আজঃ শুক্রবার ০৫ মার্চ ২০২১
শিরোনাম

করোনায় ২৪ ঘণ্টায় ১৮ জনের মৃত্যু

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৭৫জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

দেশ গত ২৪ ঘণ্টায় করোনা আক্রান্ত হয়ে ১৮ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদফতর। এ সময় করোনা শনাক্ত হয়েছে ৩৯৯ জনের।

মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) অধিদফতর থেকে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, করোনায় এখন পর্যন্ত মারা গেছেন আট হাজার ৩৭৪ জন। আর এখন পর্যন্ত শনাক্ত হলেন পাঁচ লাখ ৪৪ হাজার ১১৬ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর জানায়, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ১২ হাজার ৬৯৮টি। অ্যান্টিজেন টেস্টসহ নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ১২ হাজার ৭৪৮টি। এখন পর্যন্ত ৩৯ লাখ ৭১ হাজার ৫২৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।

গত ২৪ ঘণ্টায় সুস্থ হয়েছেন ৮২৮ জন, এখন পর্যন্ত সুস্থ চার লাখ ৯২ হাজার ৮৮৭ জন।

স্বাস্থ্য অধিদফতর আরও জানায়, শনাক্ত বিবেচনায় গত ২৪ ঘণ্টায় প্রতি ১০০ নমুনায় তিন দশমিক ১৩ শতাংশ এবং এখন পর্যন্ত ১৩ দশমিক ৭০ শতাংশ শনাক্ত হয়েছে। শনাক্ত বিবেচনায় প্রতি ১০০ জনে সুস্থ হয়েছে ৯০ দশমিক ৫৮ শতাংশ এবং মারা গেছেন এক দশমিক ৫৪ শতাংশ।

গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ১০ জন পুরুষ এবং আট জন নারী। এখন পর্যন্ত পুরুষ ছয় হাজার ৩৩৫ জন এবং নারী দুই হাজার ৩৯ জন মৃত্যুবরণ করেছেন।

বয়স বিশ্লেষণে দেখা যায়, মৃত্যুবরণকারীদের মধ্যে ৬০ বছরের ওপরে ১০ জন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে দুই জন, ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে একজন, ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে চার জন এবং ২১ থেকে ৩০ বছরের মধ্যে।

বিভাগ বিশ্লেষণে দেখা যায় ঢাকা বিভাগে ১২ জন, চট্টগ্রামে দুই জন, রাজশাহীতে দুই জন, খুলনায় এক জন এবং রংপুরে এক জন মারা গেছেন।

২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেছেন ১৬ জন এবং দুই জন বাড়িতে মারা গেছেন।

Share

আরও খবর



একই পরিবারের চারজনকে হত্যা : ৬ জনের মৃত্যুদণ্ড

প্রকাশিত:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১১৮জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

কুড়িগ্রামের ভুরুঙ্গামারীতে একই পরিবারের ৪ জনকে কুপিয়ে হত্যা মামলায় ওই পরিবারের এক সদস্যসহ ৬ জনের মৃত্যুদণ্ডাদেশ দিয়েছেন আদালত। একজনকে বেকসুর খালাস দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার দুপুরে এ রায় দেন জেলা দায়রা জজ মো. আব্দুল মান্নান।

এ সময় এ মামলার ৭ আসামির মধ্যে ৬ জন আদালতে উপস্থিত ছিল। মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত এক আসামি শুরু থেকেই পলাতক। তিনজন জেলে ও তিনজন জামিনে ছিলেন।

২০১৪ সালের ১৫ জানুয়ারি ভোরে ভুরুঙ্গামারী উপজেলার দিয়াডাঙ্গা গ্রামের সুলতান মন্ডল, তার নাতনী রোমানা ও আনিকার ক্ষতবিক্ষত মরদেহ শোবার ঘরে পাওয়া যায়। হাসপাতালে নেয়ার পথে মারা যান সুলতানের স্ত্রী হাজেরা বেগম।

এ ঘটনায় নিহতের ছেলে হাফিজুুর রহমান অজ্ঞাতদের আসামি করে ভুরুঙ্গামারী থানায় মামলা করেন। পরে একই এলাকার চান্দ মিয়া নামে এক ব্যবসায়ী হত্যা মামলায় দুজনকে গ্রেপ্তার করলে তারা সুলতান হত্যাকাণ্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে।

নিহত সুলতানের ভাই মমতাজ ভাড়াটে খুনি দিয়ে এদের রাতে হত্যা করায় বলে স্বীকার করলে এ রায় দেন আদালত।

আসামিরা হলেন- মমতাজ উদ্দিন, নজরুল ইসলাম মজনু ওরফে মনজু, আমীর হামজা ওরফে আমির হোসেন, জাকির হোসেন ওরফে রাসেল খান, জালাল গাজী ওরফে পলাশ গাজী, হাসমত আলী শেখ।

মামলাটি রাষ্ট্রপক্ষে পরিচালনা করেন অ্যাডভোকেট এসএম আব্রাহাম লিংকন। আসামি পক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট আজিজুর রহমান দুলু, মনোয়ারুল হক আলো, আমীর আলী, এটিএম এরশাদুল হক চৌধুরী শাহিন, আসাদুল হক।

Share

আরও খবর
অবশেষে জামিন পেলেন কার্টুনিস্ট কিশোর

বৃহস্পতিবার ০৪ মার্চ ২০২১




০১ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত ৫টি ইলিশ অভয়াশ্রমে ইলিশসহ সকল প্রকার মাছ ধরা নিষিদ্ধ

প্রকাশিত:রবিবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:রবিবার ২৮ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১১৭২জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

ইলিশ সম্পদের উন্নয়নে জাটকা সংরক্ষণের জন্য ০১ মার্চ থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত দুই মাস দেশের ৬টি জেলার ৫টি ইলিশ অভয়াশ্রমে ইলিশসহ সব ধরণের মাছ আহরণ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ থাকবে। এ নিষেধাজ্ঞার আওতায় বরিশাল, চাঁদপুর, লক্ষ্মীপুর, ভোলা, শরীয়তপুর ও পটুয়াখালী জেলার ইলিশ অভয়াশ্রম সংশ্লিষ্ট নদ-নদীতে ইলিশসহ সব ধরণের মাছ ধরা বন্ধ থাকবে।

পাঁচটি অভয়াশ্রম এলাকা হচ্ছে চাঁদপুর জেলার ষাটনল হতে লক্ষীপুর জেলার চর আলেকজান্ডার পর্যন্ত মেঘনা নদীর নিম্ন অববাহিকার ১০০ কিলোমিটার এলাকা, ভোলা জেলার মদনপুর/চর ইলিশা হতে চর পিয়াল পর্যন্ত মেঘনা নদীর শাহবাজপুর শাখা নদীর ৯০ কিলোমিটার এলাকা, ভোলা জেলার ভেদুরিয়া হতে পটুয়াখালী জেলার চর রুস্তম পর্যন্ত তেঁতুলিয়া নদীর প্রায় ১০০ কিলোমিটার এলাকা, শরীয়তপুর জেলার  নড়িয়া ও ভেদরগঞ্জ উপজেলা  এবং চাঁদপুর জেলার মতলব উপজেলার মধ্যে অবস্থিত পদ্মা নদীর ২০ কিলোমিটার এলাকা এবং বরিশাল জেলার হিজলা, মেহেন্দীগঞ্জ ও বরিশাল সদর উপজেলার কালাবদর, গজারিয়া ও মেঘনা নদীর প্রায় ৮২ কিলোমিটার এলাকা। প্রতিবছর মার্চ ও এপ্রিল দুই মাস উল্লিখিত অভয়াশ্রমে ইলিশসহ সব ধরণের মাছ আহরণ সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ থাকে। এসময় ইলিশের অভয়াশ্রমসমূহে ইলিশসহ সকল প্রকার মাছ ধরা আইনত দন্ডনীয় অপরাধ। আইন অম্যান্যকারী কমপক্ষে ১ বছর থেকে সর্বোচ্চ ২ বছরের সশ্রম কারাদন্ড অথবা পাঁচ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানা অথবা উভয় দন্ডে দন্ডিত হবেন।

উল্লেখ্য, নিষিদ্ধ সময়ে অভয়াশ্রম সংশ্লিষ্ট ৬টি জেলার জাটকা আহরণে বিরত থাকা ২ লক্ষ ৪৩ হাজার ৭৭৮জন জেলেদের জন্য মাসে ৪০ কেজি করে দুই মাসে ৮০ কেজি হারে মোট ১৯ হাজার ৫০২ মেট্টিক টন ভিজিএফ চাল ইতোমধ্যে বরাদ্দ করেছে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়।

Share

আরও খবর



পিকে হালদারের ১৩ মিনিটের বর্ডার ভাগ্য

প্রকাশিত:সোমবার ০১ মার্চ ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ০১ মার্চ ২০২১ | ৫৬৭জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর নয়, যশোরের বেনাপোল স্থলবন্দর দিয়ে সড়ক পথে দেশত্যাগ করেছেন এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংক ও রিলায়েন্স ফাইন্যান্স লিমিটেডের সাবেক ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) প্রশান্ত কুমার হালদার ওরফে পি কে হালদার।

সোমবার (১ মার্চ) ইমিগ্রেশন পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ অ্যাটর্নি জেনারেল কার্যালয়কে এ তথ্য জানিয়েছে। বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদারের নেতৃত্বাধীন হাইকোর্ট বেঞ্চে আগামী ১৫ মার্চ এ বিষয়ে শুনানি হবে।

বিষয়টি গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক। তিনি বলেন, পি কে হালদার ২০১৯ সালের ২৩ অক্টোবর বিকেল ৩টা ৪৭মিনিটে দেশত্যাগ করেন। দেশত্যাগের সময় পিকে হালদার বাংলাদেশি পাসপোর্ট ব্যবহার করেছেন।

নিউজ ট্যাগ: পি কে হালদার
Share

আরও খবর



ঢাকা টেস্টে ফিল্ডিংয়ে নেমেছে বাংলাদেশ

প্রকাশিত:বৃহস্পতিবার ১১ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:মঙ্গলবার ১৬ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ৯৯জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

চট্টগ্রাম টেস্টের ক্ষত সেরে ওঠার ম্যাচে টসে হেরে ফিল্ডিংয়ে নেমেছে বাংলাদেশ। সাগরপারে প্রথম টেস্টে টস জিতে ব্যাটিংয় নিয়েছিল টাইগাররা। কিন্তু ঢাকা টেস্টে সেই ধারাবাহিকতা আর থাকলো না। টস ভাগ্যটা ওয়েস্ট ইন্ডিজের কপালেই জুটেছে।

ক্যারিবিয়দের বিপক্ষে ওয়ানডে সিরিজ ০-৩ ব্যবধানে জিতলেও আজ বৃহস্পতিবার টেস্ট সিরিজ বাঁচানোর লক্ষ্যে মাঠে নামছে বাংলাদেশ। একদিকে ঝুঁকির মধ্যে থাকা সিরিজ, তার ওপর চোটে বিপর্যস্ত স্বাগতিকরা। তবুও আজ শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে শুরু হওয়া সিরিজের দ্বিতীয় ও শেষ টেস্টে উড়তে থাকা ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ঘুরে দাঁড়ানোর প্রত্যয়ে দীপ্ত টাইগাররা।

দলের জন্য মহাগুরুত্বপূর্ণ এ ম্যাচের দুই দিন আগে নাম প্রত্যাহার করে নিতে বাধ্য হয়েছেন অভিজ্ঞ অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। আর ম্যাচ শুরুর আগ মুহূর্তে বাংলাদেশের জন্য আরেকটি ধাক্কা হলো- ইনজুরির কারণে দল থেকে ছিটকে গেছেন ওপেনার সাদমান ইসলাম অনিক। চট্টগ্রামে প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে হাফ সেঞ্চুরি হাঁকানো সাদমান বেশ ভালো ফর্মেই ছিলেন।

এদিকে, সাকিবের বদলি হিসেবে দলে নেয়া হয়েছে সৌম্য সরকারকে। তবে সাদমানের বদলি হিসেবে নেয়া হয়েছে মোহাম্মদ মিথুনকে। এছাড়া মোস্তাফিজুর রহমানকে বসিয়ে নেয়া হয়েছে আবু জায়েদ রাহীকে।

চট্টগ্রাম টেস্টে হারার পর ঢাকা টেস্টে জয় ছাড়া বিকল্প ভাবার সুযোগ নেই। ম্যাচ পূর্ববর্তী আলাপনে অধিনায়ক মোমিনুল হক তাই স্পষ্টত বলে দিলেন, ম্যাচ জেতার জন্য সবাই উদগ্রীব।

বাংলাদেশ দলের অধিনায়ক বলেন, সিরিজ বাঁচাতে হলে আমাদেরকে ঘুরে দাঁড়াতে হবে। আমাদের বোলিং, ব্যাটিং, ফিল্ডিং তিন বিভাগেই ভাল করতে হবে। আশা করছি দ্বিতীয় টেস্টে আমরা নিজেদের সেরাটাই ঢেলে দিতে পারব।

সম্প্রতি তিন ম্যাচের ওয়ানডে এবং ২০১৮ সালে বাংলাদেশ সফরে দুই ম্যাচ টেস্ট সিরিজে হোয়াইটওয়াশ হওয়া ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে প্রথম টেস্টে স্পস্টতই ফেভারিট হিসেবে মাঠে নেমেছিল টাইগাররা। কিন্তু অভিষেক টেস্ট খেলতে নামা কাইল মায়ার্সের রেকর্ড ভাঙ্গা অপরাজিত ২১০ রানের ইনিংসটি বাংলাদেশ দলকে মাটিতে নামিয়ে আনে। স্বাগতিকরা এতটাই হতাশ যে, কি ঘটেছে প্রথমে সেটা বুঝতেই পারেনি।

তবে আশার কথা হচ্ছে- বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড়রা সেটা কাটিয়ে উঠেছে এবং দ্বিতীয় টেস্ট জয়ের ব্যাপারে আত্মবিশ্বাসী। সাকিবকে মাঠে পাওয়া যাবেনা সেটা জানা সত্ত্বেও দ্বিতীয় ম্যাচ জয়ে আত্মবিশ্বাসী টাইগাররা। অধিনায়ক মোমিনুলসহ দলের প্রায়ই সকলেই স্বীকার করেছেন যে, চট্টগ্রাম টেস্টের পঞ্চম দিন সাকিবের অনুপস্থিতির কারণেই ক্যারিবিয় ব্যাটসম্যানরা এমন সাবলীল খেলতে পেরেছে।

এ পর্যন্ত ১২০টি টেস্টে মাত্র ১৪টি জিতেছে বাংলাদেশ। বিপরীতে হেরেছে ৯০ টেস্ট, যার মধ্যে ৪৩টি ইনিংস ব্যবধানে। বাকি ১৬টি করেছে ড্র। এ পরিসংখ্যান থেকেই বুঝা যায়- লংগার ভার্সনে বাংলাদেশ কতটা দুর্বল। তবে ওয়েস্ট ইন্ডিজ কোচ ফিল সিমন্সের মতে, নিজ মাঠে বাংলাদেশ দল এখনও শক্তিশালী। সিমন্স বলেছেন, প্রথম টেস্টে ফল যেটাই হোক না কেন, দ্বিতীয় ম্যাচে স্বাগতিকরা ঘুরে দাঁড়াবে।

প্রথম ম্যাচ জিততে পারলে আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপে প্রথম পয়েন্ট অর্জন করতে পারত বাংলাদেশ। তবে সেটা সম্ভব হয়নি। বাংলাদেশ দলের এখন লক্ষ্য হচ্ছে- দ্বিতীয় ম্যাচ জিতে সিরিজে সমতা আনা এবং চ্যাম্পিয়নশিপে প্রথম পয়েন্ট অর্জন।

এ বিষয়ে মোমিনুল বলেন, যেটা চলে গেছে সেটা নিয়ে চিন্তা ভাবনা না করাই ভালো। অতীতের পজিটিভ জিনিস নিয়ে সামনে এগোতে চাই। দলের সবাই পজিটিভ আছে। কালকের টেস্টে ইনশাআল্লাহ ভালো রেজাল্ট করব।

বাংলাদেশ একাদশ :

তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, নাজমুল হোসাইন শান্ত, মোমিনুল হক সৌরভ (অধিনায়ক), মুশফিকুর রহিম, লিটন দাস (উইকেটকীপার), মোহাম্মদ মিঠুন, মেহেদী হাসান মিরাজ, নাঈম হাসান, তাইজুল ইসলাম ও আবু জায়েদ চৌধুরী রাহী।

ওয়েস্ট ইন্ডিজ একাদশ :

ক্রেইগ ব্রাথওয়েট (অধিনায়ক), জন ক্যাম্পবেল, শায়নে মোসেলে, এনক্রুমাহ বনার, কাইল মায়ার্স, জার্মেইন ব্ল্যাকউড, জশুয়া ডা সিলভা (উইকেটকীপার), রাহকিম কর্নওয়াল, আলজারি জোসিপ, জোমেল ওয়ারিক্যান ও শ্যানন গ্যাব্রিয়েল।

নিউজ ট্যাগ: বাংলাদেশ
Share

আরও খবর



মার্কিন সেনাপ্রধানের সঙ্গে জেনারেল আজিজের সাক্ষাৎ

প্রকাশিত:রবিবার ০৭ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | হালনাগাদ:সোমবার ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২১ | ১১২জন দেখেছেন
Share
দর্পণ নিউজ ডেস্ক

Image

বাংলাদেশের সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ মার্কিন সেনাপ্রধান জেমস চার্লস ম্যাককনভিলের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেছেন।

স্থানীয় সময় শনিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) পেন্টাগনে সাক্ষাৎকালে দুই দেশের সেনাবাহিনীর মধ্যকার সম্পর্ক আরো জোরদার এবং পারস্পরিক সহযোগিতার বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। দুই সেনাপ্রধান একে অপরকে ক্রেস্ট উপহার দিয়েছেন এবং পরে তাঁরা নৈশভোজে অংশ নেন।

যুক্তরাষ্ট্রের সেনাবাহিনী প্রধানের আমন্ত্রণে বাংলাদেশের সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ গত ২৯ জানুয়ারি ঢাকা ছাড়েন। তিনি যুক্তরাষ্ট্রে পোঁছার দু'দিন পরেই কাতারভিত্তিক গণমাধ্যম আল-জাজিরা টেলিভিশনে গত সোমবার (১ ফেব্রুয়ারি) প্রচারিত প্রতিবেদনে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদসহ বাংলাদেশের শীর্ষ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ তোলা হয়। যুক্তরাষ্ট্র সফররত জেনারেল আজিজ আহমেদ এখন পর্যন্ত আল-জাজিরায় প্রচারিত প্রতিবেদন নিয়ে মুখ খোলেননি বা তিনি কোন মন্তব্য করেননি।

এদিকে, যুক্তরাষ্ট্র সফরকালে তিনি বাংলাদেশ দূতাবাস, মিশন ও কন্সুলেটে কোনো সভায় অংশ নেবেন কিনা যোগাযোগ করেও তা জানা সম্ভব হয়নি। যুক্তরাষ্ট্রের বাংলা গণমাধ্যমের সংবাদকর্মিরাও বাংলাদেশের সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের অন্যান্য কর্মসূচির কথা জানেন না।

মার্কিন সেনাপ্রধানের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের পাশাপাশি তিনি অফিস অব দ্য সেক্রেটারি অব ডিফেন্স ফর পলিসি সাউথ ও সাউথইস্ট এশিয়াতে আঞ্চলিক প্রতিরক্ষা এবং দুই দেশের পারস্পরিক সামরিক সহযোগিতা বিষয়ক আলোচনায় অংশ নিয়েছেন। তিনি মার্কিন সেনাবাহিনীর বিভিন্ন সামরিক স্থাপনা ও প্রশিক্ষণ কেন্দ্র পরিদর্শন করছেন।

যুক্তরাষ্ট্রে অবস্থানকালে জেনারেল আজিজ জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনের মিলিটারি অ্যাডভাইজার এবং আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেলদের সঙ্গেও মতবিনিময় করছেন। শান্তিরক্ষা মিশনে বাংলাদেশি সদস্য সংখ্যা বৃদ্ধি, বিভিন্ন শান্তিরক্ষা মিশন সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা এবং নীতি নির্ধারণী পর্যায়ে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব বাড়াতে এ সফর গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে আশাবাদ ব্যক্ত করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র সফর শেষে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদ আগামী ১২ ফেব্রুয়ারি দেশে ফিরবেন।

Share

আরও খবর