আজঃ বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১
শিরোনাম

কোথায় কখন হবে ঈদের জামাত

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ জুলাই ২০21 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২০ জুলাই ২০21 | ১১৪জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

আগামীকাল বুধবার (২১ জুলাই) দেশব্যাপী পবিত্র ঈদুল আজহা। করোনা সংক্রমণ রোধে এরই মধ্যে ঈদের জামাত নিয়ে নতুন নির্দেশনা দিয়েছে সরকার। ঈদুল আজহার জামাত স্বাস্থ্যবিধি মেনে শর্তসাপেক্ষে ঈদগাহ, খোলা জায়গা ও মসজিদে আদায় করা যাবে।

করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় গতবারের মতো এবারও রাজধানীর জাতীয় ঈদগাহ ময়দান এবং ঐতিহাসিক শোলাকিয়া ঈদগাহ ময়দানে ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হচ্ছে না।

বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদে এবার পাঁচটি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম জামাত সকাল ৭টায়, দ্বিতীয় জামাত সকাল ৮টায়, তৃতীয় জামাত সকাল ৯টায়, চতুর্থ জামাত সকাল ১০টায়, পঞ্চম ও সর্বশেষ জামাত বেলা পৌনে ১১টায় হবে। ইসলামিক ফাউন্ডেশনের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব কথা বলা হয়েছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) কেন্দ্রীয় মসজিদ মসজিদুল জামিআয় পবিত্র ঈদুল আজহার জামাত সকাল ৮টায় অনুষ্ঠিত হবে। জামাতে ইমামতি করবেন মসজিদের সিনিয়র ইমাম খতিব ড. সৈয়দ মুহাম্মদ এমদাদ উদ্দীন।

মহাখালীস্থ মসজিদে গাউছুল আজম কমপ্লেক্সে এবারও স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে চারটি ঈদ জামাত অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া সকাল ৭ টা ৩০ মিনিটে আশুলিয়ার বলিভদ্র বাজার জামে মসজিদে এবং সকাল ৯ টায় কাজলাপাড় ভাঙ্গাপ্রেস বায়তুল জান্নাত জামে মসজিদে ঈদুল আজহার জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

রাজশাহীর শাহ মখদুম রহ: দরগা মসজিদে দুটি জামাত হবে। প্রথম জামাতটি সকাল সাড়ে ৭টায়। পরেরটি ৮টায়।

খুলনায় টাউন জামে মসজিদে প্রধান ও প্রথম জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায়। দ্বিতীয় জামাত সকাল ৯টায় এবং তৃতীয় ও শেষ জামাত সকাল ১০টায় অনুষ্ঠিত হবে। এদিকে খুলনা সিটি করপোরেশন পরিচালিত বায়তুন নূর জামে মসজিদ কমপ্লেক্সে সকাল ৮টা ১৫ মিনিটে প্রথম ও সকাল ৯টা ১৫ মিনিটে দ্বিতীয় জামাত অনুষ্ঠিত হবে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় জামে মসজিদে সকাল ৭টায় ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে।

সিলেট হজরত শাহজালাল রহ: মাজার মসজিদে ঈদের জামাত অনুষ্ঠিত হবে সকাল ৮টায়। একই সময়ে হজরত শাহপরান রহ: মাজার মসজিদ ও গাজী বুরহান উদ্দিন রহ: মাজার মসজিদে ঈদের জামাত হবে। বন্দর বাজারের কুদরত উল্লাহ জামে মসজিদে সকাল ৭টা, ৮টা ও ৯টায় জামাত অনুষ্ঠিত হবে।



আরও খবর



কিংবদন্তি কথাসাহিত্যিক হুমায়ূন আহমেদের নবম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

প্রকাশিত:সোমবার ১৯ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৯ জুলাই ২০২১ | ৯৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

নন্দিত কথাশিল্পী ও নির্মাতা হ‌ুমায়ূন আহমেদের নবম মৃত্যুবার্ষিকী আজ। ২০১২ সালের এই দিনে যুক্তরাষ্ট্রে চিকিৎসাধীন অবস্থায় না ফেরার দেশে পাড়ি জমান কিংবদন্তি এ কথাসাহিত্যিক। হুমায়ূন আহমেদের মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে সীমিত পরিসরে গাজীপুরের নুহাশপল্লীতে কিছু আয়োজন থাকছে আজ।

নুহাশপল্লীর ম্যানেজার সাইফুল ইসলাম বুলবুল জানান, সোমবার সকালে নুহাশপল্লীতে কোরআনখানির আয়োজন করা হয়েছে। এরপর হুমায়ূন আহমেদের কবরে ফুল দেওয়া হবে। প্রতি বছর এতিম বাচ্চাদের খাওয়ানোর যে আয়োজন হয়, তা এ বছর হচ্ছে না। এই বাবদ যে টাকা খরচ হয় তা, এবার গরিব মানুষের মধ্যে বিতরণ করা হবে। ঈদের আগেই সেই টাকা বিতরণ হবে। হুমায়ূন আহমেদের স্ত্রী অভিনেত্রী মেহের আফরোজ শাওন সকালে নুহাশপল্লীতে যাবেন বলেও জানা গেছে।

হুমায়ূন আহমেদের শরীরে ২০১১ সালের সেপ্টেম্বর মাসে মরণব্যাধি ক্যানসার ধরা পড়ে। এরপর তিনি উন্নত চিকিৎসার জন্য যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে যান। সেখানে ২০১২ সালের ১৬ জুলাই তিনি চলে যান লাইফ সাপোর্টে। ১৯ জুলাই বাংলাদেশ সময় রাত সাড়ে ১১টায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। ২৩ জুলাই দেশে ফিরিয়ে আনা হয় হুমায়ূন আহমেদের লাশ। ২৪ জুন তাকে দাফন করা হয় তার গড়ে তোলা গাজীপুরের নুহাশপল্লীর লিচুতলায়।

হুমায়ূন আহমেদ ১৯৪৮ সালের ১৩ নভেম্বর নেত্রকোনা জেলার কেন্দুয়া উপজেলার কুতুবপুরে জন্মগ্রহণ করেন। ডাকনাম কাজল। বাবা ফয়জুর রহমান আহমেদ ও মা আয়েশা ফয়েজের প্রথম সন্তান তিনি। বাবা ফয়জুর রহমান আহমেদ ছিলেন পুলিশ কর্মকর্তা আর মা গৃহিণী। তিন ভাই ও দুই বোনের মধ্যে তিনি সবার বড়। কথাসাহিত্যিক জাফর ইকবাল তার ছোট ভাই। সবার ছোট ভাই আহসান হাবীব নামকরা কার্টুনিস্ট ও রম্যলেখক। তার পরিচালিত চলচ্চিত্রের মধ্যে রয়েছে আগুনের পরশমণি, শ্যামল ছায়া, শ্রাবণ মেঘের দিন, দুই দুয়ারী, চন্দ্রকথা, নয় নম্বর বিপদসংকেত, ঘেটুপুত্র কমলা সহ প্রভৃতি।

বাংলা সাহিত্যে অসামান্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ তিনি ১৯৯৪ সালে একুশে পদক লাভ করেন। এ ছাড়া তিনি বাংলা একাডেমি পুরস্কার (১৯৮১), হুমায়ূন কাদির স্মৃতি পুরস্কার (১৯৯০), লেখক শিবির পুরস্কার (১৯৭৩), জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার (১৯৯৩ ও ১৯৯৪), বাচসাস পুরস্কার (১৯৮৮) লাভ করেন।

নিউজ ট্যাগ: হুহমায়ূন আহমেদ

আরও খবর



করোনার তৃতীয় ঢেউ শুরু, ডেল্টা নিয়ে সতর্ক করল ডব্লিউএইচও

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১৫ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:বৃহস্পতিবার ১৫ জুলাই ২০২১ | ১১৩জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image
ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট ১১১টির বেশি দেশে পৌঁছে গেছে। আমরা ধারণা করছি, এটি শিগগিরই বিশ্বজুড়ে করোনার সবচেয়ে প্রভাবশালী ধরন হিসেবে আবির্ভূত হবে, যদি না তা ইতোমধ্যেই হয়ে গিয়ে থাকে

করোনাভাইরাস মহামারির তৃতীয় ঢেউ শুরু হয়ে গেছে। আমরা এখন এর প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছি বলে সতর্ক করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। তারা বলেছে, এবারের ঢেউয়ে বড় আতঙ্কের কারণ হতে পারে অতিসংক্রামক ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট। বার্তা সংস্থা এএনআইয়ের বরাত দিয়ে এসব তথ্য জানিয়েছে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি।

গত বুধবার ডব্লিউএইচও প্রধান তেদ্রোস আধানম গ্যাব্রিয়েসুস বলেছেন, দুর্ভাগ্যজনকভাবে আমরা বর্তমানে করোনা মহামারির তৃতীয় ঢেউয়ের প্রাথমিক পর্যায়ে রয়েছি। তার মতে, করোনায় মৃত্যু ও সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার পেছনে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টের বিস্তারের পাশাপাশি সামাজিক গতিশীলতা এবং প্রমাণিত স্বাস্থ্য ব্যবস্থার অসামঞ্জস্য ব্যবহার বৃদ্ধির বড় ভূমিকা রয়েছে।

গ্যাব্রিয়েসুস জানান, ভাইরাসটি বিকশিত হওয়া অব্যাহত রেখেছে, যার মাধ্যমে অধিক সংক্রামক ধরনগুলো তৈরি হচ্ছে। তিনি বলেন, ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট ১১১টির বেশি দেশে পৌঁছে গেছে। আমরা ধারণা করছি, এটি শিগগিরই বিশ্বজুড়ে করোনার সবচেয়ে প্রভাবশালী ধরন হিসেবে আবির্ভূত হবে, যদি না তা ইতোমধ্যেই হয়ে গিয়ে থাকে।

গত সপ্তাহে টানা চতুর্থ সপ্তাহের মতো বিশ্বজুড়ে করোনা সংক্রমণের হার বাড়তে দেখা গেছে। এর মধ্যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ছয়টি অঞ্চলের মধ্যে একটি বাদে সবগুলোতেই রেকর্ড সংখ্যক সংক্রমণ হয়েছে। টানা ১০ সপ্তাহ কমার পর সম্প্রতি করোনায় মৃত্যুও ফের বাড়তে শুরু করেছে।

করোনার এই ভয়াবহতা ঠেকাতে টিকাদানের বিকল্প নেই বলে মনে করিয়ে দিয়েছেন ডব্লিউএইচও প্রধান। আগামী সেপ্টেম্বরের মধ্যে প্রতিটি দেশের অন্তত ১০ শতাংশ মানুষকে করোনা টিকার আওতায় আনতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার আহ্বানের কথাও ফের উল্লেখ করেন তিনি।


আরও খবর
ভারতে আবারও বেড়েছে মৃত্যু

বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১




সপ্তাহে তিন দিন ফেরা যাবে ভারত থেকে

প্রকাশিত:সোমবার ০৫ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০৫ জুলাই ২০২১ | ১২৭জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

এখন থেকে সপ্তাহে তিন দিন ভারত থেকে পাসপোর্টধারী যাত্রীরা বাংলাদেশে আসতে পারবেন। এ ধরনের একটি আদেশ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে বেনাপোল ইমিগ্রেশনে এসেছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বেনাপোল ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহসান হাবিব।

আদেশে সপ্তাহের রবিবার, মঙ্গলবার ও বৃহস্পতিবার শুধুমাত্র ভারত থেকে যাত্রীরা দেশে ফিরতে পারবেন বলে জানানো হয়। এ আদেশের ফলে শনিবার (৩ জুলাই) সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত কোনো বাংলাদেশি বা ভারতীয় যাত্রী বাংলাদেশে আসতে পারেনি।

বেনাপোল চেকপোস্ট ইমিগ্রেশনের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহসান হাবিব বলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে একটি আদেশ আমার দফতরে এসেছে। আদেশে বলা হয়েছে এখন থেকে সপ্তাহে তিনদিন ভারত থেকে ভারতীয় হোক আর বাংলাদেশি যাত্রী হোক সপ্তাহে রবিবার, মঙ্গলবার ও বৃহস্পতিবার এই তিনদিন বাংলাদেশে ফিরতে পারবেন। এ সময় তাদেরক অবশ্যই আরটিপিসিআর সনদ এবং ভারতীয় হাইকমিশনারের এনওসি সঙ্গে আনতে হবে। এ আদেশ কার্যকর হওয়ায় আজ কোনো যাত্রী ভারত থেকে বাংলাদেশে প্রবেশ করেনি।

তবে বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার থেকে এনওসি নিয়ে ১১ জন বাংলাদেশি ও ২ জন ভারতীয় ভারতে ফিরেছেন বলেও জানান তিনি।


আরও খবর



কর্মস্থলে হিজাব নিষিদ্ধের আদেশ জার্মানিতে

প্রকাশিত:শনিবার ১৭ জুলাই ২০২১ | হালনাগাদ:শনিবার ১৭ জুলাই ২০২১ | ৮২জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ইউরোপের একটি শীর্ষ আদালত কর্মস্থলে মুসলিম নারীদের হিজাব নিষিদ্ধের আদেশ দিয়েছেন।

তবে, এ ক্ষেত্রে একটি শর্ত জুড়ে দেয়া হয়েছে। নিয়োগকারী প্রতিষ্ঠানের ইচ্ছার ওপর এ হিজাব নিষিদ্ধের বিয়ষটি নির্ভর করবে বলে রায়ে বলা হয়েছে। খবর আরব নিউজের।

জার্মানির একটি আদালত বৃহস্পতিবার ওই আদেশ দেন।দেশটির দুই মুসলিম নারীর দায়ের করা মামলায় ওই রায় প্রদান করেন আদালত।

আদালতের দ্বারস্থ হওয়া ওই দুই মুসলিম নারীকে হিজাব পড়ায় চাকরিচ্যুৎ করা হয়। এর প্রতিকার পেতে তারা আদালতে গেলে প্রতিষ্ঠানের পক্ষেই রায় দেন জার্মানির ওই আদালত।  

রায়ে আদালত আরও বলেন, কর্মস্থলে নিজের অবয়ব ঢেকে রাখা আইনবিরোধী কাজ। সেবাদানকারীকে অবশ্যই মুখমণ্ডল খোলা রাখতে হবে।

রাজনৈতিক বা ধর্মীয় কারণে কোনোভাবেই কর্মক্ষেত্রে নিজের মুখ ঢেকে রাখা যাবে না। এ ক্ষেত্রে নিয়োগদানকারী প্রতিষ্ঠান চাইলে ওই কর্মীকে  ছাটাই করতে পাড়বে বলে আদেশে বলা হয়।

ওই দুই মুসলিম নারী জার্মানির হ্যামবার্গে একটি শিশু পরিচর্যা কেন্দ্রে কাজ করতেন। হিজাব পড়ার কারণে সম্প্রতি তাদের চাকরিচ্যুৎ করা হয়।

এর আগে ২০১৭ সালে লুক্সেমবার্গে অবস্থিত ইউরোপীয় আদালত এক আদেশে বলেন, কর্মক্ষেত্রে মাথায় স্কার্ফসহ ধর্মীয় পরিচয় বহন করে এমন কিছু পড়া যাবে না।

ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ওই রায়ের বিরুদ্ধে মুসলিম সংগঠনগুলো বিক্ষোভ মিছিল করেছিলো।



আরও খবর
ভারতে আবারও বেড়েছে মৃত্যু

বুধবার ০৪ আগস্ট ২০২১




আজও ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে তীব্র যানজট

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২০ জুলাই ২০21 | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২০ জুলাই ২০21 | ৭৯জন দেখেছেন
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

অতিরিক্ত যানবাহন ও ঈদে ঘরমুখো মানুষের চাপে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়কে উত্তরবঙ্গমুখী লেনের ৩৫ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়েছে। মঙ্গলবার (২০ জুলাই) ভোর রাত থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু থেকে টাঙ্গাইল সদর উপজেলার করাতিপাড়া পর্যন্ত ৩৫ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে যানজটের সৃষ্টি হয়।

মহাসড়কের করাতিপাড়া, রাবনা, রসুলপুর, পৌলি ও এলেঙ্গা এলাকায় যানজটে স্থবির হয়ে গেছে। মাঝে মাঝে ঢাকামুখী লেনে গাড়ি চললেও উত্তরবঙ্গমুখী গাড়ি আটকে রয়েছে। গণপরিবহন চললেও অনেকেই ঝুঁকি নিয়ে ট্রাকের ওপরে যাতায়াত করছেন। যানজটের কারণে চালক ও যাত্রীদের পোহাতে হচ্ছে চরম ভোগান্তি। বিশেষ করে নারী ও শিশুদের ভোগান্তি অনেক বেশি হচ্ছে। এছাড়াও গরু নিয়ে উত্তরাঞ্চল থেকে ঢাকা অভিমুখী যাত্রা করা ব্যবসায়ীরা পড়েছেন চরম বিপাকে। সড়কেই কেটে যাচ্ছে ঘণ্টার পর ঘণ্টা।

বাসচালক আলী আজগর বলেন, ১৪ দিন বাস বন্ধ থাকার পর ঈদ উপলক্ষে খুলে দিয়েছে। তাও আবার যানজট। এক কিলোমিটার এলাকা আসতে এক ঘণ্টা সময় লেগেছে। ঈদের আগে শুধু ভোগান্তি আর ভোগান্তি।

ট্রাকচালক শরীফ বলেন, গতকাল সোমবার পৌলি থেকে বঙ্গবন্ধু সেতু পর্যন্ত যেতে আমার প্রায় ৬ ঘণ্টা সময় লেগেছে। রাতে মহাসড়ক স্বাভাবিক থাকলেও আজ মঙ্গলবার (২০ জুলাই) একই অবস্থা।

টাঙ্গাইল জেলা পুলিশ সূত্রে জানা যায়, ঈদে যানজট নিরসনে মহাসড়কে ৬শ ৩০ জন পুলিশ দায়িত্ব পালন করছে। এছাড়া দুই শতাধিক হাইওয়ে পুলিশ রয়েছে মহাসড়কটিতে।

এ ব্যাপারে এলেঙ্গা হাইওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইয়াসির আরাফাত জানান, মহাসড়কে ভোর থেকে গাড়ির চাপ রয়েছে। বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যানচলাচল স্বাভাবিক হবে বলে আশা করছেন তিনি।

 


আরও খবর