রমী একজন কৃষক। তিনি সব সময় আগাম সবজি চাষ করে ভালো লাভবান হয়ে থাকেন। এবার স্কোয়াশ চাষ করে সফল হয়েছেন। তাকে সব সময় কৃষি অফিস থেকে পরামর্শসহ বিভিন্ন ধরনের সহযোগিতা করা হয়।

উল্লেখ্য, জহির উদ্দিন গত বছর তার জমিতে মরুভূমির ফসল সাম্মাম চাষ করে বেশ সাড়া জাগিয়েছিলেন। তার এ ব্যতিক্রমী উদ্যোগ দেখতে বিভাগ ও জেলার কৃষি কর্মকর্তারা পরিদর্শন করেছিলেন।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




যৌন নির্যাতনের কথা এখনো ভুলতে পারেননি ভূমি পেডনেকর

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ০৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
বিনোদন ডেস্ক

Image

বলিউড ইন্ডাস্ট্রিতে ক্যামেরার পেছনে দীর্ঘদিন কাজের পর হঠাৎ করেই নায়িকা হিসেবে দেখা দিয়েছিলেন ভূমি পেডনেকর। সহকারী পরিচালক হিসেবে দীর্ঘ ছয় বছর কাজ করেছিলেন যশরাজ ফিল্মসে। প্রতিষ্ঠানটিতে অভিনেতা-অভিনেত্রী নির্বাচনের দায়িত্ব পালন করেছেন তিনি। কিন্তু শিল্পী বাছাই করতে এসে হঠাৎ করেই একদিন নিজেই অভিনেত্রী বনে যান ভূমি।

ইন্ডাস্ট্রিতে এখন প্রতিষ্ঠিত অভিনেত্রী হলেও এক সময় যৌন হেনস্থার শিকার হতে হয়েছিল ভূমিকে। আর সেই তিক্ত অভিজ্ঞতার কথা এখনো ভুলতে পারেননি তিনি। কী হয়েছিল তার সঙ্গে, যা এখনো ভুলতে পারেননি এ অভিনেত্রী।

টাইমস অব ইন্ডিয়ার খবর, ভূমির বয়স তখন মাত্র ১৪ বছর। সদ্যই কৈশোরে পা রেখেছেন। পরিবারের সঙ্গে মেলায় ঘুরতে গিয়েছিলেন। আর সেখানেই যৌন হেনস্থার শিকার হতে হয়েছিল তাকে।

অভিনেত্রীর ভাষ্যমতে, পরিবারের সবার সঙ্গে ঘুরতে গিয়েছিলাম মেলায়। ভিড়ের মধ্যে আমার নিতম্বে কেউ হাত দেয়, চিমটি কাটে। আমাকে বারবার স্পর্শ করতে থাকে। পেছনে বারবার ফিরে তাকালেও কে এমনটা করছে, সেটা বুঝতে পারছিলাম না। ক্রমাগত আমাকে স্পর্শ করতে থাকে। আমি ভাষা হারিয়ে ফেলেছিলাম। আর সেই ঘটনা আমার কাছে দুঃস্বপ্নের মতো। যা এখনো ভুলতে পারিনি।

২০১৫ সালে আয়ুষ্মান খুরানার বিপরীতে দম লগা কে হাইশা সিনেমায় দেখা যায় ভূমিকে। এরপর ধারাবাহিকভাবে টয়লেট: এক প্রেমকথা, শুভ মঙ্গল সাবধান, লাস্ট স্টোরিজ, সোনচিড়িয়া, ষাঁড় কি আঁখ, বালা, পতী, পত্নী অওর ওহ, বধাই দো সিনেমায় দেখা যায় তাকে।

এছাড়া গত বছর তার অভিনীত দ্য লেডি কিলারথ্যাঙ্ক ইউ ফর কামিং সিনেমা মুক্তি পায়। তবে এর একটাও সফল হয়নি। আর শিগগিরই নেটফ্লিক্সে মুক্তি পেতে যাচ্ছে তার ভক্ষক। এতে একজন সাংবাদিকের চরিত্রে দেখা যাবে তাকে।

নিউজ ট্যাগ: ভূমি পেডনেকর

আরও খবর
ফের বিয়ে করছেন অনুপম রায়, পাত্রী কে?

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




ইবি প্রেসক্লাবের নেতৃত্বে নাহিদ-আজাহার

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:সোমবার ১৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
ইবি প্রতিনিধি

Image

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় (ইবি) প্রেস ক্লাবের কার্যনির্বাহী পরিষদ নির্বাচন-২০২৪ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এতে সভাপতি হিসেবে নির্বাচিত হয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কালের কণ্ঠের প্রতিনিধি মুনজুরুল ইসলাম নাহিদ ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন দৈনিক জনকণ্ঠের প্রতিনিধি আজাহারুল ইসলাম।

সোমবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রেস কর্নারে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে সদস্যদের প্রত্যক্ষ ভোটে তারা নির্বাচিত হয়েছেন।

সকাল ১০টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত ভোট গ্রহণ শেষে দুপুর সাড়ে ১২টায় প্রধান নির্বাচন কমিশনার সংগঠনের সাবেক সভাপতি একে আজাদ লাভলু ফল ঘোষণা করেন। সহকারী নির্বাচন কমিশনার ছিলেন সংগঠনের সাবেক সভাপতি আলতাফ হোসেন ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক কানন আজিজ।

পরে দুপুর দেড়টায় প্রেস কর্নারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপাচার্য অধ্যাপক ড. শেখ আবদুস সালাম আনুষ্ঠানিকভাবে পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করেন। এছাড়া বিকেল সাড়ে ৪ টায় নবগঠিত কমিটি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটকসংলগ্ন মৃত্যুঞ্জয়ী মুজিব ম্যুরালে শ্রদ্ধাঞ্জলি নিবেদন করে।

১৪ সদস্য বিশিষ্ট কমিটির অন্যরা হলেন, সহ-সভাপতি আদিল সরকার (সময়ের আলো), যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রাকিব হোসেন (বাংলাদেশ প্রতিদিন), দপ্তর সম্পাদক নাজমুল হুসাইন (ডিবিসি টেলিভিশন), কোষাধ্যক্ষ আবির হোসেন (একুশে সংবাদ), প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক নুর আলম (নয়া শতাব্দী), সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক সাঈফ ইব্রাহিম (সময় জার্নাল) এবং ক্রীড়া সম্পাদক ফরহাদ খাদেম (শিক্ষা-শিক্ষাঙ্গন)।

এছাড়া কার্যনির্বাহী সদস্য হিসেবে আছেন- আবু হুরাইরা (প্রতিদিনের সংবাদ), মুতাসিম বিল্লাহ পাপ্পু (সমকাল), আহমাদ গালিব (ঢাকা নিউজ), নজরুল ইসলাম জিসান (প্রতিদিনের চিত্র) ও শাহিন রাজা (বিডি সমাচার)।

এছাড়া অনুষ্ঠানে কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. আলমগীর হোসেন ভূঁইয়া, শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ড. আনোয়ার হোসেন, প্রগতিশীল শিক্ষক সংগঠন শাপলা ফোরামের সভাপতি অধ্যাপক ড. পরেশ চন্দ্র বর্মণ, শাপলা ফোরামের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. রবিউল হোসেন, প্রক্টর অধ্যাপক ড. শাহাদৎ হোসনে আজাদ, ছাত্র-উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. শেলীনা নাসরীন, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার এইচএম আলী হাসান, কর্মকর্তা সমিতির সভাপতি টিপু সুলতান ও সাধারণ সম্পাদক ওয়ালিদ হাসানসহ বিভিন্ন বিভাগের সভাপতি, অনুষদের ডিন ও শিক্ষক-কর্মকর্তারা ও ছাত্র সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।


আরও খবর
ঝিনাইদহ জেলা কারাগারে কয়েদির মৃত্যু

সোমবার ২৬ ফেব্রুয়ারী ২০২৪




পিলখানা হত্যাকাণ্ডে শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন

প্রকাশিত:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:রবিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
নিজস্ব প্রতিবেদক

Image

রাজধানীর পিলখানায় বিডিআর (বর্তমানে বিজিবি) সদরদপ্তরে নারকীয় হত্যাকাণ্ডের ১৫ বছর পূর্ণ হলো রোববার (২৫ ফেব্রুয়ারি)। এই উপলক্ষ্যে পিলখানা হত্যাকাণ্ডে শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়েছে। এদিন সকালে বনানীর সামরিক কবরস্থানে শহিদদের কবরে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে শাহাদত বরণকারী সেনাকর্মকর্তাদের স্মৃতির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা নিবেদন করা হয়।

প্রথমে রাষ্ট্রপতির পক্ষে রাষ্ট্রপতির সামরিক সচিব এবং প্রধানমন্ত্রীর সামরিক সচিব শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন। পরে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে প্রধানমন্ত্রীর সামরিক সচিব মেজর জেনারেল কবীর আহাম্মদ শহিদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

এরপর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল, সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ, নৌবাহিনী প্রধান অ্যাডমিরাল এম নাজমুল হাসান, বিমান বাহিনী প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল শেখ আব্দুল হান্নান, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব মো. মোস্তাফিজুর রহমান, বর্ডার গার্ড বাংলাদেশের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোহাম্মদ আশরাফুজ্জামান সিদ্দিকী এবং শহিদ পরিবারের সদস্যরা শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে এক মিনিট নীরবতা পালন করা হয় এবং কর্মরত সামরিক সদস্যরা স্যালুট প্রদান করেন। পরে শহিদদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে দোয়া করা হয়। এ সময় সেনা, নৌ ও বিমান বাহিনীর ঊর্ধ্বতন সামরিক কর্মকর্তা, জেসিও এবং অন্যান্য পদবির সেনাসদস্য, শহিদ পরিবারের সদস্য ও নিকটাত্মীয় এবং গণমাধ্যম ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়াও এদিন সকল সেনানিবাসের কেন্দ্রীয় মসজিদে শহিদদের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে সকল স্তরের সেনাসদস্যদের উপস্থিতিতে মিলাদ মাহফিল ও বিশেষ মোনাজাত অনুষ্ঠিত হয়।


আরও খবর



দু'দলের সঙ্গে পিটিআইয়ের জোট, সরকার গঠনে ইমরানের নতুন নির্দেশনা

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ | অনলাইন সংস্করণ
আন্তর্জাতিক ডেস্ক

Image

পাকিস্তানে ধর্মভিত্তিক দল মজলিস ওয়াহদাত-ই-মুসলিমিন (এমডব্লিউএম)-এর সঙ্গে জোটবদ্ধ হয়ে কেন্দ্র ও পাঞ্জাবে সরকার গঠন করবে দেশটির কারাবন্দি সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রতিষ্ঠিত পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই)। সেই সঙ্গে, জামায়াত-ই-ইসলামির সঙ্গে খাইবার পাখতুনখোয়াতে প্রাদেশিক আইনসভায় সরকার গঠন করবে দলটি।

মঙ্গলবার (১৩ ফেব্রুয়ারি) ইসলামাবাদে এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির মুখপাত্র রাউফ হাসান জানিয়েছেন, ইমরান খানের নির্দেশে সরকার গঠনে এগিয়ে যাবেন তারা। রাউফ হাসান আরও বলেন, জামায়াত-ই-ইসলামির সঙ্গে খাইবার পাখতুনখোয়াতে প্রাদেশিক পরিষদে সরকার গঠন করবে পিটিআই।

এখন পর্যন্ত পাকিস্তানের ১৬তম জাতীয় নির্বাচনের ফলে এগিয়ে রয়েছেন পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। দ্বিতীয় এবং তৃতীয় অবস্থানে রয়েছে যথাক্রমে নওয়াজ শরিফ এবং বিলাওয়াল ভুট্টোর দলের প্রার্থীরা। এছাড়া প্রাদেশিক পরিষদ পাঞ্জাব ও খাইবার পাখতুনখাওয়াতেও জয় পেয়েছে পিটিআইয়ের সমর্থিত প্রার্থীরা। দেশটিতে চরম নাটকীয়তা ও অনিশ্চয়তার মধ্যে দিয়ে শেষ হয়েছে সাধারণ নির্বাচন।

তিনি বলেন, মজলিস ওয়াহদাত-ই-মুসলিমিন (এমডব্লিউএম)-এর সঙ্গে কেন্দ্র ও পাঞ্জাবে জোটবদ্ধ হয়ে সরকার গঠন করবেন তারা। ইমরান খান এমন জোট গঠনে নির্দেশ দিয়েছেন।

তবে এক প্রশ্নের জবাবে রউফ স্পষ্ট জানিয়ে দিয়েছেন, নওয়াজ শরিফ, বিলাওয়াল ভুট্টো এবং এমকিউএম-পাকিস্তানের সঙ্গে কোন অবস্থায় জোটবদ্ধ হবে না পিটিআই।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি আরও বলেন, সরকার গঠন প্রসঙ্গে ইমরান খানের স্পষ্ট বার্তা হচ্ছে, যারা নির্বাচনে জয়ী হয়েছেন তাদের সরকার গঠনের অধিকার রয়েছে।


আরও খবর