আজঃ সোমবার ০৮ মার্চ ২০২১
শিরোনাম

করোনাভাইরাসের টিকা পেতে অ্যাপসে নিবন্ধন করবেন যেভাবে

প্রকাশিত:সোমবার ২৫ জানুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৩১৫জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

করোনাভাইরাসের টিকা পেতে আগ্রহীরা সুরক্ষা প্ল্যাটফর্মের ওয়েব অ্যাপ্লিকেশনে গিয়ে অথবা মোবাইলে অ্যাপ ডাউনলোড করে নিবন্ধনের কাজটি সারতে পারবেন বলে জানিয়েছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব এন এম জিয়াউল আলম।

যাদের ইন্টারনেট সুবিধা বা অ্যাপ ব্যবহারের মতো ডিভাইস নেই, তাদের জন্যও বিকল্প ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন তিনি। সচিব বলেন, আগ্রহীদের ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারে ফ্রি নিবন্ধন করার সুযোগ দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে।

এই টিকা নিতে রিয়েল টাইম অ্যাপটি ফ্রি ডাউনলোড করা যাবে (www.surokkha.gov.bd)। নিবন্ধনের পর সেখান থেকেই জানা যাবে, কবে কখন টিকা নিতে হবে। তবে শুধু ১৮ বছরের বেশি বয়সী মানুষেরা এই টিকা নিতে পারবেন এবং নিবন্ধন করতে পারবেন। কারণ অপ্রাপ্তবয়স্কদের ওপর অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার টিকার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল হয়নি।

পরিচয় যাচাইয়ে এই অ্যাপে ১৮টি শ্রেণি করা হয়েছে, যার একটি সিলেক্ট করার পর জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর ও জন্ম তারিখ দিয়ে নিবন্ধন শুরু করতে হবে।

নিবন্ধন প্রক্রিয়া

*জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর যাচাই করে সব ঠিক থাকলে স্ক্রিনে নিবন্ধনকারীর নাম দেখানো হবে বাংলা ও ইংরেজিতে। সেখানে একটি ঘরে একটি মোবাইল ফোন নম্বর চাওয়া হবে, যে নম্বরে তাকে পরবর্তীতে টিকাদান সংক্রান্ত তথ্য এসএমএস করা হবে।

*মোবাইল নম্বর দেয়ার পর একটি ঘর পূরণ করতে হবে, যেখানে জানাতে হবে নিবন্ধনকারীর দীর্ঘমেয়াদী রোগ বা কো-মরবিডিটি আছে কি না, থাকলে কোন কোন রোগ আছে।

*সেখানে আরেকটি ঘরে জানাতে হবে পেশা এবং তিনি কোভিড-১৯ সংক্রান্ত কাজে সরাসরি জড়িত কি না।

*তারপর বর্তমান ঠিকানা ও কোন কেন্দ্র থেকে টিকা নিতে ইচ্ছুক তা সিলেক্ট করতে হবে।

*সবশেষে ফরম সেভ করলে নিবন্ধনকারীর দেয়া মোবাইল নম্বরে পাঠানো হবে ওটিপি। সেই ওটিপি কোড দিয়ে স্ট্যাটাস যাচাই বাটনে ক্লিক করলে নিবন্ধনের কাজ শেষ হবে।

*নিবন্ধন হয়ে গেলে টিকার প্রথম ডোজের তারিখ ও কেন্দ্রের নাম এসএমএস-এর মাধ্যমে জানিয়ে দেয়া হবে।

*এরপর জাতীয় পরিচয়পত্রের নম্বর, জন্ম তারিখ দিয়ে লগ ইন করে এসএমএস-এর মাধ্যমে পাওয়া ওটিপি কোড দিয়ে টিকা কার্ড ডাউনলোড করতে হবে।

*এসএমএস-এ যে তারিখ দেয়া হবে, সেই তারিখে টিকা কার্ড ও জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে নির্ধারিত টিকাদান কেন্দ্রে উপস্থিত হয়ে কোভিড-১৯-এর টিকা নিতে পারবেন নিবন্ধনকারীরা।

এভাবে দুটি ডোজ শেষ হলে সুরক্ষা প্ল্যাটফর্মের ওয়েব অ্যাপ্লিকেশন থেকে ভ্যাকসিনপ্রাপ্তির সনদ সংগ্রহ করা যাবে।

Share

আরও খবর



কুষ্টিয়ায় হাইওয়ে পুলিশের চাঁদাবাজি এখন প্রকাশ্যে

প্রকাশিত:শনিবার ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১২৩জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কুষ্টিয়া থেকে এস এম সুমন

কুষ্টিয়ায় হাইওয়ে পুলিশের চাঁদাবাজি এখন প্রকাশ্যে। মহাসড়কে যান চালাতে হলেই চাঁদা দিতে হবে। এমন রীতিই চালু করেছেন কুষ্টিয়া হাইওয়ে পুলিশ। মেনেও নিয়েছে যান চালকেরা। প্রতিনিয়তই দিচ্ছেন চাঁদা। কুষ্টিয়ার মহাসড়কে অবৈধ যানগুলোও টাকার বিনিময়ে পাচ্ছে বৈধতা।

অনুসন্ধানে দেখা যায়, কুষ্টিয়া হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ জুলহাসের নেতৃত্বে টিম গঠনেরর মাধ্যমে প্রতিদিনই বিভিন্ন ধরনের যানবাহন থেকে তোলা হচ্ছে প্রকাশ্যে চাঁদা।

মহাসড়কে চলাচলরত মালামাল বহনকারী প্রতিটি ট্রাক থেকে তোলা হচ্ছে ২০০ থেকে ২০০০ টাকা।

যার সত্যতা মিলেছে অনুসন্ধানী টিমের ভিডিও ফুটেজে। যেখানে দেখা যাচ্ছে হাইওয়ে পুলিশের সদস্যরা মহাসড়কে চলাচলরত প্রতিটি যান থেকে তুলছেন টাকা।

এছাড়াও অভিযোগ রয়েছে কুষ্টিয়া মহাসড়কে অবৈধ ব্যাটারি চালিত অটো, নসিমন, করিমনসহ তিন চাকার স্টারিংযুক্ত যানগুলো নির্বিঘ্নে চালাতে হাইওয়ে পুলিশকে দিতে হয় নিয়মিত মাসোহারা।

যদিও সরকার মহাসড়কে অবৈধ যানচলাচল বিধিনিষেধ আরোপ করেছেন তবুও কুষ্টিয়ায় মহাসড়কে অবৈধ যানগুলো চলছে হরহামেসাই।

এ বিষয়ে ভুক্তভোগী একাধিক ট্রাক ড্রাইভার অভিযোগ করে বলেন, মহাসড়কে গাড়ী চালাতে হলে প্রতিনিয়তই হাইওয়ে পুলিশকে চাঁদা দিতে হয়। কোনো যানে ১০০ কোনো যানে ২০০ বা তারও বেশী দিতে হয়।

এ বিষয়ে প্রত্যক্ষদর্শী এক বৃদ্ধ জানায়, কুষ্টিয়া বাইপাস সড়কে হাইওয়ে পুলিশের সদস্যরা প্রতিনিয়তই চলাচলরত যান থেকে টাকা তুলে যা শুধু আজ নয়,প্রতিদিনেরই বিষয়।

অন্যদিকে কুষ্টিয়া ঝিনাইদহ মূল হাইওয়েতে যেসকল সিএনজি চলছে তারা অফিসার ইনচার্জ জুলহাসের সাথে প্রতিমাসে ১০ হাজার টাকা করে কন্টাক করে চালিয়ে যাচ্ছে।

অপরদিকে কুষ্টিয়া কুমারখালী খোকসা পর্যন্ত যে সমস্ত সিএনজি চলছে সেগুলোও ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা কন্টাকের মাধ্যমে চলছে বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সিএনজি ড্রাইভার জানিয়েছে।

এ বিষয়ে কুষ্টিয়া হাইওয়ে পুলিশের ইনচার্জ জুলহাস বলেন, এ ধরনের অভিযোগ সত্য নয়। হাইওয়ে পুলিশ মহাসড়কে কোন ধরনের টাকা উত্তোলন করে না।

এ বিষয়ে মাদারীপুর রিজিওনাল অফিসের হাইওয়ে পুলিশের পুলিশ সুপার বলেন, আমি বিষয়টি দেখছি, যদি সত্য হয় জরুরী ভিত্তিতে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

চাঁদাবাজির বিষয়টি নিয়ে প্রতিটা ট্রাক মালিক ড্রাইভার হেলপার অটো, নসিমন করিমন আলমসাধুর চালকসহ এলাকাবাসী সবাই অফিসার ইনচার্জ জুলহাসের উপর ক্ষুব্ধ। তারা উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করে বলেন, এই অফিসার ইনচার্জ জুলহাসের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আবেদন জানান।

Share

আরও খবর
করোনায় আক্রান্ত ইবি শিক্ষকের মৃত্যু

বৃহস্পতিবার ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১




ভোট শুরুর আগমুহূর্তে কাউন্সিলর প্রার্থীকে অপহরণ

প্রকাশিত:রবিবার ১৪ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৯৩জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চট্টগ্রামের পটিয়া পৌরসভা নির্বাচনে ভোট শুরুর আগমুহূর্তে এক কাউন্সিলর প্রার্থীকে অপহরণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

রবিবার ভোর ৬টার দিকে ১ নম্বর ওয়ার্ডের এই প্রার্থীকে একটি গাড়িতে তুলে নেওয়া হয়। এছাড়া এই পৌরসভায় একাধিক ভোটকেন্দ্রে সংঘর্ষের খবর পাওয়া গেছে। এমনকি এই ওয়ার্ডের একটি কেন্দ্রে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনাও ঘটেছে।

অপহরণের শিকার কাউন্সিলর প্রার্থীর নাম আবদুল খালেক। তিনি ১ নম্বর ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর।  স্থানীয় আওয়ামী লীগ এবার তাকে সমর্থন দেয়নি।  তিনি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছিলেন।

আবদুল খালেকের চাচাতো ভাই শামসুল আলম গণমাধ্যমকে বলেন,  আল্লাই ওষাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশের একটি মাজার জিয়ারত করছিলেন প্রার্থী আবদুল খালেক ও তার সমর্থকরা। মাজার জিয়ারতের পরপরই ১০ থেকে ২০ জন যুবক এসে তাদের মোবাইল ফোন কেড়ে নেয়। কাউন্সিলর প্রার্থী আবদুল খালেককে সাদা একটি গাড়িতে করে কক্সবাজারমুখী সড়কে নিয়ে চলে যায়।

জানা গেছে, পটিয়া পৌরসভার বর্তমান কাউন্সিলর আবদুল খালেকসহ এ ওয়ার্ডে তিনজন কাউন্সিলর প্রার্থী, যারা সবাই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত।  আবদুল খালেক এবার দলীয় সমর্থন পাননি।

এ বিষয়ে পটিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রেজাউল করিম মজুমদার বলেন, তিনি আবদুল খালেককে তুলে নেওয়ার অভিযোগ পেয়েছেন। এ বিষয়ে খোঁজ নেওয়া হচ্ছে।  বেলা ২ টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ওই প্রার্থীর কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।

এছাড়া এই ওয়ার্ডের আল্লাই ওষাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পুরুষ কেন্দ্রে ককটেল বিস্ফোরণ ঘটেছে। প্রিসাইডিং কর্মকর্তা আবদুল মান্নান জানান, সকাল ১০টার দিকে কেন্দ্রের বাইরে একটি ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। এ ছাড়া মহিলা কেন্দ্রে হইচই হয়।

Share

আরও খবর



চাকমা বর্ণমালায় ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা

প্রকাশিত:রবিবার ২১ ফেব্রুয়ারী 20২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২১ ফেব্রুয়ারী 20২১ | ১৮৬জন দেখেছেন
Share

Image

খাগড়াছড়ি থেকে দিদারুল আলম

মহান শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় শহীদ মিনারে চাকমা বর্ণমালায় লিখা শ্রদ্ধাঞ্জলি দিয়েছে চাকমা সাহিত্য বা নামের একটি সংগঠন।

রবিবার (২১ ফেব্রুয়ারি) মাতৃভাষায় বই এলো শিশুর কোলে, পড়তে চায় এবার তারা স্কুলে স্লোগানে ব্যানার ও চাকমা বর্ণমালার ফেস্টুন হাতে র‍্যালি করে শহীদ মিনারে আসেন চাকমা সাহিত্য বা সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। এসময় র‍্যালিতে থাকা চাকমা শিশুদের হাতে তাদের নিজেদের মাতৃভাষায় লিখা বর্ণমালা সম্বলিত ফেস্টুন দেখা যায়। র‍্যালি ও শ্রদ্ধাঞ্জলি জ্ঞাপনকালে চাকমা সাহিত্য বা এর সভাপতি ইনজেব চাকমা সহ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

নিউজ ট্যাগ: খাগড়াছড়ি চাকমা
Share

আরও খবর
খাগড়াছড়িতে চাঁদের গাড়ি উল্টে নিহত ২

বৃহস্পতিবার ১৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১




লিঙ্গ সমতা ও নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ এখন রোল মডেল

প্রকাশিত:সোমবার ০৮ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০৮ মার্চ ২০২১ | ২৮জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বর্তমান সরকারের সময়ে বাংলাদেশ নারী-পুরুষের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় উন্নয়নের পথে এগিয়ে চলেছে। লিঙ্গ সমতা ও নারীর ক্ষমতায়নে বাংলাদেশ এখন রোল মডেল। আমাদের জাতীয় উন্নয়নের প্রতিটি ক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করতে আমরা নানামুখী পরিকল্পনা ও পদক্ষেপ গ্রহণ করেছি বলে জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

সোমবার (৮ মার্চ) আন্তর্জাতিক নারী দিবস উপলক্ষে দেয়া এক বাণীতে তিনি এসব কথা বলেন।

নারী দিবসে বিশ্বের সকল নারীদের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নারী আন্দোলনের ইতিহাসে আজ এক গৌরবময় দিন। দীর্ঘ কর্মঘণ্টা আর মজুরি বৈষম্যের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে নারী আদায় করেছিল তার অধিকার। আদায় করেছিল বিশ্ব সমীহ। নারী তার মেধা ও শ্রম দিয়ে যুগে যুগে সভ্যতার সকল অগ্রগতি এবং উন্নয়নে করেছে সম-অংশীদারি। আর তাই সারা বিশ্বে বদলে গেছে নারীর প্রতি দৃষ্টিভঙ্গি। এখন নারীর কাজের মূল্যায়ন হচ্ছে, বৃদ্ধি পাচ্ছে স্বীকৃতি।

আন্তর্জাতিক নারী দিবসের এবারের প্রতিপাদ্যর বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, করোনাকালে নারী নেতৃত্ব, গড়বে নতুন সমতার বিশ্বঅত্যন্ত সময়োপযোগী হয়েছে বলে আমি মনে করি।

শেখ হাসিনা বলেন, সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে ক্ষতিগ্রস্ত নারীদের পুনর্বাসন ও ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে ১৯৭২ সালে নারী পুনর্বাসন বোর্ড গঠন করেন। তিনি জাতীয় জীবনের সকল ক্ষেত্রে নারীর সমান অধিকারের বিষয়টি সংবিধানে নিশ্চিত করেন।

শেখ হাসিনা আরও বলেন, বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে জেন্ডার রেসপন্সিভ বাজেট প্রণয়নসহ সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর আওতায় তৃণমূল পর্যায়ের নারীদের আত্মকর্মসংস্থানমূলক কর্মে অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে। হ্রাস পাচ্ছে নারীর দারিদ্র্য। জাতীয় অর্থনীতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে নারীর অংশগ্রহণ। কর্মক্ষেত্রে নারীদের জন্য নির্বিঘ্নে কাজ করার পরিবেশ তৈরি করা হয়েছে। দেশে নারী ও শিশুদের সুরক্ষায় রয়েছে কঠোর আইন এবং আইনের প্রয়োগ। আমরা রাষ্ট্র পরিচালনা, রাজনীতি, কূটনীতি, আইন প্রণয়ন, নীতি নির্ধারণ, প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর উচ্চপর্যায়, অর্থনীতি, সাংবাদিকতা, তথ্যপ্রযুক্তি, শিল্প-সাহিত্য, খেলাধুলা প্রতিটি ক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেছি।

তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক অঙ্গনেও রয়েছে এ দেশের নারীদের ব্যাপক পরিচিতি। চিকিৎসা, রাজনীতি, মানবাধিকার রক্ষা, জাতিসংঘের শান্তিরক্ষা মিশন, খেলাধুলা, এভারেস্ট বিজয়সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে এ দেশের মেয়েরা অর্জন করেছে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি ও সম্মাননা। স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা গ্রহণসহ চলমান প্রকল্পগুলো বাস্তবায়নের মাধ্যমে জোরালো পদক্ষেপ এবং নতুন প্রকল্প ও কর্মসূচি গ্রহণ করে বৈশ্বিক মহামারি কোভিড-১৯ মোকাবিলায় আমরা সফল হয়েছি।

Share

আরও খবর



সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রাষ্ট্র নিয়ে অসত্য তথ্য প্রচারে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলা

প্রকাশিত:বুধবার ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১০৫জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ফেসবুকসহ যেকোনো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অসত্য তথ্য প্রচারে জড়িত বাংলাদেশি নাগরিকদের বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলার প্রস্তাব করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। দেশে ও দেশের বাইরে অবস্থানকারী যারাই এ কাজে জড়িত তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে এ প্রস্তাব করা হয়েছে।

বুধবার (১০ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে অনুষ্ঠিত বৈঠকে বিষয়টি নিয়ে আলোচনায় কমিটির সদস্যরা বলেন, অপপ্রচারের সঙ্গে জড়িতদের কোনোভাবেই ছাড় দেয়া যাবে না। তাদের আইনের আওতায় এনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে হবে।

কমিটির সভাপতি মো. শামসুল হক টুকুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে কমিটির সদস্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, মো. আফছারুল আমীন, মো. হাবিবুর রহমান, সামছুল আলম দুদু, পীর ফজলুর রহমান, নূর মোহাম্মদ, সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ ও বেগম রুমানা আলী এবং সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

কমিটি সূত্র জানায়, বৈঠকে চলমান কোভিড-১৯ পরিস্থিতি ও দেশের সমসাময়িক পরিস্থিতিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অধীন জননিরাপত্তা, সুরক্ষা ও সেবা বিভাগ এবং অন্য সংস্থাগুলোর সার্বিক কার্যক্রমের প্রতিবেদন উপস্থাপন ও আলোচনা করা হয়। এছাড়া ১৯৭১ সালে সংঘটিত মানবতাবিরোধী অপরাধের তদন্তকাজ পরিচালনায় গঠিত তদন্ত সংস্থা, আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের সার্বিক কার্যক্রমের বিষয়েও প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়।

বৈঠকে মাদকাসক্ত আসামিদের বিশেষ অপরাধী হিসেবে আখ্যা দিয়ে তারা যাতে সহজে জামিন না পেতে পারে সে লক্ষ্যে প্রয়োজনে আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণের সুপারিশ করা হয়। এছাড়া আগ্নেয়াস্ত্র বরাদ্দের ক্ষেত্রে সংসদ সদস্যদের অগ্রাধিকার দিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে প্রত্যেক জেলা প্রশাসককে পত্র দেয়ারও সুপারিশ করা হয়েছে।

Share

আরও খবর