আজঃ শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১
শিরোনাম

কম্বল দেয়ার লোভ দেখিয়ে অঙ্কিতাকে ধর্ষণের পর হত্যা

প্রকাশিত:শনিবার ৩০ জানুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১৯১জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
হত্যার পর বস্তায় ভরে শিশুর লাশ প্রথমে গ্যারেজে সিমেন্টের বস্তার পাশে ও পরে গন্ধ ছড়িয়ে পড়লে বিউটি পার্লারের বাথরুমে লুকিয়ে রাখা হয়

কম্বল দেয়ার লোভ দেখিয়ে খুলনার দৌলতপুরে বীনাপানি স্কুলের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্রী অঙ্কিতাকে ছাদে ওঠায় বাড়ির মালিক প্রীতম। পরে ধর্ষণের চেষ্টা চালালে চিৎকারের এক পর্যায়ে তার মাথায় ভারী বস্তু দিয়ে আঘাত করা হয়। এতে আট বছরের শিশুটি জ্ঞান হারিয়ে ফেলে। এরপর ধর্ষণ শেষে দড়ি ও জুতার ফিতা দিয়ে তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করা হয়। এরপর লাশ গুম করতে বস্তায় ভরে সিঁড়ির নিচে রাখা হয়।

খুলনা মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট সারোয়ার আহমেদের আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয় বীনাপানি ভবনের মালিক প্রীতম। জবানবন্দি গ্রহণ শেষে তাকে জেলহাজতে পাঠানো হয়।

দৌলতপুর থানার ওসি হাসান আল মামুন বলেন, আদালতে দেয়া জবানবন্দিতে প্রীতম জানিয়েছে, হত্যার পর বস্তায় ভরে শিশুর লাশ প্রথমে গ্যারেজে সিমেন্টের বস্তার পাশে ও পরে গন্ধ ছড়িয়ে পড়লে বিউটি পার্লারের বাথরুমে লুকিয়ে রাখা হয়। ঘটনার সাথে আর কেউ জড়িত নয় বলে সে দাবি করে।

গত ২২ জানুয়ারি দুপুরে খেলার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয় স্কুলছাত্রী অঙ্কিতা। এরপর থেকে সে নিখোঁজ ছিল। ২৮ জানুয়ারি শিশুটির বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধারের পর প্রীতমসহ আটজনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য পুলিশ আটক করে। শুক্রবার রাতে প্রীতমকে মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়। আটক অন্য সাতজনকে ছেড়ে দেয়া হবে বলে ওসি জানান।

নিউজ ট্যাগ: খুলনা
Share

ঝিনাইদহে দুই মোটরসাইকেলে সংঘর্ষ, নিহত ৩

শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১




শ্রীপুরে প্রথম টিকা নিলেন এক প্রসূতি কর্মী ফিরোজা খাতুন

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১১১জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

শ্রীপুর (গাজীপুর) প্রতিনিধি:

গাজীপুরের শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে একজন নারী ও দুইজন পুরুষকে টিকাদানের মাধ্যমে কোভিড-১৯ এর ভ্যাকসিনেশন কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়েছে। গাজীপুর-৩ আসনের সাংসদ ইকবাল হোসেন সবুজ রবিবার সকাল ১১টায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আয়োজিত টিকাদান কেন্দ্রে এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

যে তিনজন টিকা গ্রহণ করেন তারা প্রত্যেকেই ওই হাসপাতালে কর্মরত। তাদের মধ্যে প্রথম একজন নারী। ফিরোজা খাতুন (৩২) নামে ওই নারী একই হাসপাতালের একজন প্রসূতিকর্মী। দ্বিতীয় টিকা গ্রহণ করেন স্বাস্থ্য সহকারী অমীরুজ্জামান (৪৭) ও চিকিৎসক নাজমুল আহসান (৩২)। তাদের টিকা প্রদান করেন নার্স সুপারভাইজার ফরিদা খাতুন ও সিনিয়র স্টাফ নার্স বিলকিস বেগম।

শ্রীপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. প্রণয় ভূষন বলেন, তাঁর উপজেলায় ৯ হাজার ডোজ টিকা সরবরাহ করা হয়েছে। সরবরাহকৃত ডোজ দিয়ে সাড়ে ৪ হাজার ব্যাক্তিকে টিকা দেওয়া সম্ভব। অনলাইনে ২০ জন তাদের হাসপাতালের অধীনে নিবন্ধন করেছেন। প্রত্যেককে শনিবার টিকা গ্রহণের জন্য জানানো হয়েছে। রবিবার সকাল ১১টায় কোভিড-১৯ টিকা প্রদানের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হয়েছে। এসময় উপস্থিত ছিলেন শ্রীপুর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট শামসুল আলম প্রধান, ভাইস চেয়ারম্যান মাহতাব উদ্দিন, শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) তাসলিমা মোস্তারী, শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খোন্দকার ইমাম হোসেন, শ্রীপুর রিপোর্টার্স ইউনিটির সভাপতি প্রভাষক আবু বকর সিদ্দিক আকন্দ, শ্রীপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি আলমগীর হোসেন, সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুর রহমান আকন্দ, শ্রীপুর উপজেলা সাংবাদিক সমিতির সভাপতি রায়হানুল ইসলাম আকন্দসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার নেতৃবৃন্দ। বিকেল তিনটা পর্যন্ত টিকা প্রদান করা হবে। পর্যায়ক্রমে নিবন্ধিত সকল কমিউনিটির লোকদেরকে টিকা প্রদান।

Share

লেখক মুশতাকের মৃত্যু, তদন্ত কমিটি গঠন

শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১




মিরপুর টেস্ট

টিকে থাকার চ্যালেঞ্জে বাংলাদেশ

প্রকাশিত:শনিবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৭০জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
এরই মধ্যে হাফসেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন মুশফিক। ৪৪.৩তম ওভারে রাকিম কর্নওয়ালের বল মিডঅনে সিঙ্গেল নিয়ে টেস্ট ক্যারিয়ারের ২২তম হাফসেঞ্চুরি তুলে নেন মুশফিক

মুশফিকুর রহিম ও মোহাম্মদ মিঠুনের ব্যাটে ভর করে মিরপুর টেস্টের তৃতীয় দিন মোটামুটি ভালোই শুরু করেছিল বাংলাদেশ। কিন্তু টিকে থাকার চ্যালেঞ্জে বেশিক্ষণ থিতু হতে পারলেন না মিঠুন। দিনের প্রথম ঘণ্টার শেষ দিকে সাজঘরে ফিরেছেন তিনি। মোট ১৩৯ মিনিট ব্যাট করে ৮৬ বলে ১৫ রান করে ফেরেন মিঠুন।

অবশ্য মিঠুন ফিরলেও এরই মধ্যে হাফসেঞ্চুরি তুলে নিয়েছেন মুশফিক। ৪৪.৩তম ওভারে রাকিম কর্নওয়ালের বল মিডঅনে সিঙ্গেল নিয়ে টেস্ট ক্যারিয়ারের ২২তম হাফসেঞ্চুরি তুলে নেন মুশফিক। এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বাংলাদেশের সংগ্রহ পাঁচ উইকেটে ১৪৭ রান। এখনো ২৬২ রানে পিছিয়ে আছে বাংলাদেশ। উইকেটে আছেন মুশফিক ও লিটন দাস।

মিরপুর টেস্টে আগে ব্যাট করে প্রথম ইনিংসে বিশাল সংগ্রহ গড়ে নিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। গতকাল শুক্রবার দিনের শেষ দিকে ব্যাটিংয়ে নেমে ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছেন মুমিনুল, সৌম্য, শান্তরা। দিন শেষে লড়াই করেছেন মুশফিকুর রহিম ও মোহাম্মদ মিঠুন। আজ দিনের শুরুতে ফিরে গেলেন মিঠুনও। গতকাল প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে ৩৬ ওভার ব্যাট করে চার উইকেটে ১০৫ রান নিয়ে দ্বিতীয় দিন শেষ করে বাংলাদেশ। ৩০৪ রানে পিছিয়ে থেকে আজ তৃতীয় দিন শুরু করেছে মুমিনুল হকের দল।

এর আগে প্রথম ইনিংসে ৪০৯ রানের বিশাল সংগ্রহ গড়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। রানের দেখা পেয়েছেন ক্যারিবীয় ব্যাটসম্যানেরা।

Share

মেসির জোড়া গোলে দুর্দান্ত জয়ে বার্সেলোনা

বৃহস্পতিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১




ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করবে মিষ্টি আলু

প্রকাশিত:শনিবার ৩০ জানুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১৬৭জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

মিষ্টি আলু সাদা, বেগুনি, খয়েরি, কমলা ও হলুদ রঙের হয়ে থাকে। তবে বেগুনি ও সাদাই বেশিরভাগ জায়গায় দেখা যায়। খাবারে স্বাদ বাড়ানো ছাড়াও এই সবজির একাধিক পুষ্টিগুণ রয়েছে।

সাধারণত কোনও পাঁচমিশালি তরকারি বা কোনও মিষ্টি ডিশে এই সবজি ব্যবহার করা হয়। খেতে যেহেতু মিষ্টি হয়, ফলে অনেকেই এটি এড়িয়ে যান। ডায়াবেটিস রোগীরাও এই সবজি এড়িয়েই যান। এই সবজিই কিন্তু ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করে। পাশাপাশি হজমের সমস্যাও দূর করে।

এই সবজিতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে। যা হজমে সাহায্য় করে এবং কোষ্ঠকাঠিন্যের সমস্যা দূর করে। এই সবজি খেলে পেট অনেক্ষণ পর্যন্ত ভর্তি থাকে। ফলে ওজন নিয়ন্ত্রণে থাকে ও ওবেসিটি কমায়। হজমে সমস্যার জন্য অনেকেরই মলত্যাগে সমস্যা হয়। এটি ডায়েটে রাখলে সেই সমস্যাও দূর হতে পারে।

মিষ্টি আলুতে ভিটামিন A, B, C, D, E ও K থাকে। যা অ্যান্টি-ইনফ্ল্যামেটরি  উপাদান হিসেবে আমাদের শরীরে কাজ করে। একাধিক সমস্যা দূর করে ও শরীর সুস্থ রাখে। এই আলুতে ক্যারটেনয়ডস নামের একটি উপাদান থাকে যা কোষের ক্ষয় রোধ করে। এই সবজিতে ভিটামিন E ও C থাকে। যা ত্বক ও চুল ভালো রাখতে সাহায্য করে। ত্বককে YV রশ্মি থেকে রক্ষা করে। ফলে ব়্যাশ, ত্বক কালো হয়ে যাওয়ার মতো সমস্যা থাকে না।

বেগুনি রঙের মিষ্টি আলুর উপরে করা একটি গবেষণা বলছে, এতে অ্যান্থোক্যায়ানিন থাকে যা ব্লাডার ক্যানসার, ব্রেস্ট ক্যানসার, গ্যাস্ট্রিক ক্যানসার রোধ করে। এই উপাদান যে কোনও ক্যানসারের কোষ মেরে ফেলে এবং ক্যানসারের ফলে কোষ নষ্ট হওয়ার পরিমাণ কমায়।

মিষ্টি আলুতে যেহেতু ফাইবার থাকে, তাই এটি ডায়াবেটিসও নিয়ন্ত্রণ করতে পারে। অনেকেই ডায়াবেটিস থাকলে মিষ্টি আলু এড়িয়ে যান। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এটা উচিৎ নয়। অল্প পরিমাণ মিষ্টি আলু দিনে একবার খাওয়া যেতেই পারে। ডায়াবেটিক রোগীদের কার্ডিওভাসকুলার সমস্যা হওয়া আশঙ্কা থাকে। ফাইবার উপাদানটি সেই থেকেও মুক্তি দেয়।

নিউজ ট্যাগ: ডায়াবেটিস
Share

আলু দিয়ে হয়ে উঠুন আকর্ষণীয়

শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১

বরই খাবেন কেন ?

শনিবার ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১

তারুণ্য আটকে রাখার ৫ উপায়

মঙ্গলবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২১




শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা মামলার রায় আজ

প্রকাশিত:বুধবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:বুধবার ১৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৬৩জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
এর আগে ২০১৮ সালের ২ এপ্রিল বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেনের বেঞ্চে শুনানি শুরু হয়। কিন্তু প্রধান বিচারপতি বেঞ্চ পুনর্গঠন করায় মামলার শুনানি বন্ধ হয়ে যায়

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় দুই দশক আগে বোমা পুঁতে রেখে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা মামলার রায় আজ দেবেন হাইকোর্ট। এর আগে গত ১ ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্র ও আসামি পক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শেষে হাইকোর্টের বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি মো. বদরুজ্জামানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারি) দিন ধার্য করেন। সে অনুযায়ী হাইকোর্টে তাদের দুজনের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ রায় ঘোষণা করবেন। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ড. মো. বশির উল্লাহ নিশ্চিত করেছেন।

গত ১ ফেব্রুয়ারি আদালতে রাষ্ট্রপক্ষের প্রধান আইন কর্মকর্তা এএম আমিন উদ্দিন শুনানি করেন। তার সঙ্গে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিৎ দেবনাথ ও ড. মো. বশির উল্লাহ, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মিজানুর রহমান খান শাহীন, মো. শাহীন আহমেদ মৃধা, আশিকুজ্জামান বাবু, শাফায়াত জামিল ও সৈয়দা জাহিদা সুলতানা রত্না। আসামিপক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট এস এম শাহজাহান, মোহাম্মদ আহসান, মো. নাসির উদ্দিন ও অমূল্য কুমার সরকার (স্টেট ডিফেন্স আইনজীবী)।

ওই দিন যুক্তিতর্ক শুনানির শেষ দিনে অ্যাটর্নি জেনারেল এএম আমিন উদ্দিন আসামিদের মৃত্যুদণ্ড বহাল রাখার আর্জি জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আসামিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া প্রয়োজন।

এর আগে ২০১৮ সালের ২ এপ্রিল বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি মো. জাহাঙ্গীর হোসেনের বেঞ্চে শুনানি শুরু হয়। কিন্তু প্রধান বিচারপতি বেঞ্চ পুনর্গঠন করায় মামলার শুনানি বন্ধ হয়ে যায়। পরবর্তীতে ২০২০ সালের ১৭ জানুয়ারি বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি মো. রিয়াজ উদ্দিন খানের হাইকোর্ট বেঞ্চে নতুন করে শুনানি শুরু হয়। এই আদালতে মামলাটি বিচারাধীন থাকা অবস্থায় রাষ্ট্রপক্ষ কয়েকদফা সময় নেয়। পরবর্তীতে এই বেঞ্চও পুনর্গঠন করা হলে শুনানি থমকে যায়। এ অবস্থায় আবারও বেঞ্চ পুনর্গঠন করা হয়। সর্বশেষ গঠিত বেঞ্চে ২০২০ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর থেকে নতুন করে শুনানি শুরু হয়।

মামলা সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যাচেষ্টা মামলায় ২০১৭ সালের ২০ আগস্ট ঢাকার দ্রুতবিচার ট্রাইব্যুনাল-২-এর বিচারক মমতাজ বেগম ১০ জঙ্গির মৃত্যুদণ্ড দিয়ে রায় দেন। এছাড়া চার আসামিকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড দেয়া হয়। এ মামলার রায়সহ সব নথি ওই বছরের ২৪ আগস্ট হাইকোর্টে পাঠানো হয়। এরপর প্রধান বিচারপতির কাছে নথি উপস্থাপন করা হলে তিনি জরুরি ভিত্তিতে পেপারবুক তৈরির নির্দেশ দেন। মামলাটি শুনানির জন্য প্রস্তুত শেষে কার্যতালিকায় দেয়া হয়।

মামলায় মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন- ওয়াসিম আকতার, রাশেদ ড্রাইভার ওরফে আবুল কালাম, ইউসুফ ওরফে আবু মুসা হারুন, শেখ ফরিদ ওরফে মাওলানা শওকত ওসমান, হাফেজ জাহাঙ্গীর আলম বদর, মাওলানা আবু বক্কর, হাফেজ মাওলানা ইয়াহিয়া, মুফতি শফিকুর রহমান, মুফতি আবদুল হাই ও মাওলানা আবদুর রউফ ওরফে আবু ওমর। এছাড়া মেহেদি হাসান ওরফে আবদুল ওয়াদুদকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেয়া হয়েছে। আনিসুল ওরফে আনিস, মো. মহিবুল্লাহ ওরফে মফিজুর রহমান এবং সরোয়ার হোসেন মিয়াকে ১৪ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড ও ১০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছরের দণ্ড দেয়া হয়।

প্রসঙ্গত, ২০০০ সালের ২০ জুলাই গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ায় তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সমাবেশস্থলের পাশে তাকে হত্যার উদ্দেশ্যে ৭৬ কেজি ওজনের বোমা পুঁতে রাখা হয়। শেখ লুৎফর রহমান মহাবিদ্যালয়ের উত্তর পাশের একটি চায়ের দোকানের পেছনে এ বোমা বিস্ফোরণের মাধ্যমে শেখ হাসিনাকে হত্যার পরিকল্পনা করা হয়েছিল বলে তদন্তে উঠে আসে। এ ঘটনায় তৎকালীন কোটালীপাড়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নূর হোসেন মামলা দায়ের করেন। ২০০১ সালের ৮ এপ্রিল ১৬ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দেয়া হয়। পরবর্তীকালে ২০০৯ সালের ২৯ জুন আরও নয়জনকে আসামি হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করে সম্পূরক অভিযোগপত্র দেয়া হয়। এরপর ২০১০ সালে মামলাটি নিষ্পত্তির জন্য ঢাকা-২ নম্বর দ্রুতবিচার ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়। সেখানে এই মামলার বিচার সম্পন্ন হয়।

Share



হারিছ-আনিসকে ক্ষমা নিয়মের বাইরে নয় : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৭৫জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের দুই ভাই হারিছ আহমেদ ও আনিস আহমেদকে যাবজ্জীবন সাজা থেকে অব্যাহতি দেয়ার ক্ষেত্রে কোনো আইনের লঙ্ঘন হয়নি বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল।

বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজধানীর মগবাজারে একটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নতুন ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

সেখানে সাংবাদিকদের প্রশ্ন ছিল, ৪০১ ধারায় আসামি হারিছ ও আনিসের সাজা মওকুফ করার বিষয়ে সঠিক প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হয়েছে কি না? স্পর্শকাতর বিষয়টি এতদিন কেন গোপন রাখা হলো?

জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ৪০১ ধারার সকল নিয়ম মেনেই দুই আসামিকে সাজা থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। আসামিদের পরিবারের পক্ষ থেকে যথাযথ আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে সরকার এ সিদ্ধান্ত নেয়। তবে আসামিদের পক্ষ থেকে কে এই আবেদন করেছে সে বিষয়ে কিছু বলেননি মন্ত্রী।

হারিসের নাম পুলিশের ওয়েবসাইটে ওয়ান্টেড হিসেবে এখনো কেন রয়েছে সে বিষয়ে জানতে চাইলে মন্ত্রী বলেন, কমিউনিকেশন গ্যাপের কারণে পুলিশের ওয়েবসাইটে ওয়ান্টেড হিসেবে হারিছের নাম ও ছবি তালিকাভুক্ত রয়েছে।

পলাতক এই দুই আসামির মুক্তির বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কোন গোপনীয়তা ছিল না বলেও জানান আসাদুজ্জামান খান কামাল।

Share